টপ খবর

১০/১৬ বছরের উচ্চতর গ্রেড বনাম টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড

এস এম সাইদউল্লাহ:
আশির দশকে প্রথমবারের মতো টাইম-স্কেল চালু হয়। তারও পরে সিলেকশন গ্রেড চালু হয়। একই পদে পদোন্নতি না হওয়ার ক্ষতি পুষিয়ে দেওয়ার জন্য এই টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড চালু করা হয়। জাতীয় বেতন স্কেল, ২০০৯ পর্যন্ত টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড চালু ছিল যা ৩০ জুন ২০১৫ পর্যন্ত কার্যকর ছিল। যা পরে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীর বেতনে সমতা বিধানের লক্ষ্যে ১৪ ডিসেম্বর ২০১৫ গেজেট জারির তারিখ পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। কিন্তু তা সত্ত্বেও প্রজাতন্ত্রের সরকারি কর্মচারীদের বেতনে সমতা আসেনি। কোথাও কোথাও সিনিয়র জুনিয়রের চেয়ে কম বেতন পাচ্ছেন। ফলে তাদের মধ্যে ক্ষোভ বাড়ছে।

ড. ফরাসউদ্দিন পে কমিশন প্রজাতন্ত্রের সকল কর্মচারীর পদোন্নতি চালু করার শর্তে টাইম-স্কেল ও সিলেকশন বাতিল করে ১০/১৬ বছরের স্বয়ংক্রিয় উচ্চতর গ্রেড চালুর সুপারিশ করেছিলেন। কিন্তু বাস্তবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সকল দপ্তরের কর্মচারীদের জন্য একটি বা দুইটি কমন নিয়োগবিধি করে সকল কর্মচারীদের পদোন্নতি চালু করার উদ্যোগ নিলেও এখনও পর্যন্ত তা করা সম্ভব হয়নি। ১০/১৬ বছর কীভাবে গণনা করা হবে তা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। শেষ পর্যন্ত তা উচ্চ আদালতে গড়ায়। হাইকোর্ট বিভাগ হয়ে তা এখন চূড়ান্ত নিষ্পত্তির জন্য আপিল বিভাগে রয়েছে। ১০/১৬ বছরের উচ্চতর গ্রেড উচ্চ আদালতে বিচারাধীন থাকা অবস্থায়ও কোনো কোনো দপ্তরের কর্মচারীগণ ১০/১৬ বছরের উচ্চতর গ্রেড পেয়েছেন। তবে তা খুবই কমসংখ্যক।


তা ছাড়া জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫ কার্যকর হওয়ার পর প্রায় চার বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। এতোদিনে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীগণ বিশেষ করে ১০ থেকে ২০ গ্রেডের কর্মচারীগণ টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড সুবিধা বাতিল করে ১০/১৬ বছরের উচ্চতর গ্রেড চালু করার ফলে কীভাবে কত পরিমাণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তা বুঝতে পেরেছেন। ফলে তাঁরা টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনর্বহাল করার দাবিতে সোচ্চার হচ্ছেন। এমনকি নিজেরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে কর্মসূচি দেওয়ার কথা ভাবছেন। কেউ কেউ টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনর্বহাল করার জন্য উচ্চ আদালতে রীট করার প্রস্তুতিও নিচ্ছেন। হয়তোবা অল্প সময়ের মধ্যে এ জন্য রীট দায়ের করা হবে।

কারণ, সবাই এতোদিনে বুঝে গেছেন টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনর্বহাল ছাড়া কখনওই একই পদে সিনিয়র জুনিয়রের মধ্যকার যে বেতন বৈষম্য তৈরি হয়েছে তা নিরসন হবে না।

আমারও মনে হচ্ছে কর্মচারীদের ক্ষোভ, আন্দোলন কর্মসূচি বিবেচনা করে, সবাইকে পদোন্নতি দেওয়া সম্ভব নয় বিধায় অথবা আপিল বিভাগ হতে চূড়ান্ত নিষ্পত্তির মাধ্যমে টাইম-স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনরায় ফিরে আসবে। সেক্ষেত্রে আমরা ১০ থেকে ২০ গ্রেডের সরকারি কর্মচারীগণ সবচেয়ে লাভবান হবো। হয়তো শেষ পর্যন্ত তা-ই হতে যাচ্ছে। সবমহল থেকে এমনই আভাস পাওয়া যাচ্ছে।
এস এম সাইদউল্লাহ
সিনিয়ার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক,
প্রধান শিক্ষক সমিতি

শিক্ষকদের টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনর্বহালের রায়!

জয়নাল আবেদীন,২৪ আগষ্ট:
জাতীয় বেতন স্কেল,২০১৫ এ টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাতিল করে ১০/১৬ বছরের স্বয়ংক্রিয় উচ্চতর গ্রেড চালু করা হয়। সে অনুযায়ী জাতীয় বেতন স্কেল,২০১৫ এর গেজেট প্রকাশের পূর্বদিন পর্যন্ত অর্থাৎ ১৪/১২/২০১৫ পর্যন্ত টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বহাল রাখা হয়।
অন্যদিকে, সরকার ২০১২ সালের ১৫ মে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদেরকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করে। তাই তারা জাতীয় বেতন স্কেল,২০০৯ এর ৭(২) এবং ৭(৯) অনুযায়ী ৪ বছর পূর্তিতে ২০১৬ সালের ১২ মে সিলেকশন গ্রেড পেয়ে ৯ম গ্রেড, ৮ বছর পূর্তিতে ২০২০ সালের ১২ মে ১ম টাইমস্কেল পেয়ে ৮ম গ্রেড এবং ২০২৪ সালের ১২ মে ২য় টাইমস্কেল পেয়ে ৭ম গ্রেড পাওয়ার কথা।


কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত ১৫/১২/২০১৫ হতে টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাতিল হয়ে গেলে ২০১৬ সালের ১২ মে ৪ বছর পূর্তিতে সিলেকশন গ্রেড পাওয়ার স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়। এরপর সংক্ষুব্ধ সহকারী শিক্ষকগণ টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনর্বহালের দাবিতে হাইকোর্টে রিট মামলা দায়ের করেন। এই রিট মামলায় টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড পুনর্বহাল করে রায়ের কপি পাওয়ার ৩ মাসের মধ্যে টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাস্তবায়নের নির্দেশ দেন মহামান্য আদালত।

এই রিট মামলার রায়ে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকগণ যদি ২০১৬ সালের ১৫ মে ৪ বছর পূর্তিতে সিলেকশন গ্রেড পান তবে নিশ্চয়ই অন্যান্য ডিপার্টমেন্টে কর্মরত কর্মকর্তা/কর্মচারিরা অনুরুপভাবে প্রাপ্য হবেন।

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার রুটিন

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৩ আগস্ট , ২০১৯
প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার সূচি প্রকাশ করা হয়েছে। আগামী ১৭ নভেম্বর পরীক্ষা শুরু হয়ে পরীক্ষা শেষ হবে ২৪ নভেম্বর। প্রতিটি পরীক্ষা সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হয়ে দুপুর ১টা পর্যন্ত চলবে। বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার সূচি প্রকাশ করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।



জানা গেছে, অন্যান্য বারের মতো এবারও বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন পরীক্ষার্থীদের জন্য ৩০ মিনিট বেশি সময় বরাদ্দ রয়েছে।

 

সুচি দেখতে ক্লিক করুন

সূচি দেখুন:

দর্শনায় শুভ জন্মাষ্টমী পালন অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার ডাক

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সনাতন হিন্দু স¤প্রদায়ের দেবতা ভগবান শ্রীকৃষ্ণের শুভ জন্মতিথিতে রোববার সকাল সাড়ে নয়টাই দর্শনা পুরাতন বাজার সার্বজনীন শ্রী শ্রী দূর্গা মন্দির হতে র‌্যালি বের হয়ে শহরের বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিন শেষে পুরাতন বাজার সার্বজনীন শ্রী শ্রী দূর্গা মন্দিরে শেষ হয়। শাস্ত্রমতে, ভগবান শ্রীকৃষ্ণ জন্মগ্রহণ করেছিলেন ভাদ্র মাসের কৃষ্ণপক্ষের অষ্টমী তিথিতে। তাঁর জন্মতিথিকে জন্মাষ্টমী হিসেবে উদ্যাপন করা হয়।



হিন্দুধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, পাশবিক শক্তি যখন ন্যায়, নীতি, সত্য ও সুন্দরকে গ্রাস করতে উদ্যত হয়, তখন সেই অশুভ শক্তিকে দমন করে কল্যাণ ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য অবতার হিসেবে শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব ঘটে। দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালনের জন্য যুগে যুগে ভগবান মানুষের মধ্যে অবতীর্ণ হন এবং সত্য ও সুন্দরকে প্রতিষ্ঠা করেন। দামুড়হুদা উপজেলার ২৮টি মন্দিরের ভক্তবৃন্দ র‌্যালিতে অংশগ্রহন করে। দামুড়হুদা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলী মুনসুর বাবু র‌্যালির শুভ উদ্ভোধন করেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন দর্শনা পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান।

প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি তার বক্তব্যে বলেন “জাতির জনকের নেতৃত্বে যুদ্ধ করে পাকিস্তানি বাহিনীকে পরাজিত করে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে জাতি সেই দেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে এগিয়ে চলেছে।

“ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে আমরা মুক্তিযুদ্ধে শামিল হয়েছিলাম। মুক্তিযুদ্ধে যেভাবে হিন্দু-বৌদ্ধ-মুসলিম-খ্রিস্টান-আদিবাসী কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এক হয়েছিল, এবারও সেভাবে এদেশের সকল বাঙালি মিলে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে উন্নত বাংলাদেশ আমরা গড়ব।”

র‌্যালি শেষে আলোচনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন উপজেলা উদযাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক উত্তম দেবনাথ,পুরাতন বাজার মন্দির কমিটির সাবেক সভাপতি শিক্ষক সমিতির সভাপতি স্বরুপ দাস,মন্দির কমিটির সাধারন সম্পাদক অনন্ত সান্তারা, ডাঃ দুলাল চন্দ্র দে প্রমুখ। আরো উপস্থিত ছিলেন সহকারী ব্যবস্থাপক মৃনাল কান্তি বিশ^াস, পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রতন লোধ, লিটিল এনজেলস স্কুলের অধ্যক্ষ বিকাশ কুমার দত্ত, নমিতা মালাকার,প্রলয় শীল । অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রভাষক মিল্টন কুমার সাহা।

ম্যানেজিং কমিটির প্রবিধানমালা সংশোধনের সভায় অালোচিত বিষয়

ডেস্ক,২৩ আগষ্ট:
বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা সংশোধনের বিষয়ে বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল সাড়ে চারটার দিকে শুরু হওয়া সভায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা-২০১৯ সংশোধনের বিষয়ে নানা আলোচনা হয়।


মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব জাবেদ আহমেতের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত সভায় ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মুহা: জিয়াউল হক প্রবিধানমালা সংশোধনীর খসড়াটি পড়ে শোনান। এতে প্রায় দুই ঘন্টা সময় লেগে যায়। এর পর কিছু কিছু বিষয়ে আলোচনা হয়। এর মধ্যে দাতা সদস্য হতে ফি বাড়ানোর প্রস্তাব। সভাপতির শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণসহ বিভিন্ন বিষয়।
সভায় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মন্ত্রণালয়ের বেসরকারি মাধ্যমিক শাখার যুগ্মসচিব এবং নয়টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন।

সভাশেষে গভীর রাতে একজন গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা বলেন, সভার পরিবেশে মনে হলো ধীর চলো নীতি গ্রহণ করা হয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি সিদ্ধান্ত হবে বলে মনে হয়নি। তাছাড়া ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতির শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে একটি সংসদীয় সাব কমিটি কাজ করছে। আবার বোর্ডের কমিটি খসড়া প্রস্তুত করেছে। বিষয়টা একটু কেমন যেনো হযে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘সভাপতির যোগ্যতা সম্পর্কে শিক্ষামন্ত্রী যেটা চাইবেন সেটাই হবে বলে আমার কাছে মনে হয়েছে।’

কুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষনা

ডেস্ক,২২ আগষ্ট:
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ২০১৯-২০২০ শিক্ষা বর্ষের ১ম বর্ষ বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং, বিইউআরপি ও বিআর্ক কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা ১৮ অক্টোবর।



সকাল সাড়ে ৯টা থেকে পরীক্ষা চলবে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। মঙ্গলবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এর আগে ২৫ অক্টোবর ভর্তি পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ বিভাগ জানায়, শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ বিবেচনা করে নতুন সময় নির্ধারণ করা হয়েছে।

শিক্ষক নিবন্ধন প্রিলিমিনারির অ্যাডমিট কার্ড অনলাইনে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ২২ আগস্ট ২০১৯ :

১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার প্রবেশপত্র অনলাইনে প্রকাশ করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। বুধবার (২১ আগস্ট) রাতে অ্যাডমিট কার্ড অনলাইনে প্রকাশ করা হয়। আগামী ৩০ আগস্ট শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এ পরীক্ষায় ১১ লাখ ৭৬ হাজার প্রার্থী অংশগ্রহণ করবেন।


প্রার্থীরা এনটিআরসিএর ওয়েবসাইটে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে লগইন করে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। ডাউনলোড করা অ্যাডমিট কার্ডের প্রিন্টেড কপি পরীক্ষার সময় কক্ষ পরিদর্শককে দেখাতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ মে ষোড়শ শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে এনটিআরসিএ। বিজ্ঞপ্তিতে ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। জানা গেছে, আগামী ৩০ আগস্ট শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত স্কুল ও স্কুল পর্যায়-২ এর প্রিলিমিনারি পরীক্ষা এবং বিকেল ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত কলেজ পর্যায়ের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

স্পর্শকাতর স্থানে হাত মাদরাসা শিক্ষকের

পিরোজপুর প্রতিনিধ,২২ আগষ্ট:
পিরোজপুর সদর উপজেলার সিকদার মল্লিক ইউনিয়নের পূর্ব সিকদার মল্লিক দারুল কুরআন নূরানী মাদরাসার শিক্ষক শামসুল হক টুকু মৃধার (৬০) বিরুদ্ধে ৮ বছরের এক শিশুকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ উঠেছে। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। শিশুটি ওই মাদরাসার দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী।


শিশুটি জানায়, মাদরাসার বাংলা ক্লাস শেষে খাতা দেখাতে গেলে ক্লাসের অন্য শিক্ষার্থীদের ছুটি দিয়ে শিক্ষক টুকু মৃধা তার স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়। পরে তাকে পাঁচ টাকা দিয়ে ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য ভয়ভীতি দেখায়।

শিশুটির নানি জানান, শিশুটির বাবার বাড়ি পাশের সিকদার মল্লিক গ্রামে। বাবা ঢাকায় রিকশা চালান। মা গত কয়েক মাস হলো কাজের জন্য সৌদী আরব গেছেন। শিশুটি মামার বাড়িতে থেকে ওই মাদরাসায় দ্বিতীয় শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। বুধবার মাদরাসা থেকে ফিরে সে বিষয়টি তার মামীকে জানায়। তখন আমরা মাদরাসা সুপারের কাছে গেলে তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে বাড়ি পাঠিয়ে দেন।

তিনি আরও জানান, টুকু মৃধা একজন লম্পট প্রকৃতির লোক। এ রকম জঘন্য কাজ সে আগেও কয়েকবার করেছে। আমরা এর বিচার চাই।

পিরোজপুর সদর থানার ওসি এসএম জিয়াউল হক জানান, ঘটনাটি শুনে বিকেলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

১৩ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার বদলি

ডেস্ক,২২ আগষ্ট:
১৩ জন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে বদলি করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সাথে ৪ জন সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার চলতি দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। বুধবার (২১ আগস্ট) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।



এ ছাড়া ৫ জন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে বদলি করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে গত ১৮ আগস্ট এ সংক্রান্ত পৃথক আদেশ জারি করা হয়েছে।

তালিকা দেখতে ক্লিক করুন

প্রাথমিকে দফতরি নিয়োগ স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক,২১ আগষ্ট:
অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের পর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলমান দফতরি কাম প্রহরী নিয়োগ স্থগিত করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। বুধবার (২১ আগস্ট) মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন এই আদেশ দেন।


উল্লেখ্য, বিদ্যমান নীতিমালা অনুযায়ী দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন করে দফতরি কাম প্রহরী নিয়োগ চলছিলো আউটসোর্সিং ভিত্তিতে।

তবে এই নিয়োগ নিয়ে দেশের বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে।

এই অভিযোগের পর বুধবার নিয়োগ স্থগিতের আদেশ দেন সচিব। পাশাপাশি যেসব বিদ্যালয়ে নিয়োগ চলমান রয়েছে সেগুলোও বাতিল করা হয় আদেশে।

আদেশে বলা হয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দফতরি কাম প্রহরী পদে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে বিদ্যমান নীতিমালার আলোকে জনবল নিয়োগের কার্যযক্রম পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যযন্ত স্থগিত করা হলো। ইতোমধ্যে যদি কোনও উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য দফতরি কাম প্রহরী পদে নিয়োগ কার্যক্রম চলমান থাকে তাহলে তা বাতিল করা হলো।

দূর্গাপুজায় ৭ দিনের ছুটি চান প্রাথমিকের শিক্ষকরা

ডেস্ক,২১ আগষ্ট:
দুর্গাপূজা হিন্দুদের সবচাইতে বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান। প্রতিবছর প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে দুর্গাপূজার ছুটি ৭ থেকে ১০ দিন করা হয়। কিন্তু এ বছর ব্যতিক্রম। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ষষ্ঠী থেকে দশমি দুর্গাপুজার আনন্দ উপভোগ করে। কিন্তু এ বছর অষ্টমী থেকে ছুটি দেয়া হয় দশমী পর্যন্ত মোট ৩দিন ছুটি দেয়া হয়।



বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রিয় সিনিয়ার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক রঞ্জিত ভট্রাচার্য মনি বলেন, তার চাকুরিকালের এটি প্রথম এমন ঘটনা। কর্তৃপক্ষের কাছে তিনি দুর্গাপূজার ছুটি ৩ দিনের পরিবর্তে ৭ দিন করার পুনর্নির্ধারণের দাবি জানান।

বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রিয় সিনিয়ার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক স্বরুপ দাস বলেন বলেন, দুর্গাপূজা হিন্দুদের সবচাইতে বড় ধর্মিয় অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানে ৩ দিনের পরিবর্তে কমপক্ষে ৭ দিন ছুটি ঘোষণার দাবি জানান।

বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের প্রত্যাশা আসন্ন দুর্গাপূজা হিন্দুদের সবচাইতে বড় ধর্মিয় অনুষ্ঠান। দুর্গাপূজাই একমাত্র সার্বজনীন অনুষ্ঠান যেখানে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষ ৫ দিনব্যাপী অনুষ্ঠান পালন করেন। হিন্দুরা ধর্মীয় দিক থেকে এদেশের দ্বিতীয় সংখ্যগরিষ্ঠ জাতি। সুতরাং এই বৃহৎ অনুষ্ঠানটিতে কমপক্ষে ৭ দিনের ছুটি ঘোষণা করা হোক।

ডাক বিভাগে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

অনলাইন ডেস্ক

১৫টি পদের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ। আগ্রহী প্রার্থীরা আগামী ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। নারী ও পুরুষ উভয়কেই নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে সহজেই আবেদন করতে পারবেন।


পদের নাম: উচ্চমান সহকারী, সাট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর, টেকনিশিয়ান, মেকানিক, কম্পাউন্ডার, পোস্টাল অপারেটর, মেইল অপারেটর, গ্যাস মিস্ত্রি ও মিডওয়াইফসহ মোট ১৫টি পদে নিয়োগ দেওয়া হবে।

পদসংখ্যা: ১৫টি পদে মোট ২৩৪ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা: যেকোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক পাসসহ উচ্চমাধ্যমিক/মাধ্যমিক/সমমান/ফার্মাসিস্ট পাস প্রার্থীরা বিভিন্ন পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন। কিছু কিছু পদের জন্য কম্পিউটার চালনায় দক্ষতা ও উক্ত পদের জন্য কাজের অভিজ্ঞতা প্রয়োজন।

আবেদনকারীর বয়সসীমা: ন্যূনতম ১৮ থেকে অনূর্ধ্ব ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে।

বেতন স্কেল: বিভিন্ন পদের জন্য জাতীয় বেতন স্কেল-২০১৫ অনুযায়ী বেতন-ভাতা দেওয়া হবে।

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহী প্রার্থীদের অনলাইনের (http://pmgmc.teletalk.com.bd) মাধ্যমে আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে।

আবেদনের সময়সীমা: অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন ও ফি প্রাদান শুরু হবে ২০ আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০টায় এবং শেষ হবে ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১টা ৫৯ মিনিটে।
বিজ্ঞপ্তি দেখতে ক্লিক করুন

পাবনা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে ঘুষ লেনদেন, ভিডিও ভাইরাল

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০ আগষ্ট ২০১৯:
পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের হেড কেরানীর (উচ্চমান সহকারী) ঘুষ গ্রহণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্লিপ বরাদ্দ, মেরামত বাবদ অনুদান, ওয়াশ ব্লক ও রুটিন মেইনটেনেন্স বাবদ বরাদ্দকৃত টাকার ৬ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে অফিসের উচ্চমান সহকারী গোলজার হোসেনের বিরুদ্ধে।



আলাউল হোসেন ও আরিফুল ইসলামসহ কয়েকটি ফেসবুক আইডিতে সোমবার রাত থেকে ঘুষ গ্রহণের এই ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায় উপজেলা শিক্ষা অফিসের উচ্চমান সহকারী গোলজার হোসেনকে কাজীপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুজ্জামান মনি ঘুষের টাকা প্রদান করছেন। তিনি টাকা টেবিলের নিচে নিয়ে গুণে তা প্যান্টের পকেটে রাখছেন। ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার পর থেকে ভিডিওটি অনেকে শেয়ার করছে ও লাইক, কমন্টে বিভিন্ন মন্তব্য পাওয়া যাচ্ছে।

উপজেলার সহকারী শিক্ষা অফিসার ও প্রধান শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মর্জিনা খাতুনের নির্দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্লিপ বরাদ্দ, মেরামত বাবদ অনুদান, ওয়াশ ব্লক ও রুটিন মেইন টেনেন্স বাবদ বরাদ্দকৃত টাকার ৬ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ নিচ্ছেন অফিসের উচ্চমান সহকারী গোলজার হোসেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার সহকারী শিক্ষা অফিসারগণ জানান, ১৭৮টি বিদ্যালয়ের মধ্যে ১৭৫টি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট থেকে জোরপূর্বক বিল তৈরি বাবদ উচচমান সহকারীর মাধ্যমে শিক্ষা অফিসার বরাদ্দের ৮ থেকে ১০ ভাগ টাকা ঘুষ গ্রহণ করেছে।

সোনাতলা স. প্রা. বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হান্নান, হাটবাড়িয়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল বাতেনসহ অনেকে বলেন, সরকার প্রদত্ত স্কুলের উন্নয়ন কাজের বিল গ্রহণে অগ্রিম ঘুষ প্রদানে আমাদের বাধ্য করা হচ্ছে। ঘুষের টাকা পরিশোধ না করলে বিভিন্ন ভাবে হয়রানীর স্বীকার হতে হয়।

গত ১৮ আগস্ট উপজেলা আমোষ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষকের পরিচয়ে স্লিপ বরাদ্দের টাকার চেক গ্রহণে উচ্চমান সহকারী গোলজার হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল রানা খোকন। পাঁচ হাজার টাকার বিনিময়ে বিল করতে রাজি হন বলে এ প্রতিনিধিকে জানান খোকন।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিও দেখে ব্যবস্থা গ্রহণে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে অবগত করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল হালিম। এছাড়াও তিনি শিক্ষা অফিসারসহ অফিসের সকল কর্মকর্তাদের ডেকে অপরাধীদের কোনভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না বলে সতর্ক করেন।

উচ্চমান সহকারী গোলজার হোসেন বলেন, ‘ঘুষের টাকা আমি গ্রহণ করিনি। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।’

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মর্জিনা খাতুনের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘গোলজার হোসেনের ঘুষ গ্রহণের তথ্য আমি পেয়েছি। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ তবে ঘুষ গ্রহণে তার নিজের জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেন।

সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল হালিম জানান, ফেসবুকে পাওয়া ভিডিও ক্লিপ দেখে আমি ইতিমধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে অবগত করেছি। তারা বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।

কাশ্মীরে স্কুল খুললেও শ্রেণিকক্ষ শূন্য

ডেস্ক | ২০ আগস্ট , ২০১৯
ভারত শাসিত কাশ্মীরে বেশ কিছু স্কুল সোমবার খুলে দেয়া হয়েছে, কিন্তু শ্রেণিকক্ষে ছাত্র-ছাত্রীদের দেখা যায়নি একেবারেই। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল নিয়ে প্রায় দু সপ্তাহ ধরে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যে সোমবার কিছু স্কুল খুলে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে যেসব স্কুল খুলে দেয়া হয়েছে এগুলো মূলত সরকারি স্কুল এবং বেসরকারি স্কুলগুলো বন্ধই আছে। যেসব স্কুল খুলেছে তাতে সোমবার ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি দেখা যায়নি।

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ কাশ্মীরে এখনো অবরুদ্ধ অবস্থা বিরাজ করছে। কর্তৃপক্ষ অবশ্য জানিয়েছে, সবচেয়ে বড় শহর শ্রীনগরে দুইশর মতো স্কুল খুলে দিয়েছে তারা। কিন্তু সাংবাদিকরা অনেক স্কুলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের পাননি।

অভিভাবকরা বলছেন, নিরাপত্তা নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন। ব্যাপক নিরাপত্তা আয়োজন সত্ত্বেও বিশেষ মর্যাদা বাতিলের প্রতিবাদে সেখানে বিক্ষোভ হচ্ছে এবং প্রায়ই তা সহিংস রূপ নিচ্ছে। কাশ্মীর একটি বিরোধপূর্ণ ভূখণ্ড যার দুটি অংশ নিয়ন্ত্রণ করছে ভারত ও পাকিস্তান। ভারত শাসিত অংশ জম্মু ও কাশ্মীর এতদিন বিশেষ মর্যাদা পেলেও সম্প্রতি তাকে দু ভাগ করে রাজ্যের মর্যাদায় নামিয়ে আনা হয়েছে। অংশ দুটিই এখন সরাসরি দিল্লীর শাসনে রয়েছে।
তিন দশক ধরে এই কাশ্মীরে চলছে বিচ্ছিন্নতাবাদী তৎপরতা, যাতে নিহত হয়েছে হাজার হাজার মানুষ। বিশেষ মর্যাদা বাতিলকে কেন্দ্র করে মূলত কাশ্মীরকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী ধরে এবং সব ধরণের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছিল। সম্প্রতি টেলিফোন লাইন কিছুটা চালু হলেও বিক্ষোভ বেড়ে যাওয়ার পটভূমিতে মোবাইল ফোন সেবা ও ইন্টারনেট এখনো বন্ধ আছে। সংবাদদাতারা বলছেন, এমন পরিস্থিতিতে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের স্কুলে দেয়ার পরিবর্তে বাসায় রাখতেই স্বস্তি পাচ্ছেন, বিশেষ করে মোবাইল নেটওয়ার্ক চালু না হওয়া পর্যন্ত। একজন স্কুল শিক্ষককে উদ্ধৃত করেছে, যিনি বলেছেন – এ ধরণের ‘অনিশ্চিত অবস্থায়’ তারা শিক্ষার্থীদের স্কুলে আশা করেন না। তিনি আরও বলেন যে, অনেক স্কুল এখনো বন্ধ বা শিক্ষক কর্মকর্তা কর্মচারী খুবই কম এসেছে। কর্মকর্তারা বলছেন, তারা বোঝার চেষ্টা করছেন যে কত সংখ্যক শিক্ষার্থী স্কুলে এসেছে। তবে যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতার কারণে খবর সংগ্রহ করাও কঠিন। যদিও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রতিনিয়তই কাশ্মীর নিয়ে তার সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা ব্যাখ্যা করেই চলেছেন। তার মতে, এটা দরকার ছিল অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও নিরাপত্তার স্বার্থে। কিন্তু কাশ্মীরের জনগণ ও নেতাদের মতে, এটা বিশ্বাসঘাতকতা এবং এ সিদ্ধান্ত নিয়ে তাদের সাথে কোন আলোচনাই হয়নি। বিশেষ মর্যাদা বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা থেকেই বন্দী আছেন সেখানকার সুপরিচিত রাজনৈতিক নেতারা।

সরকারি প্রতিষ্ঠানে ‘মুক্তা পানি’ ব্যবহারের নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২০ আগস্ট , ২০১৯:
সরকারি সব প্রতিষ্ঠানে বোতলজাত ‘মুক্তা পানি’ ব্যবহারে অগ্রাধিকার দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করেছে সোমবার।
অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের (প্রশাসন) সহকারী সচিব মো. সামীম আহসান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতিবন্ধীদের পরিচালিত শারীরিক প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট, মৈত্রী শিল্প, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় পরিবেশিত ও বোতলজাত মুক্তা পানি পরিবেশন ও ব্যবহারে অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো।


গত ৪ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সব সরকারি দপ্তরে ‘মুক্তা পানি’ ব্যবহারে অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য একটি নির্দেশনা আসে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে।

‘মুক্তা পানি’ সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত হয়। এর গাজীপুরের কারখানাটি সম্পূর্ণভাবে প্রতিবন্ধীরা পরিচালনা করেন। এখান থেকে যে লাভ হয় তার পুরো অংশ প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে ব্যয় হয়।

এর আগে বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবসে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবন্ধীদের তৈরি ‘মুক্তা পানি’ সবাইকে কিনতে বলেন।

অনুষ্ঠানে ‘মুক্তা পানি’ মিনারেল ওয়াটারের বোতল হাতে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এটি কিন্তু আমাদের প্রতিবন্ধীরাই তৈরি করছে। এত সুন্দর পানি, এত সুন্দর বোতল।”

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter