বিনোদন খবর

কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী ও সুরকার লাকী আখন্দ আর নেই

বিনদোন ডেক্স,২১ এপ্রিল : কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী ও সুরকার লাকী আখন্দ মারা গেছেন। শুক্রবার (২১ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৬টার দিকে তিনি গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে মিডফোর্ড হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। এর আগেও ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে কিংবদন্তি এই সংগীতশিল্পী অসুস্থ হন। ‘শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশন’ সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবী এরশাদুল হক টিংকু এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। যিনি লাকী আখন্দকে নিয়মিত দেখভাল করছিলেন।

এরশাদুল হক টিংকু বলেন, টানা আড়াই মাস হাসপাতালে জীবন শেষে গেল সপ্তাহে আরমানিটোলার নিজ বাসায় ফিরেছিলেন কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী লাকী আখন্দ। এতদিন ভালোই ছিলেন। তবে আজ (২১ এপ্রিল) দুপুর নাগাদ তার শরীরের অবনতি ঘটে। দ্রুত নিয়ে যাওয়া হয় মিটফোর্ড হাসপাতালে। সেখানে সন্ধ্যা সাড়ে ছ’টা নাগাদ কর্তব্যরত চিকিৎসক লাকী আখন্দকে মৃত ঘোষণা করেন।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি বরেণ্য এ শিল্পীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে বিএসএমএমইউ-এর সেন্টার ফর প্যালিয়েটিভ কেয়ারের ভর্তি করা হয়। তিনি সেখানে অধ্যাপক নেজামুদ্দিন আহমেদের অধীনে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গেল সপ্তাহে শরীরের অবস্থা উন্নতি হলে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, গুণী এই সংগীতজ্ঞ অনেক দিন ধরেই মরণব্যাধী ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করছিলেন। ছয় মাসের চিকিৎসা শেষে থাইল্যান্ডের ব্যাংকক থেকে ২০১৬ সালের ২৫ মার্চ দেশে ফেরেন তিনি। সেখানে কেমোথেরাপি নেওয়ার পর শারীরিক অবস্থার অনেকটা উন্নতি হয়েছিল তার। একই বছরের জুনে আবারও থেরাপির জন্য ব্যাংকক যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে পরে আর তার সেখানে যাওয়া হয়ে উঠেনি।

অসুস্থতার প্রথম থেকেই লাকী আখন্দ ও তার পরিবার কোনও রকম আর্থিক সহযোগিতা গ্রহণের বিষয়ে বেশ কঠোর ছিলেন। দেশের শীর্ষ শিল্পীদের উদ্যোগে সহযোগিতা করতে চাইলেও বিনয়ের সঙ্গে লাকী আখন্দ সেটি গ্রহণে অনাগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। গুণী কিংবা অভিমানী এই মানুষটি অন্যের সাহায্য-সহযোগিতায় নিজের চিকিৎসা চালাতে মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলেন না। তবে ব্যাংককে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় এই সংগীতকারের চিকিৎসার জন্য পাঁচ লাখ টাকা সহায়তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রীয় ভালোবাসা হিসেবে সেটি তিনি গ্রহণ করেছেন স্বাচ্ছন্দে।

লাকী আখন্দের উল্লেখযোগ্য গানের মধ্যে রয়েছে— ‘এই নীল মনিহার’, ‘আমায় ডেকো না’, ‘কবিতা পড়ার প্রহর এসেছে’, ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’, ‘মামনিয়া, ‘বিতৃঞ্চা জীবনে আমার’, ‘কি করে বললে তুমি’ ‘লিখতে পারি না কোনও গান, ‘ভালোবেসে চলে যেও না’ প্রভৃতি।

স্বাধীনতার পর পর নতুন উদ্যমে বাংলা গান নিয়ে কাজ শুরু করেন। তার নিজের সুর করা গানের সংখ্যা দেড় হাজারেরও বেশি। শিল্পীর সহোদর ক্ষণজন্মা হ্যাপী আখন্দের সাথে ছিলো তার আত্মার সম্পর্ক। ভাইয়ের মৃত্যুর পর দীর্ঘকাল তিনি নিজেকে গুটিয়ে রেখেছিলেন। দুজনের যৌথ প্রয়াসে সূচিত হয়েছিলো বাংলা গানের এক নতুন ধারা।

লাকী আখান্দের জন্ম ১৯৫৬ সালের ১৮ জুন। লাকী আখন্দ আধুনিক বাংলা সঙ্গীতের খ্যাতিমান শিল্পী, সুরকার ও সংগীত পরিচালক। শৈশব কেটেছে ঐতিহ্যবাহী পুরান ঢাকার পাতলা খান লেনে। ৫ বছর বয়সেই তিনি তার বাবার কাছ থেকে সংগীত বিষয়ে হাতেখড়ি নেন। তিনি ১৯৬৩-১৯৬৭ সাল পর্যন্ত টেলিভিশন এবং রেডিওতে শিশু শিল্পী হিসেবে সংগীত বিষয়ক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। তিনি মাত্র ১৪ বছর বয়সেই এইচএমভি পাকিস্তানের সুরকার এবং ১৬ বছর বয়সে এইচএমভি ভারতের সংগীত পরিচালক হিসেবে নিজের নাম যুক্ত করেন।

ফের স্ত্রীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ ছবি পোস্ট সামির

সমালোচকদের টুইটারে জবাব দিয়েছিলেন আগেই। এবার নতুন করে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে তোলা অন্তরঙ্গ ছবি পোস্ট করে মোহম্মদ সামি নতুন ইয়র্কার ছুঁড়লেন।

ঘটনার সূত্রপাত গত রবিবার। স্ত্রী, কন্যার সঙ্গে একটি ছবি টুইট করেছিলেন সামি। হঠাৎ একদল প্রশ্ন তোলেন, কেন হিজাব পরেননি সামির স্ত্রী। সেটা যে তিনি ভালভাবে নেননি সেটা পর দিনই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন টুইট করে। লিখেছিলেন, “সবাই যা চায় তা পায় না। যাদের ভাগ্য ভাল তারাই পায়। ওরা আমার স্ত্রী ও কন্যা তাই আমি জানি আমি কী করব। ’’

তাত্ক্ষণিক জবাব যেমন দিয়েছিলেন, তেমনি পরের দিস রবিবার, নতুন করে বুঝিয়েও দিলেন, যা ঠিক মনে করেছেন, তা আবারও করবেন। কিছু মানুষের অকারণ সমালোচনায় পিছিয়ে যাওয়ার মানুষ তিনি নন। আজকের টুইটে স্ত্রীকে নতুন বছরের শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন কবিতার মধ্যে দিয়ে।

এই মুহূর্তে চোটের জন্য জাতীয় দলের বাইরে রয়েছেন সামি। হাঁটুর চোটের চিকিৎসা চলছে। বেশ কয়েক বছর ধরেই ঘুরে ফিরে চোটের কবলে দলের বাইরে চলে যেতে হয়েছে। সদ্য শেষ হওয়া ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজেও শেষ দুটি ম্যাচ খেলতে পারেননি তিনি। ওয়ানডেতেও খেলার সম্ভবনা নেই। এই অবস্থায় পরিবারের সঙ্গেই বেশি সময় কাটাচ্ছেন তিনি। তার উপর এই অযাচিত হস্তক্ষেপে রীতিমতো বিরক্ত দেশের এই প্রতিভাবান পেসা

অপু বিশ্বাসের বিয়ে আজ !

বিনোদন ডেস্ক : ব্যক্তি জীবনে শাকিব অধ্যায়ের অবসান ঘটিয়ে অবশেষে বিয়ে করতে যাচ্ছেন ঢাকাই ছবির জনপ্রিয় নায়িকা অপু বিশ্বাস।

রাজধানী ঢাকার উত্তরার একটি কমিউনিউটি সেন্টারে পারিবারিক আয়োজনে ঘরোয়া পরিবেশে বিয়ে হচ্ছে এই নায়িকার। পাত্র যশোরের ছেলে তন্ময় বিশ্বাস।

তিনি পেশায় এজজন আইটি বিশেষজ্ঞ। স্বনামধন্য একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে আইটি ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এমনই এক চমকপ্রদ খবর জানালেন ‘সত্তা’ চলচ্চিত্রের চরিত্রাভিনেতা জিতু নোটা। তিনি অপুর হবু স্বামী তন্ময়ের বন্ধুও বলে জানা গেছে।

আজ বুধবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে জিতু নিজের ফেসবুক ওয়ালে তন্ময় ও অপুর ছবি পোস্ট দিয়ে ক্যাপশন স্ট্যাটাসে লেখেন, ‌‘শাকিব খান নয়, তন্ময় বিশ্বাসকে বিয়ে করছেন অপু বিশ্বাস। আজ রাতে ঢাকার এক হোটেলে দুই পরিবার একসাথে তাদের বিয়েতে থাকবেন বলে জানান অপু।’

 

apu-120161214143905

স্ট্যাটাসটি কিছুক্ষণ পর ফেসবুক থেকে সরিয়ে দেন জিতু। পরে তার সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘অপু বিশ্বাসের বিয়ের ঘটনা সত্যি। আজ বুধবার রাতেই (১৪ ডিসেম্বর) যশোরের ছেলে তন্ময় বিশ্বাসের সঙ্গে তার বিয়ে হবে।’

জিতু বলেন, ‘তন্ময় সম্পূর্ণই শোবিজের বাইরের মানুষ। অপু বিশ্বাসের অন্ধ ভক্ত তিনি। ব্যক্তিগত চেষ্টায় অপুর সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং বিয়ের প্রস্তাব দেন। বিষয়টি দুজনের পরিবারে জানাজানি হলে তারা সম্মতি দেন এবং বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

অপু বিশ্বাস সম্প্রতি ভারতে পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন বলে খবর রটেছে। এইসব তন্ময় জানেন কি না জানতে চাইলে জিতু  বলেন, ‘সবই মিথ্যে গুজব। অপু বিশ্বাসের কোনো সন্তান হয়নি। অপু বিশ্বাসের সঙ্গে শাকিব খানকে নিয়ে যতো গল্প সেগুলোও সাজানো। অপু বিশ্বাস বাংলাদেশেই আছেন। আজ রাতেই সব প্রমাণ পেয়ে যাবেন সবাই।’

অন্তরঙ্গ দৃশ্যে আদিত্য-শ্রদ্ধা (ভিডিও)

বিনোদন ডেস্ক :

 আদিত্য রয় কাপুরের সঙ্গে আশিকি-টু সিনেমায় প্রথম জুটি বেঁধেছিলেন শ্রদ্ধা কাপুর। তখন এ জুটির রসায়ন দর্শকের মনেও ধরেছিল।

এবার এ জুটিকে নিয়ে ওকে জানু শিরোনামের সিনেমা নির্মাণ করছেন সাদ আলি। সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটির ট্রেইলার। এতেও দেখা যায় শ্রদ্ধা-আদিত্যর রসায়ন।

ট্রেইলারে দেখা যায়, আদিত্য ও শ্রদ্ধা জুটি হিসেবে লিভ টুগেদার করতে চায়, কোনো প্রকার প্রতিজ্ঞা ছাড়া। স্থাপত্যবিদ্যায় লেখাপড়া করতে প্যারিস যেতে চায় শ্রদ্ধা। অন্যদিকে মার্ক জাকারবার্গের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চায় আদিত্য। তার আগে একসঙ্গে থাকতে চায় তারা।

পরস্পরের সঙ্গ বেশ ভালোই উপভোগ করেন তারা। ট্রেইলারে তাদের বেশকিছু অন্তরঙ্গ দৃশ্যও দেখা গেছে। কিন্তু সমস্যা তৈরি হয় যখন শ্রদ্ধা প্যারিসে পড়তে যাওয়ার চিঠি পায়। এরপরই নিজের মধ্যে সম্পর্কের বিষয়টি বুঝতে পারেন তারা।

ওকে জানু সিনেমাটি মনি রত্নম পরিচালিত ও কাদাল কানমানি সিনেমার রিমেক। এমনকি ওকে জানু সিনেমার পরিচালক সাদ আলি মনি রত্নমের সহকারী হিসেবে কাজও করেছেন। সিনেমাটির সংগীত পরিচালনা করেছেন এ. আর রহমান। আগামী ১৩ জানুয়ারি মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

‘চুমু খেতে খেতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছিলাম’

বিনোদন ডেস্ক :

৯ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে রণবীর সিং ও বাণী কাপুর অভিনীত সিনেমা বেফিকরে। সিনেমায় এ জুটির চুমুর কারণে শুরু থেকেই আলোচনায় তারা।

 

সিনেমার পোস্টার থেকে শুরু করে টিজার, ট্রেইলার এমনকি গানেও দেখা গেছে রণবীর-বাণীর চুমু। শোনা যাচ্ছে, সিনেমায় তাদের ২৩টি চুমুর দৃশ্য রয়েছে।

 

সম্প্রতি সিনেমার প্রচারণায় রণবীরের সঙ্গে তার চুমু প্রসঙ্গে কথা বলেছেন বাণী কাপুর। তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, সিনেমা আমি রণবীর সিংকে চুমু খেয়েছি কিন্তু আপনি কতবার কাউকে চুমু খেয়েছেন এটা কে গুনে রাখে? প্রথম প্রথম এটা অন্যরকম লাগত কিন্তু  পরবর্তীতে চুমু খেতে খেতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছিলাম। এখন যদি কেউ রণবীরকে বার বার চুমু খেতে বলে আমার কোনো সমস্যা নেই। এটি কাউকে আলিঙ্গন করার মতো। আলিঙ্গন করার সময় কেউ গুনে রাখে না। আর আলিঙ্গন করা কোনো উদ্ভট বিষয়ও নয়। সুতরাং এটি আমাদের কাছে এখন স্বাভাবিক একটি বিষয়।’

 

বেফিকরে সিনেমার গল্পে দেখা যাবে রণবীর ও বাণী দুজনেই বেশ স্বাধীনচেতা। এরপর তাদের দুজনের দেখা হয় প্যারিসে। তারপর থেকেই তাদের মধ্যে সম্পর্ক তৈরি হয়। এতগুলো চুম্বন দৃশ্য থাকলেও সিনেমায় বাড়াবাড়ি কোনো অন্তরঙ্গ দৃশ্য নেই বলে জানা গেছে। সিনেমাটির চিত্রনাট্য, প্রযোজনা এবং পরিচালনা করছেন আদিত্য চোপড়া।

 

দিলীপ কুমার আইসিইউতে

ভারতের কিংবদন্তি চলচ্চিত্র অভিনেতা দিলীপ কুমার (৯৩) অসুস্থ হয়ে মুম্বাইয়ের লীলাবতী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

মঙ্গলবার পায়ের ব্যথা, জ্বর এবং শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিউ) রেখে তার চিকিৎসা চলছে।

৯৩ বছর বয়সী দিলীপ কুমার আগামী ১১ ডিসেম্বর ৯৪ বছরে পা রাখবেন। এর আগেই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলো।

দিলীপের স্ত্রী সায়রা বানু বোম্বে টাইটমসে বলেছেন, আমি তাকে নিয়মিত চেক-আপের করানোর পরিকল্পনা করছিলাম। কিন্তু তার পা ফুলে যাওয়ার ঘটনায় আমি সতর্ক হয়ে যাই। তিনি ঠাণ্ডা এবং কাশির কষ্টেও ভুগছিলেন। দিলীপ সাবের স্বাস্থ্যের কোনো সমস্যার বিষয়কেই আমি অবহেলা করি না।

তিনি বলেন, চিকিৎসকরা দিলীপ কুমারের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন এবং পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। আমি আশাবাদী গুরুতর কিছু হয়নি। ইনশাল্লাহ আগামী রোববার ৯৪তম  জন্মদিনের আগেই তাকে বাড়ি নিয়ে যেতে পারব।

এর আগে চলতি বছরের এপ্রিলে জ্বরের কারণে দিলীপ কুমারকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, দিলীপ কুমার একজন মুসলিম অভিনেতা এবং তার আসল নাম ইউসুফ খান।

তিনি ‘আন’, ‘দাগ’, ‘দেবদাস’, ‘মধুমতি’, ‘মুঘলে আজম’, ‘রাম অউর শ্যাম’সহ বিখ্যাত সব চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে দিলীপ কুমার নামে খ্যাত হন।

অভিনয়ে অবদানের জন্য ১৯৯১ সালে পদ্মভূষণ সম্মানে ভূষিত হন তিনি। ১৯৯৮ সালে চলচ্চিত্র জগত থেকে সরে আসেন। তার সর্বশেষ চলচ্চিত্রের নাম ‘কিলা’। তিনি ১৯৯৮ সালে দাদাসাহেব ফালকে এবং ২০১৫ সালে পদ্মবিভূষণ সম্মাননা লাভ করেন।

ফের নতুন বিড়ম্বনার সম্মুখীন ঐশ্বরিয়া-রণবীর

1478093928_37অনলাইন ডেস্ক॥ ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন ৪৩-এ পা দিলেন। সাবেক বিশ্ব সুন্দরীকে তার জন্মদিনে চমকে দিলেন রণবীর কাপুরের মা নীতু কাপুর। নিতু কাপুর নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে যা পোস্ট করলেন তাতে করে ফের বিড়ম্বনার সম্মুখীন হতে পারেন বচ্চন পরিবারের পুত্রবধূ ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন।

সম্প্রতি বেশ কিছুদিন ধরেই করণ জোহরের ‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল’এ ঐশ্বরিয়া আর রণবীরের অন্তরঙ্গ দৃশ্য ঘিরে তো আর কম পানি ঘোলা হলো না। একদিকে রয়েছেন বলিউড বিগ বি অমিতাভ বচ্চন। তারই তীব্র আপত্তিতে পরপুরুষের সঙ্গে নিজ ছেলের বউয়ের দুঃসাহসী দৃশ্যগুলোকে বাদ দিতে হয়েছে সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন। অন্য দিকে আগুনে ঘি ঢালার মানুষেরতো অভাব নেই। নয় বছরের ছোট ছেলের সঙ্গে অভিনয়েও এমনটা করতে বাধল না ঐশ্বরিয়ার তা নিয়ে তো কানাঘুষা চলছেই।

এমনই একটি স্পর্শকাতর সময়ের মধ্যেই চরম বোমাটি ফাটালেন নীতু। নিতু কাপুর প্রমাণ করে দিলেন, ঐশ্বরিয়া আর রণবীর অনেক দিন ধরেই পরস্পর পরস্পরকে বেশ পছন্দ করেন। আর এই ঘটনার সূত্রপাত রণবীরের ছোটবেলা থেকেই। নিতু কাপুর তার নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে রণবীর আর ঐশ্বরিয়ার একটা পুরনো অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি শেয়ার করে তার কথার সত্যতারও পরিচিয় দিয়েছেন।

ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করা সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ঋষি-নীতু কাপুরের বাড়ির একটা সোফায় বসে রয়েছেন ঐশ্বরিয়া। আর, তার সামনে মাটিতে বসে আছেন রণবীর। মন দিয়ে, অনুরাগী এক ভক্তের মতো তিনি নায়িকার একটা ছবি আঁকছেন। এর পরে আর কী বা বলার থাকতে পারে!

এ পর্যন্ত কাউকে চুমু খাননি ঐশ্বরিয়া!

aishwarya-rai-bachchanবিনোদন ডেস্ক:এ পর্যন্ত সিনেমায় কাউকে-ই চুমু খাননি বলে দাবি করেছেন বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। বলিউডের অনেক জনপ্রিয় সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। দেখা গেছে অনেক অন্তরঙ্গ দৃশ্যেও। কিন্তু, ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনই দাবি নায়িকার।

গতকাল শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে ঐশ্বরিয়া অভিনীত ‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল’ ছবি। এতে কিছু দৃম্য নিয়ে শ্বাশুরির কথাও শুনতে হচ্ছে ঐশ্বরিয়াকে। সিনেমাটিতে ঐশ্বরিয়া-রণবীরের বেশ কিছু অন্তরঙ্গ দৃশ্য রয়েছে। এ নিয়ে চলছে জোর সমালোচনা। তারপরই এ নিয়ে খোলামেলা বক্তব্য দেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে ঐশ্বরিয়া তার অভিনীত সিনেমা ধরে ধরে ব্যাখ্যা দেন। তারপর তিনি বলেন, ‘ব্রাইড অ্যান্ড প্রেজুডিস সিনেমায় আমার একটা চুমু খাওয়ার দৃশ্য ছিল। দৃশ্যটি নিয়ে পরিচালক গুরিন্দরকে বলেছিলাম- এই দৃশ্যটা বাদ দাও! এটা তোমার সিনেমার চিত্রনাট্যে তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়। কিন্তু গুরিন্দরও ছাড়বে না। শেষ পর্যন্ত শটটা এমনভাবে নেওয়া হয়েছিল যাতে মনে হয়- আমরা চুমু খাচ্ছি। কিন্তু বাস্তবে ওসব কিছুই ঘটেনি।’

লীনা যাদবের শব্দ সিনেমাতেও আমার চুমু খাওয়ার দৃশ্য ছিল। সেখানেও একই ভাবে শটটা নেওয়া হয়েছিল। আমার সব সময়ই এটা মাথায় থাকে যে, লোকে এ বিষয়টি নিয়ে কী কী বলতে পারে? পাবলিক ফিগার বলে আমি এসব স্পর্শকাতর ব্যাপারে নিজের দায়িত্ব এড়িয়ে যেতে পারি না, বলেন ঐশ্বরিয়া।

‘ধুম ২’ সিনেমাটি করার সময়েও সচেতন ছিলেন ঐশ্বরিয়া। কিন্তু দৃশ্যটি দেখে যাতে মনে না হয় এটি নকল চুমু। ঐশ্বরিয়ার এমন বক্তব্যের পর তার বক্তদের মনে প্রশ্ন উঠেছে তবে কী অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল সিনেমাতেও ঐশ্বরিয়ার নকল চুমু?

আজ শ্যামাপূজা

আজ শনিবার শ্যামাপূজা। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব এটি। এ উৎসব কালীপূজা নামেও পরিচিত।

উৎসব উপলক্ষে সারা দেশেই রয়েছে নানা কর্মসূচি। এরমধ্যে কেন্দ্রীয়ভাবে পূজা উদযাপিত হবে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দিরে।

এছাড়া রাজধানীর রমনা কালীমন্দির ও মা আনন্দময়ী আশ্রম, সিদ্বেশ্বরী কালীমন্দির, রায়েরবাজার শেরেবাংলা রোড কালীমন্দিরসহ বিভিন্ন স্থানে পূজা উদযাপিত হবে।

ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে অন্তরঙ্গ দৃশ্যে সুযোগ পেয়েই চার হাঁকিয়েছি’

করণ জোহর পরিচালিত `অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল` ছবিতে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন ও রণবীর কাপুরের `হট কেমিস্ট্রি` কম জলঘোল হয়নি। তবে এতোদিন এ প্রসঙ্গে মুখ খুলেননি রণবীর। এবার জানালেন, সুযোগ ছিল, তার সদ্ব্যবহার করেছি। এছাড়া ঐশ্বরিয়াও তাকে বলেছিলেন, ঘনিষ্ঠ হোক বা যেকোনো দৃশ্য, নিখুঁতভাবে করতে হবে।

তবে ছবি মুক্তির পর জানা গেছে, ছবিতে মুখ্য নারীর চরিত্রে রয়েছেন আনুশকা শর্মা। তবে প্রথম থেকে আলোচনায় ছিল ছবিতে ঐশ্বরিয়া-রণবীরের ঘনিষ্ঠ দৃশ্য। রণবীরের থেকে আট বছরের বড় বচ্চনবধূ। কিন্তু এই জুটিই ছবির সব আকর্ষণ কেড়ে নিয়েছে।

রণবীর মজা করে বলেন, ‘তখনি আমি চিন্তা করলাম, এমন সুযোগ আর আসবে না। তাই সুযোগ পেয়েই চার হাঁকিয়ে দিলাম।’ এক প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এমনটাই জানিয়েছে ভারতীয় পত্রিকা টাইমস অব ইন্ডিয়া।

এক রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রণবীর বলেন, প্রথমে তিনি দ্বিধাগ্রস্থ ছিলেন, কীভাবে তিনি ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে এ ধরনের ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করবেন? তারপর নায়কের দাবি, ঐশ্বরিয়া তাকে ডেকে বলেন, ছবির প্রতিটি দৃশ্য যেন নিখুঁত হয়। এরপরই রণবীর ভেবে নেন, সুযোগের সদ্ব্যবহার করবেন তিনি, এবং সত্বঃস্ফূর্তভাবে সেই অভিনয় ফুটিয়ে তুলবেন।

মহাসমারোহে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

মহাষষ্ঠীতে বোধনের মধ্য দিয়ে বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা শুক্রবার (৭ অক্টোবর) থেকে শুরু হয়েছে।

মহাশক্তি মহামায়া দুর্গতিনাশিনী দুর্গা এবার স্বামীর গৃহ কৈলাস থেকে বাবার বাড়ি বসুন্ধরায় আসছেন ঘোটকে (ঘোড়ায়) চড়ে। আর ফিরবেনও ঘোড়ায় চড়ে।

এদিন (শুক্রবার) দেবী দুর্গা মহিষাসুর বধে খড়গ-কৃপাণ, চক্র-গদা, তীর-ধনুক আর ত্রিশুলহাতে হাজারো মণ্ডপে অধিষ্ঠিত হলেন।

সকালে রাজধানীর রামকৃষ্ণ মিশন, সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির, ঢাকেশ্বরী মন্দির, শাঁখারী বাজার, লক্ষ্মীবাজারে দেখা গেছে উৎসবের আমেজ।

মহাষ্টমীর দিনে কেবল রাজধানীর গোপীবাগে রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠ পূজোমণ্ডপে কুমারী পূজো অনুষ্ঠিত হবে।

দেবী বোধন ও অধিবাস সহকারে ষষ্ঠী পূজার মাধ্যমে শুরু হলো পাঁচ দিনের শারদীয় দুর্গোৎসব। শাস্ত্র মতে, এবার মা দুর্গা ঘোড়ায় চড়ে আসার কারণে বিশ্বে প্রাকৃতিক দুর্যোগের আশঙ্কা রয়েছে।

এ বছর ঢাকা মহানগরীতে ২২৯টিসহ সারাদেশে ২৯ হাজার ৩৯৫টি মণ্ডপে দুর্গাপূজার আয়োজন করা হয়েছে। পাঁচ দিনব্যাপী দুর্গা মণ্ডপে চলবে ভক্তিমূলক সঙ্গীতানুষ্ঠান, মহাপ্রসাদ বিতরণ, সন্ধ্যায় আরতি প্রতিযোগিতা।

রাজধানীতে বিজয়া দশমীর দিন ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির মেলাঙ্গন থেকে বিজয়ার শোভাযাত্রা বের করা হবে। বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে সার্বজনীন শারদীয় দুর্গোৎসব।

বিজয়া দশমী উপলক্ষে ১১ অক্টোবর সরকারি ছুটি। এদিন রাষ্ট্রপতি হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য বঙ্গভবনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করবেন। দুর্গাপূজা উপলক্ষে বিটিভি ও বাংলাদেশ বেতারসহ বেসরকারি চ্যানেলগুলো বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করে থাকে। সংবাদপত্রগুলো প্রকাশ করে বিশেষ ক্রোড়পত্র।

শনিবার (৮ অক্টোবর) সপ্তমী, রোববার (৯ অক্টোবর) অষ্টমী, সোমবার (১০ অক্টোবর) মহানবমী এবং মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) বিজয়া দশমীর মধ্য দিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শেষ হবে।

হিন্দু সম্প্রদায়ের সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে দুর্গোৎসব উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাণী দিয়েছেন।

শুভেচ্ছো জানিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি রিয়াজ পারভেজ, সিনিয়ার সহসভাপতি আবুল হোসেন,সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম, সিনিয়ার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক স্বরুপ দাস, রঞ্জিত চক্রবর্তী, খুলনার জাহাঙ্গীর আলম, সাংগাঠনিক সম্পাদক খায়রুল ইসলাম, এস এম সাইদুল্লাহ সহ কেন্দ্রিয় কমিটির সকল নেতৃবৃন্দ।

পূজার বাদ্যি বাজে..

অনলাইন ডেস্ক:

ছেলেদের ক্ষেত্রে পূজার সময় ধুতি-পাঞ্জাবির ওপর আর কোনো পোশাক ভালো লাগে না। আজকাল ধুতির রঙেও পরিবর্তন এসেছে, আগে শুধু সাদা রঙের ধুতি পরত। এখন বিভিন্ন রঙের যেমন সাদা বা অফ হোয়াইট রঙের পাঞ্জাবির সঙ্গে লাল ধুতি, কালো ধুতি, লাল বা মেরুন রঙের পাঞ্জাবির সঙ্গে সাদা বা অফ হোয়াইট ধুতি, গোল্ডেন, সবুজ প্রায় সব ধরনের ধুতি এখন পাওয়া যায়। আর সঙ্গে যোগ হয়েছে বিভিন্ন ডিজাইনের উত্তরীয়। উত্তরীয়র ক্ষেত্রেও রয়েছে নানা রঙের বিচরণ। চারদিকে ঢাকঢোলের বাজনা, শঙ্খের শব্দ, ধূপের ঘ্রাণ, বিভিন্ন মন্ত্রে মুখরিত পূজার আয়োজনে নিজেকে যেন না সাজালেই নয়।

সামনেই দশমী। দশমীতে সাধারণত লাল রংকে প্রাধান্য দেয়া হয়। কারণ সেদিন দুর্গাকে সিঁদুর পরিয়ে বিসর্জন দেয়া হয়। আর চলে সিঁদুর খেলা।
সেদিন বিবাহিত মেয়েরা দুর্গার পায়ে রাখা সিঁদুর মাথায় দেন আর ওই সিঁদুর সারা বছর তারা ব্যবহার করেন। তরুণীরা সিঁদুর রঙের সঙ্গে মিলিয়ে দশমীর দিন লাল রঙের শাড়ি পরে। শাড়ির সঙ্গে সোনার গহনা পরা যেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঐতিহ্য। সেই শাশুড়ির দেয়া ভারী ভারী গহনা এখন অনেকেই পরতে চান না।
এছাড়া যে কোনো শাড়ির সঙ্গে গলায় রুদ্রাক্ষের মালা পরলে একটা ট্র্যাডিশনাল লুক আসবে। পূজার সময় শাড়ির সঙ্গে ব্লুাউজের কাট গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। ফুল সিøভের ব্লাউজ, পিঠে গোল বা স্কয়ার গলা থাকলে ভালো।
মোটকথা, বাঙালির পূজার পোশাকে বাঙালিয়ানা ধরা দেয় উৎসবের আদলে।
সাজসজ্জা
সাজসজ্জা যদিও নিজের রুচি ও ভালো লাগার বহিঃপ্রকাশ, তবুও এটি যেহেতু ধর্মীয় উৎসব তাই ধর্মীয় ট্র্যাডিশনকেই গুরুত্ব দেয়া হয়। হিন্দুধর্মে বিবাহিত মেয়েদের সিঁথিতে সিঁদুর থাকবে না তা যেন অসম্ভব। হিন্দু বিবাহিত মেয়েদের সিঁথিতে সিঁদুর যেন সাজের পূর্ণতা এনে দেয়। এই পূর্ণতার মাঝে পোশাকের গুরুত্বও অনেক। পূজার সময় মেয়েরা সাধারণত শাড়ি বেছে নেয়। আর শাড়ির সত্যিকার সৌন্দর্য ফুটে ওঠে ব্লাউজের মাধ্যমে। ব্লাউজের কাটছাঁটে পূজার আমেজ ফুটে উঠলে পুরো পোশাকে একটা উৎসবধর্মী ভাব চলে আসবে। ফ্যাশন হাউসগুলো চেষ্টা করে নতুনত্বকে ধরে রেখে ট্র্যাডিশনকে প্রাধান্য দিতে। সাজ-পোশাকে বাঙালিয়ানা থাকা চাই। পূজার ব্লাউজের বিশেষ ধরন সম্পর্কে কে-ক্র্যাফটের ডিজাইনার শাহনাজ খান জানান, ব্লাউজের ক্ষেত্রে হাতা ও গলার স্টাইল পরিবর্তনের মাধ্যমে পূজার বিশেষ লুক দেয়া হয়। ব্লাউজের গলায় ও হাতে কুচি দিয়ে একটা ব্যতিক্রমী আমেজ নিয়ে আসা যায়। থ্রি কোয়ার্টার হাতার সঙ্গেও কুচি দেয়া যায়। এছাড়া ঘটিহাতা তো রয়েছেই। একটু কারুকাজ করা ঘটিহাতার ব্লাউজের কোথায় যেন পূজার আমেজ খুঁজে পাওয়া যায়। ব্লাউজে এমব্রয়ডারির কাজ করা থাকলেও বেশ উৎসবধর্মী একটা ভাব আসে। হাতায় লেইস অথবা কুচি দেয়া ব্লাউজের সঙ্গে এক প্যাঁচে পরা শাড়ি মানিয়ে যায় বেশ। এছাড়া ঘটিহাতা বা থ্রি কোয়ার্টার হাতায় বড় কুচি দেয়া ব্লাউজও ভালো লাগবে। জমকালো পার্টিতে মসলিন বা গর্জিয়াস কোনো শাড়ির সঙ্গে অ্যান্ডি মেশানো ব্লাউজ মানানসই। আবার টাঙ্গাইল বা বড় পাড়ের সাধারণ সুতি শাড়ির জন্য ঘটিহাতা বা পাইপিং বসানো ব্লাউজ বেশি ভালো দেখাবে। শাহনাজ খান জানান, ব্লাউজ শাড়ির সঙ্গে কনট্রাস্ট হতে পারে। আবার এক রঙেরও হতে পারে। তবে যেহেতু পূজা, লাল-সাদা থাকা চাই। আবার শাড়িতে সোনালি সুতা বা জরি দিয়ে কাজ করা থাকলে ব্লাউজ গোল্ডেন হতে পারে। যাই হোক না কেন, পূজার সাজে স্নিগ্ধতা থাকা জরুরি। সেই স্নিগ্ধতার সঙ্গে সিঁদুরের পবিত্রতা মিলেমিশে যেন পূজার আমেজে পূর্ণতা এনে দেয়। বিউটি এক্সপার্ট কাজী কামরুল ইসলাম বলেন, সিঁদুর বিভিন্ন স্টাইলে পরতে দেখা যায়। বিবাহিত মেয়েদের সিঁথিতে সিঁদুর থাকা জরুরি এবং এ সাজটি বিভিন্নভাবে সম্পন্ন করা যায়। সাধারণত যাদের মুখ গোল, কপাল অপেক্ষাকৃত ছোট এক প্যাঁচে শাড়ি ঘটিহাতা বা হাতায় কুঁচি দেয়া ব্লাউজের সঙ্গে মাঝখানের সিঁথিতে সিঁদুর, কপালে বড় বা মাঝারি লালটিপ মানানসই। যাদের মুখ লম্বা, কপাল অপেক্ষাকৃত বড় তাদের পাশে সিঁথি করে কপালের মাঝ বরাবর চিকন করে সিঁদুরের টান দিলে ভালো লাগে। কপালে লম্বাটে হাতে আঁকা টিপ। এছাড়া ত্রিভুজাকার করেও সিঁদুর ভালো মানাবে। সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে ছোট্ট বা চিকন করে সিঁদুর থাকলেই ভালো। জমকালো শাড়ি-ব্লাউজের সঙ্গে কখনো মোটা কখনো চিকন, কখনওবা সাইড সিঁথি করে মাঝখানে সিঁদুর এঁকে দিলে ভালো মানায়। খোলা চুলে চিকন করে এবং বাঁধা চুলে মোটা করে সিঁদুর আঁকা যায়।  স্টাইল কর্নার ডেস্ক
মডেল: রুমা, রিবা ও জনি

পাকিস্তানিদের রোষানলে আদনান সামি

adnan-saniবিনোদন ডেস্ক: উরি হামলা নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে রাজনৈতিক বিরোধ চলছে। সেই বিরোধের হাওয়া রঙিন দুনিয়ায়ও লেগেছে।

যার কারণে পাকিস্তানের শিল্পীরা ভারত কাজ করতে পারছেন না। সম্প্রতি ভারতের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রশংসা করে পাকিস্তানিদের রোষানলে পড়েছেন জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী আদনান সামি।

পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত আদনান সামির জন্ম ব্রিটেনে। সম্প্রতি তিনি ভারতের নাগরিক হয়েছেন। বেশকিছু গানের মধ্য দিয়ে বলিউডে জনপ্রিয়তা লাভ করেন সামি।

স্যার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পর মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে এক টুইট বার্তায় আদনান সামি লেখেন, ‘সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে একটি অসাধারণ, সফল, সুদক্ষ এবং কৌশলী আঘাতের জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে এবং আমাদের আর্মস ফোর্স বাহিনীকে অনেক শুভেচ্ছা।’

এই টুইটের পরে গোটা ভারত তাকে সমর্থন করলেও পাকিস্তানের জনগণের রোষানলে পড়েন তিনি। তার বিরুদ্ধে অনেকেই টুইট করেছেন। অনেকেই তাকে প্রতারক এবং বহুরূপী বলে সম্বোধন করেন। অনেক পাকিস্তানি টুইটারে তাকে গালিগালাজ করেছেন এবং তিনি শিকড় ভুলে গেছেন বলে তার প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করেছেন।

এদিকে তার টুইটে পাকিস্তানিদের এমন প্রতিক্রিয়া দেখে আদনান সামি আরো একটি টুইট করেন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘পাকিস্তানিরা আমার আগের টুইট করে যে রকম প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন তাতে স্পষ্ট যে পাকিস্তানি ও জঙ্গিদের তারা একই নজরে দেখেন।’
২০০১ সালের ১৩ মার্চ এক বছরের ভিজিটের ভিসা নিয়ে প্রথম ভারতে প্রবেশ করেন আদনান সামি। এরপর অনেকবারই তাকে ভিসার মেয়াদ বাড়াতে হয়েছে। সর্বশেষ গত বছর ২৬ মে ভিসার মেয়াদ শেষ হলে তিনি ভারতীয় সরকারের কাছে সেই দেশে থাকার বৈধতা চেয়ে আবেদন করেন। পরে ভারতীয় সরকার তা অনুমোদনও করে।

হাজারো হৃদয় কেড়েছে ৬ মাস বয়সী মেয়ে

babyএস কে দাস: মিস্টি এক মেয়ে রীতিমতো অনলাইন স্টারে পরিনত হয়েছে। আর এমন অবস্থা হয়েছে মূলত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার বাবা-মায়ের শেয়ার করা একটি ছবির মাধ্যমে। ছবিতে মেয়েটি এক নর্তকীর সঙ্গে অতিমানবীয় উচ্ছাসে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে দেখা যাচ্ছিলো। যা এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম রেডিট-এ ভাইরাল হয়ে গেছে।
বৃহস্পতিবার ডেইলি মেইল এক প্রতিবেদনে জানায়, গত সপ্তাহেই ২৭ বছর বয়সী ক্রিস্টেন শোয়েডম্যান তার ছ’মাস বয়সী মেয়ে স্টেলাকে নিয়ে ব্রিটেনের ডেলওয়ারের উইলমিংটনে অবস্থিত রকউড পার্কে একটি মেলায় গিয়েছিলেন। সেখানেই এবিগাল কাউয়ান নামে এক নর্তকীর সঙ্গে মা-মেয়ের দেখা হয়। দেখা হওয়ামাত্রই স্টেলা দারুণ আনন্দে এবিগালকে স্বাগত জানায়। আর ওই মহুর্তটি ক্যামেরার ক্লিকে ধরাও পড়ে যায়।
ক্রিস্টেন ডেইলি মেইলকে বলেন, ‘বিদায় জানাতে আমি এবিগালের দিকে স্টেলাকে তুলে ধরেছিলাম। আর তখনই ছবির মতো করে স্টেলা তার মাতাল আনন্দ প্রকাশ করে।’ পরে তার স্বামী ডেরেক ছবিটি রেডিট-এ প্রকাশ করে।
ক্রিস্টেন আরও বলেন, ‘আমি জানিনা এবিগালের কোন ব্যাপারটি তাকে এতো আনন্দ দিয়েছে। তবে, তার এমন আনন্দ আমি এই প্রথম দেখেছি।’ সূত্র : ডেইলি মেইল

পার্চড’ সিনেমা নিষিদ্ধের দাবি

ddd-1অনলাইন ডেস্ক: বলিউডের বিতর্কিত সিনেমা পার্চড। কিছুদিন আগে এ সিনেমার নগ্ন দৃশ্য ফাঁস হওয়ায় সমালোচনার মুখে পড়ে সিনেমাটি।

এবার প্রেক্ষাগৃহে যাতে সিনেমাটি প্রদর্শিত না হয় সে জন্য জোর দাবি জানিয়েছে ভারতের রাবাড়ি সম্প্রদায়ের একটি দল। শুধু তাই নয় নির্মাতা লীনা যাদবকে হত্যার হুমকিও দিচ্ছেন তারা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এ খবর প্রকাশ করেছে।

এ প্রসঙ্গে পরিচালক লীনা যাদব বলেন, ‘রাবাড়ি সম্প্রদায়ের দাবি- এই সিনেমায় অভিনেত্রী তন্নিষ্ঠা চ্যাটার্জিকে যে পোশাকে দেখানো হয়েছে, রাবাড়ি সম্প্রদায়ের মহিলাদের সঙ্গে এর মিল রয়েছে। আর এই সিনেমার মাধ্যমে এই বিশেষ সম্প্রদায়ের মহিলাদের অপমান করা হয়েছে। এ জন্যই তারা সিনেমাটি নিষিদ্ধের দাবি জানাচ্ছেন।’

পরিচালক বিরক্ত প্রকাশ করে বলেন, ‘সিনেমায় যে পোশাক ব্যবহার করা হয়েছে তাতে গুজরাটি এবং রাজস্থানি ধাঁচের মিশ্রণ রয়েছে। পোশাকের উপর ভিত্তি করে কোনো সিনেমার বিরোধিতা করা সঠিক নয়। এই সিনেমা কোনো সম্প্রদায়ের মানুষকে অপমান করার জন্য নির্মাণ করা হয়নি। আর আগামীকাল যদি আমি থাইল্যান্ডের পোশাক পরি, তবে কী আমি থাইল্যান্ডের বাসিন্দা হয়ে যাব?’

এ দিকে পরিচালকের পরিবারকে মোবাইল ফোন ও হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে এই সম্প্রদায়। পুরো ঘটনা জানিয়ে ইতোমধ্যে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন নির্মাতা।

এ সিনেমার কাহিনি গড়ে উঠেছে চার মহিলার ঝলসে যাওয়া জীবনের বাসনার কথা নিয়ে। ব্যক্তিগত জীবনে তাদের নিজস্ব সমস্যা, পুরুষদের অবহেলা আর অত্যাচার মাথায় নিয়েই তাদের দিন কাটাতে হয়। কিন্তু অনেক সুপ্ত বাসনা তাদের মনে। এই চার রমণী তাদের সুপ্ত ইচ্ছের কথা, স্বপ্নের পুরুষের কথা, যৌনতার কথা আলোচনা করে সিনেমার গল্পজুড়ে। তারই পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কিছু ঘনিষ্ঠ দৃশ্যও রয়েছে সিনেমাটিতে। এতে অভিনয় করেছেন রাধিকা আপ্তে, তন্নিষ্ঠা চ্যাটার্জি, আদিল হোসেন, অদিতি গুপ্তা ও সুরভিন চাওলাসহ অনেকে।

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter