Home » টপ খবর » ১২০০ বিদ্যালয়ে আবেদন করেও শিক্ষক হতে পারেননি তিনি
পারভীন

১২০০ বিদ্যালয়ে আবেদন করেও শিক্ষক হতে পারেননি তিনি

ডেস্ক | ১৬ অক্টোবর, ২০২১

নবম বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় পাস করেন নরসিংদীর মনোহরদীর শাহনাজ পারভীন। গত ৩০ মার্চ বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তি জারি করলে ১ হাজার ২০০টি উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষক পদে আবেদন করেন তিনি। তাঁর বেসরকারি কলেজেও নিবন্ধন থাকায় ১৯টি কলেজে আবেদন করেন। মোট ১ হাজার ২১৯টি বিদ্যালয়-কলেজের আবেদন ফি, কম্পিউটার দোকানের খরচসহ সব মিলিয়ে প্রায় দেড় লাখ টাকা ব্যয় করেছেন। কিন্তু কোথাও শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাননি শাহনাজ পারভীন।

আরো পড়ুনঃ ক্লিন ফিড শর্ত মেনে বাংলাদেশে ফিরলো জি বাংলা

শাহনাজ পারভীনের বাবা নেই। তাঁরা পাঁচ ভাইবোন। তিন বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। ৩৬ বছর বয়সী শাহনাজ পারভীন বিয়ে করেননি। তিনি বলেন, ‘আমি বাবার বাড়িতে যে অংশ (সম্পত্তি) পাব, তা ভাইদের দিয়ে টাকা নিয়েছি। এখন আমার আর কিছু রইল না।’
৮ অক্টোবর দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সঙ্গে কথা বলেন শাহনাজ পারভীন। যাঁরা আগে নিবন্ধন পেয়েছেন, তাঁদেরকে আগে নিয়োগ দেওয়ার দাবিতে ওই দিন ‘প্যানেলপ্রত্যাশী নিবন্ধিত শিক্ষক সংগঠন’ ব্যানারে আয়োজিত মানবন্ধনে অংশ নিতে এসেছিলেন তিনি।
এত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আবেদনের কারণ জানতে চাইলে শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘আমার সরকারি চাকরির বয়স পেরিয়ে গেছে। পরবর্তী সময়ে এনটিআরসিএতেও আমার আবেদনের সুযোগ না-ও থাকতে পারে। এবার আমার বিষয়ে উচ্চবিদ্যালয়ে ১ হাজার ৫০০টি পদ ছিল। এই নিয়োগের পর হয়তো আর পদ না-ও থাকতে পারে। আমি চেয়েছিলাম, বাংলার যে প্রান্তেই একটা পদ ফাঁকা থাকুক, সেটা যেন আমার হয়। একটা চাকরির আশায় এত টাকা খরচ করেছিলাম।’

অভিযোগ করে এই চাকরিপ্রত্যাশী বলেন, দুই প্রতিষ্ঠানে সিট এখনো ফাঁকা। তারা বলেছে, সিট ফাঁকা, কিন্তু কেউ আবেদন করেননি। অথচ সেখানে তিনি আবেদন করেছিলেন। তাঁকে নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে এনটিআরসিএতে অভিযোগ করেছেন জানিয়ে শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘তারা এখনো আমাকে কিছু জানায়নি। এ ছাড়া নারী কোটায় সাড়ে ৮ হাজার পদ ফাঁকা ছিল, আমি নারী ছিলাম, তা-ও আমাকে নেওয়া হয়নি।’

৮ অক্টোবর দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা অর্ধশতাধিক বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পাওয়া এনটিআরসিএর সনদধারী চাকরিপ্রত্যাশী মানববন্ধনে অংশ নেন। তাঁদের মধ্যে অন্তত ছয়জনের সঙ্গে কথা হয়। তাঁরা প্রত্যেকে জানান, শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার জন্য অনেকগুলো প্রতিষ্ঠানে আবেদন করেছেন। এনটিআরসিএ একটি আবেদনের মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া হলে তাঁরা আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়তেন না। এতে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে এনটিআরসিএ।
এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে এনটিআরসিএর চেয়ারম্যান মো. এনামুল কাদের খান বলেন, আগে নিবন্ধন পরীক্ষা হতো, পাস করলেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা কমিটি নিয়োগ দিয়ে দিত। ২০১৫ সালের পর মেধার ভিত্তিতে সুপারিশ করার সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তার পর থেকে বাছাইয়ের কাজটি হয় অটোমেশনের মাধ্যমে। আবেদনের কোনো সীমাবদ্ধতা না থাকায় যাঁরা খুব কম নম্বর পাওয়া, তাঁরা অনেকগুলো স্কুলে আবেদন করেন। কম নম্বর পেয়ে বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আবেদন করে নিয়োগ না-ও হতে পারে। তাঁরাও এত বেশি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে বলেন না।

৭০ নম্বর পেয়েও নিয়োগ পাননি শেরপুরের নালিতাবাড়ীর হাসিবা আফরিন। তিনি বলেন, ‘২৯৫টি উচ্চবিদ্যালয়ে আবেদন করতে গিয়ে আমার ৩৮ হাজার ৩৫০ টাকা খরচ হয়েছে। আমার স্বামী ধার করে এসব টাকা জোগাড় করেছেন। করোনার মধ্যে এমনিতেই আয়-রোজগার নেই। তার মধ্যে এত টাকা ধার করেছি। এখন কীভাবে শোধ করব, জানি না।’

মাদারীপুরের ঘটমাঝির মো. তাইজুল ইসলাম ৫২০টি উচ্চবিদ্যালয়ে আবেদন করেন। সব মিলিয়ে এতে তাঁর খরচ হয়েছে প্রায় ৭২ হাজার টাকা। তিনি বলেন, ‘একটি আবেদনের মাধ্যমে নিয়োগ হলে আমার এত টাকা খরচ হতো না।’

এ বিষয়ে এনটিআরসিএর চেয়ারম্যান এনামুল কাদের খান বলেন, বিসিএসের মতো একটি আবেদনের মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া যায় কি না, সে বিষয়ে কাজ করছেন তাঁরা। এখানে সমস্যা হলো, অনেকগুলো মামলা আছে, এসব জটিলতার কারণে পারা যায় না। তারপরও চেষ্টা করা হচ্ছে।

এনটিআরসিএ সূত্র জানায়, ২০০৫ সালে এই প্রক্রিয়া শুরুর পর মোট ১৬টি বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা হয়েছে। তার মধ্যে ১৫টি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। এতে ৬ লাখ ৩৪ হাজারের বেশি চাকরিপ্রত্যাশী নিবন্ধিত হয়েছেন। ২০১৫ সাল পর্যন্ত এনটিআরসিএ নিয়োগের সুপারিশ না করায় তখন কত শিক্ষক নিয়োগ পেয়েছেন, সেই তথ্য তাদের কাছে নেই। ২০১৫ সালের পর থেকে এখন পর্যন্ত ৮৬ হাজার ২৮৯ জনকে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করেছে এনটিআরসিএ।

নিবন্ধন পেয়েও চাকরি না হওয়া ব্যক্তিদের দাবি, প্রথমে যাঁরা নিবন্ধন পেয়েছেন, তাঁদের আগে নিয়োগ দিতে হবে। ইতিমধ্যে নিবন্ধনপ্রাপ্তদের নিয়োগ দেওয়া শেষ না করে নতুন করে নিবন্ধনের জন্য পরীক্ষা নেওয়া যাবে না। নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের নতুন করে পরীক্ষার সুযোগ রাখা যাবে না এবং শিক্ষকদের বদলির ব্যবস্থা রাখতে হবে।

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinby feather
Advertisements

About chief editor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এসএসএসি: দিনাজপুর বোর্ডে প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় তদন্ত শুরু

সিজস্ব প্রতিবেদক,২২ সেপ্টেম্বর ২০২২: চলমান এসএসসি পরীক্ষায় কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা খতিয়ে দেখতে কাজ শুরু করেছেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা। শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কামরুল ইসলাম জানান, বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক ...

বিশ্বঃ

প্রফেশনাল কোর্সে ভর্তি আবেদন শুরু আজ, ফি ৩০০ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০ সেপ্টেম্বর ২০২২: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলোতে ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) ১ম বর্ষ প্রফেশনাল কোর্সে ভর্তির আবেদন আজ মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) থেকে শুরু হবে। আবেদন কার্যক্রম বিকেল ৪টা থেকে ...

স্নাতক পাসে দারাজে চাকরি, আবেদন অনলাইনে

ডেস্ক,২০ সেপ্টেম্বর ২০২২: নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে অনলাইন মার্কেট প্লেস দারাজ। প্রতিষ্ঠানটির ফিউচার লিডারশিপ প্রোগ্রামের আওতায় একাধিক লোকবল নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা অনলেইনে আবেদন করতে পারবেন। প্রতিষ্ঠানের নাম: দারাজ ...

বোর্ড

যশোর শিক্ষাবোর্ডের স্থগিত এমসিকিউ পরীক্ষার তারিখ ঘোষনা

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ যশোর শিক্ষাবোর্ডের স্থগিত বাংলা (আবশ্যিক) ২য় পত্রের এমসিকিউ পরীক্ষা ৩০ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) অনুষ্ঠিত হবে। ওইদিন বেলা ১১টায় শুরু হবে। বোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আহসান ...

hit counter