Home » টপ খবর (page 4)

টপ খবর

স্নাতকে বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠাতে হবে ২১ জুনের মধ্যে

নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৭ জুন, ২০২০
২০১৯-২০ অর্থবছরে থেকে সব ধরনের বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের টাকা জিটুপি পদ্ধতিতে অনলাইনে ইএফটির মাধ্যমে সরাসরি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হবে। তাই, কলেজগুলোকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক পাস ও স্নাতক সম্মান পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। আগামী ২১ জুনের মধ্যে বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠাতে হবে। এ সময় শিক্ষার্থীদের তথ্য পূরণ করে তালিকা শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠাতে বলা হয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলোকে।
আরো পড়ুন
মোবাইল অ্যাকাউন্টে পড়ে থাকা উপবৃত্তির টাকা তুলতে হবে ২৫ জুনের মধ্যে
মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে বিষয়টি জানিয়ে চিঠি সব সরকারি বেসরকারি কলেজে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, নির্ধারিত লিংকে প্রবেশ করে 2019-20 অর্থবছরের স্নাতক পাস ও স্নাতক সম্মান পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের তালিকায় তথ্য পূরণ করতে হবে। এসব প্রিন্ট করা সংশোধিত তালিকা প্রতিষ্ঠান প্রধান বা দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার স্বাক্ষর ও সিল নিয়ে তার সফটকপি ইমেইলে (dshe.stipend.fl@gmail.com) পাঠাতে হবে প্রতিষ্ঠানগুলোকে।

নির্দেশনায় বলা হয়, প্রতিষ্ঠান প্রধানের পাঠানো তালিকা অনুসারে বৃত্তির টাকা পাঠানোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাই, ভুল বা ত্রুটিপূর্ণ তথ্যের জন্য কোনো শিক্ষার্থী বৃত্তির টাকা পেতে দেরি হলে প্রতিষ্ঠান প্রধান দায়ী থাকবেন। এছাড়া পাঠ বিরতিতে থাকা শিক্ষার্থীদের তালিকা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠানো যাবে না। স্বাক্ষর ও সিল ছাড়া তালিকা পাঠানো হলে তা বাতিল বলে গণ্য করা হবে।

এছাড়া কারিগরি সহায়তার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের টেকনিক্যাল টিম এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের এসপিএফএমএসপি প্রকল্পের টেকনিক্যাল টিমের সাথে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের।


Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মোবাইল অ্যাকাউন্টে পড়ে থাকা উপবৃত্তির টাকা তুলতে হবে ২৫ জুনের মধ্যে

নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৮ জুন, ২০২০
২০১৬-১৭ অর্থবছর থেকে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে যেসব প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইল অ্যাকাউন্টে উপবৃত্তির টাকা পাঠানো হলেও কিছু অ্যাকাউন্টের টাকা তোলা করা হয়নি। এসব অ্যাকাউন্টে পড়ে থাকা উপবৃত্তির টাকা আগামী ২৫ জুনের মধ্যে তুলে নিতে বলা হয়েছে। তা না হলেএসব টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত নেয়া হবে। টাকা দাবি করতে পারবেন না অভিভাবক বা শিক্ষার্থীরা।

আরো পড়ুন

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ৬ আগষ্ট পর্যন্ত

‘প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রদান -৩য় পর্যায়’ শীর্ষক প্রকল্পের পক্ষ থেকে এ টাকা তুলে নিতে অভিভাবকদের জানাতে বলা হয়েছে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের। মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের এসব তথ্য জানিয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন প্রকল্প পরিচালক মো. ইউসুফ আলী।

চিঠিতে বলা হয়, দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীর অভিভাবকের মোবাইল অ্যাকাউন্টে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে উপবৃত্তির টাকা পাঠানো হচ্ছে। কিন্তু দীর্ঘদিন কিছু অভিভাবকের মােবাইল অ্যাকাউন্টে বিভিন্ন কিস্তিতে উপবৃত্তির টাকা অলসভাবে ফেলে রাখা হয়েছে। অর্থাৎ এসব অ্যাকাউন্টে থেকে কোন টাকা তোলা হচ্ছেনা। এ অ্যাকাউন্টগুলাে প্রকৃত সুবিধাভােগী অভিভাবকের নয় বলে বোঝা যচ্ছে।
তাই, যে সব প্রকৃত অভিভাবকের মোবাইল অ্যাকাউন্টে উপবৃত্তির টাকা দীর্ঘদিন পড়ে আছে তা আগামী ২৫ জুনের মধ্যে তুলতে প্রয়ােজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দিতে বলা হয়েছে চিঠিতে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, ২৫ জুনের পরে এ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়া হবে এবং অভিভাবকরা অনুত্তোলিত টাকার কোন প্রকার দাবি করতে পারবেন না।


Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

করোনার চিকিৎসায় জীবন রক্ষাকারী ওষুধ পাওয়া গেছে : বিবিসি

ডেস্ক |

ডেক্সামেথাসোন ওষুধটিই করোনার চিকিৎসায় গুরুতর অসুস্থদের জীবন রক্ষা করতে সক্ষম। দাবি বিজ্ঞানীদের। মূলত করোনায় আক্রান্ত যেসব রোগীর ভেন্টিলেশন ও অক্সিজেনের প্রয়োজন হয়, সেই সব রোগীদের জীবন বাঁচাতে ডেক্সামেথাসোন অত্যন্ত কার্যকর বলে দেখা গেছে। এটা এক ধরনের স্টেরয়েড। তবে মৃদু উপসর্গযুক্ত রোগীদের জন্য এই ওষুধ ব্যবহারের প্রয়োজন নেই।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে,অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক এই গবেষণাটি চালিয়েছেন। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া প্রায় ২ হাজার করোনা রোগীর দেহে ডেক্সামেথাসোন পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়েছিল। তা থেকে প্রাপ্ত ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ভেন্টিলেশনে থাকা রোগীদের ক্ষেত্রে মৃত্যুঝুঁকি ৪০ শতাংশ থেকে ২৮ শতাংশে কমে আসে। আর যেসব রোগীদের অক্সিজেন গ্রহণের প্রয়োজন হয়,সেসব রোগীদের মৃত্যুঝুঁকি ২৫ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশে কমে আসে।

গবেষকেরা বলছেন,পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ক্ষেত্রে ডেক্সামেথাসোন নেয়া রোগীদের ফলের সঙ্গে ওই ওষুধ না নেয়া ৪ হাজার রোগীর অবস্থা মিলিয়ে দেখা হয়েছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের দেহে এই ওষুধটি এরই মধ্যে প্রয়োগ করা হচ্ছে। দেখা গেছে, রোগীর দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা যখন অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করে, তখন যেসব ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে, তা থামাতে ডেক্সামেথাসোন কার্যকর ভূমিকা রাখে। মানুষের দেহে যখন এই অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করে, তখন তাকে বলে সাইটোকাইন স্টর্ম। এটি রোগীর মৃত্যুর কারণ হতে পারে। ডেক্সামেথাসোন এ ক্ষেত্রে বেশ কার্যকর বলে গবেষণায় দেখা গেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতি ২০ জন করোনারোগীর মধ্যে ১৯ জনেরই হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন হয় না। আবার যারা হাসপাতালে ভর্তি হন, তাদের মধ্যেও অধিকাংশই সুস্থ হয়ে যান। তবে কারও কারও অক্সিজেন ও ভেন্টিলেশন সুবিধার প্রয়োজন হয়। এই উচ্চ ঝুঁকির রোগীদের চিকিৎসার ক্ষেত্রেই উপকারী হিসেবে পাওয়া গেছে ডেক্সামেথাসোনের নাম।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষণা দলের প্রধান অনুসন্ধানকারী ও অধ্যাপক পিটার হরবি বলেন, ‘এটাই একমাত্র ওষুধ, যার প্রয়োগে মৃত্যুহার কমতে দেখা গেছে এবং সত্যিকার অর্থেই বেশ ভালো পরিমাণে কমে। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার।’

প্রধান গবেষক ও অধ্যাপক মার্টিন ল্যানড্রে বলছেন,গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফলে দেখা গেছে, প্রতি ৮ জন রোগী যাদের ভেন্টিলেটরের প্রয়োজন হয় তাদের মধ্যে একজনের জীবন বাঁচাতে পারে ডেক্সামেথাসোন। আর অক্সিজেন প্রয়োজন হয় এমন প্রতি ২০ থেকে ২৫ জন রোগীদের ক্ষেত্রে একজন রোগীর জীবন বাঁচানো যায়।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মৃদু উপসর্গ থাকা করোনা রোগীদের ক্ষেত্রে ডেক্সামেথাসোন খুব একটা কার্যকর নয়। অর্থাৎ যেসব করোনারোগীদের শ্বাসকষ্টের সমস্যা হয় না, তাদের ক্ষেত্রে ডেক্সামেথাসোন প্রয়োজন নেই।

ডেক্সামেথাসোন বেশ পরিচিত একটি ওষুধ এবং দামেও অত্যন্ত সস্তা। সংশ্লিষ্ট গবেষকেরা বলছেন, যুক্তরাজ্যে প্রতিদিনের চিকিৎসায় ডেক্সামেথাসোন ব্যবহারের খরচ প্রায় সাড়ে পাঁচ পাউন্ড। দশ দিন পর্যন্ত ডেক্সামেথাসোন প্রয়োগ করার কথা বলা হচ্ছে। যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, করোনা মহামারির শুরুতে এই ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেলে অন্তত ৫ হাজার মানুষের মৃত্যু ঠেকানো যেত।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

দর্শনা পৌরসভার দুটি ওয়ার্ড মঙ্গলবার থেকে লকডাউন

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গার দর্শনা পৌরসভার ৫নং ও ৭নং ওয়ার্ডকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে মঙ্গলবার (১৬ জুন) থেকে লকডাউন কার্যকর হচ্ছে। সোমবার (১৫ জুন) দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত কোভিড-১৯ করনীয় বিষয়ক জেলা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আবু তারেক , সিভিল সার্জন ডা: এএসএম মারুফ হাসান, পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী, সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন শাহ মো: মারজান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ সাদিকুর রহমান ও দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দিলারাা রহমানসহ সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, দর্শনা পৌরসভার ৫ নং ও ৭নং ওয়ার্ডকে রেড জোন হিসেবে ঘোষনা করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এ নির্দেশ আগামীকাল থেকে কার্যকর হবে। যারা দরিদ্র তাদেরকে ত্রাণ সহায়তার ব্যবস্থা করা হবে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ৬ আগষ্ট পর্যন্ত

 

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৫ জুন:

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে স্কুল-কলেজসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হয়েছে। আগামী ৬ আগস্ট পর্যন্ত দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

সোমবার (১৫ জুন) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়েরের পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষার্থীদের সার্বিক সুরক্ষা ও নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলমান ছুটি আগামী ৬ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

দেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৭ মার্চ থেকে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এরপর দফায় দফায় ছুটি বাড়িয়ে ১৫ জুন অর্থাৎ সোমবার পর্যন্ত করা হয়।

মাঝে ১ জুন দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রশাসনিক, রক্ষণাবেক্ষণ জাতীয় কর্মকাণ্ড এবং শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমোদন দেয়া হয়। আর ছুটি আজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় তা বাড়ানো হলো ৬ আগস্ট পর্যন্ত।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, করোনা মহামারি আকারে ধারণ করায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে শিক্ষার্থীদের হুমকির মধ্যে ফেলা হবে না। প্রতিদিন সংসদ টিভিতে ক্লাস সম্প্রচার করা হচ্ছে, বাসায় বসে তারা পাঠগ্রহণ চালিয়ে যাবে। বর্তমানে শিক্ষার্থীদের বাসায় রেখে কীভাবে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব সে বিষয়েও চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

উচ্চ মাধ্যমিকে ক্লাসের সময় বাড়ছে ১৫ মিনিট, ভর্তি শুরু জুলাইয়ে

ডেস্ক,১৫ জুন ২০২০:

প্রায় দুই সপ্তাহ আগে প্রকাশ হয়েছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল। কিন্তু করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে এখনও উচ্চ মাধ্যমিকের ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়নি। কবে থেকে এ কার্যক্রম শুরু হবে তাও অনিশ্চিত। তবে উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে নানা উদ্যোগ নিচ্ছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তাদের ক্লাসের সময়সূচি বৃদ্ধি ও বাড়তি ক্লাস করার মতো কিছু পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, একাদশের ভর্তি কার্যক্রম শুরু করতে গত ১৭ মে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠায় আন্তঃশিক্ষা সমন্বয় বোর্ড। সেখানে গত ৭ জুন থেকে এ কার্যক্রম শুরুর প্রস্তাব দেওয়া হয়। অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম শেষ করার জন্য এক মাস ২০ দিনে তিন ধাপের কথা তাতে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার কথা চিন্তা করে ভর্তি কার্যক্রম শুরুর অনুমোদন দেয়নি মন্ত্রণালয়।

তবে মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে জুলাইয়ের মাঝামাঝি অনলাইনে উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রম শুরুর অনুমোদন দেওয়া হতে পারে। আর সেপ্টেম্বর মাস থেকে ক্লাস শুরুর আশা করছেন তারা। তবে তা বিলম্ব হলে একাদশের ক্লাসের সময় এবং বন্ধের দিনগুলোয় বাড়তি ক্লাস করে সে ক্ষতি পুষিয়ে নেয়া হবে।

এ বিষয়ে আন্তঃশিক্ষা সমন্বয় কমিটির কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক হারুন-অর রশিদ বলেন, করোনার কারণে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ভর্তির কার্যক্রম শুরুর অনুমোদন দেয়নি। গত ৭ জুন থেকে ভর্তি আবেদন শুরুর প্রস্তাব পাঠানো হলেও পরিস্থিতি বিবেচনায় সে কার্যক্রম শুরু করা যায়নি।

কলেজ পরিদর্শক বলেন, উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি ও ক্লাস শুরু হতে বিলম্ব হলেও এ ক্ষতি পুষিয়ে নেয়া হবে। সেক্ষেত্রে আগে ক্লাসের সময় ৪৫ মিনিট থাকলেও এক ঘণ্টা করা হবে। আর সপ্তাহিক বন্ধ ও ছুটির দিনগুলোয় অতিরিক্ত ক্লাস নিয়ে একাদশ ও দ্বাদশের সিলেবাস শেষ করা হবে। ফলে সেশনজট হবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

গত ৩১ মে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ফল প্রকাশ করা হয়, পাসের হার ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছেন এক লাখ ৩৫ হাজার ৮৯৮ জন। এবার দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ জিপিএ-৫ পাওয়ায় ভালো কলেজে ভর্তি নিয়ে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা দেখা যাচ্ছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে।

জানা গেছে, দেশে সরকারি-বেসরকারি প্রায় সাড়ে আট হাজার কলেজে আসন রয়েছে প্রায় ২০ লাখ। এর মধ্যে ভালো হিসেবে বিবেচিত ২০০ কলেজে আসন সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

কিছু মানুষকে আক্রান্ত করার সাধ্য নেই করোনার : গবেষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৫ জুন:

এতদিন ধরে বিশ্বব্যাপী ধারণা ছিল, করোনাভাইরাস যে কারও শরীরে সংক্রমণ ছড়াতে পারে। তবে নতুন এক গবেষণায় উঠে এসেছে, কিছু মানুষের দেহে করোনা সংক্রমণ করার সাধ্য নেই। অর্থাৎ যেসব মানুষের দেহে ভাইরাসবিরোধী ‘টি সেল’ রয়েছে তাদের করোনা আক্রান্ত করতে পারবে না।

সম্প্রতি সেল জার্নালে এ গবেষণাটি প্রকাশিত হয়। গবেষণায় বলা হয়, বিভিন্ন ধারার ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হওয়ার কারণে অনেক মানুষের শরীরে ভাইরাসবিরোধী টি সেল তৈরি হয়। এই সেল করোনা রুখে দিতে সক্ষম। বিজ্ঞানভিত্তিক ওয়েবসাইট সায়েন্স অ্যালার্ট বলছে, চিকিৎসা বিজ্ঞানে এই সক্ষমতাকে বলা হয় ‘ক্রস-রিয়েক্টিভিটি’।

গবেষণায় মোট ৪০ জনের রক্তের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এদের মধ্যে ২০ জন করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সেরে উঠেছেন। বাকি ২০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে। যারা অন্য কোনও ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয়েছিলেন। সেই ২০ জন আক্রান্ত হয়নি।

বিজ্ঞানীরা আরও দাবি করছেন, যাদের শরীরে মৃদু করোনাভাইরাসের উপসর্গ ছিল, তাদের শরীরেও এমন কিছু টি সেল এবং অ্যান্টিবডি তৈরি হতে পারে, যেগুলো ভবিষ্যতে সংক্রমণ থেকে রক্ষা করবে।

গবেষণায় দেখা গেছে, করোনা থেকে সেরে ওঠা ২০ জনের শরীরেই শ্বেত রক্তকণিকা এবং অ্যান্টিবডির উপস্থিতি রয়েছে। ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালে যেসব নমুনা নেয়া ছিল, সেগুলোর ৫০ শতাংশের মধ্যেও ‘সিডি৪+’ নামের ‘টি-সেল’ পাওয়া গেছে।

গবেষণার সহকারী আলেসান্দ্রো সেটে বলেছেন, ‘টি সেল’ খুব দ্রুত শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে। ভাইরাস শরীরে ছড়িয়ে পড়ার চেষ্টা করলেও টি সিলের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এটিকে প্রতিহত করতে সক্ষম হয়।’

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

মেসেঞ্জারে ঢুকতে পাসওয়ার্ড লাগবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ফেসবুকের মেসেঞ্জারের ব্যবহার বেড়েছে। মেসেঞ্জারে বার্তা আদান–প্রদানের সুবিধাটিকে আরও ব্যক্তিগত রাখার জন্য বিশেষ নিরাপত্তা ফিচার যুক্ত করার পরিকল্পনা করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। মেসেঞ্জারে যুক্ত হচ্ছে ফেস আইডি, টাচ আইডি বা পাসকোড ব্যবস্থা। এতে ব্যবহারকারী মেসেঞ্জার ‘লক’ করে রাখতে পারবেন, যাতে অন্য কেউ ব্যক্তিগত বার্তা দেখতে না পারেন।

প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট এনগ্যাজেট এক প্রতিবেদনে বলেছে, ফেসবুক বর্তমানে মেসেঞ্জারের নিরাপত্তা ফিচারগুলো নিয়ে পরীক্ষা করছে। এসব ফিচার চালু হলে ব্যবহারকারীকে তাঁর মেসেঞ্জারের ইনবক্সে ঢুকতে হলে পাসওয়ার্ড বা আইডি দিয়ে ঢুকতে হবে। ফোন আনলক করা থাকলেও মেসেঞ্জারে আইডি দিয়ে ঢুকতে হবে। অ্যাপ ছেড়ে যাওয়ার কতক্ষণ পর তা লক হবে, সে সময়ও ঠিক করে দেওয়ার সুবিধা থাকবে।

এনগ্যাজেটকে ফেসবুকের এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমরা ব্যবহারকারীদের কাছে তাঁদের আরও বেশি পছন্দের ও নিয়ন্ত্রণের সুবিধা তুলে দিতে চাই, যাতে তাঁরা ব্যক্তিগত বার্তা সুরক্ষিত রাখতে পারেন। সম্প্রতি আমরা এ রকম ফিচার পরীক্ষা শুরু করেছি যাতে ডিভাইস সেটিংস ব্যবহার করে মেসেঞ্জার অ্যাপ খুলতে হবে। কেউ যাতে হুট করে বার্তা পড়ে ফেলতে না পারে, সে জন্যই প্রাইভেসির বাড়তি স্তর যুক্ত করা হচ্ছে।’

গত মাসেই ফেসবুক তাদের ভিডিও কনফারেন্সিং টুল ‘মেসেঞ্জার রুমস’ চালু করেছে। এতে ৫০ জন একসঙ্গে যুক্ত হতে পারেন এবং ফেসবুক অ্যাকাউন্ট না থাকলেও এতে যুক্ত হওয়া যায়। মেসেঞ্জার রুমস সৃষ্টির ফিচারটি আইওএস, অ্যান্ড্রয়েড, উইন্ডোজ ও ম্যাকওএস অপারেটিং সিস্টেমে চালু হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

জুলাইয়ে বন্ধ হচ্ছে সূর্যের হাসি ক্লিনিক, চাকরি হারাচ্ছেন ২ হাজার কর্মী

ডেস্ক,১৪ জুন: দরিদ্র জনগোষ্ঠীদের স্বল্পমূল্যে স্বাস্থ্য সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান সূর্যের হাসির অধিকাংশ ক্লিনিক পহেলা জুলাই থেকে বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। এতে চাকরি হারাচ্ছেন এই ক্লিনিকগুলোর দুই হাজার কর্মী। এমন পরিস্থিতিতে আতঙ্কিত কর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেছেন।

১৯৯৭ সাল দাতা সংস্থা ইউএসএআইডির অর্থায়নে দেশের ৬৪টি জেলায় ৩৯৯টি সূর্যের হাসি ক্লিনিক নামে সরকারের সহযোগী সংস্থা হিসেবে তৃণমূলের প্রায় তিন কোটি মানুষকে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করে আসছে। আগে ক্লিনিকগুলো ২৬টি এনজিওর মাধ্যমে পরিচালিত হতো। ২০১৮ সাল থেকে এনজিওগুলোকে বিলুপ্ত করে ৩৯৯টি ক্লিনিকের মধ্যে ৩৬৯টি ক্লিনিক নিয়ে সূর্যের হাসি নেটওর্য়াক দায়িত্ব গ্রহণ করে। চলতি বছর দেশের ১৫৮টি ক্লিনিক বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

আরো পড়ুন: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটির মেয়াদ আরও বাড়ছে

এনজিও ফেডারেশন সভাপতি বেলাল আহমদ বলেন, যারা বাংলাদেশে তিন কোটি মানুষকে সেবা দেয় তাদের দুই তৃতীয়াংশ কিন্তু বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এতে করে অনেকে বঞ্চিত হবে। এতে স্বল্পমূল্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা গ্রহণকারী নিম্নআয়ের ও হতদরিদ্র মানুষ বঞ্চিত হবে।

অন্যদিকে করোনা পরিস্থিতির মাঝে চাকরি হারাচ্ছেন দুই হাজারেরও বেশি কর্মকর্তা-কর্মচারী। চাকরিহারা এই কর্মীরা নানা কর্মসূচির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সূর্যের হাসি ক্লিনিকের ক্লিনিক ম্যানেজার মো. তাজ উদ্দিন বলেন, মানবতার মা, আপনি আমাদের এই সূর্যের হাসি ক্লিনিকের বেআইনি আদেশকে স্থগিত করে আমাদের চাকরিতে বহাল রাখবেন।

এদিকে ৩০ জুন থেকে দেশের ১৫৮টি ক্লিনিক বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সূর্যের হাসি নেটওয়ার্ক।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ফের সাধারণ ছুটির ঘোষণা আসছে যেসব এলাকায়

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৪জুন:

সরকারি অফিস ১৫ জুন পর্যন্ত সীমিত পরিসরে খোলার যে ঘোষণা দিয়েছিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, সে সময়সীমা আরও বাড়ছে। জানা গেছে, আজ রবিবার অথবা আাগামীকাল সোমবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস সাংবাদিকদেরকে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবেন। সে সিদ্ধান্ত জানানোর দায়িত্ব মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের।

আর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সাধারণ ছুটি নতুন করে বাড়ানো হবে না। এখন যেভাবে চলছে, সেভাবেই চলবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে এলাকভিত্তিক লকডাউনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে যেসব এলাকা রেড জোনে থাকবে সেখানকার সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবীরা সাধারণ ছুটি পাবেন। এলাকাভিত্তিক লকডাউন করা নিয়ে দফায় দফায় বৈঠকও করছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, গত শুক্রবার একাধিক মন্ত্রী ও মেয়রের মধ্যে ডিজিটাল বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া ইয়েলো ও গ্রিন জোনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরকারি অফিস খোলা থাকবে। সীমিত পরিসরে গণপরিবহনও চলবে। তবে রেড জোনে সাধারণ ছুটি ঘোষণার বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়নি।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, যা যেমন চলছে, সব সেভাবেই চলবে। নতুন ছুটি ঘোষণা করা হবে না। রেড জোনে থাকা এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হবে বলেও জানান তিনি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটির মেয়াদ আরও বাড়ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৪জুন:

দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাধারণ ছুটির মেয়ার আরও বাড়ানো হচ্ছে। করোনা সংক্রমণের পরিস্থিতি উন্নত না হওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নিচ্ছে সরকার। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলমান ছুটি ১৫ জুন শেষ হচ্ছে। তবে এই ছুটির মেয়াদ আরও বাড়িয়ে আজ-কালকের মধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করবে বলে জানা গেছে। এরপর শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ছুটি বাড়ানোর নির্দেশনা দেয়া হবে।

গত ১৭ মার্চ থেকে করোনাভাইরাসের কারণে প্রাক্-প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাধারণ ছুটি চলছে। আবারও ছুটির মেয়াদ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের মো. সচিব মো মাহবুব হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, স্কুল-কলেজের ছুটির মেয়াদ বাড়ানো হবে কি হবে না, হলে কতদিন তা নির্ভর করছে জনপ্রশাসন থেকে সাধারণ ছুটির বিষয়ে আদেশ পাওয়ার ওপর। আজ রোববার স্কুল-কলেজের ছুটির বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হতে পারে।

আরো পড়ুননাসিমকে নিয়ে কটূক্তি, সেই শিক্ষিকা গ্রেপ্তার

এদিকে স্কুল খোলার বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ শনিবার গণমাধ্যমকে বলেন, শিক্ষার্থীদের করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত রাখাই এখন আমাদের একমাত্র লক্ষ্য। তবে তাদের পাঠদান চালিয়ে যেতে হবে। যেহেতু এই মুহূর্তে ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কোন উল্লেখযোগ্য উন্নতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না, তাই সঙ্গত কারণেই বলা যায় ১৫ জুনের পরও স্কুল খোলা হচ্ছে না।

ছুটি কতদিন বাড়তে পারে এ বিষয়ে তিনি আরও বলেন, তবে এ বিষয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে নির্দেশনা পাওয়ার পর স্কুলে ছুটির বৃদ্ধির বিষয়টি সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করে আদেশ জারি করা হবে।

করেনা সংকটের সময় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়ে জোর দিচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, যখনই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে তখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে। শিক্ষার্থীদের আমরা বিপদের মুখে ঠেলে দিতে পারি না। শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার বিষয়েটি সর্বোচ্চ প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষা কার্যক্রম একেবারে বন্ধ সেটাও বলা যাবে না। সংসদ টিভি এবং বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। সেখানেও ছাত্র-ছাত্রীরা অনেক লাভবান হচ্ছে।

গত ৩১ মে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলের দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কবে নাগাদ খুলতে পারে- এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে বন্ধ থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ধাপে ধাপে খুলে দেয়া হবে। তখন তিনি আরও বলেছেন, এই মুহূর্তে আমরা সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান উন্মুক্ত করতে চাচ্ছি না। কেননা আমরা চাই না- আমাদের ছেলে-মেয়েরা করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হোক। তারা আমাদের ভবিষ্যৎ। তাদেরকে আমরা ঝুঁকিতে ফেলতে পারি না। সেজন্য এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান উন্মুক্ত করব না। তবে করোনা পরিস্থিতি যদি কাটিয়ে উঠতে পারি তাহলে যতটুকু সম্ভব খুলে দেব। পরে অবস্থা বুঝে আরও উন্মুক্ত করব।

এসময় তিনি শিক্ষার্থীদের বাড়িতে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার আহবান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীরা এখন বাড়িতে পড়াশোনার সুযোগ পাচ্ছেন। তারা সেই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে অনেক কিছু শিখতে পারছেন। আশা করি, তারা বাড়িতে বসে মনোযোগ দিয়ে পড়াশোনা করবে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত এপ্রিলের শেষ নাগাদ এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বন্ধ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থাকবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিপূর্বে সেপ্টেম্বরের আগে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে না দেওয়ার ব্যাপারে ইঙ্গিত দিয়েছেন। সেটাকেই তারা যথাযথ দিকনির্দেশনা বলে মনে করছেন। তাই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম বিদ্যমান অবস্থায় রাখা এবং ছাত্রছাত্রীদের বাসায় রেখে লেখাপড়ার ব্যবস্থা বা বিকল্প পাঠদানের চিন্তা চলছে।

১৬ মার্চ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার ৭ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করেছিল সরকার। এরপর ১ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষাও স্থগিত করা হয়। দেশে সর্বশেষ সাধারণ ছুটি বহাল ছিল ৩০ মে পর্যন্ত। এরপর ৩১ মে থেকে সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত এবং বেসরকারি অফিসগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিজ ব্যবস্থাপনায় সীমিত আকারে চালু হয়। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি আরো ১৫ দিন বাড়ানো হয়েছে।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

করোনা উপসর্গে প্রাথমিক শিক্ষকের মৃত্যু

হিলি প্রতিনিধি

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে নমুনা দেওয়ার একদিন পর করোনা উপসর্গ নিয়ে অবসরপ্রাপ্ত এক প্রাথমিক শিক্ষকের মৃত্যু হয়েছে। রোববার ভোরে উপজেলার বুলাকিপুর ইউনিয়নের বিন্যাগাড়ি গ্রামে তার নিজ বাড়িতে মৃত্যু হয়েছে।

ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা.নুর নেওয়াজ আহম্মেদ জানান, দীর্ঘ দিন থেকে মোস্তাফিজুর রহমান শ্বাসকষ্ট রোগে ভুগছিলেন এছাড়াও তার মাঝে করোনার উপসর্গ ছিলো। গতকাল শনিবার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছেন এবং রোববার ভোরে নিজ বাড়িতে তার মৃত্যু হয়েছে।

তিনি আরো জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে তার দাফন-কাফন করা হবে। নিহত মোস্তাফিজুর রহমান (৭২) উপজেলার বিন্যাগাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক বলেও জানান তিনি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

নাসিমকে নিয়ে কটূক্তি, সেই শিক্ষিকা গ্রেপ্তার

ডেস্ক,১৪ জুন:

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কুরুচিপূর্ণ স্টাটাস দেয়ায় রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক সিরাজুম মুনিরাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি তুষারের দায়ের করা আইসিটি মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

শনিবার মধ্যরাতে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন পার্কমোড় ভাড়া ভাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি বলছে এটি তার ব্যক্তিগত দায়। শিক্ষক সমিতি এ নিয়ে কোন হস্তক্ষেপ করবে না।

পুলিশ জানায়, শিক্ষক মনিরা সুলতানা বাংলা বিভাগের শিক্ষক। তিনি তার ফেসবুকে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে নিয়ে লেখেন, ‘যোগ্য নেতৃত্বে দেশে নাসিম্যা মুক্ত হলো’।

এ ঘটনার পর ওই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা স্কিনশট দিয়ে স্টাটাসটি ভাইরাল করে দেয়। পরে শিক্ষক মুনিরাকে প্রকাশ্যে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানায় ছাত্রলীগ। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বানও জানায়।

পুলিশ জানায়, ওই ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া তাজহাট থানায় আইসিটি মামলা করেন। ওই মামলায় সিরাজুম মুনিরাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া জানান, আমরা ওই স্টাটাস দেখার পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করি। কিন্তু প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নেয়নি। আমি থানায় মামলা করলেও প্রথমে সেটা গ্রহণ না করে তারাই মামলা করবে বলে থানায় ফোন করে। অবশ্য পরে পুলিশ আমার মামলাটি গ্রহণ করে।

তিনি বলেন, পরে গভীর রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবু হেনা মোস্তফা কামালও একটি ডিজিটাল আইনে মামলা করেন। সেই মামলাও গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। ছাত্রলীগের করা আহ্বানে শিক্ষক মুনিরা নিজের ভুল বুঝতে পেরে ওই স্টাটাসটি মুছে দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে আরেকটি স্টাটাস দিয়েছিলেন বলে অনেকে বলছেন। কিন্তু সেটা অনেক পরে, তাও নাকি তিনি তার সিদ্ধান্তে অনড় ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক তাবিউর রহমান প্রধান জানান, সিরাজুম মুনিরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। তিনি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। কিন্তু তিনি যে নেক্কারজনক ঘটনাটি ঘটিয়েছেন, এজন্য এর দায় তাকেই নিতে হবে। শিক্ষক সমিতি হস্তক্ষেপ করবে না।

তাজহাট থানার ওসি (তদন্ত) রবিউল ইসলাম গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

সীমিত পরিসরে ১৬ জুন থেকে চলবে অফিস-গণপরিবহন

নিজস্ব প্রতিবেদক |

করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে চলমান নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হচ্ছে সোমবার (১৫ জুন)। গত ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে সরকারি-বেসরকারি অফিস খুলে দেয়া হয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে থেকে জানা গেছে, আগামী ১৬ জুন থেকেও এ ব্যবস্থা চলমান থাকবে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে গণপরিবহনও। সরকার মূলত জোনভিত্তিক লকডাউনের মাধ্যমে করোনা মোকাবিলা পদ্ধতি গ্রহণ করেছে। সাধারণ ছুটি থাকবে লকডাউন এলাকায়।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, ’১৫ জুনের পর স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগের মত অফিস এবং গণপরিবহন চলবে, সেজন্য একটি অর্ডার জারি করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমার এখন জোনিংয়ে যাচ্ছি। ঢাকাসহ যে জায়গাগুলো বেশি সংক্রমিত হয়েছে সেই জায়গাগুলোতে রেডজোন ঘোষণা করে বিশেষ ট্রিটমেন্টে আমরা চলে যাবো।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তাই বর্তমানে যে অবস্থায় চলছে সবকিছু সেভাবেই চলবে। নতুন করে ছুটি ঘোষণা করা হবে না। রেড জোনে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হবে।’

সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বেশি করোনা আক্রান্ত এলাকাকে রেড, অপেক্ষাকৃত কম আক্রান্ত এলাকাকে ইয়োলো ও একেবারে কম আক্রান্ত বা আক্রান্ত মুক্ত এলাকাকে গ্রিন জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হবে। রেড জোনকে লকডাউন করা হবে, ইয়োলো জোনে যেন আর সংক্রমণ না বাড়ে সেই পদক্ষেপ নেয়া হবে। সতর্কতা থাকবে গ্রিন জোনেও। লকডাউনের মেয়াদ হবে ১৪ থেকে ২১ দিন পর্যন্ত।

গত ৯ জুন দিবাগত রাত ১২টা থেকে রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজার এলাকাকে পরীক্ষামূলকভাবে ‘রেড জোন’ হিসাবে লকডাউন বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে ১৪ দিনের জন্য এই লকডাউন কার্যকর করা হবে সেখানে।

গত মার্চের শুরুতে দেশে করোনা আক্রান্ত রোগী প্রথম ধরা পড়ে। পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতির দিকে যেতে থাকলে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এরপর দফায় দফায় ছুটি বাড়তে থাকে। সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী গত ৩০ মে ছুটি শেষ হয়।

করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ার আশঙ্কার মধ্যেই টানা ৬৬ দিনের ছুটি শেষে গত ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত বিভিন্ন নির্দেশনা মানা সাপেক্ষে সরকারি-বেসরকারি অফিস সীমিত পরিসরে খুলে দেয়া হয়। একই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বন্ধ থাকা গণপরিবহনও (বাস, লঞ্চ, ট্রেন) চালু হয়।

পরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা আদেশে জানানো হয়, সরকারি দফতরে সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ কর্মকর্তা উপস্থিত থাকতে পারবেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

রেডজোন এলাকায় সাধারণ ছুটি

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter