Home » জেলার খবর

জেলার খবর

কিন্ডারগার্টেন স্কুলগুলোর শিক্ষকদের সনদ যাচাইয়ের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার সকল কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষকদের শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ যাচাইয়ের নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এস এম মোসা। গত ১৩ জানুয়ারি সোমবার উপজেলা আইনশৃংখলার সভায় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে উদ্দেশ্য করে এ নির্দেশ দেন।

আইনশৃঙ্খলা সভায় ইউএনও বলেন, নতুন বছরে সবকিছুর ঊর্ধ্বে থেকে তিনি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে উপজেলার শিক্ষা সেক্টরের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির ব্যাপারে শুদ্ধি অভিযান চালাবেন। তিনি বিশেষ করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় যত্রতত্র গড়ে উঠা কিন্ডারগার্টেন স্কুলগুলোর নানা বিষয় খতিয়ে দেখার ব্যাপারেও কঠোর ঘোষণা দেন।

আইনশৃঙ্খলা সভায় উপস্থিত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল আজিজ’কে উদ্দেশ্য করে ইউএনও বলেন, “আপনি উপজেলার সকল কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট যাচাইয়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। এ ধরনের কোন প্রতিষ্ঠানে অনিয়ম পেলে ব্যবস্থা নিন।

উপজেলা প্রশাসনপাড়ায় অনুষ্ঠিত আইনশৃঙ্খলা সভায় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি ) ফারজানা প্রিয়াঙ্কা, সরাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত ) মো. নুরুল হক প্রমুখ।


মৃত ঘোষণার কয়েক মিনিট পর নড়ে উঠল নবজাতক

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০ জানুয়ারী:

চুয়াডাঙ্গায় ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর নবজাতকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এ সময় নবজাতকের মা শেষবারের মতো ‘মৃত’ নবজাতককে কোলে নেওয়ার ইচ্ছার কথা জানান। মায়ের কোলে উঠেই নড়ে ওঠে শিশুটি।

গতকাল সোমবার সকালে জন্ম নেওয়া নবজাতক বর্তমানে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আসাদুর রহমান মালিকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার হাজরাহাটি গ্রামের আবদুল হালিম স্ত্রী জিনিয়া খাতুনকে নিয়মিত জেলা শহরের উপশম নার্সিং হোমে চেকআপ করাতেন।

জিনিয়া খাতুন বলেন, ‘রোববার বিকেলে প্রসববেদনা উঠলে পরিবারের সদস্যরা তাঁকে উপশম নার্সিং হোমে ভর্তি করেন। ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ প্রথমে সিজারের কথা বললেও সোমবার ভোরে স্বাভাবিক প্রসবের মাধ্যমে কন্যাসন্তান ভূমিষ্ঠ হয়। কিন্তু জন্মের পর ক্লিনিকের আয়া ও চিকিৎসকেরা মৃত কন্যাশিশু হয়েছে বলে জানান।

জিনিয়ার মা কুসুম বেগম বলেন, ‘আমার মেয়ে তাঁর কন্যাকে শেষবারের মতো দেখতে চায়। এরপর শিশুকে কোলে নিতেই নড়ে ওঠে শিশুটি। এ সময় আমাদের চিৎকারে শিশুকে অক্সিজেন দিয়ে চিকিৎসা শুরু করা হয়। পরে নার্সিং হোম থেকে শিশুটিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করতে বলে।’

শিশুর বাবা আবদুল হালিম জানান, ‘ও সাত মাসে জন্ম নিয়েছে। আমি ওর নাম রেখেছি জান্নাতুল। সে এখন ভালোই আছে। হাত-পা নেড়ে খেলছে। পিটপিট করে তাকাচ্ছে।’

সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুর রহমান মালিক জানান, ‘সময়ের আগেই শিশুটি জন্ম নেওয়ায় তাকে ইনকিউবেটরের মধ্যে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আপাতত সে সুস্থ আছে। তবে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না।’

যোগাযোগ করা হলে নার্সিং হোমের চিকিৎসক জিন্নাতুল আরা বলেন, ‘শিশুটির যখন জন্ম হয়, তখন একেবারেই শ্বাস-প্রশ্বাস চলছিল না। নাভির কাছে কেবল ঢিপঢিপ শব্দ ছিল। পরে চার ঘণ্টা অক্সিজেন দেওয়ার পর কিছুটা সুস্থ হলে আমরা সোমবার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দিই।’

পশ্চিমাঞ্চলের ২৮ ট্রেনের সময়সূচি পরিবর্তন

স্টাফ রিপোর্টার: নতুন বছরের জন্য পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের বিভিন্ন গন্তব্যে চলাচলকারী ট্রেনের সময়সূচিতে পরিবর্তন আসছে। পশ্চিমাঞ্চল থেকে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে চলাচলকারী ২৮টি ট্রেনের সময়সূচিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এছাড়া ১৬টি ট্রেনের বিরতির দিনও পরিবর্তিত হচ্ছে যা আগামী ১০ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হবে বলে রাজশাহী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের ডেপুটি চিফ সুপারিন্টেনডেন্ট ফুয়াদ হোসেন আনন্দ জানিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, নতুন সময়সূচি অনুযায়ী ১০ জানুয়ারি থেকে ঢাকা-পঞ্চগড়-ঢাকা রুটে চলাচলকারী একতা এক্সপ্রেস ও দ্রুতযান এক্সপ্রেস বন্ধের দিন প্রত্যাহার করা হয়েছে। এখন থেকে সপ্তাহের প্রতিদিন এই দুটি ট্রেন ঢাকা-পঞ্চগড়-ঢাকার মধ্যে চলাচল করবে। নীলফামারীর চিলাহাটি থেকে খুলনার মধ্যে চলাচলরত আন্ত:নগর সীমান্ত এক্সপ্রেস সোমবার ও সান্তাহার-দিনাজপুর লাইনে চলাচলকারী দোলনচাঁপা এক্সপ্রেস রোববার বন্ধ থাকবে। রাজশাহী-খুলনা-রাজশাহীর মধ্যে চলাচলকারী আন্তঃনগর কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস শনিবারের পরিবর্তে মঙ্গলবার বন্ধ থাকবে। রাজশাহী-ঢাকার মধ্যে চলাচলরত আন্তঃনগর আপ ধূমকেতু এক্সপ্রেস শুক্রবারের পরিবর্তে বুধবার এবং ঢাকা থেকে রাজশাহীমুখী ডাউন ধুমকেতু এক্সপ্রেস শনিবারের পরিবর্তে বৃহস্পতিবার বন্ধ থাকবে।
এদিকে পশ্চিমাঞ্চলের আটটি ট্রেনের জন্য নতুন বন্ধের দিন হল- রাজশাহী-পাবনার মধ্যে চলাচলকারী পাবনা এক্সপ্রেস সোমবার, রাজশাহী থেকে ঢাকামুখী এবং ঢাকা থেকে রাজশাহীমুখী বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেস শুক্রবার, ঢাকা-বেনাপোল এক্সপ্রেস বুধবার, কুড়িগ্রাম-ঢাকার মধ্যে চলাচলকারী আপ কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস বুধবার, রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ লাইনের শাটল ট্রেন বুধবার। এছাড়া পাবনার ঈশ্বরদী-ঢালারচর চলাচলকারী ঢালারচর শাটল ট্রেন সোমবার এবং টাঙ্গাইল-ঢাকায় চলাচলরত টাঙ্গাইল কমিউটার ট্রেন শুক্রবার, রাজশাহী থেকে গোবরা রুটে চলাচলরত আপ টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস সোমবার ও গোবরা থেকে রাজশাহী রুটে চলাচলকারী টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস মঙ্গলবার বন্ধ থাকবে। অন্যদিকে পশ্চিমাঞ্চল থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে চলাচলকারী ২৮টি ট্রেনের নতুন সময়সূচিও ঘোষণা করা হয়েছে।
কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস প্রতিদিন দুপুর সোয়া ২টায় রাজশাহী থেকে ছেড়ে খুলনায় পৌঁছুবে রাত ৮টা ১০ মিনিটে। খুলনা থেকে প্রতিদিন ভোর সোয়া ৬টায় ছেড়ে রাজশাহীতে পৌঁছুবে দুপুর ১২টায়। একইভাবে রাজশাহী থেকে খুলনাগামী সাগরদাঁড়ি আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি প্রতিদিন ভোর ৬টা ৪০ মিনিটে রাজশাহী থেকে ছেড়ে খুলনায় পৌঁছুবে দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে। খুলনা থেকে প্রতিদিন বিকেল ৪টায় ছেড়ে সাগরদাঁড়ি রাজশাহীতে পৌঁছুবে রাত ১০টায়। এদিকে আন্তঃনগর ধূমকেতু আপ এক্সপ্রেস ট্রেনটি প্রতিদিন রাত ১১টা ২০মিনিটে রাজশাহী থেকে ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছুবে ভোর ৪টা ৪৫ মিনিটে। ডাউন লাইনে ঢাকা থেকে প্রতিদিন ভোর ৬টায় ছেড়ে রাজশাহীতে পৌঁছুবে দুপুর ১১টা ৪০ মিনিটে। বিরতিহীন আন্তঃনগর বনলতা এক্সপ্রেস প্রতিদিন ভোর ৬টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছুবে বেলা সাড়ে ১১টায়। ঢাকা থেকে প্রতিদিন দুপুর দেড়টায় ছেড়ে রাজশাহী হয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌঁছুবে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়। আন্তঃনগর পদ্মা এক্সপ্রেস আপ প্রতিদিন বিকেল ৪টায় রাজশাহী থেকে ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছুবে রাত ১১টা ৪০ মিনিটে। ঢাকা থেকে প্রতিদিন রাত ১১টায় ছেড়ে রাজশাহী পৌঁছুবে ভোর সাড়ে ৪টায়। আন্তঃনগর সিল্ক সিটি এক্সপ্রেস প্রতিদিন সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে রাজশাহী থেকে ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছুবে দুপুর দেড়টায়। ঢাকা থেকে প্রতিদিন বিকেল ৩টায় ছেড়ে রাজশাহী পৌঁছুবে রাত ৮টা ৩৫ মিনিটে।

ডঃ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ গোল্ডেন এওয়ার্ড পেলেন দর্শনার লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুল

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি,২৯ ডিসেম্বর: চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনার প্রানকেন্দ্রে অবস্থিত লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুুল কে শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন কর্তৃক ‘জ্ঞানতাপস ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড-২০১৯’ অর্জন করেছেন। বিদ্যালয়ের পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিকাশ কুমার দ্ত্ত। প্রধান শিক্ষক বিকাশ কুমার দত্ত বলেন লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুল প্রতিষ্ঠা হবার পর থেকে দর্শনার শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করছে। ২০১৮ সালে আমাদের প্রতিষ্ঠানটি দামুড়হুদা উপজেলায় সর্বোচ্চ ২৮ টি এ+ সহ ১৪ জন বৃত্তি পেয়েছে। ২০১৯ সালেও এ ধারাবাহিকাতা অক্ষুন্ন রাখবে বলে আমরা আশাবাদী।
বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক বলেন, ২০২০ সালকে আমরা হ্যান্ড রাইটিং দিবস ঘোষনা করেছি। সকল শিক্ষার্থী যেন হাতের লেখা সুন্দর করতে পারে সে লক্ষে কাজ করছি।
ঢাকা সেগুনবাগিচার কেন্দ্রীয় কচি-কাাঁচার মেলা মিলনায়তনে গত শনিবার রাতে “আদর্শ জাতি গঠনে শিক্ষাবিদ ও সুশীল সমাজের ভূমিকা” শীষক আলোচনা সভা, গুণীজন সম্মাননা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা আলহাজ্ব মো: আকবর হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্টের বিচারপতি শিকদার মকবুল হক। প্রধান আলোচক ছিলেন, সাবেক মন্ত্রী ও চেয়ারম্যান বিএলডিপি এম. নাজিম উদ্দিন আল আজাদ, উদ্বোধক ছিলেন আজকের সূর্যদয়’র সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার মোজাম্মেল হক (গেদু চাচা), বিশেষ অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ গণ আজাদীলীগের মহাসচিব মুহাম্মদ আতা উল্লাহ খান, বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান শাহ আলম চুন্নু প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব এমএইচ আরমান চৌধুরী।


দুর্নীতিবাজ শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে বদলির দাবিতে মানববন্ধন

মেহেরপুর প্রতিনিধি: মেহেরপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মিজানুজ্জামানকে দুর্নীতিবাজ ও অনিয়মকারী অভিযোগ তুলে বদলির দাবিতে মানববন্ধন করেছে ছাত্রলীগ। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে মেহেরপুর জেলা প্রেসক্লাবের সামনে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে নেতৃত্ব দেন সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুলকার নাঈম বায়েজিদ।

মানববন্ধন চালাকালীন বক্তব্য দেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মতিউর রহমান মতি, জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি দুলাল মাহমুদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি রিংকু মাহমুদ, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সুইট মাহমুদ, শহর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সহসাংগঠনিক আবুল কালাম আজাদ বকুল, জেলা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরী সভাপতি সোহেল রানা প্রমুখ। এ সময় মানবন্ধনে ছাত্রলীগ নেতা আশিক, আলিফ, জনি, মনি, হিরা, আরিফুল ইসলাম, তানমুন ইসলামসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তরা বলেন, একজন চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ শিক্ষককে মেহেরপুরে থেকে তাকে অন্যত্র দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। শিক্ষক মিজানুজ্জামানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতি অনিয়মে সেøাগান সম্বলিত ফেস্টুন বহন করছিলো।
উল্লেখ্য, ঝিনাইদহ সরকারি বালক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুজ্জামানকে দুর্নীতির দায়ে ঝিনাইদহ থেকে মেহেরপুরে বদলি করা হয়। ঘুষ নিয়ে নিয়ম বহির্ভূত ছাত্র ভর্তির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে মেহেরপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।


চুয়াডাঙ্গায় অটিস্টিক স্কুলে মিড ডে মিল উদ্বোধন

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন বলেন, অটিজম আক্রান্ত শিশুদের প্রয়োজন বাড়তি যতœ আর সহযোগিতা। পরিবারের সদস্য থেকে শুরু করে সমাজের প্রতিটি মানুষ ও রাষ্ট্রের দায়িত্ব তাদের সহযোগিতা করা।

সঠিক পরিচর্যা পেলে এই শিশুরা সমাজের বোঝা নয়, জাতীয় সম্পদে পরিণত হবে। একসময় অটিজম সমস্যাকে তেমন গুরুত্বের সাথে দেখা হতো না। কিন্তু বর্তমান সরকার এ বিষয়টিকে অনেক গুরুত্ব দিচ্ছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর চুয়াডাঙ্গা শহরের মুক্তিপাড়ায় বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী অটিস্টিক স্কুলে (প্রকাশ) মিড ডে মিল উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

ছেলুন জোয়ার্দ্দার এমপি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা হোসেন অটিজম বিষয়ে সচেতনতা তৈরিতে দেশ-বিদেশে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তার সুযোগ্য নেতৃত্বে অটিজম সম্পর্কে সচেতনতা আন্দোলন অন্য উচ্চতা পেয়েছে।

এক সময় প্রতিবন্ধীদের বোঝা মনে করা হতো। কিন্তু এখন এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, প্রয়োজনীয় সহযোগিতা পেলে প্রতিবন্ধীরাও সমাজে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে পারে। সবচেয়ে বড় কথা, একটু সুযোগ করে দিলেই তারা সমাজের মূল স্রোতের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে। সঠিক পরিচর্যা পেলে অটিস্টিক শিশুরাও প্রতিভার বিকাশ ঘটাতে সক্ষম।

চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ইয়াহ্ ইয়া খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদন সার্কেল) মো. কলিমুল্লাহ, চুয়াডাঙ্গা সমাজকল্যাণ পরিষদের সহসভাপতি মুন্সি আলমগীর হান্নান, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার উজ্জ্বল কুমার কু-ু, চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন’র প্রতিনিধি ডা. আওলিয়ার রহমান প্রমুখ।


মাথাভাঙ্গা

সন্তানকে সরকারি প্রাথমিকে ভর্তি করালেন ইউএনও

ফেনী প্রতিনিধি:
ফেনীর ছাগলনাইয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া তাহের তার একমাত্র পুত্র সন্তান শাদাব হাসানকে (৪) স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করেছেন। বিষয়টি উপজেলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে আলোগন সৃষ্টি করেছে। গত সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে ইউএনও তার পুত্র শাদাতকে ছাগলনাইয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিতে ভর্তি করান।



সন্তানকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির কারণ সম্পর্কে ছাগলনাইয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া তাহের বলেন, আমার ছেলের বয়স অনুযায়ী প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিতে ভর্তি করা উচিত। আমি ছাগলনাইয়ার কয়েকটি কিন্ডার গার্টেন স্কুল পরিদর্শন করে দেখেছি প্রাক-প্রাথমিকের শিশুদের জন্য যে ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন তা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছাড়া অন্য কোথাও নেই।

তিনি বলেন, ছাগলনাইয়া মডেল প্রাইমারি স্কুলে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির শিশুদের শ্রেণি কক্ষসহ প্রয়োজনীয় সকল আসবাবপত্র রয়েছে। তাছাড়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনসহ সকল শিক্ষক যোগ্যতা সম্পন্ন।

ইউএনও বলেন, আমি আশা করব সকল অভিভাবক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাদের সন্তানদের পড়াবেন। সরকারি স্কুলে এখন শিক্ষা ব্যবস্থা পূর্বের তুলনায় অনেক ভালো বলেও দাবি করেন তিনি।

৩য় শ্রেণির ছাত্রীকে ডেকে চুমু খেলেন প্রধান শিক্ষকের

ডেস্ক

তৃতীয় শ্রেণীর এক ছাত্রীকে অফিস রুমে ডেকে চুমু দেয়ার অভিযোগ উঠেছে আবু সালেহ মোহাম্মদ ইছার নামে এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। সোমবার বেলা ১১টার এই ঘটনায় স্কুল এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।



ইছার বালিয়াতলী ইউনিয়নের কাঙ্কুনিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

জানা গেছে, এ ঘটনায় প্রথমে ওই ছাত্রী তার এক বোনকে বিষয়টি বলে। বোন শিশুর বাবা মোস্তফা হাওলাদারকে খবর দেয়। স্কুলে পৌঁছে শিশুর কাছ থেকে সব শুনে বিষয়টি নিয়ে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ এনামুল হককে বলেন। তিনি জানান, প্রধান শিক্ষককে ডেকে তিনি জিজ্ঞেস করলে পা ধরে ক্ষমা চান। এমনকি শিশুর বাবা শ্রমজীবী মোস্তফা হাওলাদারের পা জড়িয়ে ধরে ক্ষমা চান প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ ইছা।

মোস্তফা হাওলাদার বলেন, ‘তারাও (শিক্ষকরা) মোগো সন্তানের বাপের মতো। ও (মেয়ে) দুই দিন স্কুলে যায়নি। একারণে রুমে একা ডাইক্কা মুখে চুমা দেয়’। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আবু সালেহ মোহাম্মদ ইছাকে বারবার মোবাইল করলে তিনি এসব অস্বীকার করে বলেন, তাকে ওখান থেকে অন্যত্র বদলি করার জন্য এটি ষড়যন্ত্র। তবে কারা ষড়যন্ত্র করছে তা বলেননি। আর পা ধরে মাপ চাওয়ার কথাও অস্বীকার করেন। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আবুল বাশার জানান, তিনি তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) অনুপ দাশ জানান, শিক্ষা অফিসারকে তদন্ত করে জরুরী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলবেন। মাত্র মাসখানেক আগে যৌন হয়রানির অভিযোগে কলাপাড়ার একজন প্রধান শিক্ষককে চাকরি থেকে বরখাস্ত করার পরে ফের এমন ন্যক্কারজনক অভিযোগ ওঠায় অভিভাবকরা ক্ষুব্ধ হয়ে আছেন।

২৬৫ শিক্ষার্থীর জন্য শিক্ষক শূণ্য

অনলাইন ডেস্ক,১০ সেপ্টেম্বর:

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার মেকুরের আলগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রায় ৩ মাস ধরে স্কুল বন্ধ রয়েছে। একজন শিক্ষককে প্রধান শিক্ষকের চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত হলেও মাতৃত্বকালীন ছুটিতে থাকায় জুলাই মাস থেকে স্কুলে আসেন না তিনি। এমনটাই দেখা গেছে এই স্কুলে। স্কুলের ২৬৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য নিয়োজিত একমাত্র শিক্ষক ছুটিতে থাকায় ৩ মাস ধরে পাঠদান বন্ধ রয়েছে স্কুলটিতে। স্কুলের এমন বেহাল দশায় হতবাক হয়েছেন শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা।


শনিবার সকালেদেখা যায়, স্কুলের সব কক্ষ বন্ধ। স্কুলের মাঝখানে হেলে যাওয়া বাঁশে খুঁটিতে জাতীয় পতাকা উড়ছে। স্কুলের পাশেই খেলছে ২০ থেকে ২৫ জন শিশু। কোথায় পড়ে এমন প্রশ্নের জবাবে তারা জানায়, আমরা এই স্কুলে (পাশের মেকুরের আলগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়) পড়ি। আজ কেন স্কুলে যাওনি এমন প্রশ্নের উত্তরে শিক্ষার্থীরা জানান, স্যার নাই তাই।

শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে যায় স্কুল প্রাঙ্গণে প্রবেশ করলে এক ব্যক্তি ছুটে এসে পরিচয় জানতে চান। তার নাম নুরে আলম সিদ্দিকী রতন ও তিনি স্কুলের প্যারা শিক্ষক বলা জানান ওই ব্যক্তি। পরে তড়িঘড়ি করে শিক্ষার্থীদের শ্রেণি কক্ষে নিয়ে বাংলা বিষয়ে পাঠদান শুরু করেন প্যারা শিক্ষক রতন।

পরে জানা যায়, ওই প্রতিষ্ঠানের চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাদিকা বেগমের স্বামী প্যারা শিক্ষক রতন। তবে স্কুলটির বিষয়ে কোন তথ্য দিতে পারেননি তিনি।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সুত্রে জানায়, ওই স্কুলের শিক্ষক সাদিকা বেগম মাতৃত্বকালীন ছুটিতে যাওয়ার আগে কামাল খামার তেতুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মো. ইকরামুল হক নামের একজন শিক্ষককে ডেপুটেশন দেয়া হয়েছিল ওই বিদ্যালয়ে। কিন্তু বিভিন্ন দপ্তরে তদবির করে ডেপুটেশন বন্ধ করেছেন তিনি। পরে আবারো কুনারচর শিশু শিক্ষা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কর্মরত এক মহিলা শিক্ষিকা ওই স্কুলে ডেপুটেশন দেয়া হয়। কিন্তু একই ভাবে স্কুলে না গিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে তদবির করে ডেপুটেশন বন্ধ করেন এ শিক্ষিকাও।

এদিকে প্রধান শিক্ষক সাদিকা বেগম ছুটিতে থাকলেও কোন শিক্ষক স্কুলে আসেনি। শিক্ষার্থীরা জানায়, যে যার মত স্কুলে এসে শিক্ষক না দেখে বাড়িতে চলে যায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক সাদিকা বেগম বলেন, আমি অসুস্থ। চলতি বছরের জুলাই থেকে মাতৃত্বকালীন ছুটি ভোগ করছি। তাই স্কুলের খোঁজ খবর রাখার আমার বিষয় না। তবে, আমার স্বামীকে প্যারা শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে শিক্ষা অফিস। অনেক শিক্ষার্থী অনুপস্থিত থাকায় আগেভাগেই স্কুল ছুটি দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে স্কুলটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নরুজ্জামান জানান, প্রত্যন্ত চরাঞ্চলে কোন শিক্ষক থাকতে চান না। তাই পাঠদানে চরম অবহেলিত হচ্ছে। একজন শিক্ষক দিয়ে প্রতিষ্ঠান চালানো সম্ভব নয়। যে এক শিক্ষক ছিল তা আবার সরকারি ছুটি নিয়েছে।

উলিপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. মোজাম্মেল শাহ্ বলেন, ‘স্কুল বন্ধ রাখার প্রশ্নেই ওঠে না। আর অফিস থেকে দুইজন শিক্ষক ডেপুটেশন দিয়েছি। কিন্তু তারা ওই চরাঞ্চলের স্কুলে যেতে চায় না। তাই একজন প্যারা শিক্ষক দিয়েছি। যদি স্কুল বন্ধ থাকে তাহলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ বিষয়ে উলিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল কাদের জানান, স্কুল বন্ধ থাকার বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো। অভিযোগের সত্যতা পেলে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমান সাময়িক বরখাস্ত

মোস্তাফিজুর রহমান(মোস্তফা)লালমনিরহাট প্রতিনিধি,২৯ আগষ্ট :-লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমানকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

বুধবার বিকালে ওই বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি’র সভায় প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমানের বিরুদ্ধে সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ উঠলে তাকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়। সভার রেজুলেশনে ১০ জন সদস্যের মধ্যে সভাপতিসহ ৭ জন সদস্য স্বাক্ষর করেছেন। বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি’র সভাপতি অধ্যক্ষ আবু বক্কর সিদ্দিক শ্যামল জানান, বুধবার বিকালে সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে পরিচালনা কমিটির সভা চলছিলোএ সময় সহকারী শিক্ষক আব্দুল হাকিম নামে এক প্রার্থী দাবী করেন, প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমান তাকে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কথা বলে তার কাছ থেকে ৮ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা নিয়েছেন।সভায় উপস্থিত সদস্যরা প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমানের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো উওর দিতে পারেনি।

ফলে সভায় উপস্থিত সদস্যরা ওই প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করে পুরো বিষয়টি তদন্তের দাবী জানান। পরে সকলের সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রধান শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।হাতীবান্ধা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কর্ন্দপ নারায়ন রায় জানান, আজ সহকারী শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে পরিচালনা কমিটি’র সভা ছিলো। কিন্তু প্রধান শিক্ষককে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে এমন তথ্য তিনি এখনো পাননি। তবে ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে ঝামেলার কথা তিনি শিকার করেন

লালমনিরহাট ফজলুল হক দাখিল মাদ্রাসা’র নিয়োগ পরিক্ষার ভুয়া প্রবেশপত্র প্রদান

লালমনিরহাট প্রতিনিধি :- লালমনিরহাট সদর উপজেলায় বড়বাড়ী ইউনিয়নের বড়বাড়ী ফজলুল হক দাখিল মাদ্রাসা’র সুপারিনটেনডেন্ট পদের নিয়োগ পরিক্ষার ভুয়া প্রবেশ পত্র প্রদান করা হয়েছে বলে দাবি করেছে প্রার্থী। নিয়োগ পরিক্ষায় ব্যপক অনিয়মের আসংখ্যা করছেন প্রার্থীরা ।




জানা যায়, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি দৈনিক ইনকিলাব ও দৈনিক দাবনল পত্রিকায় সুপারিনটেনডেন্ট পদে প্রার্থীর জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এর পেক্ষিতে অনেক প্রার্থী আবদন করেন। আবেদনকৃত প্রার্থীরকে পরিক্ষার ২ দিন আগে একটি ভুয়া প্রবেশ পত্র প্রেরণ করেছেন প্রতিষ্ঠান কতৃপক্ষ। প্রবেশ পত্রটিতে রয়েছে অসংখ্য ভুল। এই প্রবেশ পত্রে উল্লেখ্য করা হয়েছে, ‘সুপারিটেনডেন্ট’ পদে পরিক্ষায় অংশগ্রহন করার জন্য । প্রকৃতপক্ষে ‘সুপারিটেনডেন্ট’ পদে কোন পদ দাখিল মাদ্রাসা বোর্ড নাই। রয়েছে সুপারিনটেনডেন্ট পদ। অন্যদিকে প্রার্থীর নামের পরিবর্তনে প্রতিষ্ঠানের সাভাপতির নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে নাম বলেতে অনইচ্ছুক প্রার্থী জানিয়েছেন, শুধুমাত্র মানুষ দেখানোর জন্য পরিক্ষা নিবেন মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। সেইসাথে নিয়োগ পরিক্ষা যদি বাতিল না করা হয় তাহলে ব্যপক অনিয়ম হবে বলে তিনি মনে করেন।
মাদ্রাসা’র ভারপ্রাপ্ত সুপার মুঠো ফোনে জানান, আমি ঢাকায় আছি, এই বিষয়ে কিছুই জানিনা। আপনি কিছু জানতে চাইলে সভাপতিকে ফোন দেন।
এ বিষয়ে বড়বাড়ী ফজলুল হক দাখিল মাদ্রাসা’র সভাপতি রেজাউল করিম স্বপনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনি আগামিকাল মাদরাসায় আসেন সেই সময় স্বাক্ষাতে কথা হবে।।

প্রেমিকের ঘরের জানালা ভেঙে ঘরে ঢুকে বিয়ের দাবি দশম শ্রেণী ছাত্রীর

লালমনিরহাট প্রতিনিধি,২৩ আগষ্ট :-লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধায় এক কলেজ ছাত্রের বাড়িতে জানালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে বিয়ের দাবি করছেন দশম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী । ওই ছাত্রী গত ৫ দিন ধরে ওই বাড়ীতে অবস্থান করছেন।
গত ১৮ আগস্ট সোমবার সন্ধ্যায় হাতীবান্ধা উপজেলার সানিয়াজান ইউনিয়নের নিজ শেখ সুন্দর গ্রামের এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনার পর থেকে ওই স্কুল ছাত্রী ওই বাড়িতে অবস্থান করছেন।



দশম শ্রেণীর ওই স্কুল ছাত্রী নার্গিস আক্তার জানান, ৮ম শ্রেণী পড়া অবস্থা একই গ্রামের বদিউজ্জামানের কলেজ পড়ুয়া ছেলে সাখাওয়াত হোসেন সাথে আমার ৩ বছরের প্রেম চলছে । এই অবস্থা সে নিজে আমাকে বিয়ে করবেন বলে আমার ৩ টি বিয়ে ভেঙ্গে দেন। তাই আমি আজ তার বাড়িতে উঠেছি। আমাকে বিয়ে করতেই হবে । ওই ছাত্রী আরও বলেন, বাড়ি কেউ না থাকায় আমি জানালা দিয়ে ঘরে প্রবেশ করছি।
এলাকাবাসী জানান, উপজেলার সানিয়াজান ইউনিয়নের নিজ শেখ সুন্দর গ্রামের মমতাজ আলীর মেয়ে ও বদিউজ্জামানের কলেজ পড়ুয়া ছেলে সাখাওয়াদ হোসেন সাথে প্রেম হয়েছে এটা আমরা জানিনা। ওই মেয়ে তার ঘরে উঠলে আমরা জানতে পারি। ওই দিন সন্ধ্যায় মেয়ে উঠার পর এলাকার কিছু যুবক বদিউজ্জামানের বাড়িতে ভাংচুর চালায়। এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যার আ: গফুর ও ইউপি সদস্য সরেজমিনে এসে দেখে গেছেন।
সাখাওয়াদ হোসেনের বড়ভাই ছানোয়ার বলেন, ওই দিন আমার দাদী মারা গেলে আমরা সবাই ঘরের দরজায় তালা দিয়ে সেখানে যাই । এই সুযোগে একটি মহল পরিকল্পিতভাবে ওই দশম শ্রেণীর মেয়ে নার্গিসকে ঘরের জানালা ভেঙ্গে প্রবেশ করিয়ে দেন । এর পার আমরা তাকে জিজ্ঞাসা করি তুমি কেন আসছো আমাদের বাড়িতে এমন কথার পর এলাকার কিছু যুবক ও মেয়ের পরিবারের লোকজন আমার বাড়িতে হামলা করে ভাংচুর চালান। এ সময় ঘরের প্রায় ৫ লক্ষা টাকা তারা লুট করে নিয়ে যান।মেয়ের খালু সাখওয়াদ জানান, আমরা তার বাড়িতে কোন হামলা করিনি তার এটা নিজেই করেছেন।এ বিষয়ে সানিয়াজান চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর বলেন, আমরা ঘটনা স্থানে গিয়েছি সমাধানে চেষ্টা করছি কোন পক্ষেই এগিয়ে না আসায় ওই অবস্থা বিষয়টি রয়েছেন।

হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্তকর্মকর্তা ওসি ওমর ফারুক বলেন, এ বিষয়ে ওই ছাত্রীর বাবা থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে

বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা হলেন রুহিয়ার কৃতিসন্তান ডাঃ হান্নান

গৌতম চন্দ্র বর্মন,ঠাকুরগাঁও ঃ
দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি শাখার ফার্ম ম্যানেজার হিসেবে যোগদান করেছেন রুহিয়ার কৃতি সন্তান ডাঃ হান্নান আলী (জুয়েল) ।



তিনি ১১ জুলাই ২০১৯ খ্রিঃ তারিখে উক্ত পদে যোগদান করেন। ডাঃ মোঃ হান্নান আলী কৃতিত্বের সাথে ২০০৭ ইং সালে রুহিয়া উচ্চ বিদ্যালয় হতে বিজ্ঞান বিভাগে এস.এস.সি, ২০১০ ইং সালে ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজ হতে বিজ্ঞান বিভাগে এইচ.এস.সি পাশের পর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভেটেরিনারি শাখায় স্নাতক সম্মান শ্রেণীতে ভর্তি হন। এর পর ঐ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০১৫ ইং সালে ডি.ভি.এম এ স্নাতক সম্মান ও একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০১৮ ইং সালে ফামার্কোলজি বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন।
ডাঃ মোঃ হান্নান আলী রুহিয়া থানার ১ নং রুহিয়া ইউনিয়নের পূর্ব কুজিশহর গ্রামের মরহুম মোশারফ হোসেন মাষ্টারের কনিষ্ঠ পুত্র । তার যোগদানের বিষয়টি নিশ্চিত করেন তার বড় ভাই রুহিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ও রুহিয়া ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক বদরুদ্দোজা। তিনি তার ছোট ভাইয়ের জন্য সকলের নিকট দোয়া চেয়েছেন।

চুয়াডাঙ্গা শিশু ধর্ষন মামলার প্রধান আসামী আব্দুল মালেক যশোর থেকে গ্রেপ্তার

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি(১৩.০৭.১৯):
চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গোপিনাথপুর গ্রামে ৬বছরের এক শিশুকে চকলেট দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষনের মামলার প্রধান আসামী আব্দুল মালেককে (৫০) যশোরের ঝিকরগাছা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দিনগত রাত দেড়টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।


গ্রেপ্তারকৃত আব্দুল মালেক ঝিনাইদহ জেলার হরিনাকুন্ডু উপজেলার সোনাতনপুর গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

শনিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কানাই লাল সরকার জানান, ধর্ষনের পর থেকেই পলাতক ছিলো প্রধান অভিযুক্ত আব্দুল মালেক। শুক্রবার দিনগত রাতে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে নিশ্চিত হওয়া যায় সে যশোরের এক আত্মীয় বাড়িতে অবস্থান করছে। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশের একটি দল যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার নোয়ালি গ্রামে অভিযান চালায়। অভিযানের এক পর্যায়ে তাকে ওই গ্রামের একটি বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত বুধবার দুপুরে গোপিনাথপুরের এক ভ্যান চালকের ৬বছরের শিশুকন্যাকে চকলেট দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তার জনশূন্য বাড়িতে নিয়ে ধর্ষন করে প্রতিবেশী আব্দুল মালেক। এরপর শিশুটি বাড়ি ফিরে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে বৃহস্পতিবার রাতে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওইদিনই ধর্ষিতার মা বাদি হয়ে আব্দুল মালেকের নাম উল্লেখ করে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেন।

জীবননগরের ঐতিহ্যবাহী আন্দুলবাড়ীয়া বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম লাভলু ইন্তেকালঃ বিভিন্ন মহলে শোক।

জাহিদুল ইসলাম মামুন, আন্দুলবাড়ীয়া,প্রতিবেদক: 

চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী আন্দুলবাড়ীয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক, কাশীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাবেক বিএসসি শিক্ষক,আন্দুলবাড়ীয়া সাহিত্য পরিষদের সাবেক সভাপতি, অত্যান্ত নম্র,ভদ্র,সদাহাস্যজ্বল,কবি,নাট্যকার,সুরকার,গীতিকার, চিএ শিল্পী, অএ জেলার সুপরিচিত মূখ ও সবার প্রিয় শিক্ষক, এবং তিনি ছিলেন বহুগুণে গুণানীত, শ্রদ্ধীয় শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম ওরফে লাভলু ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহির রাজিউন)


পারিবারিক সূএে জানাগেছে, তিনি গত রোববার দিনগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে হৃদ রোগে আক্রান্ত হয়ে কাশীপুর গ্রামের ভাড়া বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মরহুমের মৃত্যুর সংবাদ দ্রুত এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গোটা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। তাকে শেষ বারের মতো এক নজর দেখার জন্য হাজার -হাজার সূধী,শিক্ষক,সাংবাদিক, ছাএ-ছাএী,অভিভাবক, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তার বাড়ীতে ভীড় জমায়। Read More »

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter