Home » নিউজ (page 65)

নিউজ

সিলেটে শিক্ষিকা নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ।গ্রেফতার দাবী

সিলেট প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপ1জেলায় দুই স্কুলশিক্ষিকাকে নির্যাতন ও লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে সিলেটে মানববন্ধন করেছেন শিক্ষকরা।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর চৌহাট্টাস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে ‘সিলেট জেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দের’ ব্যানারে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

মানববন্ধন চলাকালে সমাবেশে বক্তব্য দেন শিক্ষক নেতা  আবুল হোসেন, ওয়েছ আহমদ চৌধুরী জেসমিন সুলতানা, শামসুল আলম, প্রমথেশ দত্ত, শেফালী বেগম প্রমুখ। মানববন্ধন শেষে শিক্ষকরা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেন।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষকদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। গত ৩ মার্চ সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার নোয়াগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক দিপালী রাণী দাস ও মনি রাণী তালুকদারকে শ্রেণিকক্ষে পাঠদানরত অবস্থায় নির্মমভাবে নির্যাতন ও লাঞ্ছিত করে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেওয়া হয়। এর নেতৃত্বে ছিলেন বিদ্যালয়ের সভাপতি সর্বানন্দ তালুকদার। কিন্তু জড়িতদের বিরুদ্ধে এখনো কোনো আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

শেষে শিক্ষকরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দেশের সব শিক্ষকদের নিরাপত্তা কামনা করেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষা সফরে গিয়ে জবির ছাত্রী যৌন হয়রানীর শিকার

কক্সবাজার প্রতিনিধি : কক্সবাজার জেলার টেকনাফে  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক ছাত্রী  যৌন হয়রানীর শিকার হয়েছেন। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের  মাস্টার্স এর শিক্ষার্থী। আজ রোববার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে।

যৌন হয়রানীহয়রানীর সাথে জড়িত মো. সাহেদ নামে এক ব্যক্তিকে আটকের পর গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। আটক ব্যক্তির বাড়ি বগুড়া জেলায়। তিনি সরকারি আজিজুল কলেজের মার্স্টাস এর শিক্ষার্থী। কয়েক জন বন্ধু নিয়ে টেকনাফে বেড়াতে গিয়ে এই ঘটনাটি ঘটিয়েছেন।

অভিযোগে জানা যায়, গত পাঁচ দিন আগে ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে  শিক্ষা  সফরে আসে কক্সবাজারে।  বিভিন্ন জায়গায় বেড়ানো শেষে শনিবার টেনাফে যায়।

আজ রোববার সেখান থেকে সন্ধ্যায় ঢাকার উদ্দেশে ফেরার আগে এ ঘটনার শিকার হন।

টেকনাফ থানা পুলিশ জানিয়েছে, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে বগুড়া সরকারি আজিজুল কলেজের ছাত্র সাহেদকে জবির শিক্ষার্থীরা  আটক করে। এরপর খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে তাকে জিজ্ঞাসা বাদ করা হচ্ছে বলে জানায় পুলিশ।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

প্রাথমিকের ৪০ হাজার প্রধান শিক্ষক হতাশাগ্রস্থ

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের প্রায় ৪০ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তার পদমর্যাদাসহ পাঁচ দফা দাবি জানিয়ে আসছেন তারা। এ নিয়ে দীর্ঘদিন আন্দোলন করেও কোনো সাফল্য না পেয়ে ক্ষোভ ও হতাশা  বাড়ছে তাদের মাঝে। এ প্রসঙ্গে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, শিক্ষকদের দাবির বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে কাজ চলছে। এ বিষয়ে দৃশ্যমান অগ্রগতি হলেই সবাইকে জানানো হবে। শিক্ষকদের হতাশ বা ক্ষোভ প্রকাশ না করে তাদের দায়িত্বে মনোনিবেশ করা উচিত।
বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির তথ্যানুযায়ী, শিক্ষকদের পাঁচ দফা দাবি হচ্ছে প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তার পদমর্যাদা দেওয়া; বিদ্যমান একাদশ গ্রেড থেকে বেতন কাঠামো দশম গ্রেডে উন্নীত করা; সেলফ ড্রয়িং কর্মকর্তার ক্ষমতা প্রদান; নতুন নিয়োগবিধি অনুযায়ী শতভাগ বিভাগীয় পদোন্নতির বিধান চালু, অষ্টম পে-স্কেলে সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল পুনর্বহাল ইত্যাদি।
বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির মহাসম্পাদক সালেহা আক্তার দৈনিক বর্তমানকে জানান, প্রাথমিক শিক্ষকদের মর্যাদা বাড়ানো এবং তাদের জীবনমানের উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী দেশের বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোকে সরকারিকরণের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রী একই সঙ্গে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল এক ধাপ এবং প্রধান শিক্ষকদের বেতন স্কেল দুই ধাপ বাড়িয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা দেওয়ারও ঘোষণা দেন। কিন্তু ওই ঘোষণা বাস্তবায়নে কালক্ষেপণ করছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

রাজধানীর বাইরের এক প্রধান শিক্ষক তাছলিমা আক্তার বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেহেতু দ্বিতীয় শ্রেণির ঘোষণা দিয়েছেন, তাই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগসহ সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করবে পাবলিক সার্ভিস কমিশন (পিএসসি)। কিন্তু এখনো তা নিয়ন্ত্রণ করছে অধিদপ্তর।

পদমর্যাদা বাস্তবায়ন এবং পদোন্নতির দাবিতে গত বছর ১ অক্টোবর চেয়ার বর্জন ও ৩ থেকে ৫ অক্টোবর সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টা করে কর্মবিরতি পালন করেছেন প্রধান শিক্ষকরা। এরপর প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানের আশ্বাসে এসব কর্মসূচি স্থগিত করেন তারা।
বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির আহ্বায়ক রিয়াজ পারভেজ জানান, প্রধান শিক্ষকদের দশম গ্রেডে ১৬ হাজার টাকা বেতন স্কেল নির্ধারণের পাশাপাশি বৈষম্য নিরসনেরও দাবি জানানো হয়েছে। প্রধান শিক্ষক পদটি ব্লক পদ হওয়ায় বর্তমান বেতন স্কেলে টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাদ দেওয়ার কারণে প্রধান শিক্ষকরা একই পদে ও গ্রেডে থেকে চরম বেতন বৈষম্যের শিকার হবেন। এ কারণে প্রধান শিক্ষকদের মধ্যে হতাশা ও অসন্তোষ বিরাজ করছে।
বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির খুলনা বিভাগীয় সম্পাদক স্বরুপ দাস জানান, ২০১৪ সালে শিক্ষা সপ্তাহের অনুষ্ঠানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদা এবং স্কেল ঘোষণা করেন। কিন্তু আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে তা বাস্তবায়ন না হওয়ায় সারা দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষদের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। আমাদের দাবির বিষয়ে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি দিয়েছি। এরপর শুনছি, আমাদের নন-গেজেটেড দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা দেওয়া হচ্ছে। আমরা দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড পদমর্যাদা চাই।
শিক্ষকদের তথ্যানুযায়ী, সারা দেশে ৬৩ হাজার ৮৬৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ৪০ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পাঁচ দফা দাবি রয়েছে। বাকি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক (সহকারী শিক্ষক) থাকায় তারা এই দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করছেন না। তাদেরও দাবি আছে, সেটা হলোÑ প্রধান শিক্ষকদের এক গ্রেড নিচে বেতন স্কেল চান সহকারী শিক্ষকরা।
প্রধান শিক্ষকদের দাবির বিষয়ে নাম না প্রকাশ করার শর্তে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আমাদের সময়কে জানান, গত ৭ ফেব্রুয়ারি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের উন্নীত বেতন স্কেলে জটিলতা নিরসনের বিষয়ে অর্থ বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি এখনো নিষ্পত্তি না হওয়ায় কোনো ঘোষণা দেওয়া যাচ্ছে না। শিক্ষকদের দাবির বিষয়ে যেহেতু মন্ত্রণালয় কাজ করছে, তাই শিক্ষকদের আন্দোলন, ক্ষোভ-হতাশা প্রকাশ না করে স্ব-স্ব কাজে মনোনিবেশ করার তাগিদ দিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল ওই কর্মকর্তা।
এদিকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ দেশের বাইরে থাকায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদায় (দশম গ্রেড) বেতন নির্ধারণের বিষয়ে এখনই বলা যাচ্ছে না। সচিব ফিরলেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
প্রসঙ্গত, প্রধান শিক্ষকদের গেজেটেড দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা দেওয়ার বিষয়ে সহকারী থানা শিক্ষা কর্মকর্তারাও আপত্তি তুলেছেন। কেননা তারা দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা। প্রধান শিক্ষকদের সমান মর্যাদা দিলে প্রতিষ্ঠান তদারকিতে বাস্তব সমস্যা দেখা দিতে পারে।psc5
Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ট্রেনের ধাক্কায় বুয়েট শিক্ষার্থী নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক: raillineতানভির গহর তপু (২৩) নামে বুয়েটের এক শিক্ষার্থী ট্রেনের ধাক্কায় নিহত হয়েছেন। বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টায় মগবাজার ওয়্যারলেস গেট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও মেডিকেল সূত্র জানায়, সকাল সাড়ে ১০ টায় মগবাজারের বাসা থেকে বের হয়ে তানভির ওয়্যারলেস রেল গেট পার হওয়ার সময় ট্রেনের ধাক্কায় তিনি আহত হন। উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় বেসরকারি ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।
তপু বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। তার বাবা মোহাম্মদ আলী গহর। গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার কোতোয়ালী উপজেলায়।
Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

কলেজ শিক্ষকদের কর্মবিরতি

ঢাকা: বেতন ও পদমর্যাদা সমস্যা নিরসনের দাবিতে পূর্বঘোষণা অনুযায়ী আজ সোমবার থেকে দুই দিনের পূর্ণদিবস কর্মবিরতি শুরু করেছেন সরকারি কলেজের শিক্ষকেরা।

সরকারি কলেজ শিক্ষকদের সংগঠন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির ডাকে সারাদেশে এই কর্মসূচি পালিত হচ্ছে বলে দাবি সংগঠনের নেতাদের।

সমিতির মহাসচিব আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার আজ বলেন, তাঁর কাছে যে খবর আছে, তাতে আজ দেশের সব সরকারি কলেজে শিক্ষকেরা সংগঠনের পূর্বঘোষিত কর্মসূচি পালন করছেন। আগামীকাল মঙ্গলবারও এই কর্মসূচি চলবে। এর মধ্যেও দাবি পূরণ না হলে আগামী ২২ জানুয়ারি সমিতির সাধারণ সভায় আরও কঠোর কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

রাজধানীর মিরপুর বাংলা কলেজের শিক্ষক ও ২৪ তম বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মনিরুল আলম বলেন, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে তাঁর কলেজে আজ কোনো ক্লাস হচ্ছে না।

ঢাকা কলেজে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সেখানেও আজ কোনো ক্লাস হচ্ছে না।

সাধারণত সরকারি কলেজের অধ্যাপকেরা চতুর্থ গ্রেডের কর্মকর্তা। সিলেকশন গ্রেড থাকায় এত দিন মোট অধ্যাপকদের মধ্যে ৫০ শতাংশ অধ্যাপক গ্রেড-৩-এ যেতে পারতেন। কিন্তু সিলেকশন গ্রেড বাদ দেয়ায় এখন এই পথ বন্ধ হয়ে গেছে। এ নিয়ে কয়েক মাস ধরেই আন্দোলন করছেন কলেজ শিক্ষকেরা।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

জাতীয় বেতন স্কেল-২০১৫ : ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ৪০ হাজার প্রাথমিক প্রধান শিক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক: অষ্টম জাতীয় বেতন স্কেলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় চল্লিশ হাজার প্রধান শিক্ষক আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। শুক্রবার বিবৃতিতে বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির আহবায়ক রিয়াজ পারভেজ ও যুগ্ন আহবায়ক স্বরুপ দাস এ তথ্য জানান।
শিক্ষক নেতারা বলেন, প্রধান শিক্ষকদের বেতন নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার কোনো সমাধান হয়নি। প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদা দেওয়ায় ২০১৪ সালের ৯ মার্চের পর থেকে তাদের টাইম স্কেল বন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া নতুন বেতন স্কেলে কোন প্রধান শিক্ষক ৬৪০০ স্কেলে আবার কেউবা ৮০০০ স্কেলে বেতন নিয়ে বৈষম্য সৃষ্টি করেছে। বিষয়টি সমাধানের জন্য নেয়া হয়নি কোন পদক্ষেপ।
তারা বলেন, দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদার পর বেতন নির্ধারণে জটিলতা দূর করাতে প্রাথমিক গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ে একাধিকবার আবেদন ও বৈঠক করা হয়েছে। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের অনীহার কারণে সমস্যার সমাধান হয়নি। এনিয়ে দুই মন্ত্রণালয়ের কাজ চিঠি চালাচালির মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। তারা বলেন,প্রধান শিক্ষকদের গেজেটেড মর্যাদাসহ বেতন নির্ধারণের এ জটিলতা অবিলম্বে সমাধান করা না হলে বাংলাদেশ প্রাথমিক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আবারও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করতে বাধ্য হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

জাল-জালিয়াতির কারণে ২ হাজার ৪’শ ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল

নিজস্185136freedomব প্রতিবেদক: জাল-জালিয়াতির কারণে ইতোমধ্যে ২ হাজার ৪শ’ ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল করা হয়েছে। আগামী ২৬ মার্চের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের নতুন তালিকা প্রকাশ করা হবে। আরো তদন্ত চলছে যারা মুক্তিযোদ্ধার নামে অসাধুতার মাধ্যমে সুযোগ-সুবিধা নিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধেও আইনানুগ ব্যবস্থা নিবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী এডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ সব কথা জানিয়েছেন।
মোজাম্মেল হক বলেন, জাল-জালিয়াতি বন্ধের লক্ষ্যে প্রত্যেক মুক্তিযোদ্ধাকে নতুন করে ডিজিটাল সনদ পত্র ও পরিচয় পত্র প্রদানসহ বিশেষ নাগরিকের মর্যাদা দেয়া হবে।
মন্ত্রী বলেন, দেশের সকল মুক্তিযোদ্ধাদের ‘ওয়ার হিরো’ খেতাব দিয়ে বিশেষ নাগরিকের মর্যাদা দিতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিকে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুর পর দেশের সব এলাকায় একই ডিজাইনের কবরে তাদের দাফন করার ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নেয়া হবে। আগামী বছরের মার্চ মাস থেকে এই উদ্যোগ নেয়া হবে বলে মন্ত্রী জানান।
গত ৪৪ বছরে প্রায় ২৮ হাজার মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত হয়েছেন। দেশে বর্তমানে প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার মুক্তিযোদ্ধা জীবিত রয়েছেন। এরমধ্যে ১৯৭১ সালের ভারতীয় তালিকার সাথে বাংলাদেশের তালিকা যাচাই-বাছাই করে সঠিক মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রস্তুত করা হবে। হাইকোর্টে একটি মামলার কারণে তালিকা ছুড়ান্তকরণের কাজ বিঘিœত হচ্ছে বলে মন্ত্রী মন্তব্য করেন।
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযোদ্ধার নামে আগে বীর মুক্তিযোদ্ধা লিখার জন্য আইন প্রণয়ন করা হবে। এছাড়া,দেশের প্রতিটি এলাকায় যেখানে সম্মুখ যুদ্ধ ও গণকবর রয়েছে সেখানে স্মৃতি সৌধের পাশাপাশি স্বাধীনতা বিরোধীদের ঘৃণা জানাতে ঘৃণা স্তম্ভ তৈরি করা হবে।
তিনি বলেন, দেশের সব জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসিক পল্লী তেরি করার জন্য বিশেষ কর্মসূচি ও প্রকল্প হাতে নেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রায় ১৫০ কোটি টাকার একটি আবাসিক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ৬৪ টি জেলায় এবং ৩শ’২২টি উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নিজস্ব কমপ্লেক্সে তৈরির কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে।
তিনি বলেন, আগামী বছর থেকে সকল মুক্তিযোদ্ধা ১০ হাজার টাকা করে ভাতা পাবেন। সকল মুক্তিযোদ্ধার চিকিৎসা সেবা ফ্রি করা হচ্ছে। সন্তানদের উচ্চ শিক্ষায় ফ্রি সুবিধা দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েও মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য বিশেষ ফ্রি কোটা ব্যবস্থা চালু হয়েছে। আগামীতে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের জন্য সকল ক্ষেত্রে বিশেষ সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হবে বলে তিন উল্লেখ করেন।
তিনি বলেন, পাঠ্য পুস্তকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস লেখার পাশাপাশি স্বাধীনতা বিরোধীদের ভূমিকাসহ রাজাকার আলবদর আল শামসের নামও প্রকাশ করা হবে। রাজাকারের তালিকা প্রস্তুতের জন্য শিগগিরই তথ্য সংগ্রহ করে চুড়ান্ত করা হবে। তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শেষে তাদের সকল সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। তিনি বলেন, দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় সংঙ্গীত ও জাতীয় পতাকার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর বিষয়টি বাধ্যতামূলক করা হবে।
মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের জন্য রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দেয়ার জন্য সব সময়ই মন্ত্রণালয়কে উদ্যোগ নেয়ার জন্য তাগিদ দেন বলে মন্ত্রী জানান।
তিনি বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিশু পার্কটি পাশের রমনা উদ্যানে স্থানান্তর করা হবে। বাংলাদেশের স্বাধিকার আন্দোলনের স্মৃতি বিজড়িত মহান স্বাধীনতা স্তম্ভকে আন্তর্জাতিক মানের স্মৃতিস্তম্ভ হিসেবে তৈরি করার লক্ষ্যে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ।
আ ক ম মোজাম্মেল হক ১৯৭১ সালের ঊনিশে মার্চ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ যুদ্ধের জয়দেবপুরে নেতৃত্ব দেন এবং বিজয় দিবসের একদিন আগে ১৪ ও ১৫ ডিসেম্বর জয়দেবপুরের মালেকের বাড়ি এলাকায় প্রচন্ড যুদ্ধেঅংশ নেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের আগে তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে ৬দফা আন্দোলনসহ বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে বিরাট ভূমিকা রাখেন। তিনি সেই সময় সংগ্রাম কমিটির জয়দেবপুরের আহবায়ক হিসেবে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে ঊনিশে মার্চ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ যুদ্ধ গড়ে তুলেন। – See more at: http://www.kalerkantho.com/online/national/2015/12/17/302928#sthash.XYSMcXvV.dpuf
Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

বেতন-পেনশন নিরূপণে অনলাইন পদ্ধতির উদ্বোধন

ঢাকা: সরmuhidকারি কর্মচারীদের বেতন ও পেনশন নিরূপণে অনলাইন পদ্ধতির প্রবর্তন করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এ পদ্ধতির মাধ্যমে ১১ লাখ সরকারি কর্মচারী নিজেই অনলাইনে অষ্টম বেতন কাঠামোয় নিজের বেতন ও পেনশন কত দাঁড়াল, তা নিরূপণ করতে পারবেন। পাশাপাশি অনলাইন ব্যাংকিং সুবিধা নিয়ে অফিস বা ঘরে বসে বেতন-ভাতা তুলতে পারবেন।

আজ সচিবালয়ে এ পদ্ধতির উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, ‘প্রশাসনিক ব্যবস্থার ২৬৮ বছর পর আমরা একটি নতুন পদ্ধতিতে প্রবেশ করলাম। এতদিন কর্মচারীদের বেতন-ভাতা নিরূপণ ও ওঠাতে গিয়ে যে বিড়ম্বনা পোহাতে হতো, আজ তার অবসান হলো।’

অর্থ মন্ত্রণালয়ের এ পদ্ধতিতে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে মোবাইল ফোনের নম্বর লিখলেই ব্যাংকের হিসাব নম্বরের সব তথ্য চলে আসেবে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. সফিউল আলম, অর্থ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মাহবুব আহমেদ, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দুই কিস্তিতে মিলবে পাঁচ মাসের বকেয়া

সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থায় কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অষ্টম জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫-এর গেজেট জারি করেছে সরকার। তাতে মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সর্বনিম্ন ২০ নম্বর গ্রেডে মূল বেতন ৮,২৫০ টাকা ও সর্বোচ্চ এক নম্বর গ্রেডে ৭৮,০০০ (নির্ধারিত) টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত গেজেট ছাপানোর কাজ চলছিল। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মো. শাহেদুর রহমান গতকাল বিকেলে  বলেন, সোমবার সন্ধ্যায় সরকারি আদেশ জারির পর ওই দিনই তা বই আকারে ছাপানোর জন্য বিজি প্রেসে পাঠানো হয়েছে।

গেজেট জারি হওয়ায় চলতি ডিসেম্বর মাসের বেতন জানুয়ারিতে নতুন কাঠামো অনুযায়ী পাবেন চাকরিজীবীরা। গত ১ জুলাই থেকে কার্যকর হয়েছে এই বেতন কাঠামো। ফলে গত জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত পাঁচ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। এই বকেয়া বেতন দেওয়া হবে দুই ধাপে। ডিসেম্বরের বেতন জানুয়ারিতে দেওয়ার সময়ই মিলবে জুলাই আর আগস্ট মাসের বকেয়া বেতন। আর সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর—এই তিন মাসের বকেয়া পাওয়া যাবে জানুয়ারি মাসের বেতন ফেব্রুয়ারিতে পাওয়ার সময়। একসঙ্গে বিপুল পরিমাণ বকেয়া অর্থের সংস্থানের ঝামেলা মেটাতে সরকার দুই ধাপে তা পরিশোধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, আইন মন্ত্রণালয় থেকে নতুন কাঠামোর সরকারি আদেশ জারি হয়েছে ১৪ ডিসেম্বর। পরে তা বিজি প্রেসে পাঠানো হয়েছে। ফলে গত ১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে যাঁরা টাইম স্কেল, সিলেকশন গ্রেডসহ আগের বেতন কাঠামোর বিভিন্ন সুবিধা ভোগ করছেন, সেগুলো সব বহাল থাকবে। তবে নতুন করে টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড আর পাবেন না কেউই।

জারি করা আদেশে ক্যাডার ও নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের যোগদানের ক্ষেত্রে কিছুটা বৈষম্য থাকছে। ক্যাডার কর্মকর্তারা এখন থেকে অষ্টম গ্রেডে যোগদান করবেন। আর নন-ক্যাডাররা করবেন নবম গ্রেডে। এত দিন উভয় শ্রেণির কর্মকর্তারা নবম গ্রেডে যোগ দিতেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অষ্টম গ্রেডে যোগ দেবেন। সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল বাতিল হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা যে সুবিধা পেতেন, তা হিসাব করে নির্দিষ্ট বছর পর পর পদোন্নতির প্রক্রিয়া নির্ধারণ ও প্রয়োজনে পদ সৃষ্টি করবে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন। তবে চিকিৎসকদের একই দাবি থাকলেও সে ব্যাপারে কোনো সুরাহা নেই নতুন বেতন কাঠামোতে।

জারি হওয়া আদেশে বলা হয়েছে, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় যাঁদের পদোন্নতি হবে না, তাঁরা প্রথম ১০ বছর পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে বেতন কাঠামোর ওপরের গ্রেডে পৌঁছাবেন। আর পরেরবার ওপরের গ্রেড পাবেন আরো ছয় বছর পর। নিম্ন গ্রেডের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পদোন্নতির সুযোগ কম থাকায় তাঁদের জন্য প্রযোজ্য সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল বাদ দিয়ে এ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।

বেতন কাঠামোর আদেশে চলতি অর্থবছরের বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি সুবিধা (ইনক্রিমেন্ট) সবার ক্ষেত্রেই বাতিল করা হয়েছে। আগামী অর্থবছরের ১ জুলাই থেকে প্রতিবছর একই দিনে সব কর্মকর্তা-কর্মচারী ইনক্রিমেন্ট পাবেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দামুড়হুদায় কারিকুলাম বিষয়ক প্রশিক্ষন সমাপ্ত

দামুড়হুদা অফিস: দামুড়হুদা উপজেলার উপজেলা রিসোর্স সেন্টার(ইউআরসি)এর উদ্দৌগে ১০ দিন ব্যাপি কারিকুলাম বিষয়ক প্রশিক্ষনের সমাপ্ত হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকালে প্রশিক্ষনের সমাপ্তি ঘোষনা করেন উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের (ইউআরসি) ইন্সট্রাক্টর জামান হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী ইন্সট্রাক্টর নুরুজ্জামান, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবু তালেব। অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধান শিক্ষক সমিতির উপজেলা সভাপতি আলাউদ্দিন, সাধারন সম্পাদক স্বরুপ দাস, সহ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন,সিরাজুল ইসলাম, আরতি হালসানা, সাঈদ,সাহাবুদ্দিন, লতিফা খানম, রীনা খাতুন, নাসিমা খাতুনসহ ৩০ জন প্রধান শিক্ষক।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

প্রাথমিকের অর্ধেক বইয়ের কাজই বাকি। সময়মত বই না পাবার সংশয়

এস  কে দাস : নতুন শিPrimary-400x260ক্ষাবর্ষ শুরু হতে আর মাত্র ২০ দিন বাকি থাকলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠ্যপুস্তকের ছাপার কাজ অর্ধেকই বাকি রয়ে গেছে। তবে মাধ্যমিক পর্যায়ের বইয়ের কাজ প্রায় সম্পন্ন।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, কিছু কাগজ সরবরাহকারীর দেরিতে কাগজ সরবরাহের কারণে ছাপার কাজ শুরু করতে দেরি হয়েছে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) তথ্যানুসারে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১০ কোটি ৮৭ লাখ বইয়ের মধ্যে অর্ধেক বই ছাপার কাজ শেষ হয়েছে এবং বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেগুলো বিভিন্ন উপজেলায় পাঠানো হয়েছে।

এদিকে মাধ্যমিক পর্যায়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১৬ কোটি ৩০ লাখ বইয়ের ৯৭ ভাগ কাজই শেষ এবং সেগুলো বিভিন্ন উপজেলায় পাঠানো হয়েছে।

তবে সরকার এবং ছাপাখানার ধারণা, গত পাঁচ বছরের মতো এবারও তারা সময় মতো শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিতে পারবে।

ছাপাকারী এবং এনসিটিবি প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ৪ কোটি ৪০ লাখ শিক্ষার্থীর হাতে ৩৩ কোটি ৩৭ লাখ বই সময় মতো পৌঁছানোর জন্য ২৪ ঘণ্টা কাজ করে যাচ্ছে। এই প্রকল্পে সরকারের খরচ হচ্ছে ৭৩৩ কোটি টাকা।

এনসিটিবির বই বিতরণ নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা মুস্তাক আহমেদ ভূইয়া বলেন, ‘সময় শেষ হওয়ার আগেই শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে বলে আমরা আশা করি। মাধ্যমিক পর্যায়ের ৯৭ ভাগ বই ইতিমধ্যে উপজেলাগুলোতে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।’

২৫ ডিসেম্বরের মধ্যে বইয়ের কাজ শেষ করে আগামী বছরের ১ জানুয়ারী বই বিতরণের কাজ শুরুর কথা রয়েছে।

এনসিটিবির কর্মকর্তা রতন সিদ্দিক বলেন, ‘আমাদের কাছে সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, প্রাথমিকের প্রায় ৫০ শতাংশ বইয়ের কাজ শেষ হয়েছে। তবে সঠিক সময়ে আমরা বইয়ের কাজ শেষ করতে পারবো বলে আশা করি।’

কাজের ধীরগতির প্রধান কারণ, ছাপার কাজ শুরু করতে প্রায় ১ মাস দেরি হয়েছে।

গত কয়েক বছর ধরে প্রাথমিকের পাঠ্যপুস্তকের জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র আহবান করে সরকার। চলতি বছরের ২৯ এপ্রিল আন্তর্জাতিকভাবে দরপত্র আহবান করে সরকার। তবে কাজ পায় একটি দেশি কোম্পানি। তারা সর্বনি¤œ ২২১ কোটি টাকায় দরপত্র পায়।

সূত্র : দ্য ডেইলি স্টার।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

নেত্রকোনায় প্রধানশিক্ষককে হত্যার ঘটনায় প্রতিবাদ ও শাস্তি দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদকninda: নেত্রকোণা জেলার বারহাট্টা উপজেলার মনাষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অর্জুন বিশ্বাস (৪২) কে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা এবং দোষীদের অনতিবিলম্বের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দ।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সংগঠনের আহবায়ক রিয়াজ পরেভেজ জানান, স্লিপ কার্যক্রমের ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিতে না পারায় কিছুদিন ধরে এসকল দুর্বৃত্ত বিভিন্ন সময়ে হুমকি দিয়ে আসছিল।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অর্জুন বিশ্বাস স্লিপ কার্যক্রমের (বিদ্যালয় মান উন্নয়ন পরিকল্পনা) ৩০ হাজার টাকা তাদের হাতে তুলে দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় তাকে হত্যা করা হয়।

এ হত্যার ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা এবং দোষীদের অনতিবিলম্বের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানান শিক্ষক নেতৃবৃন্দ। পাশাপাশি শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানানো হয়।

শিক্ষক নেতৃবৃন্দ এ ঘটনায় দ্রুত আইনী ব্যবস্থা গ্রহনে সরকারের প্রতি দাবী জানিয়েছে, অন্যথায় সারা দেশে প্রধান শিক্ষকদেরকে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন করার হুশীয়ারী করেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় রবিবার খুলছে

কুবি : শারদীয় দুর্গাপূজা ও পবিত্র আশুরার সাত দিন ছুটি শেষে রবিবার খুলছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি)। চলতি মাসের ১৮ তারিখ থেকে এ ছুটি শুরু হয়।

পবিত্র ঈদুল আজহার ছুটি শেষে মাত্র এক সপ্তাহের জন্য চলে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম। এরপরই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সব থেকে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা ও পবিত্র আশুরা উপলক্ষে বন্ধ হয় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ডিজিটাল পদ্ধতিতে সরকারি চাকুরেদের বেতন নির্ধারণ । নেই কোন জটিলতা

নিজস্ব প্রতিবেদক: সম্পূর্ণ ডিজিটাল পদ্ধতিতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা নির্ধারণের নির্দেশ দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এতে করে প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটি স্বচ্ছ ও নির্ভুল ডাটাবেইজ তৈরি হবে বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী। এ ছাড়া কে কত বেতন পাবেন সেটা অনলাইনেই দেখা যাবে। এদিকে খুব শিগগিরই অষ্টম পে-স্কেলের গেজেট প্রকাশ করা হবে বলে জানা গেছে। নতুন স্কেল অনুযায়ী কার কত বেতন হবে এটার জন্য ক্যালকুলেটর চেপে বের করার প্রয়োজন হবে না। কিংবা কাগজ কলম নিয়েও হিসাব করতে বসতে হবে না। নতুন বেতন স্কেলের গেজেট প্রকাশের পর অর্থবিভাগের ওয়েবসাইটে একটি নতুন পেজ খোলা হবে। যেখানে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিজেদের পদবি, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর, চাকরির গ্রেড, কর্মস্থল ইত্যাদি তথ্য প্রদান করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বেতন নির্ধারিত হবে। পরে এর একটি প্রিন্ট কপি হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তারা সংরক্ষণ করবেন। এতে বেতন-ভাতা নির্ধারণ ও হিসাব-নিকাশ প্রক্রিয়া অত্যন্ত সহজ, স্বচ্ছ ও নির্ভুল হবে বলে মনে করে অর্থবিভাগ। বর্তমানে এ কাজের জন্য সফটওয়্যার তৈরির কাজ চলছে বলে জানা গেছে। অর্থবিভাগ সূত্র জানায়, এ বিভাগের সচিব মাহাবুব আহমেদ অর্থমন্ত্রীকে এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা পাঠালে তিনি তা অনুমোদন করেছেন। বর্তমানে সরকারের হাতে প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কমপ্লিট কোনো ডাটাবেইজ নেই। এতে বেতন-ভাতা খাতে প্রতি বছর জাতীয় বাজেটে বরাদ্দ রাখতে হয় অনুমানের ওপর নির্ভর করে। ফলে অনেক সময় অর্থ বিভাগ নানা জটিলতায় পড়ে। অনলাইন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বেতন-ভাত নির্ধারণ করলে একটি স্বচ্ছ ও শক্তিশালী ডাটাবেইজ তৈরি হবে। বাজেট বরাদ্দ রাখতে সুবিধা হবে। যা পরবর্তীতে নির্বাচন কমিশনকেও প্রদান করা যাবে। এই ডাটাবেইজ ভোটার তালিকা প্রণয়নের ক্ষেত্রেও কাজে লাগবে। জানা গেছে, বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী নতুন বেতন স্কেল কার্যকর হলে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা নির্ধারণের জন্য নির্দিষ্ট ফরম পূরণ করে প্রধান হিসাব নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে পাঠাতে হয়। সেখান থেকে অনুমোদন পেয়ে তা অর্থ বিভাগে ফিরে আসে। এতে অনেক সময় বিভিন্ন ধরনের ভুলভ্রান্তি হয়। তথ্যবিভ্রাট হলে ফরম পূরণ করতে হয়। এতে একদিকে অতিরিক্ত সময়ক্ষেপণ হয়। পাশাপাশি অনেকেই ভোগান্তি ও হয়রানির শিকার হন। আর অনলাইন বা ডিজিটাল পদ্ধতি অনুসরণ করলে এ ধরনের ভোগান্তি বা হয়রানির কোনো সুযোগ থাকবে না। এর পাশাপাশি দেশের যেসব দুর্গম এলাকায় এখনো ইন্টারনেট পৌঁছায়নি সেসব এলাকার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা থাকবে বেতন-ভাতা নির্ধারণের।

এদিকে অর্থবিভাগের একটি সূত্র জানায়, অষ্টম পে-স্কেলের গেজেট প্রকাশের প্রস্তুতিমূলক কাজ চলছে। এর অংশ হিসেবে বাস্তবায়ন বিভাগ একটি সারমর্ম তৈরি করছে। যা অর্থমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে তিনি বর্তমানে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন। আগামী ১৬ অক্টোবর তার দেশে ফেরার কথা। তিনি দেশে ফেরার পর ওই সারাংশ অর্থমন্ত্রীর কাছে জমা দেওয়া হবে। তার অনুমোদন পেলে আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিংয়ের জন্য পাঠানো হবে। এরপর গেজেট প্রকাশ করে তা কার্যকর করা হবে। এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে আরও প্রায় দুই মাস লেগে যেতে পারে বল মনে করে অর্থবিভাগ।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

প্রাক-প্রাথমিকে নিয়োগ পরীক্ষা ১৬ অক্টোবর

অনলাইন ডেস্ক ॥ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য সহকারী শিক্ষক নিয়োগে তৃতীয় ধাপে ২২ জেলার পরীক্ষা হবে আগামী ১৬ অক্টোবর।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা রবীন্দ্রনাথ রায় স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার জানানো হয়, এ সব জেলায় ৪৪৭টি কেন্দ্রে ৩ লাক্ষ ৪৩ হাজার ২৫৭ জন চাকরিপ্রার্থী এ পরীক্ষায় অংশ নেবেন। ওইদিন সকাল ১০টা থেকে ১১টা ২০ মিনিট পর্যন্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আগামী ১৬ অক্টোবর শুক্রবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, সাতক্ষীরা, খুলনা, জামালপুর, নেত্রকোনা, নরসিংদী, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া, চাঁদপুর, নোয়াখালী, পটুয়াখালী, সুনামগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী ও লালমনিরহাট জেলায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
আগামী ২ অক্টোবর থেকে বৈধ প্রার্থীদের মোবাইলে এসএমএসের (SMS) মাধ্যমে পরীক্ষা ও প্রবেশপত্র ডাউনলোড সংক্রান্ত তথ্য পাঠানো হবে এবং ৩ অক্টোবর থেকে প্রার্থীরা প্রবেশপত্র ডাউনলোড করে করতে পারবেন।
প্রার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে http://dpe.teletalk.com.bd এ ওয়েবসাইট হতে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।
ওএমআর শিট পূরণের নির্দেশনাবলী এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য www.dpe.gov.bd এ ওয়েবসাইট পাওয়া যাবে।
লিখিত পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদেরকে প্রবেশপত্র ছাড়া পরীক্ষা কেন্দ্রে কোন বই, উত্তরপত্র, নোট বা অন্য কোন কাগজপত্র, ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন ও ভ্যানেটি ব্যাগ, পার্স, ইলেকট্রনিক্স ঘড়ি বা যে কোন ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস ইত্যাদি সঙ্গে রাখতে দেয়া যাবে না। যদি কোন পরীক্ষার্থী উল্লিখিত দ্রব্যাদি সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করে তাকে তাৎক্ষণিক বহিষ্কার করা হবে।
অন্যান্য জেলাগুলোর পরীক্ষা পর্যায়ক্রমে পরবর্তী সময়ে অনুষ্ঠিত হবে এবং তারিখ, সময় ও যাবতীয় তথ্য জানিয়ে দেওয়া হবে।
এর আগে, প্রথম ধাপে ২৭ জুন ৫ জেলায় সহকারী শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। জেলাগুলো হলো- মেহেরপুর, মুন্সিগঞ্জ, নড়াইল, শরীয়তপুর ও ফেনী।
দ্বিতীয় ধাপে ২৮ অগাস্ট ১৭ জেলায় এ নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। জেলাগুলো হলো- জয়পুরহাট, চুয়াডঙ্গা, মাগুরা, শেরপুর, গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, নারয়ণগঞ্জ, রাজবাড়ী, মাদারীপুর, লক্ষ্মীপুর, কক্সবাজার, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, রবগুনা, ভোলা, পঞ্চগড় ও বাগেরহাট।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter