Home » খেলাধুলা

খেলাধুলা

এইচপি ক্যাম্পে ডাক পেলেন ২৭ ক্রিকেটার

ক্রীড়া প্রতিবেদক,১০ মে ২২ :
হাই-পারফরম্যান্স ক্যাম্পের জন্য লম্বা এক স্কোয়ার্ড এবং অনুশীলন ক্যাম্পের সূচি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ওই ক্যাম্পের দলে ডাক পেয়েছেন ২৭ ক্রিকেটার। আগামী ১৪ মে কক্সবাজারে শুরু হবে অনুশীলন ক্যাম্প।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী, সর্বশেষ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে খেলা এবং জাতীয় দলের কোচ-নির্বাচকদের নজরে থাকা ক্রিকেটাররা ওই ক্যাম্পের দলে ডাক পেয়েছেন। ডাক পাওয়া ক্রিকেটারদের ১৪ মে কক্সবাজারে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। ১৫ থেকে ১ জুন পর্যন্ত কক্সবাজারে হবে ফিটনেস ও বোলিং অনুশীলন।

আরো পড়ুনঃ বিশ্বজয়ীদের বিরুদ্ধে খেলে টি২০ বিশ্বকাপের প্রস্তুতি সারবেন রোহিতরা

এরপর সিলেটে ২ জুন থেকে ৬ জুন পর্যন্ত হবে স্কিল ট্রেনিং ক্যাম্প। চট্টগ্রাম ও ঢাকায় ভাগ করে ১৬ জুলাই থেকে ৯ সেপ্টেম্বর হবে স্কিল ক্যাম্প এবং অনুশীলন ম্যাচ। সব মিলিয়ে প্রায় ৪ মাস এইচপি ক্যাম্প করবেন আকবর আলী, সুমন খান, তানজিম সাকিবরা।

এইচপি দল:

ব্যাটার: তানজিদ তামিম, পারভেজ ইমন, শামীম পাটোয়ারি, শাহাদাত হোসাইন, সাব্বির হোসাইন শিকদার, তৌহিদ হৃদয়, অমিত হাসান, আইচ মোল্লা।

পেসার: শফিকুল ইসলাম, মুকিদুল ইসলাম, তানজিম সাকিব, আনামুল হক জুনিয়র, সুমন খান, একেএস স্বাধীন, রেজাউর রহমান রাজা, রিপন মণ্ডল, আসাদুজ্জামান পায়েল, মহিউদ্দিন তারেক, মোহাম্মদ মুশফিক হাসান, সোহেল রানা, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, আশিকুর জামান।

স্পিনার: রাকিবুল হাসান, হাসান মুরাদ, রিশাদ হাসান, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব।

উইকেটরক্ষক: আকবর আলী।

বিশ্বজয়ীদের বিরুদ্ধে খেলে টি২০ বিশ্বকাপের প্রস্তুতি সারবেন রোহিতরা

নিজস্ব প্রতিবেদন,কলকাতা ১০ মে ২০২২:
বিশ্বকাপের আগে ভারতীয় দলের সূচিতেও রয়েছে বেশ কিছু টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। জুনে দক্ষিণ আফ্রিকা আসবে ভারত সফরে। দু’দেশের মধ্যে হবে পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। তার পর আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে দু’টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবেন রোহিত শর্মারা। ইংল্যান্ড সফরে গত বছর করোনার জন্য না হওয়া পঞ্চম টেস্ট ছাড়াও তিনটি করে এক দিনের এবং টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে ভারত।
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগেই বাইশ গজে মুখোমুখি হবে ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া। আগামী সেপ্টেম্বরে তিন ম্যাচের টি টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে ভারতে আসবেন অ্যারন ফিঞ্চরা।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্য তিন ম্যাচের সিরিজ খেলবে দুই দল। রোহিত শর্মারা ঘরের মাঠেই মুখোমুখি হবেন কুড়ি ওভারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেতাব ধরে রাখতে মরিয়া অস্ট্রেলিয়া। তাই প্রস্তুতিতে অতিরিক্ত নজর দিচ্ছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। নেটে অনুশীলন ছাড়াও ক্রিকেটারদের খেলার মধ্যে রাখতে চাইছেন কর্তারা। যাতে বিশ্বকাপের আগেই পর্যাপ্ত পরীক্ষা নিরীক্ষা সেরে নেওয়া যায়।

বিশ্বকাপের আগে ভারতীয় দলের সূচিতেও রয়েছে বেশ কিছু টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। জুনে দক্ষিণ আফ্রিকা আসবে ভারত সফরে। দু’দেশের মধ্যে হবে পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। তার পর আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে দু’টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবেন রোহিত শর্মারা। ইংল্যান্ড সফরে গত বছর করোনার জন্য না হওয়া পঞ্চম টেস্ট ছাড়াও তিনটি করে এক দিনের এবং টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে ভারত।
ভারত সফর ছাড়া ঘরের মাঠেও একগুচ্ছ সিরিজ খেলবে অজিরা। জিম্বাবোয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সীমিত ওভারের ক্রিকেট সিরিজ খেলবে অস্ট্রেলিয়া। অক্টোবর-নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়াতেই বসবে এ বারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর।

সুত্র: আনন্দবাজার

অধিনায়কত্ব পেলেন ধোনি

ডেস্ক : ০১ মে ২০২২ :
আবারও অধিনায়কের দায়িত্ব পেলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। তবে জাতীয় দলের নয়। পেয়েছেন আইপিএল-এর দল চেন্নাই সুপার কিংসের অধিনায়কত্ব।

আইপিএল-এর পঞ্চদশ আসরের শুরুতেই চেন্নাইয়ের অধিনায়কত্ব ছাড়েন ধোনি। তার জায়গায় দায়িত্ব গ্রহণ করেন রবীন্দ্র জাদেজা। কিন্তু জাদেজার নেতৃত্বে এখন পর্যন্ত ৮ ম্যাচে মাত্র ২টিতে জিতেছে চেন্নাই।

দলের এমন বাজে অবস্থায় চলমান আইপিএলের মাঝপথেই দায়িত্ব ছেড়ে দেন জাদেজা। এমনটাই জানিয়েছে চেন্নাই কর্তৃপক্ষ।

চেন্নাই কর্তৃপক্ষ জানায়, নিজের খেলায় মনোনিবেশ করতেই অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রবীন্দ্র জাদেজা। সেইসঙ্গে ধোনিকে চেন্নাইয়ে অধিনায়ক হবার জন্য অনুরোধ করেছেন জাদেজা।

২০০৮ সালে আইপিএলের প্রথম আসর থেকেই চেন্নাইয়ের অধিনায়কের দায়িত্বে ছিলেন ধোনি। গত আসর পর্যন্ত দলের দায়িত্ব পালন করেন ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক। তার অধীনে চারবার আইপিএলের শিরোপা জিতেছে চেন্নাই।

লিটনের আশঙ্কাই সত্যি হলো!

নিজস্ব প্রতিবেদক,২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২ঃ
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে আফগানিস্তানের বিপক্ষে তৃতীয় ম্যাচে লিটন দাসের আশঙ্কাই সত্যি হলো! দ্বিতীয় ম্যাচে লিটনের দারুণ এক সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের সিরিজ নিশ্চিত হয়েছিল। অমন সেঞ্চুরির দিনে লিটনের উপলব্দি ছিল, দলের কাছে তার উইকেটের মূল্য আছে, ‘ডাউন দ্য উইকেটে গিয়ে মারতে পারতাম। কিন্তু খুব ঝুঁকিপূর্ণ হতো সেটা। আমার উইকেট যাওয়া মানে তো দলের ওপর চাপ পড়া। বুঝতে পেরেছি আমার উইকেটের একটা মূল্য আছে।’

সত্যিই মূল্য আছে লিটনের উইকেটের! নয়তো তৃতীয় ম্যাচে লিটন আউট হতেই কেন হুড়মুড় করে ভেঙে পড়বে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। ৮৬ রানের ইনিংস খেলা লিটন মাঠের চারদিকে দুর্দান্ত সব গ্রাউন্ডস শটে রানের চাকা বাড়াচ্ছিলেন। কিন্তু ৩৬তম ওভারের শেষ বলে লং অনে উড়িয়ে মারতে গিয়ে গুলবাদিনের তালুবন্দি হন।

লিটন আউট হতেই যেন স্বপ্ন নিভে গেলো বাংলাদেশের! আগের ম্যাচে উইকেটের মূল্য চুকাতে পারলেও তৃতীয় ম্যাচে পারেননি লিটন! দলীয় ১৫৩ রানে তার আউট হওয়ার পর বাংলাদেশ বাকি ৫ উইকেট হারায় ৩৯ রানে। ১৯২ রানের মধ্যে লিটনের একার রানই ৮৬। বাকি ব্যাটারদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রান আসে সাকিব (৩০) ও মাহমুদউল্লাহ (২৯) ব্যাট থেকে। অধিনায়ক তামিম আগের দুই ম্যাচের মতো শেষ ম্যাচেও ফজলে হক ফারুকীর শিকার। আফগানিস্তানের বোলারদের সামনে খেই হারানো বাংলাদেশে ৪৬.৫ ওভারে ১৯২ রান করতে পারে।

ব্যাটিং উইকেটে সহজ এই লক্ষ্যে খেলতে নেমে আফগানিস্তানের দুই ওপেনার শুরু থেকে চড়াও হয়। বাংলাদেশের কোনও বোলার সফরকারী ব্যাটারদের আটকে রাখতে পারেননি। বোলারদের পাশাপাশি ফিল্ডারদের পিচ্ছিল হাতও ‘গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা’ রেখেছে আফগানদের রান উৎসবে মাততে। দলীয় ৭৯ রানে রিয়াজ আহমেদ আউট হলে উদ্বোধনী জুটি ভাঙে সফরকারীদের। এরপর রহমতউল্লাহ গুলবাজ ও রহমত শাহ মিলে ১০০ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশের কাছ থেকে ম্যাচটি ছিনিয়ে নেন। রহমত শাহ ৬৭ বলে ৪৭ রান করে আউট হন। গুরবাজ পান সেঞ্চুরির দেখা। ১১০ বলে ৭ চার ও ৪ ছক্কায় ১০৬ রানে অপরাজিত থাকেন। বাংলাদেশের বিপক্ষে কোনও আফগানিস্তান ব্যাটারের এটাই প্রথম সেঞ্চুরি।

টানা দুই ম্যাচ জেতা বাংলাদেশের সামনে সুযোগ ছিল আফগানিস্তানকে আরও একবার হারিয়ে প্রথমবারের মতো র‌্যাঙ্কিংয়ের ছয় নম্বরে ওঠার। কিন্তু পারেনি তামিম ইকবালের দল। উল্টো দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগে আফগানদের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণ করে ছন্দ হারালো লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। অন্যদিকে ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং তিন বিভাগে দুর্দান্ত পারফর্ম করে ৫৯ বল আগে ৭ উইকেটের জয়ে স্বাগতিকদের কঠিন বার্তা দিয়ে রাখলো আফগানিস্তান!

এমনিতেই কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে দারুণ দল আফগানিস্তান। মিরপুরের দুই ম্যাচে তাই বড় চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের সামনে। টি-টোয়েন্টিতে দুই দল এখন অব্দি সাতবার মুখোমুখি হয়েছে। এরমধ্যে চারবারই জিতেছে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ জিতেছে দুটিতে। বাকি একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি পারফরম্যান্স ভীষণ হতাশাজনক। সংযুক্ত আরব আমিরাতের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে হতাশাজনক পারফরম্যান্স করেছে। আইসিসির সহযোগী সদস্য স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হেরেছে। কোনোরকমে সুপার টুয়েলভে উঠলেও ম্যাচ জিততে পারেনি মাহমুদউল্লাহর দল।

বিশ্বকাপ থেকে ফিরে পাকিস্তানের বিপক্ষেও একই পরিণতি বাংলাদেশের। মাহমুদউল্লাহদের সামনে এবার আফগানিস্তান, যারা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের চেয়ে এক ধাপ ওপরে। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে কঠিন বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে কঠিন পরিস্থিতিতে পড়া বাংলাদেশ দল ছোট সংস্করণে কেমন করে, সেটিই দেখার!

শ্রীলঙ্কা সিরিজে সুযোগ পাওয়া সৌরভ কুমারকে চিনে নিন

অনেকেই খেয়াল করেননি যে দলে সুযোগ পেয়েছেন সম্পূর্ণ অখ্যাত এক ক্রিকেটার। তিনি সৌরভ কুমার।
ডেস্ক,১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২:
শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে চেতেশ্বর পুজারা, অজিঙ্ক রহাণে, ঋদ্ধিমান সাহার বাদ পড়া নিয়ে ভারতীয় ক্রিকেট উত্তাল। অনেকেই খেয়াল করেননি যে দলে সুযোগ পেয়েছেন সম্পূর্ণ অখ্যাত এক ক্রিকেটার। তিনি সৌরভ কুমার। অনামী হলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে সাম্প্রতিক কালে যথেষ্ট দাপুটে পারফরম্যান্স রয়েছে সৌরভের। আইপিএল-এ একটি দলের সদস্যও ছিলেন।

এখনও পর্যন্ত প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৪৬টি ম্যাচ খেলে ১৯৬টি উইকেট পেয়েছেন সৌরভ। গড় ২৩.৪৪। ক্রিকেটজীবনে ১৬ বার ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন, যার মধ্যে ১২টি এসেছে গত দুই মরসুমে। ম্যাচে ১০ উইকেট রয়েছে ছয় বার। ২০১৮-১৯ রঞ্জি মরসুমে ১০ ম্যাচে ৫১টি উইকেট নেন সৌরভ। পাঁচ উইকেট নেন পাঁচ বার। ২০১৮-র ডিসেম্বরে হরিয়ানার বিরুদ্ধে একটি ম্যাচে দুর্দান্ত খেলেন তিনি। ৬৫ রানে ১৪টি উইকেট নেন। উত্তরপ্রদেশের কোনও বোলারের এটাই দ্বিতীয় সেরা বোলিং পারফরম্যান্স। এক মরসুমে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারের তালিকায় তাঁর ৫১ উইকেট ছিল পঞ্চম স্থানে।

তার আগেই দলীপ ট্রফিতে তিন ম্যাচে ১৯ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক হন। পরের মরসুমেও রঞ্জিতে দুর্দান্ত ছন্দে ছিলেন সৌরভ। মোট ৪৪টি উইকেট নেন। স্পিনার হিসেবে খ্যাতি অর্জন করলেও ব্যাটার হিসেবে কম যান না সৌরভ। সাধারণত উত্তরপ্রদেশের হয়ে নীচের দিকে ব্যাটিং করেন। ইতিমধ্যেই তাঁর নামের পাশে দু’টি শতরান রয়েছে। তার মধ্যে একটি শতরান করার সময় কুলদীপ যাদবের সঙ্গে ১৯২ রানের জুটি গড়েছিলেন। সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে ভারত ‘এ’ দলের হয়ে খেলেছেন। দু’টি ম্যাচে ৪ উইকেট নিয়েছেন।
উল্লেখ্য, কুলদীপের সঙ্গে সৌরভের সম্পর্ক খুবই ভাল। গত মরসুমে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নেট বোলার হিসেবে নেওয়া হয়েছিল তাঁকে। এক সাক্ষাৎকারে সৌরভ জানিয়েছিলেন, কুলদীপ তাঁকে নিয়মিত বোলিংয়ের ব্যাপারে পরামর্শ দিয়ে থাকেন। শুধু তাই নয়, জাতীয় দলের প্রাক্তন ক্রিকেটার সুরেশ রায়নার অধীনেও উত্তরপ্রদেশের হয়ে খেলেছেন সৌরভ। ২০১৭ সালের আইপিএলে রাইজিং পুণে সুপারজায়ান্ট দলের সদস্য ছিলেন তিনি। ফলে কাছ থেকে দেখেছেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি এবং স্টিভ স্মিথের মতো ক্রিকেটারকে।

Virat Kohli: ইডেনে তৃতীয় ম্যাচের আগেই বাড়ি ফিরলেন কোহলী, পন্থ, অনিশ্চিত শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধেও

সিরিজ জেতা হয়ে গিয়েছে। তৃতীয় ম্যাচ নিয়মরক্ষার। তাই বিসিসিআই-এর কাছে নাকি ছুটি চেয়েছিলেন বিরাট কোহলী ও ঋষভ পন্থ। সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, ছুটি পেয়েছেন তাঁরা। ইডেনে রবিবার তৃতীয় টি২০ ম্যাচের আগেই বাড়ি ফিরলেন ভারতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক ও বর্তমান উইকেটরক্ষক।

জানা গিয়েছে, কোহলী ও পন্থকে ১০ দিনের ছুটি দিয়েছে বোর্ড। তার পরেই ফের জৈবদুর্গের মধ্যে ঢুকে পড়তে হবে তাঁকে। শুক্রবার আনন্দবাজার অনলাইন জানিয়েছিল, ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে যে টি২০ সিরিজ শুরু হতে চলেছে তাতে সম্ভবত খেলবেন না কোহলী। তিনি বাড়ি ফিরে যাওয়ার পরে সেই সম্ভাবনা আরও বাড়ল। সম্ভবত ৪ মার্চ থেকে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ফের দলে ফিরবেন কোহলী ও পন্থ।
বিসিসিআই-এর এক কর্তা পিটিআই-কে জানিয়েছেন, যেহেতু সিরিজ জেতা হয়ে গিয়েছে তাই দুই ক্রিকেটারকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। জৈবদুর্গের মধ্যে থাকার চাপ সামলানো ও সেই সঙ্গে ক্রিকেটারদের শারীরিক ও মানসিক ভাবে চাঙ্গা রাখার জন্য ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সবাইকে বিশ্রাম দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে বোর্ড।

ডিসেম্বর মাসে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে দলের সঙ্গে রয়েছেন কোহলী। অন্য দিকে তিন ফরম্যাটে টানা খেলছেন পন্থও। শুক্রবার দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতকে বড় রানে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা নেন দু’জনে। কোহলী ও পন্থ দু’জনেই অর্ধশতরান করেন। শেষ পর্যন্ত ৮ রানে ম্যাচ জেতে ভারত। ম্যাচের সেরা হন পন্থ।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের বাংলাদেশ দল ঘোষণা

ক্রীড়া প্রতিবেদক, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ঃ

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের জন্য বাংলাদেশ দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। প্রথমবারের মতো ওয়ানডে দলে আছেন ইবাদত হোসেন, নাসুম আহমেদ ও মাহমুদুল হাসান।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের সব ম্যাচই হবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। প্রথম ওয়ানডে ২৩ ফেব্রুয়ারি।

এই সিরিজের জন্য বাংলাদেশের ওয়ানডে দলে ডাক পেয়েছেন অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা চার ক্রিকেটার—ব্যাটসম্যান মাহমুদুল হাসান ও ইয়াসির আলী, স্পিনার নাসুম আহমেদ ও পেসার ইবাদত হোসেন। মাহমুদুল, ইয়াসির ও ইবাদতের টেস্ট অভিষেক হলেও সীমিত ওভারের ক্রিকেটে তাঁরা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেননি। নাসুম খেলেছেন শুধু আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি।

র্বশেষ গত বছর অনুষ্ঠিত জিম্বাবুয়ের বিপক্ষের ওয়ানডে সিরিজের দল থেকে বাদ পড়েছেন ছয় ক্রিকেটার—মোহাম্মদ মিঠুন, মোহাম্মদ নাঈম, মোসাদ্দেক হোসেন, নুরুল হাসান, রুবেল হোসেন ও তাইজুল ইসলাম। চোটের কারণে দলে নেই মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

এবার আফগানিস্তান সিরিজে মাহমুদুল, ইয়াসির, নাসুম, ইবাদত ছাড়াও দলে ঢুকেছেন নাজমুল হোসেন। আজ তিন ম্যাচ সিরিজের জন্য তামিম ইকবালকে অধিনায়ক করে ১৫ জনের দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। চোটের কারণে বিপিএলে শুরুর দিকে ছিটকে পড়া পেসার তাসকিন আহমেদকে রাখা হয়েছে দলে।
গত বছর জুলাইয়ে জিম্বাবুয়ের মাটিতে সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ। সেবার পারিবারিক কারণে ওয়ানডে না খেলেই দেশে ফিরেছিলেন মুশফিকুর রহিম। আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে দলে আছেন তিনি।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে মুশফিকসহ ছিলেন ১৭ জন। এবার ১৫ জন নিয়ে দল গড়া হয়েছে।

২৩ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ। পরের দুটি ম্যাচ হবে ২৫ ও ২৮ ফেব্রুয়ারি। সব কটি ম্যাচই হবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। এ সিরিজটি বিশ্বকাপ সুপার লিগের অন্তর্ভুক্ত।

ওয়ানডে সিরিজের পর বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান ২ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজও খেলবে, সে ম্যাচগুলো হবে মিরপুরের শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে।

বাংলাদেশের ওয়ানডে দল:

তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, নাজমুল হোসেন, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ, শরীফুল ইসলাম, ইবাদত হোসেন, নাসুম আহমেদ, ইয়াসির আলী, মাহমুদুল হাসান।

ইতিহাস গড়ে টাইগারদের বছর শুরু

স্পোর্টস ডেস্ক, ০৫ জানুয়ারি ২০২২:

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে এর আগে কোনো ফরম্যাটেই স্বাগতিকদের হারাতে পারেনি বাংলাদেশ। আর টেস্টে তো এশিয়ার দল হিসেবে নিউজিল্যান্ডকে তাদের মাটিতে শেষবার হারিয়েছে ১১ বছর আগে। ২০১১ সালের জানুয়ারিতে হ্যামিল্টনে টেস্ট জিতেছিল পাকিস্তান।

তারপর যেন এশীয়দের কাছে হারতে ভুলে গেছিলো কিউয়িরা। পরিসংখ্যান যাই হোক এবার তাদের মাটিতে নামিয়েই ছাড়লেন টাইগাররা। নিউজিল্যান্ডকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ইতিহাসের পাতায় নাম লেখানোর পাশাপাশি জয় দিয়েই বছর শুরু করলো টিম বাংলাদেশ।

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্টে টসে জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেয় টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল হক। ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ড ১ম ইনিংসে গুটিয়ে যায় ৩২৮ রানে। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১২২ রান করেন টপ অর্ডার ব্যাটার ডেভন কমওয়ে। এছাড়া ওপেনার ইয়ং ৫২ ও মিডল অর্ডার ব্যাটার হেনরি নিকলস করেন ৭৫ রান। বোলিংয়ে বাংলাদেশের পক্ষে শরিফুল-মিরাজ নেন ৩টি করে উইকেট। এছাড়া অধিনায়ক মুমিনুল ২টি আর পেসার এবাদতের শিকার ১টি উইকেট।

প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে টপ ও মিডল অর্ডারের ব্যাটিং দৃঢ়তায় ১৩০ রানের লিড পায় বাংলাদেশ। শতকের দেখা না পেলেও চার অর্ধশতকে সুবিধাজনক অবস্থানে থেকেই দল পায় জয়ের সুবাতাস। অধিনায়ক মুমিনুল (৮৮), লিটন দাস (৮৬), শান্ত (৬৪) আর ওপেনার জয়ের ব্যাট থেকে আসে মূল্যবান ৭৮ রান।

এরপর পিছয়ে পড়া স্বাগতিকরা ২য় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেই টাইগার দুই পেসার তাসকিন-এবাদতের বোলিং তোপে চতুর্থ দিন শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৭ রানের লিড পায়। এরপর পঞ্চম দিনের শুরুতেই আবারও পেসারদের ঝলকে মাত্র ৩৯ রানের লিড পায় নিউজিল্যান্ড। আর এই রান তাড়া করতে নেমে দুই উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় টাইগাররা।

এই জয়ে দুই ম্যাচ সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর দল। সিরিজের ২য় ও শেষ টেস্ট আগামী আগামী ৯ জানুয়ারি ক্রাইসচার্চে।

পারিবারিক কারণে’ পদ ছাড়ছেন আকরাম খান

ডেস্ক,২১ ডিসেম্বর ২০২১ঃ
হঠাৎ করেই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) গুরুত্বপূর্ণ পদ ক্রিকেট অপারেশন্সের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন আকরাম খান। শুরুতে এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য না করলেও পারিবারিক কারণেই পদত্যাগ করছেন বলে জানিয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক।
আজ মঙ্গলবার আকরাম খান জানান, পারিবারিক কারণেই ক্রিকেট বোর্ডের পদ ছাড়ার পরিকল্পনা তার। বোর্ড সভাপতির সঙ্গে কথা বলে তিনি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান।

আরো পড়ুনঃ

সাংবাদিকদের আকরাম খান বলেন, ‘হ্যাঁ, পারিবারিক কারণেই সরে যাচ্ছি। যেহেতু আমি এখানে অনেক বছর ছিলাম। এখানে মানসিক ও শারীরিক শক্তির দরকার হয়। সব মিলিয়েই এই বিরতির সিদ্ধান্ত। পাপন ভাইয়ের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেব, এখন আমি এ নিয়ে কিছুই বলতে চাই না। উনার পরামর্শই আমি অনুসরণ করব। ‘

তিনি আরো বলেন, ‘যেহেতু আমি আট বছর ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগে ছিলাম, তো এটা নিয়ে আমাদের মাননীয় বোর্ড প্রেসিডেন্ট আমার যে অভিভাবক, গত আট বছরে উনার থেকে সবচেয়ে বেশি সাহায্য পেয়েছি কাজের জন্য। তো উনার সঙ্গে আলাপ করে হয়তো কালকের মধ্যে আমার সিদ্ধান্তটা জানিয়ে দেব। উনার কনসার্ন ছাড়া আমি আপনাদের কিছু বলতে পারব না। ৩টার দিকে আজ কল করেছিলাম, রিপ্লাই দেননি। হয়তো যেকোনো সময় কল ব্যাক করবেন। কল করলে উনার সঙ্গে আলাপ করে নেব। ‘

এর আগে সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বিকেলে আকরামের স্ত্রী সাবিনা আকরাম ফেসবুক পোস্ট দিয়ে এই খবরটি জানিয়েছেন। সাবিনা তার পোস্টে লিখেছেন, ‘ক্রিকেট অপারেশন্স ছেড়ে দিচ্ছে আকরাম খান। ’

সাবিনা আকরামের এই পোস্ট ঝড়ের বেগে সোশ্যাল সাইটে ছড়িয়ে পড়ে। সাথে সাথেই নিজের ফোন বন্ধ করে দেন আকরাম খান। যে কারণে ফোন করে তাঁর প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। এদিকে বিসিবির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, আকরামকে আসলে ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যানের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফিজয়ী অধিনায়ক আকরাম খান ২০১৪ সালে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক নির্বাচিত হয়েছিলেন। এরপর থেকেই তিনি ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। আগামী সপ্তাহে বিসিবির প্রথম বোর্ড সভায় ক্রিকেট অপারেশন্সের নতুন চেয়ারম্যানের নাম ঘোষণা হতে পারে।

আকরাম খানের ফোন বন্ধ থাকলেও সাবিনা আকরাম গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘এটা আমাদের পারিবারিক সিদ্ধান্ত। ক্রিকেট নিয়ে জীবনের বড় একটা সময় পড়ে থাকল আকরাম। আমরা চাই এখন সে ক্রিকেটের পাশাপাশি স্ত্রী-কন্যা তথা পরিবারকে আরও সময় দিক। দ্রুতই সে নিজ মুখে মিডিয়াকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই সিদ্ধান্ত জানাবে। ‘

সৌরভকে ‘মিথ্যাবাদী’ প্রমাণ করলেন কোহলি!

খেলাধুলা ডেস্ক,১৫ ডিসেম্বর ২০২১ঃ
অধিনায়ক ইস্যুতে গরম ভারতের ক্রিকেট। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের পর ওয়ানডে অধিনায়ক থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে দেশটির ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। অধিনায়কত্ব হারানোর পর দক্ষিন আফ্রিকা সিরিজ থেকেও সরে দাড়ানোর গুঞ্জন উঠে কোহলিকে ঘিরে। গুঞ্জন বিতর্কের মধ্যেই সাংবাদিকদের সামনে প্রথমবারের মতো মুখ খুলেছেন কোহলি। সকল গুঞ্জন ও গুজবের বিরুদ্ধে দিয়েছেন কড়া জবাব।

কোহলির তোপে পড়েছেন বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলীও। ভারতীয় টেস্ট দলের এই অধিনায়ক যা বলেছেন তাতে রীতিমতো ‘মিধ্যাবাদী’ প্রমাণিত হয়েছেন সৌরভ। কি বলেছেন বিরাট?

মুলত, বিরাটের টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব ছাড়ার প্রসঙ্গে বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী জানিয়েছিলেন, তিনি কোহলিকে অনুরোধ করেছিলেন টি-টোয়েন্টিতে নেতৃত্ব না ছাড়তে। তবে সৌরভের সেই দাবি উড়িয়ে আজ সংবাদ সম্মেলনে কোহলি বললেন, বোর্ডের তরফে এ বিষয়ে তাঁকে কোনো অনুরোধ করা হয়নি।

শুধু তাই নয়, ওয়ানডে অধিনায়কত্ব হারানো প্রসঙ্গেও বোমা ফাটিয়েছেন বিরাট। সরাসরি আজ জানিয়ে দিলেন ওয়ানডের অধিনায়কত্ব থেকে সরানোর আগে তাঁর সঙ্গে কোনো আলোচনা করা হয়নি। এ প্রসঙ্গে কোহলি বলেছেন, ‘টেস্ট দল নির্বাচনের দেড় ঘণ্টা আগে আমাকে ফোন করেন প্রধান নির্বাচক। তিনি জানিয়ে দেন ওয়ানডে ক্রিকেটে আমাকে অধিনায়ক রাখা হচ্ছে না।’

গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরুর আগেই এই ফরম্যাটের নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণা দেন কোহলি। তার নেতৃত্ব ছাড়া নিয়ে সৌরভ বলেছিলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে কোহলিকে অনুরোধ করেছিলাম টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব না ছাড়তে। কিন্তু কোহলির মনে হয়েছে যে, তার ওপর চাপ বেড়ে যাচ্ছে। আমি বলেছি, ঠিক আছে। সে একজন দারুণ ক্রিকেটার। নিজের খেলা নিয়ে খুবই আগ্রহী। দীর্ঘ সময় ধরে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছে। আমি নিজেও ভারতকে নেতৃত্ব দিয়েছি, এই চাপটা আমি জানি।’ তবে আজ কোহলির দাবির পর, সৌরভের সেই মন্তব্য এখন মিথ্যা বলেই প্রমাণ হচ্ছে।

নতুন কোচ এলেও লক্ষ্য স্থির, এবার মিশন দক্ষিণ আফ্রিকা, জানালেন কোহলি

ওয়েবডেস্ক: টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর শেষ হয়েছে শাস্ত্রী-কোহলি জমানা| ওয়াংখেড়ে থেকেই শুরু হয়েছে দ্রাবিড়(Rahul Dravid)-কোহলি যুগের| নতুন জুটি বেঁধেছেন বিরাট কোহলি(Virat Kohli)| কোচ থেকে সাপোর্ট স্টাফ বদলালেও, রাহুল দ্রাবিড়ের হাত ধরে ভারতীয় দলের দর্শন ও লক্ষ্য একই আছে| বিরাট সাফল্যের মঞ্চ থেকে বার্তা বিরাট কোহলির|

আরো পড়ুনঃ খোলা চুল সাদা শাড়িতে গভীর রাতে হবু শ্বশুরবাড়িতে

রবি শাস্ত্রী যাওয়ার পরই ভারতীয় দলের হেডস্যারের দায়িত্ব পেয়েছেন রাহুল দ্রাবিড়| সেই থেকেই সকলর চোখ ছিল বিরাট-দ্রাবিড় জুটির দিকে| ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে প্রথমবার রাহুল দ্রাবিড়ের তত্ত্বাবধানে মাঠে নেমেছিলেন বিরাট কোহলি| আর প্রথম জুটিতেই সাফল্য|

নিউ জিল্যান্ডকে বিরাট ব্যবধানে হারিয়ে টেস্ট সিরিজ জিতে নিয়ছে টিম ইন্ডিয়া| স্বভাবতই বিরাটকে যে এই প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হবে তা সকলেরই জানা ছিল| ম্যাচ শেষেই তাই বিরাটের সামনে উঠে গেল দুই কোচের মধ্যে তুলনা নিয়ে প্রশ্ন| কী কী নতুন হচ্ছে|

সেখানেই বিরাটের জবাব, ‘নতুন কোচ এবং সাপোর্টস্টাফ এলেও, লক্ষ্যটা সকলের একই রয়েছে| সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া| নতুন কোচের হাত ধরে ভারতীয় ক্রিকেটকে আরও উন্নত করাই আমাদের লক্ষ্য’|

একইসঙ্গে ওয়াংখেড়ে টেস্ট জয়ের মঞ্চ থেকেই বিরাটের চোখ এখন দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের দিকে| দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিত টেস্ট জিতলেও, এখনও পর্যন্ত সিরিজ জয় অধরা রয়েছে তাদের| রাহুল দ্রাবিড়ের তত্ত্বাবধানে এবার সেটাই কাটাতে চান বিরাট কোহলি|

তিনি জানান, ‘এবার আমাদের নজর ওভারসিজ টেস্ট সিরিজ জয়ের দিকে| অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডে আমরা পেরেছি| এবার দক্ষিণ আফ্রিকায় করতে হবে| কাজটা কঠিন হবে ঠিকই, কিন্তু সাফল্য পাওয়ার ব্যপারে আশাবাদী আমরা’|

মুম্বইয়ে রেকর্ড গড়ে টেস্ট সিরিজ জিতলেও, এখনই ভারতীয় দল উচ্ছ্বাসে গা ভাসাতে নারাজ| ওয়াংখেড়ে থেকেই টিম ইন্ডিয়ার ড্রেসিংরুমে ঢুকে পড়েছে মিশন দক্ষিণ আফ্রিকা|

কোচের চাকরি নেই, জানেন না মুমিনুল

বাংলাদেশের ক্রিকেটে আলোচিত বিষয়গুলোর অন্যতম হলো কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর চুক্তি নবায়ন এবং তাকে বরখাস্তের চিন্তা। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগেই কৌশলে নিজের মেয়াদ বাড়িয়ে নিয়েছিলেন ডমিঙ্গো।

বিশ্বকাপ আর পাকিস্তান সিরিজে ব্যর্থতার পর তাকে বাদ দিতে উঠেপড়ে লেগেছে বিসিবি। এখন বরখাস্ত করতে চুক্তির শর্ত অনুযায়ী ডমিঙ্গোকে ২ কোটি টাকা দিতে হবে। কিন্তু আইনজীবীর সঙ্গে আলোচনা করে সেই অংক কমিয়ে আনার বুদ্ধি পেয়েছে বিসিবি।

আরও পড়ুন : ‘শনিবার শিক্ষার্থীরা সড়কে লাল কার্ড প্রদর্শন করবে

এরপরই ডমিঙ্গোকে বরখাস্ত করা হয়েছে। যদিও এটা অফিসিয়াল কোনো ঘোষণা নয়। ভালো বিকল্প পেয়ে গেলে এই ক্ষতি স্বীকার করে হলেও বিসিবি ডমিঙ্গোর বিদায়ী সংবর্ধনার আয়োজন করে ফেলতে রাজি। পাকিস্তান সিরিজের মাঝেই দুই পক্ষের দর কষাকষি শেষ হতে পারে এবং নিউজিল্যান্ড সফরে অন্তর্বর্তী কোচ হিসেবে যেতে পারেন ডমিঙ্গো। আজ শুক্রবার গণমাধ্যমে এমন সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর তোলপাড় সৃষ্টি হয়। অধিনায়ক মুমিনুল হককেও এই প্রশ্নের জবাব দিতে হয়েছে।

আরও পড়ুন : ‘যে কারনে বন্ধ হলো কুয়েট

কাল থেকে মিরপুরে শুরু হতে যাচ্ছে সিরিজের দ্বিতীয় তথা শেষ টেস্ট। আজ শুক্রবার ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে এক সাংবাদিক মুমিনুলকে ডমিঙ্গোর বরখাস্তের বিষয়ে প্রশ্ন করেন। জবাবে মুমিনুল বলেন, ‘দেখেন, এটা আমি আপনার কাছেই প্রথম শুনলাম যে এ রকম একটা ঘটনা হতে চলেছে। তো একজন অধিনায়ক হিসেবে, পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে এটা নিয়ে আমার কথা বলা কঠিন। এটা তো বোর্ডের সিদ্ধান্ত, বোর্ড কী করবে। এগুলো নিয়ে আমার কথা বলাও কঠিন আর এগুলো নিয়ে আমি কথা বলতেও চাই না।’

সাইফের বদলে নিউজিল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন কে?

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, তারপর পাকিস্তানের সাথে ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর টেস্টেও ক্রিকেট, বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রথম ও প্রধান সমস্যার জায়গা হলো ওপেনিং। সাদমান ইসলাম, সাইফ হাসান আর নাজমুল হোসেন শান্ত- কারো ব্যাটই কথা বলছে না। সবাই যেন রান করতে ভুলে গেছেন।

চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টে টপ অর্ডারদের ব্যর্থতায় ভুগেছে দল। প্রথম ইনিংসে ৪৯ আর দ্বিতীয় ইনিংসে ২৫ রানে পতন ঘটেছে ৪ উইকেটের। টপ অর্ডারে কারো ব্যাট কথা না বলায় টিম ম্যানেজমেন্ট ও নির্বাচকরা বিকল্প পথে হেঁটেছেন। তারা ঢাকা টেস্টের আগে দলে ডেকেছেন টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্ট নাইম শেখকে।

নাইম শেখ অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পরও সংখ্যা তত্ত্বে ওপেনার গেছে কমে। সাইফ হাসান টাইফোয়েডে আক্রান্ত এবং ঢাকা টেস্ট তো বটেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২ টেস্টের সিরিজও মিস করবেন তিনি।

যদিও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট শুরু হবে আগামী ১ জানুয়ারি। তারপরও প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানিয়েছেন, ‘টাইফোয়েড থেকে সম্পূর্ণ সেরে উঠতেই প্রায় এক মাস লেগে যায়। তাই আমরা সাইফকে নিউজিল্যান্ড সফরে দলে নিতে পারছি না। তার বিকল্প নিতে হবে।’

প্রধান নির্বাচক আরও জানান, সাইফের বদলে আর একজন প্রথাগত ওপেনার নিতে চান তারা এবং আজ রাত ৮ টায় নির্বাচক ও কোচদের সাথে জুম কনফারেন্সে বসে সেই ওপেনার ঠিক করবেন। এখন ক্রিকেট পাড়ায় একটাই প্রশ্ন, সাইফের পরিবর্তে নিউজিল্যান্ড সফরে যাবেন কোন ওপেনার?

ক্রিকেট পাড়ায় অনেক নামই শোনা যাচ্ছে। যে যার মত করে এর ওর নাম বলছেন। ইমরুল কায়েস, ফজলে রাব্বি, সৌম্য সরকার- অনেক নামই উঠে আসছে।

নির্বাচকরা মুখ ফুটে এখন পর্যন্ত কারো নাম বলা দুরে থাক, আভাস-ইঙ্গিতও দেননি। তবে কথা বলে জানা গেছে তারা প্রথাগত বা স্পেশালিস্ট ওপেনারের খোঁজে এবং সাথে নিউজিল্যান্ডের প্রচন্ড শীত কনকনে বাতাস আর ফাস্ট ও বাউন্সি পিচে খেলার পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে এমন কাউকেই প্রধান্য দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে।

এদিকে বাজারে জাতীয় লিগের টপ স্কোরার ফজলে রাব্বির নাম শোনা যাচ্ছে। তরুণ ওপেনার অমিত হাসানের কথাও নাকি ভাবছেন নির্বাচকরা। ওপেনারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি, ৬ ম্যাচে ২ সেঞ্চুরি আর ২ হাফ সেঞ্চুরিতে ৫৯০ রান করা অমিত হাসানের নামের পাশাপাশি জাতীয় লিগে ওপেসারদের ভিতরে দ্বিতীয় সর্বাধিক (৬ ম্যাচে ১ শতক ও ৪ অর্ধশতক সহ ৫২১) রান করা, আব্দুল মজিদের কথাও বলছেন কেউ কেউ।

আবার দুই পরীক্ষিত পারফরমার ইমরুল কায়েস ও সৌম্যর নামও উচ্চারিত হচ্ছ জোরেসোরে।

তার ব্যখ্যা, ফজলে রাব্বিতো জাতীয় লিগে ওপেন করেনি। মিডল অর্ডারে খেলেছে। আমরা চাচ্ছি একজন ওপেনার। যে ফাস্টক্লাসে নিয়মিত ওপেন করে।

ইমরুল কায়েসের কথা উঠতেও প্রধান নির্বাচকের মুখে প্রশ্ন, ‘আচ্ছা বলতে পারেন, ২০১৯ সালের নভেম্বরে কলকাতার ইডেন গার্ডেনে ভারতের বিপক্ষে শেষ টেস্ট খেলার পর ইমরুলও কী জাতীয় লিগ-বিসিএলে ওপেন করেছে? বেশির ভাগ ম্যাচেই তার ব্যাটিং পজিশন ছিল চার নম্বর। এবারই তিন না না হয় চারে ব্যাট করেছে।’

নান্নুর সোজা কথা, সাইফ তো ওপেনার। তার অসুস্থ্যতাজনিত বাদ পড়ায় আমাদের দরকার একজন ওপেনার। আমরা সেই ওপেনারের সন্ধান করছি। এখন নিজেরা বসে সেটা ঠিক করবো এবং আজ বৃহস্পতিবার রাতেই সেটা চূড়ান্ত হয়ে যাবে।

বলার অপেক্ষা রাখে না, টেস্টে ওপেনার ইমরুল কায়েসের সামর্থ্য প্রমাণিত। এক সময় টেস্ট-ওয়ানডে দুই ফরম্যাটেই ছিলেন জাতীয় দলের অপরিহার্য্য ওপেনার। ৩৯ টেস্টে ৭৬ ইনিংসে ৩ সেঞ্চুরি ও ৪ হাফ সেঞ্চুরিসহ ইমরুলের স্কোর ১৭৯৭ রান।

বাঁ-হাতি ইমরুল শেষ টেস্ট খেলেছেন দুই বছর আগে কোলকাতায় ভারতের বিপক্ষে। সে তুলনায় বরং আরেক বাঁ-হাতি সৌম্য অনেকের চেয়ে এগিয়ে। ইতিহাস জানাচ্ছে, নিউজিল্যান্ডের সিমিং কন্ডিশনে বরাবরই টেস্টে সৌম্যর ট্র্যাক রেকর্ড ভাল। ১৬ টেস্টে ১ শতক ও ৪ অর্ধশতকসহ ৮৩১ রান করা সৌম্য শেষ টেস্ট খেলেছেন এবছর ফেব্রুয়ারি ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে।’

এ বাঁ-হাতি ওপেনারের একমাত্র টেস্ট শতকটি কিন্তু নিউজিল্যান্ডের মাটিতে; ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি হ্যামিল্টনে। অবশ্য সেটা ওপেনার হিসেবে নয়। ৫ নম্বরে নেমে। ঠিক সোয়া ৪ ঘন্টায়) ১৭১ বলে ২১টি বাউন্ডারি আর ৫ বিশাল ছক্কায় ১৪৯ রানের ‘বিগ হান্ড্রেড‘ হাঁকিয়েছিলেন সৌম্য।

তবে ওপেনার সৌম্যর ক্যারিয়ারের সেরা ও সবচেয়ে বড় ইনিংসটি কিন্তু নিউজিল্যান্ডের মাটিতে। সেটা ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে। ক্রাইস্টচার্চে ট্রেন্ট বোল্ট, টিম সাউদি আর কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম ও ওয়েগনারের বিপক্ষে ১৫৭ মিনিটে ১০৪ বলে ১১ বাউন্ডারিতে ওই ইনিংসটি সাজিয়েছিলেন সৌম্য সরকার। দেখা যাক কার কপাল খোলে?

কে জানে বোল্ট, সাউদিদের বিপক্ষে শেষ পর্যন্ত না আবার সৌম্যকেই বেছে নেয় টিম ম্যানেজমেন্ট!

প্রথমবারের মতো ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের মেয়েরা

অনলাইন ডেস্ক ॥ নিগার সুলতানাদের স্বপ্নপূরণে বাধা থাকল না। করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের কারণে স্থগিত হয়ে গেছে মেয়েদের বিশ্বকাপ বাছাই।

গ্রুপের শীর্ষে থাকায় প্রথমবারের মতো ওয়ানডে বিশ্বকাপে চলে গেছে বাংলাদেশের মেয়েরা।

করোনার কারণে টুর্নামেন্ট বন্ধ ঘোষণায় ভাগ্য খুলে গেল নিগার সুলতানা জোতি-রুমানা আহমেদদের।

আরো পড়ুনঃ ৫ উইকেট নিয়ে ৪৩ বছর আগের রেকর্ড ছুঁলেন অক্ষর

স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা এরইমধ্যে জায়গা পেয়েছে মূল পর্বে। সঙ্গে এবার যোগ দিল-বাংলাদেশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তান। ২০২২ সালে মার্চে অনুষ্ঠেয় এই টুর্নামেন্ট দিয়েই ওয়ানডে বিশ্বকাপে অভিষেক হবে টাইগ্রেসদের। প্রথমবারের মতো নামবে বিশ্বকাপে!

বাছাই পর্বের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানকে হারায় বাংলাদেশ। পরের ম্যাচে জয় পায় যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে জয় পায় নিগার সুলতানারা। এরপর থাইল্যান্ডের কাছে হারলেও গ্রুপ এ তে শীর্ষেই ছিলেন তারা।

অন্যদিকে গ্রুপে শীর্ষে থাকায় বাংলাদেশের সঙ্গে পরের পর্বে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

আইসিসির টুর্নামেন্ট প্রধান ক্রিস টেলি বাছাই পর্ব বাতিল নিয়ে বলেছেন, ‘আমরা খুবই হতাশ যে টুর্নামেন্টটি বাতিল করতে হয়েছে। কিন্তু খুবই অল্প সময়ের মধ্যে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাগুলো দেওয়া হয়েছে। দলগুলো আবার না ফিরতে পারার শঙ্কা আছে। তাই টুর্নামেন্ট বাতিল করতে হয়েছে।’

শঙ্কার শুরুটা হয় মূলত শ্রীলঙ্কার একজন সাপোর্ট স্টাফ করোনা আক্রান্ত হলে। নেদারল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের এই ম্যাচটি বাতিল করে আইসিসি। শেষ পর্যন্ত পুরো টুর্নামেন্টই বাতিল করতে হলো বাংলাদেশকে।

৫ উইকেট নিয়ে ৪৩ বছর আগের রেকর্ড ছুঁলেন অক্ষর

অনলাইন ডেস্ক,২৭ নভেম্বর ২০২১ঃ
ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে অভিষেক টেস্ট সিরিজে ভারতীয়দের মধ্যে যৌথ ভাবে সর্বোচ্চ ২৭টি উইকেট নিয়ে আগেই নজির গড়েছিলেন অক্ষর প্যাটেল।

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৩টি টেস্টের ৬টি ইনিংসে ৪ বার ৫ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেছিলেন বাঁ-হাতি স্পিনার অক্ষর। সেই ধারা তিনি বজায় রাখলেন ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টেও।

আরো পড়ুনঃ ২০ হাজার টাকায় ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি,ছাত্র আটক

কানপুর টেস্টের প্রথম ইনিংসে অক্ষর তুলে নেন রস টেলর, হেনরি নিকোলস, টম লাথাম, টল ব্লান্ডেল ও রাচিন রবীন্দ্রর উইকেট। সব মিলিয়ে ক্যারিয়ারের ৪ নম্বর টেস্টের সাত নম্বরে ইনিংসে বল হাতে পাঁচ ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেন অক্ষর।

এতে অভিষেক বছরে সবথেকে বেশিবার ৫ উইকেট নেওয়ার নিরিখে রডনি হগের রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলেন অক্ষর। ১৯৭৮ সালে নিজের অভিষেক মৌসুমে অজি পেসার ৩টি টেস্টে ৫ ইনিংসে ৫ উইকেট করে নিয়েছিলেন। ৪৩ বছর পর অক্ষর নিজের চার নম্বর টেস্টে এমন কৃতিত্ব অর্জন করেন।

এ নিয়ে টানা ৬টি ইনিংসে ৪টি বা তারও বেশি উইকেট দখল করেন অক্ষর। সেই নিরিখে তিনি ছুঁয়ে ফেলেন জনি ব্রিগসের নজির। এই তালিকায় তার আগে রয়েছেন কেবল চার্লি টার্নার, ওয়াকার ইউনুস ও মুরলিধরন। চার্লি টানা ৮ বার ইনিংসে ৪টি বা তারও বেশি উইকেট সংগ্রহ করেছেন। ওয়াকার ও মুরলিধরন উভয়েই ৯ বার করে এমন কৃতিত্ব অর্জন করেন।

ক্যারিয়ারের প্রথম চারটি টেস্টে সবথেকে বেশি উইকেট নেওয়া ভারতীয় বোলারদের তালিকায় ইতোমধ্যেই দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন অক্ষর। কানপুরের প্রথম ইনিংসের পর অক্ষরের সংগ্রহ দাঁড়ায় সাকুল্যে ৩২টি উইকেট। নরেন্দ্র হিরওয়ানি ভারতের হয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম চারটি টেস্টে সবথেকে বেশি ৩৬টি উইকেট নিয়েছিলেন। সুতরাং দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেট নিলে অক্ষর টপকে যাবেন হিরওয়ানিকে।

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter