Home » টপ খবর (page 118)

টপ খবর

ফের পেছালো রাবির ভর্তি পরীক্ষা

রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বষের্র ভর্তি পরীক্ষা আবারও পিছিয়ে আগামী ২৫ ডিruসেম্বর করা হয়েছে। চলবে আগামী ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর প্রশাসক অধ্যাপক ইলিয়াছ হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন।

এ নিয়ে রাবির ভর্তি পরীক্ষা দু’বার পেছানো হলো।

অধ্যাপক ইলিয়াছ হোসেন শিক্ষাবার্তাকে বলেন, আগামী ৫ থেকে ৯ ডিসেম্বর ভর্তি পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও তা অনিবার্য কারণবশত স্থগিত করা হয়েছে। যা আগামী ২৫ থেকে ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

ভর্তি পরীক্ষার বিস্তারিত সময়সূচি পরবর্তীতে জানানো হবে। ভর্তি পরীক্ষার নতুন সময়সূচি ও আসন বিন্যাসসহ প্রয়োজনীয় তথ্যাদি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.admission.ru.ac.bd থেকে জানা যাবে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত ১০ থেকে ১৪ নভেম্বর রাবির ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ওই সময় ১৮ দলীয় জোট হরতাল দেওয়ায় তা পরিবর্তন করে ৫ থেকে ৯ ডিসেম্বর নির্ধারণ করা হয়। তবে পুনঃনির্ধারিত সময়ে আবারও ১৮ দলীয় জোটের অবরোধ কর্মসূচি দেওয়ায় ভর্তি পরীক্ষা ফের পেছানো হলো।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

কোচিং ব্যবসার আড়ালে…

নিজস্ব প্রতিবেদক :কোচিং ব্যবসার আড়ালে ডিজিটাল জালিয়াতি ও প্রশ্ন ফাঁস করে যাচ্ছেন ভার্সিটি ভর্তি কোচিং সেন্টার ইউসিসি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)-এর ভিসি ও সিনেটের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক ইউসিসির জড়ির থাকার কথা জানিয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক সিনেট অধিবেশনে বিভিন্ন প্রমাণসহ তিনি এ কথা বলেন।

তিনি জানিয়েছেন,“ভর্তি পরীক্ষার জালিয়াতিতে ইউসিসি কোচিং সেন্টার জড়িত, আটককৃত শিক্ষার্থীরা পুলিশকে এ তথ্য জানিয়েছে।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনা তুলে ধরে বলেন,“বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি চলাকালে নয়টি কেন্দ্র থেকে ১৪ জনকে আটক করা হয়। তারা বিশেষ ক্যালকুলেটরের মাধ্যমে পরীক্ষার হলে জালিয়াতির চেষ্টা করে। এ সময় তাদের আটক করে পুলিশে দেয়া হয়।”

আরেফিন সিদ্দিক শিক্ষাবার্তাকে বলেন,“আটককৃত শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইউসিসি কোচিং সেন্টার নাম বলেন।” সিনেট অধিবেশনে তাদের জবানবন্দির ভিডিও চিত্র দেখানো হয়েছে।

আরেফিন সিদ্দিক বলেন,“বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভর্তি পরীক্ষা জালিয়াতি হচ্ছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুণ হচ্ছে। এই জালিয়াতি রোধে আমরা সকল ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।”

এদিকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত থাকার বিষয়টি সরাসরি স্বীকার না করলেও ঘুরিয়ে স্বীকার করেছে ইউসিসি কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক কামাল উদ্দিন পাটোয়ারীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,”কোচিং সেন্টারে ৪শ শিক্ষক পড়ান। তাদের যে কেউ এটা করতে পারেন। সেজন্য কোচিং সেন্টার দায়ী নয়।”

কোচিং সেন্টারের শিক্ষক জড়িত থাকলে কোচিং সেন্টার কি দায় এড়াতে পারে- এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,“অবশ্যই দায় এড়াতে পারে না। তবে আমরাও জড়িত শিক্ষকদের খুঁজে বের করবো।”

কামাল পাটোয়ারী বলেন,“সরকার তদন্ত করতে পারে, আমরা তাদের সাহায্য করব। ইউসিসি’ও জানতে চায় কোন ব্যাক্তি এই ঘৃর্নিত কাজটি করেছে। আমরা শুনতে পেরেছি মাসুম নামের একজন শিক্ষক প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত। আমরা তাকে খুঁজছি। তবে জানতে পেরেছি, এই নামে কোন শিক্ষক বর্তমানে আমাদের কোচিং সেন্টারে নেই।”

ইতোমধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে রাজধানীর শাহবাগ, নিউমার্কেটসহ ছয়টি থানায় ১৩টি মামলা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। প্রশ্নপত্র ফাঁস ছাড়াও ছাত্র নির্যাতেনের অভিযোগ রয়েছে ইউসিসি’ucc_coching_introর বিরুদ্ধে।

কেবল প্রশ্নপত্র ফাঁস নয়, গত বছরের এপ্রিলে প্রতিষ্ঠানের ‘বদনাম’ করায় এক ছাত্রকে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে। নির্যাতিত ছাত্র রকিবুল তখন অভিযোগ করেছিল, ‘ইউসিসির মান ভালো নয়’ বলায় ওই ছাত্রকে নির্যাতন করা হয়েছে। সে কোচিং সেন্টারটির ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের প্রধান ক্যাম্পাসে কোচিং করতেন।

ছাত্রটি আরো জানিয়েছিল, ইউসিসির পরিচালক কামাল উদ্দীন পাটোয়ারীসহ ওই কোচিং সেন্টারের কয়েকজন শিক্ষক তাকে নির্যাতন করে। এ ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় একটি অভিযোগও দায়ের হয়েছিল।

এবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের জালিয়াতির সাথে জড়িত আটক শিক্ষার্থীরা অধিকাংশ ইউসিসিতে কোচিং করত। তারা ইউসিসির শিক্ষকদের সঙ্গে চুক্তি করে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছে বলে জানা গেছে। শেখ বোরহান উদ্দিন কলেজ থেকে আটক সাদিয়া সুলতানা শিক্ষাবার্তাকে জানান,ইউসিসির মাসুম নামের এক শিক্ষকের সঙ্গে চার লাখ টাকায় তার সাথে চুক্তি হয়। বিনিময়ে তিনি আমাকে ঢাবিতে চান্স পাইয়ে দেয়ার নিশ্চয়তা দেন।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

এসএসসি ফরম পূরণ অতিরিক্ত টাকা নিলে বিদ্যালয় ও প্রধান শিক্ষকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ- জেলা প্রশাসক

শিক্ষাবার্তা.কম,চুয়াডাঙ্গা,১৪নভেম্বর: চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক মো. দেলোয়ার হোসাইন বলেছেন ‘২০১৪ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে যেসকল বিদ্যালয় বোর্ড কর্তৃক নির্ধারিত ফি’র চেয়ে অতিরিক্ত ফি নিচ্ছে সেই সকল বিদ্যালয় পরিদর্শন করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অভিযুক্ত বিদ্যালয় ও প্রধান শিক্ষকদের তালিকা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পাঠানো হবে।’

এদিকে, সভা শেষে দুপুরে চুয়াডাঙ্গা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের একদল এসএসসি পরীক্ষার্থী ফরম ফিলাপে অতিরিক্ত ফি আদায় করছে এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিত অভিযোগে দিয়েছে। জেলা প্রশাসক মো. দেলোয়ার হোসেন তাৎক্ষণিকভাবে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল আবুল আমিনকে বিষয়টি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। অভিযোগে বলা হয়েছে, বোর্ড নির্ধারিত ফির চেয়ে বিজ্ঞান বিভাগে দু হাজার ৪৮৫ টাকা ও ব্যবসা ও মানবিক শাখার জন্য দু হাজার ৩৮৫ টাকা করে ফি আদায় করছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। যা শিক্ষার্থীদের পরিবারের পক্ষে ব্যয়ভার বহন সম্ভব নয়। সেকারণে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়েছে।

গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা উন্নয়ন ও সমন্বয় কমিটির সভায় সভাপতির বক্ত্যবে জেলা প্রশাসক মো. দেলোয়ার হোসেন এসব কথা বলেন। সভার সঞ্চালক ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মল্লিক সাঈদ মাহবুব। সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কবীরুল হাসান, জেলার সিভিল সার্জন ডা. খন্দকার মিজানুর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল আমিন, দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদুর রহমান, বিএডিসির যুগ্মপরিচালক আব্দুল মালেক, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা খন্দকার আলাউদ্দিন আল আজাদসহ সরকারি সকল দফতরের প্রধানরা।

 

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

ভারত-বাংলাদেশ আঞ্চলিক পাসপোর্ট নবায়ন না করার সিদ্ধান্ত

শিক্ষাবার্তাbd india_12088 ডেস্ক : ভারত-বাংলাদেশ আঞ্চলিক পাসপোর্ট নবায়ন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

আগামী ৩০ নভেম্বর থেকে কলকাতার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নতুন করে পাসপোর্ট নবায়ন না করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বুধবার ভারতীয় অনলাইন এনডিটিভির অনলাইন ভার্সনে এ খবর প্রকাশ করেছে।

ত্রিপুরা রাজ্যের এক মুখপাত্র জানান, ১৫ নভেম্বরের পর কোনো পাসপোর্টের আবেদন গ্রহণ করা হবে না এবং ৩০ নভেম্বরের পর কোনো নতুন পাসপোর্ট দেওয়া হবে না।

এর ফলে সীমান্তবর্তী আটটি রাজ্য তার নাগরিকদের বাংলাদেশ ভ্রমণে যে বিশেষ সুবিধা দিচ্ছিল তা বন্ধ হয়ে যাবে।

এ ব্যাপারে আগরতলার একজন উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তা জানান, বাংলাদেশিদের অনেকেই ভুয়া কাগজপত্র এবং অবৈধ উপায়ে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে প্রবেশ করে। এই অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতেই এই সিদ্ধান্ত।

কলকাতা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের (আরপিও) বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানায়, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের ২৮ তারিখ বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে এ বিষয়ক একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। চুক্তি মোতাবেক আগামী ৩০ নভেম্বর পরবর্তীতে আর কোনো নতুন পাসপোর্ট নবায়ন বা দেওয়া হবে না।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

১ ডিসেম্বর থেকে সরকারি স্কুলের ভর্তিফরম বিক্রি শুরু

ঢাকা, ১৩ নভেম্বর : সরকারি বিদ্যালয়গুলোতে ১ম শ্রেণীর ভর্তিফরম ছাড়া হবে ১ ডিসেম্বর থেকে ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত। ভর্তি ফরমের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২০০ টাকা।

আজ বুধবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা21 অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন জানান, প্রতিবছরের মত এবারও প্রথম শ্রেণীর ভর্তি লটারির মাধ্যমে সম্পন্ন করা হবে।

সোমবার কিছু বেসরকারি বিদ্যালয়ের ফরম বিক্রি শুরু হয়ে গেছে। হরতাল সত্ত্বেও নামিদামি বিদ্যালয়গুলোর ভর্তি ফরম কিনতে অভিভাবকদের উপচেপড়া ভিড় ছিল।

রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ গত রবিবার থেকে তাদের ভর্তি ফরম বিক্রি করছে। বিক্রি চলবে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত। এই বিদ্যালয়ে এ বছর প্রায় দেড় হাজার ছাত্রী ভর্তি করা হবে বলে জানিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

মতিঝিল মডেল হাই স্কুল এন্ড কলেজের ভর্তি ফরম বিক্রি সোমবার শুরু হয়েছে। চলবে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

সরকারি বই বিক্রির দায়ে শিক্ষা কর্মকর্তাসহ ২ জনকে পুলিশে সোপর্দ

পাবনা : পাবনার ফরিদপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ এক কর্মচারীকে সরকারি বই বিক্রির দায়ে স্থানীয়দের সহায়তায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পুলিশে সোর্পদ করেছেন।

তারা হলেন জেলার ফরিদপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আব্দুর রউফ ও কর্মচারী মোহাম্মদ শাহ আলম।

মঙ্গলবার বিকালে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এক কর্মচারীকে সঙ্গে নিয়ে ৩টি ভ্যানে করে বিপুল পরিমাণ বই বিক্রি করছিলেন। স্থানীয়দের মধ্যে বিষয়টি সন্দেহের সৃষ্টি হয়। এরই এক পর্যায়ে স্থানীয় কয়েকজন এগিয়ে গিয়ে তাদের এ ঘটনা সম্পর্কে জানতে চায়। কিন্তু তাদের আচরণ ও কথাবার্তা সন্দেহজনক হওয়ায় তাদেরকে আটক করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে নিয়ে যায়।

ঘটনাটি অবগত হওয়ার পর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারসহ কর্মচারীকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন।

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ডিএম আতিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তাদের পুলিশের সোপর্দ করা হয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

তবে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিক বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

৮ নভেম্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা

ঢাকা : সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার জন্য সৃষ্ট সহকারী শিক্ষক নিয়োগ ২০১৩ এর লিখিত পরীক্ষা আগামী ৮ নভেম্বর শুক্রবার সকাল ১০টায় দেশের ৬১টি জেলায় (পার্বত্য তিন জেলা ব্যতীত) একযোগে অনুষ্ঠিত হবে।
ইতোমধ্যে বৈধ প্রার্থীদের মোবাইলে Message-এর মাধ্যমে পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড করে সংগ্রহ করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বুধবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, লিখিত পরীক্ষায় “পরীক্ষার্থীগণ প্রবেশপত্র ছাড়া পরীক্ষা কেন্দ্রে কোনো বই, উত্তরপত্র, নোট বা অন্য কোনো কাগজপত্র, ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন ও ভ্যানেটি ব্যাগ, পার্স, ইলেকট্রনিক্স ঘড়ি বা যেকোনো ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস ইত্যাদি সঙ্গে রাখতে বা বহন করতে পারবেন না।” যদি কোনো পরীক্ষার্থী উল্লিখিত দ্রব্যাদি সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করেন তাকে তাৎক্ষণিক বহিষ্কার করা হবে। বৈধ প্রার্থীগণ অনলাইনের মাধ্যমে http://dpe.teletalk.com.bd এ ওয়েবসাইট হতে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করে সংগ্রহ করতে পারবেন। ওএমআর শিট পূরণের নির্দেশনাবলী এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য ওয়েবসাইট :www.dpe.gov.bd  এ পাওয়া যাবে।
মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, লক্ষ্য করা যায় যে পরীক্ষার পূর্ব মুহূর্তে একশ্রেণীর অসাধু ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান ভুয়া প্রশ্নপত্র তৈরি করে ও নানা রকমে প্রতারণা করে থাকে। এ জাতীয় অসাধু প্রতারকদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে সোপর্দ এবং এ সংক্রান্ত তথ্যাদি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্টদের অবহিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো।
Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

হরতালের পরীক্ষার ফলাফলের উপর নেতিবাচক প্রভাব। দায় কার ?

আগামী ৪ নভেম্বর থেকে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট  (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা আরম্ভ হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু এরই মধ্যে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট আগামী ৪ নভেম্বর থেকে ৬ নভেম্বর পর্যন্ত টানা ৬০ ঘন্টার হরতাল আহ্বান করেছে।
এই হরতাল পরীক্ষার ফলাফলের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। শনিবার বিবিসি বাংলার ‘প্রবাহ’ অনুষ্ঠানের এক প্রতিবেদনে এমনই তথ্য উঠে এসেছে।
হরতালের দিন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে কিনা, না হলে সেটা কোনদিন হবে সে বিষয়ে এখনো শিক্ষামন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করে কিছুই বলা হয়নি।
এবছর মোট ২১ লাখ পরীক্ষার্থী জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। আগামী ৪ নভেম্বর স্কুল শিক্ষার্থীদের বাংলা প্রথম পত্র এবং ৬ নভেম্বর বাংলা দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।
অন্যদিকে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদেরও ৪ থেকে ৬ নভেম্বর পর্যন্ত আরবী প্রথম পত্র পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।
শিক্ষার্থীদের অভিযোগ,এখন তারা কোন বিষয়ের জন্য প্রস্তুতি নিবে তা নিয়ে তারা বিড়ম্বনায় পড়েছে। সারাক্ষণ তাদের মানসিক হতাশার ভিতর দিনাতিপাত করতে হচ্ছে। এজন্য তাদের চূড়ান্ত ফলাফল খারাপ হতে পারে বলেও অভিযোগ করেছেন তারা।
বর্তমান সময়ের শিক্ষানীতি অনুযায়ী এ পরীক্ষা প্রত্যেকটি শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত ক্যারিয়ার গঠনের জন্য গরুত্বপূর্ণ। এখন হরতালের প্রভাবে যদি তাদের পরীক্ষার ফলাফল খারাপ হয়ে যায় তবেjsc pic তার প্রভাব তাকে সারাজীবন বহন করে নিয়ে বেড়াতে হবে।
যদিও সরকারদলের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে হরতালের কারণে শিক্ষার্থীদের ফলাফল খারাপ হলে তার দায়ভার বিরোধীদলকে নিতে হবে। কিন্তু একবার যদি ফলাফল খারাপ হয়ে যায় তবে তা কি কেউ পুষিয়ে দিতে পারবে?
চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার সময় হরতালের কারণে ৩৭ টি বিষয়ের পরীক্ষা পেছাতে হয়েছিল। অন্যদিকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার সময় একই কারণে মোট ৩২ টি বিষয়ে পরীক্ষা পেছাতে হয়েছিল।
চলতি বছরের এইসএসসি পরীক্ষার ফলাফল আগের বছরের তুলনায় অনেক খারাপ হয়েছে। তাদের দায়ভার কি কেউ নিয়েছে?
এখন যারা সবেমাত্র ৮ম শ্রেণীতে পড়ে,  রাজনীতি বলতে কি বোঝায় তারা কেইউ ভাল করে বলতে পারেনা। তবে তারা কেন এই রাজনীতির প্রতিহিংসার শিকার হবে। তাহলে বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতি কি তাদের ভবিষ্যৎ জীবন ধ্বংস করে দিবে?
আগামী দিনে যারা সমগ্র বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিবে তাদের জীবন যদি এখানেই ধ্বংস হয়ে যায় তবে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ কি হবে? এ বিষয়টি কেউ গুরুত্বসহকারে না দেখলেও সবার অগোচরে যে অনেকের ফুলের মত জীবন রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে শেষ হতে বসেছে।
দেশের অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির কারণে রাজনৈতিক দলগুলো একে অপরকে দায়ী করলেও আসলে যারা সাধারণ মানুষ রয়েছেন তারা কোন দলকে দায়ী করতে চাননা। তাদের একটাই দাবি দ্রুত দেশে স্থিতিশীল পরিবেশ ফিরে আসুক।

লেখক: সম্পাদক

Facebooktwitterlinkedinrssyoutubemailby feather

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter