Author Archives: chief editor

এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে আবারও ছাত্রলীগের তাণ্ডব

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট:আবারও ত্রাস সৃষ্টি করে সিলেট এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে তাণ্ডব চালিয়েছে ছাত্রলীগ। অভ্যন্তরীণ বিরোধের জের ধরে ছাত্রাবাসে হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে ছাত্রলীগ ক্যাডাররা। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে ছাত্রাবাস।

বৃহস্পতিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার তদন্তে গঠন করা হয়েছে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি। কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।
শিবিরকে বিতাড়িত করতে গিয়ে বছর পাঁচেক আগে সিলেটের এমসি কলেজের ঐতিহ্যবাহী ছাত্রাবাসে আগুন দিয়েছিল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছিল শতবর্ষের ঐতিহ্যের স্মারক এমসি কলেজ ছাত্রাবাস। ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে চোখে জল ঝরেছিল শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের। শুধু শিক্ষামন্ত্রীই নয়, এমসি কলেজের প্রত্যেক শিক্ষার্থীর হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়েছিল তখন। সেই ক্ষত পুরোপুরি শুকানোর আগেই আবারও ছাত্রাবাসটিতে তাণ্ডব চালিয়েছে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা। অভ্যন্তরীণ বিরোধ আর আধিপত্য বিস্তার নিয়ে এবার ছাত্রাবাসের তিনটি ব্লকের অন্তত ৫০টি কক্ষ ভাঙচুর করেছে তারা। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ছাত্রলীগ নেতা টিটু চৌধুরীর অনুসারীরাই এ হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

পিইসি তুলে দিলে অর্ধেক শিক্ষার্থী ঝড়ে যাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক | জুলাই ১৩: প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা তুলে দিলে অর্ধেক শিক্ষার্থী ঝরে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, গ্রামাঞ্চলের শিক্ষার্থীদের ধরে রাখতেই এ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এটা আলাদা কোনো পরীক্ষা নয়। আগেও প্রাথমিক ও ৮ম শ্রেণিতে পরীক্ষা হতো, এখনও সেইভাবেই পরীক্ষা নেওয়া হয়।

বুধবার (১৩ জুলাই) বিকেলে জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম মিলনের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী একথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এই পরীক্ষা নিয়ে প্রায়ই কথা হচ্ছে। আমাদের শিক্ষানীতিতেও বলা আছে। এটা রিভিউ করার যাবে না একথা বলছি না। তাছাড়া সমস্ত কেবিনেট বলছে এটা অব্যাহত রাখা উচিত। আমাদের অভিভাবকদের মাথায় ঢুকেছে এটা সাংঘাতিক। তাদের ধারণা বাচ্চাদের রেজাল্ট ভালো করতে হবে। এজন্য কোচিংয়ে দিয়ে আলাদা চাপ সৃষ্টি করছে। এজন্যই এটা সাংঘাতিক। তবে গ্রামে এ চাপ নেই।

তিনি আরও বলেন, গ্রামের অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে যারা প্রাথমিক বা ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করে বন্ধ করে দেয়। তাদের জন্যই এই পিইসি এবং জেএসসি পরীক্ষার ব্যবস্থা করা। প্রাথমিক ও ৮ম শ্রেণিতে একটি সার্টিফিকেটপাওয়ার জন্যই অনেকে পড়তে আসে। তাই গ্রামে এটার সুনাম রয়েছে। আমাদের শিক্ষার্থী ঝরে পড়া কমেছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বেসরকারি শিক্ষকদের বেতনের ১০% কর্তনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ

ডেস্ক,১২ জুলাই: অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্ট খাতে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতনের ১০% কর্তনে সরকারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছে শিক্ষকদের দুইটি সংগঠন। গত ১৫ জুন শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপন আগামী তিনদিনের মধ্যে প্রত্যাহার না করা হলে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দেন তারা।

বুধবার (১২ জুলাই) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে এ প্রতিবাদ জানায় বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

তারা জানান, প্রজ্ঞাপনের আগে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন থেকে ২ শতাংশ কল্যাণ ট্রাস্ট খাতে ও ৪ শতাংশ অবসর বোর্ড খাতে কেটে নেওয়া হত। নতুন প্রজ্ঞাপন অনুসারে ২ শতাংশ করে বাড়িয়ে মোট ১০ শতাংশ করা হয়েছে।

মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক বলেন, “শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে জাতীয়করণের দাবিতে আমাদের আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য কিছু সংখ্যক সরকারি তোষামোদকারী শিক্ষক নেতা নতুন করে একটা প্রজ্ঞাপন জারি করল, সেই প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হল, এমপিওভূক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন থেকে ১০ শতাংশ অবসর ও কল্যাণ ভাতা খাতে কেটে নেওয়া হবে।”

এই সিদ্ধান্তকে ‘অত্যান্ত অগণতান্ত্রিক ও স্বৈরাচারী’ আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, “এই সিদ্ধান্ত কোনোভাবেই শিক্ষকরা মেনে নিতে পারে না। আমাদের কথা বিবেচনা করে, আমাদের বাস্তবতার কথা চিন্তা করে তিনদিনের মধ্যে এই প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার করুণ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

মাদরাসা শিক্ষার উন্নয়নে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার

ঢাকা: শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, মাদরাসা শিক্ষার্থীদের জ্ঞানচর্চা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইসলামি ও মাদরাসা শিক্ষার উন্নয়নে সরকার ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আলেমদের শত বছরের দাবির প্রেক্ষিতে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আরো উচুমানের আলেম তৈরি হবে।

বুধবার রাজধানীর ফার্মগেটে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে ‘ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় জাতীয় প্রতিযোগিতা ২০১৭’ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন তিনি।

জঙ্গিবাদের ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক করে দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ইসলামের নামে যারা ছাত্র-শিক্ষকদের বিপথগামী করছে, তারা দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করছে। তারা দেশকে এবং ইসলামকে হেয় প্রতিপন্ন করতে চায়।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ৫১ টি মাদরাসায় অনার্স কোর্স চালু করা হয়েছে। ৩৫ টি মাদরাসাকে মডেল মাদরাসা হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। এসব মাদরাসায় কম্পিউটার ল্যাবসহ আধুনিক সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হয়েছে। ১ হাজার ৩শ ৩২ টি মাদরাসায় নতুন ভবন নির্মান করা হয়েছে। আরো ১ হাজার ৮০০ মাদরাসায় ভবন নির্মানের জন্য প্রকল্প তৈরি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, মাদরাসা শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের জন্য প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপন করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মাদরাসা শিক্ষার সাথে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের সমন্বয় ঘটাতে ৩ হাজার ১২১টি মাদরাসায় কম্পিউটার কোর্স চালু করা হয়েছে। ২৮১টি মাদরাসায় কারিগরি শিক্ষা কোর্স চালু করা হয়েছে।

ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, জমিয়াতুল মোদার্রেছিন বাংলাদেশের মহাসচিব শাব্বির আহমদ মোমতাজী এবং প্রতিযোগিতা পরিচালনা কমিটির প্রধান মাওলানা আবু বকর বক্তৃতা করেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

নড়িয়ায় মাধ্যমিক শিক্ষক-কর্মচারীদের মানববন্ধন

শরীয়তপুর: বেসরকারী শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতনের ১০ পার্সেন্ট সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাষ্টের জন্য কর্তনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে তারা এক মানব বন্ধন কর্মসুচি পালন করেছে।

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে বুধবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত তিন ঘন্টা ব্যাপী নড়িয়া উপজেলা চত্বরে এ মানববন্ধণ কর্মসূচী পালন করা হয়।

মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন, শরীয়তপুর জেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শেখ নুরুল আমিন রতন, সদস্য মাষ্টার হাসানুজ্জামান খোকন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোঃ মোসলেহ উদ্দিন বাদল, সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলাম খান, মাষ্টার মোঃ ওবায়দুল হক ও মাষ্টার সমর কুমার মন্ডল প্রমুখ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঈশ্বরচন্দ্রপুর সপ্রা‌বি হঠাৎ পরিদর্শন করলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

দর্শনা অফিস: দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনায় ঈশ্বরচন্দ্রপুর সপ্রা‌বি মিড ডে মিল ও বৃক্ষরোপন কর্মসুচির উদ্ধোধন করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে প্রধান অতিথি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম চলমান এ মিড ডে মিল পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে তিনি বিদ্যালয়ের সার্বিক কার‌্যক্রম পরিদর্শন করেন এবং কাজের সন্তোস প্রকাশ করেন। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রধান শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক স্বরুপ দাস, অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আরতি হালসানা ও হারুন অর রশিদ জুয়েল প্রমুখ। শেষে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বৃক্ষ রোপন করে তিনি ছাত্র ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন কোমলমতি শিক্ষার্থীদের দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা গেলে বিদ্যালয়ের ঝরে পড়া রোধ সম্ভব হবে।

এ ধরনের মহৎ কাজের উদ্যোগ নেওয়ায় এসএমসি এবং শিক্ষকদের ধন্যবাদ জানান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জাবিতে নতুন উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ

জবি  প্রতিনিধি:    জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক মো. আমির হোসেনকে বিশ্ববিদ্যালয়টির উপ-উপাচার্য নিয়োগ করেছে সরকার। এছাড়া জাবির আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হককে কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ করা হয়েছে। রবিবার (৯ জুলাই) এ সংক্রান্ত্র প্রজ্ঞাপন জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ।
সহাকরি সচিব আবদুস সাত্তার মিয়া স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, নতুন দায়িত্বে উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষের মেয়াদ চার বছর। তবে রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলর প্রয়োজন মনে করলে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই এসব নিয়োগ বাতিল করতে পারবেন।বর্তমানে অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম জাবির উপাচার্য এবং অধ্যাপক মো. আবুল হোসেন উপ-উপাচার্যের দায়িত্বে রয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্গানোগ্রাম অনুযায়ী আরেকজন উপ-উপাচার্য নিয়োগ দিলো সরকার।

কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব চালিয়ে আসা অধ্যাপক আবুল খায়েরের মেয়াদ গত ১৯ জুন শেষ হয়। অধ্যাপক মনজুরুল হক আবুল খায়েরের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

যৌন হয়রানির দায়ে জবির শিক্ষক রাজীব মীর বরখাস্ত

জবি প্রতিনিধি : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের মাস্টার্সের একাধিক ছাত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মীর মোশারেফ হোসেনকে (রাজীব মীর) বরখাস্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

রোববার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭৪তম সিন্ডিকেট সভায় তার বিরুদ্ধে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে  জানিয়েছেন একাধিক সিন্ডিকেট সদস্য। তবে ঠিক কত দিনের জন্য বরখাস্ত করা হয়েছে তা জানা যায়নি।

এর আগে ২০১৬ সালের এপ্রিলে এক ছাত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে গঠিত ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭১তম সিন্ডিকেট সভায় রাজীব মীরকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এর আগে  ২০১৬ সালের ৫ এপ্রিল সাংবাদিকতা বিভাগের ওই ছাত্রী রাজীব মীরের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কাছে হুমকি প্রদানসহ বেশ কয়েকটি অভিযোগ করেন। এ সময় অভিযোগের সপক্ষে তিনি একটি মুঠোফোন রেকর্ডও প্রশাসনের কাছে প্রদান করেন। পাশাপাশি রাজীব মীরের বিরুদ্ধে ‘উদ্দেশ্যমূলকভাবে’ নম্বর কম প্রদান করার অভিযোগ এনে স্নাতক পরীক্ষার নম্বরও তুলে ধরেন তিনি। এসব অভিযোগের পাশাপাশি প্রশাসনের কাছে ওই ছাত্রী তার একাডেমিক নিরাপত্তাও চেয়েছিলেন।

ওই ছাত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ট্রেজারার সেলিম ভূঁইয়াকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। ওই কমিটি প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে ওই বছর ১১ এপ্রিল রাজীব মীরসহ ৩ শিক্ষককে মাস্টার্সের ক্লাস থেকে সাময়িক অব্যাহতি প্রদান করে।

পরবর্তীতে স্নাতক চতুর্থ বর্ষের একাধিক শিক্ষার্থীও রাজীব মীরের বিরুদ্ধে একাডেমিক ফলাফলের নিরাপত্তা চেয়ে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করে। এদিকে রাজীব মীরের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করে ক্যাম্পাসে দুটি প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনও সে সময় কর্মসূচী পালন করেছিল।

এছাড়া রাজীব মীরের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির একাধিক অভিযোগ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন হয়রানি প্রতিরোধ সেল তদন্ত করে । তদন্তে রাজীব মীরের দোষ খুঁজে পায় কমিটি।

২০১৪ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজীব মীরের বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদে মদদ দেয়া, ছাত্রীদের অনৈতিক প্রস্তাব দেয়াসহ নানা অভিযোগ এনে তার অপসারণ দাবি করে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন করেছিল কয়েকশ শিক্ষার্থী। তারা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে স্মারকলিপিও দিয়েছিল। এর আগে ২০০৪ সালে পূর্বতন কর্মস্থল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের অনৈতিক প্রস্তাব দেয়ায় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন্নাহার হলে রাজীব মীরকে অবরুদ্ধ করে রেখেছিল ছাত্রীরা।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বাবা-মাকে পিটিয়ে অপহরণ করা কলেজছাত্রীকে উদ্ধার

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরে বাবা-মাকে পিটিয়ে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অপহরণ করা সেই কলেজছাত্রীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে দুই অপহরণকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নোয়াখালীর সুধারামের টেলিভিশন স্টেশন এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। এ সময় অপহরণ মামলার প্রধান আসামি হেলাল উদ্দিন ও তার এক সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে সকালে লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালীর বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে অপহরণ মামলার ৫ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, শনিবার (০৮ জুন) রাত সাড়ে ১০টার দিকে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার আবিরনগর এলাকার বাড়ি থেকে জোরপূর্বক ওই কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ করা হয়।

লক্ষ্মীপুর মডেল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোর্শেদ আলম বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধার ও ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়। এরআগে এ ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আগামীকাল সোমবার (১০ জুলাই) জেলা আদালতে তাদের পাঠানো হবে।

প্রসঙ্গত, অপহরণের শিকার ছাত্রীর বাবা আবুল কাশেম বাদী হয়ে রোববার হেলাল উদ্দিনকে প্রধান করে সাতজনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৫-৬ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা করেন। অপহৃত ছাত্রী ভবানীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ থেকে এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বাড়তি চাঁদার প্রতিবাদে সারাদেশে শিক্ষকদের বিক্ষোভ ১২ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক: বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারিদের কাছ থেকে অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্টের ১০ শতাংশ চাঁদা গ্রহণের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বুধবার (১২ই জুলাই) সারাদেশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি দিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি। ওই দিন দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলাসহ রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করবেন তারা।

শনিবার (৮ই জুলাই) রাজধানীর রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষকগণ একই কারিকুলামের অধীন সিলেবাস ও সময়সূচিতে পাঠদান, প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও উত্তরপত্র মূল্যায়নের কাজে নিয়োজিত থেকেও আর্থিক সুবিধার ক্ষেত্রে  বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়।

নেতৃবৃন্দ বলেন, দীর্ঘদিনের নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের কারণে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিদের  ‘বার্ষিক  ৫ শতাংশ বেতন বৃদ্ধি, বৈশাখী ভাতা, পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা ও বাড়ি ভাড়াসহ মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ’ এর দাবি  নিয়ে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে এবং সরকারের নীতি নির্ধারণী মহল দাবিসমূহ পূরণের জন্য ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করেছেন।’

কিন্তু কোন শিক্ষক সংগঠনের সাথে আলোচনা ছাড়াই আমলাতান্ত্রিক জটিলতার মারপ্যাঁচে ফেলে  নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সুবিধাভোগী ও তথাকথিত শিক্ষক সংগঠনের কোন কোন নেতাদের প্ররোচনায় বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন থেকে  অতিরিক্ত ৪ শতাংশ কর্তন করার জন্য পৃথক দু’টি গেজেট প্রকাশ করেছেন বলে নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন।

প্রকাশিত গেজেটে অতিরিক্ত ৪ শতাংশ প্রদান করে ভবিষ্যতে অতিরিক্ত কী সুবিধা পাবেন সে ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত উল্লেখ না থাকায় নেতারা হতাশা প্রকাশ করেন।

শিক্ষক-কর্মচারিদের  দাবি মেনে নেয়া না হলে সারাদেশের অবিরাম ধর্মঘট ও আমরন অনশনের মত কঠোর কর্মসূচি দেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি।

সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক। আরো উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ আবুল কাশেম, সহ-সভাপতি রঞ্জিত কুমার সাহা, অধ্যক্ষ মোঃ বজলুর রহমান মিয়া, আলী আসগর হাওলাদার, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ কাওছার আলী শেখ, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান শামীম, প্রকাশনা সম্পাদক মণি হালদার, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক বেগম নুরুন্নাহার, সাংস্কৃতিক সম্পাদক হেনা রাণী রায়, দপ্তর সম্পাদক মোঃ ইকবাল হোসেন, কেন্দ্রীয় সদস্য মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, অধ্যাপক আবু জামিল মোঃ সেলিম প্রমুখ শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারিদের কাছ থেকে অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্টের ১০ শতাংশ চাঁদা গ্রহণের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বুধবার (১২ই জুলাই) সারাদেশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি দিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি। ওই দিন দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলাসহ রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করবেন তারা। শনিবার (৮ই জুলাই) রাজধানীর রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষকগণ একই কারিকুলামের অধীন সিলেবাস ও সময়সূচিতে পাঠদান, প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও উত্তরপত্র মূল্যায়নের কাজে নিয়োজিত থেকেও আর্থিক সুবিধার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়। নেতৃবৃন্দ বলেন, দীর্ঘদিনের নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের কারণে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিদের ‘বার্ষিক ৫ শতাংশ বেতন বৃদ্ধি, বৈশাখী ভাতা, পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা ও বাড়ি ভাড়াসহ মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ’ এর দাবি নিয়ে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে এবং সরকারের নীতি নির্ধারণী মহল দাবিসমূহ পূরণের জন্য ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করেছেন।’ কিন্তু কোন শিক্ষক সংগঠনের সাথে আলোচনা ছাড়াই আমলাতান্ত্রিক জটিলতার মারপ্যাঁচে ফেলে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সুবিধাভোগী ও তথাকথিত শিক্ষক সংগঠনের কোন কোন নেতাদের প্ররোচনায় বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন থেকে অতিরিক্ত ৪ শতাংশ কর্তন করার জন্য পৃথক দু’টি গেজেট প্রকাশ করেছেন বলে নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন। প্রকাশিত গেজেটে অতিরিক্ত ৪ শতাংশ প্রদান করে ভবিষ্যতে অতিরিক্ত কী সুবিধা পাবেন সে ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত উল্লেখ না থাকায় নেতারা হতাশা প্রকাশ করেন। শিক্ষক-কর্মচারিদের দাবি মেনে নেয়া না হলে সারাদেশের অবিরাম ধর্মঘট ও আমরন অনশনের মত কঠোর কর্মসূচি দেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক। আরো উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ আবুল কাশেম, সহ-সভাপতি রঞ্জিত কুমার সাহা, অধ্যক্ষ মোঃ বজলুর রহমান মিয়া, আলী আসগর হাওলাদার, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ কাওছার আলী শেখ, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান শামীম, প্রকাশনা সম্পাদক মণি হালদার, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক বেগম নুরুন্নাহার, সাংস্কৃতিক সম্পাদক হেনা রাণী রায়, দপ্তর সম্পাদক মোঃ ইকবাল হোসেন, কেন্দ্রীয় সদস্য মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, অধ্যাপক আবু জামিল মোঃ সেলিম প্রমুখ শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

এইচএসসি পরীক্ষার ফল ২৩ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক :আগামী ২৩ জুলাই এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা-২০১৭ এর ফল প্রকাশ করা হবে। বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব রুহী রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

রেওয়াজ অনুযায়ী, বোর্ড চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সকালে প্রধানমন্ত্রীর হাতে ফলের সারসংক্ষেপ তুলে দেবেন। পরে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ফলাফলের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন মন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের এইচএসসি ও সমমানের তত্ত্বীয় পরীক্ষা গত ১৫ মে শেষ হয়। আর ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ হয় ২৫ মে। ১০ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেয় ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ছাত্র ৬ লাখ ৩৫ হাজার ৬৯৭ জন ও ছাত্রী ৫ লাখ ৪৭ হাজার ৯৮৯ জন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

অবশেষে প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে চাকরি পেলেন রবিউলের স্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক:তীব্র সমালোচনার মুখে গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় শহীদ সহকারী পুলিশ কমিশনার রবিউল করিমের স্ত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে চাকরি প্রদান করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ অফিস থেকে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার তাকে তৃতীয় শ্রেণির উচ্চমান সহকারীর পদের নিয়োগ প্রদান করা হয় । এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হলে শুক্রবার ওই নিয়োগ প্রত্যাহার করে নতুন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত নিয়মানুযায়ী রেজিস্ট্রার অফিসের শিক্ষা শাখায় প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে এডহক ভিত্তিতে তাকে নিয়োগ প্রদান করা হয়।

নিহত রবিউলের ভাই শামসুজ্জামান শামসের কাছ থেকে জানা যায়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বৃহস্পতিবার পুলিশ কর্মকর্তা এসি রবিউলের স্ত্রী উম্মে সালমাকে তৃতীয় শ্রেণির উচ্চমান সহকারীর পদে মাস্টাররোলে ৯০ দিনের জন্য দৈনিক ৫২৫ টাকা করে নিয়োগ দিয়ে একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পাঠায়।

এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্ব মহলে। পরে প্রশাসন তাদের অবস্থান থেকে সরে এসে নতুন করে আবার এ নিয়োগ প্রদান করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠায়।

এ বিষয়ে এসি রবিউলের ভাই শামসুজ্জামান শামস বলেন, গতকালের নিয়োগ পুনর্বিবেচনা করে আমার ভাবীকে প্রথম শ্রেণির পদে নিয়োগ প্রদান করে  আমার ভাইকে সর্বোচ্চ সম্মান দেখাল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন এবং যারাই এ নিয়োগের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তাদের সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

তীব্র সমালোচনার মুখে গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় শহীদ সহকারী পুলিশ কমিশনার রবিউল করিমের স্ত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে চাকরি প্রদান করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ অফিস থেকে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার তাকে তৃতীয় শ্রেণির উচ্চমান সহকারীর পদের নিয়োগ প্রদান করা হয় । এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হলে শুক্রবার ওই নিয়োগ প্রত্যাহার করে নতুন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত নিয়মানুযায়ী রেজিস্ট্রার অফিসের শিক্ষা শাখায় প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে এডহক ভিত্তিতে তাকে নিয়োগ প্রদান করা হয়। নিহত রবিউলের ভাই শামসুজ্জামান শামসের কাছ থেকে জানা যায়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বৃহস্পতিবার পুলিশ কর্মকর্তা এসি রবিউলের স্ত্রী উম্মে সালমাকে তৃতীয় শ্রেণির উচ্চমান সহকারীর পদে মাস্টাররোলে ৯০ দিনের জন্য দৈনিক ৫২৫ টাকা করে নিয়োগ দিয়ে একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পাঠায়। এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্ব মহলে। পরে প্রশাসন তাদের অবস্থান থেকে সরে এসে নতুন করে আবার এ নিয়োগ প্রদান করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠায়। এ বিষয়ে এসি রবিউলের ভাই শামসুজ্জামান শামস বলেন, গতকালের নিয়োগ পুনর্বিবেচনা করে আমার ভাবীকে প্রথম শ্রেণির পদে নিয়োগ প্রদান করে আমার ভাইকে সর্বোচ্চ সম্মান দেখাল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন এবং যারাই এ নিয়োগের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তাদের সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

হাইস্কুলের ২৬২৬ জন শিক্ষক টাইমস্কেল পাচ্ছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি হাইস্কুলের দুই হাজার ছয়শ ছাব্বিশজন সহকারি শিক্ষককে টাইম স্কেল দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রথম টাইমস্কেল পাবেন এক হাজার তিনশ তেত্রিশ জন। দ্বিতীয় টাইমস্কেল পাবেন একহাজার তিনশ তের জন। এছাড়াও ১৯০ জনকে তৃতীয় টাইমস্কেল অথবা সিলেকশন গ্রেড—এ দুটির মধ্যে কোনটি দেয়া হবে ঠিক করতে আরেকাটি সভার প্রয়োজন হবে।

বৃহস্পতিবার (৬ জুলাই) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব চৌধুরী মুফাদ আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সভায় উপস্থিত মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মো: সাখায়েত হোসেন বিশ্বাস দৈনিক শিক্ষাডটকমকে এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

শিক্ষকরা জানান সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালযের প্রায় তিন হাজার শিক্ষকের টাইম স্কেলের ফাইল প্রায় তিন বছর যাবৎ আটকে থাকার পর ১৯শে জুন অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে ইতিবাচক মতামত পাওয়ার পর শিক্ষা মন্ত্রণালয় ৬ জুলাই ডিপিসির সভা আহবান করেন।

সরকারি হাইস্কুলের দুই হাজার ছয়শ ছাব্বিশজন সহকারি শিক্ষককে টাইম স্কেল দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রথম টাইমস্কেল পাবেন এক হাজার তিনশ তেত্রিশ জন। দ্বিতীয় টাইমস্কেল পাবেন একহাজার তিনশ তের জন। এছাড়াও ১৯০ জনকে তৃতীয় টাইমস্কেল অথবা সিলেকশন গ্রেড—এ দুটির মধ্যে কোনটি দেয়া হবে ঠিক করতে আরেকাটি সভার প্রয়োজন হবে। বৃহস্পতিবার (৬ জুলাই) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব চৌধুরী মুফাদ আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সভায় উপস্থিত মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মো: সাখায়েত হোসেন বিশ্বাস  এ খবর নিশ্চিত করেছেন। শিক্ষকরা জানান সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালযের প্রায় তিন হাজার শিক্ষকের টাইম স্কেলের ফাইল প্রায় তিন বছর যাবৎ আটকে থাকার পর ১৯শে জুন অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে ইতিবাচক মতামত পাওয়ার পর শিক্ষা মন্ত্রণালয় ৬ জুলাই ডিপিসির সভা আহবান করেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, ৩০০ স্কুল বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক | জুলাই ৩

অকালবন্যায় সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনাসহ কয়েকটি জেলার হাওর অঞ্চলে ব্যাপক ফসলহানি ও মাছ মারা যাওয়ার দুই মাস পর এবার মৌলভীবাজার ও সিলেটে বন্যা দেখা দিয়েছে।

ভারী বর্ষণ ও ঢলে দেশের উত্তর-পূর্বের মৌলভীবাজার ও সিলেটে সৃষ্ট বন্যা পরিস্থিতির গত রোববারও উন্নতি হয়নি। দুই জেলায় পানিবন্দী হয়ে আছে সাড়ে চার লাখ লোক। পানি প্রবেশ করায় পাঠদান বন্ধ রয়েছে দুই জেলার তিন শতাধিক বিদ্যালয়ে। এদিকে উত্তর-পশ্চিমের নীলফামারীতে তিস্তার পানি বেড়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

গত এপ্রিলে অকালবন্যায় সুনামগঞ্জে ওই অকালবন্যায় ১৫৪টি হাওরের ১ লাখ ৬৬ হাজার ৬১২ হেক্টর জমির বোরো ধান তলিয়ে গেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৯৯০টি কৃষক পরিবার। তবে স্থানীয় কৃষক ও জনপ্রতিনিধিরা বলেছেন, হাওরের ৯০ শতাংশ ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

মৌলভীবাজারে গতকাল নতুন করে বন্যার পানি বাড়েনি। কিন্তু কুশিয়ারা নদী এবং হাকালুকি, কাউয়াদীঘি ও হাইল হাওরের পানি না কমায় জেলার পাঁচটি উপজেলায় প্রায় তিন লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে আছে। বন্যাকবলিত এলাকায় সার্বিক যোগাযোগব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। জেলার ১৪২টি প্রাথমিক ও ৪১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান বন্ধ আছে।

জেলার বড়লেখা, জুড়ী, কুলাউড়া, রাজনগর ও সদর উপজেলার ২৩টি ইউনিয়নে বন্যা দেখা দিলেও বিশেষত হাকালুকি ও কাউয়াদীঘি হাওর এলাকায় এর প্রকোপ বেশি। এখানকার অনেক গ্রামবাসী প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। কিছু পরিবার আশ্রয়কেন্দ্রে উঠেছে। বড়লেখায় তিনটি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম আবদুল্লাহ আল মামুন গতকাল বলেন, পানি খুব বাড়েনি। তবে বড় সমস্যা যোগাযোগবিচ্ছিন্নতা। অনেক দিন ধরে রাস্তায় পানি। রাস্তায় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বাস চলাচল বন্ধ।

জুড়ীতে চারটি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। কুলাউড়ার ৭০টি গ্রামের প্রায় ৭০ হাজার মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় আছে। এ উপজেলায় আটটি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। উপজেলার ভুকশিমইল ইউপির চেয়ারম্যান মো. আজিজুর রহমান বলেন, ‘আমার ইউনিয়নের ৭০ শতাংশ বাড়িঘরে পানি উঠেছে।’

রাজনগর উপজেলায় পানিবন্দী হয়ে পড়েছে ৩০ হাজার মানুষ। নৌকা ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়ার উপায় নেই। পানি ওঠায় অনেকে মাচা বেঁধে কোনো রকমে টিকে থাকার চেষ্টা করছেন। এখানে দুটি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। মৌলভীবাজার-রাজনগর-বালাগঞ্জ সড়কের দুই কিলোমিটার স্থান তলিয়ে গেছে। বন্ধ হয়ে গেছে বাস চলাচল। অপর দিকে মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় ১৫-২০ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে আছে।

জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম বলেন, পাহাড়ধসের আশঙ্কায় সবাইকে সতর্ক করা হচ্ছে।

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। ১৩টি উপজেলার নয়টিতে অন্তত দেড় লাখ মানুষ পানিবন্দী। পানি ওঠায় ১৪৮টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ রয়েছে। বন্যাকবলিত উপজেলাগুলো হলো বিয়ানীবাজার, ফেঞ্চুগঞ্জ, বালাগঞ্জ, ওসমানীনগর, গোলাপগঞ্জ, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, সিলেট সদর ও দক্ষিণ সুরমা। ভারত থেকে নেমে আসা ঢলেই মূলত এ বন্যা দেখা দিয়েছে।

পানিবন্দী হয়ে পড়ায় অনেকে ঘরবাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে গেছেন। অনেকে ঘরের ভেতরেই মানবেতর জীবন যাপন করছেন। দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট। পর্যাপ্ত ত্রাণসহায়তা দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে।

জেলা প্রশাসক মো. রাহাত আনোয়ার জানান, বৃষ্টিপাত না কমা পর্যন্ত বন্যার উন্নতির সম্ভাবনা নেই। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ত্রাণ দেওয়া অব্যাহত থাকবে। প্রয়োজনে সহায়তা বাড়ানো হবে।

গতকাল বিকেলে গোলাপগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

ভারী বর্ষণ ও ঢলে তিস্তার পানি বেড়ে নীলফামারীতে গত দুদিন ধরে এ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে ডিমলা ও জলঢাকার নিম্ন চরাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ডিমলার টেপাখড়িবাড়ি ইউপির চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম বলেন, শনিবার ভোররাত থেকে তিস্তার পানি বেড়ে বিকেলে কিছু কমলেও রাতে আবার বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে এ ইউনিয়নের চরখড়িবাড়ি, পূর্ব খড়িবাড়ি, টাপুরচর, ঝিঞ্জিরপাড়া ও মেহেরটারী গ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়।

খালিশা চাপানি ইউপির চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, দুদিন ধরে তিস্তার পানি বেড়ে পশ্চিম বাইশপুকুর, পূর্ব বাইশপুকুর, সতিঘাট ও ছোটখাতা গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া ডিভিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজার রহমান বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ব্যারাজের সব (৪৪টি) জলকপাট খুলে রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

কলেজে ভর্তি বঞ্চিত ৪ লাখ শিক্ষার্থী!

নিজস্ব প্রতিবেদক :একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির বাইরে রয়ে গেছে প্রায় ৪ লাখ শিক্ষার্থী। শনিবার থেকে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ক্লাস শুরু হলেও এসব শিক্ষার্থী কলেজে ভর্তি হতে পারবে কিনা তা এখনও অনিশ্চিত।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বঞ্চিতদের ভর্তির সুযোগ দেয়া হবে। আগামী ১৫ জুলাই থেকে নতুনভাবে আবেদন গ্রহণ করে তাদের ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে।

ঢাকা শিক্ষাবোর্ড সূত্র জানায়, এবার প্রায় ১৩ লাখ ২০ হাজার শিক্ষার্থীকে ভর্তির জন্য তিন ধাপে কলেজ নির্ধারণ করে দিলেও পুনরায় এসএমএস দিয়ে নিশ্চয়ন (কনফার্মেশন) করেছে ১২ লাখ ৩৬ হাজার ভর্তিচ্ছু ছাত্র-ছাত্রী।

এর মধ্যে ৮৪ হাজার শিক্ষার্থী কলেজ নিশ্চিত (নিশ্চয়ন) করে এসএমএস পাঠায়নি। আবার নিশ্চয়ন করেও ভর্তি হয়নি প্রায় ৩ লাখ শিক্ষার্থী। ফলে এসব শিক্ষার্থী ভর্তির বাইরে রয়ে গেছে।

এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মাহাবুবুর রহমান জানান, আগামী ২, ৩ ও ৪ জুলাই পর্যন্ত উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা কলেজে ভর্তি হতে পারবে। তবে যারা ভর্তি হয়নি বা সুযোগ পায়নি তাদেরও নতুন করে ভর্তির সুযোগ দেয়া হবে।

৪ জুলাইয়ের পর ভর্তি থেকে বাদ পড়ার সঠিক সংখ্যা জানা যাবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা ভর্তি বঞ্চিত রয়েছে বা নিশ্চয়ন বা নিশ্চিত করেও এখনও ভর্তি হয়নি তাদের পুনরায় ১০টি কলেজ নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন করে আবেদন করার সুযোগ দেয়া হবে।

‘আগামী ১৫ জুলাই থেকে এসব আবেদন গ্রহণ করা হবে। পরবর্তী এক সপ্তাহের মধ্যে ভর্তি কার্যক্রম শেষ করা হবে। ’

অধ্যাপক মাহাবুবুর রহমান জানান, এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে শনিবার রাতে সভা ডাকা হয়েছে। সব সিদ্ধান্ত ঢাকাবোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।

এদিকে একাধিক অভিভাবক  এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, অনলাইনে ভর্তির জটিলতার কারণেই প্রায় ৪ লাখ শিক্ষার্থী ভর্তির বাইরে রয়ে গেছে। ভালো ফল করেও অনেককে বিপাকে পড়তে হয়েছে, নানা ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে।

অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া আরও সহজ ও উন্নত করার দাবি জানিয়েছেন তারা।

অভিভাবকরা বলেন, অনলাইনে ভর্তির প্রক্রিয়া আরও সহজ করা হোক নইলে ভর্তির বিষয়ে আগের সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হোক।

উল্লেখ্য, গত ৯ মে থেকে অনলাইন ও এসএমএসে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন গ্রহণ করা হয়। প্রায় ২৫ দিন পর ৫ জুন প্রথম পর্যায়ের ফল প্রকাশ করা হয়।

পরবর্তীতে সময় বাড়িয়ে তিন দফায় আবেদন নেয়া হয়। আর ভর্তি শুরু হয় ২০ জুন থেকে, যা শেষ হয় ২৯ জুন।

পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের বিষয়টি বিবেচনা করে ৪ জুলাই পর্যন্ত ভর্তির সময় বাড়ানোর নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail
hit counter