Home » আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক

ভারতে একদিনে মৃত্যু ৩৪০৩, শনাক্ত ৯১ হাজার

ডেস্ক,১১ জুন ২০২১:

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত ভারত। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে প্রায় সাড়ে তিন হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। নতুন শনাক্ত রোগী অবশ্য আগের দিনের তুলনায় কিছুটা কমেছে। একইসঙ্গে কমেছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যাও।

শুক্রবার এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ৯১ হাজার ৭০২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন শনাক্ত হয়েছিল ৯৪ হাজার ৫২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনায় ৩ হাজার ৪০৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আগের দিন ৬ হাজার ১৪৮ জনের মৃত্যু হয়। যা ছিল ভারতে করোনায় এক দিনে মৃত্যুর রেকর্ড।

দৈনিক আক্রান্তের থেকে বেশি মানুষ সুস্থ হয়ে ওঠাতেই ভারতে প্রতিদিনই কমছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা। একসময় দেশটিতে ৩৭ লাখের বেশি সক্রিয় রোগী থাকলেও পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় কমতে কমতে সেই সংখ্যা নেমে এসেছে ১১ লাখের ঘরে। দেশটিতে এখন মোট সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১১ লাখ ২১ হাজার ৬৭১ জন।

এদিকে গত দু’দিন দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা বাড়লেও নিয়ন্ত্রণেই রয়েছে সংক্রমণের হার। গত তিনদিনের মতো শুক্রবারও তা ৫ শতাংশের নিচেই রয়েছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত সাড়ে ২৪ কোটির বেশি মানুষকে করোনা টিকা দেওয়া হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

হুমকির মুখে ভারত ছাড়লেন সিরাম সিইও

ডেস্ক:

করোনা টিকার জন্য নানা ধরণের হুমকির মুখে ভারতের টিকা প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান সিরাম ইনস্টিটিউটের সিইও আদর পুনাওয়ালা দেশ ছেড়ে ব্রিটেনে পাড়ি জমিয়েছেন।

মুখ্যমন্ত্রী থেকে শুরু করে কর্পোরেট কর্মকর্তাসহ একাধিক প্রভাবশালী ব্যক্তির চাপের কারণে ভারতীয় ফ্লাইটগুলোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ার আগেই দেশ ছেড়ে ব্রিটেনে পাড়ি জমিয়েছেন তিনি।

দ্য টাইমস এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোভিশিল্ড টিকার জন্য পুনাওয়ালাকে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা এবং অন্যান্যরা ফোন করতেন। দ্রুত টিকা পাওয়ার দাবি জানাতেন তারা।

ব্রিটিশ গণমাধ্যমটিকে পুনাওয়ালা বলেছেন, হুমকি বললে কম বলা হয়। মানুষের আশা এবং আগ্রাসন অভূতপূর্ব। এটা আশ্চর্যজনক। প্রত্যেকেই মনে করছেন, তার টিকা পাওয়া উচিত। তারা এটা বুঝতে চাইছেন না, কেন অন্যদেরও তাদের আগে টিকা পাওয়া উচিত।

পুনাওয়ালা ওই ব্রিটিশ সংবাদপত্রটিকে আরো বলেন, ওরা বলছে, তুমি যদি টিকা না দাও তা হলে ফল ভালো হবে না, এটা খারাপ ভাষা নয়। কিন্তু বলার ধরনটা খারাপ। এমন হুমকি আসছেই এবং তাদের দাবি না মানা পর্যন্ত কোনো কাজই করতে দিচ্ছে না।

প্রতিবেদন অনুযায়ী পুনাওয়ালা বলেন, সব ভার আমার কাঁধে। কিন্তু আমি একা তা বহন করতে পারব না।

তবে পুনাওয়ালা যে হঠাৎই দেশ ছেড়েছেন মোটেই এমন দাবি করছে না ব্রিটিশ গণমাধ্যমগুলো। তাদের দাবি, অনেক দিন ধরেই ভারত ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন সিরাম সিইও। লন্ডনের মেফেয়ার এলাকায় ২৫ হাজার স্কয়ার ফুটের বাড়িও ভাড়া নিয়েছিলেন তিনি। ভারতীয় মুদ্রায় যার ভাড়া সপ্তাহে ৫১ লাখ রুপি।

দ্য টাইমস এর দাবি, পুনাওয়ালা ব্রিটেনে কিছুদিন কাটাবেন বলে জানিয়েছেন। তবে ঠিক কারা পুনাওয়ালাকে ‘হুমকি’ দিয়ে আসছিলেন কিংবা তিনি কবে ভারত ছেড়েছেন এ বিষয়ে ওই প্রতিবেদনে কিছু উল্লেখ করা হয়নি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ভারতের করোনা পরিস্থিতি মর্মান্তিক

ডেস্ক,২৭ এপ্রিল ২০২১:
করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে ভারতের বিদ্যমান পরিস্থিতিকে হৃদয় বিদারক বলে বর্ণনা করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান টেড্রোস অ্যাধানম গেব্রেয়িসাস। দেশটিতে দৈনিক করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে তিন লাখ পার, অক্সিজেন সংকটের পাশাপাশি প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক মানুষের মৃত্যুর কারণে সোমবার তিনি এই মন্তব্য করেন। এনডিটিভি।

ভারতে দৈনিক করোনা সংক্রমণের সংখ্যা সাড়ে তিন লাখ ছাড়িয়েছে আগেই। দেশজুড়ে চলছে অক্সিজেনের হাহাকার। ভেঙে পড়েছে খোদ রাজধানী নয়াদিল্লির চিকিৎসা সেবা। এমনকি মৃত্যুর পরেও মৃতদেহ দাহ করতে সৃষ্টি হয়েছে লম্বা লাইনের। কবরস্থানের দেখা দিয়েছে জায়গা সংকটের।

সোমবার ভারতের বর্তমান পরিস্থিতিকে ‘হৃদয় বিদারক’ উল্লেখ করে ডব্লিউএইচও’র প্রধান বলেন, ‘মহামারির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ভারতে অতিরিক্ত জনবল পাঠাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। অনেক জায়গায় সংক্রমণ এবং মৃত্যুর সংখ্যা কিছুটা হ্রাস পেয়েছে। তবে অনেক দেশ এখনও কোভিড -১৯ এর কারণে তীব্র সংকটে রয়েছে। ভারতের পরিস্থিতি হৃদয় বিদারক।’

টেড্রোস অ্যাধানম বলেন, ‘আমরা যা যা করতে পারি তা করছি। প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জামও সরবরাহ করা হচ্ছে। ভারতে অক্সিজেন কন্টেইনার, মোবাইল ফিল্ড হাসপাতাল এবং ল্যাবরেটরি পাঠানো হচ্ছে। এছাড়াও দেশটিতে ২ হাজার ৬০০ জন বিশেষজ্ঞকে পাঠিয়েছে ডব্লিউএইচও।’

গত ৯ সপ্তাহ ধরে বিশ্বব্যাপী করোনার দৈনিক সংক্রমণের হার বাড়ছে। এর বেশিরভাগই ভারতে। দেশটিতে শনাক্ত করোনার নতুন ধরন নিয়ে চিন্তিত সারা বিশ্ব। ইতোমধ্যেই ভারতে করোনা টিকা তৈরির কাঁচামাল পাঠানোর ঘোষণা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র।

এছাড়া ভারতের পাশে থাকার কথা জানিয়েছে ব্রিটেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, পাকিস্তান, জার্মানি, ফ্রান্সসহ অনেক দেশ। সাহায্যের প্রস্তাব নিয়ে এগিয়ে এসেছে গুগুল ও মাইক্রোসফটের মতো প্রতিষ্ঠানও।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

পাকিস্তানে চীনা রাষ্ট্রদূতকে লক্ষ্য করে বোমা হামলা-নিহত ৪

অনলাইন ডেস্ক,২২ এপ্রিল ২০২১:

পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের রাজধানী শহর কোয়েটার একটি বিলাসবহুল হোটেলে বোমা হামলায় কমপক্ষে চারজন নিহত এবং আরও ১২ জন আহত হয়েছেন। বুধবার রাতে হোটেলটিতে বোমা বিস্ফোরিত হলে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। বেলুচিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, চীনের রাষ্ট্রদূতকে হত্যার জন্য এই হামলা চালানো হয়েছে। ডন,বিবিসি।
আরো খবর

কোয়েটার সেরেনা হোটেলে যেখানে গাড়ি পার্ক করে রাখা হয় সেই স্থান লক্ষ্য করেই হামলাটি করা হয়। চীনা রাষ্ট্রদূত হামলার সময় কোয়েটায় ছিলেন বলে জানা গেলেও তিনি হামলাস্থলে ছিলেন না বলে জানা গেছে। আফগানিস্তান সীমান্ত লাগোয়ো বেলুচিস্তানের কোয়েটার হোটেলে এই হামলার দায় স্বীকার করেছে ‘পাকিস্তান তালেবান’। তবে বিস্তারিত কিছু জানায়নি।

প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, কোনো একটি গাড়িতে শক্তিশালী ওই বোমা রাখা ছিল।এই হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে এক পুলিশ কর্মকর্তাও আছেন। ঘটনার পরপর ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও উদ্ধারকারী সংস্থার কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ ও উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেন। পুরো এলাকা ঘিরে রেখেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এই এলাকায় কাউকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না।

এ ঘটনার পর এক সংবাদ সম্মেলনে বেলুচিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মির জিয়াউল্লাহ বলেন, ‘এই অঞ্চলে সন্ত্রাসবাদের ঢেউ চলছে। এসব সন্ত্রাসী কার্যক্রমে আমাদের নিজেদের লোকজনই জড়িত।’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, এই হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিলেন পাকিস্তানে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত। তবে তিনি বিস্ফোরণের সময় ওই হোটেলে ছিলেন না। মন্ত্রী বলেন, ‘আমি একটু আগেই চীনের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে দেখা করেছি। তিনি সুস্থ ও ভালো আছেন।’ এ ঘটনার তদন্ত চলছে।

উল্লেখ্য, দ্য সেরেনা হোটেল কোয়েটায় সবচেয়ে প্রসিদ্ধ হোটেল। সরকারি কর্মকর্তা এবং সেখানে সফর করা অতিথিদের এই হোটেলেই থাকার ব্যবস্থা করা হয়।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দৈনিক সংক্রমণে বিশ্ব রেকর্ড, মৃত্যু ছাড়াল দু’হাজার

ডেস্ক,২১ এপ্রিল:

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় রীতিমতো কাঁপছে ভারত। দেশটিতে ভয়াবহভাবে বেড়েই চলেছে ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। গত কয়েকদিন ধরে দেশটির দৈনিক করোনা সংক্রমণ দুই লাখ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। বুধবার সেই সংখ্যা পৌঁছেছে তিন লাখের কাছাকাছি। এক দিনে আক্রান্তের এই সংখ্যা শুধুমাত্র ভারতে নয় বিশ্বেও সর্বোচ্চ। এনডিটিভি, আনন্দবাজার।

একইসঙ্গে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। ভারতে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে বাড়তে গত কয়েকদিনে তা হাজারের ঘর পেরিয়েছে, কিন্তু বুধবার সেই সংখ্যা ছাড়িয়েছে দুই হাজারের ঘর। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মারা গেছেন রেকর্ড ২ হাজার ২৩ জন।

বুধবার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২ লাখ ৯৫ হাজার ৪১ জন। যা মঙ্গলবারের তুলনায় প্রায় ৩৬ হাজার বেশি। সংক্রমণের এই রেকর্ড বৃদ্ধিতে দেশটিতে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১ কোটি ৫৬ লাখের ঘর। মোট আক্রান্তের দিক দিয়ে বিশ্বে আমেরিকার পর দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারত।

মঙ্গলবার দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১ হাজার ৭৬১ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হলেও বুধবার সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২৩ জনে। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ৫৫৩ জনে।

দৈনিক বিপুল সংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হওয়ার কারণে ভারতে উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে সক্রিয় রোগী বেড়েছে ১ লাখ ২৫ হাজার ৫৬১ জন। দেশটিতে এখন মোট সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ২১ লাখ ৫৭ হাজার ৫৩৮ জন। যদিও এ বছর ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকে দেশটিতে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা কমে দেড় লাখের নিচে চলে এসেছিল।

কিন্তু এরপর রোগী বাড়তে বাড়তে তা সাড়ে ২১ লাখ ছাড়িয়েছে। ফলে হাসপাতাল, স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেওয়ার সুযোগ ক্রমেই কমে আসছে। অনেক ক্ষেত্রেই একই শয্যায় একাধিক রোগীকে শুয়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে। অক্সিজেনেরও অভাব সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে দেশটি। অনেক জায়গায়ই অস্থায়ী করোনা সেন্টার তৈরি করে পরিস্থিতি মোবাবিলার চেষ্টা চালাচ্ছে বিভিন্ন রাজ্য সরকার।

এদিকে সংক্রমণ প্রতিরোধে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে লকডাউনও জারি করা হয়েছে। রাজধানী দিল্লিতে সোমবার থেকে চলছে লকডাউন। মহারাষ্ট্রেও ‘করোনা কারফিউ’ চলছে। উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশের মতো রাজ্যে সপ্তাহান্তে চলছে লকডাউন। রাত্রিকালীন কারফিউ জারি হয়েছে দেশের বিভিন্ন শহরে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

করোনা পরিস্থিতিতে বাতিল আইসিএসই দশম শ্রেণির পরীক্ষা, দ্বাদশ নিয়ে সিদ্ধান্ত জুনে

নিজস্ব সংবাদদাতা,২০ এপ্রিল ২০২১
বাতিল হল আইসিএসই (দশম শ্রেণির) পরীক্ষা। দেশে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের আবহেই এই সিদ্ধান্ত। সোমবার রাতে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে সিআইএসসিই বোর্ড। সেই সঙ্গে দশম শ্রেণির পড়ুয়াদের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। যদিও আইএসসি (দ্বাদশ শ্রেণির) পরীক্ষা কবে হবে, সে ব্যাপারে আগের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী জুন মাসে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

দেশে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির কথা মাথায় রেখে গত শুক্রবার আইসিএসই এবং আইএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কেন্দ্র। বোর্ডের তরফে জানানো হয়েছিল, জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে পরীক্ষার নয়া সূচির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। বর্তমান কোভিড পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়। সোমবার রাতের নতুন বিজ্ঞপ্তিতে সিআইএসসিই তাদের অনুমোদিত স্কুলগুলিকে নির্দেশ দিয়েছে, অবিলম্বে দশম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীদের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি করার প্রক্রিয়া শুরু করে দিতে। একই সঙ্গে অনলাইনে একাদশ শ্রেণির ওই পড়ুয়াদের পঠনপাঠন শুরু করে দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে নোটিসে।

যদিও দ্বাদশ শ্রেণি অর্থাৎ আইএসসি পরীক্ষা নিয়ে আলাদা করে কোনও সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়নি। নোটিসে বলা হয়েছে, ১৬ এপ্রিলের বিজ্ঞপ্তিতে ‘আইএসসি ২০২১’ পরীক্ষা নিয়ে যে সিদ্ধান্ত হয়েছে, আপাতত তাতে কোনও বদল হচ্ছে না। জুন মাসের প্রথম সপ্তাহেই আইএসসি-র নয়া সূচি নিয়ে সিদ্ধান্ত হবে।
সুত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

রুদ্ধশ্বাস অপেক্ষার পর মঙ্গলের বুকে নাসার মহাকাশযান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২১
রুদ্ধশ্বাস অপেক্ষার শেষ হলো মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার। দীর্ঘভ্রমণ শেষে অবশেষে মঙ্গলের বুকে অবতরণ করলো নাসার মহাকাশযান ‌‘পারসেভারেন্স’। ঐতিহাসিক এই মুহূর্তের জন্য অপেক্ষা করছিলেন নাসার বিজ্ঞানীরা। বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দিনগত রাত ২টা ৫৫ মিনিটে পারসেভারেন্স মঙ্গলে অবতরণ করার সঙ্গে সঙ্গে লস অ্যাঞ্জেলসের জেট প্রপালসন ল্যাবরেটরিতে উল্লাসে মেতে ওঠেন বিজ্ঞানীরা।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, ছয় চাকার এই স্বয়ংক্রিয় রোবট যানটি পৃথিবী থেকে তার ৪৭০ মিলিয়ন কিলোমিটার বা ৪৭ কোটি মাইল পথের যাত্রা শুরু করেছিল সাত মাস আগে। আজ তার যাত্রার অবসান হলো। জাজেরো নামে গভীর গর্তে (ক্র্যাটার) অবতরণ করে রোবট যান পারসেভারেন্স। আগামী দুই বছর মঙ্গলে অবস্থান করে সেখানে পাথর খননসহ সেখানে অতীতে কোনো প্রাণের অস্তিত্ব ছিল কিনা তা জানার চেষ্টা করবে যানটি।

সেইসঙ্গে সেখান থেকে তথ্য ও ছবিও পাঠাবে বিজ্ঞানীদের কাছে। এছাড়া বিলিয়ন বছর আগে সৃষ্টি হওয়া জাজেরো ক্র্যাটারের ধুলাবালুর মধ্যে থেকে নমুনা সংগ্রহ করবে রোবট যানটি, যা বিশ্লেষণ করে দেখা হবে গ্রহটিতে অতীতে জৈব কোনো কর্মকাণ্ডের সন্ধান ছিল কি না। সবচেয়ে লক্ষণযুক্ত ও সম্ভাবনাময় নমুনা পৃথিবীতে পাঠানো হবে ভবিষ্যত মিশনের প্রস্তুতির জন্য।

এর আগে, মঙ্গলগ্রহে নভোযান অবতরণের ১৪টি প্রচেষ্টা নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সফল হয়েছে আটটি আর এর সবগুলোই ছিল যুক্তরাষ্ট্রের মিশন। তবে ১৯৯৯ সালে একবার নাসার মঙ্গল মিশন ব্যর্থ হয়েছিল। এবছর মঙ্গলে আরেকটি সফলতার পালক যুক্ত করলো নাসা।

নাসার জেট প্রপালসন ল্যাবরেটরির পরিচালক মাইক ওয়াটকিনস পারসেভারেন্স টিমের এই সাফল্যকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‌‘এই সাফল্য ভবিষ্যতে লাল গ্রহে (মঙ্গলে) মানুষের যাত্রার পথ তৈরি করবে।’

তিনি বলেন, ‘মঙ্গলে নভোচারী পাঠানোর জন্য আমরা এখনও প্রস্তুত নই, তবে আমরা রোবট পাঠিয়েছি।’

পারসেভারেন্স মঙ্গলে অবতরণের আগ পর্যন্ত উৎকণ্ঠা ছিল সবার মধ্যে। অবতরণের আগে পারসেভারেন্সের উপ-প্রকল্প ব্যবস্থাপক ম্যাট ওয়ালেস বলেন, ‘মঙ্গলের পৃষ্ঠে ভবিষ্যতের মিশন পাঠানোর আগে আমাদের আগে মঙ্গলে ঠিকমত অবতরণ করতে হবে। আর সেটাই সবচাইতে বড় চ্যালেঞ্জ।’

তিনি বলেন, ‘মহাকাশ মিশনে সবচেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জগুলোর অন্যতম হল সফল অবতরণ। মঙ্গলগ্রহে এর আগে যেসব মিশন পাঠানো হয়েছে তার মধ্যে ৫০ শতাংশ যান মঙ্গলের পিঠে সফলভাবে অবতরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে। কাজেই আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ এখন জাজেরোতে রোবট যানটি নিরাপদে নামানো।’

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

কলকাতায় স্কুল খুলছে ১২ ফেব্রুয়ারি

ডেস্ক | ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
ভারতে পশ্চিমবঙ্গে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে স্কুল খলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে স্কুল খুললেও এ শিক্ষাবর্ষে কোন স্কুলের ফি বাড়ানো হবে না বলেই জানিয়েছেন অধিকাংশ স্কুল কর্তৃপক্ষ। -খবর আনন্দবাজারের

দক্ষিণ কলকাতার সাউথ পয়েন্ট স্কুলের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য কৃষ্ণ দামানি জানিয়েছেন, নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির পড়ুয়াদের জন্য স্কুল খুলে গেলেও স্কুল কর্তৃপক্ষ এখনই ফি না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তিনি বলেন, ৩১ মার্চ পর্যন্ত আমাদের স্কুল কোনও রকম ফি বাড়াবে না। করোনার কারণে হাইকোর্টের নির্দেশে পড়ুয়ারা যে ছাড় এখন পাচ্ছে, তা আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্তই পাবে।

একই কথা বলেছেন রামমোহন মিশন স্কুলের অধ্যক্ষ সুজয় বিশ্বাস। তিনি বলেন, হাইকোর্টের রায়ের পরেই আমরা অভিভাবকদের জানিয়ে দিয়েছিলাম, ২০২১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত ফি বাড়ানো হবে না। আদালতের নির্দেশে যে ছাড় পড়ুয়ারা পাচ্ছে, তা আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত পাওয়া যাবে। সেই সিদ্ধান্তই আমরা আপাতত বহাল রাখছি।

তবে লা মার্টিনিয়ারের সচিব সুপ্রিয় ধর জানিয়ে দিয়েছেন, স্কুল খুললেই ফি আগে যা ছিল, সেই অবস্থায় ফিরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের ইচ্ছে আছে, স্কুল খুললেই আমরা আমাদের পুরনো ফি-তে চলে যাব। আমাদের পক্ষে আর কোনও ছাড় দেওয়া সম্ভব নয়।

স্কুল ফি না বাড়ানোর কথা বলা হলেও অভিভাবকদের একটি সংগঠন ‘ইউনাইটেড গার্ডিয়ান্স অ্যাসোসিয়েশন’-এর রাজ্য সম্পাদক সুপ্রিয় ভট্টাচার্য অভিযোগ করেছেন, কয়েকটি স্কুল এখন হাইকোর্টের নির্দেশ না মেনে আগের হারেই ফি নিচ্ছে।

যে সমস্ত পরিষেবা স্কুল এখন দিচ্ছে না, তার ফি-ও নেওয়া হচ্ছে বলে তাঁদের অভিযোগ তার। তিনি বলেন, ৩১ মার্চের পরে নতুন শিক্ষাবর্ষেও যাতে ফি না বাড়িয়ে ২০২০-’২১ সালে ধার্য হওয়া পুরনো ফি নেওয়া হয়, সেই দাবি জানাচ্ছি আমরা। এর জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে স্মারকলিপি পাঠানো হচ্ছে আমাদের তরফে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

স্কুল খোলার পর করোনায় আক্রান্ত কেরালায় ১৮৯ শিক্ষার্থী

ডেস্ক,০৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১।।

করোনার প্রকোপ কমে আসায় ভারতের রাজ্যগুলোয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে শুরু করেছে। তবে এর মধ্যে কেরালায় স্কুল খোলার পর দুটি সরকারি স্কুলের শিক্ষার্থী-শিক্ষকেরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। শিক্ষার্থী-শিক্ষকেরা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরই স্কুল দুটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের রাজ্য কেরালায় কয়েক দিন আগেই দশম থেকে দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ুয়াদের স্কুল খুলে দেওয়া হয়। এরপরই রাজ্যের মালাপ্পুরাম জেলার পাশাপাশি দুটি স্কুলের দশম শ্রেণির ১৮৯ জন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। একই সঙ্গে স্কুলে ৭০ জন শিক্ষক ও কর্মীও আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়।

ইন্ডিয়া টুডে ও দ্য হিন্দুর খবরে বলা হয়েছে, মালাপ্পুরামের এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গত রোববার জেলার মারানচেরিতে একটি সরকারি স্কুলের ১৫০ শিক্ষার্থী ও ৩৪ জন শিক্ষক করোনার আক্রান্ত হয়েছেন। একজন শনাক্ত হওয়ার পরই সবার করোনা টেস্ট করানো হয়েছিল। এর পাশাপাশি পুন্নানি এলাকার ভ্যান্নেরি উচ্চবিদ্যালয়ের ৩৯ শিক্ষার্থী এবং ৩৬ শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

এ দুটি স্কুলের সব শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও স্কুলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীর করোনা টেস্ট করা হয়েছিল। এতজন কীভাবে করোনায় আক্রান্ত হলেন বা করোনা সবার মধ্যে ছড়িয়ে পড়ল, তা খতিয়ে দেখছেন রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

গত বছর জানুয়ারি মাসে কেরালাতেই ভারতের প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিল। এরপর ভারতের করোনার ছড়িয়ে পড়লে কেরালার করোনা মোকাবিলার ধরন সাড়া ফেলেছিল। সেই রাজ্যেই স্কুল খোলার পর এমন পরিস্থিতি হলো। বর্তমানে কেরালায় মোট আক্রান্ত প্রায় ১০ লাখ। রোববার কেরালায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ৭৫ জন, মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের।

করোনা আবহের মধ্য ১১ মাস বাদে ১২ ফেব্রুয়ারিতে স্কুল খুলছে পশ্চিমবঙ্গে। তবে স্কুল খুললেও একগুচ্ছ নির্দেশিকা প্রকাশ করছে রাজ্যগুলো। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকার ৫২ পাতার বিস্তারিত গাইডলাইন প্রকাশ করেছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

‘করোনা ভ্যাকসিন নিলে পুরুষ নারীকণ্ঠে কথা বলবে, নারীদের দাড়ি উঠবে’

আন্তজার্তিক ডেস্ক,১৯ ডিসেম্বর:
করোনাভাইরাস মহামারিকে হেলাফেলা করা বিশ্বনেতাদের মধ্যে অন্যতম ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেইর বোলসোনারো। শুরু থেকেই তিনি প্রাণঘাতী ভাইরাসটিকে ‘সামান্য ফ্লু’ বলে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেছেন। পরে নিজেই আক্রান্ত হয়েছিলেন। তারপরও মত বদলায়নি। বরং ভাইরাসকে অবহেলা করার পাশাপাশি এখন ভ্যাকসিন নিয়েও উল্টাপাল্টা বকতে শুরু করেছেন এই ব্যক্তি।

সম্প্রতি ব্রাজিলিয়ান প্রেসিডেন্ট দাবি করেছেন, করোনা ভ্যাকসিন মানুষকে কুমির বানিয়ে দিতে পারে। এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় ছেলেরা মেয়েকণ্ঠে কথা বলবে আর মেয়েদের দাড়ি উঠবে। একারণে নিজে কখনও এই ভ্যাকসিন নিবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

ব্রাজিলে মার্কিন ফার্মা জায়ান্ট ফাইজার ও জার্মান সংস্থা বায়োএনটেকের তৈরি ভ্যাকসিনের ট্রায়াল হয়েছে কয়েক মাস ধরে। ইতোমধ্যেই ভ্যাকসিনটি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সৌদি আরবের মতো দেশগুলোতে ব্যবহারের অনুমতি পেয়েছে। ব্রাজিলেও শুরুর হয়েছে টিকাদান কর্মসূচি।

এর মধ্যেই গত বৃহস্পতিবার বোলসোনারো বলেছেন, ফাইজারের চুক্তিতে একটা বিষয় পরিষ্কার: আমরা কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার জন্য দায়ী নই।

তিনি বলেন, আপনি যদি কুমিরে রূপান্তরিত হন, সেটা আপনার সমস্যা। যদি অতিমানবে (সুপারহিউম্যান) পরিণত হন, যদি কোনও নারীর দাড়ি উঠতে শুরু করে অথবা কোনও পুরুষ নারীকণ্ঠে কথা বলতে শুরু করেন, তাদের কিছু করার থাকবে না।

গত বুধবার টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধন করেই ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট ঘোষণা দেন, এটা বিনামূল্যে হলেও বাধ্যতামূলক নয়।

তবে বৃহস্পতিবার দেশটির সুপ্রিম কোর্ট রুল জারি করেছেন, করোনা ভ্যাকসিন নেয়া বাধ্যতামূলক, কিন্তু কারও ওপর বলপ্রয়োগ করা যাবে না। অর্থাৎ, কর্তৃপক্ষ চাইলে ভ্যাকসিন না নেয়ায় মানুষজনকে জরিমানা অথবা নির্দিষ্ট জায়গায় প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে পারবে। তবে জোর করে ভ্যাকসিন দেয়া যাবে না।

অথচ সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশকে অনেকটা বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে জেইর বোলসোনারো বলেছেন, তিনি কখনোই করোনা ভ্যাকসিন নেবেন না।

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বলেন, অনেকেই বলবে, আমি বাজে উদাহরণ সৃষ্টি করছি। কিন্তু যারা এসব কথা বলে, সেই নির্বোধদের বলছি, আমি ইতোমধ্যেই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছি, আমার অ্যান্টিবডি রয়েছে। তাহলে আমি কেন ভ্যাকসিন নেব?

অবশ্য করোনায় একবার আক্রান্ত হলে আর হবে না- ব্রাজিলিয়ান প্রেসিডেন্টের এই দাবির পক্ষে এখনও তেমন কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ মেলেনি। বরং বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকজন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে ওঠার পর আবারও আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাছাড়া, একবার আক্রান্ত হওয়ার পর রোগীর শরীরে যে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়, তার প্রতিরোধী ক্ষমতা কতদিন থাকে, সেটাও এখনও নিশ্চিত নয়।

গত জুলাইয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন বোলসোনারো। টানা তিন সপ্তাহ ভোগার পর সুস্থ হন তিনি।

ইতোমধ্যেই বিশ্বে সর্বোচ্চ করোনা সংক্রমিতে দেশের তালিকায় নাম লিখিয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে এপর্যন্ত অন্তত ৭১ লাখ আক্রান্ত এবং ১ লাখ ৮৫ হাজার মানুষ মারা গেছেন। সম্প্রতি সেখানে শুরু হয়েছে মহামারির দ্বিতীয় ঢেউ। গত জুন-আগস্টে ব্যাপক সংক্রমণের পর আক্রান্তের হার কিছুটা কমেছিল। তবে নভেম্বর থেকে সেই পরিস্থিতি আবার বদলে যায়।

গত বৃহস্পতিবার দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন, যা সেপ্টেম্বরের পর থেকে একদিনে সর্বোচ্চ প্রাণহানির রেকর্ড।

সূত্র: এনডিটিভি, এএফপি

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী আততায়ী হামলায় নিহত

স্টার অনলাইন ডেস্ক,নভেম্বর ২৭, ২০২০
ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফখরিজাদাহ রাজধানী তেহরানের কাছে আততায়ী হামলায় নিহত হয়েছেন।

দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে আজ শুক্রবার রাতে বিবিসি এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

তেহরানের দামাবন্দ এলাকায় ফখরিজাদাহর ওপর হামলার পর তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ এই হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে একে কোনো ‘রাষ্ট্রের মদদে’ হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

আন্তর্জাতিক কূটনীতিকরা তাকে ‘ইরানি বোমার জনক’ হিসেবে অভিহিত করতেন।

ফখরিজাদাহ ইরানের সর্বাধিক খ্যাতিমান পরমাণু বিজ্ঞানী এবং অভিজাত ইসলামিক রেভ্যুলেশনারি গার্ড কোরের সিনিয়র কর্মকর্তা।

তিনি দীর্ঘকাল ধরে ইরানের অস্ত্র কর্মসূচিতে প্রধান ভূমিকা পালন করেছেন।

২০১৮ সালে ইসরাইলের প্রকাশিত একটি গোপন নথি থেকে জানা যায়, ইরানের পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির নেতৃত্ব দিতেন ফখরিজাদাহ।

২০১৫ সালে নিউইয়র্ক টাইমস ম্যানহাটন প্রকল্পের পরিচালক জে রবার্ট ওপেনহাইমারের সঙ্গে তার তুলনা করেছিল। এ প্রকল্প থেকেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় প্রথম পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি হয়েছিল।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

একদিনে মৃত ৯ হাজার, সংক্রমিত প্রায় ৬ লাখ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক,২২ নভেম্বর:
প্রাণঘাতী করোনার তাণ্ডবে আবারও বিপর্যস্ত বিশ্ব। শীতের মৌসুম শুরু হতে না হতেই করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। যদিও সুস্থতার সংখ্যাও বাড়ছে উল্লেখযোগ্যহারে।

এদিকে গত একদিনে করোনায় নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ৯ হাজার জনের। একই সময়ে অজানা এই ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন প্রায় ৬ লাখ মানুষ। যার ফলে নতুন করে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করেছে বেশ কয়েকটি দেশ।

করোনা নিয়ে আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, রোববার এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৫ কোটি ৮৪ লাখ 88 হাজার ৫১৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৩ লাখ ৮৬ হাজার ৩৩৪ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৪ কোটি ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৭৭৪ জন।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু বেশি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ কোটি ২৪ লাখ ৫০ হাজার ৬৬৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৬১ হাজার ৭৯০ জনের।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন ৯০ লাখ ৯৫ হাজার ৯০৮ জন এবং মারা গেছে ১ লাখ ৩৩ হাজার ২৬৩ জন।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় ৬০ লাখ ৫২ হাজার ৭৮৬ জনের বেশি মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৬৯ হাজার ১৬ জনের।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২১ লাখ ২৭ হাজার ৫১ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৪৮ হাজার ৫১৮ জন।

পঞ্চম স্থানে থাকা রাশিয়ায় করোনায় সংক্রমণের সংখ্যা ২০ লাখ ৬৪ হাজার ৭৪৮ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৫ হাজার ৭৭৮ জনের।

প্রাণঘাতী ভাইরাসটির সংক্রমণ বাড়ছে বাংলাদেশেও। ২৪ নম্বর অবস্থানে থাকা বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ৪৫ হাজার ২৮১ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৩৫০ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লাখ ৬০ হাজার ৩৫২ জন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মার্কিন নির্বাচন ৫ রাজ্যে তাকিয়ে বিশ্ব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক,৫ নভেম্বর:
নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল কী হতে পারে তা নির্ধারণের জন্য আর হাতে গোনা মাত্র ৫টি রাজ্যের ফল বাকি রয়েছে। এখনো পর্যন্ত বাইডেন পেয়েছেন ২৬৪টি ইলেক্টোরাল কলেজের ভোট এবং ট্রাম্প পেয়েছেন ২১৪টি। হোয়াইট হাউজে যেতে তাদের ২৭০টি ভোট দরকার।

গুরুত্বপূর্ণ যে রাজ্যগুলো এখনো বাকি রয়েছে সেগুলো হলো জর্জিয়া, নেভাদা, পেনসিলভানিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা এবং আলাস্কা। এ ৫ রাজ্যে মোট ভোট রয়েছে ৬০টি।

কয়েকটি উপায়ে বিজয়ী নির্ধারিত হতে পারে। ট্রাম্পকে ২৭০টি ভোট পেতে হলে জর্জিয়া(১৬টি ভোট), নর্থক্যারোলাইনা(১৫), পেনসিলভানিয়া(২০) এবং নেভাদায়(৬) জয় পেতে হবে। এখানে আছে ৫৭ ভোট, আর ট্রম্পের দরকার ৫৬ ভোট।

পেনসিলভানিয়ায় যার ফল আসতে দেরি হতে পারে। এখানে হারলেও জয় পেতে পারেন বাইডেন। তবে তার জন্য তাকে শুধুমাত্র নেভাদায় জয় পেতেই হবে। সেখানে রয়েছে ৬ ভোট। আর বাইডেনের দরকারও মাত্র ৬ ভোট। সেখানে সর্বশেষ খবর অনুয়াযী বাইডেন মাত্র ৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন। খবর ফক্সনিউজের। গণনা চলছে এবং ধারণা করা হচ্ছে যে দিনের শেষের দিকে কর্তৃপক্ষ ফল ঘোষণা করবেন।

জর্জিয়ায় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সব ভোট গণনা না হওয়া পর্যন্ত রাতভর তারা গণনা চালিয়ে যাবেন। নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন বলছে, সেখানে ট্রাম্পের এগিয়ে থাকার ব্যবধান কমে আসছে। সবশেষ এটি ২৪ হাজার ভোটে এসে ঠেকেছে।

নেভাদায় ফল সামান্য ব্যবধানে ঝুলে আছে। বাইডেন মাত্র ৮ হাজার ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। কর্তৃপক্ষ বলছে, পরবর্তী ফল বৃহস্পতিবার তিনটার দিকে ঘোষণা করা হবে। পেনসিলভানিয়ায় ট্রাম্পের ব্যবধান আরো কমে এসেছে। স্থানীয় সময় বুধবার রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত প্রায় ৯০% ভোট গণনা শেষ হয়েছে। ট্রাম্প এক লাখ ৬৪ হাজারের বেশি ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। নর্থ ক্যারোলাইনায় বেশিরভাগ ভোটই গণনা শেষ হয়েছে কিন্তু এখনো অল্প কিছু বাকি আছে। ৭৭ হাজার ভোট নিয়ে অল্প ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প।

ফলে এ ৫ রাজ্যের ৬০ ভোটের দিকে তাকিয়ে আছে গোটা আমেরিকাসহ বিশ্বের অনেক দেশ। পাশাপাশি আমেরিকার বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভ-সমাবেশের খবর পাওয়া গেছে।


Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ভারতে করোনায় আক্রান্ত ৫০ লাখ ছাড়াল

ডেস্ক,১৬ সেপ্টেম্বর:
ভারতে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়েছে। আর দেশটিতে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৮২ হাজারের বেশি মানুষের।

করোনায় আক্রান্তের দিক দিয়ে বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারত। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯০ হাজার ১২৩ জন। এ নিয়ে সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫০ লাখ ২০ হাজার ৩৬০ জন। খবর এনডিটিভির

২৪ ঘণ্টায় ভারতে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ২৯০ জনের। এখন পর্যন্ত একদিনে এটিই সর্বোচ্চ মৃত্যু। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮২ হাজার ৬৬ জনে।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ভারতে করোনা থেকে সুস্থতার হারও বেশি। এখন পর্যন্ত সেখানে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৯ লাখ ৪২ হাজার ৩৬০ জন।

জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর দিক দিয়ে বিশ্বে সবার ওপরে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে ইতোমধ্যে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ১ লাখ ৯৫ হাজার ছাড়িয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬৬ লাখ ৫ হাজার ৭৩৩ জন।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় ৪৩ লাখ ৮২ হাজার ২৬৩ জন আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩৩ হাজার ১১৯ জনের।

বুধবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৯৫ লাখ ৭১ হাজার ৩৩৩ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯ লাখ ৩৪ হাজার ৯৮৬ জন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দূরশিক্ষণ বঞ্চিত বিশ্বের এক-তৃতীয়াংশ শিশু: ইউনিসেফ

নিউজ ডেস্ক, ২৮ আগষ্ট:
করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বিশ্বের প্রায় সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। বিকল্প হিসাবে প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে অনলাইনে পাঠদান চলছে বেশকিছু দেশে। কিন্তু সামর্থ্যের অভাবে এই দূরশিক্ষণে অংশ নিতে পারছে না বিশ্বের স্কুলে পড়ুয়া অন্তত ৪৬ কোটি ৩০ লাখ শিশু।
জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ নতুন এক প্রতিবেদনে স্কুলবঞ্চিত শিশুদের এই পরিসংখ্যান তুলে ধরেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

বৃহস্পতিবারের এই প্রতিবেদনে বলা হয়, দূরশিক্ষা কার্যক্রমে অংশ নেওয়ার মতো প্রযুক্তিগত সুবিধা নেই এই এক-তৃতীয়াংশ শিশুশিক্ষার্থীর। তাছাড়া, দূরশিক্ষণ কার্যক্রমে ধনী ও গরিব শিক্ষার্থীর মধ্যকার প্রকট বৈষম্যও দেখা গেছে।

বিশ্বে অঞ্চলভেদে শিশুদের অনলাইনে শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ-সুবিধার মধ্যে অসমতা তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাব-সাহারা আফ্রিকায় স্কুলে পড়ুয়া যত শিশু আছে তাদের অর্ধেকই দূরশিক্ষণ থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

বিশ্বের দেশে দেশে করোনাভাইরাসের কারণে দেশজুড়ে এবং স্থানীয়পর্যায়ে লকডাউনের বিধিনিষেধের আওতায় প্রায় ১৫০ কোটি স্কুল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্কুলশিশুরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

স্কুলবন্ধ থাকার এই সময়ে ১০০টি দেশের প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, নিম্ন মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে দূরশিক্ষণে অংশ নেওয়ার জন্য ঘরে থাকা প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি ও হাতিয়ার বিশেষত ইন্টারনেট, রেডিও, টিভির সহজলভ্যতার বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রতিবেদন তৈরি করেছে ইউনিসেফ।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, পূর্ব ও দক্ষিণ আফ্রিকার ৬ কোটি ৭০ লাখ, পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকার ৫ কোটি ৪০ লাখ, পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ৮ কোটি, মধ্যপাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকার ৩ কোটি ৭০ লাখ, দক্ষিণ এশিয়ার ১৪ কোটি ৭০ লাখ,পূর্ব ইউরোপ এবং মধ্য এশিয়ার ২ কোটি ৫০ লাখ,এবং ল্যাটিন আমেরিকা ও ক্যারবিয়ান অঞ্চলের ১ কোটি ৩০ লাখ শিশু- অর্থাৎ, সব মিলিয়ে ৪৬ কোটি ৩০ লাখ (৩১ শতাংশ)- স্কুলশিশু দূরশিক্ষণে অংশ নিতে পারেনি।

ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক হেনরিয়েত্তা ফোরে বলেছেন, কয়েক মাস ধরে বিপুল সংখ্যক স্কুলশিশুর পড়াশোনা পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যা তার কথায়, “এক বৈশ্বিক শিক্ষা জরুরি অবস্থা। আগামী কয়েক দশক ধরে যার বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে সমাজ ও অর্থনীতিতে।”

স্কুলশিশুদের এই ক্ষতির কথা ভেবে অনেক দেশই সম্প্রতি নিরাপদ ব্যবস্থা নিয়ে শিশুদের আবার স্কুলে ফেরানোর কথা ভাবছে। এ নিয়ে চলছে আলোচনাও।

এরই মধ্যে ইউনিসেফ বিশ্বে দূরশিক্ষণ বঞ্চিত বিপুল সংখ্যক শিশুর সাম্প্রতিক ওই পরিসংখ্যান দিল। শিশুদের স্কুলে ফেরা কতটা জরুরি-এ পরিসংখ্যানই তা বলে দিচ্ছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter