Home » Author Archives: chief editor

Author Archives: chief editor

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ৩য় বর্ষ পরীক্ষার ফল প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক,০৭ আগস্ট ২০২২:

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০২০ সালের অনার্স ৩য় বর্ষ পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। রোববার (৭ আগস্ট) এই ফল প্রকাশ করা হয়।

সারাদেশে ৩১১টি কেন্দ্রে মোট ৩১টি অনার্স বিষয়ে ৭৯৭টি কলেজের ৩ লাখ ৪০ হাজার ৫১৯ জন পরীক্ষার্থী এ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। পরীক্ষায় গড় প্রমোশনের হার ৯৪ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

আরো পড়ুনঃ নটিআরসিএর নির্দেশনা অনুযায়ী ই-রিকুইজিশন দাখিলের নির্দেশ

পরীক্ষায় নিয়মিত-অনিয়মিত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২ লাখ ২৬ হাজার ৪০৮ জন। আর মানোন্নয়ন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৭৪ জন।

রোববার সন্ধ্যা ৭টা থেকে এসএমএসের মাধ্যমে যেকোনো মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে nu<space>h3<space>Roll No লিখে ১৬২২২ নম্বরে সেন্ড করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট results.nu.ac.bdwww.nubd.info থেকে ফল জানা যাবে।

এনটিআরসিএর নির্দেশনা অনুযায়ী ই-রিকুইজিশন দাখিলের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক,০৭ আগস্ট ২০২২:

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) নির্দেশনা মোতাবেক ই-রিকুইজিশন দাখিলের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বেসরকারি মাদ্রাসাগুলোর অধ্যক্ষদের নির্দেশ দিয়েছে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। 

রোববার (৭ আগস্ট) মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (অর্থ) লুৎফর রহমানের সই করা বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে|

গত ৩ আগস্ট এনটিআরসিএ পরিচালক (শিক্ষাতত্ত্ব ও শিক্ষামান) কাজী কামরুল আহছানের সই করা আরেক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ থেকে অনলাইনে এমপিও শূন্য পদের অধিযাচন (ই-রিকুইজিশন) প্রদান করার সময় ৭ আগস্ট পর্যন্ত নির্ধারিত ছিল।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এবং মাদ্রাসায় পূর্বের জুনিয়র মৌলভি পদ বর্তমানে ইবতেদায়ি মৌলভি এবং পূর্বের জুনিয়র শিক্ষক (সাধারণ) বর্তমানে ইবতেদায়ি শিক্ষক পদসহ অন্যান্য পদে অধিযাচন দেওয়ার সুবিধার্থে শূন্য পদে অধিযাচন দেওয়ার সময়সীমা আগামী ১৪ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত বাড়ানো হলো।

এতে আরও বলা হয়, যেসব মাদ্রাসা ইবতেদায়ি মৌলভি ও ইবতেদায়ি শিক্ষক পদ ব্যতিত ইতোমধ্যে ই-রিকুইজিশন কার্যক্রম শেষ করেছে, সেসব মাদ্রাসা সংশোধনের সময় দুটি পদে চাহিদা দিতে পারবে।

ই-রিকুইজিশন দাখিলের সময়সীমা পার হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে তা সংশোধন করার জন্য সময় দেওয়া হবে।

ইনসেপ্টা ফার্মায় ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ

চাকরি ডেস্ক,০৩ আগস্ট ২০২২: ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড সম্প্রতি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি একাধিক পদে লোকবল নিয়োগ দেবে। আগ্রহীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

পদের নাম : সিনিয়র অফিসার/ এক্সিকিউটিভ অফিসার। পদের সংখ্যা : নির্ধারিত না। আবেদন যোগ্যতা : ক্যামিস্ট্রিতে এমএসসি/ বিএসসি ডিগ্রি থাকতে হবে। পদ সংশ্লিষ্ট বিসয়ে ৩-৮ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

বেতন : আলোচনা সাপেক্ষে।

পদের নাম : অফিসার। পদের সংখ্যা : নির্ধারিত না। আবেদন যোগ্যতা : ক্যামিস্ট্রিতে এমএসসি/বিএসসি পাস করতে হবে।

বেতন : আলোচনা সাপেক্ষে।

আরো দেখুনঃ মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে চাকরির সুযোগ

চূড়ান্ত নিয়োগের পর ঢাকার ধামরাইয়ে কাজের আগ্রহ থাকতে হবে।

আবেদন যেভাবে : আগ্রহীদের অনলাইনে সিভি পাঠতে হবে। সিভি পাঠাতে হবে [email protected] এই ঠিকানায়।

২০২৩ সালের আলিম পরীক্ষার সিলেবাস প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক,০৩ আগস্ট ২০২২: ২০২৩ সালের আলিম পরীক্ষার পুনর্বিন্যাসকৃত সিলেবাস প্রকাশিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২ আগস্ট) মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে এ সিলেবাস প্রকাশ করা হয়।

গত ২৬ জুলাই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ আলিম পরীক্ষার সিলেবাসের অনুমোদন দেয়।

আরো পড়ুনঃ নিজ প্রতিষ্ঠানে ৪৬ দিন পর যেভাবে ফিরলেন নড়াইলের সেই অধ্যক্ষ

মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের প্রকাশনা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক ড. রিয়াদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, করোনা মহামারির পরিপ্রেক্ষিতে ২০২৩ সালের আলিম পরীক্ষার্থীদের পাঠ্যসূচি জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) কর্তৃক পুনর্বিন্যস্ত এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ কর্তৃক অনুমোদিত হয়েছে। ২০২৩ সালের আলিম পরীক্ষার নিয়মিত ও অনিয়মিত শিক্ষার্থী এবং সংশ্লিষ্ট সকলের অবগতির জন্য পুনর্বিন্যস্ত পাঠ্যসূচি নির্দেশক্রমে প্রকাশ করা হলো।

যুবকের কানের পর্দা ফাটিয়ে বাইক-আইফোন কেড়ে নিলেন ২ ছাত্রলীগকর্মী

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক,০৩ আগস্ট ২০২২:ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এক যুবকের মোটরসাইকেল, মোবাইল ফোন ও টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টারদা সূর্য সেন হল ছাত্রলীগের দুই কর্মীর বিরুদ্ধে।

বুধবার (৩ আগস্ট) এ ঘটনায় শাহবাগ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন প্রজিত দাস (২৮) নামে ভুক্তভোগী ওই যুবক। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি চত্বর এলাকায় ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগে জানান তিনি।

আরো পড়ুনঃ নিজ প্রতিষ্ঠানে ৪৬ দিন পর যেভাবে ফিরলেন নড়াইলের সেই অধ্যক্ষ

অভিযুক্ত মো. তুষার হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী এবং মো. শামীমুল ইসলাম ভাষাবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থী। তারা দুজনেই মাস্টারদা সূর্য সেন হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মারিয়াম জামান খান সোহানের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

ভুক্তভোগী প্রজিত নড়াইলের নরাগাতি থানা এলাকার গন্ধবাড়ীয়ার বিরেন্দ্র নাথ দাসের ছেলে। থানায় দেওয়া অভিযোগে তিনি বলেন, আমি মোটরসাইকেলযোগে পলাশী থেকে টিএসসির উদ্দেশে রওনা হই। রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি চত্বরে এলে সূর্য সেন হলের মো. তুষার হোসেন ও মো. শামীমুল ইসলামসহ অজ্ঞাতনামা পাঁচ-ছয় জন আমার মোটরসাইকেল থামিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন।

তিনি বলেন, এ সময় মোটরসাইকেল ও মোবাইল ফোন জোরপূর্বক নিয়ে যেতে চাইলে আমি প্রতিবাদ করি। পরে তারা আমাকে লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে মুখমণ্ডলসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় জখম করেন। থাপ্পড়ে আমার কানের পর্দা ফেটে যায়। পরে তারা আমাকে সূর্য সেন হলের গেস্টরুমে নিয়ে ফের মারধর করেন। তারা আমার পালসার মোটরসাইকেল (ঢাকা মেট্রো ল-৫১-১২৭৫), আইফোন ও নগদ ১৭ হাজার টাকা নিয়ে যান। তারপর খালি হাতে ধাক্কা মেরে বের করে দিয়ে বলেন, ‘তুই সোজা চলে যাবি। ডানে বামে কোথাও তাকাবি না।’ এ সময় তারা আমাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন।

নিজ প্রতিষ্ঠানে ৪৬ দিন পর যেভাবে ফিরলেন নড়াইলের সেই অধ্যক্ষ

জেলা প্রতিনিধি,৩ আগষ্ট ২০২২:

নড়াইল জেলা সদরের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছনার ঘটনার দীর্ঘ ৪৬ দিন পর কলেজে ফিরেছেন তিনি। বুধবার সকাল দশটার দিকে মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ক্যাম্পাসে পৌঁছলে পরিচালনা পরিষদ, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, জনপ্রতিনিধি ও এলাকার সুধীজনেরা অধ্যক্ষের গলায় ফুলের মালা পরিয়ে দেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- নড়াইল-১ আসনের এমপি কবিরুল হক। পরে সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশে সংক্ষিপ্ত এক সম্প্রীতি সমাবেশ শেষে তিনি তার আসনে বসেন।

এদিকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস কলেজে ফেরায় খুশি শিক্ষার্থীরা।

এর আগে লাঞ্ছনার ঘটনায় এক মাস পাঁচদিন বন্ধ থাকার পর গত ২৪ জুলাই কলেজ খুলে। তখন থেকে শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবাই ক্লাসে ফিরলেও অধ্যক্ষ এতদিন অনুপস্থিত ছিলেন।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকাল ১০টার দিকে কলেজ পরিচালনা কমিটির আয়োজনে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকার সুধীজনদের নিয়ে সম্প্রীতি সমাবেশ কলেজ হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে স্বপন কুমার বিশ্বাসকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর আব্দুস সালাম হাওলাদার, রেজিস্ট্রার মোল্যা মাহফুজ আল হুসাইন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ মনিটরিং অ্যান্ড ইভালুয়েশন বিভাগের ডাইরেক্টর এএসএম রফিকুল আকবর, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট অচিন কুমার চক্রবর্তী, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা রেড ক্রিসেন্টের সম্পাদক কাজী ইসমাইল হোসেন লিটন, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট এসএ মতিন, সমাজসেবক কল্যাণ মুখার্জী প্রমুখ।

গভর্নিং বডির সভপতি অ্যাড. অচিন কুমার চক্রবর্তী, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সুভাষ চন্দ্র বোস, গভর্নিং বডির সদস্য আনিসুর রহমান প্রমুখ।

ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘অপরাধ না করেও অপরাধীর কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে লাঞ্ছিত হতে হয়েছে। এই কলেজে ফেরা নিয়ে শঙ্কা ছিল। সব শঙ্কা কেটে গেছে। অনেক দিন পর নিজের প্রাণের ক্যাম্পাসে ফিরতে পেরে ভালো লাগছে। গভর্নিং বডি আমার সঙ্গে আছে। এলাকাবাসী তাদের ভুল বুঝতে পেরেছে। এখন সবাই যখন আমার পাশে এসে দাঁড়িয়েছে তখন আশা দেখছি।’ তিনি আশা করছেন, আর কোনো সমস্যা হবে না। আগের মতোই কলেজে নিজের স্বাভাবিক কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারবেন।

নড়াইল-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য বিএম, কবিরুল হক মুক্তি বলেন, অসাম্প্রদায়িক নড়াইলে একটি চক্র অসাম্প্রদায়িক চেতনার ধারক ও বাহক বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য পরিকল্পিতভাবে মির্জাপুর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে এ ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছিল। ষড়যন্ত্রকারী যেই হোক না কেন তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।

কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী মুক্তা বিশ্বাস বলেন, অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস খুব ভালো একজন শিক্ষক। ধর্ম অবমাননার কথিত অভিযোগে তাকে লাঞ্ছিত করার কারণে মাঝখানে একটা খারাপ সময় পার হয়েছে। স্যার আবার কলেজে ফিরে আসায় আমরা খুব খুশি।

স্বপন কুমার বিশ্বাসের সহকর্মী শ্যামল কুমার ঘোষ বলেন, ‘স্বপন কুমার বিশ্বাস দীর্ঘদিন কলেজে না থাকায় একটা শূন্যতা ছিল। আজ যোগ দেওয়ার পর আবার সবকিছু পূর্ণ হলো।’

প্রসঙ্গত, গত ১৭ জুন কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র রাহুল দেব রায় ওরফে বাপ্পী রায় নিজের ফেসবুক আইডিতে বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার ছবি দিয়ে পোস্ট করেন, ‘প্রণাম নিও বস ‘নূপুর শর্মা’ জয় শ্রীরাম’। বিষয়টি ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়লে কলেজের কিছু ছাত্র তাকে সেটি মুছে (ডিলিট) ফেলতে বলেন। এরপর ১৮ জুন সকালে অভিযুক্ত ছাত্র কলেজে আসলে তার সহপাঠীসহ সকল মুসলিম ছাত্র তার গ্রেফতার, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও তাৎক্ষণিক বহিষ্কারের দাবি তুলে অধ্যক্ষের নিকট বিচার দেয়। কিন্তু ওই সময় ‘অধ্যক্ষ একই সম্প্রদায়ের লোক হওয়ায় তাকে রক্ষা করার চেষ্টায় ওই ছাত্রের পক্ষ নিয়েছেন’- এমন কথা রটানো হলে উত্তেজনা তৈরি হয়।

এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে উত্তেজিত জনতার দফায় দফায় সংঘর্ষে হয়। সংঘর্ষে দুই পুলিশ সদস্যসহ বেশ কয়েকজন আহত হন। এরপর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান ও পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায় ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তাদের উপস্থিতিতেই উত্তেজিত জনতা ধর্ম অবমাননার অভিযোগে অভিযুক্ত ছাত্রের পাশাপাশি ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায়ও জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছিত করে। এ নিয়ে দেশব্যাপী সমালোচনার ঝড় ওঠে। পরে এ ঘটনায় মামলা দায়ের এবং সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কর্তৃপক্ষ তদন্ত দল গঠন করে। এরপর ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটক করে বিচারের আওতায় আনা হয়েছে।

মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে চাকরির সুযোগ

মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি প্রাণ গ্রুপ সম্প্রতি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি তাদের এসসিএম বিভাগে লোকবল নিয়োগ দেবে। আগ্রহীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

পদের নাম : অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার/ ডেপুটি ম্যানেজার। পদের সংখ্যা : নির্ধারিত না। আবেদন যোগ্যতা : অ্যাকাউন্টিং, ফাইন্যান্স, ম্যানেজমেন্ট, এসসিএম বা ইন্টারন্যাশনাল বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি থাকতে হবে।

পদ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ২-৬ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

পারচেজ/ প্রকিউরমেন্ট বিষয় জানাশোনা থাকতে হবে। প্রার্থীর বয়সসীমা ২৮-৩৫ ব্ছরের মধ্যে হতে হবে।

শুধুমাত্র পুরুষ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। যোগাযোগ দক্ষতা থাকতে হবে। ইন্টারপারসোনাল স্কিল থাকতে হবে। কম্পিউটার চালনায় অভিজ্ঞ হতে হবে।

বেতন ও সুযোগ সুবিধা : বেতন আলোচনা সাপেক্ষে। প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা অনুসারে টিএ, মোবাইল বিল, ট্যুর অ্যালায়েন্স, পারফরমেন্স বোনাস, প্রভিডেন্ট ফান্ড, দুপুরের খাবার, বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি ও উৎসব ভাতা প্রদান করা হবে।

আবেদনের শেষ তারিখ : ২৭ আগস্ট, ২০২২

আবেদন যেভাবে : আগ্রহীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করতে ক্লিক করুন এখানে।

এমপিওভুক্তি হতে না পারা স্কুল-কলেজের আপিল শুনানি শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক,০২ আগস্ট ২০২২: এমপিওভুক্তি হতে আবেদন করে নির্বাচিত হতে না পারা স্কুল-কলেজগুলোর করা আপিলের শুনানি মঙ্গলবার (২ আগস্ট) থেকে শুরু হয়েছে। বুধবার এবং বৃহস্পতিবার এসব প্রতিষ্ঠানের আপিলের শুনানি চলবে।

এ তিনদিন রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আপিল করা প্রতিষ্ঠানগুলোর বক্তব্য শুনবেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীক।
সম্প্রতি বিষয়টি জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালা- এর ১৫ ও ১৬ ধারা অনুযায়ী এমপিওভুক্তির জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। আবেদনসমূহ যাচাই বাছাই করে প্রাথমিক তালিকায় যে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হওয়ার যোগ্য বিবেচিত হয়নি, সে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে নীতিমালার ১৬.৪ ধারা অনুযায়ী আপিল আবেদনের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

আপিল আবেদন নেওয়ার সময়সীমা নির্ধারিত ছিল ২১ জুলাই পর্যন্ত। প্রাপ্ত আপিল আবেদনসমূহ পর্যালোচনা ও আপিলকারীদের বক্তব্য শুনানির জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের আপিল করা প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্তৃপক্ষের বক্তব্য শুনানি হবে। বুধবার সকাল ১০টায় একই জায়গায় রাজশাহী, খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগের আপিল করা প্রতিষ্ঠানগুলোর শুনানি হবে। বৃহস্পতিবার রংপুর ও বরিশাল বিভাগের আপিল করা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধানদের শুনানি গ্রহণ করা হবে।

জিম্বাবুয়ের কাছে সিরিজ হারের লজ্জা বাংলাদেশের

ক্রীড়া ডেস্ক,২ আগষ্ট ২০২২: টি-টোয়েন্টিতে হারের বৃত্তে আটকে যাওয়া বাংলাদেশ দল দীর্ঘদিন পর জিম্বাবুয়ে বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জয় পায়। তবে সেই জয়ের ধারা ধরে রাখতে পারেনি টাইগাররা। প্রথম ম্যাচ হারের পর আজ মঙ্গলবার তৃতীয় ও শেষ ম্যাচেও হেরেছে ১০ রানের ব্যবধানে। এতে ১-২ ব্যবধানে সিরিজ হারল সফরকারীরা। এই হারের ফলে প্রথমবারের মতো জিম্বাবুয়ের কাছে টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারল বাংলাদেশ।

আগের দুই ম্যাচে সমান ১টি করে জয় পায় দুই দল। সে হিসেবে আজ শেষ ম্যাচটি হয়ে ওঠে অঘোষিত ফাইনাল। এ ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নেমে রায়ান বার্লের ঝোড়ো হাফসেঞ্চুরিতে ৮ উইকেট হারিয়ে স্কোর বোর্ডে ১৫৬ রানের পুঁজি পায় স্বাগতিকরা। ১৫৭ রানের লক্ষ্য টপকাতে নেমে জিম্বাবুয়ের বোলারদের কাছে ধরাশায়ী টাইগার ব্যাটসম্যানরা। শেষদিকে কিছুটা আশা জাগলেও তাদের ইনিংস থামে ১৪৬ রানে।

১৫৭ রানের লক্ষ্য, টি-টোয়েন্টিতে এমন লক্ষ্যকে বড়জোর মাঝারি মাপের বলা চলে। এই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে যেমন শুরুর দরকার ছিল বাংলাদেশের, তেমনটা এনে দিতে পারেননি ওপেনাররা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই সাজঘরে লিটন দাস। ভিক্টর নিয়াউচিকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন এই ডানহাতি। ৬ বলে ১৩ রান করেন। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অভিষেক ক্যাপ পাওয়া পারভেজ হোসেন ইমন ২ রানের বেশি করতে পারেননি। টাইমিংয়ে গড়বড় করে নিয়াউচির বলে মিড অনে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন।

আরও পড়ুন>> নাসুমের এক ওভারে ৩৪ রান বার্লের

দলে সুযোগ পেয়েও আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি এনামুল হক বিজয়ও। আরো একবার ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। ১৩ বলে ১৪ রান করে বোল্ড হন। এতে ৩৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ। সেই বিপদ আর কাটিয়ে উঠতে পারেনি সফরকারী শিবির। নাজমুল হোসেন শান্ত ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ কিছুটা আশা দেখালেও সেট হয়েও নিজেদের ইনিংস বড় করতে পারেননি তারা।

শিক্ষার্থী নেই তবুও এমপিওভুক্ত বিদ্যালয়!

নিজস্ব প্রতিবেদক,৩১ জুলাই ২০২২:

বাউফল উপজেলার বগা ইউনিয়ন বালিকা নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় নামের একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী না থাকলেও মিথ্যা তথ্য দিয়ে সেটি এমপিওভুক্ত করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত জুন মাসে ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি এমপিওভুক্ত করা হয়। শিক্ষার্থীবিহীন এমন একটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে জনমনে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, বগা ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক অসিত বরণ হাওলাদার কয়েক বছর ধরে তার বিদ্যালয়ের ১ কিলোমিটারের মধ্যে বগা ইউনিয়ন বালিকা নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার নিয়মানুযায়ী অন্য কোনো বিদ্যালয়ের ৩ কিলোমিটারের মধ্যে নতুন কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করার বিধান নেই। নতুন ওই বিদ্যালয়ে তার স্ত্রী বিথিকা রানী হাওলাদারকে সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়।

সরজমিন পরিদর্শনকালে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে ৪-৫ জন করে শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট পড়াচ্ছেন শিক্ষকরা। অষ্টম শ্রেণির ক্লাসে দেখা যায়, অন্য বিদ্যালয়ের নবম ও দশম শ্রেণির আটজন শিক্ষার্থীকে একত্রে প্রাইভেট পড়াচ্ছেন এক শিক্ষক। এমপিওভুক্ত হতে প্রত্যেক শ্রেণিতে কমপক্ষে ৩০ জন শিক্ষার্থী থাকতে হবে বলে শর্ত রয়েছে এবং পাবলিক পরীক্ষায় কমপক্ষে ২৫ জন শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ গুচ্ছের ভর্তি পরীক্ষা : ‘ক’ ইউনিটে অনিয়মের অভিযোগ

অভিযোগ রয়েছে, গত জুন মাসে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হওয়ার পর থেকে গ্রামের কিছু দরিদ্র শ্রেণির শিক্ষার্থীকে বিনা পয়সায় প্রাইভেট পড়ানোর নামে কাগুজে-কলমে শ্রেণি কার্যক্রম সচল দেখানো হচ্ছে। যদিও শিক্ষকরা দাবি করেছেন, এসব শিক্ষার্থী তাদের বিদ্যালয়ের। তবে পরিদর্শনকালে শিক্ষার্থীদের হাজিরা খাতা দেখতে চাইলে শিক্ষকরা তা দেখাতে পারেননি। এছাড়া এমপিওভুক্ত হওয়ার শর্তানুযায়ী বিদ্যালয়ের নিজস্ব জমি থাকতে হবে এবং খেলার মাঠ থাকতে হবে। কাগুজে-কলমে জমি থাকলেও বাস্তবে এই বিদ্যালয়ের দখলে নির্দিষ্ট পরিমাণ জমি নেই।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করে প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক ও বগা ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক অসিত বরণ হাওলাদার বলেন, আমরা নিয়ম মেনেই বিদ্যালয় পরিচালনা করছি। এ প্রসঙ্গে বাউফল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাজমুল হক বলেন, অনলাইনে সব শর্ত পূরণ সাপেক্ষে প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়। এখানে আমাদের কোনো হাত নেই। তবে নিয়মানুযায়ী সব কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হবে।

গুচ্ছের ভর্তি পরীক্ষা : ‘ক’ ইউনিটে অনিয়মের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক,৩১ জুলাই ২০২২:

গুচ্ছভুক্ত ২২টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের বিজ্ঞান বিভাগভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত সারাদেশের ১৯টি কেন্দ্রের ৫৭টি উপকেন্দ্রে এ পরীক্ষা হয়। তবে পরীক্ষা দিতে এসে নানা ধরনের ভোগান্তি ও অনিয়মের অভিযোগ করেছেন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকরা।

এবার গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় মোট আবেদন জমা পড়ে ২ লাখ ৯৪ হাজার ৫২৪টি। এর মধ্যে ১২ হাজার ৬৮৪টি আসনের ‘ক’ ইউনিটে সবচেয়ে বেশি এক লাখ ৬১ হাজার ৭২৬ জন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী আবেদন করেন। শনিবার রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, উচ্চতর গণিত, বাংলা ও ইংরেজি থেকে যে কোনো চারটি বিষয়ে মোট ১০০ নম্বরের উত্তর করেন পরীক্ষার্থীরা।

গুচ্ছভুক্ত অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাভাবিকভাবে পরীক্ষা হলেও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রে এসে পরীক্ষার্থীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। পুরান ঢাকায় ঢুকতেই পল্টন থেকে তীব্র যানজট পেয়েছেন তারা। যানজট নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের নির্দেশনা থাকলেও তা কোনো কাজে আসেনি। ফলে অনেক পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষা শুরুর ৫-১০ মিনিট পরও কেন্দ্রে যেতে দেখা যায়।

এ ছাড়া শিক্ষা মন্ত্রণালয় নির্ধারিত এইচএসসির শর্ট সিলেবাসের আলোকে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন হওয়ার কথা থাকলেও একাধিক বিষয়ে শর্ট সিলেবাসের বাইরে প্রশ্ন এসেছে বলে অভিযোগ করেন একাধিক পরীক্ষার্থী।

এদিকে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড সরকারি মডেল কলেজ কেন্দ্রে ভর্তিচ্ছুরা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মোবাইল নিয়েছেন। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে অবৈধভাবে মোবাইল ফোন রাখায় এক ভর্তিচ্ছুকে বহিস্কার করা হয়েছে।

এ ছাড়া প্রশ্নপত্রের মান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খোদ শিক্ষকরা। তাঁরা বলছেন, প্রশ্নপত্রের সাজসজ্জা দেখে আমরা পুরোপুরি হতাশ। প্রশ্নের অক্ষরের আকার অতি ক্ষুদ্র, ৮-৯ মানের ছিল। উত্তরের অপশনগুলো পাশাপাশি দেওয়া। প্রশ্নপত্রের কোথাও তিল পরিমাণ জায়গা নেই। আবার আলাদা কাগজও দেওয়া হয়নি পদার্থ, গণিত, রসায়নের রাফ করার জন্য।

এদিকে অন্য কেন্দ্রে আসন হওয়ার পরও ভুলে ৮০ পরীক্ষার্থী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছেন। মানবিক দিক বিবেচনা করে তাঁদের পরীক্ষার সুযোগ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোস্তফা কামাল।

যশোরের ঝিকরগাছার বাঁকড়া এলাকার দুই হাত ও এক পাবিহীন বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিক্ষার্থী তামান্না নুরাসহ দু’জন বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একাডেমিক ভবনের কেন্দ্রীয় গ্যালারিতে পরীক্ষায় অংশ নেন।

আগামী ৩ আগস্টের পর পরীক্ষার ফল প্রকাশ হতে পারে বলে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, খাতা মূল্যায়নের জন্য ৩ আগস্ট পর্যন্ত সময় পাবে টেকনিক্যাল কমিটি।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও গুচ্ছভর্তি পরীক্ষা কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক বলেন, এবার আসন নিয়ে তেমন সমস্যা হয়নি। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, নটরডেম কলেজসহ বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে পরীক্ষা নিয়েছি। পরীক্ষার্থীরা কিছু ভুল করেছে। আমরা তাদের সুযোগ দিয়েছি। ঢাকার বাইরে অন্য কেন্দ্রগুলোতে খবর নিয়েছি। সবখানে সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা হয়েছে।

মাউশির নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস: কলেজশিক্ষক বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক,৩০ জুলাই ২০২২: মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) কর্মচারী নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তা মো. রাশেদুল ইসলামকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তিনি পটুয়াখালী সরকারি কলেজের মৃত্তিকাবিজ্ঞান বিষয়ের প্রভাষক পদে কর্মরত ছিলেন।

আরো পড়ুনঃ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জরুরি নির্দেশনা

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীক সাক্ষরিত এক নির্দেশে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়, মাউশির নিয়োগ পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের অভিযোগে বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের শিক্ষক রাশেদুল ইসলামের বিরুদ্ধে গত ১৪ মে লালবাগ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

প্রশ্নফাঁসের মতো ঘটনায় তার সম্পৃক্ততার অভিযোগ উত্থাপিত হওয়ায় রাশেদুল ইসলামকে পটুয়াখালী সরকারি কলেজের চাকরি থেকে সাময়িকভাবে বরখান্ত করা হলো।

আরও বলা হয়, বিধি মোতাবেক তিনি বরখাস্তকালীন খোরপোষ ভাতা পাবেন। জনস্বার্থে জারি করা এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জরুরি নির্দেশনা

ডেস্ক,৩০ জুলাই ২০২২: আগামী ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী। এই অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ছবি ছাড়া ব্যানার ও পোস্টারে অন্যকোন ছবি ব্যবহার করা যাবে না বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

আরো খবর: প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের চূড়ান্ত ফল সেপ্টেম্বরে

শনিবার এ সংক্রান্ত আদেশে বলা হয়, জাতীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামী ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস যাথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা আওতাধীন দপ্তর, সংস্থা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পালন করবে।

নির্দেশনায় বলা হয়, আগামী ১৫ আগস্ট সোমবার জাতীয় পতাকা অর্ধ্বনমিত রাখতে হবে। মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগ এবং আওতাধীন অধিপ্তর, সংস্থা, দপ্তরগুলোর পক্ষে রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বর রোডের বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে সকাল ৮টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। এ সময় দুই বিভাগের যুগ্ম-সচিব ও এর উর্ধ্বতন পর্যায়ের কর্মকর্তা, দফতর ও সংস্থা প্রধানসহ অনধিক ৫ জন উপস্থিত থাকবেন।

জেলা শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার জেলা তথ্য অফিসারের সঙ্গে যোগাযোগ করে পোস্টার সংগ্রহ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে প্রচারের ব্যবস্থা করবেন। যাদের এলইডি বোর্ড রয়েছে তারা এলইডি বোর্ডের মাধ্যমে প্রচারের ব্যবস্থা করবেন।

সব দপ্তর ও সংস্থার কার্যালয়ে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সংশ্লিষ্ট অফিসসের দৃশ্যমান স্থানে জাতীয় শোক দিবসের ভাবগাম্ভীর্য অক্ষুণ্ন রেখে ব্যানার স্থাপন করতে হবে। পোস্টার ও ব্যানারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ছাড়া অন্য কোনও ছবি ব্যবহার করা যাবে না। মন্ত্রণালয় থেকে ব্যানারের নমুনা তৈরি করে সব দপ্তর ও সংস্থায় পাঠানো হবে। দফতর ও সংস্থা তা অনুসরণ করবে।

প্রাথমিকে কত নম্বর পেলে চাকরি হয়?

আচ্ছা ভাইয়া, লিখিততে কত মার্কস পেলে জব হবে? আমার কোটা আছে/নাই। এ ধরনের প্রশ্নের মুখোমুখি প্রায়শই হতে হয়। যারা এই ধরনের প্রশ্ন মনের ভেতর ধারন করেন তাদের জন্য বলে রাখি, প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা হয় জেলা ভিত্তিক এবং নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হয় উপজেলা ভিত্তিক। এখানে একটা উপজেলার সাথে অন্য উপজেলার মার্কসের সামান্যতম কোন সম্পর্ক নাই। কত পেলে আপনার চাকরি নিশ্চিত তা নির্ভর করবে নিজের কয়েকটি বিষয়ের উপরঃ

১.আপনার উপজেলায় কতটি শূন্যপদ আছে।
২.আপনার উপজেলার প্রতিযোগীর সংখ্যা কত।
৩.আপনার উপজেলায় কোন প্রতিযোগী কেমন পরীক্ষা দিয়েছে।

এই নিয়ম দেশের প্রতিটা উপজেলার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। সুতরাং এক উপজেলার সাথে অন্য উপজেলার সামান্যতম কোন প্রভাব নাই। এ জন্য কোন উপজেলায় কোন কোটা না থাকা সত্ত্বেও ৫০ পেয়েও চাকরি হতে পারে আবার কোটা থাকা সত্ত্বেও ৭০পেয়েও চাকরি না হতেও পারে।

আরো পড়ুনঃ প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের চূড়ান্ত ফল

ক’দিন আগে ঢাকা মিরপুর -১১ থেকে এক বোন ফোন দিয়ে বলেন ভাইয়া, এবার আমি লিখিততে ৭০+ পেতাম তবুও আমার রোল লিখিততে আসেনি। এবং তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে যোগাযোগ করে জানতে পারেন তাঁর উপজেলায় মাত্র একটি শূন্যপদ আছে এবং যে কয়জনকে টিকানো হয়েছে তাঁরা সবাই ৭৫+ মার্কস পেয়েছেন। আবার সাতক্ষিরা হতে একজন ফোন দিয়ে বলছিলেন যে,ভাইয়া আমার কোন কোটা নেই তবুও ৫০- পেয়ে আমি লিখিততে টিকেছি। আমার কি জব হওয়ার সম্ভাবনা আছে। আমি বললাম আপনার উপজেলায় হয়তো সবাই কম মার্কস পেয়েছে তাই আপনি টিকেছেন সুতরাং আপনার জব হতে পারে। সুতরাং আপনার কোটা থাকুক আর নাই থাকুক আপনি কত পেলে জব পাবেন তা নির্ভর করবে উপরোক্ত বিষয়গুলোর উপর। কিন্ত চাকরি পেতে হলে আপনার প্রধান টার্গেট হলো উপজেলায় সর্বোচ্চ মার্কস পাওয়া।

আপনি লিখিততে কত পেয়েছেন তা স্বয়ং ডিসি স্যারেরও জানার কোন সুযোগ নেই, যিনি ভাইভা বোর্ডের প্রধান। এবং এই চাকরিটা বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী এমপি,মুন্ত্রী কিংবা ডিসি স্যারের দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। চাকরি পেতে হলে আপনার যোগ্যতায় আপনাকে অর্জন করে নিতে হবে।

প্রাথমিকে চাকরি প্রত্যাশীদের আর একটি প্রধান প্রশ্ন হলো কোটা বিভাজন নিয়ে যা আমাকে সব চেয়ে বেশি সমুক্ষিন হতে হয়। আমার কোটা আছে/নাই। এ ধরনের প্রশ্নের মুখোমুখি প্রায়শই হতে হয়। যারা এই ধরনের প্রশ্ন মনের ভেতর ধারন করেন তাদের জন্য বলে রাখি, প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা হয় জেলা ভিত্তিক এবং নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হয় উপজেলা ভিত্তিক। এখানে একটা উপজেলার সাথে অন্য উপজেলার মার্কসের সামান্যতম কোন সম্পর্ক নাই।

প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের চূড়ান্ত ফল সেপ্টেম্বরে

নিজস্ব প্রতিবেদক,৩০ জুলাই ২০২২: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল আগামী সেপ্টেম্বরে প্রকাশ করা হতে পারে। এরপরদ্রুত প্রার্থীদের চাকরিতে যোগদানের ব্যবস্থা করা হবে। মোট ৪৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ পাবেন।

আরো পড়ুনঃ প্রাথমিকে কত নম্বর পেলে চাকরি হয়?

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা তিন ধাপে নেওয়া হয়েছে। তবে চূড়ান্ত ফলাফল একবারে প্রকাশিত হবে। এখনো কয়েকটি জেলায় মৌখিক পরীক্ষা চলছে। সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত এ পরীক্ষা চলবে। ওই মাসের শেষে চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হতে পারে।

এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, চূড়ান্ত ফলাফলে উপজেলা/ শিক্ষা থানার জন্য প্রার্থীদের তালিকা ছাড়া অন্য কোনো অপেক্ষমাণ তালিকা বা প্যানেল প্রস্তুত করা হবে না। ‘সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৯’ অনুসরণ করে স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতার সঙ্গে নিয়োগপ্রক্রিয়া সম্পন্ন হচ্ছে। সব কাজ সফটওয়্যারের মাধ্যমে করা হয়। এ ক্ষেত্রে কোনো ধরনের অবৈধ হস্তক্ষেপের সুযোগ নেই।

আরো পড়ুন: প্রাথমিক শিক্ষকরা যেভাবে বদলির আবেদন করবেন

দালাল বা প্রতারক চক্রের সঙ্গে অর্থ লেনদেন না করার জন্য সবাইকে অনুরোধ করা হয়েছে। এ উপায়ে নিয়োগ পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতেই সবার চাকরি হবে। কেউ অর্থের বিনিময়ে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখালে থানায় সোপর্দ করা অথবা গোয়েন্দা সংস্থাকে জানানোর অনুরোধ করা হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ২০২০ সালের ২০ অক্টোবর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। সহকারী শিক্ষকের ৩২ হাজার ৫৭৭টি শূন্য পদে নিয়োগের জন্য এ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। তবে করোনা মহামারির কারণে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি। ইতিমধ্যে আরও ১০ হাজারের বেশি পদ শূন্য হয়ে পড়ে। পরে আগের বিজ্ঞপ্তির শূন্য পদ ও পরের শূন্য পদ মিলিয়ে ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

hit counter