বিনোদন খবর

জেনে নিন কী ভাবে সন্তানকে মিথ্যে কথা বলা থেকে বিরত রাখবেন

শিশু বয়সের কল্পনা ঠিক-ভুলের বাধা মানে না। কিন্তু ছোট ছোট মিথ্যে ভবিষ্যতে জটিলতার সৃষ্টি করতে পারে। জেনে নিন কী ভাবে সন্তানকে মিথ্যে কথা বলা থেকে বিরত রাখবেন

অনেক সময়ে যেখানে বড়রাই গুলিয়ে ফেলেন সত্যি-মিথ্যের ফারাক, সেখানে এক জন শিশুর পক্ষে বোঝা দুষ্কর, কোনটা সত্যি ও কোনটা মিথ্যে। সত্যি-মিথ্যের পরিধি সম্পর্কে শিশুটির সম্যক জ্ঞান না থাকায়, তাকে মিথ্যে বলা থেকে বিরত রাখার কাজটা আরও কঠিন হয়ে যায়। তাই একদম শিশু বয়স থেকেই এ বিষয়ে সাবধান হতে হবে। রাশ আলগা করলে কিন্তু পরবর্তী কালে জটিল সমস্যা দেখা দিতে পারে।


মিথ্যের নানা র‌ং

শিশুমন অনেক সময়েই কল্পনার জগৎ থেকে নানা রকম ধারণা করে বসে। সেটা যে আসলে মিথ্যে, সেই বোধও থাকে না। মিথ্যেরও ধরন আছে। হোয়াইট লাইজ়, রেড লাইজ়। কল্পনাপ্রবণ মন থেকে ছোটরা অনেক কিছুই বলে। সেই বানানো কথাগুলোকে বিশেষজ্ঞরা ‘সাদা মিথ্যে’ বলেন। এগুলো কিন্তু আদতে খুব একটা ক্ষতিকর নয়। ধরুন আপনার সন্তান স্কুল থেকে ফিরে বলল, সে রাস্তায় একটা পরি দেখেছে। কিংবা তার বন্ধু চকলেটের তৈরি বাড়িতে থাকে। এগুলো সে তার কল্পনার জগৎ থেকে ধার করেছে। সাধারণত ছ’-সাত বছর পর্যন্তই বাচ্চারা এ ধরনের কথাবার্তা বলে থাকে। পেরেন্টিং কনসালট্যান্ট পায়েল ঘোষ বলছেন, ‘‘যদি দেখেন আপনার সন্তান এই রকম কিছু বলছে, তা হলে তাকে বকবেন না। উল্টে বলুন, ‘বাহ, এই গল্পটা তো বেশ ভাল।’ তাতে শিশুটির মনে হবে এটা গল্প। সে এই ধরনের কিছু বললে আপনি সেটাকে গল্পকথার মোড়ক দেওয়ার চেষ্টা করুন। এতে শিশুটি বুঝবে, এগুলো বাস্তব নয়।’’

কোনটা বাস্তব আর কোনটা কল্পনা, শিশুদের সেটা বুঝতেই সময় লেগে যায়। সন্তানের কল্পনাপ্রবণ মনকে অন্য খাতে বইয়ে দেওয়ার চেষ্টা করুন। তাকে বলুন, ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে ওই কথাগুলোই বলতে কিংবা লিখে ফেলতে। তার পরে বলুন, এই গল্পটা আর একটু এগিয়ে নিয়ে যেতে। এতে শিশুটির সৃজনশীল মন উৎসাহ পাবে।

ভয় থেকেই মিথ্যের জন্ম

বাবা-মা বকবে বা মারবে, এটা সন্তানের কাছে বিরাট ভয়ের জায়গা। তাই সে কোনও ভুল করে ফেললে চাপা দেওয়ার চেষ্টায় মিথ্যে কথা বলে। ছোটখাটো বিষয়ে সন্তানকে শাসন করার বদলে বোঝানোর চেষ্টা করুন। বিশেষজ্ঞরা সন্তানের গায়ে হাত তোলার একেবারেই বিরুদ্ধে। তবে শাসনের প্রয়োজন অবশ্যই আছে। কোন বিষয়ে কতটা শাসন করবেন, সেই পরিমিতি বোধ থাকাটাও জরুরি। সন্তান ভুল করলে তা স্বীকার করার সাহস জোগান। আপনার বকুনির ভয়েই হয়তো সে মিথ্যে বলছে। টিফিন না খাওয়া বা পেনসিল বক্স হারিয়ে ফেলার মতো ছোটখাটো ঘটনায় অতিরিক্ত বকাবকি করবেন না। বুঝিয়ে কাজ হাসিল করুন। ছোট থেকেই শিশুকে নিজের জিনিসের প্রতি যত্ন নিতে শেখান। এতে সে চট করে কিছু হারিয়ে ফেলবে না। আর হারালেও তার নিজের মন খারাপ হবে এবং পরের বার অতিরিক্ত খেয়াল রাখবে। পরীক্ষায় কম নম্বর পেলে বাড়িতে না বলা, খাতা না দেখানো ইত্যাদি প্রবণতা আসে ভয় থেকেই। এগুলো সবই ‘রেড লাইজ়’-এর অন্তর্গত। সন্তানকে বোঝান, সে যদি কোনও ভুল করে, আপনি তাকে তা শোধরাতে সাহায্য করবেন।

মিথ্যে যখন ক্ষতি করে

বাচ্চারা অনেক সময়ে ইচ্ছাকৃত ভাবে মিথ্যে বলে কাউকে বিপদে ফেলার জন্য। সেটা বন্ধু কিংবা বাবা-মা যে কেউ হতে পারে। এই সমস্যাটা জটিল। টিনএজারদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি দেখা যায়। পায়েল ঘোষের পরামর্শ, ‘‘কোনও বন্ধুর প্রতি আক্রোশ থেকে মিথ্যে বলে তাকে বিপদে ফেলার চেষ্টা করে অনেকে। অভিভাবকের উপরেও রাগ জন্মাতে পারে। এ ক্ষেত্রে কাউন্সেলিং দরকার। কেন সে বন্ধুর ক্ষতি চাইছে, তা খতিয়ে দেখতে হবে। বাবা-মায়ের উপরে রাগেরও নিশ্চয়ই কারণ রয়েছে। এ ক্ষেত্রে অভিভাবকদেরও কাউন্সেলিং প্রয়োজন।’’ সন্তানের মিথ্যেয় রাশ না টানলে, টিনএজের গণ্ডি পেরোনোর পরেও তার মধ্যে এই প্রবণতা দেখা যাবে। প্যাথোলজিক্যাল লায়িং বেশ জটিল সমস্যা।

গলদ অভিভাবকত্বেও

আমাদের পেরেন্টিং স্ট্রাকচারেও অনেক গলদ লুকিয়ে। সেই ফাঁক দিয়ে বহু সমস্যা সন্তানের মধ্যে সঞ্চারিত হয়। অনেক শিশুই নিত্য দিন কিছু না কিছু হারিয়ে আসে। এ ক্ষেত্রে তখনই তাকে জিনিসটি কিনে দেবেন না। বস্তুটির অভাববোধ তাকে যত্ন করা শেখাবে। সন্তান যাতে বাবা-মায়ের কাছে খোলাখুলি সব কথা বলতে পারে, সে ব্যবস্থাও আপনাকেই করতে হবে। এর জন্য সন্তানকে সময় দেওয়াটা জরুরি। শিশু যেন অ্যাগ্রেসিভ ভিডিয়ো না দেখে বা গেম না খেলে। এ জিনিসগুলো অজান্তেই শিশু মনের উপরে ছাপ ফেলে।

স্বীকৃতি পাওয়ার জন্যেও ছোটরা মিথ্যে বলে। হয়তো একটি ছবি তাঁর বন্ধু এঁকেছে, কিন্তু আপনার সন্তানের দাবি, সেটা তার আঁকা। ওকে বলুন, সত্যিটা আপনি জানেন। তাতে স্বীকার না করলে একটা ছবি এঁকে দেখাতে বলুন। অনেক সময়ে শিশুরা জোর গলায় কান্নাকাটি করে নিজেদের মিথ্যেকে সত্যি বলে প্রমাণ করতে চায়। এ সব ক্ষেত্রে আপনাকে কড়া হতে হবে। সেই মুহূর্তে হয়তো বকুনি দিলেন না, কিন্তু পরে তাকে আলাদা করে বলুন, আপনি সত্যিটা জানেন আর তার এই আচরণে কষ্ট পেয়েছেন।

সন্তানকে মিথ্যে বলা থেকে বিরত রাখতে আপনাকে ইমোশনালি বিষয়টা সামলাতে হবে। বোঝানোর চেষ্টা করুন, ও মিথ্যে বললেন আপনি আহত হচ্ছেন, কষ্ট পাচ্ছেন।

ভারতের লোকসভায় শপথ নিলেন সিদুর পরিহীত নুসরাত ও মিমি

বিনোদন ডেস্ক,২৬ জুন:
নতুন বউয়ের সাজেই সংসদে হাজির হয়েছেন অভিনেত্রী নুসরাত। বিয়ে সেরে ভারতের লোকসভায় শপথ নিয়েছেন বসিরহাটের জয়ী তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী অভিনেত্রী নুসরাত জাহান। একই সঙ্গে শপথ নিয়েছেন অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীও। মিমি কলকাতার যাদবপুর থেকে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হয়েছেন।


জানা গেছে, সংসদে লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা দু’জনকে শপথবাক্য পাঠ করিয়েছেন। নুসরাত ঈশ্বরের নামে শপথ নিয়েছেন। নুসরাত এবং মিমি দু’জনই বাংলায় শপথবাক্য পাঠ করেছেন। শপথ গ্রহণের পর মিমি ও নুসরাত দুজনেই স্পিকারের পা ছুঁয়ে প্রণাম করেছেন।

নুসরাতের কপালে সিঁদুর

বিনোদন ডেস্ক,২৪ জুন:
তুরস্কে ১৯ জুন আড়ম্বরপূর্ণ আয়োজনে বিয়ে সেরেছেন পশ্চিমবঙ্গের সাংসদ ও টলিউড অভিনেত্রী নুসরাত জাহান। হলদি, মেহেন্দি, সঙ্গীত, ফেরা আর হোয়াইট ওয়েডিং- সব অনুষ্ঠানই একেবারে ঝমকালোভাবে করা হয়েছে। সঙ্গে সমুদ্রের ধারে বন্ধুদের সঙ্গে পার্টি। বিয়ের অনুষ্ঠান আপাতত শেষ।


ছোটখাটো হানিমুন সেরে নিচ্ছেন নুসরাত। সেই ছবি পোস্ট করলেন নুসরাতের স্বামী নিখিল জৈন। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, হেলিকপ্টারের ককপিটে বসে আছেন নিখিল। এছাড়া সঙ্গে রয়েছেন নুসরাত। সেই ছবিও পোস্ট করেছেন তিনি। সদ্য বিয়ের পরই সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে নুসরাতের কপালে সিঁদুর। মেকআপহীন এই সেলফিতেও সমান মোহময়ী নুসরাত।

গত কয়েকদিনে নুসরাতের বিয়ের বেশ কিছু ছবি প্রকাশ্যে এসেছে। বিয়েতে লাল লেহেঙ্গা পরেছিলেন তিনি। `হোয়াইট ওয়েডিং`-য়ে তো তিনি যেন রূপকথার পরী। ১৮ জুন ছিল নুসরতের মেহেন্দি ও পুল পার্টি। পাঁচতারা হোটেলের বিশাল পুলে ছিল পার্টি। সন্ধ্যায় বসে নাচ-গানের আসর। অর্থাৎ সঙ্গীত। সন্ধে থেকে শুরু হয়ে সারা রাত চলে সঙ্গীত। পরের দিন হলদি অর্থাৎ গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান। দু’জনেই হলুদ রঙের ভারতীয় পোশাক পরেন।

হলদির দিন সন্ধ্যায় হয় ‘ফেরা’ বা বিয়ে। ভারতীয় রীতি মেনে হওয়া ওই অনুষ্ঠানে ভারতীয় পোশাক পরেন নুসরাত। ‘ফেরা’র পর রাতে হয় রিসেপশন, সঙ্গে আফটার পার্টি। পরের দিন অর্থাৎ ২০ তারিখে হয় হোয়াইট ওয়েডিং। ঠিক যেভাবে খিস্ট্রান মতে বিয়ে হয়, তেমনটাই হয় নুসরাত-নিখিলের বিয়ে।

মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ দুই কিশোরী পূজা চেরি ও দীঘি

অনলাইন ডেস্ক ॥ এবার মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন দুই কিশোরী অভিনয়শিল্পী পূজা চেরি ও দীঘি।

সোমবার এ বছরের মাধমিক ও সমমানের পরীক্ষার যে ফল প্রকাশ করা হয়েছে, তাতে পূজার অর্জন জিপিএ ৪.৩৩ ও দীঘির জিপিও ৩.৬১।



পূজা রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট এলাকার একটি স্কুল থেকে বাণিজ্য বিভাগে পরীক্ষা দিয়েছেন। আর দীঘি পরীক্ষা দিয়েছেন স্টামফোর্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজের ইংরেজি ভার্সন থেকে।

দু’জনেই শিশুশিল্পী হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেছেন।

রাতে কী কোনোভাবে আমাকে তোমার প্রয়োজন হতে পারে?

বিনোদন ডেস্ক, ১৭ এপ্রিল ২০১৯

বেশ কিছুদিন ধরেই ‘মি টু’ ঝড় আছড়ে পড়েছে গোটা বলিউডে। অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত শুরুটা করলেও পরবর্তীতে তার সমর্থনে এগিয়ে এসেছেন আরও অনেকে। এবার সে তালিকায় যোগ হলেন বলিউড অভিনেত্রী রাধিকা আপ্তে।

তার কথায়, ‌‘শুধু নারীরাই নয়, এ ক্ষেত্রে পুরুষদেরও বিষয়টি নিয়ে মুখ খোলা দরকার। তাহলেই কাস্টিং কাউচের ঘটনা আটকানো যাবে।’ পরে নিজের ভয়ানক এক অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেন অভিনেত্রী।

Read More »

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দী লাইফ সাপোর্টে

বিনোদন ডেস্ক,১৫ এপ্রিল: একুশে পদক পাওয়া  গুরুতর অসুস্থ। গতকাল রোববার রাতে তিনি হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হন। তাঁকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়েছে। আইএসপিআরের সহকারী পরিচালক রাশেদুল আলম খান জানিয়েছেন, হাসপাতালে আনার পর সুবীর নন্দীকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়। এখানে তাঁকে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হয়। তাঁকে প্রয়োজনীয় সব চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ৭২ ঘণ্টা পর তাঁর শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে।

কপি-পেস্টের মাশুল দিচ্ছেন প্রিয়া

ডেস্ক: চোখ মেরে আলোচনায় এসেছিলেন তিনি। সেই আলোচনায় আসার ঘটনা এতদূর গড়িয়েছে যে তিনি বলিউডেও অভিনয়ের সুযোগ পান। তবে তারকাখ্যাতি নিয়ে বিপাকেই আছেন প্রিয়া প্রকাশ।

সুগন্ধি পণ্যের প্রচারণার লক্ষ্যে ইনস্টাগ্রামে পোস্ট দিয়েছিলেন প্রিয়া প্রকাশ। ওই ব্র্যান্ডের জনসংযোগ দল এই অভিনেত্রীকে যে ক্যাপশন পাঠিয়েছিল, তা সম্পাদনা বা পরিবর্তন না করে হুবহু তুলে দেন তিনি। নেটিজেনরা সেটি ভালোভাবে নেননি। এই তারকাকে তিরস্কার করেন তারা।

Read More »

রবি শর্মাকে বিয়ে করে ভারতে কতটা সুখে আছেন শাকিলা ?

বিনোদন ডেস্ক : রবি শর্মাকে বিয়ে করে- কেমন আছেন শাকিলা? কোথায় আছেন এই সুকণ্ঠী সংগীত তারকা? বছর দেড় দুয়েক ধরে টেলিভিশনের পর্দায় কিংবা দেশের কোনো স্টেজ শো-তে শাকিলার গরহাজিরার কারণে এমন প্রশ্ন ঘুরেফিরে আসছে তার ভক্তকুলের মনে। সংগীত দুনিয়ার মানুষজনও তাকে খুঁজে ফিরছেন যার যার মতো করে। আসল তথ্য না পেয়ে তারাও উদ্বিগ্ন।

জানা গেছে, শাকিলা বর্তমানে ভারত প্রবাসী। মুম্বাইয়ে শাকিলা ঘর সাজিয়েছেন মনের মতো করে। সেখানকার ব্যবসায়ী ও কবি রবি শর্মাকে বিয়ে করে বেশ সুখেই দিন কাটাচ্ছেন বাংলাদেশের এই তুখোড় সংগীত শিল্পী

এক ছেলের মা শাকিলা দেশের মিডিয়া জগতে প্রাণবন্ত আর লাস্যময়ী শিল্পী হিসেবে পদচারণা করলেও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিলেন বেশ কয়েক বছর ধরে। যা তিনি খুবই সতর্কতার সঙ্গে আড়াল করে রাখতেন।

দুবাইতে অবস্থানরত তার সাবেক স্বামী জাফরের সঙ্গে মানসিক টানাপড়েনকে মিটিয়ে ফেলার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেও কামিয়াব হননি ঢাকায় জন্ম নেওয়া শাকিলা ওরফে স্মৃতি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনে মাস্টার্স শাকিলা ১৯৭৯ সালে প্রথমে বেতারে এবং পরের বছর বিটিভিতে তালিকাভুক্ত শিল্পী নির্বাচিত হন। ৩১ বছর আগে ১৯৮৭ সালে শাকিলা ‘নিয়তির খেলা’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্লে-ব্যাক শিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। ভিন্ন মেজাজের বেশকিছু আধুনিক গানের সুবাদে শাকিলা সংগীতপ্রেমীদের কাছে খুবই সমাদৃত।

ফের ভাইরাল ফারহান-শিবানীর আগুন ছবি!

কিছুদিন আগেই তারা ছুটি কাটিয়ে ফিরলেন মেক্সিকো থেকে। সেখানেই শোনা যাচ্ছিল তাদের এনগেজমেন্ট হয়ে গিয়েছে। সেখান থেকে ফিরেই তারা জানান, খুব তাড়াতাড়ি চার হাত এক হতে চলেছে তাদের। তারা হলেন ফারহান আখতার-শিবানী দান্ডেকর। আবার তারা ছুটি কাটাতে গিয়েছেন সমুদ্র সৈকতে। আর সেখান থেকেই শেয়ার করলেন আগুন সব ছবি।

এই সময় পত্রিকার খবরে বলা হয়, ইন্সটাগ্রামে সেই ছবি শেয়ার করে ফারহান লিখলেন, ‘তোমায় পেয়ে আমি খুশি। কোনওদিনই হারাতে চাই না।’ ২০১৫ থেকেই একে অপরকে চেনেন শিবানী-ফারহান। দীপিকা-রণবীরের রিসেপশনেও হাত ধরাধরি করে গিয়েছেন তারা। ২০১৭ তে অধুনা ভবানির সঙ্গে দাম্পত্যে ইতি টানেন ফারহান

‘মিস ওয়ার্ল্ড ২০১৮’ মেক্সিকান সুন্দরী ভেনেসা

লিহান লিমা: ২০১৮ সালের বিশ্বসুন্দরীর মুকুট জিতে নিয়েছেন মেক্সিকান সুন্দরী ভেনেসা পোন্স দি লিওন। তাকে মুকুট পরিয়ে দেন সাবেক বিশ্বসুন্দরী মানুষী চিল্লার। রানার্স আপ হন থাইল্যান্ডের নিকোলেনি পিচাপা লিমসনুকান।

শনিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫ টায় চীনের সানায়া শহরে শুরু হয় মিস ওয়ার্ল্ডের জমকালো আয়োজন। এর মধ্যে মিস ওয়ার্ল্ডের সিক্স কন্টিনেন্টাল কুইন ক্যাটাগরিতে ‘মিস ওয়ার্ল্ড ইউরোপ’ জিতে নেন বেলারুশের মারিয়া ভাসিলিভিস, ‘মিস ওয়ার্ল্ড ক্যারিবিয়ান’ হন জ্যামাইকার কাদিজাহ রবিনসন, ‘মিস ওয়ার্ল্ড আমেরিকা’ হন মেক্সিকোর ভেনেসা পোন্স দি লিওন, ‘মিস ওয়ার্ল্ড আফ্রিকা’র খেতাব যায় উগান্ডার কুইইন আবেনাকেওর ঝুলিতে। ‘মিস ওয়ার্ল্ড এশিয়া ও ওশেনিয়া’ জেতেন থাইল্যান্ডের নিকোলেনি পিচাপা লিমসনুকান।

মিস ওয়ার্ল্ডের সেরা ১২তে জায়গা করে নেয় বেলারুশ, ফ্রান্স, স্কটল্যান্ড, জ্যামাইকা, মার্টিনিকো, মেক্সিকো, পানামা, মরিশাস, উগান্ডা, নেপাল, নিউজিল্যান্ড ও থাইল্যান্ড।

বাংলাদেশের জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশি সেরা ৩০-এ জায়গা করে নিলেও সেখান থেকেই ছিটকে পড়েন। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন মেগান ইয়াং, বার্নি ওয়ালশ, অ্যাঞ্জেলা চো, ফার্নান্দো আলেন্দে ও স্টেফানি দেল ভালে। বিচারক ও দর্শক প্রতিক্রিয়া নেন ফ্রাঙ্কি চেনা। ওয়েব।

কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু আর নেই

বিনোদন ডেস্ক: ব্যান্ড সংগীতের কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে মারা যান তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর।

তার স্বজনরা জানান, আজ সকালে ধানমন্ডির বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হন আইয়ুব বাচ্চু। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে নেয়া হয়।

সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। পাশাপাশি শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান তিনি।

আইয়ুব বাচ্চু ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) চট্টগ্রাম জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

বাচ্চুর সংগীতজগতে যাত্রা শুরু হয় ১৯৭৮ সালে ‘ফিলিংস’ ব্যান্ডের মাধ্যমে। তার কণ্ঠের প্রথম গান- ‘হারানো বিকেলের গল্প’। গানটির কথা লিখেছিলেন শহীদ মাহমুদ জঙ্গী।

১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালে তিনি সোলস ব্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত ‘রক্তগোলাপ’ আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম। এই অ্যালবামটি তার জীবনে সফলতা বয়ে না আনলেও ১৯৮৮ সালে তার দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘ময়না’ তার জীবনে সফলতার দ্বার উন্মোচন করে।

১৯৯১ সালে বাচ্চু এলআরবি ব্যান্ড গঠন করে। এই ব্যান্ড গঠনের পর প্রথম অ্যালবাম প্রকাশিত হয় ১৯৯২ সালে। এটি বাংলাদেশের প্রথম দ্বৈত অ্যালবাম। এই অ্যালবামের ‘শেষ চিঠি কেন এমন চিঠি’, ‘ঘুম ভাঙা শহরে’, ‘হকার’ গানগুলো জনপ্রিয়তা লাভ করে।

পরবর্তী সময়ে ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে তার দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যান্ড অ্যালবাম ‘সুখ’ ও ‘তবুও’ বের হয়।

১৯৯৫ সালে তিনি বের করেন তৃতীয় একক অ্যালবাম ‘কষ্ট’। সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামের একটি বলে অভিহিত করা হয় এটিকে।

একই বছর তার চতুর্থ ব্যান্ড অ্যালবাম ‘ঘুমন্ত শহরে’ প্রকাশিত হয়।

‘অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে’ তার বাংলা ছবির অন্যতম একটি জনপ্রিয় গান। এটি তার গাওয়া প্রথম চলচ্চিত্রের গান।

২০০৯ সালে তার একক অ্যালবাম বলিনি কখনও প্রকাশিত। ২০১১ সালে এলআরবি ব্যান্ড থেকে বের করেন ব্যান্ড অ্যালবাম যুদ্ধ।

ছয় বছর পর ২০১৫ সালে তার পরবর্তী একক অ্যালবাম জীবনের গল্প বাজারে আসে।

গিটারে তিনি সারা ভারতীয় উপমহাদেশে বিখ্যাত। জিমি হেন্ড্রিক্স ও জো স্যাট্রিয়ানীর বাজনায় তিনি দারুণভাবে অনুপ্রাণিত। ঢাকার মগবাজারে ‘এবি কিচেন’ নামে তার নিজস্ব একটি মিউজিক স্টুডিও রয়েছে।

আইয়ুব বাচ্চুর জনপ্রিয় গান ‘হাসতে দেখো গাইতে দেখো’। বাংলাদেশের ব্যান্ড সংগীতে যে কয়েকটি গান তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে, তার মধ্যে এই গানটি অন্যতম। লিখেছেন জনপ্রিয় গীতিকবি লতিফুল ইসলাম শিবলী।

এ ছাড়া ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি’ ‘সেই তুমি’, ‘সে তারা ভরা রাতে’, ‘সুখের পৃথিবী’, ‘হাসতে দেখো গাইতে দেখো’, ‘আমি বারো মাস তোমার আশাই আছি’, ‘মেয়ে’, ‘আম্মাজান’।

ছুটি কাটিয়ে বাড়ি ফিরলেন দীপিকা-রণবীর

বিনোদন ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে বেশ কিছুদিন একসঙ্গে  দারুণ সময় পার করেছেন দীপিকা ও রণবীর। এনডিটিভির খবরে জানা যায়, গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় তাঁরা মুম্বাই ফিরেছেন।

মুম্বাই এয়ারপোর্টে পাপারাজ্জিদের তোলা ছবিতে দীপিকা ও রণবীরকে দেখা যায় বেশ খোশ মেজাজে। তাঁদের মুখে ছিল মিষ্টি হাসি। পাশাপাশি হাত ধরে হেঁটেছিলেন তাঁরা। দুজনই পরেছিলেন আরামদায়ক পোশাক।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় দীপিকা ও রণবীরের কাটানো সময়গুলোর ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেট দুনিয়ায় এখন ভাইরাল ও আলোচিত। ঘুরে বেড়ানোর ছবির পাশাপাশি  ফ্লোরিডা থেকে ইনস্টাগ্রামে দীপিকা তাঁর ছোটবেলার একটা ছবি শেয়ার করেছিলেন গত বৃহস্পতিবার। ক্যাপশনে লিখেছিলেন, ‘টমবয় তখন, এখন এবং সবসময়।’  গোলাপি পোশাকে ছোট্ট দীপিকার ছবি তাঁর ভক্তদের মন কেড়ে নিয়েছে আরো একবার। হাজার হাজার ভ্ক্ততের মাঝে ছবিটিতে কমেন্ট করেছিলেন রণবীরও।

বোঝায় যাচ্ছে, দীপিকা ও রণবীরের মনে এখন সুবাতাস বইছে। আসছে নভেম্বরে তাঁদের দুজনের বিয়ের পিঁড়িতে বসার কথা। বলিউডের এই আলোচিত ঝুটির বিয়ে কোথায় হবে, এই নিয়েও চলছে নানা গুঞ্জন। অনেকে বলছে তাঁদের বিয়ে হতে পারে ইতালিতে।

‘আমাকে রাতের পোশাকে দেখতে চেয়েছিলেন পরিচালক

‘আমাদের জগতে মেয়েদের নানাভাবে অত্যাচার করা হয়। আমার কাছেও এক কুরুচিকর প্রস্তাব এসেছিল। আমি তখন বলিউডে নতুন নতুন এসেছি। চলচ্চিত্রের একজন পরিচালকের সঙ্গে ছবির ব্যাপারে কথা বলতে যাই। তিনি আমাকে রাতের শয্যার পোশাকে দেখতে চান। পরিচালক বলেন, ‘স্লিভলেস নাইটি পরে আমাকে আগে দেখাও। এই কথা শুনে আমি ওখান থেকে দ্রুত বেরিয়ে আসি।’ বললেন বলিউড তারকা মাহি গিল। গত ২৭ জুলাই মুক্তি পেয়েছে ‘সাহেব, বিবি ঔর গ্যাংস্টার থ্রি’। ছবিতে অভিনয় করেছেন সঞ্জয় দত্ত, জিমি শেরগিল, মাহি গিল, চিত্রাঙ্গদা সিং, সোহা আলী খান প্রমুখ। মুক্তির আগে এই ছবির প্রচারণা করতে গিয়ে সাংবাদিকের মুখোমুখি হন মাহি গিল। ওই সময় ‘কাস্টিং কাউচ’ নিয়ে মুখ খোলেন তিনি।

মাহি গিলমাহি গিলবলিউডে নিজের সেই শুরুর দিনগুলো প্রসঙ্গে মাহি গিল বলেন, ‘ওই সময় প্রচুর লড়াই করেছি। তবে আমার “না” বলার ক্ষমতা ছিল। কাজ পাওয়ার জন্য ওই পরিচালকের প্রস্তাবে রাজি হইনি। অনেকের মধ্যে “না” বলার সাহস থাকে না। ওই পরিস্থিতিতে বুঝে উঠতে পারেন না, কী করবেন। বিশেষ করে যাঁরা ছোট শহর থেকে আসেন, তাঁরা খুব অসহায় বোধ করেন।’

এক সপ্তাহ পর জানা গেছে, ১০ কোটি রুপি বাজেটের ‘সাহেব, বিবি ঔর গ্যাংস্টার থ্রি’ ছবিটি ব্যবসায়িক দিক থেকে একেবারই সুবিধা করতে পারেনি। ছবিটি বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়েছে। তবে ছবিতে মাহির অভিনয় খুব প্রশংসিত হয়েছে।

মাহি গিলমাহি গিলএদিকে ‘সাহেব, বিবি ঔর গ্যাংস্টার থ্রি’ ছবিতে মাহি গিলকে কিছু সাহসী দৃশ্যে বেশি দেখা গেছে। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘গোড়ার দিকে ছবিতে আমি অনেক খোলামেলা দৃশ্যে অভিনয় করেছিলাম। তারপর আমার কাছে এ ধরনের ছবির প্রস্তাব বেশি এসেছে। তবে চিত্রনাট্যে প্রয়োজন থাকলে এ রকম দৃশ্যে নিশ্চয়ই অভিনয় করব। শুধু শরীর প্রদর্শন করার জন্য তা কখনোই করব না।’

বলিউডের কাজের পরিবেশ নিয়ে মাহি বলেন, ‘আমাদের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি অনেক ভালো। এখানে কারও ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিছু করা হয় না। আমাদের জগতে ধর্ষণের মতো কুরুচিকর ঘটনা ঘটে না। সেদিক থেকে আমাদের ইন্ডাস্ট্রি অনেক নিরাপদ। অন্য জগতের থেকে অনেক ভালো।’

যে কারণে ছেলেকে নিয়ে গণমাধ্যমে এসেছিলেন অপু

ঢাকা,১২ ফেব্রয়ারী : আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের বিচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে। ডিভোর্স মেনে নেয়ার পর অপু জানিয়েছেন, বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী শাকিব তাকে অবহেলা করেছেন। তার শেষ অনুরোধটিও রাখেননি শাকিব।
অপু বিশ্বাস বলেন, আমি নই, বরং শাকিবই আমাকে বিয়ের পর থেকে অবহেলা করেছে। তার ক্যারিয়ারের কথা চিন্তা করে তার অনুরোধে দীর্ঘসময় বিয়ে ও সন্তানের কথা গোপন রেখেছিলাম। তার কাছে আমার শেষ একটি অনুরোধ ছিল সে যেন বুবলীর সঙ্গে কাজ না করে। কারণ শাকিব আর বুবলীর সম্পর্কে নানাজন নানা কথা আমাকে বলছিল। যা স্ত্রী হিসেবে আমি সহ্য করতে পারছিলাম না। কিন্তু শাকিব আমার এই অনুরোধকেও পাত্তা দেয়নি। তখন বাচ্চাকে নিয়ে আমার প্রকাশ্যে আসা ছাড়া আর কোনো পথ ছিল না।
অপু বলেন, যা হওয়ার তাতো হয়ে গেছে। এখন আমার ধ্যান জ্ঞান একমাত্র আমার সন্তান আবরাম খান জয়। তার জন্য বাঁচব আর তাকে মানুষ করতে পরিশ্রম করে যাব। শাকিবকে নিয়ে আর কখনো কোনো কথা বলতে চাই না।

আজ রাত ৯:০০টায় লাইভে আসছেন অপু বিশ্বাস

বিনোদন ডেস্ক : বিচ্ছেদের মতো কঠিন বোঝা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন ঢালিউডের কুইন অপুবিশ্বাস। তবে বর্তমানে এ যন্ত্রণা কাটিয়ে স্বাভাবিকভাবে সব কাজ করে বেড়াচ্ছেন তিনি।

সম্প্রতি বিনোদন ভিত্তিক অ্যাপস লিঙ্কআসের শুভেচ্ছা দূত নির্বাচিত হয়েছেন অপু। আর ইদানিং তিনি লিঙ্কাআসের প্রচারণার মাধ্যমে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন। ভক্তদের জন্য একটি সুখবর। আজ রাত ৯:০০টায় ভক্তদের সাথে আড্ডা দিতে লাইভে আসছেন আপনার প্রিয় অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস।

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter