Home » সর্বশেষ খবর

সর্বশেষ খবর

দেশে সরকারি চাকরিতে শূন্যপদ ৩ লাখেরও বেশি

ডেস্ক,১৯ জুলাই:

এই মুহূর্তে দেশে ৩ লাখ ১৩ হাজার ৮৪৮ পদ শূন্য রয়েছে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন। এছাড়া দেশে মোট ১২ লাখ ১৭ হাজার ৬২ জন সরকারি চাকরিজীবী রয়েছে।

রোববার বিকেলে একাদশ সংসদের ৬ষ্ঠ অধিবেশনে মন্ত্রীদের জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে পৃথক তিনটি প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী সংসদকে এ তথ্য জানান। এর আগে, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে দিনের কার্যসূচি শুরু হয়।

সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে ২৯০ জন কর্মকর্তা বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে কর্মরত। সংসদে সরকারি কর্মকর্তাদের ওএসডি’র ব্যাখ্যাও দেন প্রতিমন্ত্রী। বিএনপি’র সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, সরকারি কর্মকর্তাদের দাপ্তরিক বিভিন্ন কারণে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে পদায়ন করা হয়। জনস্বার্থে যেকোনো কর্মকর্তার ক্ষেত্রেই এটি একটি নিয়মিত পদায়ন হিসেবেই বিবেচিত হয়। সাধারণত বিশেষ কিছু কারণে কর্মকর্তাদের বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওএসডি হিসেবে পদায়ন করা হয়।

বিরোধী দল জাতীয় পার্টির দলীয় সংসদ সদস্য মুজিবুল হকের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, বর্তমানের সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ৩ লাখ ১৩ হাজার ৮৪৮ পদ শূন্য আছে। তিনি বলেন, ‘শূন্যপদ পূরণে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় হতে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের ক্যাডার পদে নিয়োগ দেওয়া হয়ে থাকে। বর্তমানে বাংলাদেশে সরকারি কর্ম কমিশনের মাধ্যমে নিয়মিত নিয়োগ হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, ২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৩৭ তম বিসিএস এর মাধ্যমে ১ হাজার ২৪৮ জন কর্মকর্তাকে বিভিন্ন ক্যাডারে, ৩৯ তম বিসিএস এর মাধ্যমে ৪ হাজার ৬১২ জনকে স্বাস্থ্য ক্যাডারে। সর্বমোট ৫ হাজার ৮৫৯ জন কর্মকর্তাকে নিয়োগ করা হয়। এছাড়া ৪০তম বিসিএস এর মাধ্যমে ১ হাজার ৯১৯ টি বিভিন্ন ক্যাডারে শূন্যপদে নিয়োগের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী আরো জানান, ২০১৯ সালের জানুয়ারি হতে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় হতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বিভাগ এবং দপ্তরে ৮৮ হাজার ১২৩টি পদ সৃজনের সম্মতি দেওয়া হয়েছে। এই সময়ে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ৯ম থেকে ২০ তম গ্রেডের সর্বমোট ৮৬৪টি পদে নিয়োগের ছাড়পত্রও দেওয়া হয়েছে। আদালতে মামলা থাকায় নিয়োগবিধি কার্যক্রম শেষ না হয় এবং পদোন্নতি যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া কিছু শূন্যপদ পূরণ করা যায় না বলেও উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

সন্তানকে সরকারি প্রাথমিকে ভর্তি করালেন ইউএনও

ফেনী প্রতিনিধি:
ফেনীর ছাগলনাইয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া তাহের তার একমাত্র পুত্র সন্তান শাদাব হাসানকে (৪) স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করেছেন। বিষয়টি উপজেলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে আলোগন সৃষ্টি করেছে। গত সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে ইউএনও তার পুত্র শাদাতকে ছাগলনাইয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিতে ভর্তি করান।



সন্তানকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির কারণ সম্পর্কে ছাগলনাইয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া তাহের বলেন, আমার ছেলের বয়স অনুযায়ী প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিতে ভর্তি করা উচিত। আমি ছাগলনাইয়ার কয়েকটি কিন্ডার গার্টেন স্কুল পরিদর্শন করে দেখেছি প্রাক-প্রাথমিকের শিশুদের জন্য যে ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন তা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছাড়া অন্য কোথাও নেই।

তিনি বলেন, ছাগলনাইয়া মডেল প্রাইমারি স্কুলে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির শিশুদের শ্রেণি কক্ষসহ প্রয়োজনীয় সকল আসবাবপত্র রয়েছে। তাছাড়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনসহ সকল শিক্ষক যোগ্যতা সম্পন্ন।

ইউএনও বলেন, আমি আশা করব সকল অভিভাবক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাদের সন্তানদের পড়াবেন। সরকারি স্কুলে এখন শিক্ষা ব্যবস্থা পূর্বের তুলনায় অনেক ভালো বলেও দাবি করেন তিনি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

প্রাথমিক সমাপনি প্রস্তুতি-গণিত

১.গুণনীয়ক কাকে বলে ?

উত্তর : কোনো সংখ্যার গুণনীয়ক হচ্ছে সেই সকল সংখ্যা যেগুলো দ্বারা ঐ সংখ্যাটিকে নি:শেষে ভাগ করা যায় ।

২.গুণনীয়কের অপর নাম কী ?

উত্তর : গুণনীয়কের অপর নাম উত্পাদক।

৩.গসাগু বা গরিষ্ঠ সাধারণ গুণনীয়ক কাকে বলে?

উত্তর : একাধিক সংখ্যার সাধারণ গুণনীয়কগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় সংখ্যাটিকে গরিষ্ঠ সাধারণ গুণনীয়ক বা গসাগু বলে।

৪.গুণিতক কাকে বলে?

উত্তর : কোনো একটি নির্দিষ্ট সংখ্যা দ্বারা যে সকল সংখ্যাকে নি:শেষে ভাগ করা যায়, তাদেরকে ঐ নির্দিষ্ট সাংখ্যার গুণিতক বলে।

৫. লসাগু কাকে বলে?

উত্তর : একাধিক সংখ্যার সাধারণ গুণিতকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ছোট সংখ্যাটিকে ঐ নির্দিষ্ট সংখ্যার “লঘিষ্ঠ সাধারণ গুণিতক” বা লসাগু বলে।

৬. কতগুলো সংখ্যার সাধারণ মৌলিক গুণনীয়ক না থাকলে তাদের গসাগু কত?

উত্তর : গসাগু ১।

৭. মৌলিক সংখ্যা কাকে বলে?

উত্তর : কোনো সংখ্যার গুণনীয়ক যদি ১ এবং ওই সংখ্যা হয়, তাহলে সংখ্যাটিকে মৌলিক সংখ্যা বলে।

৮. ১ মৌলিক সংখ্যা না হওয়ার কারণ কী?

উত্তর : ১ এর একটি মাত্র গুণনীয়ক আছে যা ১।

৯. ২৫ থেকে ৪০ পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যাগুলো কী কী?

উত্তর : ২৯, ৩১ ও ৩৭।

১০. ৫ ও ৭ এর গসাগু কত?

উত্তর : ১।

১১. ১৭ ও ১৯ এর গসাগু কত?

উত্তর : ১।

১২. ১১ এর গুণনীয়কগুলো কী কী?

উত্তর : ১ ও ১১।

১৩. ১৮ এর উত্পাদকগুলো লেখ।

উত্তর : ১, ২, ৩, ৬, ৯ ও ১৮।

১৪. ৩ ও ১১ এর লসাগু কত?

উত্তর : ৩৩।

১৫. ৬, ১২, ১৮ ও ২৪ এর গসাগু কত?

উত্তর : ৬।

১৬.৬, ১২, ১৮ ও ২৪ এর লসাগু কত?

উত্তর : ৭২।

১৭. ৫ এর প্রথম চারটি গুণিতক লেখ।

উত্তর : ৫, ১০, ১৫ ও ২০।

১৮.সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম মৌলিক সংখ্যা কোনটি?

উত্তর : ২।

১৯. ৪০টি আম ও ১২০টি লিচু কতজন শিক্ষার্থীর মধ্যে সমানভাবে ভাগ করে দেওয়া যাবে?

উত্তর : ৪০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে।

২০.৩ ও ৪ এর একটি সাধারণ গুণিতক ১২ হলে এর পরবর্তী সাধারণ গুণিতক কত?

উত্তর : ২৪।

 মিরাজুল ইসলাম, প্রভাষক ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

SEO শিখে ঘরে বসে লাখ টাকা আয় করুন। পর্ব-২

শিশির দাস,এমএসসি(পিজিডিসিটি) (এডমিন)

আজ আপনাদের মাঝে SEO টিউটোরিয়াল(পর্ব-২) নিয়ে হাজির হয়েছি।

SEO কত প্রকার ও কি কি:

SEO সাধারনত দুই প্রকার। যথা:

  1. On page SEO,
  2. Off page SEO

Onpage SEO : এক কথায় On page SEO হলো কোন ওয়েব পেজ এর ভিতরে প্রবেশ করে কাজ করা। On page SEO এর মুল কাজ হচ্ছে প্রধানত Keyword Research ও Meat Tag। এ বিষয়ে পরবর্তীতে আমি বিস্তারিত আলোচনা করবো। আর Off page SEO শুরু করার আগে On page SEO ভালোভাবে সম্পন্ন করতে হবে। তা না হলে পুরো পরিশ্রমই মাটি হয়ে যাবে।

Read More »

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য এমএড প্রোগ্রামে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

ডেস্ক,১১ এপ্রিল:

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) স্কুল অব এডুকেশন পরিচালিত মাস্টার অব এডুকেশন (এমএড) প্রোগ্রামে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে (জুলাই-ডিসেম্বর ২০১৯ টার্ম) ভর্তির জন্য শুধুমাত্র অনলাইনে আবেদনপত্র আহবান করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী অনলাইনে আবেদপত্র জমাদানের তারিখ ০৮ এপ্রিল থেকে ২০ মে ২০১৯ রাত ১২:০০ টা পর্যন্ত।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী অনলাইনে আবেদপত্র জমাদানের তারিখ ০৮ এপ্রিল থেকে ২০ মে ২০১৯ রাত ১২:০০ টা পর্যন্ত।

ভর্তির বিজ্ঞপ্তি বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (www.bou.edu.bd) ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

অরিত্রীর আত্মহত্যা: দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র গ্রহণ ৩০ এপ্রিল

বিডি নিউজ : ভিকারুননেসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলায় দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র গ্রহণের জন্য ৩০ এপ্রিল দিন রেখেছে আদালত।

বুধবার ঢাকার মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরী মামলার বাদীকে ওই দিন আদালতে হাজির হওয়ার জন্য নোটিস জারি করে তার উপস্থিতিতে অভিযোগপত্র গ্রহণের এই তারিখ ঠিক করে দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক কাজী কামরুল ইসলাম গত ২৮ মার্চ আলোচিত এ মামলার অভিযোগপত্র জমা দেন। ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস এবং প্রভাতী শাখার প্রধান শিক্ষক জিনাত আরাকে সেখানে আসামি করা হয়।

তবে অভিযোগের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় এজাহারের আরেক আসামি অরিত্রীর শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনাকে এ মামলার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করা হয় তদন্ত প্রতিবেদনে

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

মাদ্রাসা শিক্ষকদের বৈশাখী ভাতার চেক ছাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক,১০এপ্রিলঃ এমপিওভুক্ত মাদরাসার শিক্ষক-কর্মচারীদের ১৪২৬ বঙ্গাব্দের ২০ শতাংশ বৈশাখী ভাতার চেক ছাড় হয়েছে। বুধবার (১০ এপ্রিল) বৈশাখী ভাতার চারটি চেক অনুদান বণ্টনকারী রাষ্ট্রায়াত্ব ব্যাংকে পাঠানো হয়েছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১১এপ্রিল) পর্যন্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা বৈশাখী ভাতার টাকা তুলতে পারবেন।মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ শামসুজ্জামান শিক্ষা বার্তাকেএ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। স্মারক নম্বরঃ ৫৭.২৫.০০০০.০০২.০৮.০০৪.১৯-১৩৪।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

বই হাতে থাকলেই টিকিট ছাড়া ট্রেন ভ্রমণ!

নিজস্ব প্রতিবেদক, ০৭ এপ্রিল, ২০১৯ : বই হাতে থাকলেই নেদারল্যান্ডে টিকিট ছাড়াই ট্রেন ভ্রমণ করা যায়! জানা যায়, গত ১৮ বছর ধরেই সপ্তাহব্যাপী ‘বোকেনউইক’ নামে একটি উৎসব পালন করে চলেছে ডাচ রেল সংস্থাটি। এদিকে, গত এক সপ্তাহ ধরে এ সুবিধা পেয়েছেন সে দেশের ট্রেনযাত্রীরা।

বই পড়ায় উৎসাহ দিতে ১৯৩২ সাল থেকে নেদারল্যান্ডে শুরু হয় সপ্তাহব্যাপী উৎসব ‘বোকেনউইক’। ডাচ শব্দ ‘বোকেন’ এর অর্থ বই। প্রতি বছর এ উৎসবের অংশ হিসেবে দেশজুড়ে চলে নানা ধরনের সাহিত্য উৎসব। বোকেনউইক’-এ নানা সুযোগ সুবিধাও পাওয়া যায়। কেউ কোনো লাইব্রেরির সদস্য হলে, বিনামূল্যে একটা বই দেওয়া হয়। ‘বোকেনউইক’-এর কথা মাথায় রেখেই বিখ্যাত কোনো লেখক একটা বিশেষ উপন্যাস লেখেন। সেই বইটাই এসময় নানাভাবে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয় নেদারল্যান্ডের বাসিন্দাদের। এই বার্ষিক উৎসবের স্পন্সর হিসেবে এগিয়ে এসেছিল ডাচ স্টেট রেলওয়ে কোম্পানি। শুধু বই বিতরণ নয়, ট্রেনের মধ্যেই ইয়ান সিবেলিঙ্কের বুক রিডিং-এর ব্যবস্থাও করেছিল রেল কর্তৃপক্ষ।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

পরীক্ষা কেন্দ্রে স্মার্টফোন নেয়ায় ৭ পরীক্ষার্থী বহিষ্কার

পূর্বধলা (নেত্রকোনা) সংবাদদাতা , ০৬ এপ্রিল, ২০১৯
নেত্রকোনার পূর্বধলায় আজ শনিবার সকালে ইংরেজি প্রথমপত্র পরীক্ষায় স্মার্টফোন দিয়ে অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে হাফেজ জিয়াউর রহমান ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রের সাত এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। পরীক্ষা তত্ত্বাবধায়ক কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নমিতা দে তাদের বহিষ্কার করেন।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. শফিকুল বারী জানান, পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল ফোন রাখা নিষিদ্ধ থাকা সত্ত্বেও হাফেজ জিয়াউর রহমান ডিগ্রি কলেজের পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষায় স্মার্টফোন দিয়ে অসদুপায় অবলম্বন করছিল। এই অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে ওই কেন্দ্রের ভেন্যু জালশুকা-কুমুদগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩১৬৪৩৯, ৩১৬৪৪৬, ৬৯৮২৬১, ৬৯৮২০২, ৬৯৮১৯৯ রোলের ৫ পরীক্ষার্থী ও আমিনা মেমোরিয়াল মহিলা দাখিল মাদ্রাসায় ৬৯৮২০০ ও ৬৯৮১৯৫ রোলের ২ পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়।



Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

যুক্তরাজ্যের স্কুলে সমকামিতার পাঠ বর্জন করে বিক্ষোভ প্রদর্শন মুসলিম শিক্ষার্থীদের

ডেস্ক,৫ এপ্রিল ২০১৯:
লন্ডন: যুক্তরাজ্যের বার্মিংহাম রাজ্যের পার্কফিল্ড কমিউনিটি বিদ্যালয়ের অন্তত ৬০০ মুসলিম শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে সমকামিতা শেখানোর প্রতিবাদে তাদের ক্লাস বর্জন করেছে।

ক্লাস বর্জনকারী শিক্ষার্থীদের বয়স ৪ থেকে ১১ এর মধ্যে হবে এবং তাদের অবিভাবকেরা তাদেরকে নিজেদের ঘরেই উপযুক্ত শিক্ষা দিচ্ছেন, একই সাথে তারা সমকামীদের জীবন ধারার শিক্ষা দেয়ার বিরোধিতা করেন।

আর এর ফলে বিদ্যালয়টির ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থীই সেখান থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করেছে বলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ থেকে জানা গেছে।

‘The Alum Community Rock Forum’ একটি সংগঠন বার্তা সংস্থা ‘Birmingham Live’ কে জানায়, শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষ থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে, কারণ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ‘অভিভাবকদের অধিকার ক্ষুণ্ণ করছে। একই সাথে তারা বিদ্যালয়ে আগ্রাসীভাবে সমকামিতার শিক্ষা দিচ্ছে।’

তারা আরো জানায় যে, ‘অভিভাবকদের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের আলোচনা, আবেদন, বিক্ষোভ এর সব কিছুকেই কর্তৃপক্ষ অগ্রাহ্য করেছে।’

এদিকে সম্প্রতি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এমন আচরণের বিরুদ্ধে এক বিক্ষোভ সভা অনুষ্ঠিত হয় যেখানে অন্তত ৩০০ অভিভাবক অংশগ্রহণ করেন।

কিছু মুসলিম বিরোধী ব্যক্তি এও বলেছেন যে, তারা প্রয়োজনে যুক্তরাজ্য ছেড়ে চলে যাক কিন্তু এরপরেও বিদ্যালয় থেকে সমকামিতার পাঠ বন্ধ করা হবে না।

বিক্ষোভে অংশ নেয়া একজন শিশুর হাতে এরকম লিখা প্ল্যাকার্ড দেখা যায় যে- ‘শিশুদের নিজেদের মত করে বেড়ে উঠতে দেয়া হোক।’

অবিভাবকেরা মূলত বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান এন্ড্রু মোফাতের উপর ক্ষেপে আছেন, কেননা তিনিই বিদ্যালয়ে সমকামিতার পাঠ দেয়ার পক্ষের প্রধান ব্যক্তি।

এর পূর্বে এন্ড্রু মোফাত অন্য একটি বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতেন এবং তিনি সেখানে সমকামীদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করে এরকম একটি পাঠদান শুরু করলে সেখানকার খ্রিষ্টান অভিভাবকদের বিক্ষোভের কারণে তিনি চাকুরী ছেড়ে বর্তমান কর্মস্থলে যোগদান করেন।
প্রসঙ্গত, পার্কফিল্ড কমিউনিটি বিদ্যালয়ের ৭৫০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৯৮ শতাংশই মুসলিম শিক্ষার্থী।

মারিয়াম আহমেদ নামের একজন অভিভাবক যার চার বছর বয়সী মেয়ে বিদ্যালয়টিতে অধ্যয়নরত আছে তিনি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নেয়া এই পাঠ বন্ধ করার জন্য একটি পিটিশন চালু করেন।

তিনি বলেন, ‘সেখানে যা শেখানো হচ্ছে তা সঠিক নয়। বাচ্চারা খুবই কম বয়সের। পাঠের মধ্যে অন্তত নয়টি অংশ রয়েছে কিন্তু বিদ্যালয়ে শুধুমাত্র সমকামিতার বিষয়টির উপরেই গুরত্বারোপ করা হচ্ছে যা আসলে একটি ভুল সিদ্ধান্ত।’

‘আমরা মুসলিম এজন্যই নয় বরং সেখানে খ্রিষ্টান শিক্ষার্থী রয়েছে। সমকামিতার প্রতি আমরা ক্ষুদ্ধ নই কিন্তু আমরা বিদ্যালয়ে এর পাঠ দেয়ার বিরোধী।’

বিদ্যালয়টিতে অধ্যয়নরত ছয় বছরের একজন মেয়ে শিক্ষার্থীর পিতা বলেন, তার স্ত্রী প্রয়োজনে এই দেশ ছেড়ে চলে যেতে রাজি আছে কিন্তু তার মেয়েকে সমকামিতার শিক্ষা দিতে তিনি নারাজ।

তিনি বলেন, ‘সে এধরনের পাঠে অংশ নেয়ার জন্য খুবই কম বয়সী। আমাদের কাছাকাছি বাস করা একটি পরিবার এ জন্যই ইতোমধ্যে পাকিস্তান চলে গিয়েছে।’

কিছু অভিভাবক বলেন, ইসলাম সমকামিতার অনুমোদন দেয় না। অন্যদিকে কেউ কেউ বলেন, তারা এর বিপক্ষে নন কিন্তু তারা বিদ্যালয়ে এর পাঠ দেয়ার বিপক্ষে।

এন্ড্রু মোফাত বলেন, তিনি অভিভাবকদের সাথে আলোচনা করার চেষ্টা করেছেন কিন্তু তিনি তাদের আগ্রাসী মনোভাবের কারণে পিছিয়ে এসেছেন।

তিনি বলেন, ‘এতকিছুর পরেও বিদ্যালয় থেকে আমাকে যে সমর্থন দেয়া হয়েছে তা আসলেই চমৎকার।’

বর্তমানে বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী যাদের বয়স নয় থেকে দশের মধ্যে তাদেরকে বয়ঃসন্ধি এবং বংশবৃদ্ধি সম্পর্কে ধারণা দেয়া হচ্ছে।

আর এগার বছরের শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগত এবং সামাজিক সম্পর্ক, স্বাস্থ্য ও অর্থনীতি সম্পর্কিত পাঠে অংশ নেয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্য সরকার বিদ্যালয় সমূহে ‘ব্যক্তিগত সম্পর্ক’ বিষয়ক পাঠ যেখানে সমকামীদের প্রতি সহমর্মিতার প্রকাশ পায় এমন ধারণা যুক্ত থাকে এধরনের পাঠ বাধ্যতামূলক করেছে।

পার্কফিল্ড কমিউনিটি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়, তারা চান শিক্ষার্থীদের মধ্যে ‘যে কাউকে গ্রহণ করার এবং স্বাগত জানানোর’ মত মনোভাব গড়ে উঠে।

এক বিবৃতিতে তারা জানায়, কর্তৃপক্ষ অভিভাবকদের বিক্ষোভের কারণে হতাশ কিন্তু সফল সমকামিতা শিক্ষা মূলক পাঠ বন্ধ করার কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

সব অপারেটরের ফোরজির গতি কম

ডেস্ক,৪ এপ্রিল: দেশের কোনো মোবাইল ফোন অপারেটরই চতুর্থ প্রজন্মের (ফোরজি) ইন্টারনেট সেবায় নির্ধারিত মাত্রার গতি দিতে পারছে না। চারটি বিভাগে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বুধবার সংস্থাটি ড্রাইভ টেস্টের প্রতিবেদন প্রকাশ করে। রংপুর, রাজশাহী, খুলনা ও বরিশালসহ দেশের ১৮টি জেলার বিভিন্ন এলাকায় পরীক্ষা চালিয়ে এই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। সংস্থাটির পক্ষ থেকে এর আগে রাজধানী ঢাকায় পরীক্ষা চালানো হয়। তখনো একই চিত্র উঠে আসে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, সবচেয়ে বাজে সেবা পাচ্ছে বরিশালবাসী। তবে কোনো জেলাতেই অপারেটরগুলো ফোরজি গতি নিশ্চিত করতে পারেনি। ঢাকার বাইরে ফোরজি সেবা না থাকায়, টেলিটককে এই হিসাবের বাইরে রাখা হয়।

ফোরজি’র গ্রাহকরা ৭ এমবিপিএস (মেগাবিট পার সেকেন্ড) গতি পাওয়ার কথা। সেখানে বাংলালিংক ফোরজিতে গ্রাহকরা পাচ্ছেন ৩ দশমিক ৫৬ এমবিপিএস, রবিতে ৪ দশমিক ৮৯ এবং গ্রামীণফোনে ৫ দশমিক ১ এমবিপিএস।

তবে থ্রিজির ক্ষেত্রে নির্ধারিত ২ এমবিপিএস ডাউনলোড স্পিড অন্য অপারেটরগুলো নিশ্চিত করলেও টেলিটক কোনো বিভাগেই তা দিতে পারেনি।

বিটিআরসির জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) জাকির হোসেন খান শিক্ষা বার্তাকে বলেন, এই ড্রাইভ টেস্ট কমিশনের একটি চলমান কার্যক্রম। এর মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অপারেটরগুলোর সেবার মান সম্পর্কে কমিশন আরও স্পষ্ট ধারণা লাভ করলো। আশা করছি, এর ফলে গ্রাহক সেবার মান বাড়বে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

যে কারণে দায়িত্ব নেননি নাহিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

মন্ত্রিসভায় নতুনদের জায়গা করে দিতে নিজ থেকেই দায়িত্ব নেননি বলে জানিয়েছেন সদ্য বিদায়ী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, আমাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। আমি সততার সঙ্গে তা পালনের চেষ্টা করেছি।

সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিদায় অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন নুরুল ইসলাম নাহিদ।

তিনি বলেন, আমার সময়েই দেশের শিক্ষার মান বিশ্বে একটা কাঙ্ক্ষিত অবস্থানে গিয়ে পৌঁছেছে। বছরের প্রথম দিনে ছাত্রছাত্রীদের হাতে বই পৌঁছে দিতে পেরেছি আমরা। এটা একটি অনন্য সাফল্য।

এদিকে সোমবার বিকেলে বঙ্গভবনে শপথ নেয় নতুন মন্ত্রিসভা। সেখানে স্থান হয়নি টানা দুই মেয়াদে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা নুরুল ইসলাম নাহিদের। তিনিসহ পুরোনো মন্ত্রিসভার বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট সদস্যসহ মোট ৩৬ জন জায়গা পাননি এই মন্ত্রিসভায়।

এদিন বেলা ১১টার দিকে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে আসেন নাহিদ। ১২টার দিকে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে তাকে বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এরপর তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ সূচক বিশ্বের ৪১তম অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশ

ডেস্ক , ৭ জানুয়ারী

বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থানের দুই ধাপ উন্নতি হয়েছে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ টেবিল অনুযায়ী, ২০১৯ সালে ৪১-তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। গত বছর যা ছিল ৪৩ তম। গত ডিসেম্বরে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে আভাস দেওয়া হয়েছে, সামনের বছরগুলোতে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে। ২০৩৩ সাল নাগাদ বিশ্বের শীর্ষ ২৫ বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের তালিকায় নাম লেখাবে বাংলাদেশ।|

‘ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ টেবিল (ডব্লিউইএলটি), ২০১৯’ শিরোনামের সমীক্ষা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইকোনমিকস এন্ড বিজনেস রিসার্চ (সিইবিআর)। সিইবিআর-এর প্রতিবেদনের দশম সংস্করণ এটি। ২০০৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত নেওয়া তথ্য পর্যালোচনা করে মূল্যায়ন করা হয়েছে ১৯৩টি দেশের বার্ষিক অবস্থান। পাশাপাশি ভবিষ্যৎ সম্ভাব্যতা বিচার করে ২০৩৩ সাল পর্যন্ত দেশগুলোর অবস্থানের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। তালিকায় শীর্ষ পাঁচ অর্থনীতির দেশ হিসেবে নাম রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি ও ভারতের।

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লীগ টেবিল অনুযায়ী, আগামী ১৫ বছরে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হবে। ২০২৩ সাল নাগাদ শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৩৬ তম হবে। আর ২০২৮ সাল নাগাদ ২৭ তম অবস্থানে চলে আসবে বাংলাদেশ। ২০৩৩ সাল নাগাদ এ অবস্থান হবে ২৪ তম।

সিইবিআর-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘২০১৮-২০৩৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশে গড়ে ৭ শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধি কামনা করি আমরা। এর মধ্য দিয়ে ২০১৮ সালের তুলনায় ২০৩৩ সালে ১৯ ধাপ অগ্রগতি হয়ে ২৪ তম বৃহত্তর অর্থনীতির দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ।’

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লীগ টেবিল অনুযায়ী, ২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও জাপান যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে থাকবে। তবে ২০৩৩ নাগাদ শীর্ষ অবস্থানে থাকবে যথাক্রমে চীন, যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষায় মেয়েরা এগিয়ে

অনলাইন রিপোর্টার ॥ সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফলে ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা এগিয়ে রয়েছে। গত শুক্রবার (৫ অক্টোবর) অনুষ্ঠিত ভর্তি পরীক্ষার ফল রবিবার প্রকাশিত হয়। ফলাফলে দেখা যায়, পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী মোট ৬৩ সহস্রাধিক পরীক্ষার্থীদের মধ্যে থেকে ৩৬টি সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য জাতীয় মেধা তালিকায় স্থান পেয়েছেন চার হাজার ৬৮ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. আবদুর রশীদ জানান, সরকারি মেডিকেল কলেজে সুযোগপ্রাপ্ত চার হাজার ৬৮ জনের মধ্যে ছেলেদের সংখ্যা এক হাজার ৬৫৪ জন ও মেয়েদের সংখ্যা দুই হাজার ৪১৪ জন। শতকরা হিসাবে ছেলে ৪০ ভাগ ও মেয়ে ৬০ ভাগ।

সরকারি মেডিকেল কলেজগুলোর মধ্যে রাজধানীর ঢাকা মেডিকেল কলেজকেই সেরা কলেজ বলে সবার কাছে পরিচিত। আজ প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায়, এ কলেজে সুযোগপ্রাপ্ত শীর্ষ ১২ জন শিক্ষার্থীর ৬ জনই মেয়ে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস প্রথম বর্ষের (২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষ) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে কেন্দ্রীয়ভাবে রাজধানীসহ সারা দেশের ১৯টি কেন্দ্রের ২৭টি ভেন্যুর ৮১৪টি কক্ষে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হয়। চলতি বছর ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনকারী ৬৫ হাজার ৯১৯ জনের মধ্যে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল ৬৩ হাজার ২৬ জন।

১০০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নপত্রে নেয়া পরীক্ষায় পাস নম্বর ৪০। ৪০ নম্বর পেয়ে সরকারি ও বেসরকারি উভয় মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েছেন ২৪ হাজার ৯৬৮ জন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

ঢাবি ‘ক’ ইউনিটে ফেল ৮৭ শতাংশ

ঢাবি প্রতিনিধি,৩ অক্টোবর: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে কলা অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষার ফল বুধবার প্রকাশিত হয়েছে। এ বছর ‘ক’ ইউনিটের পরীক্ষায় অংশ নেয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৮৭ শতাংশ ফেল করেছে। পাস করেছে ১৩ শতাংশ। ঢাবির উপাচার্য ড. আখতারুজ্জামান প্রশাসনিক ভবনের কেন্দ্রীয় ভর্তি অফিসে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশ করেন।

পরীক্ষার বিস্তারিত ফলাফল এবং ভর্তিপ্রক্রিয়া সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে (admission.eis.du.ac.bd) জানা যাবে। এ ছাড়া DU KA ও রোল নম্বর লিখে ১৬৩২১ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে ফিরতি এসএমএসে ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা ফল জানতে পারবেন। প্রকাশিত ফল অনুযায়ী, ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ১ হাজার ৭৫০টি আসনের বিপরীতে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী সংখ্যা ১০ হাজার ১১৭। যা শতকরা হারে ১৩ দশমিক ০৪ ভাগ। এ বছর ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৮১ হাজার ৯৬ জন। পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ৭৭ হাজার ৫৭২ শিক্ষার্থী।

পাসকৃত সকল শিক্ষার্থীকে আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষার ওয়েবসাইটে বিস্তারিত এবং বিষয় পছন্দক্রম ফরম পূরণ করতে বলা হয়েছে। এছাড়া কোটায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ৮ থেকে ১৫ অক্টোবরের মধ্যে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অফিস হতে সংগ্রহ করে সঠিকভাবে পূরণ করে ডিন অফিসে জমা দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। ফল নিরীক্ষণের জন্য ফি প্রদান সাপেক্ষে আগামী ৪ থেকে ১১ অক্টোবরের মধ্যে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অফিসে আবেদন করা যাবে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এ বছর ১ হাজার ৭৫০টি আসনের জন্য ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৮১ হাজার ৯৬ জন।Facebooktwitterlinkedinrssyoutube

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter