নিউজ

টাকা দিয়ে কেনা দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদে নিয়োগ ও এমপিওভুক্ত।প্রধান শিক্ষককে তলব

টাকা দিয়ে কেনা দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদে নিয়োগ ও এমপিওভুক্ত হওয়ায় সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার হাওড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী লাইব্রেরীয়ানকে তলব করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। রোববার (৭ অক্টোবর) অধিদপ্তর থেকে তাদের কাছে এ সংক্রান্ত এক চিঠি পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, সহকারী লাইব্রেরীয়ান মো: সামছুল আলম ভুয়া সার্টিফিকেট প্রদর্শন করে হাওড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে নিয়োগ পান এবং পরে টাকার বিনিময়ে দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সনদ সংগ্রহ করে এমপিওভুক্ত হয়েছেন বলে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে অভিযোগ এসেছে।
অভিযোগে বলা হয়, ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরে সহকারী লাইব্রেরীয়ান মো: সামছুল আলম ভুয়া সার্টিফিকেট প্রদর্শন করে হাওড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে নিয়োগ পান। পরে এমপিওভুক্তির চেষ্টা করে ব্যর্থ হন তিনি। পরবর্তীতে ২০১৫ খ্রিস্টাব্দে দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে টাকার বিনিময়ে ভুয়া সনদ সংগ্রহ করে ম্যানেজিং কমিটিকে টাকা দিয়ে এমপিওভুক্ত হয়েছেন হাওড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী লাইব্রেরীয়ান মো: সামছুল আলম।

প্রধান শিক্ষককে সহকারী লাইব্রেরীয়ান মো: সামছুল আলমের সকল সনদ, নিয়োগপত্র, যোগদানপত্র সিএসকপিসহ স্বশরীরে উপস্থিত থেকে মাধ্যমিক শাখার পরিচালকের কক্ষে প্রদর্শন করতে বলা হয়েছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রতিটি বিভাগে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হবে : প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন রিপোর্টার ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমাদের যারা বিত্তশালী, সম্পদশালী তাঁরা তো একটু হাঁচি-কাশি হলেও বিদেশে চলে যেতে পারে চিকিৎসার জন্য। কিন্তু সাধারণ মানুষ তো আর সেই সুযোগ পায় না। বড়লোক বিত্তবানরা যাক, তাতে আমাদের সিট খালি থাকবে। সাধারণ মানুষ চান্স পাবে। আমার আপত্তি নাই।’

রবিবার বিকেলে গণভবনে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন- বিএমএর আয়োজনে চিকিৎসক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনের উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘একজন ডাক্তার রোগীর সাথে কথা বলেও কিন্তু রোগীর অর্ধেক রোগ ভালো করে দিতে পারেন। ডাক্তারদের কাছ থেকে মানুষ সেই সেবাটাই চায়। আমি আশা করি সেই সেবাটাই দেবেন। আমার দেশের সাধারণ মানুষ যারা মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্ত যাদের বিদেশে যাওয়ার মতো সঙ্গতি নাই- তাদের চিকিৎসা সেবাটা নিশ্চিত করা আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য।’

আবারও ক্ষমতায় আসতে পারলে প্রতিটি বিভাগে একটি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় করার পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

কোটা বহালের দাবিতে শাহবাগে অবস্থানকারীদের সড়ক ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ পুলিশের

ডেস্ক: প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা সুবিধা বহাল রাখার দাবিতে শাহবাগে অবস্থান নেওয়া মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের নেতাকর্মীদের সড়ক ছেড়ে দিতে অনুরোধ জানিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৪ অক্টোবর) ভোর সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগের এডিসি আজিমুল হক নিজে শাহবাগে এসে এ অনুরোধ করেন। এর আগে বুধবার (৩ অক্টোবর) রাত ৯টায় সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহালসহ ৬ দফা দাবিতে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শাহবাগে আন্দোলনকারীদের উপস্থিতি কমতে থাকে।রাত আড়াইটায় ভিড় কমে যায় ও ভোর ৪টার প্রায় খালি হয়ে যায়। তবে সকাল হতে হতে জনসমাগম বাড়বে বলেও জানান নেতারা।

ভোর সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগের এডিসি আজিমুল হক শাহবাগে উপস্থিত হয়ে আন্দোলনকারীদের বলেন, ‘রাত বলে কোনও বাঁধা দেওয়া হয়নি। দিনের বেলা রাস্তা বন্ধ রাখা যাবে না। ওপরের নির্দেশে এখানে আমি ছুটে এসেছি। দিনের বেলা রাস্তা বন্ধ রাখা যাবে না।’

এডিসির কথার জবাবে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের নেতা মেহেদী হাসান বলেন, ‘আমরা রাজপথেই থাকব। কোটা বাতিলের আন্দোলনেও রাস্তা অবরুদ্ধ ছিল।’

মেহেদীর এই কথার জবাবে এডিসির পাশে থাকা শাহবাগ থানার একজন এসআই বলেন, ‘তাহলে তাদের সঙ্গে যেমন আচরণ করা হয়েছে, আপনাদের ক্ষেত্রেও তাই হবে।’

প্রসঙ্গত, বুধবার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরি থেকে সব ধরনের কোটা বাতিলের প্রস্তাব অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। সরকারের এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে রাতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার ব্যানারে আন্দোলন শুরু হয়। এরপর কেন্দ্রীয় ও ঢাকা মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড শাহবাগের অবস্থান কর্মসূচিতে যোগদান করে। রাত ৯টায় সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহালসহ ৬ দফা দাবিতে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা।

মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ৬ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে- (১) সামাজিক মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে কটূক্তিকারীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে। (২) মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে গঠিত কোটা পর্যালোচনা কমিটির প্রতিবেদন অবিলম্বে বাতিল করতে হবে। (৩) ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিসিএসসহ সব চাকরির পরীক্ষায় প্রিলিমিনারি থেকে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাস্তবায়ন করতে হবে। (৪) মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সুরক্ষা আইন প্রণয়ন ও তাদের সাংবিধানিক স্বীকৃতি দিতে হবে। (৫) স্বাধীনতাবিরোধী, রাজাকার ও বংশধরদের চিহ্নিত করে সরকারি সব চাকরি থেকে বহিষ্কার, নাগরিকত্ব বাতিল ও সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে রাষ্ট্রের অনুকূলে ফেরত নিতে হবে। (৬) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলাকারীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

 

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

৪ অক্টোবর উন্নয়ন মেলা উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক,৩ অক্টোবর: আগামী ৪ থেকে ৬ অক্টোবর ৪র্থ উন্নয়ন মেলা অনুষ্ঠিত হবে। ‘উন্নয়নের অভিযাত্রায় অদম্য বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে দেশের সব জেলা ও উপজেলায় অনুষ্ঠিত হবে এই উন্নয়ন মেলা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করবেন। মঙ্গলবার (২ অক্টোবর) বিকালে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের করবী মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্যসচিব নজীবুর রহমান এ তথ্য জানান।

নজীবুর রহমান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ৪ অক্টোবর সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একযোগে দেশের সব জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের এ মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করবেন।’

নজীবুর রহমান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাংলাদেশের উন্নয়নের গতিধারা অব্যাহত থাকার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন বিশ্ব নেতারা। তরুণ প্রজন্ম উন্নয়ন মেলায় এসে যেন নিজেদেরকে নতুনভাবে আবিস্কার করে সে আয়োজন থাকছে। তরুণ প্রজন্ম ভবিষ্যতের জন্য একটা নতুন পাথেয় নিয়ে ফিরবে।’

তিনি বলেন, ‘মেলায় উদ্ভাবনী কিছু বিষয় থাকবে। শহরের সুবিধা কীভাবে গ্রামে পৌঁছাবে সেটা তরুণ প্রজন্ম উপলব্ধি করতে পারবে এই মেলায়। এই মেলায় ডেল্টা প্ল্যান আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে ধরা হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এই মুখ্যসচিব বলেন, ‘যেকোনও দেশের উন্নয়নে নেতৃত্ব একটা বিষয়। আমাদের উন্নয়ন নেতৃত্বে থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোগে জনগণের অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি করা এ মেলার অযতম উদ্দেশ্য।’ তিনি বলেন, ‘ঢাকা জেলা প্রশাসন শেরেবাংলা নগর আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার মাঠ প্রাঙ্গণে এবারে ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা আয়োজন করেছে। এ মেলায় স্টল থাকবে ৩৩০টি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামগ্রিক তত্ত্বাবধানে আয়োজিত এ মেলায় সরকারের সব মন্ত্রণালয় ও অধিদফতর অংশগ্রহণ করবে।’

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোঠা বাতিল

শিশির দাস: প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিলের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। বুধবার (৩ অক্টোবর) মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

এর আগে গত সোমবার (১৭ সেপ্টেম্বর) প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে সব ধরনের কোটা তুলে দেওয়ার সুপারিশ করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছিল সরকার গঠিত সচিব কমিটি।

উল্লেখ্য, সরকারি চাকরিতে বেতন কাঠামো অনুযায়ী মোট ২০টি গ্রেড রয়েছে। এর প্রথম গ্রেডে অবস্থান করেন সচিবরা। আর প্রথম বা দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তা হিসেবে যারা নিয়োগ পান তাদের শুরুটা হয় নবম থেকে ১৩তম গ্রেডের মধ্যে। একজন গেজেটেড বা নন গেজেটেড প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তা নবম গ্রেডে নিয়োগ পেয়ে থাকেন। এসব পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে বর্তমানে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা, ১০ শতাংশ জেলা কোটা, ১০ শতাংশ নারী কোটা, ৫ শতাংশ ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী কোটা, ও শর্তসাপেক্ষে ১ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটা অর্থাৎ মোট ৫৬ শতাংশ কোটা সংরক্ষণের বিধান রেখেছে সরকার। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে এই ৫৬ শতাংশ কোটা তুলে দেওয়ার সুপারিশ করেছে সচিব কমিটি। তবে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কোনও কোটা তুলে দেওয়ার ব্যাপারে সুপারিশ দেয়নি ওই কমিটি।

এ প্রতিবেদনে মুক্তিযোদ্ধা কোটা তুলে দেওয়ার সুপারিশ করা হলেও মুক্তিযোদ্ধা কোটা সংরক্ষণের বিষয়ে আদালতের পর্যবেক্ষণ রয়েছে বলে এতদিন সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে সরকার আদালতের পরামর্শ চাইবে এমন কথাও বলা হয়েছিল। সচিব কমিটির প্রতিবেদন দেওয়ার আগে এ বিষয়ে আদালতের পরামর্শ নেওয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, এ বিষয়ে রাষ্ট্রের আইন বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেওয়া হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী এর আগে বলেছেন, পিছিয়ে পড়া ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য বিশেষ ব্যবস্থা উনি রাখবেন। প্রতিবেদনে এ বিষয়ে কী ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বা পরামর্শ দেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সচিব কমিটি ব্যাপকভাবে পর্যবেক্ষণ ও বিচার-বিশ্লেষণ করে দেখেছে, এখন আর পিছিয়ে পড়া কোনও জনগোষ্ঠী নেই। সবাই এগিয়ে গেছে। তাই তাদের জন্য কোনও কোটা রাখার সুপারিশ করা হয়নি।
কীভাবে ও কবে এ প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই প্রতিবেদন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় হয়ে আবার প্রধানমন্ত্রীর দফতরে অনুমোদনের জন্য যাবে। প্রধানমন্ত্রীর দফতরের অনুমোদন পাওয়ার পর তা মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে। মন্ত্রিসভা বৈঠকে অনুমোদন পাওয়ার পর এ প্রজ্ঞাপন জারি হবে।
এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহের মন্ত্রিসভার বৈঠকে এটি অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হতে পারে।’

উল্লেখ্য, সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের দাবি বা সংস্কার নিয়ে চাকরি প্রত্যাশীদের অসন্তোষ দীর্ঘদিন থেকেই। এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে এ অসন্তোষ আন্দোলনে রূপ নিলে তা সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলে। এ ঘটনায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা ও আটকের ঘটনা ঘটে। এমন পরিস্থিতিতে গত ১১ এপ্রিল সংসদে সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিল বা সংস্কারের প্রয়োজন আছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে সচিব কমিটি গঠন করে সরকার।
তবে এই কমিটির প্রতিবেদনের সুপারিশ রাখা না রাখা বা পরিমার্জন, পরিবর্ধন করার এখতিয়ার সরকারের।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

কালকিনিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে গণ-সচেতনতামূলক সভা

কালকিনি : ট্রাফিক সচেতনতা, প্রচলিত আইন কানুন ও সাইবার অপরাধসহ অন্যান্য আইন সংক্রান্ত বিষয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে গণ-সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।এসময় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদেরকে বাল্য বিয়ে ও মাদক বিরোধী শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়।

আজ রোববার দুপুরে কালকিনি থানা পুলিশের উদ্যোগে সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজ হলরুমে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে বক্তব্য রাখেন, জেলা পুলিশ সুপার সুব্রত কুমার হালদার, উপজেলা চেয়ারম্যান তৌফিকুজ্জামান শাহিন, কলেজের অধ্যক্ষ হাসানুল হক সিরাজী, ওসি কৃপা সিন্ধু বালা, আ’লীগের যুগ্ন-সম্পাদক লোকমান সরদার, সহকারী অধ্যক্ষ মোঃ বশির আহম্মেদ, কলেজ শিক্ষক মুজিবুর রহমান ও প্রধান শিক্ষক বিএম হেমায়েত হোসেন প্রমুখ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

চাকরিতে ঢোকার বয়স ৩২

মেয়াদের শেষ সময়ে এসে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা শুরু করেছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার।

এ বিষয়ে খুব তাড়াতাড়ি সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম জানিয়েছেন।

সোমবার তিনি বলেন, “আলোচনা হচ্ছে, প্রক্রিয়া এখনও শুরু হয়নি, খুব তাড়াতাড়ি হবে। খুব তাড়াতাড়িই জানতে পারবেন।”

চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানো নিয়ে আলোচনা হলেও অবসরের বয়স বাড়ানোর বিষয়ে কোনো আলোচনা নেই বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

তিনি বলেন, “এন্ট্রিটা বাড়তে পারে আশা করছি।”

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সম্প্রতি সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩০ বছর থেকে বাড়িয়ে ৩৫ বছর এবং অবসরের বয়সসীমা ৫৯ বছর থেকে বাড়িয়ে ৬৫ বছর করার সুপারিশ করে।

শফিউল বলেন, “স্থায়ী কমিটি সুপারিশের ভিত্তিতেই প্রাথমিকভাবে আলোচনা হয়েছে।”

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, “চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়ানো নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আলোচনা শেষ করেছেন, এখন আমরা প্রস্তাব তৈরির কাজে হাত দেব।”

বর্তমান সরকারের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই চাকরিতে প্রবেশের বয়স দুই বছর বাড়তে পারে বলেও আভাস দেন ওই কর্মকর্তা।

২০১১ সালের ১৯ ডিসেম্বর মন্ত্রিসভার অনুমোদন নিয়ে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অবসরের বয়স ৫৭ থেকে বাড়িয়ে ৫৯ বছর করা হয়। তবে অধ্যাদেশ জারির কারণে তা ২০১১ সালের ২৬ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়।

এছাড়া গত বছরের ২১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধাদের অবসরের বয়সসীমা বাড়িয়ে ৬০ বছর করার ঘোষণা দেন।

অবসরের বয়সসীমা দুই বছর বাড়ানোর পর চাকরিতে প্রবেশের বয়সও বাড়ানোর দাবি ওঠে চাকরিপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে। এ নিয়ে আন্দোলনের পাশাপাশি সারা দেশে বিভিন্ন কর্মসূচিও পালন করেন তারা।

চাকরিপ্রার্থীরা যুক্তি দেখান, সরকারি নিয়ম অনুসরণ করে বেসরকারি ব্যাংকসহ বহুজাতিক কোম্পানিগুলোও ৩০ বছরের বেশি বয়সীদের নিয়োগ দেয় না। ফল বেসরকারি ক্ষেত্রেও চাকরির সুযোগ সঙ্কুচিত হয়ে যায়।

সরকারের পক্ষ থেকে সে সময় বলা হয়েছিল, চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা আপাতত নেই।

২০১৬ সালের মে মাসে জাতীয় সংসদে এ বিষয়ে এক প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, “আমরা যুব বয়সের মেধাশক্তিকে কাজে লাগাতে চাই। এজন্য আমরা চাই সকলে সময়মত পড়াশুনা করে চাকরিতে প্রবেশ করুক। এজন্য চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩০ থেকে বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা আমাদের নেই।”

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

অনুমতি ছাড়া সরকারি কর্মচারীদের গ্রেপ্তার করা যাবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০আগষ্ট:

ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত কোনো সরকারি কর্মচারীকে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া গ্রেপ্তার করা যাবে না; এমন বিধান রেখে সরকারি চাকরি আইন- ২০১৮ এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম এ তথ্য জানান।

শফিউল আলম জানান, নতুন খসড়া আইনের ৪১ ধারার উপধারা (১)-এ বলা আছে, ‘কোনো সরকারি কর্মচারীর দায়িত্ব পালনের সঙ্গে সম্পর্কিত অভিযোগে দায়েরকৃত ফৌজদারি মামলায় আদালত কর্তৃক অভিযোগপত্র গৃহীত হওয়ার আগে তাকে গ্রেপ্তার করতে হলে সরকার বা নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতি গ্রহণ করতে হবে।

তিনি জানান, চাকরি আইনের ৪২ ধারায় ফৌজদারি মামলায় দন্ডিত কর্মচারীর ক্ষেত্রে ব্যবস্থা সংক্রান্ত উপধারা (১) এ বলা হয়েছে, ‘কোনো সরকারি কর্মচারী ফৌজদারি মামলায় আদালত কর্তৃক মৃত্যুদন্ড বা ১ (এক) বছর মেয়াদের অধিক মেয়াদের কারাদন্ডে দন্ডিত হইলে, উক্ত দন্ড আরোপের রায় বা আদেশ প্রদানের তারিখ থেকে চাকরি থেকে তাৎক্ষণিকভাবে বরখাস্ত হবেন।

একই ধারার (২) উপধারায় বলা হয়েছে, কোনো সরকারি-কর্মচারী ফৌজদারি মামলায় আদালত কর্তৃক অনূর্ধ্ব এক বছর মেয়াদের কোনো কারাদন্ড বা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হলে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ তাকে তিরস্কার, নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য পদোন্নতি বা বেতন বৃদ্ধি স্থগিতকরণ, নিম্ন পদ বা নিম্নতর বেতন স্কেলে অবনমিতকরণ বা সরকারি সম্পত্তি ক্ষতিসাধন পূরণের বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, সরকারি কর্মচারীদের শাস্তির ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি যদি এই মর্মে সন্তুষ্ট হন যে, আদালত কর্তৃক কারাদন্ডে দন্ডে বা চাকরি হইতে বরখাস্তকৃত কোনো ব্যক্তিকে অনুরূপ বরখাস্ত হইতে অব্যাহতি প্রদানের বিশেষ কারণ বা পরিস্থিতি রহিয়াছে, তাহা হইলে তিনি উক্ত ব্যক্তিকে অব্যাহতি প্রদান করিতে পারিবেন এবং অনুরূপ আদেশ প্রদান করা হইলে উক্ত কর্মচারী চাকরিতে পুনর্বহাল হইবেন।

সরকারি চাকরি আইনের ৩৫ ধারায় বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি কর্তৃক ধারা ৩২ বা ধারা ৩৩ এর উপধারা (১) এর অধীন প্রদত্ত আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করা যাবে না বলেও জানান শফিউল আলম।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঈদ ২২ আগস্ট

ডেস্বাংক,১২ আগষ্ট:  আকাশে রোববার সন্ধ্যায় জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ২২ আগস্ট (বুধবার) দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপিত হবে।

আজ রোববার সন্ধ্যায় (বাদ মাগরিব) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্মমন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সভায় ধর্মমন্ত্রী জানান, সব জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, আবহাওয়া অধিদপ্তর, মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র, দূর অনুধাবন কেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী রোববার বাংলাদেশের আকাশে হিজরি ১৪৩৯ সনের জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। সোমবার থেকে জিলহজ মাস গণনা শুরু হবে। ২২ আগস্ট (১০ জিলহজ) বুধবার দেশে ঈদুল আজহা পালিত হবে।

গতকাল শনিবার জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ায় সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে ২১ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপিত হবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

চাকরিতে বয়সসীমা ৩৫ !

নিজস্ব প্রতিবেদক,৪ আগষ্ট : চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ বছর করার জন্য গত ২৭ জুন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সুপারিশ করে এবং একই সঙ্গে অবসরের বয়সসীমা ৬৫ বছর করার পরামর্শ দেয়।

কমিটির সুপারিশ বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের পক্ষে শনিবার বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদের মানববন্ধন করে।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক হারূন-অর রশিদ বলেন, সরকারের বর্তমান মেয়াদের মধ্যে এ সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে হবে। নবম সংসদের নির্বাচনের আগেও চাকুরিতে আবেদনের বয়স বাড়ানোর জন্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু বাস্তবে তার সুফল এদেশের উচ্চ শিক্ষিত ছাত্ররা এখনো লাভ করেনি। তাই আসছে নির্বাচনের আগেই এটা অবশ্যই বাস্তবায়ন করতে হবে।

এসময় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক সবুজ ভূঁইয়া, যুগ্ম আহ্বায়ক কামরুন নাহার ঝুমা, যুগ্ম আহ্বায়ক রীপা প্রমুখ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

মাদরাসা শিক্ষকদের জুলাই মাসের বেতনের চেক ছাড়

অনলাইন ডেস্ক: এমপিওভুক্ত মাদরাসার শিক্ষক-কর্মচারীদের  জুলাই মাসের এমপিওর (বেতন-ভাতার সরকারি অংশ) চেক ছাড় হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ আগস্ট) অনুদান বণ্টনকারী রাষ্ট্রায়াত্ত চারটি ব্যাংকে চেক পাঠানো হয়েছে। শিক্ষকরা ৯ আগস্ট পর্যন্ত বেতন-ভাতার সরকারি অংশের টাকা তুলতে পারবেন।

মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোহাম্মদ শামসুজ্জামান  এ তথ্য জানিয়েছেন।

আদেশের স্মারক নম্বর ৫৭.২৫.০০০০.০০২.০৮.০০৪.১৭-১৪৯

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করলে পরিণাম শুভ হবে না

অনলাইন ডেস্ক: বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের ওপর গতকালও হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগ। গতকাল ধানমণ্ডিতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগের সশস্ত্র ক্যাডাররা। সাংবাদিকরা হামলার দৃশ্য ধারণ করতে গেলে তাদের সশস্ত্র হামলা করা হয়েছে।

আজ শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

রিজভী বলেন, আজ রাজধানীর মোড়ে মোড়ে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনকে মনিটরিংয়ের নামে দাঁড় করিয়ে রাখা হবে বলে গণমাধ্যমে খবর বেরিয়েছে। যদি আওয়ামী লীগ এ কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে তাহলে জনগণ ও অভিভাবকরা তাদের ক্ষমা করবে না, এর পরিণাম শুভ হবে না।

তিনি বলেন, গত সাড়ে তিন বছরে সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করেছে ২৫ হাজার মানুষ। আহত হয়েছেন ৬২ হাজার মানুষ। সড়কে দীর্ঘ মৃত্যুর-মিছিলের জন্য দায়ী সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং নৌমন্ত্রী শাজাহান খান ও সরকারের অনাচারমূলক নীতি।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, মন্ত্রীদের নির্দেশে আজকেও দেশব্যাপী গণপরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কষ্ট দেওয়া হচ্ছে সাধারণ মানুষদের। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এই গণপরিবহন বন্ধ করেনি।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ, শ্রমিকলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠি হাতে হামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক,৪ আগষ্ট: রাজধানী ঢাকার জিগাতলায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) গেটের সামনে শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠি হাতে হামলা চালিয়েছে একদল যুবক। তাদের মাথায় হেলমেট পরা ছিল। দুই পক্ষকে ইটপাটকেল ছুড়তে দেখা যায়। আজ শনিবার বেলা দুইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আজ সকাল থেকে ওই এলাকায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা জড়ো হতে শুরু করে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। হাজার হাজার শিক্ষার্থী সেখানে অবস্থান নেয়। বেলা দুইটার দিকে বিজিবি গেটের সামনে শত শত শিক্ষার্থীর একটি অংশের ওপর হঠাৎ করে হেলমেট পরা লাঠি হাতে ২৫-৩০ জনের এক দল যুবক হামলা চালায়। ওই সময় বিজিবির সদস্যরা গেট থেকে সামনে এসে যুবকদের থামানোর চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে শিক্ষার্থী ও হামলাকারীরা একে অপরের দিকে ইটপাটকেল ছোড়া শুরু করে।

২৯ জুলাই রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহন লিমিটেডের একটি বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। ওই ঘটনার প্রতিবাদে সেদিন থেকেই শিক্ষার্থীরা রাজধানীর বিভিন্ন রাস্তায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জালিয়াতি করে চাকরি, মোংলা বন্দরের ৩১২ জন কর্মচারীকে দুদকে তলব

নিজস্ব প্রতিবেদক,৪ আগষ্ট: জাল সার্টিফিকেট, কোটা ও বয়সসীমা জালিয়াতি করে মোংলা বন্দরে চাকরি নেওয়া ৩১২ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এসব কর্মচারীরা কীভাবে অনিয়ম করে চাকরি নিয়েছে সে ব্যাপারে দুদক তদন্ত নেমেছে বলেও জানা গেছে।

এদিকে এ ঘটনায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমোডর ফারুক হাসান অসন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘অনিয়ম করায় যোগ্যতা অনুযায়ী মেধাবীদের চাকরিতে সুযোগ না হওয়ায় ইতোমধ্যে বন্দরের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে।’

অভিযোগ উঠেছে, অর্থ বাণিজ্যর মাধ্যমে অনিয়ম করে বন্দরের বিভিন্ন কর্মস্থলে কয়েক’শ লোকজনকে চাকরি পাইয়ে দেয় বন্দর কর্মচারীদের সংগঠন (সিবিএ)। বন্দর কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন কর্মস্থলে নিয়োগের ক্ষেত্রে ধারাবহিকভাবে সিবিএ হস্তক্ষেপ করায় এসব অনিয়ম হয়ে আসছে বলে জানান চাকরি প্রত্যাশীদের অবিভাবকরা।

মোংলা বন্দরের ব্যবসায়ী ও একজন চাকরি প্রত্যাশীর অবিভাবক শাজাহান সিদ্দিকী বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে মোংলা বন্দরে যেভাবে নিয়োগ বাণিজ্য চলছে, তাতে আমাদের ছেলেমেয়েরা ভালো রেজাল্ট করেও চাকরি পাবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘বন্দরের সিবিএ নেতাদের কাছে জাল সার্টিফিকেট, বয়স নেই, কাজের অভিজ্ঞতা নেই এমন জাল সনদের সঙ্গে মোটা অঙ্কের টাকা ঘুষ নিয়ে গেলেই অনভিজ্ঞদের চাকরি হয়ে যায়।’ এতে কোনোদিন মেধাবীদের চাকরি হবেনা বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে জাল সার্টিফিকে দিয়ে চাকরি নেওয়া মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের নিজস্ব জলযান এম টি সারথী-২ এর ভান্ডারি (রাধুনী) ফজলুল হক, এম টি মেঘদূতের হাবিবুর রহমান এবং সরোয়ার মুন্সি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমাদের সিবিএ’র সংগঠনের নেতা পল্টু ও সাকিবকে জিজ্ঞেস করেন। তারা আমাদের হয়ে কথা বলবেন।’

সরোয়ার মুন্সি মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ শ্রমিক কর্মচারী সংঘ রেজিঃ ১৯৫৭ (সিবিএ) এর যুগ্ন সম্পাদক মতিউর রহমান সাকিবের ভগ্নিপতি। সাকিবের ছোট ভাই মহসিন হোসেন বাদশাও জন্ম সনদ জাল করে বয়স কমিয়ে সিনিয়র আউটডোর অ্যাসিসন্টে হিসেবে চাকরি নেন বলে অভিযোগ আছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বন্দরের হারবার, মেরিন এবং যান্ত্রিক ও তড়িৎ বিভাগের একাধিক কর্মচারীরা বলেন, মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ শ্রমিক কর্মচারী সংঘ রেজিঃ ১৯৫৭ (সিবিএ) এর সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম পল্টু এবং যুগ্ন সম্পাদক মতিউর রহমান সাকিব-বন্দরের কর্মচরীর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলেই তাদের কর্মস্থলে চাকরি ফেলে বেসামাল হয়ে ওঠেন। তারা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির তালিকা ধরে নিয়োগ বাণিজ্যে নেমে পড়েন বলে গুঞ্জন রয়েছে।

তবে পল্টু ও সাকিব এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে করা অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমরা বন্দরের নিয়োগ কমিটিকে সুস্থভাবে কাজ করতে আরও সহযোগিতা করি।’

তারা আরও বলেন, ‘বন্দরে ২০১৩ ও ১৪ সালে যারা নিয়োগ পেয়েছেন তাদেরকে ডেকে হয়রানি করছে দুর্নীতি দমন কমিশন । তিন-চার বছর ধরে চাকরিতে থাকা অবস্থায় তাদের ডেকে আবার লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা নেওয়ার যৌক্তিকতা নেই।’

এদিকে বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) পর্যন্ত অনিয়ম করে চাকরি পাওয়ায় বন্দরের ৩২ জন কর্মচারীকে দুদক ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

এ প্রসঙ্গে খুলনার দুর্নীতি দমন কমিশনের ডেপুটি অ্যাসিস্টেন্ট ডাইরেক্টর নীল কমল পাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘জাল সার্টিফিকেট, কোটা ও বয়সসীমা জালিয়াতি করে যারা মোংলা বন্দরে চাকরিতে নিয়োগ নিয়েছেন, তদন্তের স্বার্থে তাদের ডাকা হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তা ফয়সাল কাদের এসব বিষয়ে তদন্ত করছেন। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলেই সংশ্লিষ্ট থানায় এজাহার (মামলা) দায়ের করা হবে।

এদিকে বন্দরের পার্সোনাল শাখার একটি সূত্র জানায়, গত ২০১৩ ও ১৪ সালে নিয়োগ পাওয়া ৩১২ জন কর্মচারীর অধিকাংশের বিরুদ্ধে অযোগ্যতার অভিযোগ ওঠায় চলতি বছরের জুলাই মাসে দু’দফায় ২৮ জনকে তলব করে পুনরায় পরীক্ষা নিয়েছে দুদক।

সূত্রটি আরও জানায়, বন্দরের নিজস্ব জলযান এম এল গাংচিল, এম টি শিবসা, এম টি সারথী-২, বি এল ভি মালঞ্চ, এম এল ঝিনুক, এম এল উষা, এম টি সারথী-১, এম ভি রুহী, এম এল রাজহংস, এম ভি তৃঞ্ষা, এফ এফ টি অগ্নি প্রহরী, এম এল ময়ীরপঙ্খী, এম এল বলাকা, এম এল পান্না, এম এল, হীরা, এম এল মতি, এম এল অনুসন্ধানী, এম এল উর্মি, ও এম এল মুক্তার “ভান্ডারী” (রাধুনী) ছাড়াও যান্ত্রিক ও তড়িৎ বিভাগের “ক্রেন হেলপার” পদের নব্বই শতাংশ ব্যক্তিই জালিয়াতির মাধ্যমে নিয়োগ পেয়েছেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ছাত্ররা ঘরে ফিরলেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক,৪ আগষ্ট: অাওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অান্দোলনকারীদের সব দাবি মেনে নিয়েছি। অনেকগুলো বাস্তবায়নের পথে। তাই অাবার তাদের বলবো অনেকে ঘরে ফিরেছে, তোমরাও ঘরে ফিরে যাও। ছাত্ররা ঘরে ফিরলেই পরিবহন ব্যবস্থা স্বাভাবিক হবে।

তিনি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়ে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে অাইন পাস হচ্ছে। অাগামী সোমবার মন্ত্রিসভায় এবং পরবর্তী সংসদ বসলে এ অাইন পাস করা হবে।

শনিবার ধানমন্ডিস্থ অাওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে অায়োজিত সম্পাদকমণ্ডলীর সভা শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল অালম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এনামুল হক শামীম, বি এম মোজাম্মেল হক, দফতর সম্পাদক ড. অাবদুস সোবহান গোলাপ, কৃষিবিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, তিনি ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন। যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের বাড়িতে গেছেন এবং অার্থিকভাবে সহযোগিতা করেছেন। এরপর অার কী বলার থাকে?

তিনি বলেন, কোমলমতি ছাত্রদের অান্দোলনে যখন অনুপ্রবেশকারী ঢোকে এবং সহিংস ঘটনা ঘটায় তখন ছাত্রদের সেটা দেখতে হবে এবং একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। তা না হলে সরকার ব্যবস্থা নেবে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে কাদের কলেন, বিএনপি নামক একটি নালিশ পার্টি অাছে। এরা জনগণ থেকে ক্রমান্বয়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। ফখরুলসহ প্রথম সারির নেতারা পদত্যাগ করলে দেশের মানুষ মুক্তি পায়, বিএনপির নেতারাও মুক্তি পায়।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free