ক্যাম্পাস

জবি উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান-এর দ্বিতীয় মেয়াদে নিয়োগ লাভ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যপাক ড. মীজানুর রহমান ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি পদে দ্বিতীয় মেয়াদে নিয়োগ পেয়েছেন।
রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর রোববার তাকে দ্বিতীয় মেয়াদে আরো ৪ বছরের জন্য ভিসি পদে নিয়োগদান করেন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. ওহিদুজ্জামান এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, সহকারী সচিব (স.বি-১) আব্দুস সাত্তার মিয়া স্বাক্ষরিত নিয়োগের প্রজ্ঞাপন হাতে পেয়েছি। মহামান্য রাষ্ট্রপতি তাকে দ্বিতীয় মেয়াদে নিয়োগদান করেছেন।

দ্বিতীয় মেয়াদে নিয়োগের পেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন যে দায়িত্ব দিয়েছেন তা নিষ্ঠার সাথে পালন করতে চেষ্টা করেছি। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক কাজ করার সুযোগ আছে। প্রথম মেয়াদে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীক সংস্কৃতি বলয় তৈরী করার কাজে হাত দিয়েছিলাম। তা সফলভাবে করতে পেরেছি। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নিতে কাজ করবেন বলে জানান তিনি।
উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২০ মার্চ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হিসেবে যোগদান করেন তিনি।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সহপাঠীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ৪৩তম আবর্তনের এক ছাত্রের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ তুলেছেন একই বিভাগের এক ছাত্রী।

১৬ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় উপাচার্যের কার্যালয়ে গিয়ে উপাচার্যের বরাবর লিখিত অভিযোগপত্র জমা দেন নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ভুক্তভোগী ওই নারী শিক্ষার্থী।

আল-বেরুনী হলের আবাসিক হলের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আজগর হোসেন রাব্বির বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তোলা হয়েছে। তিনি যৌন নিপীড়নের এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

জানা যায়, গত বছরের ১৫ জুলাই নাটকের মহড়ার সময় বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনের ল্যাব কক্ষে প্রথম যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছিলেন তিনি। তখন ঘটনা প্রকাশ না করতে তাকে ভয়ভীতি দেখানো হয়েছিল।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক তপন কুমার সাহা বলেন, ‘ওই ছাত্রীর অভিযোগের একটি অনুলিপি পেয়েছি। তবে অভিযোগপত্রটি উপাচার্য বরাবর লিখিত বিধায় উপাচার্য মহোদয় যেভাবে ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেবেন, সেভাবেই পরবর্তী প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।’

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

রাবি শিক্ষার্থীকে মারধর : দ্বিতীয় দিনের মতো মানববন্ধন

রাবি প্রতিনিধি :রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের দুই শিক্ষার্থীকে স্থানীয় যুবলীগের নেতাদের মারধরের প্রতিবাদ ও নিজেদের নিরাপত্তার দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো মানববন্ধন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের  শিক্ষার্থীরা। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে ঘন্টাব্যাপী কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, বাংলাদেশের কোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েই স্থানীয়দের কোনো প্রভাব দেখা যায় না। কিন্তু রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ই একমাত্র ব্যতিক্রম যেখানে স্থানীয়রা ক্যাম্পাসের সাধারণ শিক্ষার্থীদের মারধর, ল্যাপটপ কেড়ে নেওয়া, মাঠ দখল ইত্যাদি হর-হামেশায় ঘটচ্ছে। এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান শিক্ষার্থীরা।

তারা আরো অভিযোগ করেন, অনেক শিক্ষার্থী স্থানীয়দের কাছে নির্যাতিত হচ্ছে। আমরা এখানে এসেছি লেখাপড়া করতে, আমাদের দেখভাল করার দায়িত্ব প্রশাসনের কিন্তু তারা নির্বিকার। ক্যাম্পাসে এরকম মারধর, ল্যাপটপ কেড়ে নেওয়া, এমনকি হত্যার ঘটনা ঘটলেও আমরা কোনো সুষ্ঠু বিচার পায়নি।

গত সোমবার রাত ৯টার দিকে পলাশ ও সুজন নামের দুই শিক্ষার্থী  মির্জাপুর থেকে বিনোদপুরে আসছিলেন। এসময় নেশাগ্রস্ত অবস্থায় স্থানীয় যুবলীগের কার্যালয় থেকে কয়েকজন নেতা-কর্মী বের হয়ে কোনো কারণ ছাড়াই তাদের চড়-থাপ্পড় ও কিল-ঘুষি দিতে থাকে। এরপর তাদের উদ্ধার করতে আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী সেখানে গেলে তাদের কাছ থেকে মোবাইল কেড়ে নিয়ে দেশীয় অস্ত্র দেখিয়ে ধাওয়া করে যুবলীগের নেতা-কর্মীরা।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষ নিয়ন্ত্রক গ্রেফতার

গাজিপুর প্রতিনিধি: অর্থ আত্মসাতের এক মামলায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. বদরুজ্জামানকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
দুদকের উপ-পরিচালক মো. মোর্শেদ আলমের নেতৃেত্বে একটি দল সোমবার ভোরে ঢাকার মিরপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে বলে কমিশনের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য জানান। তিনি বলেন, ২০১২ সালে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এই মামলা করেন।
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তখনকার উপাচার্য অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহসহ মোট ১৩ জন এ মামলার আসামি।
সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘গণনিয়োগ’ পাওয়া ১৬৯ জন কর্মচারীকে ‘অবৈধভাবে’ সিলেকশন গ্রেড দিয়ে সরকারের এক কোটি ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৩৯৪ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে এ মামলায়।
আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য দুদকে পাঠালে সহকারী পরিচালক ফজলুল বারী এর দায়িত্ব পান।
এর আগে ১৩ ফেব্রুয়ারি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ এইচ এম তাওহিদুজ্জামান, সহকারী রেজিস্ট্রার সিদ্দিকুর রহমান ও সহকারী পরিচালক মোফাজ্জেল হোসাইনকে একই মামলায় গ্রেফতার করা হয়। পরে তারা জামিন পান।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে সিট দখল নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ

নিজস্ব প্রতিবেদক: রুম দখলকে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কবি জসীম উদ্দিন হলে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে একজন আহত হয়।

৫ মার্চ রোববার রাতে ওই হলের ৫২০ নম্বর রুমে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, নতুন কমিটি হওয়ার পর সমঝোতার ভিত্তিতে রুম নির্ধারণ করে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপ। এতে ৫২০ নম্বর কক্ষটি হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফ হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শাহেদ খান সমঝোতার ভিত্তিতে ভাগাভাগি করে। সেখানে একটি সিট ফাঁকা হলে হল ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফ হোসেন তার অনুসারী একজনকে তোলেন। পরে শাখা সাধারণ সম্পাদক শাহেদ খানও একই সিটে নিজের এক অনুসারীকে তুলতে চান।

সে সময় নিজ অনুসারীকে উঠাতে না পেরে শাহেদের কয়েকজন কর্মী ওই রুমে থাকা সুমন নামে একজনকে মারধর এবং সঙ্গে থাকা মোবাইল ও মানিব্যাগ কেড়ে নেয়। এ ছাড়া অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।

এ ব্যাপারে হল ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফ হোসেন বলেন, ‘আসলে তেমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। ৫২০ নম্বর রুমে সমঝোতার ভিত্তিতে এক সিট আমি ও অন্য সিট শাহেদ নিয়েছে।’

‘তারপর আমার সিটে আমি আগে থাকা সুমন নামের এক ছাত্রের সঙ্গে নতুন একজনকে দিতে চেয়েছি। তাই শাহেদের কর্মীরা রাতে গিয়ে সুমনকে মারধর করে’, যোগ করেন আরিফ।

অন্যদিকে, ‘মারধরের বিষয় অস্বীকার করে হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহেদ খান বলেন, হলে সিট নিয়ে একটু সমস্যা হয়েছে। পরে কেন্দ্রীয় কমিটির এক নেতা বিষয়টি সুরাহা করে দিয়েছেন। এটা তেমন কিছু নয়।’

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

‘এখানে ভর্তি হতে পারলাম না, চ্যান্সেলর হইয়া আসছি’

হাস্যরসে ঢাবি সমাবর্তন মাতালেন রাষ্ট্রপতি

ডেস্ক ,৪ ফেব্রূয়ারী : বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে লিখিত বক্তব্যের বাইরে প্রায় সময়ই রসিকতা করেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সমাবর্তনেও তার হাস্যরসে মাতলো শিক্ষার্থীরা। কখনও মুচকি হাসি, কখনও অট্টহাসিতে ফেটে পড়ে উপস্থিত দর্শক শ্রোতারা। বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হিসেবে তিনি রাষ্ট্রপতি আজ শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে সবাইকে এই হাস্যরসে মাতিয়ে তোলেন। শুরুতেই তিনি বলেন, আল্লাহর কী লীলাখেলা বুঝলাম না, যে ইউনিভার্সিটিতে আমি ভর্তি হতে পারলাম না, সেই ইউনিভার্সিটিতেই আমি চ্যান্সেলর হইয়া আসছি। শুধু এই ইউনিভার্সটি না, বাংলাদেশের যতগুলি পাবলিক, প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি আছে, সবগুলোরই চ্যান্সেলর।
হাসির রোল থামতে না থামতেই রাষ্ট্রপতি আবার বলেন, ১৯৬১ সালে আমি ম্যাট্রিক পাস করেছি, তাও থার্ড ডিভিশনে। আই এ পাস করেছি, এটাতোও এক সাবজেক্টে অর্থাৎ লজিকে রেফার্ড। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন ভর্তি হতে আসলাম, তখন ভর্তি তো দূরের কথা, ভর্তির ফরমটা পর্যন্ত আমাকে দেওয়া হল না। বন্ধু, বান্ধব অনেকে ভর্তি হল। রাষ্ট্রপতি তার বক্তব্যে প্রায় সময়ই পরিশিলীত বাংলার সঙ্গে কিশোরগঞ্জের আঞ্চলিক ভাষা মিলিয়ে কথা বলেন। ঢাবির সমাবর্তনেও এর ব্যতিক্রম হয়নি।
এক সময় সমাবর্তনের গাউন পড়ার খায়েশ থাকলেও এখন তা আর ভালো লাগে না-এমন বক্তব্য দিয়েও আবার সবাইকে আনন্দ দেন রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, চ্যান্সেলর হিসেবে প্রায়ই সবখানে আমাকে যেতে হয়। তবে এই ক্যাপ আর সিনথেটিক গাউন পরে বসে থাকা খুব কঠিন। কোন বাতাসই ঢুকতে পারেনা। আর যদি গরমের দিন হয় তাহলে তো অবস্থা কাহিল। আমি আমাদের সন্মানীত ভিসি সাহেবকে অনুরোধ করেছিলাম, শীতকালে এই সমাবর্তন আয়োজন করতে।
রাষ্ট্রপতি বলেন, বিভিন্ন হলে রাত্রিও যাপন করতাম। এমন কোনো হল নাই, যেখানে ঢুকি নাই বা থাকি নাই। অবশ্য রোকেয়া হলে ঢুকিও নাই, থাকিও নাই। সুযোগ ছিল না। তবে রোকেয়া হলের আশপাশে ঘোরাঘুরি করসি কম না। তিনি বলেন, বন্ধু-বান্ধব তখন যারা ইউনিভার্সিটিতে পড়ে, তখন তারা কনভোকেশন, কনভোকেশন ক্যাপ, গাউন ইত্যাদি নিয়ে গল্প করে। আমরা তখন কলেজে পড়লেও সেটাও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ছিল। কিন্তু যারা অনার্স, মাস্টার্স পড়ত তাদেরকেই শুধু কনভোকেশনে ডাকা হত। ফলে কনভোকেশনের ক্যাপ, গাউন পড়ার সুযোগ ছিল না, তবে মনে বড় খায়েশ ছিল।
আবদুল হামিদ রাজনীতিতে জড়িয়েছেন ছাত্র জীবনেই। এরপর ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে কিশোরগঞ্জের একটি আসন থেকে আওয়ামী লীগের টিকিটে জাতীয় পরিষদের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। এরপর থেকে ২০০৮ সালের নির্বাচন পর্যন্ত টানা সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। এর মধ্যে তিনি জাতীয় সংসদের স্পিকারও নির্বাচিত হয়েছেন একাধিক বার।
রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের মৃত্যুর পর রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন আবদুল হামিদ। তার রাজনীতিতে হাতেখড়ির কথা উল্লেখ করে সদা হাস্য এই রাজনীতিক বলেন, ছাত্র রাজনীতির সাথে ওই সময় থেকেই আমি জড়িত ছিলাম। যখন এখানে ভর্তি হতে পারলাম না, নিজ জেলায় দয়ালগুরুর কৃপায় গুরুদয়াল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়ে গেলাম। তবে ৬১ সালে আইয়ুববিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে, বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে ঢাবিকে যেহেতু অনুসরণ করতাম, যার জন্য প্রায়ই ঢাকায় আসতে হত, আসতাম।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির প্রাথমিক আবেদন ফরম পূরণের সময় বৃদ্ধি

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর ॥ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-২০১৭ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) প্রফেশনাল ভর্তি কার্যক্রমে যে সকল প্রার্থী প্রথম পর্যায়ে প্রাথমিক আবেদন করেনি, সে সকল প্রার্থী ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখ বিকাল ৪টা থেকে ০৪ মার্চ ২০১৭ তারিখ রাত ১২টা পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করতে পারবে। ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট

(www.nu.edu.bd/admissions অথবা admissions.nu.edu.bd) থেকে পাওয়া যাবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

যৌন হয়রানি ॥ চাকরি হারালেন ঢাবি শিক্ষক

অনলাইন রিপোর্টার॥ ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সাময়িকভাবে বাধ্যতামূলক ছুটিতে থাকার পর এবার চূড়ান্তভাবে চাকরি হারালেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষক।

সোমবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

চাকরিচ্যুত শিক্ষক হলেন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সাহদাৎ হোসেন।

গত বছরের ২৭ জুন ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে বিভাগীয় চেয়ারম্যান ও উপাচার্য বরাবর অভিযোগ করেন একই বিভাগের প্রাক্তন দুই ছাত্রী। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত কমিটি গঠন করলে কমিটির প্রতিবেদনের সাপেক্ষে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে চাকরিচ্যুতির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

রাবিতে নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ করল আ.লীগ

রাবি সংবাদদাতা ॥ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) উপাচার্যের বাসভবনের প্রধান ফটক অবরোধ করে জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক পদের মৌখিক পরীক্ষা বন্ধ করে দিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

সোমবার বিকেল ৪টায় রাবি উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিনের বাসভবনে এই নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা পরীক্ষা দিতে আসা চাকরী প্রার্থী ও নিয়োগ বোর্ডের সদস্যদের উপাচার্যের বাসভবনে ঢুকতে বাধা দেয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, দুপুর তিনটার দিকে মতিহার থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দীনের নেতৃত্বে ৫০/৬০ জন নেতাকর্মী রাবি উপাচার্য বাসভবনের মূল ফটকের সামনে অবস্থান নেয়। এরপর বিকেল চারটার দিকে কয়েকজন চাকরীপ্রার্থী মৌখিক পরীক্ষার জন্য উপাচার্য বাসভবনের ভেতরে ঢুকতে চাইলে নেতা-কর্মীরা তাদের চলে যেতে বলেন। এ সময় প্রক্টর বা পুলিশের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। বিকেল ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মজিবুল হক আজাদ ‘নিয়োগ পরীক্ষা নেয়া হবে না’ মর্মে নেতাকর্মীদের আশ্বস্ত করে চলে যেতে বলেন।

মতিহার থানা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন অভিযোগ করে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জামায়াত-শিবিরের লোকজনদের নিয়োগ দিচ্ছে। তারা তাদের মনোনীত প্রতিনিধিদের দিয়ে প্রতিক্রীয়াশীল প্রার্থীদের নিয়োগ দিতে চাইছে। তাই আমরা বাধ্য হয়ে ভিসি স্যারের বাসার সামনে অবস্থান নিয়েছি।

সাক্ষাতকার দিতে আসা এক চাকরীপ্রার্থী বলেন, ফটকে অবস্থানরত আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা আমাকে চলে যেতে বলেন। তারপর আমি ফিরে যাই।

এ ব্যাপারে রাবি উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন বলেন, দুই মাস আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের কর্মকর্তা পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। তার জন্য মৌখিক পরীক্ষায় আজ (সোমবার) ৬/৭ জনকে ডাকা হয়েছিল। কিন্তু স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের বাধায় তাদের মৌখিক পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ঢাবিতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বহনের শপথ অনুষ্ঠিত

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ মাথায় লাল-সবুজ ক্যাপ পরে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বহনের শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে হাজারও কোমলমতি শিক্ষার্থীর অংশগ্রহনে ‘মুক্তির উৎসব-২০১৭’ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ‘আমাদের অঙ্গীকার অসাম্প্রদায়িক মানবিক সমাজ নির্মাণ’ স্লোগানকে সামনে রেখে উৎসবের আয়োজন করে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ডা. সারওয়ার আলীর স্বাগত বক্তব্য শেষে উৎসবে অংশগ্রহণকারী ছাত্র-ছাত্রীদের শপথ বাক্য পাঠ করান মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন আকরাম আহমেদ বীরউত্তম।

১৬তম এই আয়োজনে মুক্তিযোদ্ধা-বিশিষ্টজনসহ অংশ নেয় রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলের কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। বিভিন্ন শিশু সংগঠনের শিল্পীরা পরিবেশন করেন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গল্প শোনাতে যোগ দেন মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষাবিদ, শিল্পী, লেখকসহ দেশের বিশিষ্টজনরা। পরে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করেন শিল্পীরা।

তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানাতে মূলত এ আয়োজন বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। অনুষ্ঠানে আয়োজকরা প্রত্যাশা করেন এই ধরনের অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বেড়ে উঠবে আগামী প্রজন্ম। এই আয়োজন অব্যাহত রাখার পরামর্শ দেন মুক্তিযোদ্ধারা। অন্যদিকে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারন করতেই এই উৎসবে ছুটে আসা বলে জানান শিক্ষার্থীরা।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পদে ফের নিয়োগ পেলেন হারুন-অর-রশিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক | ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১৭

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদকে পুনরায় দ্বিতীয় বারের মত উপাচার্য পদে নিয়োগ দেয়া। রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর দ্বিতীয় মেয়াদে তাকে আরো ৪ বছরের জন্য উপাচার্য পদে নিয়োগ দিয়েছেন বলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

নতুন মেয়াদে প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের মার্চ থেকে ২০২১ মার্চ পর্যন্ত জাতীয় বিশ্বাবিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

যৌন হয়রানির অভিযোগে জবি শিক্ষক বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০ ফেব্রুয়ারী ঃ যৌন হয়রানির অভিযোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা পাওয়া ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ তাৎক্ষণিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় ওই শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে।

এদিকে শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশক্রমে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এ বিষয়ে দ্রুত তদন্তপূর্বক চূড়ান্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানা গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, সাময়িক বরখাস্ত হওয়া ওই শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের বিভাগীয় চেয়ারম্যান ড. মো. আব্দুল হালিম প্রামাণিক। গতকাল রোববার ভুক্তভোগী একই বিভাগের ছাত্রী উপাচার্য বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন। সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রাথমিক তথ্য-প্রামাণের ভিত্তিতে আজ (সোমবার) এ ব্যবস্থা নেয়া হলো।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

৩৯ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়

দফায় দফায় আলটিমেটামের পরও স্থায়ী ক্যাম্পাসে না যাওয়ায় ৩৯ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, পাঁচ দফা সময় দিয়েও ৩৯ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থায়ী ক্যাম্পাসে নিতে পারেনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এজন্য গত বৃহস্পতিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) পত্র দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কর্মকর্তাদের জরুরি বৈঠকের কথা জানায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তবে এ বৈঠকের তারিখ এখনও নির্ধারণ হয়নি।

সূত্র জানায়, বৈঠকে নির্ধারিত (চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত) সময়ের মধ্যে যেসব বিশ্ববিদ্যালয় নিজস্ব ক্যাম্পাসে যায়নি তাদের বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ, নতুন কোর্স কারিকুলাম অনুমোদন না দেয়া এবং শিক্ষার্থী ভর্তিতে সতর্কতা জারি হতে পারে।

এ ব্যাপারে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, স্থায়ী ক্যাম্পাসে না যাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়কে অনেক সময় দিয়েছি। এবার ব্যবস্থা নেয়ার পালা। কী ব্যবস্থা নেয়া হবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ইউজিসির চেয়ারম্যানের কাছে পাঠানো পত্রে বলা হয়েছে, স্থায়ী ক্যাম্পাসে না যাওয়া প্রতিষ্ঠানের সর্বশেষ প্রতিবেদনসহ করণীয় ঠিক করতে একটি সমন্বয় সভা জরুরি। তা করতে শিক্ষামন্ত্রী আগ্রহী।

সূত্র জানায়, তিন ক্যাটাগরির বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে একটি যেগুলো জমি কেনেনি। গত বছরের ২৪ জানুয়ারি এসব বিশ্ববিদ্যালয়কে আলটিমেটাম দেয়া হয়েছিল। আলটিমেটামে বলা হয়েছিল, স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে না পারলে শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ করা হবে।

জমি কিনেছে এবং ভবন নির্মাণাধীন এ ধরনের বিশ্ববিদ্যালয় দ্বিতীয় ক্যাটাগরিতে রাখা হয়। এসব বিশ্ববিদ্যালয়কে গত বছরের ১৯ জানুয়ারি সতর্কবার্তা পাঠানো হয়। সতর্কবার্তা আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছিল।

তৃতীয় ক্যাটাগরিতে ছিল জমি কিনেছে কিন্তু ভবনের কাজ শুরু করেনি। ভবনের নকশা অনুমোদনসহ অন্য কাজের অগ্রগতি সন্তোষজনক নয়। গত বছরের ১৪ জানুয়ারি এ ধরনের বিশ্ববিদ্যালয়কে নোটিশ দেয়া হয়। তাতে এক বছরের মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে না পারলে শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের পাশাপাশি আইন অনুযায়ী ব্যবস্থার কথা বলা হয়।

এদিকে ৩৯ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিক পক্ষ একট্টা হয়ে আরও সময় চায় বলে সূত্র জানিয়েছে। এজন্য তারা সরকারের উচ্চপর্যায়ে দৌড়ঝাপ করছেন। কেউ কেউ সরকারের কাছে জমিও চাচ্ছেন। এ বিষয়ে কথা বলতে তারা দুই দফায় শিক্ষামন্ত্রীর সাক্ষাৎ চেয়ে পত্রও দিয়েছেন। তবে সাক্ষাৎ দেননি মন্ত্রী।

ইউজিসির সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত প্রেসিডেন্সি এবং ইবাইস ইউনিভার্সিটি জমি কেনেনি। এছাড়া ইবাইস, প্রিমিয়ার ও সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি মালিকানায় দ্বন্দ্ব আছে। আলটিমেটাম অনুযায়ী, এ চার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ হতে পারে।

নিজস্ব জমিতে ভবন নির্মাণ করছে এমন ক্যাটাগরিতে ২২টি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, এ ক্যাটাগরিতে তিন ধরনের বিশ্ববিদ্যালয় আছে। এর মধ্যে ১১টির কাজ নির্মাণাধীন। পাশাপাশি আংশিক শিক্ষা কার্যক্রমও স্থানান্তর করেছে। এগুলো হচ্ছে- আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (এআইইউবি), নর্দান ইউনিভার্সিটি, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, লিডিং ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস, উত্তরা ইউনিভার্সিটি, রয়েল ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অব সায়েন্স, মানারাত ইন্টারন্যাশনাল, অতীশ দীপঙ্কর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ। তবে শেষটির বিরুদ্ধে শিক্ষা বাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে।

নির্ধারিত পরিমাণ জমি কিনে ক্যাম্পাস নির্মাণ করছে। কিন্তু কার্যক্রম চালু করেনি এগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, গ্রিন ইউনিভার্সিটি, দি পিপলস ইউনিভার্সিটি, সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি, ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি, আশা ইউনিভার্সিটি, সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি ও প্রাইম ইউনিভার্সিটি। এর মধ্যে প্রাইম এবং সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি  নির্ধারিত পরিমাণের চেয়ে কম জমিতে ক্যাম্পাস করছে।

জমি কিনেছে কিন্তু কাজ শুরু হয়নি, অগ্রগতিও সন্তোষজনক নয় এমন ১০ বিশ্ববিদ্যালয় হলো- স্টেট ইউনিভার্সিটি, প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি, ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অল্টারনেটিভ, ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া, স্টামফোর্ড অন্যতম। এ ক্যাটাগরিতে ব্র্যাক, শান্ত-মারিয়াম এবং সাউথইস্ট ও মিলেনিয়াম ইউনিভার্সিটি আছে বলেও জানান মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। এর মধ্যে ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া কেন বন্ধ করা হবে না মর্মে শোকজ নোটিশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

প্রাইম ও সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি নির্ধারিত পরিমাণের চেয়ে কম জমিতে ক্যাম্পাস নির্মাণ করছে।

এছাড়া গত বছর দেয়া আলটিমেটামের সময় সাউথইস্ট এবং মিলেনিয়াম ইউনিভার্সিটির ফাউন্ডেশনের নামে জমি ছিল। এক বছর পরও ফাউন্ডেশনের নামের জমিতেই কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে স্থানান্তর করেনি। এ দুই বিশ্ববিদ্যালয় আইন এবং সরকারের নির্দেশনা উপেক্ষা করেছে।

ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান বলেন, মন্ত্রণালয়ের চিঠির আলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট শাখাকে নির্দেশ দিয়েছি। যারা আইন ভঙ্গ করেছে তাদের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার মন্ত্রণালয়ের।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে দেশে ৯৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে ৮০টির কার্যক্রম চালু, বাকিরা অনুমোদন পেলেও কার্যক্রম শুরু করেনি।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

রাবিতে জোহা দিবস পালিত হচ্ছে

রাবি সংবাদদাতা ॥ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে নানা আয়োজনে জোহা দিবস পালন করা হচ্ছে। ঊনসত্তুরের গণঅভ্যূত্থানে বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক ড. শামসুজ্জোহা প্রক্টরের দায়িত্ব পালনকালে পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে নিহত হন। দিনটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘শিক্ষক দিবস’ হিসেবে পালিত হচ্ছে।

দিবসের প্রথম প্রহরে প্রশাসন ভবনসহ অন্যান্য ভবনে কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। আজ শনিবার সকাল পৌনে ৭টায় শহীদ ড. জোহার সমাধি ও জোহা স্মৃতিফলকে পুস্পস্তবক অর্পণ করে রাবি প্রশাসন। এরপর রসায়ন বিভাগ ও শহীদ শামসুজ্জোহা হলসহ অন্যান্য আবাসিক হল, বিভিন্ন বিভাগ, পেশাজীবী সমিতি ও ইউনিয়ন, সাংবাদিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন পুস্পস্তবক অর্পণ করে।

সকাল ১০টায় সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত হয় ‘শহীদ ড. শামসুজ্জোহা স্মারক বক্তৃতা’। এতে বিশিষ্ট চিন্তক-গবেষক-লেখক অধ্যাপক সনৎকুমার সাহা ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা: বিধি ও বিধিলিপি’ শীর্ষক বক্তৃতা দেন।

রসায়ন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন স্মারক বক্তৃতার পৃষ্ঠপোষক উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। সেখানে অন্যান্যের মধ্যে কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর সায়েন উদ্দিন আহমেদও বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে রসায়ন বিভাগের শিক্ষার্থী নিশাত সুলতানা শহীদ ড. জোহার জীবনালেখ্য পাঠ করেন।

শিক্ষক দিবসের কর্মসূচিতে আরও থাকবে, বাদ জোহর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে কোরআন খানি ও বিশেষ মোনাজাত, শহীদ শামসুজ্জোহা হলে আলোচনা সভা ও প্রদীপ প্রজ্বালন। এদিন শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালা সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য রাখা হবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

নিজস্ব ক্যাম্পাসে না গেলে শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের হুঁশিয়ারি শিক্ষামন্ত্রীর

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যেসব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এখনো নিজস্ব ক্যাম্পাসে যায়নি, সেগুলোতে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধসহ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

আজ রবিবার ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশের ১৮তম সমাবর্তনে সভাপতির বক্তৃতায় তিনি এই হুঁশিয়ারি দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের প্রতিনিধি হিসেবে সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করেন শিক্ষামন্ত্রী। সমাবর্তনে ১ হাজার ৪১৯ জন শিক্ষার্থীকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি দেওয়া হয়।

বর্তমানে দেশে ৯৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে পুরোনো ৫১টিকে নিজস্ব ক্যাম্পাসে যাওয়ার জন্য চার দফায় সময় দেয় সরকার। সর্বশেষ সময় শেষ হয়েছে গত মাসে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দিয়ে জানিয়েছে, পুরোনো বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে মাত্র ১২টি পূর্ণাঙ্গভাবে নিজস্ব ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বাকি ৩৯টি এখনো পুরোপুরিভাবে যেতে পারেনি। এদের কেউ কেউ নিজস্ব ক্যাম্পাসে আংশিক কার্যক্রম শুরু করেছে। কেউ কেউ ক্যাম্পাস নির্মাণ করছে। কেউ কেউ এখনো নির্মাণকাজ শুরু করেনি। একটি আইনানুযায়ী জমিই কেনেনি।

এমন প্রেক্ষাপটে শিক্ষামন্ত্রী এই হুঁশিয়ারি দিলেন। তিনি বলেন, কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এখনো তাদের ন্যূনতম শর্ত পূরণ করতে পারেনি। এভাবে তারা বেশি দিন চলতে পারবে না। যেসব বিশ্ববিদ্যালয় সফল হতে পারেনি, শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছে, যারা নিজস্ব ক্যাম্পাসে যায়নি, যারা একাধিক ক্যাম্পাসে পাঠদান করাচ্ছে, তারা আইনানুসারে সঠিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় চালাতে না পারলে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধসহ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এবারে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদ। তিনি শিক্ষার্থীদের পরিবর্তনশীল বিশ্বের উপযুক্ত নাগরিক হওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, তোমাদের অধিকাংশই নিজের ক্যারিয়ার তৈরি, কর্মক্ষেত্রে পদোন্নতি ও নিজেদের পরিবার নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। কিন্তু নিজের জন্য নয়, সমাজের জন্য কী করেছ, সেটাই হয়ে থাকবে বিশ্ব মানচিত্রে তোমাদের সাফল্যের ছাপ।

সমাবর্তনে আরও বক্তব্য দেন ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান, বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য অধ্যাপক এম ওমর রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়টির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান রাশেদ চৌধুরী প্রমুখ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free