Home » Author Archives: chief editor

Author Archives: chief editor

যা রাখা হয়েছে বাংলা-ইংরেজি ও গণিতে

ঢাকা: ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষার সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করা হয়েছে। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের তৈরি এই পুনর্বিন্যাসকৃত পাঠ্যসূচি ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের আওতাধীন সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষককে পাঠানো হয়েছে।

শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারি) সংক্ষিপ্ত সিলেবাস ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে হওয়া বৈঠকে এ সিলেবাসের চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মেডিকেল ও ডেন্টালের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ প্রকাশ

ডেস্ক,৫ ফেব্রুয়ারী
আগের নিয়মেই এবারও (২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষ) ভর্তি পরীক্ষা নেবে দেশের মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলো। স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে কেন্দ্রীয়ভাবে আগামী ২ এপ্রিল দেশের সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস এবং ৩০ এপ্রিল ডেন্টাল কলেজ ও ইউনিটগুলোর বিডিএস কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

শনিবার (৬ ফ্রেব্রুয়ারি) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্র বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ বিষয়ে কথা বলা হলে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আহসান হাবিব শনিবার সকালে বলেন, ‘আগামী বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) থেকে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হবে। অনলাইনে নির্ধারিত আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে। চলবে ১ মার্চ পর্যন্ত।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০ থেকে ২৫ মার্চ এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র দেয়া হবে।’

এছাড়া, বিডিএস কোর্সের আবেদন শুরু হবে ২৭ মার্চ। ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে আর ডেন্টালে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র ২৪ থেকে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত বিতরণ করা হবে। ২ এপ্রিল ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

দু-একদিনের মধ্যেই এমবিবিএস ও বিডিএস ভর্তি পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত হবে।

মহামারি করোনার কারণে চলতি বছর এইচএসসিতে অটোপাস দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সে কারণে ভর্তি পরীক্ষায় নতুন কোনো নিয়ম হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক আহসান হাবিব বলেন, ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে যেকোনো পরিবর্তন আনতে হলে তার প্রক্রিয়া এক থেকে দেড় বছর আগে শুরু করতে হয়। বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে মতবিনিময়ের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রস্তাবের ভাল-মন্দ দিক বিবেচনায় নিয়ে তবেই প্রয়োজনে পরিবর্তন আনতে হয়ে।

তাই এ বছর আগের নিয়মেই অর্থাৎ ১০০ নম্বরের এমসিকিউ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা ও এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে ১০০নম্বরসহ মোট ২০০ নম্বরের ভিত্তিতে জাতীয় মেধাভিত্তিক তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

‘কবে খুলবে স্কুল’ জানালেন গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা,২৬ জানুয়ারী: শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে একটি নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। যাতে করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আদেশ পাওয়া মাত্রই প্রতিষ্ঠান প্রস্তুত থাকতে পারে।

ওই নির্দেশনায় বলা হয়, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থী-শিক্ষক, কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়াও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন, নিরাপদ ও আনন্দময় পরিবেশ সৃষ্টি করতে কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দেওয়া হয়।

এদিকে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম বা দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে স্কুল খোলার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। সংশ্লিষ্টদের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে সাংবাদিকদের সাথে এক সাক্ষাৎকারে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ক্লাশরুম সঙ্কটের কারণে অলটারনেট ডে-তে বিভিন্ন শ্রেণির ক্লাস হবে। সামাজিক দূরত্ব রক্ষায় ক্লাসরুম সঙ্কটের কারণে মূলত এই অলটারনেট ডে-তে বিভিন্ন শ্রেণির ক্লাস হবে।

বেসরকারি কিন্ডারগার্টেনগুলো খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত তারা নেবে, এটি মন্ত্রণালয়ের বিষয় নয় বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ১৮ বছরের কম হওয়ায় স্কুলের শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দেয়ার সুযোগ নেই। তবে শিক্ষকদের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে ভ্যাকসিন চাওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

১ ফেব্রুয়ারি উপবৃত্তি পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা,২৬ জানুয়ারী : দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক কোটি ৪০ লাখ শিক্ষার্থীকে দারুণ সুখবর দিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তথ্য এন্ট্রি ও জন্ম সনদ জটিলতায় চার দফায় সময় বৃদ্ধির পর আগামী ১ ফেব্রুয়ারি উপবৃত্তি পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। ওই দিন মোবাইল লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠান ‘নগদ’ এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের এ উপবৃত্তির টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

এ কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। এর ফলে ১০ মাস পরে ২০২০ সালের এপ্রিল-জুন কিস্তির উপবৃত্তির টাকা পাবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, উপবৃত্তির টাকা পাওয়ার তথ্য এন্ট্রির সময় চতুর্থ দফা বাড়িয়েছে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রকল্প। শিক্ষার্থীদের তথ্য সার্ভারে ইনপুট দিতে বাকি থাকায় আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়। এরপর আর কোনো সময় বাড়ানো হবে না বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, সোমবার (২৫ জানুয়ারি) তৃতীয় দফায় তথ্য এন্ট্রির শেষ দিন ছিল। সন্ধ্যা পর্যন্ত সারা দেশে ৬৪ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৫৪ হাজারের বেশি প্রতিষ্ঠান তথ্য এন্ট্রি করেছে। বাকি প্রতিষ্ঠানগুলো মূলত শিক্ষার্থীদের জন্মসনদের জটিলতায় পড়েছে।

এনিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব গোলাম মো. হাসিবুলের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম এবং প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রকল্প (তৃতীয় পর্যায়) পরিচালক মো. ইউসুফ আলী। এ সময় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে তথ্য এন্ট্রির সর্বশেষ তথ্য নিয়ে আলোচনা হয় এবং চতুর্থ বারের মতো সময় বাড়ানো, উপবৃত্তি বিতরণের তারিখ নির্ধারণ হয়।

এ ব্যাপারে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলেন, সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রায় ৮৫ শতাংশ শিক্ষার্থীর তথ্য এন্ট্রি হয়েছে। বাকিদের তথ্য এন্ট্রির সময় আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। তবে এরপরে আর কোনো সময় বাড়বে না।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর গত ১৭ মার্চ থেকে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক ধাপে বাড়ানোর পর ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ছুটি পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

করোনার টিকা পাবেন প্রাথমিকের শিক্ষকরা: প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা: দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের করোনার টিকার আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) সচিবালেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা জানান।

জাকির হোসেন বলেন, সব প্রাথমিক শিক্ষককে করোনার টিকার আওতায় আনা হবে। শিক্ষার্থীদের বয়স ১৮ বছরের নিচে হওয়ার তাদের এ আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছে না। শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের টিকা দেওয়া হবে। স্কুল খোলার আগে বা পরে এ কর্মসূচি শুরু হবে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকের সব শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের তালিকা তৈরি করে আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। ধাপে ধাপে সবাইকে টিকার আওতায় আনা হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

এসএসসির রেজিস্ট্রেশন কার্ড বিতরণ শুরু বুধবার

ডেস্ক,১ ডিসেম্বর:
২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন কার্ড বিতরণ বুধবার (২ ডিসেম্বর) থেকে শুরু করবে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড। শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ স্কুল থেকে রেজিস্ট্রেশন কার্ড তুলতে পারবেন।

রোববার ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড থেকে এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, রেজিস্ট্রেশন কার্ডে কোন ভুল থাকলে তা সংশোধনের জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধানদের আগামী ২০শে ডিসেম্বরের মধ্যে বোর্ডে আবেদন করতে হবে। এ সময়ের মধ্যে রেজিস্ট্রেশন কার্ড গ্রহণ বা সংশোধনের আবেদন না করলে দায় প্রতিষ্ঠান প্রধানকে নিতে হবে। আর রেজিস্ট্রেশন কার্ড নেয়ার আবেদনের সাথে সর্বশেষ স্বীকৃতি নবায়ন এবং কমিটির অনুমোদনপত্র দাখিল করতে হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে সার্টিফিকেট জালিয়াতি

ডেস্ক,১ ডিসেম্বর: নকল সার্টিফিকেট তৈরির কারখানা নীলক্ষেত। এ তথ্য সবারই কমবেশি জানা। তবে এবার শিক্ষার্থী, বাবা-মা’র নাম পরিবর্তন করে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থেকে নকল সার্টিফিকেট তুলে নিয়েছে দুষ্কৃতিকারীরা। ফলে নকল ব্যক্তির কারণে আসল ছাত্রই বিপদে পড়েছে। ১৪ই নভেম্বর প্রাথমিক শিক্ষক পদে চাকরির আবেদন করতে গিয়ে ঘটনাটি ধরা পড়ে।

ভুক্তভোগী আবু সুফিয়ান বাংলাদেশ জার্নালকে জানান, চাকরির আবেদনে রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেয়ার পর সব ঠিক আছে, কিন্তু সেখানে আবু সুফিয়ানের নাম নাই, একই সঙ্গে আমার পিতা-মাতার নাম ও নাই। পরবর্তিতে বোর্ডে গেলে জালিয়াতির বিষয়টা পরিষ্কার হয়। পিতা-মাতার নাম পরিবর্তন করে আমার এসএসসি ও এইচএসসির ডুপ্লিকেট সার্টিফিকেট তুলে নেয়া হয়েছে।

যে পরিবর্তন হয়েছে- ছাত্র: Abu suphian এর পরিবর্তে Abu sufian, বাবা: Md Sonam uddin এর পরিবর্তে Md Sohidul islam, মা: Razia begum এর পরিবর্তে Zinnatun begum

আবু সুফিয়ান ঢাকা কলেজের (১০-১১) সেশনের পরিসংখ্যানের ছাত্র। সে ২০০৮ সালে মানিকগঞ্জ থেকে এসএসসি ও ২০১০ সালে ঢাকা রেসেডেনসিয়াল মডেল কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যান মু. জিয়াউল হকের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে, তিনি পিআরএল এ চলে যাওয়ায় এ বিষয়ে কিছু জানাতে পারেননি।

তবে বোর্ডের সচিব প্রফেসর তপন কুমার সরকার বলেন, আগামী সাত দিনের ভিতর এ সমস্যা সমাধান করা হবে। প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে শাস্তি প্রদানের আশ্বাস দেন তিনি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

যে কারণে একইসঙ্গে দুই বিসিএস

নিজস্ব প্রতিবেদক,১ ডিসেম্বর:

দেশে প্রথমবারের মতো একইসঙ্গে দুটি বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)। সোমবার রাতে সংস্থাটির ওয়েবসাইটে এ দুই বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

হঠাৎ একইসঙ্গে দুই বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি! এ ব্যাপারে গণমাধ্যমের কাছে কারণও ব্যাখ্যা করেছে পিএসসি। সংস্থাটি থেকে জানানো হয়েছে, বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি এবং প্রার্থীদের বয়স বিবেচনায় এই দুই বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি একসঙ্গে প্রকাশ করা হয়েছে।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক পিএসসির এক সদস্য বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে অনেক দিন সরকারি নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ ছিল। অনেক প্রার্থীর বয়স শেষ হওয়ার পথে রয়েছে। তাদের আবেদন করার সুযোগ তৈরিতে কমিশন একসঙ্গে দুটি বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

তিনি আরো জানান, প্রথমে চিকিৎসকদের জন্য ৪২তম বিশেষ বিসিএসের আবেদন কার্যক্রম শুরু হবে। সেটি শেষ হলে বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগের জন্য ৪৩তম বিসিএসের আবেদন কার্যক্রম শুরু করা হবে। একই সময়ের মধ্যে আগে-পরে দুটি বিসিএসের প্রিলিমিনারি, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার আয়োজন করা হবে।

এদিকে ৪২তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী ৭ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে অনলাইন আবেদন শুরু হবে। চলবে ২৭ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। প্রার্থীরা পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আবেদনের ফি জমা দিতে পারবেন।

এ বিশেষ বিসিএসের মাধ্যমে দুই হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হবে। এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হবে। এই বিসিএসের বয়সসীমা ২১ থেকে ৩২ বছর।

অন্যদিকে ৪৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এই বিসিএসে বিভিন্ন ক্যাডারে এক হাজার ৮১৪ জন কর্মকর্তা নেয়া হবে।

এর মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে ৩০০ জন, পুলিশ ক্যাডারে ১০০ জন, পররাষ্ট্র ক্যাডারে ২৫ জন, শিক্ষা ক্যাডারের জন্য ৮৪৩ জন, অডিটে ৩৫ জন, তথ্যে ২২ জন, ট্যাক্সে ১৯ জন, কাস্টমসে ১৪ জন ও সমবায়ে ১৯ জন নিয়োগ দেয়া হবে।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে ৪৩তম বিসিএসের অনলাইন আবেদন শুরু হবে। আবেদনের শেষ তারিখ ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা।

এর আগে ৩৯তম বিসিএসে (বিশেষ) ২০০ নম্বরের এমসিকিউ এবং ১০০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে পাঁচ হাজারের মতো চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হয়েছিল।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

প্রাথমিকের চাকুুরি পেতে অনলাইন কোর্স চালু

ডেস্ক,২৮ নভেম্বর: প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে সবচেয়ে বড় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। ইতিমধ্যে প্রায় ১৫ লাখ আবেদন জমা পড়েছে বলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সুত্রে জানা গেছে। প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের চাকুরি প্রস্তুতি নিতে টেন মিনিট লাইভ স্কুল ইতিমধ্যে একটি অনলাইন কোর্স চালু করেছে। টেন মিনিট লাইভ স্কুল এর কোর্সটিতে ৬৫ টি লাইভ ক্লাস সহ ৬০টি মডেল টেস্ট,বিডিও ক্লাস,প্রতিটি ক্লাস শেষে লেকচার শিট,গণিতের শর্টকার্ট সমাধান সহ একটি গণিত পিডিএফ বুক,পরীক্ষার আসার মত ইংরেজির ৪০ টি গ্রামারের নিয়ম এ কোর্সটিতে সংযোজন করা হয়েছে। কোর্সের ফি রাখা হয়েছে ১০০০ টাকা মাত্র।

বিস্তারিত জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

প্রাথমিকে চাকুরি পেতে যা করবেন?

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষকদের ইএফটি ফরম পূরণে যে সব তথ‌্য লাগবে

নিজস্ব প্রতিনিধি নভেম্বর ২৮, ২০২০ :
২০২১ সালের জানুয়ারি মাস থেকে ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফারের (ইএফটি) মাধ্যমে জিটুপি (গভর্নমেন্ট টু পারসন) পদ্ধতিতে দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন-ভাতা পরিশোধে চিঠি দিয়েছে অর্থ বিভাগ।

বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) হিসাব মহা-নিয়ন্ত্রকের কাছে এই চিঠি পাঠানো হয়।

সরকারের কেন্দ্রীয় ব্যবস্থার অংশ হিসেবে প্রাথমিক শিক্ষকদের সুবিধা দিতে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। গতানুগতিক ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা দেওয়ার কারণে নানা ভোগান্তিতে পড়তে হয়। তাই শিক্ষকদের ভোগান্তি লাঘব করতে সরাসরি শিক্ষকদের নিজ ব্যাংক হিসাবে বেতন-ভাতা পাঠাতে এই ব্যবস্থা নেওয়া হলো।

অর্থ বিভাগের উপ-সচিব মো. তৌহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অংশ হিসেবে সরকারের আর্থিক ব্যবস্থাপনা আরও সংহত করতে গেজেটেড কর্মকর্তাদের মতো নন-গেজেটেড কর্মকর্তা/কর্মচারীদের বেতন-ভাতা অনলাইনে দাখিল ও ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফারের (ইএফটি) মাধ্যমে পাঠানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ/ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সচিবালয় ও অধিদফতর/পরিদফতরের মাধ্যমে প্রধান কার্যালয়ের কর্মকর্তা/কর্মচারীসহ মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা/কর্মচারীরা ইএফটির মাধ্যমে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন।

ইএফটি ফরম পূরণে যে সব তথ‌্য লাগবে:

১) NID নাম্বার (যে নাম্বার দি‌য়ে পে-ফি‌ক্সেশন করা আ‌ছে) ও জন্ম তা‌রিখ।
২) স্বামী/স্ত্রীর NID নাম্বার ও জন্মতা‌রিখ।
৩) সন্তা‌নের NID নাম্বার (য‌দি থা‌কে) বা জন্মসনদ নাম্বার ও জন্ম তা‌রিখ।
৪) পিতার নাম ও মাতার নাম ইং‌রে‌জি‌তে।
৫) চাকুরী শুরু‌তে বেতন স্কেল, বর্তমান বেতন স্কেল ও টাইম স্কেল/উচ্চতর গ্রেড সংক্রান্ত তথ‌্য।
৬) চাকুরী শুরু‌তে যোগদানকৃত বিদ‌্যাল‌য়ের নাম ও বর্তমান বিদ‌্যাল‌য়ের নাম।
৭) শিক্ষা সহায়তা ভাতার তথ‌্য।
৮) ব‌্যাংক ঋণ সংক্রান্ত তথ‌্য।
৯) যে ব‌্যাংক থে‌কে বেতন হয় সে ব‌্যাং‌কের নাম, হিসাব নং ও রাউ‌টিং নাম্বার।
১০) জিপিএফ হিসাব নং, ব‌হি নং, ভলিয়াম নং ও পাতা নং।
১১) জি‌পিএফ মা‌সিক কর্তন ও বর্তম‌ান মোট জমার প‌রিমাণ।
১২) জিপিএফ লোন সংক্রান্ত তথ‌্য।
১৩) অ‌র্জিত ছু‌টি সংক্রান্ত তথ‌্য।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দেশের ১২টি ক্যাডেট কলেজে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিনিধি নভেম্বর ২৮, ২০২০ : বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত দেশের ১২টি ক্যাডেট কলেজে ২০২১ সালে সপ্তম শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে শিক্ষার্থীদের।

বর্তমানে দেশে ছেলেদের নয়টি এবং মেয়েদের তিনটি ক্যাডেট কলেজ রয়েছে। কলেজগুলো বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেলের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে পরিচালিত স্বায়ত্তশাসিত আবাসিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

আবেদনের সময়সীমা: গত ২২ নভেম্বর আবেদন শুরু হয়েছে। আবেদন চলবে ২০২১ সালের ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত। ওই দিন বিকেল ৫টার মধ্যে অনলাইনে আবেদন করতে হবে শিক্ষার্থীদের। অনলাইনে www.cadetcollege.army.mil.bd অথবা cadetcollegeadmission.army.mil.bd আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে।

পরীক্ষা: আগামী ২৯ জানুয়ারি লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা হবে। লিখিত পরীক্ষা ৩০০ নম্বরের। গণিত ১০০, বাংলা ৬০, ইংরেজি ১০০ এবং সাধারণ জ্ঞান ৪০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের সময় ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার তারিখ, সময় ও স্থান ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।

আবেদনের যোগ্যতা: প্রার্থীদের বাংলাদেশি নাগরিক হতে হবে। ষষ্ঠ শ্রেণি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।

বয়সসীমা: ১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে বয়স সর্বোচ্চ ১৩ বছর ৬ মাস।

উচ্চতা: বালক ও বালিকা উভয়ের ক্ষেত্রেই উচ্চতা ন্যূনতম ৪ ফুট ৮ ইঞ্চি হতে হবে।

আবেদন ফি: আবেদন ফি এক হাজার ৫০০ টাকা।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মঙ্গলবারের মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষার সূচি

করোনা আক্রান্ত হলে থাকবে বিকল্প মূল্যায়ন

ডেস্ক,১ অক্টোবর:
আগামী সোমবার বা মঙ্গলবারের মধ্যে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার পরিপূর্ণ পরিকল্পনাসহ তারিখ ঘোষণা করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, ‘আমরা চার সপ্তাহের সময় দিয়ে এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করব। কোন পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেব, কতটুকু পরীক্ষা নেব, তা আগামী সোমবার বা মঙ্গলবারের মধ্যে জানিয়ে দেওয়া হবে।’

গতকাল বুধবার শিক্ষাবিষয়ক সাংবাদিকদের সঙ্গে এক ভার্চুয়াল মতবিনিময়সভায় শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘ছয় মাস ধরে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়ে ধরে রাখা যায় না। তাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে কতগুলো বিষয়ে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া যায়, সেটা আমরা চিন্তা-ভাবনা করছি। যখন আমরা পরীক্ষা নেব, তখন কেউ যদি করোনা আক্রান্ত হয়, তাদের কিভাবে মূল্যায়ন করা যায়, সেই বিবেচনাও আমাদের থাকবে।’

টিউশন ফির ব্যাপারে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জোর-জবরদস্তি করে কিছু চাপিয়ে দেওয়া ঠিক হবে না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিদিনের কিছু খরচ বাদে সব খরচই রয়ে গেছে। যাঁরা সরকারি চাকরি করেন তাঁদের আয় আগের মতোই আছে। তাঁদের জন্য কোনো ছাড়ের প্রয়োজন নেই, তবে যাঁরা প্রকৃতপক্ষে ক্ষতিগ্রস্ত তাঁদের ব্যাপারটি বিবেচনায় নিয়ে উভয় পক্ষকে ছাড় দিতে হবে।’

নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আমরা এমপিও নীতিমালা আরো যুগোপযোগী করতে চাই। অক্টোবরে এটি আমরা চূড়ান্ত করতে পারব। এরপর নতুন এমপিওভুক্তির জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছে আবেদন চাইব। চলতি অর্থবছরে নতুন এমপিওভুক্তি সম্পন্ন করতে পারব কি না তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে, তবে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আর অনার্স-মাস্টার্স কলেজের শিক্ষকদের বিষয়টি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে জড়িত। তাদের সঙ্গে বসেই বিষয়টি সমাধান করা হবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “কওমি মাদরাসার শিক্ষার্থীরা নিজ প্রতিষ্ঠানেই থাকছে। এ কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের পরীক্ষা নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আর ইংলিশ মিডিয়ামের ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেলে শিক্ষার্থী কম থাকায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদেরও পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।”

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, অনির্দিষ্টকালের জন্য হয়তো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা যাবে না। এ জন্য আগামী দিনে সাধারণ মানুষ ও অভিভাবকদের মধ্যে আস্থা ও সচেতনতা তৈরি করতে গণমাধ্যমকে ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান তিনি।

ভার্চুয়াল মতবিনিময়সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক প্রমুখ।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

২টি ব্যায়ামেই কাবু পেটের বাড়তি মেদ

উৎসবের মরসুমে শরীরের মেদকে জব্দ করতে না পারলে সাজগোজ থেকে স্বাস্থ্য সমস্যা সবেতেই। লকডাউন চলাকালীন এমনিতেও হাঁটাহাঁটি বা শরীরচর্চায় মন দেওয়া হয়নি। খুব বেশি হলে একটু আধটু ডায়েট হয়তো মেনে চলা সম্ভব হয়েছে। কিন্তু মেদ ঝরানোর জন্য শরীর প্রয়োজনীয় ফ্যাক্টর খুঁজে বের করতে পারেনি। এ বার সেই সময় এসেছে।

দিনে মিনিট ২০ সময় দিলেই পেটের মেদ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসতে পারে। পুজোর আগে বেশ কিছুটা মেদ ঝরিয়ে ফেলার জন্য এখন থেকেই অভ্যাস করুন বিশেষ কিছু যোগব্যায়াম।

ফিটনেস বিশেষজ্ঞ ও জিমন্যাস্টিক প্রশিক্ষক সুকোমল সেনের মত, ‘‘পেটের মেদ দূর করতে ও পেশিকে মজবুত ও টানটান করে তুলতে ক্রাঞ্চ ও প্লাঙ্কের কোনও জবাব নেই। এই দুই ব্যায়ামেই পেটের পেশিতে টান পড়ে। ফলে পেশির স্টিফনেস কমে ও মেদ গলতে সুবিধা হয়। আর এই ব্যায়াম দিনে কিছুক্ষণ অভ্যাস করলে খাবার হজম হওয়া, বিপাক ক্রিয়া বা মেটাবলিক রেট বেড়ে যাওয়া—সবই হবে।’’

কিন্তু কী উপায়ে এমন ব্যায়াম করবেন?

সুকোমলবাবুর মত, বাড়ি ফিরে বা সকালে ঘুম থেকে উঠে কয়েক মিনিট সময় এর জন্য রাখলেই যথেষ্ট। ক্রাঞ্চ ও প্লাঙ্কের পদ্ধতিতে ভুল থাকলে কিন্তু হিতে বিপরীত হতে পারে। তাই ঠিক পদ্ধতিতে ব্যায়াম করাটা প্রথম শর্ত।

কোন উপায়ে ক্রাঞ্চ বা প্লাঙ্ক করতে হবে?

ক্রাঞ্চ: মাটিতে পিঠ রেখে শুয়ে হাঁটু জোড়া ভাঁজ করুন যাতে আপনার পায়ের পাতা মাটিতে ঠেকে। হাত জোড়া মাথার পিছনে রাখুন। পেটের উপরে চাপ দিয়ে মাথা হাঁটুর দিকে নিয়ে যান। এই অবস্থায় থেকে ধীরে ধীরে ৫ গুনু্ন। তার পর আগের অবস্থায় ফিরে আসুন। ১৫ বারে এক একটি সেট হয়। ৩টি সেট অভ্যাস করুন।

প্লাঙ্ক: প্রথম দিকে কনুই পর্যন্ত মাটির সঙ্গে ঠেকিয়ে প্লাঙ্ক করুন। অভ্যাস হয়ে গেলে হাতের পাতা ও পায়ের পাতা মাটিতে রেখে বাকি শরীরটা হাওয়ায় তুলে দিন। প্লাঙ্কের সময় পেট ভিতরের দিকে টেনে রাখতে পারলে আরও বেশি উপকার পাবেন। পেট ও কোমরের কেন্দ্রস্থলের পেশিকে শক্তিশালী করে তুলতে প্লাঙ্কের জবাব নেই। প্রায় ২ মিনিট করা যেতে পারে এই প্লাঙ্ক।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

৪ শর্ত মেনে শুরু হল ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেলের পরীক্ষা

ঢাকা,১ অক্টোবর : শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেয়া ৪ শর্ত মেনে আজ বৃহস্পতিবার (০১ অক্টোবর) থেকে শুরু হয়েছে ইংরেজি মাধ্যমের ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেল পরীক্ষা। আগামী ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে এ পরীক্ষা। এতে ৫ হাজার ২০০ শিক্ষার্থী অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে গত ২৩ সেপ্টেম্বর এক বিবৃতিতে ব্রিটিশ কাউন্সিল জানিয়েছে, এ বছরের অক্টোবর-নভেম্বর (২০২০) সেশনের ইন্টারন্যাশনাল জিসিএসই, আইজিসিএসই, ‘ও’ লেভেল এবং ‘এ’ লেভেল পর্যায়ের পরীক্ষা নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে।

এতে বলা হয়, দেশে প্রায় ৫ হাজার ২০০ শিক্ষার্থী আছে, যারা অক্টোবর-নভেম্বরের পরীক্ষার জন্য জুলাই-আগস্টে রেজিস্ট্রেশন করেছে। সময়মতো এই পরীক্ষা দেয়া তাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য বাধ্যতামূলক ফেস মাস্ক পরিধান, পরীক্ষার্থীদের শারীরিক দূরত্ব, পরীক্ষাকেন্দ্র নিয়মিত পরিষ্কার, স্যানিটাইজেশনসহ ব্রিটিশ কাউন্সিলের সুরক্ষা প্রোটোকলগুলো ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ ও খুলনার সব পরীক্ষা কেন্দ্রে মানা হবে।

এর আগে করোনার কারণে বিশ্বব্যাপী মে-জুন সেশনের পরীক্ষা না নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ব্রিটিশ কাউন্সিল।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে বলা হয়, ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের পরিচালনায় ‘ও’ লেভেল এবং ‘এ’ লেভেল পরীক্ষা চার শর্তে আগামী ১ অক্টোবর থেকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত নেয়ার অনুমতি দিয়ে মন্ত্রণালয় সম্মতি জানিয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেয়া শর্তগুলোর মধ্যে রয়েছে-
১. স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের স্বাস্থ্যবিধি ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা কঠোরভাবে অনুসরণ করতে হবে।

২. সারা দেশের ৩৫টি ভেন্যুতে প্রতিদিন এক হাজার ৮০০ পরীক্ষার্থীর বেশি জনের পরীক্ষা নেয়া যাবে না। পরীক্ষার হলে প্রতিজন শিক্ষার্থীর মাঝে দূরত্ব থাকতে হবে ৬ ফুট।

৩. পরিস্থিতি বিবেচনায় যেকোনো সময় সরকার জনস্বার্থে পরীক্ষা নেয়ার অনুমতি বাতিল করতে পারবে।

৪. পরীক্ষার সময় কোনো শিক্ষার্থী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে তার দায়দায়িত্ব নিতে হবে ব্রিটিশ কাউন্সিলকেই।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

এইচএসসি পরীক্ষা হবে প্রশ্ন-উত্তরপত্র তৈরি

ঢাকা,২৬ সেপ্টেম্বর : করোনার প্রভাবে থমকে আছে শিক্ষা ব্যবস্থা। বাতিল হয়েছে পিইসি, জেএসসিসহ সমমানের পরীক্ষা। কিন্তু থমকে আছে এইচএসসি পরীক্ষা। কবে হবে পরীক্ষা? শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরাও মিটিংয়ে বসেছিলেন গত বৃহস্পতিবার। পরীক্ষা হবে এটা বলা হলেও কবে হচ্ছে তা নিয়ে সিদ্ধান্তে আসতে পারছে না কেউই।

গত বৃহস্পতিবারের বোর্ড চেয়ারম্যানদের বৈঠকের পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে হচ্ছে না এইচএসসি পরীক্ষা। গতকাল শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, এইচএসসি পরীক্ষা হবে না এই মর্মে সরকার কোনো রকমের সিদ্ধান্ত নেয়নি। পরীক্ষার্থীদের বারবার বলা হচ্ছে তারা যেন লেখাপড়া চালিয়ে যায়। শিক্ষার্থীদের উদ্বিগ্ন না হওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ জানতে উদ্বিগ্ন প্রায় ১৪ লাখ পরীক্ষার্থী।
গত বৃহস্পতিবার চেয়ারম্যানদের বৈঠকের আগে বলা হয় এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। সভা শেষে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক জানান, এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

তবে এই সভার মূল এজেন্ডা ছিল এইচএসসি পরীক্ষা। তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, জেএসসি পরীক্ষা বাতিল করা হলেও পরবর্তী ক্লাসে কীভাবে উত্তীর্ণ করা হবে সে বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। শিক্ষার্থীদের নিজস্ব প্রক্রিয়ায় পরবর্তী ক্লাসে উন্নীত করবে। এটি করতে যাতে কোনো সমস্যা না হয় এজন্য একটি গাইডলাইন তৈরি করা হবে। সেটি অনুসরণ করে পরবর্তী ক্লাসে উন্নীত করা হবে।

এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আব্দুল আলীম বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে কী কী পদ্ধতিতে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা নেয়া যেতে পারে সেসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। পরীক্ষা নেয়ার জন্য প্রশ্ন ও উত্তরপত্র প্রস্তুত রয়েছে। কবে পরীক্ষা নেয়া হবে সরকার সিদ্ধান্ত ঘোষণা দিলে আমরা পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ করতে পারবো।

তিনি আরও বলেন, এখন পাবলিক পরীক্ষা আগের মতো নেয়া সম্ভব নয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে এক বেঞ্চে একজন বা দুজন করে পরীক্ষার্থী বসানো হবে। পরীক্ষাকেন্দ্র স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে এ পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। সব শিক্ষা বোর্ডগুলোকে পরীক্ষা সংক্রান্ত প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে।

১৭ই মার্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি ঘোষণার পর কয়েক দফা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৩রা অক্টোবর পর্যন্ত। করোনার সেকেন্ড ওয়েবের শঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে শীতে।

সেইসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক কিছুদিন আগে বলেন, করোনার সেকেন্ড ওয়েব শুরু হয়ে গেছে। এ ছাড়াও এমতাবস্থায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান না খোলার বিষয়ে মত দেন শিক্ষাবিদরা।

গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, করোনায় সঙ্গত কারণেই পৃথিবীর অনেক দেশেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থীরা যেহেতু ভাবছে অনেক ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে। আমার স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ের শিক্ষার্থী ছিলাম আমাদের এমন কোনো ক্ষতি হয়ে যায়নি। তবে এই পরিস্থিতিতে খুললে কী হবে? বিশ্বের অনেক দেশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার পর অনেক হারে শিক্ষার্থী সংক্রমিত হয়েছে। আর এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিষয়ে তিনি বলেন, স্বাভাবিকভাবেই তাদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ আছে। তবে এটাও ঠিক এইচএসসি পরীক্ষাই সবকিছু নয়।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather
hit counter