এক্সক্লুাসিভ খবর

ব্যথায় ঠাণ্ডা না গরম সেঁক দেবেন?

ব্যথা হলে সেঁক দেয়ার প্রথা সেই প্রাচীন কাল থেকে চলে আসছে। সেঁক রোগীর ব্যথা কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ব্যথার স্থানে সেঁক দিলে অনেক ভালো লাগে এবং তাৎক্ষণিকভাবে ব্যথাও কমে যায়।


কিন্তু আমরা অনেকেই জানি না ব্যথা হলে কোন ধরনের সেঁক দিতে হয় বা কোন সেঁক দেয়া উচিত এবং কোনটা কোথায় কিভাবে কাজ করে। অনেকে আবার ব্যথা হলেই গরম সেঁক দিয়ে থাকেন।

কিন্তু গবেষকরা বলছেন, তাৎক্ষণিকভাবে ব্যথা পেলে যেমন হঠাৎ আঘাত পেয়ে ফুলে গেলে, লাল হয়ে গেলে, মচকে গেলে ইত্যাদি স্থানে ঠাণ্ডা সেঁক দিতে হবে। অনেক দিনের ব্যথা অর্থাৎ ক্রোনিক ব্যথার স্থানে গরম সেঁক দিতে হবে।

ঠাণ্ডা সেঁক কিভাবে দেবেন:
ব্যথার স্থানে ঠাণ্ডা সেঁক দিনে ১০ – ১৫ মিনিট প্রয়োজন অনুযায়ী সকালে ১ বার ও রাতে ১ বার দেবেন। কখনও কখনও ৩-৪ বার ঠাণ্ডা সেঁক দিতে হতে পারে। সেঁক দেয়ার আগে নারিকেল তেল ও রসুন একসঙ্গে গরম করে (কিছুক্ষণ গরম করার পর লালচে রঙ হলে তা ঠাণ্ডা করুন) ওই স্থানে হালকা লাগিয়ে ঠাণ্ডা ভেজা সুতি কাপড়ের ওপর দিয়ে বরফ লাগিয়ে সেঁক দেবেন। অসুস্থ জয়েন্ট এবং টেনডনে রক্তের প্রবাহ, নার্ভ অ্যাক্টিভিটি, ব্যথা এবং ফোলা কমায় ঠাণ্ডা সেঁক।

ঠাণ্ডা সেঁক ব্যবহারের সতর্কতা:
যাদের বোধ কম আছে তারা ঠাণ্ডা সেঁক বাড়িতে ব্যবহার করবেন না। কারণ, লেস সেনসরির কারণে নার্ভ বা টিস্যু ডেমেজ হয়ে গেলে বুঝতে পারবে না। যাদের ডায়াবেটিক আছে তাদের ঠাণ্ডা সেঁক ব্যবহার না করাই ভালো। কেননা, ঠাণ্ডা সেঁক সেনসেশন কমিয়ে দেয়। মাসেল এবং জয়েন্ট স্টিফ থাকলে ঠাণ্ডা সেঁক ব্যবহার করা যাবে না। এছাড়াও যাদের পুওর সারকুলেশন তাদের ঠাণ্ডা সেঁক দেওয়া উচিত নয় ।

গরম সেঁক কিভাবে দেবেন:
বেশি দিনের ব্যথা হলে গরম সেঁক দিতে হবে। প্রথমে গরম পানিতে টাওয়াল ভিজিয়ে নিংড়িয়ে ব্যথার স্থানে লাগান। এরপর ভেজা টাওয়েল শুকনা কাপড় দিয়ে ঢেকে দিতে হবে যেন তাড়াতাড়ি গরম ভাপ বের না হয়ে যায়। এভাবে ১০-১৫ মিনিট সেঁক দিন। এছাড়াও হট ওয়াটার ব্যাগে গরম সেঁক নিতে পারেন। কিন্তু মনে রাখবেন, গরম পানিতে টাওয়াল ব্যবহার করে সেঁক দেয়া বেশি কার্যকরী।গরম সেঁক ব্যথাযুক্ত স্থানে সারকুলেশন বাড়িয়ে মাসেল এর ফ্লেক্সিবিলিটি বাড়িয়ে দেয়, ডেমেজ টিস্যু সুস্থ করতে সাহায্য করে ।

গরম সেঁক ব্যবহারের সতর্কতা:

গরম সেঁক ফোলা এবং ক্ষত স্থানে ব্যবহার করা যাবে না। যদি আপনার হার্টের সমস্যা বা হাইপারটেনশন থাকে তাহলে গরম সেঁক ব্যবহারের আগে একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।


Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

দাত ঝকঝকে করতে যা করবেন

দাত-শিক্ষাবার্তা
দাঁত সাদা করতে তেজপাতা দারুণ উপকারী, তবে এই তেজপাতাকে মেশাতে হবে কোন টক ফলের সাথে। যেমন ধরুন কমলা বা লেবুর খোসা।

যা যা লাগবে

তেজপাতা ৪টি (কাঁচা বা শুকনো সব রকমেই হবে)
কমলা ও লেবুর খোসা (তেজপাতার সম পরিমাণ)
মুখে দুর্গন্ধের সমস্যা বা মাড়িতে ব্যথা থাকলে লবঙ্গ ২/৩ টি।



-তেজপাতা বেটে নিন বা মিহি গুঁড়ো করে নিন।
-কমলা বা লেবুর খোসা শুকিয়ে লবঙ্গের সাথে মিশিয়ে গুঁড়ো করে নিন।
-সব উপকরণ সামান্য লবণ সহযোগে একত্রে মিশিয়ে নিন।
-ফলের খোসা শুকিয়ে নেয়া জরুরী। কাঁচা অবস্থায় দাঁতের ক্ষতি করবে।

ব্যবহার বিধি

এই গুঁড়োটি সামান্য পানির সাথে মিশিয়ে সপ্তাহে ৩ দিন দাঁত মাজুন। রোজ মাজার প্রয়োজন নেই, এতে দাঁতের ক্ষতি হতে পারে। দাঁতের হলদে ভাবের ওপর নির্ভর করে সপ্তাহে দুই থেকে তিন বার ব্যবহার করাই যথেষ্ট।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

গ্রামে গরীব তরুণীর সেলুনে শেভ করালেন শচীন!

সচিনডেস্ক,৪ মে: একবার দৃষ্টি দিলেই বোঝা যাবে, এটা দামি কোনো সেলুন নয়। অথচ ভারতের উত্তর প্রদেশের বনওয়ারি টোলা গ্রামের এই সেলুনেই বসে শেভ করাচ্ছেন ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার! অবাক করা ব্যাপার। শচীন নিজে ছবি না দিলে অনেকে হয়তো এটা বিশ্বাসই করতেন না।

এমন এক সেলুনে শচীনের সেভ করানোর পেছনে লম্বা গল্প আছে। আছে জীবনযুদ্ধে বুক চিতিয়ে লড়াই করা দুই তরুণীর সাহসী পথচলার গল্প। প্রত্যন্ত এক গ্রামের সেলুন, এই সেলুনে কাজ করেন দুজন তরুণী। নেহা নামের তরুণী এই সেলুনের প্রধান। যে কি না তার বোনসহ নিজেদের পরিচয় গোপন করে পুরুষ সেজে কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলেন।



  নেহা তার পরিবারেরও প্রধান। ২০১৪ সালে বাবা অসুস্থ হয়ে পড়লে সংসারের হাল ধরতে হয় তাকে। সমাজ ব্যবস্থার কথা মাথায় রেখে নিজেদের পরিচয় গোপন করেন নেহা ও তার বোন। পুরুষের নাম নিয়ে চালিয়ে যেতে থাকেন কাজ। বাবার চিকিৎসা, সংসার ও নিজেদের পড়াশোনার খরচ এখান থেকেই যোগাড় করেছেন তারা।

কিছুদিন এভাবে যাওয়ার পর এই দুই বোনকে নিয়ে ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়। তাদের নিয়ে তৈরি হয় একটি বিজ্ঞাপনও। সংবাদমাধ্যমে এসব দেখে নেহা এবং তার বোনের সঙ্গে দেখা করতে যান ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচীন। নেহা ও তার বোনের সঙ্গে দেখা করে তাদেরকে জিলেটের পক্ষ থেকে বৃত্তি প্রদান করেন তিনি।

জিলেট ইন্ডিয়ার বৃত্তি নেহা ও তার বোনকে বুঝিয়ে দেন শচীন। ছবি: সংগৃহীত

নেহার কাছে সেভ করানোর একটি ছবি নিজের ইনস্টগ্রামে পোস্ট করেছেন ভারতের এই ব্যাটিং জিনিয়াস। ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘আমার একটি প্রথম। আপনারা নাও জানতে পারেন, তবে আমি কখনও অন্যকে দিয়ে সেভ করাইনি। সেই রেকর্ড আজ ভেঙে গেল। ‘বারবার গার্লসের’ সঙ্গে দেখা করে এবং জিলেট ইন্ডিয়ার বৃত্তি তাদেরকে দিতে পেরে সম্মানিতবোধ করছি।’

সুত্র: প্রিয়.কম Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

আমার সাফল্যে প্রধান অবদান ধোনির, ক্যাপ্টেন কুলকে বিরাট সার্টিফিকেট

মহেন্দ্র সিংহ ধোনি ছিলেন বলেই বিরাট কোহালি তিন নম্বরে ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছেন। ব্যাটিং অর্ডারে তিন নম্বর জায়গা যে কোনও দলের মেরুদণ্ড।

ধোনি নেতৃত্বে থাকার সময়েই নাকি কোহালিকে তিন নম্বরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। ভারত অধিনায়কের সেই দিনগুলো ভালই মনে রয়েছে। নতুন কোনও ক্রিকেটারকে সাধারণত তিন নম্বর পজিশন ছাড়া হয় না। সেখানে ধোনি তিন নম্বরে পাঠিয়েছিলেন নবাগত কোহালিকে। অগ্রজর প্রতি কৃতজ্ঞতা উজাড় করে কোহালি বলছেন, ‘‘আমি যখন দলে প্রথম সুযোগ পাই, তখন ব্যাটিং অর্ডার ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ব্যবহার করার সুযোগ ছিল। আমার সামনে সুযোগ আসায় তার সদ্ব্যবহার করি। কিন্তু, ধোনির কাছ থেকে যে সমর্থন পেয়েছিলাম, সেটাই ছিল বড় ব্যাপার। তিন নম্বরে ব্যাট করার সুযোগ আমাকে ধোনিই করে দিয়েছিল।’’

ধোনির কাছ থেকে শুরুর দিকে যে সমর্থন পেয়েছিলেন কোহালি, তার জন্য এখনও কৃতজ্ঞ তিনি। ইদানীং কালে ধোনিকে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে। যা দেখে ব্যথিত কোহালি। তিনি বলছেন, ‘‘অনেকে ধোনিকে সমালোচনা করছেন, এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ব্যাপার। আমার কাছে আনুগত্যটাই বড় ব্যাপার।’’

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ছুটির দিনেও অফিস করতে বড়ই ক্লান্ত

ডেস্ক: সপ্তাহে ছয় দিন ৮ ঘণ্টা অফিস। বাড়ি ফিরে ক্লান্ত শরীররটাকে কোনো মতে বিছানায় ছেড়ে দিলেই দিন শেষ। পরের দিন আবার সেই অফিস। বছরের পর বছর প্রতিদিনের এই রুটিন শুধু আমাদেরই ক্লান্ত করে না, অতিষ্ঠ করে আমাদের চারপাশের মানুষদেরও। আপনার সময়ের অভাবে তারা একলা বোধ করতে শুরু করেন। এর সঙ্গে যদি এসে যুক্ত হয় ছুটির দিনে অফিস পার্টি। তবে আর কি? অনেকেই বুঝতে পারেন না কী ভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। আর প্রত্যাশা পূরণ না হওয়ায় কারণে সম্পর্কও ভেঙে যায়। আর নিজের শান্তিও থাকে না।

অগ্রিম প্ল্যান করুন

পুরো সপ্তাহের একটা প্রাথমিক পরিকল্পনা করে লিখে রাখুন। যেন আপনি নিজেও দেখতে পারেন। পরিবারের সদস্যরাও পারেন। তবে আপনার থেকে বেশি প্রত্যাশা রাখবেন না কেউ। এই প্ল্যানের মধ্যেই যেন পরিবারের জন্য বরাদ্দ সময়ের উল্লেখ থাকে। এতে আপনার সন্তান, মা-বাবা স্ত্রী অনুভব করতে পারবে তাদের আপনি কতটা প্রাধান্য দেন।

সহকর্মীদের বাড়িতে ডাকুন

এমন পরিস্থিতিতেও পড়তে পারেন যখন হঠাৎ পার্টি কিছুতেই এড়ানো যাচ্ছে না। তখন পার্টিটা আপনার বাড়িতে করার প্রস্তাব দিতে পারেন। এতে আপনার পরিবারও একটা গেট-টুগেদারের সুযোগ পাবে।

সারপ্রাইজ ডিনার

মাঝে মাঝে তাড়াতাড়ি অফিস সেরে সারপ্রাইজ ডিনারে যেতে পারেন পরিবারের সদস্যদের সাথে। কোনো ভুল বোঝাবুঝি তৈরি হলে অভিমান ভেঙে দিন। অনেক দিন যাননি এমন কোনো আত্মীয়ের বাড়ি কাটিয়ে আসুন কয়েক ঘণ্টা। কোনো কোনো দিন পছন্দের ছবি বা অনুষ্ঠান দেখে আসার পরিকল্পনাও করতে পারেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বাংলাদেশের ১৫ সদস্যের বিশ্বকাপ স্কোয়াড ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৬ এপ্রিল:আসন্ন ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে যৌথভাবে অনুষ্ঠিত ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ১৫ জনের মূল দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। দুপুর সাড়ে ১২টায় শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম সম্মেলন কক্ষে জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ক্রিকেট বিশ্বকাপের জন্য এ স্কোয়াড ঘোষণা করেন।

বাংলাদেশের ১৫ সদস্যের বিশ্বকাপ স্কোয়াড

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, লিটন কুমার দাস, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদি হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, আবু জায়েদ রাহি।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ভারতের বিশ্বকাপ দল ঘোষনা! চার নম্বরে কে?

অশোক মলহোত্র: চার নম্বরে কে?

আর কয়েক ঘণ্টা পরে বিশ্বকাপের জন্য ভারতীয় দল নির্বাচন। সেখানে এই প্রশ্নটা অবশ্যই ঝড় তুলবে।

গত এক বছরে ভারতীয় দলে চার নম্বরে পোক্ত একজন ব্যাটসম্যানের খোঁজ চলছে। যেখানে পরখ করা হয়েছে অম্বাতি রায়ডুকে। ফলে প্রশ্ন, চার নম্বরে অম্বাতি রায়ডু না অন্য কেউ?

নিজে জাতীয় নির্বাচকের দায়িত্ব পালন করেছি। এ প্রসঙ্গে মনে পড়ছে, ১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপের দল নির্বাচনের কথা। তখন আমি জাতীয় নির্বাচক। সে বারও ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ হয়েছিল। মিডল অর্ডারে একটা নাম নিয়ে দল নির্বাচনী বৈঠকে খুব হইচই হয়েছিল। আমাদের বাছতে হত বিনোদ কাম্বলি, হেমাঙ্গ বাদানি ও অময় খুরাশিয়ার মধ্যে একজনকে। অময় ঘরোয়া ক্রিকেটে ভাল রান করায় শেষ পর্যন্ত আমরা ওকেই নিয়েছিলাম। Read More »

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

চমক দিয়ে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা অস্ট্রেলিয়ার

নিজস্ব প্রতিবেদক,১৫ এপ্রিল: অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে শেষ ১৩টি ম্যাচে একটি সেঞ্চুরি আর তিনটি হাফ সেঞ্চুরি। গড় প্রায় ৪৪। স্ট্রাইক রেট ৯৯। এর পরেও বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার জর্সিতে খেলা হচ্ছে না পিটার হ্যান্ডসকম্বের।

তবে তিনি ছিটকে গেলেও অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দলে জায়গা পেয়েছেন স্টিভ স্মিথ আর ডেভিড ওয়ার্নার। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে এই দুই তারকা ফেরায় কি হ্যান্ডসকম্বকে ছেঁটে ফেলা হল? এমন প্রশ্নও উঠতে শুরু করেছে। আইপিএলে স্বপ্নের ফর্মে ব্যাট করছেন ওয়ার্নার। আগ্রাসী ব্যাটিং করতে দেখা যাচ্ছে তাঁকে। স্মিথও ছন্দে ফিরছেন।

হ্যান্ডসকম্বের মতোই বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাননি ফাস্ট বোলার জশ হ্যাজেলউড। জানুয়ারি থেকে পিঠের চোটে ভুগছেন হ্যাজলউড। তিনি যে দলে ডাক পাবেন না, তা আগে থেকেই যেন স্পষ্ট ছিল। অস্ট্রেলিয়ার পেস আক্রমণ সামলাতে দেখা যাবে মিচেল স্টার্ক, জাই রিচার্ডসন, প্যাট কামিন্স, জেসন বেহেরেনডর্ফ ও নাথান কুল্টার-নাইলকে। দলে জায়গা দেওয়া হয়নি ভারতের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি সিরিজে ঝড় তোলা ব্যাটসম্যান অ্যাশটন টার্নারকেও।

অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দল: অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার, উসমান খওয়াজা, শন মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মার্কাস স্টোইনিস, অ্যালেক্স ক্যারে (উইকেটরক্ষক), অ্যাডাম জাম্পা, নাথান লায়ন, জেসন বেহেরেনডর্ফ, নাথান কুল্টার-নাইল, প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, জাই রিচার্ডসন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

মিরপুরে পোশাক কারখানায় আবারও আগুন

ঢাকা:

রাজধানীর মিরপুর-১৪ নম্বরের পুলপাড় এলাকায় একটি ১০ তলা ভবনের ছয়তলায় আগুন লেগেছে। খবর পেয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ১৪টি ইউনিট কাজ করছে।

রোববার (১৪ এপ্রিল) বিকেল ৫টা ৫মিনিটে এ ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিস সদর দফতরের টেলিফোন অপারেটর মো. আলী বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন।

চকবাজারে চুড়িহাট্টা ও বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের পর নগরজুড়ে অগ্নি নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগের মধ্যেই আবারো আগুন লাগার খবর এলো।

তাৎক্ষণিকভাবে অগ্নিকাণ্ডের কারণ বা ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানাতে পারেননি ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

সংসদ সদস্য হলে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নেবেন মাশরাফি!

এল আর বাদল : বয়স হয়ে গেছে ৩৫। ক্রিকেট মাঠে আর কতাে। তার উপর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী। সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে খেলার মাঠ আর সংসদ অধিবেশন, এই দুটাে তাে এক সঙ্গে চালানাে যাবে না।। তাই ২০১৯ বিশ্বকাপ হতে পারে মাশরাফির শেষ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট। শুধু এখানেই শেষ নয়, সংসদ সদস্য হলে ঘরােয়া ক্রিকেটও ছেড়ে দেবেন। এক কথায় সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসরে যাবেন মাশরাফি। এর আগে নিজ দূর্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ব্যতীত কারো সঙ্গে বাংলাদেশের খেলা নেই। ফলে ঘরের মাঠে এটিই তার শেষ সিরিজ?

রােববার মিরপুর স্টেডিয়ামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে শুরু হতে যাওয়া সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ সংক্রান্ত আজ এক সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন করা হলো মাশরাফি বিন মুর্তজাকে। জবাবে তিনি বললেন, আগে নির্বাচিত হই, তারপরে ভাববাে সব কিছু। ভবিষ্যতের কথা আগে বলা যায় না। ঘরের মাঠে শেষ সিরিজ কিনা জানি না। তবে খেলার মধ্যে থাকতে চাই। পাশাপাশি জনহিতকর কাজও করে যেতে চাই। ভবিষ্যত বলবে আমি কী করতে যাবাে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ছবিতে কী দেখছেন? উত্তরেই বোঝা যাবে মনের অবস্থা

নিজস্ব প্রতিবেদন: মহিলা না পুরুষ: পুরুষের মুখ দেখতে পেলে আপনি ভীষণ রোম্যান্টিক, এবং নিজের পার্টনারকে ভীষণই ভালবাসেন। আর মহিলার মুখের অর্থ জীবনের প্রতি ভীষণই পজিটিভ দৃষ্টিভঙ্গি আপনার।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

লিটন দাসের আউটের জেরে কোহলির ওয়েবসাইট হ্যাকড!

ক্রীড়া ডেস্ক,৪ অক্টোবর: এশিয়া কাপ ক্রিকেটের ফাইনালের স্মৃতি এখনো ভুলতে পারছেন না বাংলাদেশি ক্রিকেট সমর্থকরা। শেষ বলে হারা ওই ম্যাচে লিটন দাসকে দেয়া থার্ড আম্পায়ারের আউট মেনে নিতে পারেননি অনেকে। এবার সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ জানাতে বিরাট কোহলির অফিশিয়াল সাইট ‘হ্যাক’ করেছে ‘সিএসআই’ নামে বাংলাদেশের একটি গ্রুপ। এমন খবরই জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম।

টানা ক্রিকেটের ধকল সামলাতে এশিয়া কাপের সময়টায় বিশ্রামে ছিলেন, তাই মাঠে থাকা হয়নি অবশ্য কোহলির। তবে তার ওয়েবসাইটকেই শিকার হতে হলো হ্যাকিংয়ের।

হ্যাকার গোষ্ঠীর এমন কাণ্ডের বিষয়ে খবর প্রচার করেছে স্বয়ং ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। সেই খবর অনুযায়ী, সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ইন্টেলিজেন্স (সিএসআই) নামের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের কাছে রেখেছে। সেখানে বিভিন্ন ধরনের বার্তা দিয়ে প্রকাশ করছে আইসিসির প্রতি নিজেদের ক্ষোভ আর হতাশা।

ওয়েবসাইটে দেখা গিয়েছে গ্যালারি বিভাগে লিটন দাসের আউট হওয়ার কিছু ছবি এবং কিছু বার্তা। তাদের দাবি এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ভারতের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করেছিলেন আম্পায়াররা। কোহলির ওয়েবসাইটের নিয়ন্ত্রণ রেখে সেখানে হ্যাকাররা লিখে দেন, ‘প্রিয় আইসিসি, ক্রিকেট তো ভদ্রলোকের খেলা? সব দলেরই কি সমান অধিকার থাকা উচিত নয়? দয়া করে ব্যাখ্যা করো, এটা কীভাবে আউট?’

আইসিসি তাদের ‘দোষ’ এর কারণে ক্ষমা না চাইলে এমন কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়ে হ্যাকাররা উল্লেখ করেন, ‘তোমরা যদি বিশ্বের সামনে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা না চাও এবং আম্পায়ারদের শাস্তি না দাও, তাহলে যতবার সাইট পুনরুদ্ধার করবে ততবারই হ্যাক করা হবে। ভারতীয় ভাই-বোনদের বলছি, তোমাদের অসম্মান করছি না। অনুগ্রহ করে একটু ভেবে দেখ, তোমাদের দলের সঙ্গে এমন অবিচার হলে কেমন লাগত? ম্যাচে প্রতিটি দলকে সমান চোখে দেখা উচিত। আমরা এর শেষ দেখে ছাড়ব।’

নিজেদেরকে বাংলাদেশের হ্যাকার গোষ্ঠী হিসেবে দাবি করেছে সিএসআই। তাদের ফেইসবুক পাতাতে এ নিয়ে লিখেছে, “আমরা সবাই জানি, ক্রিকেট হলো জেন্টেলম্যানদের খেলা! কিন্তু বাংলাদেশ প্রতিবার এমনভাবে পক্ষপাতীত্ত্ব করার জন্য ব্যর্থ হয়! যার প্রতিবাদ হিসেবে ভিরাট কোহলির অফিসিয়াল ওয়েবসাইট হ্যাক করা হল এবং সামনে আরও অনেক কিছু হবে

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

গত ৫টি ম্যাচে দুটি সেঞ্চুরি, দুটি হাফ সেঞ্চুরি ইনজামামের ভাতিজার

স্পোর্টস ডেস্ক: অনেকে এখন বলেন পাকিস্তানের দল নির্বাচনে ইনজামাম উল হকের পক্ষপাতিত্ব রয়েছে। তার আপন ভাতিজাকে জাতীয় দলে নেয়ায় এই সমালোচনা দেশি-বিদেশি সব মিডিয়ায়।

ইমাম দলে ডাক পেয়ে এই সমালোচনায় হতবাক না হয়ে পারেন নি। কেউ বাহবা দিলেও খোদ পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটারদের অনেকে ভালো নজরে দেখেননি এটাকে। তবে জবাব দিতে মোটেই দেড়ি করেননি তিনি।

অভিষেকের প্রথম ম্যাচেই হাকান সেঞ্চুরি। এর পরেও যেন কেমন কেমন রব। এশিয়াকাপে ভারতের বিপক্ষে মাত্র ২ রান করেন ইমাম। এর আগে হংকংয়ের বিপক্ষে তিনি হাফ সেঞ্চুরি করেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

হোলি আর্টিজানে হামলা নিয়ে এক প্রতিবেশীর বর্ণনা

ডেস্ক,৩০জুন: প্রতিদিন রাতের আহারে ভাত নয়, পাউরুটি পছন্দ করেন তিনি। এর সঙ্গে খানিকটা পনির। পাউরুটি একটু টাটকা চাই। সে জন্য রাতের বেলাতেই এটি কিনে থাকেন সাখাওয়াত খান। টাটকা, নরম ও খেতে সুস্বাদু হওয়ায় পাউরুটির জন্য বাড়ির পাশের এক বেকারি ছিল তাঁর পছন্দের। ‘ছিল’ শব্দটিই তিনি উচ্চারণ করেছেন, কারণ ওই বেকারির সঙ্গেই জড়িয়ে আছে এক ভয়াবহ ঘটনা। সেই ভয়াবহতা তাঁকে এতটাই গ্রাস করেছে যে পছন্দের বেকারি থেকেই তিনি ছিটকে পড়েছেন। এখনো ওই সড়কের পাশ দিয়ে যেতেও আতঙ্কে শিউরে ওঠেন তিনি।

ভয়ংকর সেই রাত

নিজের ব্যবসার পাশাপাশি সাংবাদিকতাও করে থাকেন সাখাওয়াত খান। রাজধানী ঢাকার গুলশান ২ নম্বরের ৭৮ নম্বর সড়কের ১ নম্বরের একটি বহুতল বাড়ির ফ্ল্যাটে স্ত্রী ও একমাত্র ছেলেকে নিয়ে বসবাস করেন তিনি। বাড়ির সামনে দাঁড়িয়েই কথা হচ্ছিল তাঁর সঙ্গে। হাত দিয়ে দেখালেন পাশের সড়কেই ছিল সেই বেকারি স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ ‘হোলি আর্টিজান বেকারি’। নামটি উচ্চারণ করেই কয়েক মুহূর্ত চুপ করে রইলেন সাখাওয়াত খান। মনে হলো যেন এক ঝটকায় হুড়মুড় করে অনেক কিছুই তাঁর চোখের সামনে এসে হাজির হয়েছে। থেমে থেমে বললেন, ‘আমি এখন সেখানে যাই না।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বিশ্ব স্যাটেলাইট ক্লাবে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ

ডেস্ক: বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ আজ প্রবেশ করতে যাচ্ছে গৌরবময় বিশ্ব স্যাটেলাইট ক্লাবে। বাংলাদেশের স্থানীয় সময় আজ বৃহস্পতিবার (১০ মে) রাত ২টা থেকে ভোর ৫টার মধ্যে যে কোনো সময় মহাকাশের পথে যাত্রা শুরু করবে স্বপ্নের বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দেশের এগিয়ে যাওয়ার পথে যুক্ত হবে নতুন এক অধ্যায়ের।

বাংলাদেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের সানসাইন স্টেট ফ্লোরিডার বিনোদন শহর হিসেবে পরিচিত অরল্যান্ডো বাংলাদেশিদের পদচারণায় উৎসবমুখর হয়ে উঠেছে। আনন্দের বন্যা বইছে এখানকার বাংলাদেশিদের ঘরে ঘরে।

নিউইয়র্ক, নিউজার্সি, কানেকটিকাট, ম্যাসাচুসেটস, জর্জিয়াসহ বিভিন্ন রাজ্য থেকে শত শত বাংলাদেশি এখন অরল্যান্ডোমুখী। তারা সাক্ষী হতে চান সেই ইতিহাসের, যা তাদের কাছে ছিল শুধুই স্বপ্নের মতো।

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় স্পেসএক্সের লঞ্চিং (উদ্বোধন) স্টেশন থেকে উৎক্ষেপণ যান ফ্যালকন-৯ রওনা হওয়ার কথা আজ বৃহস্পতিবার (১০ মে) স্থানীয় সময় দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৪টার মধ্যে। বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার রাত ২টা থেকে ভোর ৫টার মধ্যে। বাংলাদেশ টেলিভিশন ফ্লোরিডা থেকে এই উৎক্ষেপণ অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার করবে।

এর আগে পাঁচ দফা উৎক্ষেপণের তারিখ পরিবর্তন করলেও গতকাল বুধবার রাতে উৎক্ষেপণের সর্বশেষ তারিখ ও সময় বহাল রয়েছে। স্পেসএক্সের টুইটার পেজে সর্বশেষ বার্তায় বলা হয়েছে, ১০ মে ফ্যালকন-৯ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নিয়ে লঞ্চিং প্যাড ৩৯এ থেকে যাত্রা শুরু করবে।

ফ্লোরিডায় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ প্রত্যক্ষ করতে স্পেসএক্সের লঞ্চিং স্টেশনে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। তার সঙ্গে থাকবেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ, বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদারসহ বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ৪২ সদস্যের প্রতিনিধি দল।

তবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ উদযাপনে ঢাকায় আয়োজিত অনুষ্ঠানের তারিখ গতকাল বুধবার পর্যন্ত চূড়ান্ত হয়নি। সূত্র জানায়, ১০ মে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ হলে ১৩ অথবা ১৪ মে ঢাকাসহ সারাদেশে উদযাপন অনুষ্ঠান হতে পারে। তবে তারিখ চূড়ান্ত হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতি সাপেক্ষে। প্রধানমন্ত্রী এই আয়োজনের উদ্বোধন করবেন।

দীর্ঘ পথপরিক্রমা :২০০৮ সালে এ প্রকল্পের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। দু’বছর পর ২০১০ সালে প্রকল্পের জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়। পরে ২০১৩ সালের ৩১ মার্চ পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের স্পেস পার্টনারশিপ ইন্টারন্যাশনালের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ২০১৪ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর প্রকল্পটি একনেকের অনুমোদন পায়। এ সময় প্রকল্পটির সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয় দুই হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে এক হাজার ৩১৫ কোটি টাকা রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে এবং বাকি টাকা সংশ্নিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পরিশোধ করবে। তবে প্রকল্প শেষে প্রকল্প ব্যয় কমে দাঁড়িয়েছে প্রায় দুই হাজার ৭০০ কোটি টাকা।

২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি রাশিয়ার প্রতিষ্ঠান ইন্টার স্পুটনিকের কাছ থেকে কক্ষপথ ভাড়া নিতে চুক্তি স্বাক্ষর করে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। চুক্তি অনুযায়ী ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে বাংলাদেশ কক্ষপথ বরাদ্দ পায়। যদিও আন্তর্জাতিক টেলিকম ইউনিয়নের বরাদ্দ অনুযায়ী বাংলাদেশের ১০২ ডিগ্রি পূর্ব পাওয়ার কথা। কিন্তু ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের আপত্তির কারণে সেটি পায়নি বাংলাদেশ। পরবর্তী সময়ে ৬৯ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে কক্ষপথ বরাদ্দ চাইলে আপত্তি দেয় মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুর। পরে ১১৯ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশই বাংলাদেশের জন্য চূড়ান্তভাবে নির্ধারিত হয়। ইন্টার স্পুটনিকের কাছ থেকে কক্ষপথ বরাদ্দ নিতে খরচ হয় দুই কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার বা প্রায় ২২৪ কোটি টাকা।

এর পরই শুরু হয় ‘কমিউনিকেশন এবং ব্রডকাস্টিং’ ক্যাটাগরিতে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের জন্য মূল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগের প্রক্রিয়া। এ-সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক দরপত্রে অংশ নেয় ফ্রান্সের থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস, চীনের গ্রেট ওয়াল করপোরেশন, কানাডার এমডিএ এবং যুক্তরাষ্ট্রের অরবিটাল কেটিএ। দরপত্রে সর্বনিম্ন দরদাতা হয় কানাডার এমডিএ। তবে সার্বিক কারিগরি মূল্যায়নে চূড়ান্ত করা হয় ফ্রান্সের থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেসকে।

একই সময়ে ফ্রান্সের থ্যালেস বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে চুক্তি করে ফ্রান্সেরই আরেকটি প্রতিষ্ঠান অ্যারিয়েন স্পেসের সঙ্গে। কিন্তু ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে এরিয়েন স্পেস বাংলাদেশকে জানিয়ে দেয়, তাদের পক্ষে বাংলাদেশের এ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ সম্ভব হচ্ছে না। এর কারণ হিসেবে তারা জানায়, এরিয়েন স্পেস দোতলা লঞ্চিং স্টেশন থেকে একসঙ্গে দুটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করে থাকে। এ ক্ষেত্রে নিচতলায় কম ওজনের স্যাটেলাইট এবং দোতলায় বেশি ওজনের স্যাটেলাইট রাখা হয়। বাংলাদেশের স্যাটেলাইট কম ওজনের হওয়ার কারণে সেটি নিচতলায় রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু পূর্বনির্ধারিত সময়ের মধ্যে উপরতলার জন্য বেশি ওজনের আর একটি স্যাটেলাইট পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ কারণে এরিয়েন স্পেস এককভাবে শুধু বাংলাদেশের স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করবে না বলে জানিয়ে দেয়। ফলে উৎক্ষেপণের জন্য নতুন কোম্পানি খুঁজতে হয় বাংলাদেশকে।

পরে ২০১৬ সালের ৭ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ অনুসন্ধান ও প্রযুক্তি কোম্পানি স্পেসএক্সের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এ জন্য ব্যয় ধরা হয় প্রায় ৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৪৮০ কোটি টাকা।

যা পাবে বাংলাদেশ :বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এ থাকছে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার সক্ষমতা। প্রতিটি ট্রান্সপন্ডার প্রায় ৩৬ মেগাহার্টজ বেতার তরঙ্গের সমপরিমাণ। অর্থাৎ ৪০টি ট্রান্সপন্ডার থেকে পাওয়া যাবে প্রায় ১ হাজার ৪৪০ মেগাহার্টজ পরিমাণ বেতার তরঙ্গ। এর মধ্যে ২০টি ট্রান্সপন্ডার বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ প্রয়োজনে ব্যবহার করা হবে। আর ২০টি ট্রান্সপন্ডার বিদেশি রাষ্ট্রের কাছে ভাড়া দেওয়ার জন্য রাখা হবে।

গাজীপুর ও চট্টগ্রামের বেতবুনিয়ায় স্থাপিত দুটি ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র থেকে নিয়ন্ত্রিত হবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। এর মধ্যে গাজীপুর প্রধান কেন্দ্র হিসেবে এবং বেতবুনিয়া বিকল্প কেন্দ্র হিসেবে ব্যত হবে। এরই মধ্যে প্রস্তুত হয়ে গেছে দুটি ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্রই। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গঠিত হয়েছে পৃথক একটি রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি।

বর্তমানে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল প্রতিবছর অন্যান্য দেশের স্যাটেলাইট পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানকে প্রায় দেড় কোটি মার্কিন ডলার সমপরিমাণ অর্থ ভাড়া হিসেবে পরিশোধ করে। বাংলাদেশের নিজস্ব স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালিত হলে এ অর্থ বাংলাদেশেই থেকে যাবে। এ ছাড়া স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া যাবে উচ্চগতির ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ। ফলে ব্যান্ডউইথের বিকল্প উৎসও পাওয়া যাবে। এই ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করে স্যাটেলাইট প্রযুক্তিতে প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময়ও দেশের দুর্গম দ্বীপ, নদী ও হাওর এবং পাহাড়ি অঞ্চলে নিরবচ্ছিন্ন টেলিযোগাযোগ সেবা চালুও সম্ভব হবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Responsive WordPress Theme Freetheme wordpress magazine responsive freetheme wordpress news responsive freeWORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme free

hit counter