Home » Tag Archives: মাধ্যমিক

Tag Archives: মাধ্যমিক

মাধ্যমিকে ভর্তির আবেদন শুরু,যেভাবে আবেদন করবেন

ডেস্ক,২৫ নভেম্বর ২০২১ঃ
আজ(২৫ নভেম্বর) থেকে ঢাকা মহানগরীসহ সারাদেশের সব সরকারি ও বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু হচ্ছে। সকাল ১১টা থেকে শুরু হয়ে ৮ ডিসেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে।

আরো পড়ুনঃ ‘সক্কাল সক্কাল… অর্গাজম’! চমকে দিলেন শ্রীলেখা

২০২২ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির আবেদন ফি ১১০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে, যা শুধুমাত্র টেলিটক প্রি-পেইড মোবাইল থেকে এসএমএসের মাধ্যমে দিতে হবে। এর আগে গত ১৬ নভেম্বর মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতর ভর্তি সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, এবারই প্রথম সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাশাপাশি বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতেও অনলাইনে আবেদন এবং কেন্দ্রীয় লটারি অনুষ্ঠিত হবে। তবে নতুন সরকারি হওয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রীয়ভাবে অংশ না নিয়ে উপজেলা কমিটির মাধ্যমে ভর্তির লটারি সম্পন্ন করতে পারবে।

সরকারি মাধ্যমিকে লটারি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৫ ডিসেম্বর এবং বেসরকারিতে লটারি হবে ১৯ ডিসেম্বর।

ঢাকা মহানগরীসহ সারাদেশের সব সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২০২২ শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তিতে বিদ্যালয় থেকে কোনও ভর্তি ফরম বিতরণ করা হবে না। ভর্তির আবেদন শুধুমাত্র অনলাইনে gsa.teletalk.com.bd-এই ঠিকানায় পাওয়া যাবে।

ঢাকা মহানগরীর ৪৪টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় (তিনটি ফিডার শাখাসহ) তিনটি ভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত থাকবে। আবেদনের সময় একজন প্রার্থী একই গ্রুপে পছন্দের ক্রমানুসারে সর্বাধিক পাঁচটি বিদ্যালয় নির্বাচন করতে পারবে।

এছাড়াও সারাদেশের আবেদনকারীরা আবেদনের সময় প্রতিষ্ঠান নির্বাচনকালে থানাভিত্তিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা পাবে। প্রার্থীরা প্রাপ্যতার ভিত্তিতে প্রতিটি আবেদনে সর্বোচ্চ পাঁচটি বিদ্যালয় পছন্দের ক্রমানুসারে নির্বাচন করতে পারবে।

ডাবল শিফটের প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে উভয় শিফট পছন্দ করলে দু’টি পছন্দক্রম সম্পন্ন হয়েছে বলে বিবেচিত হবে। একই পছন্দক্রমের বিদ্যালয় কিংবা শিফট দ্বিতীয় বার পছন্দ করা যাবে না।

২০২২ শিক্ষাবর্ষে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠেয় ডিজিটাল লটারি কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের বাইরের প্রতিষ্ঠানগুলোও স্ব স্ব ভর্তি কমিটির মাধ্যমে লটারি প্রক্রিয়ায় শিক্ষার্থী নির্বাচন সম্পন্ন করবে।

শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে স্ব স্ব ভর্তি কমিটির উপস্থিতিতে লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী নির্বাচন প্রক্রিয়া করা ছাড়া অন্য কোনও পরীক্ষা গ্রহণ করা যাবে না।

অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ ও ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত নিয়ম www.dshe.gov.bd এর secondary circularorder9 www.teletalk.com.bd ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

যেসব শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির নির্দেশ মাউশির

ডেস্ক,১২ নবেম্বর ২০২১ঃ
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) নির্দেশনা অনুযায়ী এমপিওভুক্ত হচ্ছেন ৭৭০জন ডিগ্রি তৃতীয় শিক্ষক। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন কলেজে গভর্নিং বডির মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া এসব শিক্ষককে এমপিওভুক্ত করার ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে অধিদপ্তর।

আরো খবরঃ কারা পাবেন শিক্ষা সহায়ক ভাতা ?

মঙ্গলবার সব আঞ্চলিক পরিচালকদের এই নির্দেশনা দিয়ে আদেশ জারি করা হয়। একইসঙ্গে এসব শিক্ষকের তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ডিগ্রি স্তরে নিয়োগ পাওয়া ৮৪১ জন তৃতীয় শিক্ষককে শর্তপূরণ সাপেক্ষে এমপিওভুক্ত করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অনুরোধ করা হয়েছিল। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা ও শর্তে বলা হয়েছিল,২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে নিয়োগ পাওয়াদের এমপিওভুক্ত করা হবে।

আদেশে আরও বলা হয়, ২০১০ সালের ৪ ফেব্রুয়ারির পর থেকে ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত গভর্নিং বডির মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া ৭৭০ জন ডিগ্রি পর্যায়ের তৃতীয় শিক্ষককে অনলাইনে এমপিও অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সব আঞ্চলিক পরিচালক অনুরোধ করা হলো।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মাধ্যমিক শুরু ৭ মার্চ, উচ্চমাধ্যমিক ২ এপ্রিল

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ঘোষণা হয়ে গেল ২০২২ সালের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের দিনক্ষণ।

আরো পড়ুন

এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের অক্টোবর মাসের বেতন ছাড়

আজ, সোমবার বিকালে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ীই একটি সাংবাদিক সম্মেলন করে পরীক্ষার নির্ঘণ্ট ঘোষণা করল মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। আগামী বছর মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হচ্ছে ৭ মার্চ।

আরো পড়ুনঃ প্রতিটি উপজেলায় তৈরি হবে মাল্টিমিডিয়া কনফারেন্স রুম

পাশাপাশি এবারের উচ্চমাধ্যমিক শুরু হবে ২ এপ্রিল। করোনা পরিস্থিতির কারণে এই প্রথম নিজের স্কুলেই পরীক্ষা দিতে পারবে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা। তবে মাধ্যমিকের ক্ষেত্রে সেই সুযোগ থাকছে না।

নির্ঘণ্ট অনুযায়ী মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু ৭ মার্চ। সেদিন নেওয়া হবে প্রথম ভাষার পরীক্ষা। এরপর ৮ মার্চ দ্বিতীয় ভাষার পরীক্ষা, ৯ মার্চ ভূগোল, ১১ মার্চ ইতিহাস, ১২ মার্চ জীবনবিজ্ঞান, ১৪ মার্চ অঙ্ক, ১৫ মার্চ ভৌতবিজ্ঞান। আগামী ১৬ মার্চ নেওয়া হবে ঐচ্ছিক বিষয়ের পরীক্ষা। কোভিড বিধি মেনে মাধ্যমিকের পরীক্ষাকেন্দ্র এবার আরও কিছু বাড়বে। তবে সবকিছুই নির্ভর করবে করোনা পরিস্থিতির ওপর। ডিসেম্বরের শেষদিকে টেস্ট পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা করা হতে পারে বলেও পর্ষদ সূত্রে জানানো হয়েছে। পরীক্ষা শুরু হবে সকাল ১১.৪৫ মিনিটে। চলবে বিকাল ৩টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত। প্রথম ১৫ মিনিট পরীক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্র পড়ার সময় দেওয়া হয়েছে বলে জানালেন পর্ষদ সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়।

অন্যদিকে, আগামী ২ এপ্রিল শুরু হচ্ছে উচ্চমাধ্যমিক। চলবে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা হবে সকাল ১০টা থেকে ১টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত। ওই দিনেই চলবে একাদশের পরীক্ষাও। তবে উচ্চমাধ্যমিক শেষ হলে দুপুর ২টো থেকে ৫টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে সেই পরীক্ষা। ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চের মধ্যে হবে প্র্যাকটিকাল পরীক্ষা। এবার সংসদ থেকে পরীক্ষাপত্র দেওয়া হবে না। উচ্চমাধ্যমিকের পড়ুয়ারা নিজ স্কুলেই বসে পরীক্ষা দিতে পারবেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

এইচএসসির ফরম পূরণ আবার শুরু

অনলাইন ডেস্ক, ২৩ অক্টোবর ২১
উচ্চমাধ্যমিক বা এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের জন্য আবার সুযোগ দিয়েছে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড। আগামীকাল রোববার থেকে শিক্ষার্থীরা ফরম পূরণ করতে পারবেন। ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা এ সুযোগ পাবেন। আর এসএমএস পাওয়া শিক্ষার্থীরা আগামী ২ নভেম্বর পর্যন্ত ফরম পূরণের ফি পরিশোধ করতে পারবেন। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণের জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে এসএমএস পাঠানোর সময় ২৪ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত এবং শিক্ষার্থীদের ফি পরিশোধের সময় ২ নভেম্বর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হলো। কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এ সময় শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণে ব্যর্থ হলে দায় প্রতিষ্ঠানপ্রধানকে বহন করতে হবে বলেও জানিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।

গত ১২ আগস্ট থেকে এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষার ফরম পূরণের কাজ শুরু হয়। ২৫ আগস্ট পর্যন্ত ফরম পূরণের সুযোগ দেওয়া হয়। পরে সময় বাড়িয়ে ৩১ আগস্ট করা হয়। ১৬ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের আবারও ফরম পূরণের সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। সে সময় আবার বাড়ানো হলো।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ভিন্ন নিয়মে হবে মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৪ অক্টোবর ২০২১ঃ
করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসায় মাধ্যমিকে (ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি) বার্ষিক পরীক্ষা এবং দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নির্বাচনী পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে সব বিষয়ে নয়, তিন বিষয়ে হবে এই পরীক্ষা। আগামী ২৪ নভেম্বর শুরু হয়ে এই পরীক্ষা শেষ করতে হবে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে।

এ বিষয়ে গতকাল বুধবার নির্দেশনা জারি করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। যে তিন বিষয়ে পরীক্ষা হবে, সেগুলো হলো বাংলা, ইংরেজি ও সাধারণ গণিত। পরীক্ষা হবে ৫০ নম্বরের। সময় থাকবে দেড় ঘণ্টা। যেসব অধ্যায় থেকে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হয়েছে, সেসব অধ্যায় এবং ১২ সেপ্টেম্বর থেকে যেসব অধ্যায়ের ওপর পাঠদান করানো হয়েছে, তা সিলেবাস হিসেবে বিবেচিত হবে।

আরো পড়ুনঃ বার্ষিক পরীক্ষা শুরু ২৪ নভেম্বর, পরীক্ষা তিন বিষয়ে

মাউশি বার্ষিক ও নির্বাচনী পরীক্ষার নম্বরবিন্যাসও করে দিয়েছে। এর মধ্যে বাংলা প্রথম পত্র ও দ্বিতীয় পত্রের ৫০ নম্বরের মধ্যে লিখিত অংশে ৩৫ এবং বহু নির্বাচনী প্রশ্নের (এমসিকিউ) অংশে ১৫ নম্বর হবে। ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রের ৫০ নম্বরের মধ্যে প্রথম পত্রের ৩০ এবং দ্বিতীয়পত্রের ২০ নম্বর। সাধারণ গণিতের ৫০ নম্বরের মধ্যে লিখিত অংশে ৩৫ নম্বর এবং বহু নির্বাচনী প্রশ্নের (এমসিকিউ) অংশের নম্বর হবে ১৫।

মাউশি জানিয়েছে, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর বার্ষিক পরীক্ষার নম্বরের সঙ্গে চলমান সব বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্টের ওপর ৪০ নম্বর যোগ করতে হবে। বার্ষিক পরীক্ষায় সপ্তম থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে পরিষ্কার–পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর আরও ১০ নম্বর যোগ করা হবে।

ষষ্ঠ শ্রেণির থেকে শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে পরিষ্কার–পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে অংশ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার সঙ্গে বৃক্ষরোপণ প্রকল্পে তাদের কর্মতৎপরতা যুক্ত করে এই ১০ নম্বর যোগ করা হবে।

অর্থাৎ মোট ১০০ নম্বরের (৫০ ‍+ ৪০ ‍+ ১০) ওপর প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে মূল্যায়ন করে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল তৈরি করে শিক্ষার্থীদের ‘প্রগ্রেসিভ রিপোর্ট’ দেওয়া হবে। ২০২১ শিক্ষাবর্ষে এ পরীক্ষা ছাড়া অন্য কোনো পরীক্ষা নেওয়া যাবে না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে বার্ষিক ও নির্বাচনী পরীক্ষা নিতে নির্দেশ দিয়েছে মাউশি।

করোনা মহামারির কারণে দেড় বছর বন্ধ থাকার পর গত ১২ সেপ্টেম্বর প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। এখন বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষা কর্মকর্তাদের জন্য নতুন নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ১৪ অক্টোবর, ২০২১
মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুলগুলো পরিদর্শনে মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাদের জন্য নতুন নির্দেশনা জারি করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। করোনার প্রকোপ কমে যাওয়ার পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সীমিত পরিসরে ক্লাস চলছে। চলছে অনলাইনেও ক্লাস। এ পরিস্থিতিতে বিদ্যালয় পরিদর্শনে কর্মকর্তাদের জন্য নতুন তথ্য ছক প্রকাশ করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। নতুন ছক অনুযায়ী স্কুল পরিদর্শণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) এ নির্দেশনা জারি করে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।

আরো খবরঃ বার্ষিক পরীক্ষা শুরু ২৪ নভেম্বর, পরীক্ষা তিন বিষয়ে

জানা গেছে, করোনার কারণে স্কুলগুলো বন্ধ থাকার সময় অনলাইনে শ্রেণি কার্যক্রম বাস্তবায়নে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের ‘বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ পরিবর্তিত পরিস্থিতে বিদ্যালয় সুপারভিশন তথ্যছক-‘ক’ অনুযায়ী বিদ্যালয় পরিদর্শন করেছেন মাঠপর্যায় শিক্ষা কর্মকর্তারা। বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ক্লাস শুরু হওয়ায় নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে স্কুল পরিদর্শনে নতুন এ তথ্য ছক করা হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

বার্ষিক পরীক্ষা শুরু ২৪ নভেম্বর, পরীক্ষা তিন বিষয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৩ অক্টোবর ২০২১ঃ
আগামী ২৪ নভেম্বর থেকে চলতি বছর ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হবে। তিন বিষয়ের ওপর এসব পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার (১৩ অক্টোবর) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

নির্দেশনা বলা হয়েছে, আগামী ২৪ নভেম্বর থেকে সব স্কুলে বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হবে। ৩০ নভেম্বরে মধ্যে সব স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষা ও ১০ শ্রেণির শিক্ষার্থী শিক্ষার্থীদের নির্বাচনী পরীক্ষা নেওয়া হবে। সব স্কুল কলেজেকে ২৪ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে বাংলা, ইংরেজি ও গণিত বিষয়ে বার্ষিক পরীক্ষা নিতে হবে।

আরো পড়ুনঃ  প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১৮ অক্টোবর যা চালু করতে হবে

বাংলা, ইংরেজি ও সাধারণ গণিত বিষয়ের পরীক্ষা নিতে হবে। পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের মান হবে ৫০ নম্বর। প্রতিটি বিষয়ের পরীক্ষা হবে দেড় ঘণ্টা। যেসব অধ্যায় থেকে বাংলা, গণিত ও সাধারণ গণিত বিষয়ে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হয়েছে সেসব অধ্যায় এবং ১২ সেপ্টেম্বর থেকে যেসব অধ্যায়ের ওপর পাঠদান করানো হয়েছে তা ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষার সিলেবাস হবে।

এতে বলা হয়, বাংলা ১ম ও ২য় পত্র বিষয়ের নম্বর হবে ৫০। এর মধ্যে লিখিত অংশে ৩৫ ও নৈর্বেত্তিক অংশে ১৫ নম্বর। ইংরেজি ১ম ও ২য় পত্র থেকে ৫০ নম্বরে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষায় প্রথম পত্র থেকে ৩০ নম্বরে ও ২য় পত্র থেকে ২০ নম্বরের প্রশ্ন থাকবে। সাধারণ গণিত পরীক্ষা হবে ৫০ নম্বরে। এর ৩৫ নম্বর থাকবে লিখিত অংশে ও নৈর্বেত্তিক অংশে থাকবে ১৫ নম্বর।

অধিদপ্তর আরও জানিয়েছে, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর বার্ষিক পরীক্ষার নম্বরের সাথে চলমান সব বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্টের ওপর ৪০ নম্বর যোগ করতে হবে। বার্ষিক পরীক্ষায় ৭ম থেকে দশম শ্রেলির শিক্ষার্থীদের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের অংশগ্রহণ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর আরও ১০ নম্বর যোগ করতে হবে।

অন্যদিকে ৬ষ্ঠ শ্রেণির থেকে শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে অংশ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার সঙ্গে বৃক্ষরোপন প্রকল্পে তাদের কর্মতৎপরতা যুক্ত করে এই ১০ নম্বর যোগ করতে হবে। তবে চলতি বছরে এ পরীক্ষা ছাড়া আর কোনো পরীক্ষা নেওয়া যাবে না বলে নির্দেশনায় জানানো হয়।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দেখে নিন এসএসসি পরীক্ষার রুটিন

সাধারণত প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি মাসে মাধ্যমিক (এসএসসি) পরীক্ষা শুরু হলেও এ বছর মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে এ পাবলিক পরীক্ষা নভেম্বর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে নেওয়ার ঘোষণা দেয় সরকার।

পরীক্ষার রুটিন-

১৪ নভেম্বর ২০২১ : পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়)
১৫ নভেম্বর ২০২১ : বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা ও হিসাববিজ্ঞান
১৬ নভেম্বর ২০২১ : রসায়ন (তত্ত্বীয়)
১৮ নভেম্বর ২০২১ : শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া (তত্ত্বীয়)
২১ নভেম্বর ২০২১ : ভূগোল ও পরিবেশ এবং ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং
২২ নভেম্বর ২০২১ : উচ্চতর গণিত (তত্ত্বীয়) ও জীব বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়)
২৩ নভেম্বর ২০২১ : পৌরনীতি ও নাগরিকতা, অর্থনীতি ও ব্যবসায় উদ্যোগ পরীক্ষা নেওয়া হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংক্ষিপ্ত নাম ব্যবহার যথাযথ নয়

ডেস্ক,২৮ সেপ্টেম্বরঃ
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংক্ষিপ্ত নাম ব্যবহার যথাযথ নয় বলে মন্তব্য করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর পূর্ণ নাম ব্যবহারের নির্দেশ দিয়ে আদেশ জারি করা হয়েছে।

আদেশে বলা হয়েছে, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দাপ্তরিক ও অন্যান্য প্রয়োজনে প্রতিষ্ঠানের পূর্ণ নাম ব্যবহার না করে সংক্ষিপ্ত নাম ব্যবহার করছে। এ ধরনের কার্যক্রম যথাযথ নয়।

আরো খবরঃ পরীক্ষা না হলেও সার্টিফিকেট পাবে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার্থীরা

অধিদপ্তর আরও বলছে, যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংক্ষিপ্ত নাম ব্যবহার করছে সেসব প্রতিষ্ঠানকে সব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের পূর্ণ নাম ব্যবহার করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক বলেন, কিছু কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুরো নাম ব্যবহার না করে সংক্ষিপ্ত নাম ব্যবহার করে দাপ্তরিক কাজ করে থাকে। এতে প্রশাসনিক জটিলতা তৈরি হয়। এ জন্যই সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে পুরো নাম ব্যবহারের জন্য বলা হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

অনুপস্থিত শিক্ষার্থী খুঁজতে বাড়িতে যাওয়ার নির্দেশ

ডেস্ক।।

স্কুল খুলেছে, কিন্তু ক্লাসে ফেরেনি অনেক শিক্ষার্থীই। ফলে এ নিয়ে খোদ সরকারের মধ্যেই তৈরি হয়েছে উদ্বেগ। টানা দেড় বছর বন্ধ থাকার পর গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে খুলেছে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অনুপস্থিত শিক্ষার্থী প্রাথমিক পর্যায়ে। আর এই হার কোনো কোনো ক্ষেত্রে ২০ থেকে ২৫ শতাংশেও পৌঁছেছে।

আরো পড়ুনঃ প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকরা পদোন্নতি পাবেন না?

সংখ্যার দিক দিয়ে প্রাথমিকের ক্লাসে অনুপস্থিত শিক্ষার্থী সাড়ে ৪৮ লাখ। সরকারের পক্ষ থেকে এই বিশাল অঙ্কের শিক্ষার্থীদের খুুঁজে বের করতে বা স্কুলে অনুপস্থিতির কারণ অনুসন্ধান করতে উদ্যোগ নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রয়োজনে বাড়ি বাড়ি গিয়ে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের বিষয়ে তথ্য জানাতে হবে। আর এই দায়িত্ব পালন করতে হবে স্বয়ং প্রাথমিকের শিক্ষকদেরই। সম্প্রতি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর এ বিষয়ে একটি নির্দেশনাও জারি করেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, করোনার দীর্ঘ ছুটির পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুললেও অনেক শিক্ষার্থী অনুপস্থিত। এ পরিস্থিতিতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগ করে তাদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে শিক্ষকদের। প্রয়োজনে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে বাড়ি-বাড়ি গিয়ে বা ফোন করে বা অন্য কোনো মাধ্যমে যোগাযোগ করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ গোপালঞ্জের ২ শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত

যদিও এর আগে প্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিন থেকেই প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের সব ক্লাসে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি মনিটরিং করতে পৃথক পৃথক টিম গঠন করা হয়। এই টিম শুরু থেকেই একটি ছকের মাধ্যমে জেলা ও উপজেলা শিক্ষা অফিসের মাধ্যমে সব স্কুলের শিক্ষার্থীদের ক্লাসে উপস্থিতি কত সেটা মনিটরিং করছে। সেখানে দেখা গেছে গ্রামের চেয়ে শহরের স্কুলগুলোতে শিক্ষার্থী উপস্থিতির সংখ্যা বেশি। আর গ্রামের অনেক শিক্ষার্থীর কোনো খোঁজই নেই। তারা স্কুলেও আসছে না, কোনো যোগাযোগও করছে না। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের দেয়া তথ্য মতেই গ্রামের শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতির হার ২০ থেকে ২৫ শতাংশ।

আরো পড়ুনঃ Motion-Graphics শিখুন

সূত্র আরো জানায়, দেড় বছর পর স্কুল খুললেও প্রাথমিক পর্যায়েই ক্লাসে ফেরেনি সাড়ে ৪৮ লাখের বেশি শিক্ষার্থী। ধারণা করা হচ্ছে, এসব শিক্ষার্থী হয়তো তাদের নিয়মিত ক্লাসে আর ফিরবেও না। অন্য দিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফেরার সময় এখনো শেষ হয়ে যায়নি। অনেক অভিভাবক এখনো করোনার ভয়ে তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠাচ্ছেন না। পরিস্থিতি আরো একটু স্বাভাবিক হলেই সব শিক্ষার্থীই ক্লাসে ফিরবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মাধ্যমিকে ২ হাজার ১৫৫ জন শিক্ষক নিয়োগ ডিসেম্বরে

ডেস্ক,২৩ সেপ্টেম্বরঃ
সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দুই হাজার ১৫৫ জন সহকারী শিক্ষক নিয়োগের পুলিশ ভেরিফিকেশন শেষ হয়েছে। সুপারিশপ্রাপ্তদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা চলছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষ হওয়া মাত্রই শিক্ষকদের যোগদান প্রক্রিয়া শুরু হবে। পুরো প্রক্রিয়া শেষ করতে এক/দুই মাস সময় লাগবে।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) মাধ্যমিকের সহকারী শিক্ষকদের নিয়োগ নিয়ে আলাপকালে এসব কথা জানান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ ইমামুল হক।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দেশের সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে দুই হাজার ১৫৫ জন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। ইতোমধ্যে নিয়োগের সব প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। এখন প্রার্থীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা চলছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষ হলেই সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) থেকে শিক্ষকদের যোগদান শুরু করানো হবে। নভেম্বর মাসের মধ্যেই এই প্রক্রিয়া শেষ করা হবে। এরপর ডিসেম্বর মাসে প্রার্থীদের যোগদান শুরু হবে।

Govt/Primary exclusive job course

তথ্যমতে, সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দিতে ২০১৮ সালে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। এক বছর পর ২০১৯ সালে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সেই বছরেরই ডিসেম্বর মাসে ২ হাজার ১৫৫ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করে পিএসসি। এরপর প্রার্থীদের পুলিশ ভেরিফিকেশন শুরু হয়। করোনার কারণে পুলিশ ভেরিফিকেশন কার্যক্রমে ধীরগতি আসলেও সেটি শেষ হয়েছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষ হলেই যোগদান করবেন শিক্ষকরা।

এ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ ইমামুল হক জানান, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের পুলিশ ভেরিফিকেশন শেষ হয়েছে। এখন স্বাস্থ্য পরীক্ষার কাজ চলছে। এই প্রক্রিয়া শেষ হতে সর্বোচ্চ দুই মাস সময় লাগবে। এরপর প্রার্থীরা যোগদান করতে পারবেন।

আরো খবরঃ আগামী সপ্তাহ থেকে প্রাথমিকের নতুন রুটিন



Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

আজ শিক্ষার্থীরা ফিরছে প্রিয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে র্দীঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর আজ থেকে খুলছে দেশের প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শুরু হচ্ছে পাঠদান। আবারও প্রাণচাঞ্চল্যে মুখর হবে স্কুল-কলেজ।

চলতি বছরের শুরুতে এসএসসি ও এইচএসসি এবং সমমানের পরীক্ষা আয়োজনের কথা থাকলেও এখনো তা সম্ভব হয়নি। এছাড়া অন্যান্য পাবলিক পরীক্ষারও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এসব বিষয় বিবেচনা করে আজ থেকে শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘দেশে করোনার সংক্রমণ দ্রুত কমে যাচ্ছে। জুলাই মাসের তুলনায় সংক্রমণ ৭০ শতাংশ কমেছে। ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হবে। প্রথমদিন চার-পাঁচ ঘণ্টা ক্লাস হবে। পর্যায়ক্রমে এ ক্লাসের সংখ্যা বাড়বে। শ্রেণিকক্ষে পাঠদানকালে শিক্ষার্থী-শিক্ষকসহ সবাইকে মাস্ক পরিধান করতে হবে।’

পরে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই) থেকে আলাদাভাবে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনাসহ বেশকিছু সতর্কতা ও সচেতনতামূলক নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মাস্ক ছাড়া বিদ্যালয়ে নয়, অ্যাসেম্বলি হবে না

ডেস্ত,৫ সেপ্টেম্বর ঃ
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, ‘আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল-কলেজ খোলার পর মাস্ক ছাড়া কেউ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করতে পারবে না। আর সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে স্কুল-কলেজে প্রাত্যহিক সমাবেশ বা অ্যাসেম্বলি আপাতত করা হবে না।’ তিনি বলেন, সকাল বেলা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যে সমাবেশ হয়, সেই সমাবেশটি আপাতত হবে না, যতক্ষণ না স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যেতে না পারি। কিন্তু শরীরচর্চা বা খেলাধুলা স্বল্প পরিসরে কম সংখ্যক শিক্ষার্থী নিয়ে শিক্ষকদের তত্ত্বাবধানে চালু রাখা হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যখন শিক্ষার্থীরা আসবে, যত ধরনের গাইডলাইন, স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর যা যা আমরা হালনাগাদ করেছি, সেগুলোর ভিত্তিতে শিক্ষক, ব্যবস্থাপনার সঙ্গে যারা জড়িত, তারা সবাই তা নিশ্চিত করবেন। প্রতিদিন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর তাপমাত্রা মাপা এবং তাদের অন্যান্য উপসর্গ আছে কিনা সেটি চেক করাতে হবে।’

আরো পড়ুনঃ কিভাবে খুলবে স্কুল কলেজ তার গাইডলাইন প্রকাশ

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ক্লাসরুমের মধ্যে যে বিষয়গুলো মানা দরকার— সকলের মাস্ক আছে কিনা? মাস্ক পরিধান করা ছাড়া কেউ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঢুকবে না। অভিভাবকদের একটা বড় ভূমিকা রয়েছে, তারা তাদের সন্তানদের মাস্কটি দিয়ে দেবেন। যেন শিক্ষার্থীরা মাস্কটি বাসা থেকেই পরে স্কুলে আসে। শিক্ষার্থীরা বাসায় ফিরে যাওয়া পর্যন্ত যেন মাস্ক পরে থাকে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অবশ্যই সকলের মাস্ক পরতে হবে। এর কোনও বিকল্প নেই। খুব ছোট বা কম বয়সী শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে শিক্ষকরা খেয়াল রাখবেন, যাতে কারও অসুবিধা হয় কিনা। কোনও শিক্ষার্থীর মাস্কের কারণে অসুবিধা হয় কিনা, সেই বিষয়গুলো শিক্ষকরা অবশ্যই দেখবেন।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘ভেতরে আসা-যাওয়ার জন্য সবাই যেন সারিবদ্ধভাবে ঢুকে তা নিশ্চিত করা হবে। হাত ধোয়া বা স্যানিটাইজ করার জন্য সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ব্যবস্থা করা আছে। শিক্ষক-অভিভাবকদের নিয়মিত যোগাযোগ রাখা হবে। কারও উপসর্গ থাকলে না আসাও নিশ্চিত করতে হবে।’

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

এসএসসি–এইচএসসি ও পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস প্রতিদিন

নিজস্ব প্রতিবেদক,৫ সেপ্টেম্বর ২০২১:
প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে ১২ সেপ্টেম্বর থেকে।
এসএসসি–এইচএসসি ও পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস প্রতিদিন নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষামন্ত্রী। তবে শুরুতে শুধু এ বছরের এবং আগামী বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের এবং প্রাথমিকের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন ক্লাস হবে। বাকিদের সপ্তাহে একদিন করে ক্লাস হবে।

আজ রোববার সচিবালয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে আন্তমন্ত্রণালয়ের সভা শেষে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।
করোনার কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ছুটি চলছে। সরকারের সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছুটি আছে।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, এ বছরের এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ক্লাস হয়তো কিছুদিন পরেই শেষ হয়ে যাবে। এরপর নবম এবং একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদেরও প্রতিদিন ক্লাস হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষার্থীদের হতাশা কাটাতে চলমান ছুটি আর না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত

ডেস্ক,৩ সেপ্টেম্বর ২০২১:
শিক্ষার্থীদের হতাশা কাটাতে চলমান ছুটি আর না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
একটি বেসরকারি টেলিভিশন একাত্তরের টকশো একাত্তর জার্নালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এ তথ্য জানান।

আরো পড়ুনঃ ১২ সেপ্টেম্বর খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: শিক্ষামন্ত্রী

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের হার ধীরে ধীরে কমে আসায় আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলতে সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে কথা বলার পর, এর রোডম্যাপ নিয়ে জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, সবকিছু ঠিক থাকলে ১২ সেপ্টেম্বর থেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter