Home » নিউজ (page 41)

নিউজ

অনুমোদনহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলতে দেওয়া হবে না: শিক্ষামন্ত্রী

অনুমোদনহীন কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

‘অনুমোদনহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলতে দেওয়া হবে না’

রাজধানীর ধানমন্ডিতে আজ শনিবার নায়েম মিলনায়তনে ঢাকা মহানগরীর কলেজ অধ্যক্ষদের এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘অনুমোদনহীন কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলতে দেওয়া হবে না। ইতোমধ্যে অনুমোদনহীন প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ শুরু হয়েছে।’

সদ্য বন্ধের নির্দেশ দেওয়া পিস স্কুলের দিকে ইঙ্গিত করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এর মধ্যে আমরা অনুমোদনহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধ করতে শুরু করেছি। বন্ধ হওয়া প্রতিষ্ঠান আবার নতুন নামে চালু করার চেষ্টা করছে। সেগুলোর ব্যাপারেও আমরা কঠোর হচ্ছি।’

জঙ্গিবাদ দমনে শিক্ষক-অভিভাবকদের সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়ে নুরুল ইসলাম বলেন, ‘শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতে বহিরাগতরা আনাগোনা করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আর অভিভাবকদের হৃদয় দিয়ে ছেলেমেয়েদের কথা শুনতে হবে। তারা যাতে ভুল পথে না যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।’

ছাত্র ও শিক্ষকের সুস্পর্কের ওপরও জোর দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘চট্টগ্রামে দেখেছি একটি ক্লাসে মাইক্রোফোনে শিক্ষক লেকচার দিচ্ছেন। ক্লাসরুমে যে পরিমাণ ছাত্র, বাইরেও সেই পরিমাণ ছাত্র দাঁড়িয়ে আছে। এ অবস্থায় শিক্ষকরা কতটুকু পড়াতে পারবেন সেটাই বিবেচ্য বিষয়। কিন্তু শিক্ষার্থীদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্কের বিকল্প নেই।’

‘একজন শিক্ষক ছাত্রকে চিনলে তখন ওরা উৎসাহিত হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাজ শুধু সিলেবাস মুখস্ত করে ভালো রেজাল্ট করা নয়, ছেলেমেয়েদের জ্ঞানকেও বিকশিত করা।’

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি ও প্রশ্ন ফাঁস নিয়েও কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘ঢাকা শহরে ৩০০ কলেজের মধ্যে আমরা খোঁজ নিয়ে দেখেছি ৪৮টি কলেজে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তির আবেদনই করেনি। ঢাকা শহরে ৪৩ হাজার সিট উচ্চ মাধ্যমিকে ফাঁকা আছে। সাড়া দেশে এখনও কলেজ পর্যায়ে ৭ লাখ সিট ফাঁকা আছে। এরপরও আমাদের ওপর চাপ নতুন কলেজ অনুমোদন দেওয়ার। আমাদের এই বাস্তবতা উপলব্ধি করতে হবে।’

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) উদ্যোগে মনিটরিং ও ইভালুয়েশন উইংয়ের ব্যবস্থাপনায় ঢাকা মহানগরীর সরকারি ও বেসরকারি কলেজ উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণিতে ভর্তি ও ফলাফলের উপর এই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। মাউশির মহাপরিচালক অধ্যাপক এস এম ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইন।

শিক্ষককে কানে ধরিয়ে ওঠবস : সেলিম ওসমানের সম্পৃক্ততা নেই

selimনিজস্ব প্রতিবেদক :

নারায়ণগঞ্জে স্কুলশিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে কান ধরিয়ে উঠবস করানোর ঘটনায় স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের কোনো সম্পৃক্ততা পায়নি পুলিশ।

এ সংক্রান্ত এক সাধারণ ডায়েরির ভিত্তিতে তদন্ত করে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার আদালতে এক প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। সেই প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

বিষয়টি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।

নিখোঁজ নর্থ সাউথের সাবেক ছাত্রের গাড়ি উদ্ধার

s2অনলাইন ডেস্ক:

চট্টগ্রামে নিখোঁজ হওয়া নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবের ছাত্র মো. জুনায়েদ হোসেন আকিবের (২৫) গাড়ি উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে নগরীর খুলশি এলাকায় ডায়াবেটিক হাসপাতাল থেকে গাড়িটি উদ্ধার করা হয়। তবে নিখোঁজ হওয়া আকিব এবং গাড়িচালক মোস্তফার এখনও হদিস মেলেনি।

আকিবের ‍বাসা নগরীর খুলশি থানার কুসুমবাগ আবাসিক এলাকায়। তিনি গত এপ্রিল মাসে ঢাকায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ অনার্স শেষ করেন।

খুলশি থানার ওসি নিজাম উদ্দিন বলেন, প্রাইভেট কারটি উদ্ধার করা হয়েছে। গাড়িটি লক অবস্থায় রয়েছে এবং এর চাবি পাওয়া যায়নি। গাড়িটি কিভাবে ডায়াবেটিক হাসপাতালের পার্কিংয়ে গেল সেটি খতিয়ে দেখছি। একটা লিংক যেহেতু পাওয়া গেছে, এবার আশা করি দু’জনের সন্ধানও পাওয়া যাবে।

আকিবের ভগ্নিপতি এসএম আবুল মঞ্জুর বলেন, তিনদিন হয়ে গেছে দু’জনের কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। আমরা প্রচণ্ড মানসিক অস্থিরতার মধ্যে দিন পার করছি।

তিনি আরও বলেন, সোমবার রাতে খুলশি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) ‍দায়ের করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সোমবার (০১ আগস্ট) দুপুর ১টার দিকে নিজের প্রাইভেটকারে বন্ধু রাব্বিকে নিয়ে বের হন আকিব। দুপুর পৌনে ৩টার দিকে নগরীর ওয়াসা মোড়ে রাব্বিকে নামিয়ে দেয় আকিব। এরপর গাড়ি ও চালক মোস্তফাসহ নিখোঁজ হয়ে যান।

খুলতে ভয় ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল

English-Medium-Schoolবিশেষ প্রতিবেদক:রমজানের শুরুতেই গ্রীষ্মকালীন ছুটি দেওয়া হয়েছিল। সঙ্গে ছিল ঈদের ছুটি। কথা ছিল ঈদের পর জুলাইয়ের মাঝামাঝি থেকে শেষ নাগাদ একে একে খুলবে রাজধানীর ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলো। এর মধ্যেই গুলশানে ঘটে যায় নির্মম হত্যাযজ্ঞ। ভয় আর আতঙ্ক ঘিরে ধরে নামিদামি স্কুলগুলোকে। এর জের ধরে এখনো বন্ধ রয়েছে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

বন্ধ থাকা স্কুলগুলো মাঝে কয়েক দফায় খোলার তারিখ ঘোষণা করেছিল। সর্বশেষ বলা হয়েছিল ২৮ ও ২৯ জুলাই প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়া হবে। সেই ঘোষণাও কার্যকর হয়নি। এখন কর্তৃপক্ষ খোলার নতুন কোনো তারিখও দিচ্ছে না, স্পষ্ট করে কিছু বলছেও না। না খোলার তালিকায় আছে স্কলাসটিকা, মাস্টারমাইন্ড, সানবিম, আগা খান ইন্টারন্যাশনাল, ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ঢাকা, লন্ডন ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ও সানিডেলের মতো নামিদামি স্কুলগুলো।

অভিভাবকরা বলছেন, স্কুল কবে খুলবে তা জানানো হচ্ছে না। শিক্ষার্থীরা দেড়-দুই মাস ধরে বাসায় বন্দি থেকে হাঁপিয়ে উঠেছে। এ অবস্থায় সন্তানের পড়ালেখা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তাঁরা। এমনকি কেউ কেউ স্কুল পাল্টানোর কথাও ভাবছেন। ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল বলে এর কোনো দায়দায়িত্বই নিচ্ছে না শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) অধিদপ্তর।

বাংলাদেশ ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি ও কার্ডিফ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জি এম নিজাম উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, দেশে একটা আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এ জন্য অনেক স্কুলই একটু দেরি করে খুলছে। অনেকেই দেশের পরিস্থিতি অবজার্ভ করছে। তাই তারা সুনির্দিষ্ট তারিখও দিতে পারছে না। আসলে কী হয় না হয় তা আরেকটু দেখেই কিছু স্কুল তাদের খোলার তারিখ ঘোষণা করবে।

জানা যায়, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের বেশির ভাগ শিক্ষার্থী বাংলাদেশের হলেও শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাউশি অধিদপ্তর তাদের ব্যাপারে দায়িত্ব নিতে চায় না। এমনকি এ স্কুলগুলোর ব্যাপারে তাদের কাছে খুব বেশি তথ্য নেই, এমনকি যোগাযোগও নেই সেভাবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক) চৌধুরী মুফাদ আহমেদ বলেন, ‘ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোর ব্যাপারে আমাদের কাছে ডে টু ডে সুপারভিশনের রিপোর্ট নেই। অনেক স্কুলই যে বন্ধ সে ব্যাপারে ফরমালি রিপোর্টও আমাদের কাছে নেই। তবে আমরা তাদের একটা নীতিমালার মধ্যে আনার চেষ্টা করছি। অধিদপ্তরের সঙ্গে লিংকেজটা বাড়ানোর চেষ্টা করছি।’

সরেজমিনে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত জুনের শুরুতেই গ্রীষ্মকালীন ও ঈদের ছুটির জন্য বন্ধ হয়ে যায় স্কলাসটিকা স্কুলের পাঁচটি শাখা। গত ২৪ জুলাই তাদের স্কুল খোলার কথা ছিল; কিন্তু অভিভাবকদের জানিয়ে দেওয়া হয় অনিবার্য কারণে স্কুল বন্ধ থাকবে। কবে খুলবে এখন তা-ও জানানো হচ্ছে না। মাস্টারমাইন্ড স্কুলও গত ২৪ জুলাই খোলার কথা ছিল; কিন্তু তা পিছিয়ে ৩১ জুলাই করা হয়। তবে সেদিনও স্কুল খোলেনি। এখন কবে খুলবে সে ব্যাপারে অভিভাবকদের কিছু জানানো হচ্ছে না। সানিডেল স্কুল খোলার কথা ছিল গত ৩১ জুলাই। কিন্তু ওরিয়েন্টেশন শেষে জানিয়ে দেওয়া হয় অভিভাবকদের উদ্বেগের কারণে আপাতত স্কুল বন্ধ থাকবে। পরবর্তী সময়ে খোলার তারিখ জানিয়ে দেওয়া হবে। সানবিম স্কুল ও লন্ডন ইন্টারন্যাশনাল স্কুলও গত সপ্তাহে খোলার কথা ছিল। কিন্তু উভয় প্রতিষ্ঠান গতকাল সোমবার পর্যন্ত বন্ধ ছিল।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোর অনেক শিক্ষক-শিক্ষার্থীই বিদেশি নাগরিক। আবার গুলশানে জঙ্গি হামলায় জড়িত পাঁচজনের মধ্যে তিনজনই ছিল নামকরা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী। রোহান ইমতিয়াজ ও মীর সামিহ মোবাশ্বের পড়ত স্কলাসটিকা স্কুলে। নিরবাস ইসলাম পড়েছে ইন্টারন্যাশনাল টার্কিশ হোপ স্কুলে। গুলশান হামলায় নির্বিচারে বিদেশি নাগরিকদের হত্যার ঘটনায় এখন বিদেশি শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা আতঙ্কে রয়েছেন।

গতকাল দুপুরে স্কলাসটিকা স্কুলের গুলশান শাখায় গিয়ে দেখা যায় সুনসান নীরবতা। দুই গেটে দুজন গার্ড ছাড়া আর কারো দেখা মেলেনি। তবে জানা যায়, সকালের দিকে কিছু শিক্ষক এসেছিলেন, তাঁরা চলে গেছেন। একটি গেটে দায়িত্ব পালন করছিলেন অরনেট সিকিউরিটিজ কম্পানির নিরাপত্তা প্রহরী সিদ্দিক মিয়া। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অনেক দিন ধরেই স্কুল বন্ধ। দু-একজন অভিভাবক মাঝেমধ্যে আসেন, আমাদের কাছে জানতে চান। কিন্তু কবে স্কুল খুলবে তা তো আমরা জানি না। আমাদের সঙ্গে সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত দুজন পুলিশ সদস্যও দায়িত্ব পালন করেন।’

স্কলাসটিকা স্কুলের যোগাযোগ সমন্বয়কারী জিয়া হাশান  বলেন, ‘স্কুল খোলার এখনো কোনো তারিখ ঠিক হয়নি। তবে আশা করছি, এক থেকে দেড় সপ্তাহের মধ্যে খোলা সম্ভব হবে। আমাদের কিছু নিরাপত্তা নিশ্চিত করা দরকার ছিল। কিছু নতুন ইনিশিয়েটিভ নেওয়া হয়েছে। এগুলোর কাজ সম্পন্ন হলেই স্কুল খোলা হবে। এ ছাড়া আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীরও সহায়তা চেয়েছি। তারা এখনো নিরাপত্তা দিচ্ছে। আর অভিভাবকদের আমরা মেসেজ করেছি। তবে স্কুল খোলার দিনক্ষণ নির্ধারণ না হওয়ায় তাঁদের ডেট দিতে পারছি না।’

গতকাল ধানমণ্ডিতে অক্সফোর্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে গিয়ে দেখা যায়, স্কুল খুললেও উপস্থিতি খুবই কম। আগের মতো শিক্ষার্থীর আনাগোনা নেই। ক্যাম্পাসও অনেকটা নীরব। নাম প্রকাশ না করে স্কুলের গেটে দাঁড়িয়ে একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা  বলেন, ‘গত সপ্তাহেই স্কুল খোলা হয়েছে। বাচ্চারা বাসায় থাকতে থাকতে বোর হয়ে যাচ্ছিল। অভিভাবকরাও উৎকণ্ঠায় ছিলেন কবে স্কুল খুলবে। তাই স্কুল খোলা হয়েছে। তবে বাচ্চাদের ব্যাগও চেক করে ঢোকানা হচ্ছে।’

মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ধানমণ্ডি শাখার দ্বিতীয় শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক চায়না খান  বলেন, ‘রোজার শুরুতেই স্কুল বন্ধ হয়েছে। দুই মাস হয়ে গেল। একবার বলল ২৪ জুলাই খুলবে, এরপর ৩১ জুলাই। এখন কবে খুলবে তাও বলছে না। স্কুল না খুললে বাসায় তেমন পড়ালেখা হয় না। খুবই চিন্তায় আছি। আমরা অভিভাবক, তার পরও স্কুলে গেলেও আমাদের কোনো দিকনির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে না।’

স্কলাসটিকা স্কুলের গুলশান শাখার এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘এই স্কুলের শিক্ষার্থী ঐশীকে নিয়ে একবার কত কিছু হলো। এখন আবার জঙ্গি তালিকায়ও নাম উঠেছে। দুইবার ডেট দিয়েও স্কুল খুলল না। একবার শুধু এসএমএস পাঠিয়েছে। স্কুলে গেলেও কেউ ভালো করে কথা বলে না। আমার বাচ্চা যে এই স্কুলে পড়ে এখন সেটাই আর মনে হয় না। তাই চিন্তা করছি বাচ্চাকে অন্য স্কুলে দেওয়ার।’

জানা যায়, সারা দেশে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের সংখ্যা প্রায় ৩৫০। এসব স্কুলে শিক্ষার্থী সংখ্যা প্রায় তিন লাখ। কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের সংখ্যা ১৫৯, শিক্ষার্থী সংখ্যা ৬৪  হাজার ৫০৭ জন। তবে এর মধ্যে নামিদামি স্কুলের সংখ্যা ১০ থেকে ১২টি। এর মধ্যে রয়েছে স্কলাসটিকা, মাস্টারমাইন্ড, সানবিম, ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ঢাকা, লন্ডন ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, আগা খান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ও সানিডেল স্কুল। এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীর সংখ্যাই প্রায় ৩০ হাজারের কাছাকাছি। এই স্কুলগুলোই বন্ধ রয়েছে।

সূত্র জানায়, বন্ধ থাকা স্কুলগুলোতেই রয়েছে বেশির ভাগ বিদেশি শিক্ষক-শিক্ষার্থী। এ কারণে তাঁদের মধ্যে আতঙ্ক ও ভয় কাজ করছে। তাই স্কুল কর্তৃপক্ষ আরো কিছুদিন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেই স্কুল খুলতে চাচ্ছে।

বারিধারায় সিডনি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ভাইস প্রিন্সিপাল কাজী নাসরিন সিদ্দিকা  বলেন, ‘আমাদের স্কুল কিছুদিন আগেই খুলেছে। প্রথম দিকে উপস্থিতি ছিল ২০ থেকে ৩০ শতাংশ। এখন সেটা বেড়ে ৭০ থেকে ৮০ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। সম্প্রতি আমরা প্যারেন্টস মিটিং করলাম। তাঁরা আরো নিরাপত্তার কথা বলেছেন। স্কুলের মেসেজ সিস্টেমটা আরো জোরদার করার কথা বলেছেন। আসলে কয়েকটি ঘটনার পর মানুষের মধ্যে একটা ট্রমা কাজ করছে, যা থেকে অনেকেই বের হতে পারছেন না। আর যেসব স্কুলে বিদেশি শিক্ষক-শিক্ষার্থী আছেন। তাঁদের চিন্তাটা আরো বেশি।’

জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার মাসুদুর রহমান (মিডিয়া)  বলেন, ‘আমার জানামতে স্কুল বন্ধ রাখার ব্যাপারে পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের নির্দেশনা নেই। যারা আমাদের কাছে নিরাপত্তা চাচ্ছে তাদেরই নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া সার্বিক পরিস্থিতির ওপরই আমরা বিশেষ নজরদারি রাখছি।’

ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের অভিভাবকদের সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট আমিনা রত্না বলেন, ‘আমার বাচ্চা ইউরোপিয়ান স্ট্যান্ডার্ড স্কুলে পড়ে। ওদের স্কুল এক দফা পিছিয়ে গত সপ্তাহে খুলেছে। ম্যাপল লিফ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলও খুলেছে। কিন্তু অনেক অভিভাবকই জানাচ্ছেন তাঁদের বাচ্চাদের স্কুল খোলেনি। আমাদের নিরাপত্তাও দরকার, আবার পড়ালেখাও দরকার। গ্রীষ্মকালীন ও ঈদের দীর্ঘ ছুটির পর স্কুল না খুললে বাচ্চারা পড়ালেখা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। এখন ধানমণ্ডি এলাকায় নামিদামি বাংলা মাধ্যমের স্কুল খুলেছে। কিছু ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলও খুলেছে। তাহলে বাকিদের খুলতে সমস্যা কোথায়, তা তো বুঝতে পারছি না। আর না খোলা গেলেও অভিভাবকদের নিয়ে মিটিং করে তাঁদের বিষয়টা বোঝানো উচিত।’

মাউশি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামান  বলেন, ‘ওদের (ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল) আমরা তদারকি করি না। ওরা আমাদের কথা শোনেও না। তার পরও আমাদের শিক্ষার্থীরাই তো পড়ে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে। যদি এখনো বন্ধ থাকে তাহলে আমরা অবশ্যই খোঁজ নেব। কেন বন্ধ আছে তা জানতে চেয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা নেব।’

বাংলাদেশের সব ‘পিস স্কুল’ বন্ধের নির্দেশ

1ঢাকা : ভারতীয় ইসলামী চিন্তাবিদ, বক্তা ও লেখক জাকির নায়েকের আদর্শ অনুসরণে বাংলাদেশে পরিচালিত অনুমোদনহীন পিস স্কুলগুলো অবিলম্বে বন্ধ করার নির্দেশ জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি ঢাকার লালমাটিয়ায় অবস্থিত পিস ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পাঠদানের অনুমতি বাতিল করতে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে এ নির্দেশনার কথা জানানো হয়। এতে বলা হয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্প্রতি এক অফিস আদেশে অনুমোদনহীন পিস স্কুলগুলো অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। এ ছাড়া বিতর্কিত কার্যক্রমে লিপ্ত থাকায় লালমাটিয়ার পিস স্কুলের পাঠদানের অনুমতি বাতিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ১১ জুলাই জাকির নায়েকের প্রতিষ্ঠিত পিস টিভির সম্প্রচার বাংলাদেশে বন্ধ করে দেওয়া হয়।

শিক্ষকদের ব্যর্থতায় জঙ্গিবাদে ঝুঁকছে শিক্ষার্থীরা-এইচ টি ইমাম

ht imamঢাকা: প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম শিক্ষার্থীদের জঙ্গিবাদে ঝুঁকে পড়ার জন্য শিক্ষকদের ব্যর্থতাকে দায়ী করেছেন।

আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘ইসলামের আলোকে জঙ্গি ও সন্ত্রাস মোকাবিলায় আমাদের করণীয়’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এইচ টি ইমাম এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা বলেন, ‘শিক্ষকরাই দায়ী। কাজেই আমি মনে করি আমাদের প্রত্যেক শিক্ষকের পেছনটা দেখা উচিত এবং অন্যান্য ক্ষেত্রেও সব জায়গাতেও এখন আর খাতিরের সময় নাই। এখন আর এই প্রশ্রয় দেওয়ার আর কোনো সময় নাই। এই মওদুদীবাদের শিক্ষা যদি আমরা উৎখাত না করতে পারি তাহলে কিছুই হবে না।’

এইচ টি ইমাম বলেন, নামী অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে খেলাধুলা ও সংস্কৃতি চর্চার পরিবেশ নেই। সিলেবাস ও পাঠদানে সঠিক শিক্ষা দেওয়া হয় না বলেই শিক্ষার্থীরা বিপথে যাচ্ছে। এ সময় দেশ থেকে জঙ্গিবাদ নির্মূল করতে আলেম-ওলামা, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবীসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে ইসলামে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কী বলা হয়েছে, সে বিষয়ে আলোকপাত করেন বক্তারা।

ভালো বইয়ের মাধ্যমে বিবেক জাগ্রত করতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী

Nahidডেস্ক: শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, জঙ্গিবাদ থেকে দূরে রাখতে শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধসম্পন্ন, সৃজনশীল হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। আজ শনিবার বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শুধু ভালো গাড়ি চড়লে, বড় স্কুল-কলেজে পড়লেই হবে না। শিক্ষার্থীদের সবার আগে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এজন্য বেশি বেশি ভালো বই পড়াতে হবে। এমন বই, যা তাদের বিবেক জাগ্রত করবে।

জঙ্গিবাদকে বৈশ্বিক সমস্যা আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরাও জঙ্গিবাদের শিকারে পরিণত হচ্ছি। আমাদের দেশের উচ্চবিত্ত পরিবারের মেধাবী ছেলেদের দলে ভেড়ানো হচ্ছে। সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলার সঙ্গে জড়িত যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নাম এসেছে তাদেরকে আগেই সতর্ক করা হয়েছিল বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সেকেন্ডারি এডুকেশন কোয়ালিটি অ্যান্ড এক্সেস এনহ্যান্সমেন্ট প্রজেক্ট (সেকায়েপ) এর আওতায় ঢাকা বিভাগের ৪৪টি উপজেলা থেকে আসা ১৫৩ জন সংগঠককে সংবর্ধনা দেয়া হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামান প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ফয়জুন্নেসা হলে তল্লাশি

জিহাদি বইসহ তিন ছাত্রী আটক

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের নবাব ফয়জুন্নেসা ছাত্রী হলে তল্লাশি চালিয়ে জিহাদি বই উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত তিন ছাত্রীকে আটকের তথ্য পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ১১টা থেকে শহরের ধর্মপুরে অবস্থিত ওই হলে ঘণ্টাব্যাপী তল্লাশি চালানো হয়। আটক তিন ছাত্রীর নাম সালমা, বাতুল ও চম্পা। তাদেরকে কোতোয়ালি মডেল থানায় আনা হয়েছে।

কলেজের অধ্যক্ষ আবদুর রশিদ জানান, নিয়মিত তল্লাশির অংশ হিসেবে হলের দায়িত্বপ্রাপ্তরা হলে তল্লাশি চালান। তাঁরা হলের বিভিন্ন কক্ষে জিহাদি বই, আফগানিস্তানের বই, জাকির নায়েকের বইসহ বিভিন্ন বই-পুস্তক পান। এ সময় তিন ছাত্রীকে আটক করে পুলিশ।

অভিযান চলাকালে কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আবদুর রব বলেন, “তল্লাশি চালিয়ে ৬-৭ জন ছাত্রীকে আটকের পর যাচাই-বাছাই চলছে। এখনই নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না যে কতজন আটক হয়েছে। আমরা পরে বিস্তারিত জানাবো।”

ছাত্রলীগের কমিটির দ্বন্দ্বে রংপুর মেডিকেলের শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ

rangpur_mcরংপুর: রংপুর মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সংগঠনটির বিদ্রোহী নেতা-কর্মীরা কলেজের পরীক্ষাসহ শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে। প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার রাতে সংগঠনটির নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

বুধবার সকাল থেকে এই কমিটি ঘোষণার প্রতিবাদে পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা কলেজের পরীক্ষাসহ শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। এর আগে রাতে কমিটি ঘোষণার পরপরই প্রাক্তন কমিটির নেতারা অনুগামী কর্মীদের নিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

ছাত্রলীগের প্রাক্তন সভাপতি মাহফুজুল হক তালুকদার রাকিব জানান, তাদেরকে না জানিয়ে কমিটি ঘোষণা করায় তারা এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।

নতুন সভাপতি মাসুদ পারভেজ জানান, তিন মাসের মধ্যে কমিটি ঘোষণার দায়িত্ব দেয়া হলেও তারা এক বছরেও কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে পারেনি। এ কারণে কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশ রংপুর মহানগর কমিটি আগের কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করেছে।

অধ্যক্ষ আবু তালেব জানান, কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

প্রধান শিক্ষক সমিতি” এর কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির “ঈদ পূনর্মিলনী”সভা

head teacher monoনিজস্ব প্রতিবেদক: ১০ম গ্রেড ও করেসপন্ডিং স্কেলসহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ২য় শ্রেণীর গেজেটেড পদমর্যাদা এর পূর্নাঙ্গ বাস্তবায়নে প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষকদের একমাত্র সংগঠন বাসপ্রাবিপ্রশি সমিতির “ঈদ পরবর্তী পূনর্মিলন” সভা আগামী ২৯ জুলাই মিরপুরের জাহানাবাদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে বলে এস,এম সাইদুল্লাহ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্পতিতে জানানো হয়েছে।

প্রেস বিজ্ঞপিতে বলা হয়, আগামী ২৯ জুলাই সকাল ১০ টাই সকল উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় ও কেন্দ্রিয় কমিটির প্রশিনেতৃবৃন্দের পরস্পরের পরিচিতি সভা,  প্রশিদের ১০ম গ্রেডসহ করেসপন্ডিং স্কেল আদায়ে সমিতির পরবর্তী করনীয় নির্ধারন এবং পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রিয় মূল কমিটি ও স্ট্যান্ডিং কমিটি গঠন সংক্রান্ত প্রস্তূতিমূলক গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

“ঈদ পরবর্তী পূনর্মিলন সভা সম্পর্কে খুলনা বিভাগের আহবায়ক স্বরুপ দাসের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন সারা দেশের প্রধান শিক্ষকদের একমাত্র সংগঠন বাসপ্রাবিপ্রশি সমিতি প্রধান শিক্ষকদের অধিকার আদায়ে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। প্রধান শিক্ষকদের ২য় শ্রেণির পূর্নাঙ্গ ২য় শ্রেণির মর্যাদা না পাওয়া পর্যন্ত আমাদের এ আন্দোলন চলতে থাকবে।
সমিতির  মুখপাত্র খাইরুল ইসলাম  সকল পর্যায়ের প্রশি নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি দেশের অধিকার সচেতন সকল প্রধান শিক্ষককে উক্ত সভায় আমন্ত্রনের পাশাপাশি সমিতিকে বেগবান করার আহবান জানান।
এছারা সিনিয়ার যুগ্ন আহবায়ক নজরুল ইসলাম, সিলেটের আহবায়ক আবুল হোসেন, খুলনার আহবায়ক স্বরুপ দাস, চট্রগ্রামের আহবায়ক রঞ্জিত কুমার,বরিশালের আহবায়ক শাহ আলম তার নিজ নিজ বিভাগের সকল প্রধানশিক্ষককে ২৯ জুলাইয়ের সভাই যোগ দিতে বিণীত অনুরোধ করেছেন।

ঢাবি উপাচার্যের সঙ্গে ফ্রান্সের ভূ-প্রকৃতিবিদের সাক্ষাৎ

ঢাবি : ফ্রান্সের পল সাবাটিয়ের ইউনিভার্সিটির গবেষণা পরিচালক ও উর্দ্ধতন গবেষক বিশিষ্ট ভূ-প্রকৃতিবিদ স্টিফান ক্যালমান্ট আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেছেন।
এসময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সমুদ্র বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. কাউসার আহাম্মদ উপস্থিত ছিলেন।
সাক্ষাৎকালে তারা পল সাবাটিয়ের ইউনিভার্সিটি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ভূ-প্রকৃতি ও সমুদ্র বিদ্যা বিষয়ক শিক্ষা ও পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করেন।
এ সময় উভয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা বিনিময় কার্যক্রমের সম্ভাব্যতা নিয়ে তারা মতবিনিময় করেন।
উপাচার্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রমের প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করায় অতিথিকে ধন্যবাদ জানান।

জঙ্গিবাদ জাতীয় সমস্যা: শিক্ষ‍ামন্ত্রী

nahid_135583ঢাকা: জঙ্গিবাদ একটি জাতীয় সমস্যা বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

বুধবার সরকারি তিতুমীর কলেজের একাডেমিক কাম এক্সামিনেশন হল এবং বিজ্ঞান ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদ নিরসনে সকলের মধ্যে একটি সম্পর্ক তৈরি করে কাজ করতে হবে। কারণ এটা কোনো একক ব্যক্তি বা দলের সমস্যা নয়, এটা জাতীয় সমস্যা।

তিনি বলেন, ১০ দিন অনুপস্থিত থাকলেই শিক্ষার্থীদের জঙ্গি মনে করবেন না। শিক্ষার্থীদের বাবা-মায়ের সাথে কথা বলে অনুপস্থিত থাকার কারণ খুঁজে বের করবেন এবং পদক্ষেপ নেবেন। সকল প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের সব সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন কোন শিক্ষার্থী বিপথগামী না হয়। যদি হয় তবে তাকে চিহ্নিত করে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে হবে।

এসময় তথ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমত উল্লাহ এমপি, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক হারুন-অর-রশীদ, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামান ও শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা উপস্থিত ছিলেন।

আন্তজার্তিক সম্মোলণে যোগ দিতে প্রধান শিক্ষক প্রতিনিধিদের ভারত সফর

নি১১জস্ব প্১রতিবেদক: ভারতের মহারাষ্ট রাজ্যের নাগপুরে আয়োজিত ২৪ জুলাই সোমবার একদিন ব্যাপী ওর্য়াল্ড ফেডারেশন অফ টিচারস ইউনিয়নের সভায় যোগ দিতে কেন্দ্রিয় কমিটির যুগ্ন আহবায়ক ও দামুড়হুদা উপজেলা প্রধান শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক স্বরুপ দাসের নেতৃত্বে ২ সদস্যদের একটি প্রতিনিধি দল ভারত সফরে করছেন।

বৃহ¯পতিবার দুপুরে দর্শনা-গেদে ইমিগ্রেশন দিয়ে এ প্রতিনিধি দল ভারতে প্রবেশ করবেন। প্রতিনিধি দলে আরও আছেন বরিশাল বিভাগের শাহআলম, সভাপতি, আগৈলঝড়া, বরিশাল ও কেন্দ্রিয় যুগ্মআহবায়ক।  তাদের সফরসঙ্গী হিসাবে ভারত সফর করবেন দামুড়হুদার জিরাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আল হেলাল রাজা।
প্রাথমিক শিক্ষা ও শিক্ষার মান উন্নয়ন বিষয়ক কর্মশালায় তিনি বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন। প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা ও শিক্ষক নেতৃত্বের ক্ষেত্রে আরো বেশি দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যে এ সফরটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

মুক্তিযুদ্ধের বাইরে কোন ভ্রান্ত আদর্শে না জড়ানোর আহ্বান ছাত্রলীগ সভাপতির

নিজস্ব প্রতিবেদক: মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের জঙ্গিবাদবিরোধী প্রচারণায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। মঙ্গলবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে সংগঠনের এক কর্মী সভায় তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও জাতির পিতার জীবনাদর্শ শিক্ষার্থীদের সামনে তুলে ধরতে হবে। ছাত্রলীগের কার্যক্রম গতিশীল রাখতে হবে, যেন কোন ভ্রান্ত কাউন্টার আইডিওলজির খপ্পরে পড়ে কোমলমতী মেধাবী শিক্ষার্থীরা জঙ্গি কার্যক্রমে জড়াতে না পারে।

সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকা মেডিক্যালসহ বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজে ছাত্রলীগের কার্যক্রম অন্য যেকোন সময়ের চেয়ে বেশ প্রসারিত হচ্ছে। এর ধারাবাহিকতায় এবার এ মেডিক্যাল কলেজে কমিটি ঘোষণার আগে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হল।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হুমায়ুন ইসলাম সুমনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বী সেতুর সঞ্চালনায় সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সনাল,  মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ।

তারা ছাত্রলীগকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জ্বীবীত হতে বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন।

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন, সহ সভাপতি ডা. তোফাজ্জেল হক চয়নও কর্মী সভায় বক্তব্য রাখেন।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ম শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে জঙ্গিবাদবিরোধী প্রচারণার কাজ আজকে ছাত্রলীগকে নিতে হবে। মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের সে সুযোগ অন্যদের চেয়ে অনেক বেশি। চিকিৎসা সেবার কল্যাণে জনগণের সঙ্গে যে সময়টুকু দিবেন সম্ভব হলে তখন জঙ্গিবাদবিরোধী মটিভেশনও করতে পারেন।

ছাত্রলীগের সহসভাপতি ডা. তোফাজ্জেল হক চয়ন বলেন, মেডিক্যালের শিক্ষার্থীরা আজ মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ছাত্রলীগের বর্তমান নেতৃত্বের অধীনে ঐক্যবদ্ধ। দেশবিরোধী যেকোন চক্রান্তের বিরুদ্ধে আজ মেডিক্যালের শিক্ষার্থীরা সোচ্চার।

কর্মীসভায় ছাত্রলীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি কাজী এনায়েত, আরিফুর রহমান লিমন, আনোয়ার হোসেন আনু, সাকিব হাসান সুইম।

শুরুতে ২০০৯ সালের ৩০ মার্চ মধ্যরাতে প্রতিপক্ষের হাতে নির্মমভাবে শহীদ হওয়া ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. আবুল কালাম আসাদ রাজীবের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন অতিথিরা। এসময় এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। কর্মীসভার শুরুতেও নিহত রাজীবের সম্মানে নীরবতা পালন করা হয়।

পরিবারসহ এমএম কলেজের শিক্ষিকা ‘আইএসের দেশে’

mmcযশোর : যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন (এমএম) কলেজের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাঈমা আক্তার দেড় মাসের ছুটি নিয়ে স্ব-পরিবারে বিদেশ গিয়ে আর ফেরেননি। এক বছর পার হতে চললেও তিনি কর্মস্থলে যোগ দেননি। এমনকি কাউকে ফোনও করেছেন। বিষয়টি জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মিজানুর রহমান।

পুলিশ ও বিভিন্ন সূত্র মতে, এমএম কলেজের শিক্ষিকা নাঈমা আক্তারের শ্বশুরবাড়ি ঢাকার বিক্রমপুরে। তার স্বামী খন্দকার রোকনুদ্দিন ঢাকা শিশু হাসপাতালের চিকিৎসক। এক বছর আগে তারা স্বামী-স্ত্রী, দুই মেয়ে, এক ছেলেসহ পাঁচ সদস্যর পরিবার দেশত্যাগ করেন। এরপর আর ফেরেননি।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, ‘দেশ ছাড়ার পর পরিবারকে ফোন করে তারা বলেছিলেন- আমরা একটি মুসলিম দেশে আছি, ভালো আছি। আমরা আর কোনোদিন বাংলাদেশে ফিরব না।

রামপুরা থানার এসআই মোস্তাফিজুর রহমান  বলেন, ‘গত বছরের ১০ অক্টোবর তারা দেশ ছেড়ে চলে যায়। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে আমরা ধারণা করছি, তারা সিরিয়া চলে গেছে।’

সিরিয়া ও ইরাকের একটি অংশজুড়ে শরিয়াভিত্তিক ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়ে কাজ করছে ইসলামিক স্টেট (আইএস), বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে জঙ্গি হামলায় যে সংগঠনটির নাম আসছে।

ওই পরিবারটি আইএস’এ যোগ দিয়েছে কি না তা নিয়েও সন্দেহ জাগছে অনেকের মনে। বিশেষ করে এমএম কলেজের শিক্ষিকা নাঈমা আক্তারের পরিবার হওয়ায় এ নিয়ে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের মধ্যে নানা সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে কলেজের অধ্যক্ষের কার্যালয় সূত্র মতে, উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাঈমা আক্তার ২০১৪ সালের ১৪ ডিসেম্বর ঢাকা কবি কাজী নজরুল ইসলাম কলেজ থেকে যশোর সরকারি এমএম কলেজে বদলি হন। এরপর ২০১৫ সালের ১৩ জুলাই ৪৬ দিনের ছুটি নিয়ে বিদেশ যান। পরে আর দেশে ফিরেননি।

ওই সময়ে এমএম কলেজে অধ্যক্ষের দায়িত্বে থাকা প্রফেসর নমিতা রাণী বিশ্বাস জানান, গত বছরের মাঝমাঝি হজে যাওয়ার জন্য ছুটির আবেদন করেছিলেন উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাইমা আক্তার। শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রক্রিয়া শেষে ছুটি মঞ্জুর হতে হজের সময় পার হয়ে যায়। তখন তিনি বলেন বিদেশ ভ্রমণে যাবেন। সে অনুযায়ী ছুটি নিয়ে বিদেশে যান।

তিনি বলেন, ‘ছুটি শেষে নাঈমা আক্তার দেশে না ফেরায় আমি অধ্যক্ষ হিসেবে তখন শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে মৌখিকভাবে অবহিত করেছিলাম। পরবর্তীতে মহাপরিচালককে লিখিতভাবেও জানানো হয়। পরে আমি অবসরে চলে এসেছি। আর বেশি কিছু জানি না।

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter