Home » Tag Archives: এইচএসসি

Tag Archives: এইচএসসি

এইচএসসি নিয়ে অভিভাবকদের ৬ প্রস্তাব

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৪ সেপ্টেম্বর:

করোনার কারণে কয়েকদফা বাড়ানোর পর আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাধারণ ছুটি রয়েছে। এই ছুটি আরও বাড়ানোরও সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষা কবে হবে তা নিশ্চিত নয়। এতে চুশ্চিন্তায় দিন কাটছে লাখ লাখ শিক্ষার্থীর। এ অবস্থায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে ছয়টি প্রস্তাব দিয়েছেন অভিভাবকরা। এছাড়া বিশেষ ব্যবস্থায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়েরও পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানা গেছে।

অভিভাবক ঐক্য ফোরামের চেয়ারম্যান জিয়াউল কবীর দুলু সাংবাদিকদেরকে বলেন, ‘আমরা চাই শিক্ষার্থীদের পাঠ্যক্রম শেষ করেই যেন সরকার পরীক্ষা নেয়ার ব্যবস্থা করে। নইলে শেখা ও জ্ঞান অর্জনের ঘাটতি পরবর্তী জীবনে ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।’

সূত্র জানায়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা নিতে অভিভাবকদের পক্ষ থেকে মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে। রাজধানীর নজরুল ইসলাম নামে এক অভিভাবক গত ৮ সেপ্টেম্বর ৬ দফা প্রস্তাব সংবলিত স্মারকলিপি দিয়েছে দেন।

তিনি ৫০ করে ১০০ নম্বরে বাংলা দুই পত্র, একইভাবে ইংরেজির দুই পত্র পরীক্ষা গ্রহণের কথা বলেছেন। পাশাপাশি বিজ্ঞানের বিষয়ে তত্ত্বীয় ৭৫ নম্বরের পরীক্ষা ও ব্যবহারিকের ২৫ নম্বর দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। এছাড়া আইসিটি বিষয়ের পরীক্ষা বাতিল করে বিজ্ঞান, বিজনেস স্টাডিজ ও মানবিকের একটি করে বিষয়ের পরীক্ষা নেওয়ার পর বাকিগুলো ঐচ্ছিক ঘোষণার প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি।

জানা গেছে, বিশেষ ব্যবস্থায় এইচএসসি পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও চিন্তাভাবনা করছে। সেজন্য সিটপ্ল্যানও সংগ্রহ করেছে বোর্ডগুলো। সে মোতাবেক, তিন ফুট দূরত্ব রেখে ‘জেড’ সিস্টেমে বসানো হবে শিক্ষার্থীদের। নভেম্বরে পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তাব শিক্ষা বোর্ড থেকে পাঠানো হয়েছে।

অবশ্য করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে তিনটি বিকল্প প্রস্তাব রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে, শিক্ষার্থীদের অতীতের জেএসসি-এসএসসির ফলের ভিত্তিতে গ্রেড দেয়া কিংবা স্বল্পপরিসরে পরীক্ষা নেয়া। এ দুটি না হলে আগামী মার্চ পর্যন্ত অপেক্ষা করা।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের সচিব অধ্যাপক তপন কুমার সরকার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘যৌক্তিক কারণেই এসএসসি ও এইচএসসির সিলেবাস কমানোর সুযোগ নেই। গোটা পাঠ্যবই শেষ করেই পরীক্ষা হবে। সিলেবাস শেষ করতে কতদিন প্রয়োজন হবে এখনই বলা যাচ্ছে না। কবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে তা অনিশ্চিত। পরীক্ষা পেছানোর প্রয়োজন হতে পারে। তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললে শিক্ষার্থীদের অধ্যয়ন ও বাকি অংশের মূল্যায়নের পর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

উল্লেখ্য, করোনার কারণে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা ইতোমধ্যে বাতিল করা হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না খুললে বার্ষিক পরীক্ষা না নিয়েই শিক্ষার্থীদের পরবর্তী শ্রেণিতে উন্নীত করার চিন্তাভাবনাও চলছে। কিন্তু এইচএসসি পরীক্ষা গত এপ্রিলে নেওয়ার জন্য নির্ধারিত থাকলেও তা সম্ভব হয়নি।

এইচএসসি পরীক্ষা না হওয়ায় ইতোমধ্যে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থীর জীবন থেকে ঝরে গেছে ৫ মাসের অধিক সময়। যথাসময়ে পরীক্ষা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিও শেষ পর্যায়ে থাকত। এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, এইচএসসি পরীক্ষা গ্রহণের সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। সরকারি সিদ্ধান্ত পেলেই রুটিন প্রকাশ করা হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

এইচএসসি পরীক্ষা: আরও সময় নিতে চায় শিক্ষাবোর্ড

ডেস্ক,১২ সেপ্টেম্বর:
করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে দেশের সব ধরণের শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। ফলে নির্ধারিত সময়ে এবছরের এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। কবে নাগাদ এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে পারে সেসম্পর্কে নির্দিষ্ট করে কিছু না বললেও সরকার বলছে, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার আগে জনস্বাস্থ্যকে ঝুঁকির মুখে ফেলে পরীক্ষা নেয়ার মত সিদ্ধান্ত সরকার নেবে না।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, করোনায় স্বাস্থ্যঝুঁকি থাকায় কখন এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে সে বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত এখনো নেওয়া হয়নি। নতুন সূচি প্রকাশের অন্তত ১৫ দিন পর এই পরীক্ষা নেওয়া হবে।

এদিকে, এ পরীক্ষা নিতে আরও সময় নিতে চায় আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি। কমিটি বলছে, সবার আগে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা। তাই করোনা পরিস্থিতির আরো উন্নতি হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছি।

তবে শিক্ষাবিদরা বলছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছাড়া দেশের প্রায় সব কিছুই খোলা রয়েছে। শিক্ষার্থীরাও নিয়মিত ঘরের বাইরে বের হচ্ছে। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে এইচএসসি পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়টি ভাবতে পারে সরকার।

সাবেক শিক্ষাসচিব নজরুল ইসলাম খান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে। আর কত দিন অপেক্ষা করা যায়? তবে এ জন্য কেন্দ্রের সংখ্যা বাড়াতে হবে। এ ছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মানতে যা যা করা দরকার, তা মেনে পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, করোনা পরিস্থিতির আরো উন্নতি হওয়ার জন্য আমরা অপেক্ষা করছি। এছাড়া আর কোনো বিকল্প এই মুহূর্তে আমাদের হাতে নেই। কারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা আমাদের কাছে সবার আগে।

জানা যায়, সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। এ বছর এই সময়ে এইচএসসি পরীক্ষা গ্রহণই সম্ভব হয়নি। ফলে এমনতিইে শিক্ষার্থীদের প্রায় পাঁচ মাসের সেশনজটে পড়তে হবে। এরপর যদি এইচএসসি পরীক্ষা গ্রহণে আরো দেরি হয়, তাহলে উচ্চশিক্ষায় সেশনজট দীর্ঘ হবে।


Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এইচএসসি পরীক্ষা

ডেস্ক,২৬ এপ্রিল:

করোনাভাইরাস সংক্রমণের এ সময়ে সব মানুষ এক ধরনের আতঙ্ক ও অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা থেকে উচ্চ শিক্ষা পর্যন্ত সব শ্রেণির শিক্ষার্থীই দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছে। কারণ প্রাতিষ্ঠানিকভাবে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।

আর এমন মহামারীর মধ্যেই দেশের সকল শিক্ষকসহ অভিভাবকদের কাছে অনুরোধ জানিয়ে কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শনিবার (২৫ এপ্রিল) দেশের একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে এমন তথ্য জানা যায়।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কিছু কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছে। তবুও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা না থাকায় ছাত্রছাত্রীরা সেভাবে এগিয়ে যেতে পারছে না। তারা কিছুটা পিছিয়ে যাচ্ছে। তাই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে ইনশাআল্লাহ।

সাক্ষাৎকারে তিনি আরও জানান, গণপরিবহন চালুর তিন সপ্তাহের মধ্যে এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ করা হবে। আর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে নোটিস দিয়ে দুই সপ্তাহের মধ্যে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু করা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পরে দেশ সম্ভবত এত বড় সংকটে পড়েনি। এসএসসি পরীক্ষার সব খাতা মূল্যায়ন করা হয়েছে। খাতাগুলো প্রধান পরীক্ষকদের কাছে রয়েছে। পরিবহন চলাচল শুরু হলেই ওএমআর শিটগুলো শিক্ষা বোর্ডে পৌঁছে যাবে। গণপরিবহন চালুর তিন সপ্তাহের মধ্যে এসএসসির ফল প্রকাশ করতে পারব ইনশা আল্লাহ।

তিনি জানান, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা যথাসময়ে (১ এপ্রিল) অনুষ্ঠানের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি ছিল সরকারের। কিন্তু করোনার কারণে এ পরীক্ষা শুরু করা যায়নি। পরীক্ষা নেয়ার সব প্রস্তুতি এখনো রয়েছে আমাদের। শিক্ষার্থীরাও পুরোপুরি প্রস্তুত রয়েছে পরীক্ষা দিতে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দুই সপ্তাহের নোটিস দিয়েই আশা করি এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু করতে পারব।

এ পরিস্থিতিতে এইচএসসি পরীক্ষার সময় ছুটি কমানো বা পরীক্ষা কমানো হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে দীপু মনি বলেন, সবাই যদি স্বাস্থ্যবিধি মানত, ঘরে থাকত তবে এ পরিস্থিতি দীর্ঘ নাও হতে পারত।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সময় আরও দীর্ঘ হলে এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর পর ফল প্রকাশ দ্রুততম সময়ের মধ্যে করা হবে। ফল প্রকাশের পর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি প্রক্রিয়া কয়েক মাসজুড়ে চলে। আমরা ভর্তির এ সময় কমিয়ে আনার চেষ্টা করব। তাদের শিক্ষাজীবন থেকে যেন বড় সময় নষ্ট হয়ে না যায়, বড় ধরনের সেশনজটের সৃষ্টি না হয় সেজন্য আমরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব।

দীপু মনি বলেন, ছুটি ঘোষণা করার মাত্র তিন দিনের মধ্যে গত ২৯ মার্চ থেকে সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে ক্লাস শুরু করা হয়েছে। অন্যান্য দেশের লকডাউন অবস্থা দেখে এটি ভাবতে হয়েছিল যে, এদেশেও লকডাউন হয়ে যেতে পারে। তাই স্বল্প সময়ের মধ্যে সিদ্ধান্ত নিয়ে সংকটকালেও লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার উদ্যোগটি হাতে নিয়েছি। বর্তমানে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে পাঠদান করছে। টেলিভিশন ও অনলাইনে পাঠদানের উদ্দেশ্য হচ্ছে শিক্ষার্থীরা যেন পড়াশোনা থেকে দূরে সরে না যায়, তাদের পড়াশোনার মধ্যে ধরে রাখা। এ ছাড়া করোনার সংক্রমণের সময়টা দীর্ঘ হলেও যেন ছাত্রছাত্রীরা খুব বেশি পিছিয়ে না পড়ে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুললে আমরা বুঝতে পারব, একাডেমিক দিক থেকে কতটা পিছিয়ে গেছে শিক্ষার্থীরা। সেই ক্ষতির দিক নিরূপণ করে তা কাটিয়ে উঠতে অতিরিক্ত ক্লাসের প্রয়োজন হলে অতিরিক্ত ক্লাসের ব্যবস্থা করা হবে। এ ছাড়া অন্য ছুটিগুলোও কিছুটা কমিয়ে এনে পাঠদানের উদ্যোগ নেয়া হবে। শিক্ষার্থীরা যেন বড় কোনো ঝামেলায় না পড়ে, এ বিষয়টিকে সামনে রেখে যেসব উদ্যোগ নেয়া দরকার তার সবই নেয়া হবে।

ডা. দীপু মনি বলেন, সব সংকটই কিছু সুযোগের সৃষ্টি করে। করোনা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষার্থীরা বাসায় অনেক সময় পাচ্ছে। তাদের মন দিয়ে বাড়িতে পড়াশোনা করতে হবে। একই সঙ্গে শারীরিক, মানসিক বিকাশের দিকে নজর রাখতে হবে।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের নানা দুর্ভোগ, সমস্যা প্রত্যক্ষ করছে শিক্ষার্থীরা। এসব দেখে প্রতিকূল পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার সাহস অর্জন করতে হবে তাদের। এ পরিস্থিতি দেখে শিক্ষার্থীরা মানবিক গুণাবলি অর্জন করতে শিখবে, মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করবে। সংকটের মধ্য দিয়েই এসব গুণাবলি অর্জন করতে শিখবে তারা। এ ছাড়া সারা বছর নানা ব্যস্ততায় অভিভাবকরা সন্তানকে সময় দেয়ার সুযোগ পান না। করোনা সেই সময় করে দিয়েছে। সন্তানকে ভালো মানুষ, সুনাগরিক তৈরি করার চেষ্টা করতে হবে অভিভাবকদের। সন্তানের বন্ধু হয়েই এসব শিক্ষা দিতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে যেসব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া দরকার তার সব সাধ্যমতো নেয়া হবে। কারণ, এটিই আমাদের দায়িত্ব, এটিই কর্তব্য। করোনা পরিস্থিতিতেও আমরা সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে টেলিকনফারেন্স করে সব খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা নিয়মিত আমাদের সার্বিক দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন।

তিনি চান, এই শিক্ষার্থীরা হবে বিশ্বমানব, তারা বিশ্বমানের শিক্ষা পাবে। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা, স্বপ্ন পূরণ করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

কিছু বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় করোনা পরিস্থিতিতেও টিউশন ফি, সেশন ফিসহ বিভিন্ন চার্জ পরিশোধে শিক্ষার্থী ও অভিভাবককে বাধ্য করছে এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের বেতন নিয়েই শিক্ষকদের বেতন পরিশোধ করা হয়। তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এসব প্রতিষ্ঠানে অনেক খরচই হচ্ছে না। তাই মানবিক দিক বিবেচনা করে বিভিন্ন চার্জ আদায়ের ক্ষেত্রে একটু ছাড় দিলে অভিভাবকরাও স্বস্তি পেতেন, শিক্ষকরাও কিছু বেতন পেতেন। করোনার এই কঠিন পরিস্থিতিতে সবাইকেই কিছু ছাড় দেয়ার অনুরোধ জানান মন্ত্রী।


Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter