Home » নিউজ (page 18)

নিউজ

মেধাবীদের দীর্ঘ মেয়াদী ভিসা দিচ্ছে চীন

অনলাইন ডেস্ক ॥ বিদেশ থেকে সেরা মেধাবীদের আকৃষ্ট করতে চীন দীর্ঘ মেয়াদী ভিসা দেয়া শুরু করেছে যাতে তারা সেখানে কাজ করতে পারেন। চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানাচ্ছে এই মাল্টি এন্ট্রি ভিসা পাঁচ থেকে দশ বছর মেয়াদী।

বিশেষ করে প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ, উদ্যোক্তা এবং বিজ্ঞানীদের আকৃষ্ট করতে চাইছে দেশটি।

চীন তার অর্থনৈতিক এবং সামাজিক উন্নয়নের জন্য যে লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে তা বাস্তবায়নে বিদেশ থেকে সেরা মেধাবীদের আকৃষ্ট করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে।

এই দীর্ঘমেয়াদী ভিসা দেয়ার উদ্যোগ যখন প্রথম নেয়া হয়েছিল, তখন চীন বলেছিল প্রায় ৫০ হাজার বিদেশি এর সুযোগ পাবে।

কারা আবেদন করতে পারবেন:

চীনের এই দীর্ঘমেয়াদী ভিসার আবেদন অনলাইনেই করা যায়। চীন সরকার বলছে, এর জন্য কোন ফি নেয়া হয় না এবং খুব দ্রুত এসব আবেদন বিবেচনা করা হয়।

যাদের ভিসা দেয়া হবে তারা একদফায় একটানা ১৮০ দিন করে চীনে থাকতে পারবেন । তারা তাদের স্ত্রী এবং ছেলে-মেয়েদের চীনে আনতে পারবেন।

২০১৬ সালে চীন একটি সূচক প্রকাশ করেছিল যেখানে দেশটিতে কোন ধরণের বিদেশি কর্মী দরকার তা চিহ্ণিত করা হয়েছিল।

সেখানে অদক্ষ কর্মীর সংখ্যা কমিয়ে মেধাবী বিদেশি কর্মীদেরই বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়।

চীনা সরকারের একটি দলিলে এই সেরা মেধাবীদের তালিকায় যাদের কথা উল্লেখ করা আছে তাদের মধ্যে আছে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী, সফল অলিম্পিক অ্যাথলীট এবং সঙ্গীত বা শিল্পকলার বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালকরা।

শীর্ষ বিজ্ঞানী, বড় বড় আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান বা নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরাও এই তালিকায় আছেন।

সূত্র ॥ বিবিসি

প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে শিক্ষকদের অনশন প্রত্যাহার

ডেস্কঃ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে আশ্বাস পাওয়ার পর আমরণ অনশন কর্মসূচি স্থগিত করেছেন নন-এমপিও শিক্ষকেরা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন কর্মকর্তা আজ দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে এই আশ্বাসের কথা জানান। এরপর শিক্ষকেরা আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা দেন।

এমপিওভুক্তির দাবিতে নন এমপিও শিক্ষকেরা গত রোববার থেকে প্রেস ক্লাবের সামনে আমরণ কর্মসূচি চালিয়ে আসছেন। আজ ছিল কর্মসূচির ৬ষ্ঠ দিন। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ শিক্ষকদের দাবি মেনে নেওয়ার ব্যাপারে আশ্বাস দিয়েছিলেন। তবে শিক্ষকেরা তাঁর আশ্বাসে ভরসা রাখতে পারেননি। তাঁরা চেয়েছেন আশ্বাস আসতে হবে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে।

সিলেটে পরীক্ষায় সন্তান দ্বিতীয় হওয়ায় শিক্ষক পেটালেন বাবা!

সিলেট প্রতিনিধি,২জানুয়ারী: সিলেটে চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রী বার্ষিক পরীক্ষায় দ্বিতীয় স্থান পাওয়ায় এক শিক্ষককে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছেন মেয়েটির বাবা। সোমবার (০১ জানুয়ারি) জকিগঞ্জ উপজেলার গোটারগ্রাম ত্রিমোহনীতে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, স্থানীয় হাড়িকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী নাঈমা হক লস্করের রোল ছিল এক। গেল বার্ষিক পরীক্ষায় সে দ্বিতীয় হয়। এনিয়ে গত রোববার তার বাবা বদরুল হক লস্কর বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষকদের প্রতি উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। এ বিষয়ে গত সোমবার শিক্ষকরা বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মোস্তাক আহমদ লস্করের কাছে বিচার দেন। তখন সেখানে থাকা বদরুল হক লস্কর বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবু সালমান শিব্বিরকে পিটিয়ে আহত করেন।

সহকারী শিক্ষক আবু সালমান শিব্বির বলেন, জনসম্মুখে আমাকে পিটুনি দিয়েছেন বদরুল হক লস্কর। বিষয়টি মীমাংসার জন্য বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটি চেষ্টা করছে।

অভিযুক্ত বদরুল হক লস্কর বলেন, আমি বিদ্যালয়ের লেখাপড়ার মান নিয়ে কথা বললে ওই শিক্ষক আমার উপর রাগান্বিত হয়ে খারাপ আচরণ করেন। তিনি আমাকে ঘুষি মারলে আমিও শিক্ষককে পাল্টা জবাব দেই।

হাড়িকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহজাহান আলম বলেন, শিক্ষক আবু সালমান শিব্বির জনসম্মুখে লাঞ্ছিত হয়েছেন। এ ঘটনা দুঃখজনক।

জকিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুস শহীদ তাপাদার বলেন, আমরা শিক্ষকের উপর নির্যাতনকারী অভিভাবকের দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

জকিগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার কাজী সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি অফিসের কাজে ঢাকায় রয়েছি। ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে সমাধানের চেষ্টা করছেন এলাকার বিশিষ্টজনরা। সম্মানজনকভাবে সমাধান না হলে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে

বিনিশার আত্মহত্যার রহস্য উদঘাটনে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

ঢাকা: রাজধানীর ভাটারায় পাইওনিয়ার ডেন্টাল কলেজের নেপালি শিক্ষার্থী বিনিশার আত্মহত্যাকে রহস্যজনক বলে দাবি করেছেন বাংলাদেশে অবস্থানরত  অন্য নেপালি শিক্ষার্থীরা। আর এই রহস্য উদঘাটনের দাবিতে বিক্ষোভ করছেন তারা।

ঢাকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত নেপালি শিক্ষার্থীরা শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) সকাল থেকে পাইওনিয়ার ডেন্টাল কলেজে জড়ো হয়ে এ  বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন  করছেন।

এ সময় শিক্ষার্থীরা আত্মহত্যার রহস্য উদঘাটন করে সঠিক বিচারের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

এর আগে ২১ ডিসেম্বর একই দাবিতে কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থী ও ইন্টার্ন ডাক্তাররা।

শিক্ষার্থীরা জানান, পরীক্ষায় খারাপ কিংবা যে কোনো ভুলের জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদের কাছ থেকে বাড়তি অর্থ আদায় করেন। এ আতঙ্কের কারণেই বিনিশা আত্মহত্যা করেছেন।

এদিকে, পাইওনিয়ার ডেন্টাল কলেজ কর্তৃপক্ষ বিনা নোটিশে ফাইনাল অ্যাসেসমেন্টসহ সকল ধরণের পরীক্ষা এবং ক্লাশ বন্ধ করেছে। শিক্ষার্থীদের হোস্টেল ত্যাগে বাধ্য করেছে।

গত ১৯ ডিসেম্বর টার্ম-২ পরীক্ষা চলাকালীন অবস্থায় হল থেকে বেরিয়ে হোস্টেলের নিজ কক্ষে গিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বিনিশা। খবর পেয়ে ওই দিনই দুপুরে ঝুলন্ত অবস্থায় বিনিশার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ভাটারা থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়।

ডিএনসিসি এলাকায় চলছে ভিটামিন ‘এ প্লাস’ ক্যাম্পেইন

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় সকাল থেকে চলছে ভিটামিন ‘এ প্লাস’ ক্যাম্পেইন। এ ক্যাম্পেইনের আওতায় মোট ১ হাজার ৪৯৯টি কেন্দ্রে ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৫৪৬ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

শনিবার ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) প্যানেল মেয়র মো. ওসমান গণি মহাখালীর আমতলীতে এ ক্যাম্পেইন উদ্বোধন করেন।

ক্যাম্পেইনের অধীনে শনিবার ডিএনসিসির পাঁচটি অঞ্চলের আওতাধীন ৩৬টি ওয়ার্ডের ১ হাজার ৪৯৯টি কেন্দ্রে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ৬৮ হাজার ৭৬৯ জন শিশুকে নীল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল এবং ১২-৫৯ মাস বয়সী ৪ লাখ ৬৭ হাজার শিশুকে ১টি করে লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে।

এ ছাড়া প্রত্যেক শিশুর অভিভাবককে শিশুদের সুষম খাবার খাওয়ানোর ব্যাপারে সচেতন করা হচ্ছে। এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে ২ হাজার ৯৯৮ জন স্বাস্থ্যকর্মী, ১৮৩ জন প্রথম সারির এবং ১০৩ জন দ্বিতীয় সারির সুপারভাইজার কাজ করছেন।

সার্বিক কার্যক্রম মনিটরিং করছেন ডিএনসিসির প্যানেল মেয়র, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এবং আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তারা।

ভিটামিন ‘এ প্লাস’ ক্যাম্পেইন শতভাগ সফল করার জন্য প্যানেল মেয়র মো. ওসমান গণি ডিএনসিসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ প্রদান এবং সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

এ ক্যাম্পেইনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ২০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. নাসির, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মেসবাহুল ইসলাম, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জাকির হাসান, অঞ্চল-৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হেমায়েত হোসেন প্রমুখ।

ছাত্রলীগের স্কুল কমিটির দরকার নেই : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক,২৩ ডিসেম্বর: সম্প্রতি ছাত্রলীগের স্কুল কমিটি করার ঘোষণার সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ‘স্কুল কমিটির ধারণাটা সঠিক হয়নি। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র রাজনীতি থাকবে, থাকতে হবে। কিছু কিছু বিশৃঙ্খলা যা ঘটে সে ব্যাপারে ছাত্রলীগকে সতর্ক থাকতে হবে। এটা নির্বাচনের বছর। যেন কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা না ঘটে। কেউ কেউ অপকর্ম করবে আর সেটার দায় নেবে দল? সেটা হয় না। তাই বলি স্কুল পর্যায়ের কমিটি করার দরকার নেই।’

শনিবার দুপুরে বাংলা একাডেমিতে ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিজয় দিবস ও শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা এখন দরকার নাই। এখন সমালোচনা ডেকে আনার দরকার নেই স্কুল কমিটি করে। ছেলে-মেয়েরা পিঠে বই পুস্তকের বোঝা নিয়ে যেন মরুভূমির পথ বেয়ে চলছে। বাচ্চাগুলোকে দেখলে এমনই মনে হয়। তারপর আবার রাজনীতির আরেক বোঝা! দরকার নেই এসবের।

অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘এ ধরনের আলোচনা সভাগুলো ঘরোয়া সেমিনার ধরনের না হওয়াই ভালো। এমন আলোচনা সভা বটতলায় হওয়া ভালো। কারণ, এমন মিলনায়তনে একটি হল শাখা ছাত্রলীগের কমিটির নেতা-কর্মীদের স্থান সংকুলান হয় না। এছাড়া যারা প্রতিদিন একই কথা শুনে অভ্যস্থ, তাদের বাদ দিয়ে ছাত্রলীগের প্রতি যেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা আগ্রহী হয়—সে জন্য বটতলায় এসব অনুষ্ঠান হলে ভালো।’

কাদের বলেন, ‘ছাত্রলীগের গুণগত গভীরতা নিয়ে কিছু কিছু জায়গায় আমার প্রশ্ন আছে।’

বিএনপির নেতারা বিভিন্ন সময় বলে আসছে দেশে আইনের শাসন নাই। এ বক্তব্যের সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন, অনেক ছাত্রলীগের ছেলে আছে এখন জেলে। কারো কারো যাবজ্জীবন জেল হয়েছে। কারো ফাঁসি পর্যন্ত হয়েছে। কিন্তু বিএনপির আমলে তাদের দলের কোনো নেতাকর্মীর বিচার হয়েছে?

তিনি বলেন, ‘আমাদের লোকেরা অপকর্ম করে। সেই অপকর্মের ফলও ভোগ করতে হয়। একজন মন্ত্রীর ছেলে হয়ে জেলে। এমপি কারাগারে। আরেক এমপি আদালত থেকে জামিন নিয়ে আছেন। দুই মন্ত্রীকে দুদকের মামলায় কোর্টে গিয়ে হাজিরা দিতে হয়। বিএনপির আমলে কি এসব কখনো হয়েছে? কোনো বিচার হয়নি। কিন্তু আমরা কোনো অপরাধীকেই ছাড় দেব না।’

এ সময় রংপুর সিটি নির্বাচন নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে আসা সংবাদের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘কত রকমের লেখা-লেখি। কেউ কেউ আদা-জল খেয়ে রাজনীতিক কারণে নেমে পড়েছে আমাদের বিরুদ্ধে। সেটা আমরা বুঝি। আমরা বুঝি প্রথম পাতা শেষ পাতা সরকারের বিরুদ্ধে দিচ্ছে। সবই বুঝি।’

কাদের বলেন, কুমিল্লায় আমরা যখন ৩৫ হাজার ভোট আগের চেয়ে বেশি পেলাম সেটা কিন্তু কেউ লেখেনি। আবার নারায়ণগঞ্জে আমরা দেড়গুণ বেশি ভোট পেয়ে জিতেছি। সেটাও লিখেনি। এখন রংপুরের মেয়র আমরা হেরেছি। কাউন্সিলরে প্রথম হয়েছি। সেটাও কেউ বলেনি। আমরা হারলাম কোথায়?

নির্বাচন কমিশনের প্রতি বিএনপি অনাস্থা প্রকাশের সমালোচনা করে তিনি বলেন, কুমিল্লায় আস্থা ছিল। রংপুরে নেই। কেমনে আপনাদের টেনে তুলবে? আপনারা তো ২য়ও হন নাই। হয়ে গেলেন তৃতীয়। তৃতীয়ককে টেনে তুলবে কিভাবে। নির্বাচন কমিশনের কী এটা দায়িত্ব? তাহলে তো আগামী নির্বাচনে তিনশত আসনই আপনাদের দিতে হবে। নির্বাচন কমিশনের প্রতি আস্থা অর্জনের জন্য।

ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন প্রমুখ।

যুগ্ম-সচিব হলেন ১৯৩ কর্মকর্তা

ঢাকা: জনপ্রশাসনের ১৯৩ জন উপ-সচিব ও সমমর্যাদার কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দিয়ে যুগ্ম-সচিব করেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) দিনগত মধ্যরাতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করেছে।

এর মাধ্যমে বর্তমান সরকারের মেয়াদে পঞ্চম দফায় বড় ধরনের পদোন্নতি পেলেন জনপ্রশাসনের কর্মকর্তারা। গত ১১ ডিসেম্বর প্রশাসনের ১২৮ জন যুগ্ম-সচিবকে অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি দেয় সরকার। কিছুদিনের মধ্যে উপসচিব পদেও পদোন্নতি আসছে বলে মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

জানা যায়, যুগ্ম-সচিবের স্থায়ী পদ আছে ৪৩০টি। নতুন এই পদোন্নতির পর বর্তমানে জনপ্রশাসনে যুগ্ম-সচিবের সংখ্যা দাঁড়ালো ৮৪২ জনে।

প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হক আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক :

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হক আর নেই। শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বিএসএমএমইউর পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল্লাহ আল হারুন তার মৃত্যুর বিষয়টি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

তিনি গত আগস্ট মাস থেকে প্রোস্টেট গ্লান্ডের সংক্রমণে ভুগছিলেন এবং ১৩ ডিসেম্বর থেকে হাসপাতালের আইসিইউ এর ১৬ নম্বর বেডে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।

ছায়েদুল হক ১৯৪২ সালের ৪ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও একমাত্র ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন এবং গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার ছেলে ডাক্তার এ এস এম রায়হানুল হক ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত আছেন।

তিনি ১৯৭৩, ১৯৯৬, ২০০১, ২০০৮ ও ২০১৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসন থেকে ৫ বার এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এর আগে তিনি খাদ্য, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতিও ছিলেন।

দামড়হুদায় বিজয় দিবসে র‌্যালিতে বিএনপির বিশৃঙ্খলা॥

যুবলীগ-বিএনপির সংঘর্ষ আহত শিশুসহ ১৩ জন ॥

চুয়াডাঙ্গা,১৬ডিসেম্বর॥
চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা পৌরসভার বিশ্বাস মার্কেটের কাছে বিএনপির বিশৃঙ্খলার কারনে বিজয় দিবসের র‌্যালিতে যুবলীগের নেতা-কর্মীরা ও বিএনপির সংঘর্ষে র‌্যালিটি পন্ড হয়ে যায়। এসময় বিএনপি নেতা জালাল উদ্দীন (৩৫), শফিউল্লাহ (৪০), রাসেল (২৮), আলতাফ উদ্দীন (৩০), হাসমত আলী (৩২), সাইফুল (২০), জাহিদ হোসেন (২৬), আপু (২৯) ও বাদল (২২) সহ ১০ জন এবং যুবলীগ নেতা আব্দুর রহমান (৩৭) ও মিলন (২১) সহ ৩ জন আহত হয়েছে। আজ শনিবার সকাল ৯ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায়, শনিবার সকালে দর্শনা কলেজ মাঠ থেকে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজগার টগরের নেতৃত্বে শহরের বিভিন্ন স্থান পরিদর্শনের সময় বিএনপির একটি র‌্যালি মুক্তিযোদ্ধা ও ছোট ছোট শিশুদের র‌্যালিকে থামিয়ে মাঝখানে ঢুকতে যায়। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা এর প্রতিবাদ করলে যুবলীগের সাথে বিএনপির সংঘর্ষ বাধে। এতে তৎক্ষনাত আজমপুর, লিটিল এনজেলস,জয়নগর,শান্তিনগর,কাষ্টমসসহ একাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুরা এলাপাথারি দৌড়াতে থাকে। এতে শিশু অভিজিৎ সান্তারা,আনারুল আকমল আকিব সহ বিএনপি কর্মী জালাল উদ্দীন, শফিউল্লাহ, রাসেল, আলতাফ উদ্দীন, হাসমত আলী, সাইফুল ইসলাম ও আপু এবং যুবলীগ নেতা আব্দুর রহমান ও মিলন আহত হয়।

৬১ হাজার ৮৩টি স্থানে জাতীয় পতাকা ওড়াবে ইফা

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : মহান বিজয় দিবস (১৬ ডিসেম্বর) উপলক্ষে শনিবার ইসলামিক ফাউন্ডেশন (ইফা) সারাদেশের ৬১ হাজার ৮৩টি স্থানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করবে। এ ছাড়া ইফার উদ্যোগে দিনটিতে বিশেষ দোয়া মাহফিল এবং বিজয় দিবসের তাৎপর্য এবং সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৫ ডিসেম্বর) ইফার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বিজয় দিবস উপলক্ষে শনিবার সকাল ১০টায় বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের রূহের মাগফিরাত কামনা করে পবিত্র কুরআনখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ৬৪টি জেলা ও বিভাগীয় কার্যালয়, ৫৫০টি উপজেলা বা জোনে মডেল ও সাধারণ রিসোর্স সেন্টার, প্রাক্ প্রাথমিক গণশিক্ষার ৫৯ হাজার ৯৬৮টি কেন্দ্র, ৫০টি ইসলামিক মিশন, ১৯টি ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ও ৪২৫টি মক্তব এবং ৭টি ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমিসহ মোট ৬১ হাজার ৮৩টি স্থানে যথাযোগ্য মর্যাদায় সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। একই সঙ্গে সকল স্থানে বিজয় দিবসের তাৎপর্য এবং সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী আলোচনা সভা এবং বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া শনিবার বাদ যোহর দেশের সকল মসজিদে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের রূহের মাগফিরাত কামনা এবং যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও জাতির শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল আয়োজনের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত সেই শিক্ষক চাকরিচ্যুত

জেলা প্রতিনিধি বাগেরহাট : বাগেরহাট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে কোচিং সেন্টারের প্রশ্নপত্রে বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার ঘটনায় জড়িত আইসিটি বিষয়ের খণ্ডকালীন শিক্ষক শেখ মো. বেল্লাল হোসেনকে চাকরিচ্যুত করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

সেই সঙ্গে স্কুল কর্তৃপক্ষ চাকরিচ্যুত শিক্ষক বেল্লাল হোসেনের বিরুদ্ধে বাগেরহাট মডেল থানায় একটি মামলা করেছেন। বৃহষ্পতিবার গভীররাতে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মতিন হাওলাদার বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। তবে পুলিশ ওই শিক্ষককে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি।

বাগেরহাট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মতিন হাওলাদার বলেন, শিক্ষক বেল্লাল হোসেনের কোচিং সেন্টারে অনুষ্ঠিত মডেল টেস্টের প্রশ্নপত্রে বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার অভিযোগ উঠলে তার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি ঘটনার সত্যতা পেয়ে স্কুলের সুনাম অক্ষুণ্ন রাখতে তাকে চাকরিচ্যুতির সুপারিশ করে। এছাড়া টিচার্স কাউন্সিলের জরুরি সভায়ও একই দাবি ওঠে। নিয়োগ বিধি মেনে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে এবং বাগেরহাট মডেল থানায় তার বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়েছে।

বাগেরহাট মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (অপারেশন) ও মামলা তদন্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, বাগেরহাট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মতিন হাওলাদার বাদী হয়ে ১৯৮০ সালের পাবলিক পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ আইনের ৪ ধারায় তার বিদ্যালয়ের শিক্ষক বেল্লাল হোসেনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন। আমি মামলার তদন্ত শুরু করেছি। আসামিকে ধরতে অভিযান চলছে।

উল্লেখ্য, গত ৯ ডিসেম্বর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণির অনুষ্ঠিত বার্ষিক পরীক্ষায় খণ্ডকালীন শিক্ষক বেল্লাল হোসেন পরিচালিত তার কোচিং সেন্টারের মডেল টেস্টের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা হয় বলে অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় শহর জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হলে ঘটনা তদন্তে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সহকারী প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেনকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটি প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় শিক্ষক বেল্লাল হোসেনের জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়ে তাকে চাকরিচ্যুতির সুপারিশ করে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। ১৪ ডিসেম্বর তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাসের কাছে জমা দেয়া হয়। তিনি নিয়ম মেনে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন।

অসামাজিক কর্মকাণ্ড, শিক্ষা কর্মকর্তা ও শিক্ষিকা আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক খুলনা : স্বামীর অনুপস্থিতিতে অসামাজিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার অভিযোগে খুলনা সদর থানার সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা অসীত কুমার বর্মন এবং মহানগরীর পশ্চিম টুটপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা নুসরাত জাহান পলিকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের শুক্রবার আদালতে পাঠানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে মহনগরীর দক্ষিণ টুটপাড়াস্থ দিলখোলা রোড এলাকায় নুসরাতের বাসা থেকে খুলনা সদরথানা পুলিশ তাদের আটক করে। এ ঘটনায় শিক্ষিকা নুসরাত জাহান পলির স্বামী এসএম মিজানুর রহমান বাদী হয়ে দু’ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।

আটক সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা অসীত কুমার বর্মন সাতক্ষীরা জেলা সদরের রাজনগর গ্রামের অমল কুমার বর্মনের ছেলে এবং শিক্ষিকা নুসরাত জাহান পলি একই জেলার তালা উপজেলার হরিনগর গ্রামের জাহাতাব উদ্দিন গোলদারের মেয়ে। দীর্ঘদিন ধরেই তারা অবৈধ সম্পর্কে জড়িত আছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুলনা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুব্রত কুমার বাড়ই শুক্রবার বলেন, শিক্ষিকা নুসরাত জাহান পলির স্বামী এসএম মিজানুর রহমান বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হন। কিন্তু তিনি শহরের সাত রাস্তার মোড় পর্যন্ত গিয়ে আবার বাসায় ফেরেন। রাত সাড়ে ৯টার দিকে তিনি বাসায় ফিরে দেখতে পান তার স্ত্রী এবং সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা অসীত কুমার বর্মন অসামাজিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত রয়েছে। এ অবস্থায় এলাকাবাসীর সহযোগিতায় তাদের আটক করে তিনি পুলিশে সোপর্দ করেন।

এ ব্যাপারে খুলনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রমেন্দ্রনাথ পোদ্দার জানান শুক্রবার সকালে তিনি দু’জনের আটকের খবরটি শুনেছেন। কিন্তু অফিস ছুটি থাকায় তাদের বিরুদ্ধে আপাতত কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাচ্ছে না। অফিস খুললে রোববার তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হবে। এরপর বিধি অনুযায়ী অন্যান্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

বরগুনায় জামিন পেলেন প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত প্রধান শিক্ষক

জেলা প্রতিনিধি বরগুনা : বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে গ্রেফতারের পর আদালতের মাধ্যমে জামিন পেয়েছেন বরগুনার প্রাথমিক বিদ্যলয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক গোলাম সরোয়ার ননী। তিনি বরগুনা সদর উপজেলার আয়লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

এ বিষয়ে বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম মাসুদুজ্জামান বলেন, প্রাথমিক বিদ্যলয়ের বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার তথ্য পেয়ে গোলাম সরোয়ার ননীকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ।

জিজ্ঞাসাবাদে তার জড়িত থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হলে মামলা দিয়ে তাকে আদালতে পাঠানো হয়। পরে আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেন।

কোচিং সেন্টারের প্রশ্নপত্রে বার্ষিক পরীক্ষা, অভিযুক্ত শিক্ষককে চাকরিচ্যুতির সুপারিশ

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটে কোচিং সেন্টারের প্রশ্নপত্রে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষক বেল্লাল হোসেনকে চাকরিচ্যুতির সুপারিশ করা হয়েছে। ঘটনার পর গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে এই সুপারিশ করা হয়। বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) বিকালে তদন্ত কমিটির প্রধান বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক শেখ আমজাদ হোসেন প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মতিন হাওলাদারের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন। নির্ধারিত সময়ের একদিন আগেই তদন্ত কমিটি তাদের তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন জমা দেয়।

বাগেরহাট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ‘বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়’ বিষয়ে কোচিং সেন্টারে মডেল টেস্টে নেওয়া প্রশ্নপত্রেই বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠার পর মঙ্গলবার পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে তাদের দুই কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

এদিকে বাগেরহাটের ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এমন ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে অভিভাবক ও সচেতন মহলের মাঝে। তারা স্কুলের সুনাম ও শিক্ষার মানকে সমুন্নত রাখতে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।

তদন্ত কমিটির প্রধান বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক শেখ আমজাদ হোসেন বলেন, বিদ্যালয়ের খণ্ডকালীন আইসিটি বিষয়ের শিক্ষক শেখ মো. বেল্লাল হোসেনের বিরুদ্ধে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ পেয়ে আমরা তদন্ত শুরু করি। তদন্তের সময় কমিটির সদস্যরা প্রথমে একাধিক অবিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। পরে আমরা শিক্ষক বেল্লাল হোসেনের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলি। অবিভাবক, শিক্ষার্থী ও অভিযুক্ত শিক্ষকের বক্তব্যে অনুযায়ী ওই শিক্ষক যে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত তা তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। আমরা স্কুলের সুনাম, শিক্ষার মানকে সমুন্নত রাখতে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করেছি।’

প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মতিন হাওলাদার বলেন, ‘নির্ধারিত সময়ে আগেই তদন্ত কমিটি তদন্ত শেষ করে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেয়ে স্কুলের শিক্ষক কাউন্সিল কমিটির জরুরি সভা আহ্বান করা হয়। ওই সভা থেকেও খণ্ডকালীন আইসিটি বিষয়ের শিক্ষক শেখ মো. বেল্লাল হোসেনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে জোর দাবি তোলা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন এবং শিক্ষক কাউন্সিল কমিটির রেজুলেশন অনুযায়ী শিক্ষক বেল্লাল হোসেনের চাকরিচ্যুতির জন্য স্কুল ব্যবস্থপনা পর্ষদের সভাপতি বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাসের কাছে আমাদের সিদ্ধান্ত জানিয়েছি। তিনিই পরবর্তি পদক্ষেপ নেবেন।’

অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে প্রভাতি শাখার খণ্ডকালীন শিক্ষক শেখ মো. বেল্লাল হোসেনের সঙ্গে মোবাইলে বারবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, বাগেরহাট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের খণ্ডকালীন সহকারী শিক্ষক শেখ মো. বেল্লাল হোসেন স্কুল শেষে নিজ বাড়িতে কোচিং সেন্টার খুলে তাতে তৃতীয় শ্রেণির বেশকিছু শিক্ষার্থীকে ব্যাচ করে পড়ান। প্রায় ১৫ দিন আগে ওই শিক্ষক তার কোচিং সেন্টারে পড়া শিক্ষার্থীদের ‘বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়’ বিষয়ে মডেল টেস্ট পরীক্ষা নেন। গত ৯ ডিসেম্বর তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অনুষ্ঠিত ‘বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়’ বিষয়ে দেওয়া বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সঙ্গে হুবহু মিলে যায়।

শিক্ষা সংক্রান্ত অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধে দুদকের ৩৯ সুপারিশ

প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকানো, কোচিং বাণিজ্য বন্ধ, এমপিওভুক্তি ও পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নসহ শিক্ষা সংক্রান্ত অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধের জন্য ৩৯টি সুপারিশ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের একটি শিক্ষা সংক্রান্ত প্রাতিষ্ঠানিক টিমের অনুসন্ধানের পর সরকারের কাছে এসব সুপারিশ করা হয়েছে। সুপারিশপত্রে স্বাক্ষর করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বরাবর প্রেরণ করেছেন দুদক সচিব ড. ম. শামসুল আরেফিন।

বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) বেলা একটার দিকে রাজধানীর দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনানুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন দুদক সচিব ড. ম. শামসুল আরেফিন।

তিনি বলেন, ‘শিক্ষাকে কোনভাবেই বাণিজ্য হিসেবে দেখতে চায় না দুদক। বিগত ছয় মাস শিক্ষা নিয়ে কাজ করেছে কমিশন। টোটাল প্রশাসনিক সংস্কারসহ বিভিন্ন বিষয়ে সমাধানের জন্য এ সুপারিশ করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, কমিশনের প্রতিবেদনে দুর্নীতির উৎস, দুদকের আইনি ম্যান্ডেট এবং এসব দুর্নীতি প্রতিরোধে সুনির্দিষ্ট সুপারিশমালা প্রণয়ন করেছে দুদকের বিশেষ টিমের সদস্যরা। এই প্রতিবেদনে প্রশ্নপত্র ফাঁস, নোট/গাইড ও কোচিং বাণিজ্য, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো নির্মাণ, এমপিওভুক্তি, নিয়োগ ও বদলিসহ বিভিন্ন প্রকারের দুর্নীতির উৎস এবং তা বন্ধের জন্য ৩৯ টি সুনির্দিষ্ট সুপারিশ করা হয়েছে। ‘শিক্ষা সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানিক টিম’ এর প্রধান ছিলেন দুদকের পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন। দুই সদস্যের এই টিমের অপর সদস্য ছিলেন সহকারী পরিচালক মো. হাফিজুর রহমান।

banglatribune

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter