Home » Tag Archives: শিক্ষামন্ত্রী

Tag Archives: শিক্ষামন্ত্রী

পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা আর থাকবে না : শিক্ষামন্ত্রী 

ডেস্ক,১৪ সেপ্টেম্বর:

২০২৩ সাল থেকে পঞ্চম শ্রেণির প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) এবং অষ্টম শ্রেণির জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা থাকবে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা উপস্থাপন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। পরে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরিমার্জিত শিক্ষাক্রমের পাইলটিং চলবে ২০২২ সালে। আর শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন শুরু হবে ২০২৩ সাল থেকে। ২০২৫ সালের মধ্যে পর্যায়ক্রমে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষাক্রমের খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ৩য় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা থাকবে না। এ বিষয়ে আগেই প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিয়েছিলেন। নতুন কারিকুলামে সেটা চূড়ান্ত করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবার অনুমোদন নেওয়া হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

স্কুলের টিউশন ফি’র বিষয়ে নমনীয় হওয়ার নির্দেশ ডা. দীপু মনি

বর্তমানে করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গুর প্রকোপ রয়েছে। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীরা যদি তাদের ইউনিফর্ম এর বাইরে নিজেদের পছন্দমতো পোশাক পরে স্কুলে আসেন, তাহলে বাধা দেওয়ার দরকার নেই। তাছাড়া, অনেক শিক্ষার্থীর ইউনিফর্ম স্বাভাবিক মাপমতো নেই। তাই এ বিষয়ে চাপ দেওয়ার দরকার নেই। সেই সাথে স্কুলের টিউশন ফি’র বিষয়ে অভিভাবকদের প্রতি নমনীয় হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) সকালে আজিমপুর স্কুল অ‌্যান্ড কলেজ পরিদর্শনে এসে তিনি এই কথা বলেন।

এছাড়া, অভিভাবকরা যদি টিউশন ফি একবারে দিতে না পরেন, তাহলে তাদেরকে মাসিক কিস্তির ভিত্তিতে টিউশন ফি পরিশোধের ব‌্যবস্থা করে দেওয়ার জন‌্য স্কুল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন শিক্ষামন্ত্রী।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘করোনা সংক্রমনের হার কিছুটা কমে আসায় আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার উদ্যোগ নিয়েছে। আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবো। যদি পরিস্থিতি ক্রমশ খারাপের দিকে যায় আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব।’

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

নিয়ন্ত্রণ করা হবে স্কুল-কলেজের সামনে মায়েদের আড্ডা

মহামারি করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সরকারের ঘোষিত চলমান ছুটি শেষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত সিয়েছে সরকার।

এরই ধারাবাহিকতায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে শিক্ষার্থীর মা ও অভিভাবকদের আড্ডা, অপেক্ষা এবং অবস্থান নিয়ন্ত্রণ করতে স্কুল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেয়া হবে।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করতে চেকলিস্টের মাধ্যমে প্রতিদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে পরিবীক্ষণ ও রিপোর্ট পাঠাতে হবে। শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। এসব বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে মনিটরিং করা হবে।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু সব ধরনের কার্যক্রম মনিটরিং করা হবে, তাই শুরুতে শিক্ষার্থীদের সপ্তাহে ছয় দিন ক্লাস করানোর জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান করাতে পর্যাপ্ত ক্লাস রুমের সংকট দেখা দেবে। আর একই ক্লাসের শিক্ষার্থীদের একাধিক কক্ষে বসিয়ে ক্লাস করানোর মতো পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই অনেক প্রতিষ্ঠানে। পাশাপাশি সংক্রমণ ঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সপ্তাহে একদিন ক্লাস করানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

‘রাজধানীর অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আসা মায়েরা জটলা পাঁকিয়ে আড্ডা দেন। সেগুলো নিয়ন্ত্রণ করা হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাতে তারা দূরত্ব বজায় রেখে বসেন, সেজন্য স্কুল-কলেজ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেওয়া হবে’- যোগ করেন শিক্ষামন্ত্রী।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রসঙ্গে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক আজ

মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণরোধে সরকারের দেয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি শেষ হচ্ছে ১১ সেপ্টেম্বর। এরই মধ্যে স্কুল কলেজ খোলার সিদ্ধান্ত নিতে পারে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

তবে আজকে শিক্ষামন্ত্রনালয় সংশ্লিদের আভ্যন্তরীণ বৈঠক রয়েছে। বৈঠকে দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় ও করোনা মোকাবেলায় সরকারের গঠিত পরামর্শক কমিটি মতামত নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, দ্রুত স্কুল খুলতে আজ রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এক সভায় বসতে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এরপর তা অনানুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে। বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সচিব, মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বিভিন্ন অধিদপ্তর ও বিভাগের প্রধানরা উপস্থিত থাকবেন। এছাড়াও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, করোনা মোকাবেলায় সরকার গঠিত জাতীয় পরামর্শক কমিটিসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর প্রধান উপস্থিত থাকবেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্টের কী হবে?

মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে র্দীঘ প্রায় দেড় বছর পর আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আগামী নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

শুক্রবার শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, ১২ সেপ্টেম্বর থেকে খুলে দিলেও শুরুতে একসঙ্গে সব শ্রেণির ক্লাস হবে না। ধাপে ধাপে বিভিন্ন শ্রেণির ক্লাস হবে। প্রথমে হয়তো চলতি বছরের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থী যারা এবং আগামী বছরের পরীক্ষার্থী- তারা প্রতিদিনই ক্লাস করবে।

অ্যাসাইনমেন্ট যে নেওয়া হচ্ছে, সেটার কী হবে? এ বিষয়ে শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরের দিকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক সাংবাদিকদের বলেছেন, শিক্ষার্থীদের যে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হয়েছিল এবং যে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেওয়া হয়েছে, সেগুলো নকল করে নাকি শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের মাধ্যমে করেছে, সেগুলো ভালো করে দেখার জন্য বলা হয়েছে।

ডিজি আরও বলেন, প্রতিটি বিদ্যালয় ক্লাস শুরু করার আগে যা যা করণীয় সে বিষয়গুলো মাথায় রেখে কাজ করার জন্য আগেই জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং শিক্ষকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। কাজেই আমরা আশা করি, বিদ্যালয় খুলে দিলে আমাদের কোনো সমস্যা হবে না। ইতোমধ্যেই আমরা সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।

অ্যাসাইনমেন্ট বিষয়ে গত ১৫ জুলাই সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছিলেন, অ্যাসাইনমেন্ট ঠিকঠাকভাবে করলে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা ভালো হবে। অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম শেষে নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসএসসি আর ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে। পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হলে সব বিষয়ের ফল দেওয়া হবে ‘সাবজেক্ট ম্যাপিং’-এর মাধ্যমে। আর পরীক্ষা নেওয়া গেলে নৈর্বাচনিক বাদে বাকি সব বিষয়ে গ্রেড দেওয়া হবে সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

১২ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদেরও টিকা দেওয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী

ডেস্ক,৩ সেপ্টেম্বর ২০২১:
১২ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদেরও টিকার আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, ‘বেশিরভাগ শিক্ষকই টিকা নিয়েছেন। এখন ১২ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদেরও টিকার আওতায় আনা হবে।’

শুক্রবার চাঁদপুর সদর উপজেলার মহামায়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

করোনার সংক্রমণ ১০ শতাংশের নিচে নামলে খুলবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ১০ শতাংশের নিচে নামলে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে আগামী ৫ সেপ্টেম্বর উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক ডাকা হয়েছে।

জানা গেছে, শিক্ষামন্ত্রীর সভাপত্বিতে সে বৈঠকে কবে থেকে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কবে থেকে খোলা হবে তা আগামী ৫ সেপ্টেম্বর (রোববার) আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। স্কুল-কলেজ খোলার পর কি কি করণীয় হবে সেসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা অনেক পিছিয়ে গেছে, সে ক্ষতি কিভাবে পুষিয়ে নেওয়া যায় সে সংক্রান্ত আমরা কিছু পরিকল্পনা তৈরি করেছি। বৈঠকে আমরা তা উপস্থাপন করবো। এসব পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে চূড়ান্ত করা হবে। এরপর সব সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

অক্টোবরে খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান!

নিজস্ব প্রতিবেদক,৩১ আগষ্ট ২০২১:

করোনাভাইরাস (কোভিড ১৯) প্রাদুর্ভাবের কারণে দীর্ঘ ১৮ মাস ধরে বন্ধ থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। আগামী অক্টোবর থেকে দেশের সব স্কুল-কলেজে সশরীরে পাঠদান শুরু হতে পারে। করোনা সংক্রমণের হার ১০ শতাংশের নিচে নামার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। জাতীয় পরামর্শক কমিটির সম্মতি পাওয়ায় দ্রুত এ বিষয়ে ঘোষণা দিতে চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিষয়টি চূড়ান্ত করতে আগামীকাল বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) উচ্চপর্যায়ে বৈঠক শেষে বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) ঘোষণা আসতে পারে। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এ কথা জানা গেছে।

করোনার কারণে বারবার বাড়ছিল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি। সেপ্টেম্বরের দিকে খুলে দেওয়ার আলাপ চলছিল। কিন্তু সংক্রমণের হার ১০ শতাংশের নিচে না নামায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আরেক দফা বাড়িয়ে আগামী ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ছুটি আরও ১৫ দিন বাড়তে পারে। ১৮ বছরের ওপরের সব শিক্ষার্থী ও শিক্ষক-কর্মচারীদের যদি আগামী অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে টিকাদান সম্পন্ন হয়, তাহলে প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার পক্ষে শিক্ষা সম্পর্কিত দুই মন্ত্রণালয়। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নির্ভর করছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির মতামতের ওপর।

আরো পড়ুনঃ শিক্ষকদের আগস্ট মাসের এমপিওর চেক ছাড়

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা অলস সময় পার করছে। তাদের মধ্যে অনেকে খারাপ কাজে যুক্ত হয়ে যাচ্ছে। কিশোর গ্যাং বাড়ছে, টিকটক, মাদকাসক্তিতে ঝুঁকছে। এতে করে সমাজে অপরাধ বাড়ছে। অনেক ছাত্রী বাল্যবিয়ের শিকার হয়ে শিক্ষাজীবন থেকে ঝরে পড়ছে। সমাজে অপরাধ ও শিক্ষায় ঝরে পড়ার হার বন্ধে দ্রুত সময়ের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে হবে

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললেও মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি। প্রতিদিন অনলাইনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো মনিটরিং করবে মন্ত্রণালয়। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুসারে ১২ বছর পর্যন্ত বয়সের শিক্ষার্থীদের ফেসশিল্ড ব্যবহার করতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময় থেকেই ধাপে ধাপে সশরীরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরুর নির্দেশনা দিয়েছেন। যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা শতভাগ টিকা নিয়েছেন কিংবা টিকাদান সম্পন্ন হবে তারা বিশ্ববিদ্যালয় খুলে পাঠদান শুরু করতে পারবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের কতজন টিকার আওতায় এসেছেন, কতজন পাননি, কাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই সে তালিকা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে দ্রুততার মধ্যে পাঠাতে বলা হয়েছে। যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি কার্ড) নেই, স্বল্প সময়ের মধ্যে তাদের এনআইডি কার্ড তৈরির চেষ্টা করা হবে। যদি তা সম্ভব না হয় তবে ভিন্ন পদ্ধতিতে টিকার আওতায় আনার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান  বলেন, পাবলিক-প্রাইভেট সব বিশ্ববিদ্যালয়ে টিকা সংক্রান্ত তথ্য পাঠাতে গত সোমবার (৩০ আগস্ট) চিঠি দেওয়া হয়েছে। সাত কার্যদিবসের মধ্যে এ তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে। এসব তথ্য একত্রিত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অতিরিক্ত সচিব বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আর বেশি দিন বন্ধ রাখার সুযোগ নেই। আগে সিদ্ধান্ত ছিল করোনা সংক্রমণ ৫ শতাংশে নামলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে। কোভিড-১৯ জাতীয় পরামর্শক কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বর্তমানে ১০ শতাংশের নিচে নামলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে। এ বিষয়ে চলতি সপ্তাহে কমিটির সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রীর বৈঠক হয়েছে। আগামী বুধবার এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে আন্তঃমন্ত্রণালয়, বিশেষজ্ঞ ও সংশ্লিষ্টদের নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

ওই অতিরিক্ত সচিব বলেন, অক্টোবর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার চিন্তা-ভাবনা নিয়ে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। নতুন করে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পাঠদানের উপযোগী করে তুলতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। শুরুতে চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের সপ্তাহে ছয়দিন এবং মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরে সপ্তাহে একদিন করে ক্লাস করানো হবে। একটি শ্রেণির শিক্ষার্থীদের তিনটি ক্লাসে ভাগ করে ক্লাস নেওয়া হবে।

আর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন জানিয়েছেন, প্রাথমিক স্তরের পঞ্চম ও চতুর্থ শ্রেণির সপ্তাহে ছয় দিন, অন্য স্তরে সপ্তাহে একদিন করে ক্লাস নেওয়া হবে।

বুধবার ফের আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা
সংক্রমণের হার কত শতাংশ হলে প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে এবং ১২ বছরের নিচের শিক্ষার্থীদের মাস্ক না ফেসশিল্ড পরবে- এই দুটি বিষয় চূড়ান্ত করতে আগামী বুধবার আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা বসবে। পরদিন বৃহস্পতিবার সরকারের সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হতে পারে।


Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter