Home » ক্যাম্পাস (page 8)

ক্যাম্পাস

চতুর্থ বর্ষ অনার্স স্থগিত পরীক্ষার সময়সূচি

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর :

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিতব্য ২০১৬ সালের চতুর্থ বর্ষ অনার্সের গত ২৬ আগস্ট তারিখের স্থগিত পরীক্ষা আগামী ১৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে অনুষ্ঠিত হবে।

সোমবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দপ্তরের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মো. ফয়জুল করিম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।এ পরীক্ষার অন্যান্য তারিখ ও সময় অপরিবর্তিত থাকবে।

ডিগ্রি পাস ও অনার্স পরীক্ষা স্থগিত

ডেস্ক: দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিতব্য ২৬ আগস্ট থেকে ২৯ আগস্ট পর্যন্ত ২০১৫ সালের ডিগ্রি পাস ও ২০১৬ সালের ৪র্থ বর্ষ অনার্স পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দফতর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

 স্থগিত এসব পরীক্ষার সংশোধিত সময়সূচি শিগগিরই জানানো হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

অনার্স ৪র্থ বর্ষ পরীক্ষা বুধবার শুরু

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর ॥ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬ সালের ৪র্থ বর্ষ অনার্স পরীক্ষা আগামী বুধবার (২৩ আগস্ট) দুপুর দেড়টা থেকে শুরু হবে। সারাদেশের ৪৬৩ টি কলেজের ১৬৬ টি কেন্দ্রে সর্বমোট ১,২৪,৯৪৯ জন পরীক্ষার্থী ৩০টি বিষয়ে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে।

পরীক্ষা অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা অনুষ্ঠানে প্রশাসন, সংশ্লিষ্ট কলেজ, শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকগণের সহযোগিতা কামনা করছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দপ্তরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মো. ফয়জুল করিম রবিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

বুধ ও বৃহস্পতিবারের ডিগ্রি পরীক্ষা স্থগিত

অনলাইন রিপোর্টার ॥ আগামী বুধ ও বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৫ সালের ডিগ্রি পাস ও সার্টিফিকেট কোর্সের (পুরাতন সিলেবাস অনযায়ী) পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। দেশের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির অবনতির কারণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পরীক্ষা দুটি স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও তথ্য পরামর্শ দফতরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মো. ফায়জুল করিম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি আজ এ কথা জানানো হয়। এতে বলা হয়, স্থগিত এ পরীক্ষার সময়সূচি পরবর্তিতে সংশ্লিষ্ট সকলকে জানানো হবে এবং এ পরীক্ষার অন্যান্য তারিখ ও সময়সূচি অপরিবর্তিত থাকবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষিকার প্রেম!

ঢাবি প্রতিনিধি : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কলাভবনের একটি বিভাগে শিক্ষকদের অফিসে ছিলেন ওই বিভাগেরই এক শিক্ষক ও শিক্ষিকা। হঠাৎ সেখানে উপস্থিত হন ওই শিক্ষকের স্ত্রী। তাঁর দাবি, তাঁর স্বামী ও শিক্ষিকার মধ্যে রয়েছে প্রেমের সম্পর্ক।

শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পরে স্বামী ও ওই শিক্ষিকাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ এম আমজাদের কাছে নিয়ে যান ওই নারী। সেখানে গিয়ে বিচার দাবি করেন তিনি।

আটক শিক্ষকের স্ত্রীর বরাত দিয়ে প্রক্টর ড. আমজাদ বলেন, সহকর্মীর সঙ্গে স্বামীর প্রেমের সম্পর্ক আছে বলে দীর্ঘদিন দিন ধরে সন্দেহ করছিলেন ওই নারী। সন্দেহের কারণেই আজ রাতে তিনি হঠাৎ হানা দেন বিভাগে শিক্ষকদের অফিসে। সেখানে দুজনকে একসঙ্গে দেখতে পান। আটক শিক্ষিকার স্বামী গবেষণার কাজে দেশের বাইরে রয়েছেন।

তবে ওই দুই শিক্ষক-শিক্ষিকা সে সময় নিজ বিভাগের প্রজেক্টের কাজ করছিলেন বলে জানিয়েছেন প্রক্টর।

প্রক্টর ড. আমজাদ আরো বলেন, ‘যেহেতু বিষয়টা পারিবারিক, তাই বিষয়টি মীমাংসার দায়িত্ব বিভাগের চেয়ারপারসনকে দেওয়া হয়েছে। তিনি বিষয়টি সমাধান করবেন।’

এ বিষয়ে কথা বলতে ওই বিভাগের চেয়ারপারসন ও ওই শিক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁদের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

আমরণ অনশনে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ শিক্ষার্থী

শিশির দাস: রাজধানীর ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগের এক শিক্ষককে চাকরিচ্যুতির নোটিশ দেয়ার জের ধরে চলমান সংকটের পঞ্চম দিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয় শিক্ষার্থী আমরণ অনশন শুরু করেছেন।

বৃহস্পতিবার (০৩ আগস্ট) বেলা ১১টার দিকে মহাখালীতে বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রধান ক্যাম্পাসে অনশনে যান তারা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব বিভাগে ক্লাস বন্ধ থাকার মধ্যেই ছয় শিক্ষার্থী অনশনে যান। একইসঙ্গে আজও বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা।

এ ছয় শিক্ষার্থীরা হলেন- আইন বিভাগের কামরুন নাহার, ইরফানুল রহমান, সাদিয়া আফরিন, শেখ নোমান, ম্যাথমেটিকস ও ন্যাচারাল সায়েন্স বিভাগের আকাশ আহমেদ ও বিজনেস স্কুলের ইয়াসিনুর রহমান।

তাদের অভিযোগ, চুক্তিভিত্তিক শিক্ষক ফারহান উদ্দিন আহমেদকে গত ৩০ জুলাই মানবসম্পদ বিভাগ থেকে চাকরিচ্যুতির নোটিশ দেওয়া হয়। কিন্তু তিনি তা গ্রহণে অস্বীকৃতি জানালে রেজিস্ট্রার বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা তার আইডি কার্ড কেড়ে নিয়ে তাকে লাঞ্ছিত করেন। এরপর বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র আহসান আহমেদ অনিক বলেন, “বৃহস্পতিবার কোনো পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছি না আমরা। সকাল ১০টা থেকে তারা বিক্ষোভ কর্মসূচি চলছে।”

অনশনরত কামরুন নাহার সাদিয়া আফরিন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরুষ নিরাপত্তা কর্মীরা ছাত্রীদের শরীরে হাত দিয়েছে, আমাদের লাঞ্ছিত করেছে।আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের পদত্যাগ ও এর বিচার চাই। আমাদের দাবি না মানা পর্যন্ত অনশন চলবে।

অনশনরত শেখ নোমান বলেন, “আন্দোলনের এক পর্যায়ে মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তাকর্মীরা শিক্ষার্থীদের উপর হামলা করেছে। আমরা এ নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে আমাদের বলা হয়, প্রশাসন এ ব্যাপারে কোনো কথা বলবে না। আমাদের উপর হামলার বিচার না পেলে আমরা অনশন অব্যাহত রাখব।”

আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, ১ আগস্ট বিক্ষোভ চলাকালে ছাত্রছাত্রীদের লাঞ্ছিত করা হয়। এ ঘটনায় সরকারের কাছেও বিচার দাবি করেন তারা।

চলমান সংকট সমাধানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহ-উপাচার্য অধ্যাপক আ ফ ম ইউসূফ হায়দার, অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলামসহ পাঁচ সদস্যের অনুসন্ধান কমিটি পুনর্গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্তৃপক্ষ।

চলমান সংকটের মধ্যে গতকাল বুধবার থেকে দুদিনের জন্য ক্লাস বন্ধ ঘোষণা করে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তবে যেসব পরীক্ষা চলমান রয়েছে, তা অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়।

এদিকে, চাকরিচ্যুত শিক্ষক ফারহান উদ্দিন আজ ঢাকা জেলা দায়রা জজ আদালতে মামলা করতে গেছেন বলে জানা গেছে।

ফেইসবুকে শিক্ষকদের সমালোচনা:

শিক্ষকদের শ্রেণিকক্ষে পড়াশোনার বিষয়ে ফেইসবুকে সমালোচনা করায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) বায়োটেনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রায় ৭৫ শিক্ষার্থীকে তদন্ত কমিটি নোটিশ দিয়েছে। একইসঙ্গে দুটি ব্যাচের চূড়ান্ত পরীক্ষাও স্থগিত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীরা তদন্ত কমিটির সামনে হাজির হন।

অন্যদিকে বিভাগ এভাবে তদন্ত কমিটি করে শিক্ষার্থীদের ডেকে পাঠাতে পারেন না বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক। যাদের ‘সমালোচনা’ করা হয়েছে তারা নিজেরাই কোনো তদন্ত কমিটি গঠন কিংবা সদস্য হতে পারেন না। বরং অভিযোগ করতে পারে।

জানা গেছে, বিভাগের শিক্ষার্থীরা প্রায় দেড় বছর ধরে বিজিইয়ান্স ডেমোক্র্যাট নামের একটি ফেইসবুক পেজ চালান। সম্প্রতি সেখানে তাদের অনেকেই শিক্ষকদের সমালোচনা করে ‘ট্রল’ পোস্ট করছিলেন। শিক্ষকেরা ক্লাস রুটিনের নির্ধারিত সময়ের দেড় দুই ঘন্টা পর ক্লাসে আসেন, ইন্টারনেট থেকে স্লাইড ডাউনলোড করে ক্লাসে পড়ান, সিলেবাসের অন্তর্ভূক্ত যা শিক্ষকেরা পারেন না তা বাদ দেন এসব বিষয়েও সেখানে ব্যাঙ্গাত্মকভাবে পোস্ট করা হয়।

শিক্ষার্থীদের মধ্যে থেকেই কেউ এই বিষয়গুলো শিক্ষকদের নজরে আনেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষকেরা বিভাগের একাডেমিক সভায় এই তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। যারা ওসব পোস্টে লাইক, কমেন্ট করেছে তাদেরও ডেকে পাঠানো হয়। বিভিন্ন ব্যাচের সব মিলিয়ে প্রায় ৭২-৭৫ জনকে নোটিশ দেয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা জানান, এর আগে গত ৩১ জুলাই শিক্ষকেরা শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনানুষ্ঠানিকভাবে এ বিষয়টি নিয়ে বসে। তখন কয়েকজন শিক্ষার্থী শিক্ষকদের পা ধরে ক্ষমা চেয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত কমিটি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন।

এদিকে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিভাগের ৪২ এবং ৪৩তম ব্যাচের আজকের এবং আগামী সাত আগস্টের দুটি চূড়ান্ত পরীক্ষাও স্থগিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ সোহায়েল সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে অ্যাকাডেমিক কমিটির সভায় আলোচনা হয়েছে। তারপর শিক্ষার্থীদের ডাকা হয়েছে। তারা ভুলত্রুটি করলে সেটা শুধরে দেয়ার দায়িত্বও তো আমাদের।’

এ বিষয়ে দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, ‘এখানে বাদী শিক্ষকেরা। তারা নিজেরাই তদন্ত কমিটি গঠন করতে পারেন না। বরং তারা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করতে পারেন।’

নিয়ম না মানাই সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার জন্য সুস্পষ্ট নিয়ম-নীতি থাকলেও সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তা মানছে না। কার্যত নিয়ম না মানাই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নিয়মে পরিণত হয়েছে। আগে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গণতান্ত্রিক চর্চার প্রধান কেন্দ্র থাকলেও বর্তমানে তার লেশ মাত্র নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা বা কর্মচারী সবার ক্ষেত্রে একই কথা প্রযোজ্য। ক্ষমতাসীনদের ছত্রছায়ায় পরিচালিত এসব কার্যকলাপের প্রধান লক্ষ শাসক দলের পথকে কণ্টকমুক্ত রাখা হলেও এ সুযোগকে ব্যবহার করে স্বার্থান্বেষীরা তাদের নিজ স্বার্থ হাসিলেই বেশি তৎপর।

দেশের সবচেয়ে বড় বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত এলাকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও চলছে বিভিন্ন অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে। শিক্ষাবিদরা বলছেন বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বড় পেশিশক্তি প্রয়োগের স্থান হয়ে উঠেছে দেশের স্বায়ত্তশাসিত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। এসব প্রতিষ্ঠানে নেই গণতান্ত্রিক কোনো পরিবেশ। শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী নিয়োগে সুনির্দিষ্ট আইন-কানুন থাকলেও নেই তার কোনো বাস্তবায়ন। হলের ছাত্রাবাসে গেস্টরুম, প্রোগ্রামের নামে শিক্ষার্থীদের ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের প্রতি নিঃশর্ত আনুগত্য প্রকাশ না করলে মেলে না হলে থাকার নিশ্চয়তা। ছাত্র সংসদ নির্বাচনের আইনগত বাধ্যবাধকতা থাকলেও দশকের পর দশক ধরে তাও অনুপস্থিত। নতুন কোনো নিয়ম চালু করতে গেলে সিনেটে তা পাসের বাধ্যবাধকতা থাকলেও মানা হয় না সে নিয়মও। সিনেট সদস্য নির্বাচন, শিক্ষকদের পদোন্নতি, বিভাগের চেয়ারম্যান, হলের প্রাধ্যক্ষ বা অন্য কোনো ক্ষেত্রে পদায়নের প্রধান মাপকাঠি হিসেবে যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা, গবেষণা, শিক্ষকতায় মনোযোগ ও আন্তরিকতাকে নির্ধারণ করা হলেও তার কোনো প্রয়োগ নেই। এগুলোর পরিবর্তে এখন নিঃশর্ত দলীয় আনুগত্য প্রমাণের মধ্য দিয়ে একজনকে তার যোগ্যতার পরিচয় প্রদান করতে হয়।

গত শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থী-শিক্ষকদের মধ্যে ঘটেছে হাতাহাতির মত ঘটনা। যা নিয়ে সারা দেশে এখন সমালোচনার ঝড় বইছে। ওই ঘটনাতেও দেখা গেছে, এমন একাধিক ব্যক্তি সেখানে অংশ নিয়েছেন যাদের কেউ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নয়। এদের মধ্যে একদিকে যেমন আছে ভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক তেমনই রয়েছেন শিক্ষকতার জন্য আবেদনকারী কয়েকজন শিক্ষার্থীও। যাদের সবাই আবার বর্তমান সময়ের ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের বিভিন্নপর্যায়ের নেতাকর্মী। পার্শ্ববর্তী একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের যে দুইজন শিক্ষককেও দেখা গেছে তারাও ছাত্রলীগের সাবেক নেতা। এদের দুইজনের বিরুদ্ধেই রয়েছে টেন্ডারবাজিসহ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সহিংস কর্মকা-ে জড়িত থাকার অভিযোগ। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগের শিক্ষক মাহি সাবেক মুহসীন হলের ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন। ২০১২ সালে হলটিতে সংঘটিত ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে তীব্র সহিংসতায় প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়। ওই ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত ছিলেন বর্তমান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগের এ শিক্ষক। জানা গেছে বর্তমানে ওই দুই শিক্ষকই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার জন্য লবিং তদবির করে চলেছেন। আর এ কারণে ভিসি ও সরকারের নজন কাড়তেই অতি উৎসাহী হয়ে তারা শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ।

ওই ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ নামেও একজনকে অংশ নিতে দেখা গেছে। যিনি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করেন। গত বছরের ১ জুলাই উপাচার্যের গাড়ি ভাংচুরেরও ঘটনায় তিনি অংশ নেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিনি আরবি বিভাগে শিক্ষক হওয়ার জন্য আবেদন করেছেন। এ জন্য তিনিও অতি উৎসাহী হয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় অংশ নিয়েছেন।
এছাড়া অভিযোগ উঠেছে, সুযোগ থাকা সত্ত্বেও বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট পূর্ণাঙ্গ না করে অর্ধেকের কম সদস্য নিয়ে গত শনিবার উপাচার্য প্যানেল নির্বাচন করা হয়েছে। ফলে এর বৈধতা নিয়ে এরই মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক ও রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধিদের অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ইচ্ছা করলেই রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধিসহ অন্যান্য শ্রেণির প্রতিনিধি নির্বাচন করেই এ নির্বাচন করতে পারত। কিন্তু পরাজয়ের ভয়ে প্রশাসন সে পথে না গিয়ে অনেকটা পেছনের দরজা দিয়ে তিনজনের প্যানেল নির্বাচন করেছে।

১৯৭৩ সালের অধ্যাদেশ অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়টির, সিনেটের মোট সদস্য ১০৫ জন। কিন্তু কয়েকটি শ্রেণির নির্বাচন না হওয়ায় বর্তমান সিনেটে ৫০টি পদ শূন্য রয়েছে। এর মধ্যে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট ২৫ জন, ৫ জন গবেষণা সংস্থার প্রতিনিধি, ৫ জন অধিভুক্ত ও উপাদানকল্প কলেজের অধ্যক্ষদের প্রতিনিধি, একাডেমিক পরিষদের মনোনীত ১০ জন ও ৫ জন ছাত্র প্রতিনিধির পদ শূন্য। সংশ্লিষ্টরা বলছেন ছাত্র প্রতিনিধি নির্বাচনে জটিল পরিস্থিতির মতো ক্ষেত্র সৃষ্টির আশঙ্কা থাকে। কারণ এর সঙ্গে জাতীয় রাজনীতির যোগসূত্র রয়েছে। কিন্তু অন্য সবগুলো নির্বাচনই প্রশাসন চাইলেই নির্বেঘ্নে করতে পারে। কিন্তু পরাজয়ের ভয়ে সে পথে যেতে আগ্রহী নয় বিশ্ববিদ্যালয়টি।

বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে রয়েছে ভুরি ভুরি অনিয়মের অভিযোগ। মাস্টার্স পাস না করেও শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে এমন অভিযোগও রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির বর্তমান প্রশাসনের বিরুদ্ধে। এছাড়া নির্দিষ্টসংখ্যক শিক্ষকের বিপরীতে দ্বিগুণ শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগ একটি সাধারণ বিষয়ে পরিণত হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগে শিক্ষক নিয়োগে গত বছর ৪টি শূন্যপদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেয়া হলেও নিয়োগ দেয়া হয় ৯ জনকে। যার মধ্যে মাস্টার্স পাস না করেই ৩ জন নিয়োগ পেয়েছিলেন। ওই ঘটনার পর ব্যাপক সমালোচনার মুখে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিসি একে সত্যের অপলাপ বলে তা আড়ালেরও চেষ্টা করেন। প্রায় প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগেরই বিরুদ্ধে এ ধরনের নিয়োগের অভিযোগ রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়টির একটি সূত্র জানাচ্ছে, বিগত কয়েক বছরের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রশাসনিক পর্যায়ে লবিং তদবিরের বাইরে কাউকে নিয়োগ দেয়া হয়নি। যারা নিয়োগ পেয়েছে তাদের অধিকাংশ ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মী বলেও অভিযোগ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির হলের প্রধক্ষ ও বিভাগীয় চেয়ারম্যান পদ দুটিও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিগত বছরগুলোতে এ পদ দুটিতে নিয়োগের ক্ষেত্রেও যোগ্যতার কোনো মূল্যায়ন নেই বলে অভিযোগ। অনেক ক্ষেত্রে যোগ্যরা এগিয়ে আসতে চাইলে তাদেরকে হুমকি ধামকি দিয়ে সে দাবি ত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের তথ্যমতে, দেশের প্রায় সব সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েই নিয়োগ সংক্রান্ত দুর্নীতি, অনিয়ম রয়েছে। এক বিভাগে পড়াশোনা করে আরেক বিভাগে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার মতো অভিনব ঘটনাও রয়েছে। আবার দলীয় আনুগত্যের কারণে অযোগ্যদের অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে পদায়নের অভিযোগ যেমন আছে, তেমনই দলীয় লোক আনুগত্য না থাকায় যোগ্যতা থাকার পরেও পদোন্নতি না দেয়ারও অভিযোগ প্রায় অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধেই। রাজধানীর বুকে আরেক নামকরা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় জাহাঙ্গীরনগরে বিগত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন অনিয়মকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় ঘটছে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা, শিক্ষক শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ।

বাদ যায়নি দেশের অন্যতম সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ও। রংপুর বিশ্ববিদ্যালয়য়ের ভিসির বিরুদ্ধে সেখানকার শিক্ষক সমিতির করা একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে যেয়ে বিশ্ববিদ্যালগুলোর নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন বলছে তারা বড় ধরনের দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে। বিষয়টি এখনো তদন্তাধীন রয়েছে।

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) উপাচার্য ড. এম অহিদুজ্জামানের অনিয়ম ও দুর্নীতি তদন্ত করছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। গত বছর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়েও (বাকৃবি) দুর্নীতির অভিযোগে ৯৬ কর্মচারীর নিয়োগ বাতিল করা হয়। ওই সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিসি রফিকুল হকও দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে পদত্যাগে বাধ্য হন।

সাম্প্রতিক সময়ে দেশের অন্যতম বিতর্কিত বিষয়ে পরিণত হয়েছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বহনকারী বাসের উল্টো পথে পথ চলা। এ সময়ে কেউ বাধা দিতে আসলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রতিবাদকারীকে হতে হয়েছে হেনস্তার শিকার। এ থেকে বাদ যায়নি আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও। তথ্য প্রযুক্তি আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারায় সহকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করে সাম্প্রতিক সময়ে দেশজুড়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয় সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যতার সম্পর্কের বিষয় নিয়েও। বিশ্ববিদ্যালয় বিদ্যা অর্জনের প্রধান কেন্দ্র হলেও বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে এখন একেকটি রাজনৈতিক দুর্গ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। শিক্ষার্থীদের নানা প্রলোভন দেখিয়ে কামলা খাটানো হয়। এ প্রবণতা ক্রমেই বাড়ছে। বাংলাদেশের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ও আন্তর্জাতিক র‌্যাঙ্কিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে যেতে ব্যর্থ হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে দুই একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম আন্তর্জাতিক র‌্যাঙ্কিংয়ে থাকলেও তার অবস্থান পাঁচশ’ এর পরে। এ থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার মান সহজেই অনুমেয়।
বড় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষকদের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস নেয়ার বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক বহু পুরনো। ভালো মানের শিক্ষকরা বেশি টাকার লোভে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস নিতেই বেশি আগ্রহী। অথচ যে বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম বিক্রি করে এত নাম যশ কিনেছেন সেখানকার শিক্ষার্থীদের সময় না দিয়ে অর্থের বিনিময়ে শিক্ষা বিক্রির প্রতিযোগিতায় নামলেও তা বন্ধে বিভিন্ন পক্ষের দীর্ঘদিনের দাবির কোনো গুরুত্ব নেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কাছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীর জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ের হলের সিট বাণিজ্য, ক্যান্টিনের খাবার নিয়ে নোংরা রাজনীতি চললেও তা বন্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কোনো আগ্রহ নেই। এ হলের রাজনীতিকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রায়ই ঘটছে সহিংস ঘটনা। ঝরছে মেধাবী শিক্ষার্থীদের প্রাণ। অথচ নিজেদের পদ-পদবি ঠিক রাখতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কর্তাব্যক্তিরা এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের ব্যবস্থা নিতে আগ্রহী নয়। শিক্ষাবিদরা বলছেন এসব শিক্ষকদের কাছে শিক্ষার্থীদের জীবনের চেয়ে নিজেদের পদ-পদবির মূল্য অনেক বেশি।

অনেক ক্ষেত্রে শ্রেণিকক্ষেও রাজনীতি করার অভিযোগ রয়েছে বিভিন্ন শিক্ষকের বিরুদ্ধে। সরকারবিরোধী শিক্ষকদের বিরুদ্ধে এ জন্য বিভিন্ন সময়ে ব্যবস্থা নিলেও সরকারপন্থি শিক্ষকদের বিরুদ্ধে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া তো দূরে থাক অনেক ক্ষেত্রে পুরস্কৃত করারও নজির রয়েছে।

শিক্ষাবিদরা বলছেন, বর্তমানে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর এ নোংরা ব্যবস্থার জন্য দেশের জাতীয় রাজনীতির যেমন দায় আছে, তেমনই শিক্ষকদের চাটুকারি মানসিকতা ও অনৈতিক সুবিধা পাওয়ার প্রত্যাশাও দায়ী। রাজনীতিবিদ ও শিক্ষকরা এসব সমস্যা দুরীকরণে ঐক্যবদ্ধ না হলে এ ব্যবস্থায় পরিবর্তন আসবে না বলেও অভিমত তাদের। যায়যায়দিন

অবরোধ তুলে নেয়ার নির্দেশ জাবি সিন্ডিকেটের

জাবি: শিক্ষার্থীদেরকে অবরোধ তুলে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট। মামলা প্রত্যাহারসহ ৪ দফা দাবিতে টানা চার দিন ধরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন অবরুদ্ধ আছে ।
গতকাল বুধবার রাতে এক জরুরি সিন্ডিকেট সভা শেষে আজ বৃহস্পতিবারের মধ্যে অবরোধ তুলে নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয় বলে জানান সিন্ডিকেটের সদস্যসচিব ও বিশ^বিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবু বকর সিদ্দিক। টানা চার দিনের এ লাগাতার অবরোধে প্রশাসনিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। অবরোধের কারণে আজও উপাচার্যসহ কেউই প্রশাসনিক ভবনে অফিস করতে পারেননি।
মামলা প্রত্যাহারের ব্যাপারে কোন কথা না বললেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ছাত্রদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিচ্ছে জাবি প্রশাসন। উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক আমির হোসেন বলেন, সিন্ডিকেট পুঙখানুপুঙ্খভাবে বিশ্লেষণ করেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
আন্দোলনের সংগঠক ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সভাপতি ইমরান নাদিম বলেন, সিন্ডিকেট এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা না পর্যন্ত আমাদের এই লাগাতার অবরোধ চলতেই থাকবে।
এছাড়া গতকাল ‘সন্ত্রাস ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে শিক্ষকবৃন্দ’ ব্যানারে এক সংবাদ সম্মেলনে চলমান আন্দোলনের সাথে সংহতি প্রকাশ করেন শিক্ষকরা। এই মামলা প্রত্যাহার না করলে রাজপথে নামার ঘোষণা দেন তারা।
এছাড়া যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে উপাচার্য প্রফেসর ড. ফারজানা ইসলামের বাস ভবনের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

পরীক্ষা ছাড়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে নিষেধাজ্ঞা

বিকাশ দত্ত : এ বছর থেকে ভর্তি পরীক্ষা ছাড়া কোন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করতে পারবে না এবং আগামী বছর থেকে তিন সেমিষ্টারের পরিবর্তে দুই সেমিস্টারে শিক্ষাবর্ষ শেষ করতে হবে বলে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন।

তবে এ সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আপত্তি রয়েছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির। দেশে ৯৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন রয়েছে। এর মধ্যে কার্যক্রম চালাচ্ছে ৮৯টি। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে আসন আছে প্রায় আড়াই লাখ।

নভেম্বরে অনার্সে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।কিন্তু বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই নেয়া হয় পরীক্ষা ছাড়া। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন বলছে, এ বছর থেকে ভর্তি পরীক্ষা ছাড়া শিক্ষার্থী নিলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে চলতি মাসে চিঠিও দেয়া হয়েছে।

১৪টি বিশ্ববিদ্যালয় দুই সেমিস্টারে শিক্ষাবর্ষ শেষ করলেও বাকিরা করছে তিন সেমিস্টারে। এই সিস্টেমও পরিবর্তনের নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

এবার ভর্তি অনিয়ম ঠেকাতে পর্যবেক্ষণ কমিটিও করবে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন। -তথ্যসূত্র : ইনডিপেনডেন্ট টিভি

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ৬ অক্টোবর ডেন্টালে ১০ নভেম্বর

সৃত্নিকনা:   চলতি বছর অর্থাৎ ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৬ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। বিডিএস ভর্তি পরীক্ষা হবে ১০ নভেম্বর। আজ (বুধবার) সচিবালয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তি সংক্রান্ত সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এতে সভাপতিত্ব করেন।

সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ১ সেপ্টেম্বর থেকে সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। তিনি প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘কিছু কিছু চিহ্নিত কোচিং সেন্টার ভর্তি পরীক্ষার সময় ভুয়া প্রশ্নপত্র বানিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত এবং নিরীহ অভিভাবকদের সঙ্গে প্রতারণা করে। এই চক্র প্রতিরোধ করতে হলে পরীক্ষার সময় কোচিং সেন্টার বন্ধ করতে হবে।’

(বাউবি)ডিজাবিলিটি’র ভর্তির আবেদনের সময় বৃদ্ধি

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর ॥ বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো Disability Managment and Rehabilitaion বিষয়ক মাস্টার্স ডিগ্রী প্রোগ্রাম চালু হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (বাউবি)Master of Disability Managment and Rehabilitaion বিষয়ক এ প্রোগ্রাম চালু করছে।

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের Master of Disability Managment and Rehabilitaion প্রোগ্রামে ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির আবেদন জমাদানের প্রক্রিয়ায়ও ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে এবং তা আগামী ২১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। আগামী ২৫ আগস্ট ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন www.bousst.edu.bd অথবা www.bou.edu.bd বা ০১৭২৬২০২০৬০ এই নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডীন প্রফেসর মোঃ রেজানুর রহমান জানিয়েছেন।

বরিশাল ভার্সিটির শিক্ষার্থীদের ২২ দফা মেনে নিয়েছেন ভিসি

বরিশাল প্রতিনিধি : শিক্ষার্থীদের ২২ দফা দাবীতে চলমান টানা সাতদিনের আন্দোলন যৌক্তিক বলে মেনে নেয়ায় সোমবার দুপুরে আন্দোলন প্রত্যাহার করে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রমে ফিরে গেছে শিক্ষার্থীরা।

নেতৃস্থানীয় ছাত্রদের সাথে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি’র সাথে তার কার্যলয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি টিমের সাথে সমঝোতা বৈঠকে পর্যায়ক্রমে দাবী মেনে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ভিসি।

সূত্রমতে, গত ২০ জুলাই থেকে শিক্ষার্থীদের সমস্যা সম্বলিত ২২ দফা সমাধানের জন্য আন্দোলন শুরু করে শিক্ষার্থীরা। পর্যায়ক্রমে শিক্ষার্থীরা একাডেমীক ও প্রসাশনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে পরীক্ষাসহ সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

শিক্ষার্থীরা জানান, তাদের দাবী মেনে নেয়ায় বিজয় অর্জন হয়েছে। আন্দোলনের নেতৃত্বদানকারী মোঃ সবুজ জানান, উপাচার্য তাদের ২২ দফা দাবীকে যৌক্তিক বলে দ্রুত সময়ের মধ্যে সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন।

নগর পুলিশের সহকারী উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) সাইফুল্লা মোঃ নাসির জানান, সাতদিনের ছাত্র আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এসএম ইমামুল হক জানান, শিক্ষার্থীদের দাবীগুলো একাডেমীর স্বার্থের সাথে সংশ্লিষ্ট হওয়ায় সময়ের ব্যবধানে মেনে নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে যেগুলো যতো দ্রুত সম্ভব সমাধান করা হবে।

সপ্তাহে ছয়দিন খোলা থাকবে রাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার সপ্তাহে ছয়দিন খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে গ্রন্থাগার প্রশাসক। শুক্রবারে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের প্রশাসক অধ্যাপক সুভাষ চন্দ শীল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রোববার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত গ্রন্থাগারের ডিসকাশন রুমসহ পাঠ কক্ষসমূহ সকাল ৯টা থেকে রাত ৮টা এবং আগামী ৫ আগস্ট থেকে প্রতি শনিবার গ্রন্থাগারের ডিসকাশন রুমসহ পাঠ কক্ষসমূহ সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

উল্লেখ্য, গত রোববার (২৩ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা গ্রন্থাগার সপ্তাহে সাতদিন খোলা রাখাসহ চার দফা দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। সোমবার (২৪ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেয় শিক্ষার্থীরা।

২২ দফা দাবিতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে শিক্ষার্থীদের আল্টিমেটাম

বরিশাল : ২২ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্যে গত পাঁচদিন ধরে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ক্লাশ ও পরীক্ষা বর্জন করে চলমান আন্দোলনে বৃহস্পতিবার ভিসিকে আল্টিমেটাম দিয়েছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

ভাইস চ্যান্সেলর (ভিসি) বরারব প্রেরণ করা একটি দরখাস্তে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা আগামী ৩০ জুলাই (রবিবার) দুপুর দুইটা পর্যন্ত ভিসিকে সময় বেঁধে দিয়েছে। উক্ত সময়ের মধ্যে ভিসিকে স্ব-শরীরে বিশ্ববিদ্যালয়ে হাজির হয়ে দাবীগুলো মেনে নেয়ার আহবান করা হয়। অন্যথায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা আরও কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে ভিসিকে অপসারণ করতে বাধ্য করবে বলেও আবেদনে উল্লেখ করা হয়। ওই আবেদনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলরের একান্ত সচিব (পিএস) ড. এএফ মো. বোরহান উদ্দিনের কাছে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা ফিরোজুল ইসলাম নয়ন।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক বিভাগের কেউ কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষক নেতারা বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের বিষয়টি দ্রুত সমাধানের জন্য সকলের সহয়তাপূর্ণ মনোভাব নিয়ে কাজ করা উচিত। অপরিদকে বৃহস্পতিবারও ক্লাশ এবং পরীক্ষা বর্জন করে সকাল আটটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত পঞ্চম দিনের ন্যায় অবস্থান ধর্মঘট ও বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা জানায়, ভিসি গত দুই বছরে কোন উন্নয়ন না করে বিশ্ববিদ্যালয়টি দুর্নীতির আখরায় পরিনত করেছে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি নিয়োগ প্রক্রিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা কোঠা না রাখায় সর্বস্তরে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়ে শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের ছোট ছোট দাবীগুলো আজ বৃহৎ আকার ধারন করেছে। আর এসব দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও একাত্মতা প্রকাশ করেছেন বলেও বিক্ষুব্ধরা উল্লেখ করেন।

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter