ঢাকার ক্যাম্পাস

ঢাবি’র ঘ ইউনিটের পরীক্ষা পুনরায় নেয়ার দাবিতে ছাত্রদলের বিক্ষোভ-সমাবেশ

ঢাবি : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করে পুনরায় নেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রদলের বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।
শনিবার (২০ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তারা এ বিক্ষোভ মিছিল করেন। মিছিলে নেতৃত্ব দেন ঢাবি ছাত্রদলের সভাপতি আল মেহেদী তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক আবুল বাসার সিদ্দিকী। মিছিলটি শাহবাগ মোড় থেকে শুরু হয়ে কাঁটাবন মোড়ে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।
সমাবেশে সভাপতি মেহেদী তালুকদার বলেন, ‘১২ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘ ইউনিটের ফাঁস হওয়া প্রশ্নে পরীক্ষা হয়। যা বিশ্ববিদ্যালয়সহ গোটা বাংলাদেশের সঙ্গে প্রতারণা। তদন্ত কমিটি প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার প্রমাণ পেয়েছে। সেই পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ছাত্রসমাজের সঙ্গে প্রতারণা। ঢাবি ছাত্রদল ১২ অক্টোবরে অনুষ্ঠিত পরীক্ষার ফলাফল স্থগিত করে নতুন প্রশ্নপত্রে পুনরায় পরীক্ষা গ্রহণের জোর দাবি জানাচ্ছে।’
সাধারণ সম্পাদক আবুল বাসার সিদ্দিকী বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে জাতির সামনে বিচার করতে হবে। আমরা ঢাবি ছাত্রদল সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি হিসাবে ঘ ইউনিটের পরীক্ষার ফলাফল বাতিল করে পুনরায় পরীক্ষা গ্রহণ এবং প্রশ্নফাঁস চক্রে জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’
এসময় বিক্ষোভ মিছিলে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রশ্ন ফাঁস: ঢাবি ‘ঘ’ ইউনিটের ফল স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৫ অক্টোবর: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল স্থগিত করা হয়েছে। সোমবার সকালে এক বিজ্ঞপ্তিতে ফল প্রকাশ স্থগিতের সিদ্ধান্তের কথা জানায় ঢাবি কর্তৃপক্ষ। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, উপাচার্য দপ্তরের অ্যাসাইনমেন্ট অফিসারের পাঠানো ভুল তথ্যের জন্য ‘মঙ্গলবার ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে’ মর্মে সোমবার প্রেস বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়। কিন্তু উপাচার্যের নির্দেশে এ সিদ্ধান্ত স্থগিত করা হয়েছে। ফল প্রকাশের বিষয়ে যথাসময়ে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে।

এদিকে ‘ঘ’ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র পরীক্ষার আগের দিন রাতে ফাঁস হয়েছে বলে শনিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে করা এক এজাহারে অভিযোগ করা হয়েছে। পরীক্ষার দিন সকাল পর্যন্ত সেটি বিক্রি হয়েছে বলেও তথ্য মিলেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা এস এম কামরুল হাসান ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ২২(২), ৩৩(২) ধারা সহ পাবলিক পরীক্ষা (অপরাধ) আইন, ১৯৮০ এর ১৩/৪ ধারায় এ মামলা করেন।

ওই মামলায় গ্রেপ্তার আসামিরা হলেন, জাহিদুল ইসলাম (৪৫), ইনসান আলী ওরফে রকি (১৯), মো. মোস্তাকিম হোসেন (২০), মো: সাদমান সালিদ (২১), মো. তানভীর আহমেদ (২১), মো. আবু তালেব (১৯)। সবাই বগুড়ার স্থায়ী বাসিন্দা। তারা রিমান্ডে স্বীকারোক্তিও দিয়েছেন।

ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার মধ্যেরাত থেকে পরীক্ষার দিন সকাল পর্যন্ত বগুড়ার রাহেমা কোচিং সেন্টারের সাব্বির ও গুগল এডমিশন অ্যান্ড ইনফরমেশন সেন্টারের লিমন ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র সংগ্রহ করে এবং পরে তিন লাখ টাকায় তা বিক্রি করা হয়।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাবি ‘ক’ ইউনিটে ফেল ৮৭ শতাংশ

ঢাবি প্রতিনিধি,৩ অক্টোবর: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে কলা অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষার ফল বুধবার প্রকাশিত হয়েছে। এ বছর ‘ক’ ইউনিটের পরীক্ষায় অংশ নেয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৮৭ শতাংশ ফেল করেছে। পাস করেছে ১৩ শতাংশ। ঢাবির উপাচার্য ড. আখতারুজ্জামান প্রশাসনিক ভবনের কেন্দ্রীয় ভর্তি অফিসে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশ করেন।

পরীক্ষার বিস্তারিত ফলাফল এবং ভর্তিপ্রক্রিয়া সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে (admission.eis.du.ac.bd) জানা যাবে। এ ছাড়া DU KA ও রোল নম্বর লিখে ১৬৩২১ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে ফিরতি এসএমএসে ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা ফল জানতে পারবেন। প্রকাশিত ফল অনুযায়ী, ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ১ হাজার ৭৫০টি আসনের বিপরীতে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী সংখ্যা ১০ হাজার ১১৭। যা শতকরা হারে ১৩ দশমিক ০৪ ভাগ। এ বছর ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৮১ হাজার ৯৬ জন। পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ৭৭ হাজার ৫৭২ শিক্ষার্থী।

পাসকৃত সকল শিক্ষার্থীকে আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষার ওয়েবসাইটে বিস্তারিত এবং বিষয় পছন্দক্রম ফরম পূরণ করতে বলা হয়েছে। এছাড়া কোটায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ৮ থেকে ১৫ অক্টোবরের মধ্যে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অফিস হতে সংগ্রহ করে সঠিকভাবে পূরণ করে ডিন অফিসে জমা দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। ফল নিরীক্ষণের জন্য ফি প্রদান সাপেক্ষে আগামী ৪ থেকে ১১ অক্টোবরের মধ্যে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অফিসে আবেদন করা যাবে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এ বছর ১ হাজার ৭৫০টি আসনের জন্য ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৮১ হাজার ৯৬ জন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ডিগ্রি পাস ১ম বর্ষ পরীক্ষার সংশোধিত সময়সূচি

ডেস্ক,২৭মেঃ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭ সালের ডিগ্রি পাস ও সার্টিফিকেট কোর্স ১ম বর্ষ পরীক্ষা সংশোধিত সময়সূচি অনুযায়ী আগামী ২৪ জুন হতে ৫ জুলাই পর্যন্ত প্রতিদিন ১:৩০টা থেকে অনুষ্ঠিত হবে।

 

পূর্ব ঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী এসব পরীক্ষা আগামী ২ জুন হতে ১৩ জুন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবার কথা থাকলেও অনিবার্য কারণবশতঃ সময়সূচীসমূহ পরিবর্তন করা হয়েছে।

 

এ সংক্রান্ত বিস্তারিত সময়সূচি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.nu.edu.bd থেকে জানা যাবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

মাস্টার্সে ভর্তির মেধাতালিকা প্রকাশ ১০ মে

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর :

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্স (নিয়মিত) প্রোগ্রামের ভর্তি কার্যক্রমে রিলিজ স্লিপের মেধা তালিকা ১০ মে বৃহস্পতিবার প্রকাশ করা হবে।

ওই ফল বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা থেকে SMS-এর মাধ্যমে nuatmfroll লিখে 16222 নম্বরে Send করে এবং রাত ৯টায় ওয়েবসাইট (www. admissions.nu.edu.bd) থেকে ফল পাওয়া যাবে।

বিস্তারিত তথ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট (www.nu.edu.bd অথবা www.nubd.info) থেকে জানা যাবে।

মঙ্গলবার জাতীয় বিশ্ব বিদ্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

শিক্ষক পরীক্ষার খাতা নিয়ে হলে, ছাত্ররা আসেনি

জবি প্রতিনিধি: পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। সেই মোতাবেক পরীক্ষার হলে শিক্ষক উত্তরপত্র নিয়ে উপস্থিত হলেও শিক্ষার্থীরা প্রবেশ না করার খবর পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ইংরেজি বিভাগে।

আজ সোমবার সকালে ওই বিভাগের ১১ তম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের একটি কোর্সের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা ছিল। তারা একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাসির আহমেদকে চাকরীচ্যুত করার প্রতিবাদে এই পরীক্ষা বর্জন করেছে। তাদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করার খবর পাওয়া গেছে।

আজ সোমবার সকাল ৮টা থেকে ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়ে নাসির আহমেদকে স্বপদে বহালের দাবিতে মিছিল করে বিক্ষোভ করতে থাকে। এদিকে ইংরেজি বিভাগসহ বাংলা, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, দর্শন ও ইসলাম শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীরা তাদের চলমান পরীক্ষা বর্জন করে কলা ভবন চত্বরে অবস্থান নিয়েছে। এ বিক্ষোভের ফলে কলা ভবনের কার্যক্রম কার্যত অচল হয়ে পড়েছে

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাবি ক্যাম্পাসে রড লাঠি নিয়ে ছাত্রলীগের অবস্থান

এস দাস: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসের মল চত্বর এলাকায় অবস্থান নিয়েছে ছাত্রলীগ। সংগঠনটির নেতাকর্মীদের অধিকাংশের হাতে রয়েছে রাম দাসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র। পুরো ক্যাম্পাস এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে।

সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে মল চত্বরে শতাধিক মোটরসাইকেলে করে জড়ো হয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। একইসঙ্গে বিভিন্ন হল থেকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মল চত্বরের দিকে আসছে। তাদের অধিকাংশের হাতেই লোহার রড।

এদিকে টিএসসি এলাকায় অবস্থান নিয়েছে সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার নিয়ে আন্দোলনকারীরা। তাদের হাতে ইট ও লাঠি দেখা যায়। এরইমধ্যে ছাত্রলীগের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, সন্ধ্যা ৭টা থেকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিশ্ববিদ্যালয় মল চত্বরে শতাধিক মোটরসাইকেল, দেশীয় অস্ত্র, রামদা, হকিস্টিক নিয়ে অবস্থান গ্রহণ করেছে। রাত পৌনে ৯টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাদের অবস্থান ছিল। রাত ৮টার দিকে নীলক্ষেত মোড় থেকে হেলমেট পরা আরো বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী মল চত্বরে আসে।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাতে ছিল রড, রাম দা, হকিস্টিকসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র।
জানা যায়, মল চত্বরে অবস্থানকারী ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে ঢাকা কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে আসা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

৫৬% কোটা জাতির জন্য লজ্জাজনক: জাবি উপাচার্য

ডেস্ক রিপোর্ট : ৫৬% কোটা জাতির জন্য লজ্জাজনক বলে মন্তব্য করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম।

সোমবার কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার পর দুপুর ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন রাস্তায় উপস্থিত হয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলার সময় তিনি এ কথা বলেন। এসময় শিক্ষার্থীদের দাবির প্রতি পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেন তিনিসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতনরা।

তিনি বলেন, ‘৫৬% কোটা আসলেই একটি জাতির জন্য লজ্জাজনক। এ আন্দোলনে আমাদের সমর্থন আছে, আমরা তোমাদের পাশে আছি। প্রয়োজন হলে তোমাদের সাথে আমরা একসাথে আন্দোলন করব।’

এসময় উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আমির হোসেন, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক বশির আহমেদসহ জ্যেষ্ঠ শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়ে উপাচার্য আরও বলেন, ‘আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, সড়ক ও সেতুমন্ত্রী, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটর জাহাঙ্গীর কবির নানকসহ যতজনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পেরেছি তাদের কাছে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছি। তাদের বলেছি, এটা এভাবে সমাধান করা যায় না। আলোচনার মাধ্যমে এই সংকটের সমাধান হতে পারে। তার জন্য টিয়ার শেল, রাবার বুলেট, লাঠিপেটা করার কোনও প্রয়োজন ছিল না। আমরা কেন এরকম একটা পরিস্থিতির মধ্যে পড়লাম। আমি এর জবাব চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটি একটি যৌক্তিক দাবি। পুলিশি হামলা চালিয়ে এ আন্দোলন দমানো যাবে না। এ দাবি আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে হবে। কিন্তু সরকার তা না করে শিক্ষার্থীদের উপর একের পর এক হামলা চালাচ্ছে। ইতোমধ্যে প্রচুর রক্তপাত হয়েছে। আমরা আর রক্তপাত চাই না। আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, সড়ক ও সেতুমন্ত্রী এবং জাহাঙ্গীর কবির নানককে বিষয়টি জানিয়েছি। কেন আমার শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশ হামলা করে রক্তাক্ত করল, আমি তার জবাব চেয়েছি।’

এর আগে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে প্রায় হাজার খানেক বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। পরে সাড়ে ১২টার দিকে পুলিশ টিয়ারশেল, রাবার বুলেট ও জলকামান মেরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক থেকে শিক্ষার্থীদের সরিয়ে দেয়। দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত দফায় দফায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়ান শিক্ষার্থীরা।

এ ঘটনায় শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। আহতদের বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসাকেন্দ্রে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। প্রায় ৭০ জনকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজে পাঠাতে হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ২০ জন চিকিৎসাধীন আছেন বলে জানিয়েছেন প্রক্টর সিকদার মো. জুলকারনাইন।

সূত্র : পরিবর্তন

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

আন্দোলন দেখেছি কিন্তু এমন তাণ্ডব দেখিনি : ঢাবি ভিসি

অনলাইন ডেস্ক,৯ এপ্রিল:   ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে রবিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে আগুন ধরিয়ে দিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়েছে। এতে ভিসি’র বাসভবনের কিছুই অবশিষ্ট ছিল না। সব কিছুই তছনছ করে দেওয়া হয়েছে। এ দৃশ্য দেখে নির্বাক হয়ে গেছেন অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, হামলাকারীরা ছাত্র হতে পারে না। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র না, মুখোশধারী-বহিরাগত। আর কারা হামলা করেছে, তা আপনারা জানেন, দেখেছেন।

তিনি আরো বলেন, অনেক আন্দোলন দেখেছি। কিন্তু এমন তাণ্ডব দেখিনি। হত্যার পরিকল্পনাই ছিল হয়ত। নইলে বেডরুমে ঘুমন্ত মানুষগুলোর ওপরে এভাবে হামলা হতে পারে না। ওরা কিছুই আর অবশিষ্ট রাখেনি। ঘরে পা রাখারও উপায় নেই।

তিনি বলেন, কোটা সংস্কার সম্পূর্ণ সরকারের এখতিয়ার। আমরা এখানে কিই-বা করতে পারি। এই ঘটনার দুঃখ জানানোর ভাষা নেই।

এদিকে মধ্যরাতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ধাওয়া দিয়ে টিএসসির ভেতরে ঢুকিয়ে দিয়েছেন ছাত্রলীগের কর্মীরা। পরে র‌্যাব এবং পুলিশের উপস্থিতিতে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাবি বিজয় একাত্তর হল ক্যান্টিন মালিককে অবাঞ্চিত ঘোষণা

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ ক্যান্টিনের খাবারের নিন্মমান ও পুষ্টিহীন বলে অনেক দিন ধরে অভিযোগ করে আসছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বিজয় একাত্তর হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের সেসব অভিযোগের ভিত্তিতে ও মানসম্মত খাবার পরিবেশন করতে ব্যার্থ হওয়ায় ক্যান্টিন ম্যানেজারকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছে হল প্রশাসন। আজ মঙ্গলবার দুপুরে হল বিজয় একাত্তর প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. এ জে এম শফিউল আলম ভূইয়া  এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এ বিষয়ে হল প্রশাসন থেকে একটি নোটিশ দেয়া হয়েছে। নোটিশে লেখা হয়েছে- ‘কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিরেকে ০১ (এক) দিন দুই বেলা ক্যান্টিন বন্ধ রাখা, ক্যান্টিনের খাবারের মান যথার্থ না হওয়া এবং নির্ধারিত মূল্য তালিকার অধিক মূল্যে খাবার পরিবেশন করার কারণে বিজয় একাত্তর হল ক্যান্টিন ম্যানেজার ইসমাঈল হোসেনকে বিজয় একাত্তর হল প্রাঙ্গণে অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হয়েছে। এই বিজ্ঞপ্তি জারির পর তাকে হল প্রাঙ্গণে দেখা গেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

বিজয় একাত্তর হলের ক্যান্টিন ম্যানেজার হলেন- মো. ইসমাঈল হোসেন। ক্যান্টিনে অত্যন্ত নিন্মমান ও পুষ্টিহীন খাবার পরিবেশন করার অভিযোগ শিক্ষার্থীদের। বিষয়টি নজরে আসার পরপর হল প্রাধ্যক্ষ ড. এ জে এম শফিউল আলম ভূইয়া ওই ক্যান্টিন ম্যানেজারের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা গ্রহন করেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান জিয়াউল হক

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০ মার্চ:: ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান জিয়াউল হক। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন দেয়ার পর তাকে নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগ দিয়ে সোমবার প্রজ্ঞাপন জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে শূন্য ছিল ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের পদ।

কিছুদিন আগেই জিয়াউল হকসহ সম্ভাব্য তিনজনের নাম উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়েছিল বলে সূত্রে জানা গেছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাবি সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের প্রথম নির্বাচিত নারী ডিন সাদেকা হালিম

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ৯৬ বছরের ইতিহাসে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের প্রথম নারী ডিন হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম। অনুষদটিতে এর আগে কোন নারী ডিন হিসেবে নির্বাচিত হয়নি।

বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে ডিন হিসেবে অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিমকে সমর্থন দেয় মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির সমর্থনে এই প্রথম সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের নেতৃত্বে আসল একজন নারী ডিন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আদেশ, ১৯৭৩ এর ২৭(৫) ধারা এবং অধ্যাদেশের (২য় খ-) নির্বাচন সংক্রান্ত ১৮ নং অধ্যায়ে বর্ণিত পদ্ধতি অনুযায়ী এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি আমাকে সমর্থন দিয়েছে। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। সকল-শিক্ষক শিক্ষার্থীদের নিয়ে উন্নয়নের ধারা সমুন্নত রাখব।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাব ভবনে সোমবার সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলে বলে নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক তোফায়েল আহমদ চৌধুরী জানান।

রসায়ন বিভাগের এই অধ্যাপক বলেন, এবার ভোটার ছিলেন মোট দুই হাজার ১০ জন। গণনা শেষে বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ কার্যকরী পরিষদের ১৫টি পদে এ নির্বাচনে বরাবরের মতই আওয়ামী লীগ ও বিএনপি-জামায়াত সমর্থক শিক্ষকদের দুটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। বামপন্থি শিক্ষকদের গোলাপী দল গতবছর আলাদা প্যানেলে নির্বাচনে অংশ নিলেও এবার তারা প্রার্থী দেয়নি।

এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাব চত্বর এলাকা সকাল থেকেই শিক্ষকদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে। ভিসি চত্বর থেকে নীলক্ষেতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান তোরণ পর্যন্ত এলাকায় রাস্তার দুইধারে ভোট দিতে আসা শিক্ষকদের গাড়ির ভিড় দেখা যায়।

শিক্ষক সমিতির বর্তমান সভাপতি অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল এবারও আওয়ামী লীগ সমর্থক নীল প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী। তার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হয়েছেন বিদায়ী কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম।

আর বিএনপি সমর্থক সাদা প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী পরিসংখ্যান বিভাগের  অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান।

নীল দলের সভাপতি প্রার্থী অধ্যাপক মাকসুদ কামাল মাস্টারদা সূর্যসেন হলের প্রাধ্যক্ষ ও আর্থ এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন ও ব্যাংকিং এন্ড ইনসুরেন্স বিভাগের অধ্যাপক ও সিনেট সদস্য।

সাদা দলের সভাপতি প্রার্থী অধ্যাপক এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম সিনেট সদস্য। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্য।

গত কয়েক বছর ধরে এই শিক্ষক সমিতিতে আওয়ামী লীগ সমর্থক প্যানেল জয়ী হয়ে আসছে। তার আগে টানা কয়েকবার বিএনপি সমর্থকরা এই সমিতির নিয়ন্ত্রণে ছিল।

নীল দলের সভাপতি প্রার্থী অধ‌্যাপক মাকসুদ কামাল নিবার্চন চলাকালে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “শিক্ষকরা আমাদের ভোটের মাধ্যমে জয়ী করবেন- এটা প্রত্যাশা করি, কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নের পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি হিসাবে আমাদের প্যানেল শিক্ষকদের দাবি পূরণে অব্যাহতভাবে অবদান রেখে আসছে।

“২০২১ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন সামনে রেখে আমরা যে নির্বাচনী ইশতেহার দিয়েছি, তাতে সমর্থন জানিয়ে শিক্ষকরা আমাদের জয়যুক্ত করবে, এটাই আশা করি।”

সাদা দলের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমরা যদি জিততে পারি এবং সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাই, তাহলে শিক্ষক সমিতির ঐতিহ্য নিয়ে কাজ করব। শিক্ষকদের পেশাগত সুযোগ সুবিধা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়ন সচল রাখব।”

তিনি বলেন, “শিক্ষকরা দেশের সার্বিক পরিস্থিতি, বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনয় রেখে ভোট দেবেন এবং আমাদের বিজয়ী করবেন বলেই আমরা আশা রাখি।”

নীল প্যানেলের প্রার্থী

সহ-সভাপতি উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন মো. ইমদাদুল হক; যুগ্ম-সম্পাদক  ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক তাজিন আজিজ চৌধুরী; কোষাধ্যক্ষ একাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন  আহমেদ।

সদস্য প্রার্থীরা হলেন- গণিত বিভাগের অধ্যাপক  চন্দ্রনাথ পোদ্দার, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের জিনাত হুদা, সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক মুহাম্মাদ সামাদ, লেদার এন্ড টেকনোলজি এবং ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিউটিটের পরিচালক অধ্যাপক মো. আফতাব আলী শেখ, ক্রিমিনোলজি বিভাগের অধ্যাপক মো. জিয়াউর রহমান,খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক নিজামুল হক ভূঁইয়া, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন  অধ্যাপক সাদেকা হালিম, অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাবিতা রিজওয়ানা রহমান,ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের সৈয়দ মোহাম্মদ শামছুদ্দিন ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সৌমিত্র শেখর দে।

সাদা প্যানেলের প্রার্থী

সহ-সভাপতি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান, যুগ্ম-সম্পাদক ফার্মাসিউটিক্যাল কেমিস্ট্রি বিভাগের অধ্যাপক মো. আসলাম হোসেন; কোষাধ্যক্ষ মার্কেটিং বিভাগ অধ্যাপক  এ বি এম শহিদুল ইসলাম।

সদস্য প্রার্থীরা হলেন- প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ইয়ারুল কবীর, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এ এস এম আমানুল্লাহ, সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক গোলাম রব্বানী, পালি ও বুড্ডিস্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক দিলীপ কুমার বড়ুয়া, উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের মোহাম্মাদ জসীম উদ্দিন, জিন প্রকৌশল  ও জীবপ্রযুক্তি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মাদ নাজমুল আহসান, গ্রাফিক ডিজাইন বিভাগের মো. ইসরাফিল প্রাং , ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান মো. নুরুল আমিন, ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক মো. মহিউদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন ও কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলী বিভাগের অধ্যাপক মো. হাসানুজ্জামান।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সাভার: সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন নিপীড়ন ও ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার সকালে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ সাভার শাখার উদ্যোগে বিশ^বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের পাদদেশে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। যৌন নিপীড়ন ও ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশ এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ফারজানা ইসলাম।
সমাবেশে এ সময় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে যৌন নিপীড়ন ও ধর্ষণ বেড়ে গেছে। সরকারের উচিত ধর্ষণকারীদের দ্রুত আইনে বিচার করা। তাহলে দেশে ধর্ষণ কমে আসবে। ধর্ষণকারীরা দেশ ও জাতির শক্রু। এরা কখনো মানুষ হতে পারে না। তাই ধর্ষণকারীদের রাজনৈতিক সামাজিক ও প্রশাসনিক আশ্রয় প্রশ্রয় বন্ধ করতে হবে। এছাড়া সারাদেশে ধর্ষণের বিরুদ্ধে পাড়া মহল্লায় প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সবাইকে আহবান জানানো হয় সমাবেশ থেকে।
সমাবেশে এ সময় বিশ^বিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও মহিলা পরিষদের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জবির ‘বি’ ইউনিটের মেধা তালিকা প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিনিধি: ঢাকা: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ‘বি’ ইউনিটের অনার্স (সম্মান) শ্রেণির প্রথম বর্ষ প্রথম সেমিস্টারে ভর্তির জন্য প্রথম মেধা তালিকায় ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের প্রথম মাইগ্রেশন এবং ভর্তির জন্য দ্বিতীয় মেধা তালিকা প্রকাশ করেছে।

রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তর থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

দপ্তর সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ই’ ইউনিটের অনার্স (সম্মান) শ্রেণির প্রথম বর্ষ প্রথম সেমিস্টারে ভর্তির জন্য দ্বিতীয় মেধা তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। দ্বিতীয় মেধা তালিকায় মনোনীত শিক্ষার্থীদের ৭ ডিসেম্বরের মধ্যে ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে। উল্লিখিত তারিখের মধ্যে ভর্তি না হলে মনোনয়ন বাতিল হয়ে যাবে। আসন শূন্য থাকা সাপেক্ষে ভর্তির ‘বি’ ও ‘ই’ ইউনিটের তৃতীয় মেধা তালিকা আগামী ৮ ডিসেম্বর তারিখ প্রকাশ করা হবে।

ভর্তিসংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে একই প্রশ্ন দিয়ে দুই বছর পরীক্ষা
জবি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অনার্স ফাইনাল পরীক্ষায় বিগত বছরের প্রশ্নপত্র দিয়ে পরীক্ষা গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে।

বি.এ অনার্স ৪র্থ বর্ষের পরীক্ষা-২০১৬ এর ৪২০৪ নং কোডের ‘ফ্যামিলি ওয়েলফেয়ার এন্ড জেন্ডার স্টাডিজ ইন ইসলাম’ শিরোনামের কোর্স পরীক্ষায় পূববর্তী ২০১৫ সালের হুবহু একই প্রশ্ন দিয়ে অনুষ্ঠিত হওয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

গত ১৯ তারিখ শনিবার এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় বলে সংশ্লিষ্ট বিভাগের শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন।

শিক্ষার্থীরা জানান, এ বিষয়ে পরীক্ষার হলে অভিযোগ করা হলে বিভাগীয় চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুল অদুদ কয়েকজন পরীক্ষার্থীর প্রশ্নপত্রে ২০১৫ কেটে ২০১৬ লিখে দেন।

পরীক্ষা কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন, বিভাগীয় সহকারী অধ্যাপক মো. নজরুল ইসলাম ও প্রভাষক মুহাম্মদ খাইরুল ইসলাম।

পরীক্ষার পূর্বে ১ম ও ২য় পরীক্ষক প্রদত্ত প্রশ্নপত্র মডারেশনের পর কোনোভাবেই পূর্ববর্তী বছরের প্রশ্নপত্র দিয়ে পরীক্ষা গ্রহণের সুযোগ নেই বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন শিক্ষার্থী অভিযোগ করেন, এ ঘটনার পিছনে বড় ধরনের অর্থ বাণিজ্য হয়েছে।

এ ঘটনাকে অপরাধ ও আইনসিদ্ধ নয় বলে মন্তব্য করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক। তদন্ত করলে প্রকৃত ঘটনা বের হয়ে আসবে বলে তিনি জানান।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free