Home » ভর্তি ও পরীক্ষা

ভর্তি ও পরীক্ষা

বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা পেছালো

নিজস্ব প্রতিবেদক | ১০ মে, ২০২১
করোনা পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা পেছানো হল। রোববার (৯ মে) দুপুরে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

বুয়েট জানিয়েছে, পরিস্থিতি বিবেচনা করে ভর্তি পরীক্ষার নতুন তারিখ একাডেমিক কাউন্সিলের মিটিংয়ে ঠিক করা হবে।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ৩১ মে, ১ জুন এমসিকিউ পদ্ধতিতে ভর্তির প্রাথমিক বাছাই ও ১০ জুন লিখিত পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিলো। তবে সাম্প্রতিক করোনা পরিস্থিতিতে সরকার ঘোষিত লকডাউনের কারণে এ সময় পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

২২ মে মেডিকেলে ভর্তি শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৬ এপ্রিল, ২০২১
আগামী ২২ মে থেকে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি শুরু হচ্ছে। আর বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হবে জুলাই মাসের ১ তারিখ থেকে। এছাড়া পহেলা আগস্ট থেকে এমবিবিএস কোর্সের ক্লাস শুরু হবে।

রবিবার (২৫ মে) স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা) ডা. এ কে এম আহসান হাবীব স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ১৮ এপ্রিল স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আলী নূরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আড়ামী ২২ মে থেকে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস কোর্সের ভর্তি শুরু হবে। ২২ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত সরকারি মেডিকেলে দেশীয় শিক্ষার্থীদের ভর্তি কার্যক্রম চলবে।

বিজ্ঞপ্তির তথ্য অনুযায়ী, সরকারি মেডিকেলে বিদেশী শিক্ষার্থীদের ভর্তি কার্যক্রম চলবে ১৫ থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত। বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোতে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা ১ থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত ভর্তি হতে পারবেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তির আবেদন শুরু ২ মে, পরীক্ষা ৩১ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০ এপ্রিল:
৭টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ১ম বর্ষ স্নাতক শ্রেণিতে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির আবেদন গ্রহণ আগামী ২ মে থেকে শুরু হবে। আগামী ৩১ জুলাই এমসিকিউ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ৫ আগস্ট ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে।

সোমবার (১৯ এপ্রিল) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর ও কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. গিয়াসউদ্দীন মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ভর্তি কমিটির অনলাইন সভায় এসব সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠানো এক সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

বুয়েট ভর্তি পরীক্ষা আবেদন শুরু ১৫ এপ্রিল থেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক,১০ এপ্রিল ২০২১

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) স্নাতক ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন শুরু হবে আগামী ১৫ এপ্রিল থেকে। ওইদিন সকাল ১০টা থেকে অনলাইনের মাধ্যমে এ আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়ে চলবে আগামী ২৪ এপ্রিল বেলা ৩টা পর্যন্ত।

এতে বলা হয়েছে, এবার কোভিড-১৯ মহামারির কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রাক-নির্বাচনী ও মূল ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে দুই ধাপে অনুষ্ঠিত হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে। প্রাক নির্বাচনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে চারটি ধাপে। এতে নির্বাচিত প্রার্থীদের নিয়ে এমন ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

আবেদনের যোগ্যতা: প্রার্থীকে দেশের যে কোনো মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড থেকে এসএসসিতে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ- ৪.০০ পেতে হবে। এইচএসসিতে জিপিএ -৫.০০ পেতে হবে। মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ ও রসায়ন এর ৩০০ নম্বরের মধ্যে ২৭০ নম্বর পেতে হবে। ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রেও সমমানের গ্রেড/নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে।

আবেদনকারীদের থেকে ১ম থেকে ২৪,০০০তম পর্যন্ত সকল শিক্ষার্থীকে প্রাক নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হবে। এই বাছাইয়ের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর মাধ্যমিক পরীক্ষার গণিত, পদার্থ ও রসায়ন পরীক্ষার মোট প্রাপ্ত নম্বর, গনিতে প্রাপ্ত নম্বর এবং পদার্থবিজ্ঞানে প্রাপ্ত নম্বরকে অগ্রাধিকারের ক্রম হিসেবে বিবেচনা করা হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

২০ বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তির প্রাথমিক আবেদন শুরু

ডেস্ক,৩ এপ্রিল ২০২১:
দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ সেশনের স্নাতক প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার জন্য প্রাথমিক আবেদনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর ওয়েবসাইট উদ্বোধন করা হয়েছে। এরপরই গুচ্ছ পদ্ধতিতে প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন শুরু হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টায় আনুষ্ঠানিকভাবে ভর্তির আবেদন শুরু হয়।

ওয়েবসাইটে ঢুুকে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা ১৫ এপ্রিল রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত প্রাথমিক আবেদন করতে পারবেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশের নগর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত গুচ্ছ পদ্ধতিতে এ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ে সাধারণ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি (জিএসটি) বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর টেকনিক্যাল সাব কমিটির ৫ম সভায় ওয়েবসাইট উদ্বোধন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশের উপাচার্য ও গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ক টেকনিক্যাল সাব-কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূর। ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে ভর্তির ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহম্মেদ, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাজ্জাদ ওয়াজিদ প্রমুখ। এছাড়াও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আহসান-উল-আম্বিয়া, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশের সিনিয়র সিম্টেম এনালিস্ট মুহাম্মদ শাহীনূল কবীর, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের এসিস্ট্যান্ট নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার মেরাজ আলী, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক খাদেমুল ইসলাম প্রমুখ।
বিজ্ঞাপন

ভর্তির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রাথমিক আবেদনে শিক্ষার্থীদের কোনো ফি দিতে হবে না। ২০১৯ ও ২০২০ সালে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা প্রাথমিক আবেদন করতে পারবেন। তবে শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসির মোট জিপিএ বিজ্ঞান শাখার জন্য ন্যূনতম ৮.০০, বাণিজ্য শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ-৭.৫০ ও মানবিক শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ-৭.০০ থাকতে হবে। প্রতিটি শাখার শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় আলাদাভাবে ন্যূনতম জিপিএ-৩.৫ থাকতে হবে। প্রাথমিক আবেদনকারীদের মধ্যে মেধার ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য যোগ্য শিক্ষার্থীদের ফলাফল এবং চূড়ান্ত আবেদন পরে ভর্তির ওয়েবসাইটে জানিয়ে দেওয়া হবে।
পরীক্ষা কবে

আগামী ১৯ জুন এ ইউনিটের (বিজ্ঞান), ২৬ জুন বি ইউনিটের (মানবিক) ও ৩ জুলাই সি ইউনিটের (বাণিজ্য) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এক ঘণ্টার পরীক্ষা দুপুর ১২টা থেকে শুরু হয়ে চলবে বেলা ১টা পর্যন্ত।

গুচ্ছ পদ্ধতির বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক,২এপ্রিল:

মহামারি করোনার মধ্যেই দেশের সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস প্রথম বর্ষের (২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষ) ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়েছে। শুক্রবার (২ এপ্রিল) সকাল ১০টায় এ পরীক্ষা শুরু হয়। এতে অংশ নিয়েছেন এক লাখ ২২ হাজার ৮৭৪ জন পরীক্ষার্থী। পরীক্ষা চলবে বেলা ১১টা পর্যন্ত।

পরীক্ষাকেন্দ্রে করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পরীক্ষার্থীদের প্রবেশ করানো হয়েছে। এ বছর পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে এক লাখ ২২ হাজার ৮৭৪ ভর্তিচ্ছু। সে হিসেবে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ২৮ জন। আর, গত বছর এমবিবিএসে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৭২ হাজার। ফলে গতবারের তুলনায় এবার দ্বিগুণ পরীক্ষার্থী।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা নকলমুক্ত রাখতে পরীক্ষা কেন্দ্রে সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস আনা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে পানির বোতল নিয়ে কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনে পর্যাপ্ত পুলিশ সদস্যের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

১৯টি কেন্দ্রের ৫৫টি ভেন্যুর জন্য একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে চারজন পুলিশ সদস্য মোতায়েন রয়েছেন। এছাড়া তাপমাত্রা পরিমাপের জন্য থার্মাল স্ক্যানার, জীবাণুনাশক অটো স্প্রে মেশিনসহ হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থাও রয়েছে।

তবে পরীক্ষা কেন্দ্রের ভেতরের পরিবেশের চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন পরিবেশ বাইরে। পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকরা বাইরে অপেক্ষা করছেন। সেখানে প্রচণ্ড ভিড় হওয়ায় স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো চিত্র পরিলক্ষিত হয়নি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দেশের ৩৬ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৭ ফেব্রুয়ারী:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের ৩৬টি প্রধান পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে রাজশাহী, চট্টগ্রাম এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ এখনও নির্ধারণ হয়নি।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) ৩৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ।

বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের একজন কর্মকর্তা বাংলানিউজকে বলেন, ৩৬টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে তিনটি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা হবে আগামী ১২ জুন। সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৯ মে এবং ২০টি সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভিত্তিতে ১৯ জুন, ২৬ জুন এবং ৩ ও ১০ জুলাই ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬, ১৮ ও ২০ জুন, বাংলাদেশ বিইউপি ২৬-২৭ ফেব্রুয়ারি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটিতে ৪ ও ৫ জুন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অ্যাভিয়েশন অ্যান্ড অ্যারোস্পেস বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৭ জুন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ৬ জুন থেকে। মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ২ এপ্রিল এবং ডেন্টাল কলেজে ৩০ এপ্রিল, টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৮ জুন ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা ইতোমধ্যে ঘোষণা করেছে ওই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, সেখানে ২১ মে থেকে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। ‘ক’ ইউনিটে ২১ মে, ‘খ’ ইউনিটে ২২ মে, ‘গ’ ইউনিটে ২৭ মে, ‘ঘ’ ইউনিটে ২৮ মে ও ‘চ’ ইউনিটের পরীক্ষা হবে ৫ জুন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মেডিকেল ও ডেন্টালের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ প্রকাশ

ডেস্ক,৫ ফেব্রুয়ারী
আগের নিয়মেই এবারও (২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষ) ভর্তি পরীক্ষা নেবে দেশের মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলো। স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে কেন্দ্রীয়ভাবে আগামী ২ এপ্রিল দেশের সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস এবং ৩০ এপ্রিল ডেন্টাল কলেজ ও ইউনিটগুলোর বিডিএস কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

শনিবার (৬ ফ্রেব্রুয়ারি) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্র বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ বিষয়ে কথা বলা হলে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আহসান হাবিব শনিবার সকালে বলেন, ‘আগামী বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) থেকে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হবে। অনলাইনে নির্ধারিত আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে। চলবে ১ মার্চ পর্যন্ত।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০ থেকে ২৫ মার্চ এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র দেয়া হবে।’

এছাড়া, বিডিএস কোর্সের আবেদন শুরু হবে ২৭ মার্চ। ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে আর ডেন্টালে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র ২৪ থেকে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত বিতরণ করা হবে। ২ এপ্রিল ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

দু-একদিনের মধ্যেই এমবিবিএস ও বিডিএস ভর্তি পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত হবে।

মহামারি করোনার কারণে চলতি বছর এইচএসসিতে অটোপাস দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সে কারণে ভর্তি পরীক্ষায় নতুন কোনো নিয়ম হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক আহসান হাবিব বলেন, ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে যেকোনো পরিবর্তন আনতে হলে তার প্রক্রিয়া এক থেকে দেড় বছর আগে শুরু করতে হয়। বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে মতবিনিময়ের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রস্তাবের ভাল-মন্দ দিক বিবেচনায় নিয়ে তবেই প্রয়োজনে পরিবর্তন আনতে হয়ে।

তাই এ বছর আগের নিয়মেই অর্থাৎ ১০০ নম্বরের এমসিকিউ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা ও এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে ১০০নম্বরসহ মোট ২০০ নম্বরের ভিত্তিতে জাতীয় মেধাভিত্তিক তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ভিকারুননিসায় ভর্তির অনলাইন আবেদন শুরু রোববার

ডেস্ক,১৯ ডিসেম্বর:
রাজধানীর বিখ্যাত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে ২০২১ শিক্ষাবর্ষে সব শ্রেণিতে উন্মুক্ত লটারির মাধ্যমে ভর্তি করা হবে। রোববার (২০ ডিসেম্বর) সকাল ১০টা থেকে অনলাইনে শুরু হয়ে ২৫ ডিসেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত স্কুলের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে ভর্তির আবেদন করা যাবে। শুক্রবার প্রথম শ্রেণির ভর্তি সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

সেখানে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটির বেইলি রোড, আজিমপুর, ধানমন্ডি ও বসুন্ধরা শাখায় শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। এক্ষেত্রে স্কুলের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে অভিভাবকদের আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। পরে মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ফি জমা দিতে হবে। ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে জন্মগ্রহণ করা ছাত্রীরাই ভিকারুননিসা নূন স্কুলে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন করতে পারবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

‘প্রশ্ন কঠিনের’ অভিযোগে খাতা নিয়ে হল ত্যাগ, ভাঙচুর

ডেস্ক,১৯ ডিসেম্বর:
‘প্রশ্নপত্র কঠিন’ হয়েছে। এতে ১০ শতাংশ পরীক্ষার্থীও পাস করবে না’- এমন অভিযোগ তুলে বার কাউন্সিলের পরীক্ষা বর্জন করেছেন রাজধানীর দুটি কেন্দ্রের শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা। এ সময় তারা প্রশ্নপত্র ও খাতা নিয়েই পরীক্ষার হল থেকে বেরিয়ে গেছেন।

শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর লক্ষ্মীবাজারের ঢাকা মহানগর মহিলা কলেজে এমন ঘটনা ঘটে। একই ধরনের ঘটনা ঘটেছে মোহাম্মদপুর সরকারি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রেও। সেখানে পরীক্ষাকেন্দ্রে ভাঙচুরও করা হয়েছে।

শনিবার সকালে রাজধানীর লক্ষ্মীবাজারে ঢাকা মহানগর মহিলা কলেজে পরীক্ষা শুরু হলে প্রথমেই কিছু শিক্ষার্থী ‘প্রশ্ন ঠিক হয়নি’ বলে অভিযোগ করেন। এরপর তাদের সঙ্গে অনেকেই যুক্ত হন। এক পর্যায়ে তারা সিট থেকে উঠে পড়েন। এ নিয়ে পরীক্ষা হলে হট্টগোল শুরু হয়। এ সময় কিছু পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়ার চেষ্টা করলেও বাকিরা তাদের অনুৎসাহিত করে। তারা পরীক্ষার্থীদের খাতা টেনে নিয়ে বাইরে চলে যান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন পরীক্ষার্থী বলেন, ‘বার কাউন্সিল যে প্রশ্ন করেছে তা কোন প্রশ্নের মাপকাঠিতেই পড়ে না। এটা কোনো প্রশ্নই হয়নি। জুডিশিয়ারির পরীক্ষায় এমন প্রশ্ন হতেই পারে না। এ কারণে আমরা পরীক্ষা না দিয়ে বের হয়ে গেছি। কিছু শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে চাইলেও তাদেরকে বাকিরা ধরে বের করে দিয়েছে। এখন শিক্ষার্থীরা হলের বাইরে অবস্থান করছে।’

এ বিষয়ে বার কাউন্সিলের সচিব রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা দুইটি হলে এ রকম ঘটনা শুনতে পেয়েছি। পরীক্ষা চলবে। যারা পরীক্ষা না দেয়ার আন্দোলন করেছিল, তারাই এমনটি করছে।’

সার্বিক বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা বসেই সিদ্ধান্ত নেব। আপাতত পরীক্ষা চলবে।’

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

অনার্স পরীক্ষার ফল প্রকাশ

ঢাকা: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৯ সালের অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৭টা থেকে এসএমএসের মাধ্যমে ফল জানতে পারবেন শিক্ষার্থীরা।এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকেও ফল জানা যাবে।

তবে, বিএসসি অনার্স কোর্সের বিভিন্ন বিষয়ের যেসব শিক্ষার্থীর ব্যবহারিক পরীক্ষা করোনার কারণে গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি সেসব পরীক্ষাদের ফল স্থগিত রাখা হয়েছে। শিগগিরই ব্যবহারিক পরীক্ষা গ্রহণের পর এসব শিক্ষার্থীর ফল প্রকাশ করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দপ্তরের পরিচালক মো. ফয়জুল করিম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পরীক্ষার ফল জানতে যে কোনো মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে NUH3Exam Roll লিখে ১৬২২২ নম্বরে সেন্ড করতে হবে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.nu.ac.bd/results থেকেও জানা যাবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মাইলস্টোন স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০
মাইলস্টোন স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্লে/নার্সারি থেকে ৯ম শ্রেণি পর্যন্ত ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। বিস্তারিত নিচের বিজ্ঞাপনে দেখুন:

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মার্চে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা

নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৩ ডিসেম্বর, ২০২০
করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বিলম্বিত মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা মার্চ মাসে নেওয়ার পরিকল্পনা করছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ।

কর্মকর্তারা বলছেন, সব ঠিক থাকলে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে বিষয়টি চূড়ান্ত করে তারা হয়ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে পারবেন।

স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. আলী নূর বুধবার বলেন, “ভর্তি পরীক্ষা নেব- এ ধরনের একটি সিদ্ধান্ত আমরা নিয়েছি। এটা মার্চের শুরুর দিকে হতে পারে। কীভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া যায় সে বিষয়ে আমরা কাজ করছি। করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিষয়টি মাথায় রেখে আমরা পরিকল্পনা সাজাচ্ছি।”

অন্যবছর ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। সেই ফলাফল প্রকাশের পর মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তির প্রক্রিয়া শুরু হয়।

সাধারণত অক্টোবরের মধ্যেই ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে ফল প্রকাশ করা হয়। ১০ জানুয়ারি শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন শেষে পাঠদান শুরু হয়ে যায়। কিন্তু এবার মহামারীর কারণে সবকিছুই অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে।

বছরের শেষভাগে এসে জানানো হয়, মহামারীর মধ্যে এ বছর আর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এইচএসসি ও সমমানের ১৪ লাখ পরীক্ষার্থীর মূল্যায়ন করা হবে জেএসসি-জেডিসি এবং এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে।

স্নাতক পর্যায়ে ভর্তি শুরুর জন্য ডিসেম্বরের মধ্যেই এইচএসসির ফলাফল প্রকাশ করা হবে বলে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এর আগে জানিয়েছিলেন।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এএইচএম এনায়েত হোসেন বলেন, এইচএসসির মূল্যায়ন ফলাফল হাতে পেলে তারা মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। তবে তার আগেই প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়া শুরু হয়েছে।

“আমরা ফলাফলের অপেক্ষা করছি। হয়তো তাড়াতাড়িই রেজাল্ট দিয়ে দিবে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এ ব্যাপারে অফিসিয়ালি সিদ্ধান্ত হয়ে যাবে।”

কীভাবে এ ভর্তি পরীক্ষা হকে জানতে চাইলে এনায়েত হোসেন বলেন, “এখন পর্যন্ত আমরা চিন্তা করছি, পরীক্ষা আগের নিয়মে হবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় যা যা করা দরকার, আমরা তা করব। আমরা এখনও ফাইনাল করিনি। মার্চের শুরুর দিকে চিন্তা করছি। ফাইনাল করে আপনাদের জানিয়ে দেব।”

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে ৭২ হাজার ২২৮ জন শিক্ষার্থী মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। আর ডেন্টলে ভর্তি পরীক্ষা দিয়েছিল ২৫ হাজার ১১৬ জন।

এ বছর দেশের ৩৬টি সরকারি ও ৭০টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ১০ হাজার ৬৯০ জন শিক্ষার্থী এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পেতে পারেন।

আর সরকারি-বেসরকারি ডেন্টাল কলেজ এবং মেডিকেল কলেজ সংযুক্ত ডেন্টাল ইউনিট মিলিয়ে মোট ১ হাজার ৯৩৭ জন শিক্ষার্থী বিডিএস কোর্সে ভর্তি হতে পারেন।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. একেএম আহসান হাবিব জানান, মেডিকেল ও ডেন্টালে ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে গত সপ্তাহে মন্ত্রণালয়ে একটি বৈঠক হয়েছে। সেখানেই পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়।

“এখনও আমরা ফেইস টু ফেইস যে পরীক্ষার কথা চিন্তা করছি, মানে ফিজিক্যালি, এটা মোটামুটি চূড়ান্ত। ডিসেম্বরে বা জানুয়ারিতে শীতের প্রকোপের সময় পরীক্ষা না নেওয়ার একটা সিদ্ধান্ত আছে। পরীক্ষা নেওয়ার জন্য শুক্রবার প্রয়োজন হয়। আমরা হিসাব করে দেখেছি, যে মার্চ মাসের ৫ তারিখ শুক্রবার পরীক্ষাটা নেওয়া যায়।”

গত বছর সারাদেশে ১৯টি কেন্দ্রের আওতায় ৩২টি ভেন্যুতে মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল। মহামারীর কারণে শিক্ষার্থীদের দূরত্ব রেখে বসাতে গেলে এ বছর ভেন্যু বাড়াতে হবে।

অধ্যাপক হাবিব বলেন, “একেকটি কেন্দ্রের আওতায় অনেকগুলো ভেন্যু থাকবে। যেখানে আগে দুটি থাকত, সেখানে চারটি হবে।”

ভর্তিচ্ছুরা দুশ্চিন্তায়

মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তির নীতিমালা অনুযায়ী, মেডিকেল ও ডেন্টালে ভর্তির আবেদন করার জন্য বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষায় মোট জিপিএ হতে হয় কমপক্ষে ৯।

আদিবাসী ও পার্বত্য জেলার প্রার্থীদের ক্ষেত্রে মোট জিপিএ কমপক্ষে ৮ পয়েন্ট হতে হয়। তবে এককভাবে কোনো পরীক্ষায় জিপিএ ৩.৫ এর কম হলে তা গ্রহণযোগ্য নয়।

এসএসসি এবং এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষায় অবশ্যই পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন ও জীববিজ্ঞান থাকতে হবে। জীববিজ্ঞানে ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫ থাকতে হবে।

অন্যবছর এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে ফলের অপেক্ষার মধ্যেই স্নাতক পর্যায়ে ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি শুরু হয়ে যায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে। কিন্তু এ বছর পরিস্থিতি ভিন্ন; সে কারণে উদ্বেগ রয়েছে শিক্ষার্থীদের মধ্যে।

হুসাইন আরমান নামে একজন শিক্ষার্থী বলেন, “কীভাবে পরীক্ষা হবে এখন পর্যন্ত আমাদের জানা নেই। কখন পরীক্ষা হবে তাও ঠিক নেই। এই করোনাকালে এমনিতেই অনেক সমস্যার মধ্যে আছি। ঠিকমত শিক্ষকদের সহায়তা নিতে পারি না। হঠাৎ করে পরীক্ষার তারিখ দিয়ে দিলে অনেক ঝামেলায় পড়ব। কোন পদ্ধতিতে, কোন সময়ে পরীক্ষা হবে সেটা আগে থেকে জানালে পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে পারব।”

নরসিংদীর বেলাবো উপজেলার উজিলাব গ্রামের নূরে জান্নাত ফাতেমা ভৈরব রফিকুল ইসলাম মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী। তিনিও মেডিকেলে ভর্তি হয়ে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখে এসেছেন।

তিনি বলেন, এইচএসসি পরীক্ষা দিতে না পারায় প্রস্তুতিতে কিছুটা ঘাটতি রয়েছে। ফলে মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে কিছুটা দুশ্চিন্তা রয়েছে তার।

“হাতে-কলমে এইচএসসি পরীক্ষা দিতে পারিনি। এ কারণে কিছুটা পিছিয়ে আছি। এখন ভর্তি পরীক্ষার দেরি হলে প্রস্তুতিতেও তার প্রভাব পড়বে। সেকেন্ড টাইম যারা পরীক্ষা দেবে, তাদের ভালো করার সম্ভাবনা বেশি থাকে।”

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দেশের ১২টি ক্যাডেট কলেজে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিনিধি নভেম্বর ২৮, ২০২০ : বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত দেশের ১২টি ক্যাডেট কলেজে ২০২১ সালে সপ্তম শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে শিক্ষার্থীদের।

বর্তমানে দেশে ছেলেদের নয়টি এবং মেয়েদের তিনটি ক্যাডেট কলেজ রয়েছে। কলেজগুলো বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেলের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে পরিচালিত স্বায়ত্তশাসিত আবাসিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

আবেদনের সময়সীমা: গত ২২ নভেম্বর আবেদন শুরু হয়েছে। আবেদন চলবে ২০২১ সালের ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত। ওই দিন বিকেল ৫টার মধ্যে অনলাইনে আবেদন করতে হবে শিক্ষার্থীদের। অনলাইনে www.cadetcollege.army.mil.bd অথবা cadetcollegeadmission.army.mil.bd আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে।

পরীক্ষা: আগামী ২৯ জানুয়ারি লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা হবে। লিখিত পরীক্ষা ৩০০ নম্বরের। গণিত ১০০, বাংলা ৬০, ইংরেজি ১০০ এবং সাধারণ জ্ঞান ৪০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের সময় ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার তারিখ, সময় ও স্থান ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।

আবেদনের যোগ্যতা: প্রার্থীদের বাংলাদেশি নাগরিক হতে হবে। ষষ্ঠ শ্রেণি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।

বয়সসীমা: ১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে বয়স সর্বোচ্চ ১৩ বছর ৬ মাস।

উচ্চতা: বালক ও বালিকা উভয়ের ক্ষেত্রেই উচ্চতা ন্যূনতম ৪ ফুট ৮ ইঞ্চি হতে হবে।

আবেদন ফি: আবেদন ফি এক হাজার ৫০০ টাকা।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

স্কুল ভর্তিতে ধামাকা অফার, তবুও সাড়া নেই

ঢাকা,২২ নভেম্বর: শিক্ষকদের মাসিক বেতন, প্রতিষ্ঠানের ভাড়া পরিশোধ, শিক্ষার্থী হারানোর শঙ্কাসহ করোনা মহামারিতে নাভিশ্বাস উঠেছে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর। বৈশ্বিক করোনাভাইরাসের প্রভাবে দেশের সব সরকারি-বেসরকারি স্কুল-কলেজ ও কিন্ডারগার্টেন এখনও বন্ধ রয়েছে। কবে খোলা হবে এবং খুললে পরিস্থিতি কি দাঁড়াবে তা নিয়ে দিনরাত বিশ্লেষণ করে যাচ্ছেন সংশ্লিষ্ঠ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। স্কুল বন্ধ থাকায় মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া।

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা রাজধানীর ব্যক্তি মালিকানাধীন বেশিরভাগ কিন্ডারগার্টেন ইতোমধ্যেই নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছে। অনেক কিন্ডারগার্টেন স্কুল এখন আবাসিক বাসা ভাড়া দেয়া হয়েছে। আবার কেউ কেউ স্কুলের টেবিল চেয়ারসহ শিক্ষা উপকরণগুলো বিক্রি করে সাইনবোর্ড সরিয়ে দোকান দিয়েছেন। আবার নতুন করে কিছু কিছু কিন্ডারগার্টেন খোলার চেষ্টা চলছে। তারা ব্যানার ফ্যাস্টুন লাগিয়ে অভিভাবকদের দৃষ্টি আকর্ষণের করেছেন।

উত্তরার একটি স্কুল মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে ‘ধামাকা অফার’ দিয়েছে। একই এলাকার কয়েকটি স্কুল ঘুরে দেখা যায়, প্রায় স্কুলই ভর্তিতে ছাড় দিয়েছে। ক্ষেত্র বিশেষে সেই ছাড়া ৫০ থেকে ১০০ পারসেন্ট পর্যন্ত গিয়ে ঠেকেছে।

স্কুলের পরিচালক মনিরুজ্জামানের কাছে তাদের ‘ধামাকা অফার’ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্যই ‘ধামাকা অফার’। করোনার কারণে স্কুল দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় বিপুল লোকসান গুনতে হচ্ছে আমাদের। ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠার ঠিক পরের বছরেই একটি বড় ধাক্কা খেয়েছি। করোনার কারণে এবছর স্কুল বন্ধ থাকলেও সীমিত সংখ্যক শিক্ষার্থী নিয়ে আমরা অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস চালু রেখেছি। বর্তমানে আমাদের এখানে ১২০ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। তবে অনলাইন মাত্র ২০জন শিক্ষার্থী নিয়মিত ক্লাস করছে।

এদিকে করোনা সংকটে টিভি, অনলাইন এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যবহার করে বেশ কিছু সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। তবে তাদের শিক্ষার মান নিয়ে খোদ শিক্ষামন্ত্রীই প্রশ্ন তুলেছেন। পাশাপাশি অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অ্যাসাইনমেন্টের নামে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্থ আদায়ের সুযোগ নিচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের চলতি বছরের টিউশন ফি’র বিষয়ে মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে পরিস্কার নির্দেশনা দিয়েছে। যাতে বলা হয়েছে, কোন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায় করা যাবে না, শুধুমাত্র টিউশিন ফি-ই আদায় করবে বিদ্যালয়।

চলতি শিক্ষাবর্ষ প্রায় শেষ পর্যায়ে থাকলেও এখন পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খোলার কোনো পরিকল্পনা নেই শিক্ষামন্ত্রণালয়ের। তবে এরই মধ্যে আগাম শিক্ষার্থী ভর্তির প্রতিযোগিতায় নেমেছে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

এবিষয়ে উত্তরা পাবলিক লাইব্রেরির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক তারেকুজ্জামান খান বলেন, দীর্ঘদিন করোনার কারণে স্কুল বন্ধ। আয় কমে যাওয়ায় অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানদের নিয়ে বাড়ি চলে গেছেন। এতে স্কুলগুলো শিক্ষার্থী হারাবে এটাই স্বাভাবিক। সে কারণে নতুন শিক্ষার্থী টানতে ‘ধামাকা অফার’ মত শব্দ ব্যবহার করে স্কুলগুলো ভর্তির বিজ্ঞপ্তি দিচ্ছে। এমন অফার নির্ভর বিজ্ঞাপন দিয়ে কতখানি সুশিক্ষা পাওয়া যাবে তা নিয়ে সংশয় থাকলেও বৈশ্বিক সংকটের এই সময় সংশ্লিষ্ঠদের রুটি-রুজির সংস্থান করতে এবং মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণে এমনটা করা দোষণীয় কিছু নয়।

অভিভাবকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অভিভাবকরা চায় সুশিক্ষা। নিজের সন্তানরা মানুষের মত মানুষ হোক, বাবা-মা ও দেশের মুখ উজ্জ্বল করুক এ চাওয়া প্রায় সব অভিভাবকের। কিন্তু পরিস্থিতি এখন এমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কবে খোলা হবে তার ঠিক নাই। একদিকে স্কুল শিক্ষকরা বেতন চাইছে। অন্যদিকে সন্তানের লেখাপড়ায় চরম ধস নেমেছে। এখন স্কুলের পুরনো বেতন দিবে না নতুন ভর্তির কথা চিন্তা করবেন তা নিয়ে দো টানা অবস্থায় রয়েছেন স্বজনরা।

এবিষয়ে খোকন, ফারুক, সোহেল, ফেরদৌসী, বনানী মল্লিক, তাজুল ইসলাম, আশরাফসহ কয়েকজন অভিভাবক বলেন, করোনাকালে আয় রোজগার বন্ধ ছিল। অফিস খোলার পর বেতন নেমে গেছে অর্ধেকে। অথচ সন্তানের স্কুলের বেতন শতভাগ। আয় বুঝে ব্যয় করতে গেলে সন্তানের পড়ালেখা বন্ধ হয়ে যায়। তাই মন্ত্রণালয়ের কাছে টিউশন ফি কমানোর জোর দাবি জানান তিনি।

এদিকে গত ১৭ নভেম্বর রাতে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির হেয়ার রোডের সরকারি বাসভবনে জাতিসংঘ প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় বলেন, করোনার কারণে মানসম্মত শিক্ষা অর্জন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। সমস্ত প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। ২০২১ সালে অনুষ্ঠিতব্য এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রাতিষ্ঠানিক ক্লাস না হওয়ায় সিলেবাস সমাপ্ত করা এখন একটা বড় চ্যালেঞ্জ। তা ছাড়া কারিগরি শিক্ষার ক্ষেত্রে ব্যবহারিক ক্লাসসমূহ অনলাইনে নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় আমাদের শিশুরা সাইকলজিক্যাল বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করার মাত্র দুই সপ্তাহের মধ্যে সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা হয়। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা পর্যায়ে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। তারপরও আমাদের প্রায় ১০ শতাংশ শিক্ষার্থী শিক্ষা কার্যক্রমের বাইরে রয়েছে। মোট শিক্ষার্থীর তুলনায় ১০ শতাংশ অনেক বড় একটি সংখ্যা। আমরা কোন একজন শিক্ষার্থীকে পেছনে রেখে আগাতে চাই না।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter