Author Archives: editor

প্রাথমিকের ছুটির তালিকা সংশোধনের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২২ জানুয়ারি, ২০১৯ : মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শিক্ষার্থীকে গড়ে তোলা ও শিক্ষকদের অধিকার নিশ্চিতকরণে প্রাথমিকের ছুটির তালিকা সংশোধনের দাবি জানিয়েছে বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ। রোববার (২০ জানুয়ারি) এ দাবি জানিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বরাবর রেজিস্টার্ড ডাকে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন পরিষদের আহ্বায়ক মো. সিদ্দিকুর রহমান। 

চিঠিতে বলা হয়, শিশু শিক্ষার স্বার্থে প্রাথমিকে বেশি ছুটি বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের প্রত্যাশা নয়। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আগামী প্রজন্মকে গড়ে তোলা ও শিক্ষকদের অধিকার নিশ্চিত করতে ছুটির তালিকা সংশোধনের দাবি জানানো হয় চিঠিতে। চিঠিতে বলা হয়, পূর্ববর্তী বছরের মত ২০১৯ খ্রিস্টাব্দের ছুটির তালিকায় জাতীয় দিবসগুলোকে ছুটি রাখা হয়েছে। আবার, তালিকার নিচে যথাযথ মর্যাদায় দিবসগুলো পালনের নির্দেশনা দেওয়া আছে। ছুটির তালিকায় ছুটি থাকলে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর উপস্থিত থাকা বাধ্য নয়। ছুটি থাকায় স্বল্প সংখ্যক শিক্ষার্থীকে উপস্থিত করে দায় এড়ানোর মত জাতীয় দিবসগুলো পালন করেন শিক্ষকরা। জাতীয় দিবসগুলোর প্রেক্ষাপট শিক্ষার্থীদের বিশদভাবে জানানো প্রয়োজন। তাই, আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে তুলতে ও শিক্ষার্থীদের মনে দেশের প্রতি মমত্ববোধ সৃষ্টির লক্ষ্যে জাতীয় দিবসের ছুটিগুলো বাতিল করার দাবি জানানো হয় বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের চিঠিতে। 

চিঠিতে আরও বলা হয়,  প্রাথমিক শিক্ষকেরা সাপ্তাহিক ছুটি শনিবার কর্মরত থাকায় তাদের ছুটি সরকারি কর্মচারীদের চেয়েও কম। সকল সরকারি কর্মচারী শ্রান্তি বিনোদন ভাতার ১ মাসের মূল বেতনের সাথে ১৫ দিনের বাড়তি ছুটি পান। প্রতি বছরের মতো ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দেও যেকোন অবকাশে শ্রান্তি বিনোদনের জন্য ১৫ দিন ছুটি রাখা হয়নি। বিগত বছরগুলোতে রমজান মাসের ছুটি থেকে ১৫ দিন শ্রান্তি বিনোদনের ছুটি দেখিয়ে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার দপ্তর থেকে বিল পাস করানো হয়। হিজরি বছর ৩৫৫ দিন তাই ৩ বছর রমজানের ছুটি ৩০ দিন এগিয়ে আসে। বিধায় শিক্ষকেরা ৪ থেকে ৫ বছর পর পর শ্রান্তি বিনোদন ভাতা পান। তাই রমজানের মাস ছাড়া যে কোন পর্বে জাতীয় ও বিশেষ দিবসের ছুটিগুলো যোগ করে ১৫ দিন ছুটি প্রদান করা এবং ৩ বছর পর পর শ্রান্তি বিনোদন ভাতা প্রদানের নিশ্চত করার দাবি জানানো হয় বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের চিঠিতে।

প্রধান শিক্ষকদের সংরক্ষিত ছুটি সাধারণত তাৎক্ষণিক বিশেষ কারণে দেওয়া হয়। কিন্তু তা অনুমোদন করতে হয় থানা বা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার থেকে। বাস্তবে সংরক্ষিত ছুটি দেয়ার ক্ষমতা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার। সংরক্ষিত ছুটি প্রদানে প্রধান শিক্ষকের ক্ষমতা থাকা প্রয়োজন। সবসময় থানা বা উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে তাৎক্ষণিক সংরক্ষিত ছুটি অনুমোদন সম্ভব নয়। অনুমোদনের পরিবর্তে থানা বা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের অবহিত করে প্রধান শিক্ষকদের সংরক্ষিত ছুটি প্রদানের ক্ষমতা দেয়ার দাবি জানানো হয় চিঠিতে। 

চিঠিতে আরও বলা হয়, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দের ছুটির তালিকায় দূর্গাপূজার ছুটি ৩ দিন। হিন্দু সম্প্রদায়ের দূর্গাপূজা সাধারণত ৫ দিন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। শিক্ষকদের মধ্যে এ ছুটি নিয়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে। তাই দূর্গা পূজায় ছুটি বৃদ্ধি করে হিন্দু সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের প্রত্যাশা পূরণের দাবি জানিয়েছে  বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রাথমিকের মহাপরিচালকের অতিরিক্ত দায়িত্বে সোহেল আহমেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক | ২২ জানুয়ারি, ২০১৯ : প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের অতিরিক্ত দায়িত্ব পেয়েছেন অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল আহমেদ। সোমবার (২১ জানুয়ারি) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানা যায়।

মহাপরিচালক ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামালকে  ভারপ্রাপ্ত সচিব পদে পদোন্নতি দিয়ে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে বদলি করা হয়েছে। 

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

দামুড়হুদায় সততা স্টোরের শুভ উদ্বোধন

প্রলয় শীল,দামুড়হুদা(চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি : দামুড়হুদায় শিক্ষার্থীদের সততা শিক্ষা দিতে বিক্রেতাবিহীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ‘সততা স্টোর’র উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা আজমপুর সপ্রাবি উদ্যোগে উপজেলার মআরবি আজমপুর সপ্রা বিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয় এ সততা স্টোর।
এ সততা স্টোরের উদ্বোধন করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্বরুপ দাস। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আব্দুল হামিদ,আতিকুর রহমান,মেরিনা পারভীনও বিদ্যালয়ের শতাধিক ছাত্রছাত্রী।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

১০৫ বছর আয়ু পাওয়া জাপানি চিকিৎসকের ৬ পরামর্শ

ডা. শিগেয়াকি হিনোহারা। ২০১৭ সালের ২৫ জুলাই ১০৫ বছর বয়সে মারা যান জাপানি এই চিকিৎসক। দীর্ঘজীবন ধারণে তাঁকে একজন বিশেষজ্ঞ মানা হয়। তাঁর পরামর্শেই গড় আয়ুর দিক থেকে জাপান বিশ্বে শীর্ষস্থান অধিকার করেছে। বেশি দিন বেঁচে থাকার জন্য তাঁর কিছু পরামর্শ বিশ্বব্যাপী সমাদৃত। বিশেষ করে হিনোহারার ছয়টি পরামর্শ—

প্রথম পরামর্শ: যত দেরিতে সম্ভব কর্মজীবন থেকে অবসর নিন। জাপানি এই চিকিৎসক নিজে মৃত্যুর মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগেও কর্মজীবনে সক্রিয় ছিলেন। তাঁর এই পরামর্শ খুবই কার্যকর। সাধারণত চাকরিজীবীদের ক্ষেত্রে দেখা যায়, অবসর নেওয়ার পর যেন তাঁদের বার্ধক্য হু হু করে বাড়ে। দেখা দিতে থাকে নানা অসুখ-বিসুখ। কাজ মানুষের বার্ধক্য আটকে রাখে।

দ্বিতীয় পরামর্শ: ওজনের দিকে খেয়াল রাখো। দিনে একবার খাও। ডিনারে মাছ ও সবজির ওপর বেশি জোর দিয়েছেন। মাংস অবশ্যই খেতে হবে। তবে সপ্তাহে দুবারের বেশি নয়। জলপাইয়ের তেল (অলিভ অয়েল) খাওয়ার ওপর জোর দিয়েছেন তিনি। শরীরের ত্বক ও শিরা-ধমনি ভালো রাখার জন্য জলপাই তেল ভালো কাজ করে।

তৃতীয় পরামর্শ: আনন্দে সময় কাটাও। অতিরিক্ত নিয়মকানুনের চাপে শরীর ক্লান্ত হয়ে পড়ে। শৈশবে খাবারদাবারের অনিয়ম সত্ত্বেও শরীর অসুস্থ হয় না। কেন? কারণ, মানসিক চাপ থাকে না। মূলত ঘুমিয়ে বা কিছু না করেই শরীর ক্লান্ত না করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

চতুর্থ পরামর্শ: যা জানো, তা অন্যকে জানাও। তিনি বিশ্বাস করতেন, আমরা পৃথিবীতে এসেছিই এই সভ্যতায় কিছু না কিছু অবদান রাখার জন্য, মানুষকে সাহায্য করার জন্য। আজ, আগামীকাল, এমনকি পাঁচ বছর পরের পরিকল্পনা করতেন তিনি।

পঞ্চম পরামর্শ: জাগতিক সম্পদ নিয়ে চিন্তা না করা। ভালো থাকার পেছনে অর্থবহ কাজ করাটাই জরুরি। বস্তুগত চিন্তার তুলনায় আধ্যাত্মিক চিন্তায় শরীর ও মন ভালো থাকে বলে বিশ্বাস করতেন। অর্থবিত্ত মানুষকে আরও বেশি মানসিক চাপের মধ্যে ফেলে। অল্পতেই তুষ্ট হওয়া তাই জরুরি। তিনি সব সময় এটা মনে রাখতে বলেছেন, শেষ ঠিকানায় এসব কিছুই সঙ্গে যাবে না।

ষষ্ঠ পরামর্শ: সিঁড়ি ব্যবহার করা। হিনোহারা নিজে একবারে সিঁড়ির দুটি ধাপ পার করতেন, যাতে তাঁর পেশি ঠিক থাকে। শারীরিক ব্যায়ামের জন্য দৈনন্দিন কাজকর্মে যান্ত্রিকতা কমানোর ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। কায়িক শ্রম পছন্দ করতেন। ডাক্তারের পরামর্শকে অন্ধভাবে বিশ্বাস করতে মানা করতেন তিনি। চিকিৎসকেরা জীবন দিতে পারেন না। তাই অযথা সার্জারি করার বিপক্ষে ছিলেন। সূত্র: বিবিসি।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

স্টাফ রিপোর্টার : আজ স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। দিনটি সাড়ম্বরে পালন করবে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন।
১৯৭২ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে রক্তস্নাত স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখেন। স্বাধীন বাংলাদেশে মহান এই নেতার প্রত্যাবর্তনে স্বাধীনতা সংগ্রামের বিজয় পূর্ণতা পায়। স্বয়ং বঙ্গবন্ধু তার এই স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে ‘অন্ধকার হতে আলোর পথে যাত্রা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন।
বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। দিনটি সাড়ম্বরে পালন করবে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন। এদিন পুরো জাতি বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানাবে।
১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানী হানাদাররা বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তার ধানমন্ডির বাসা থেকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। তাকে পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী করা হয়। বাঙালি যখন স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করছে, বঙ্গবন্ধু তখন পাকিস্তানের কারাগারে প্রহসনের বিচারে ফাঁসির আসামী হিসেবে মৃত্যুর প্রহর গুণছিলেন। একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর বাঙালিদের চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হওয়ার পর বিশ্বনেতারা বঙ্গবন্ধুর মুক্তির দাবিতে সোচ্চার হন। আন্তর্জাতিক চাপে পরাজিত পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী শেষ পর্যন্ত বন্দীদশা থেকে বঙ্গবন্ধুকে সসম্মানে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।
২৯০ দিন পাকিস্তানের কারাগারে প্রতি মুহূর্তে মৃত্যুর প্রহর গণনা শেষে লন্ডন-দিল্লি হয়ে তিনি ঢাকায় পৌঁছান ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি।
বঙ্গবন্ধু হানাদারমুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসেন বিজয়ের মালা পরে। সেদিন বাংলাদেশে ছিল এক উৎসবের আমেজ। গোটা বাঙালি জাতি রুদ্ধশ্বাসে অপেক্ষা করছিল কখন তাদের প্রিয় নেতা, স্বাধীন বাংলার মহান স্থপতি স্বাধীন দেশের মাটিতে আসবেন। পুরো দেশের মানুষই যেন সেদিন জড়ো হয়েছিল ঢাকা বিমানবন্দর এলাকায়। বিমানবন্দর থেকে ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দান (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) পর্যন্ত রাস্তা ছিল লোকারণ্য। স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে পা রেখেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধু। দীর্ঘ ৯ মাস পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসরদের গণহত্যার কথা শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। সেদিন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে লাখো জনতার উদ্দেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঘোষণা দেন, ‘রক্ত দিয়ে হলেও আমি বাঙালি জাতির এই ভালোবাসার ঋণ শোধ করে যাবো।’
এরপর প্রতি বছর কৃতজ্ঞ বাঙালি জাতি নানা আয়োজনে পালন করে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। এবার আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপিত হতে যাচ্ছে এ দিনটি। একাদশ সংসদে বিজয়ী হয়ে তার দল গত ৭ জানুয়ারি সরকার গঠন করেছে। নেতাকর্মীরা তাই আনন্দে আছেন।
এদিকে দিনটি পালনের অংশ হিসেবে বিকাল ৩টায় কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করে আওয়ামী লীগ। এছাড়া সকাল সাড়ে ৬টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু ভবন এবং সারাদেশে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে তার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে সংগঠনের সব শাখাকে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

পাঠ্যপুস্তকে কিশোরীর ‘ উপযুক্ত পোশাক’ বিষয়ে রাশেদা কে চৌধুরী বললেন ‘ এটি শুরুতেই শিক্ষার্থীর আত্মবিশ্বাস নষ্ট করে’

২০১৯ শিক্ষাবর্ষের জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের ষষ্ঠ শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান বইয়ের ‘কৈশোরকালীন পরিবর্তন ও নিজের নিরাপত্তা রক্ষা’ বিষয়ক সপ্তম অধ্যায়ে সাদা-কালো সালোয়ার-কামিজ আর সাদা ওড়না গায়ে এক কিশোরীর ছবি। ছবির নিচে লেখা, ‘উপযুক্ত পোশাকে কিশোরী’। এই ছবির পাশেই লেখা, ‘মেয়েরা তাদের দৈহিক পরিবর্তন অন্যরা দেখে বিরূপ মন্তব্য করতে পারে বলে ভয়ে ভয়ে থাকে। সেজন্য এমন পোশাক পরা আবশ্যক।

এবিষয়ে লেখক শাহীন আখতার বলেন, ‘ পুরুষ কিভাবে পোশাক পরবে সেটিতো পাঠ্যপুস্তকে লেখা থাকে না।  তবে নারীর জন্য এরকম প্রস্তাবনা কেন? কারণ কিছুই নয়, এই শিক্ষাব্যবস্থা যে পুরুষতান্ত্রিক এরই প্রমাণ মিলল এমন পোশাক প্রস্তাবনায় ‘

গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধূরী বলেন,  ‘উপযুক্ত পোশাক নির্ধারণ করা পাঠ্যপুস্তকের কাজ নয়। পাঠ্যপুস্তকে উপযুক্ত পোশাকের মতো বিষয় রাখার মানে হলো, শুরুতেই শিক্ষার্থীদের মনোজগতের মধ্যে বিষয়টি ঢুকিয়ে দিয়ে তাদের আত্মবিশ্বাস নষ্ট করা।’

সেভ দ্য ওম্যান এর নির্বাহী পরিচালক জাভেদ পীরজাদা বলেন, `বর্তমানে কিশোরীরা ফুটবল খেলছে। ক্রিকেট খেলছে। রাষ্ট্রীয়ভাবেই তা উৎসাহিত করা হচ্ছে। আর পাঠ্যপুস্তকে কিশোরীদের জন্য এমন কথা দু:খজনক।‘

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

যে কারণে দায়িত্ব নেননি নাহিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

মন্ত্রিসভায় নতুনদের জায়গা করে দিতে নিজ থেকেই দায়িত্ব নেননি বলে জানিয়েছেন সদ্য বিদায়ী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, আমাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। আমি সততার সঙ্গে তা পালনের চেষ্টা করেছি।

সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিদায় অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন নুরুল ইসলাম নাহিদ।

তিনি বলেন, আমার সময়েই দেশের শিক্ষার মান বিশ্বে একটা কাঙ্ক্ষিত অবস্থানে গিয়ে পৌঁছেছে। বছরের প্রথম দিনে ছাত্রছাত্রীদের হাতে বই পৌঁছে দিতে পেরেছি আমরা। এটা একটি অনন্য সাফল্য।

এদিকে সোমবার বিকেলে বঙ্গভবনে শপথ নেয় নতুন মন্ত্রিসভা। সেখানে স্থান হয়নি টানা দুই মেয়াদে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা নুরুল ইসলাম নাহিদের। তিনিসহ পুরোনো মন্ত্রিসভার বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট সদস্যসহ মোট ৩৬ জন জায়গা পাননি এই মন্ত্রিসভায়।

এদিন বেলা ১১টার দিকে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে আসেন নাহিদ। ১২টার দিকে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে তাকে বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এরপর তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

৬৭৬ জনকে নিয়োগ দেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

ডেস্ক:

অনলাইন মাধ্যমসহ বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। আগ্রহী সব বাংলাদেশি নাগরিক আবেদন করতে পারেন।

আবেদনের শেষ তারিখ: আবেদনের শেষ তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯।

পদের নাম: হিসাবরক্ষক, হেড মেকানিক, অফিস গুদামরক্ষক, ক্লাসিফায়ার, সার্চার, টেইলার, ওয়ার্ডবয়, মেশিনিস্ট, অফিস সহায়ক, মেস ওয়েটার ও পরিচ্ছন্নতা কর্মীসহ বিভিন্ন পদে নিয়োগ দেওয়া হবে।

পদসংখ্যা: বিভিন্ন পদে সর্বমোট ৬৭৬ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে।

যোগ্যতা: যেকোনো স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে যেকোনো বিষয়ে স্নাতক পাসসহ উচ্চ মাধ্যমিক/মাধ্যমিক/অষ্টম শ্রেণি/পঞ্চম শ্রেণি পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। কিছু কিছু পদের জন্য অভিজ্ঞতার প্রয়োজন আছে। আবেদনের জন্য ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯ তারিখে প্রার্থীর বয়স ন্যূনতম ১৮ থেকে অনূর্ধ্ব ৩০ বছর হতে হবে।

বেতন: জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫ অনুযায়ী বিভিন্ন পদের জন্য বিভিন্ন গ্রেডে (১৩ থেকে ২০তম গ্রেড) বেতন-ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে।

আবেদনের প্রক্রিয়া: আগ্রহী প্রার্থীদের সদ্য তোলা চার কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি, সব শিক্ষাগত ও অভিজ্ঞতার সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্র, জন্মনিবন্ধন সনদ, নাগরিকত্বের সনদপত্রসহ চারিত্রিক সনদপত্র সংযুক্ত করে আবেদন করতে হবে। সকল পদের বিপরীতে পদের সর্ব ডানপার্শ্বের কলামে আবেদন পাঠানোর ঠিকানা উল্লেখ করা আছে। এ ছাড়া আবেদনের সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা আছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

দীপু মনি শিক্ষামন্ত্রী, ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল

চাদপুর প্রতিনিধি,৭ জানুয়ারী: আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি এমপি শিক্ষামন্ত্রী হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়ে চাঁদপুরে আনন্দ মিছিল করেছে জেলা ছাত্রলীগ। সোমবার বিকেলে শহরের কালিবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে থেকে মিছিলটি বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় একই স্থানে এসে শেষ হয়।

পরে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক হুমায়ুন কবির সুমন ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতাউর রহমান পারভেজ।

মিছিলে উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক জহিরুল ইসলাম ও মুন্না, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল রানা, সাধারণ সম্পাদক রবিন পাটওয়ারী, চাঁদপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবিএম রেদওয়ান, সাধারণ সম্পাদক মো. নাছির, পুরাণ বাজার ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি মাহবুবুর রহমানসহ ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মী।

এছাড়াও বিকেলে সাবেক ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা ডা. দীপু মনিকে অভিনন্দন জানিয়ে শহরে পৃথক আরেকটি আনন্দ মিছিল করে।

ঠিকাদারদের সর্তক করলেন মেয়র নাছির

ঠিকাদারদের সর্তক করলেন মেয়র নাছির

পরকীয়ার জেরে স্ত্রীকে হত্যা, স্বামী ও প্রেমিক আটক

পরকীয়ার জেরে স্ত্রীকে হত্যা, স্বামী ও প্রেমিক আটক

স্বাধীনতার পর প্রথম মন্ত্রী বঞ্চিত সিরাজগঞ্জ

স্বাধীনতার পর প্রথম মন্ত্রী বঞ্চিত সিরাজগঞ্জ

শিশুকে ধর্ষণের পর তিনতলা থেকে ফেলে হত্যার অভিযোগ

শিশুকে ধর্ষণের পর তিনতলা থেকে ফেলে হত্যার অভিযোগ

কৃষকের দুই হাতের কবজি কেটে নিলো দুর্বৃত্তরা

কৃষকের দুই হাতের কবজি কেটে নিলো দুর্বৃত্তরা

স্বামী মেয়র স্ত্রী মন্ত্রী

স্বামী মেয়র স্ত্রী মন্ত্রী

অারো খবর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত

সব খবর 

সম্পাদক : শাহজাহান সরদার

প্রকাশক : আনোয়ার হোসেন খান

যোগাযোগের ঠিকানা : রূপায়ন খান প্লাজা, লেভেল-৭, বাড়ি-৫০০/এ, সড়ক-৭, ধানমন্ডি, ঢাকা-১২০৫। ফোন : ০২-৯৬৬২১০৭, +৮৮ ০১৭০৫৪০৭০৮০ (নিউজ রুম) ই-মেইল: (নিউজ) bdjournalnews@gmail.com, (অফিস) info@bd-journal.com. Design and Developed by

© স্বত্ব বাংলাদেশ জার্নাল ২০১৮

close
close
Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ সূচক বিশ্বের ৪১তম অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশ

ডেস্ক , ৭ জানুয়ারী

বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থানের দুই ধাপ উন্নতি হয়েছে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ টেবিল অনুযায়ী, ২০১৯ সালে ৪১-তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। গত বছর যা ছিল ৪৩ তম। গত ডিসেম্বরে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে আভাস দেওয়া হয়েছে, সামনের বছরগুলোতে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে। ২০৩৩ সাল নাগাদ বিশ্বের শীর্ষ ২৫ বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের তালিকায় নাম লেখাবে বাংলাদেশ।|

‘ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ টেবিল (ডব্লিউইএলটি), ২০১৯’ শিরোনামের সমীক্ষা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইকোনমিকস এন্ড বিজনেস রিসার্চ (সিইবিআর)। সিইবিআর-এর প্রতিবেদনের দশম সংস্করণ এটি। ২০০৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত নেওয়া তথ্য পর্যালোচনা করে মূল্যায়ন করা হয়েছে ১৯৩টি দেশের বার্ষিক অবস্থান। পাশাপাশি ভবিষ্যৎ সম্ভাব্যতা বিচার করে ২০৩৩ সাল পর্যন্ত দেশগুলোর অবস্থানের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। তালিকায় শীর্ষ পাঁচ অর্থনীতির দেশ হিসেবে নাম রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি ও ভারতের।

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লীগ টেবিল অনুযায়ী, আগামী ১৫ বছরে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হবে। ২০২৩ সাল নাগাদ শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৩৬ তম হবে। আর ২০২৮ সাল নাগাদ ২৭ তম অবস্থানে চলে আসবে বাংলাদেশ। ২০৩৩ সাল নাগাদ এ অবস্থান হবে ২৪ তম।

সিইবিআর-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘২০১৮-২০৩৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশে গড়ে ৭ শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধি কামনা করি আমরা। এর মধ্য দিয়ে ২০১৮ সালের তুলনায় ২০৩৩ সালে ১৯ ধাপ অগ্রগতি হয়ে ২৪ তম বৃহত্তর অর্থনীতির দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ।’

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লীগ টেবিল অনুযায়ী, ২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও জাপান যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে থাকবে। তবে ২০৩৩ নাগাদ শীর্ষ অবস্থানে থাকবে যথাক্রমে চীন, যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রাথমিকের চেয়ে এগিয়ে কিন্ডারগার্টেন

বাংলানিউজ: প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল পর্যালোচনা করে দেখা গেছে- দেশব্যাপী এবার পাসের হারে সব সরকারি স্কুলের চেয়ে এগিয়ে আছে কিন্ডারগার্টেনগুলো।

এ বছরর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীতে (পিইসি) পাসের হার ৯৭ দশমিক ৫৯ শতাংশ। আর ইবতেদায়িতে এ হার ৯৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ। এ দুই মিলিয়ে পাসের হার ৯৭ দশমিক ৬০ শতাংশ।

এবার ৩৭ হাজার ২০৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৩ লাখ ৮০ হাজার ৫৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। যার পাসের হার ৯৮ দশমকি ১৩ শতাংশ। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে এক লাখ ৩৬ হাজার ১৪৫ জন। 

অপরদিকে, ২২ হাজার ২০২টি কিন্ডারগার্টেনের তিন লাখ ৮৩ হাজার ১০৭ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে পাস করেছে ৯৮ দশমিক ৯২ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে এক লাখ ১১ হাজার ৫৩৬ জন।

এছাড়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫০৩টি স্কুলের ৪৭ হাজার ২৪৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৯৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ। মডেলে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৩ হাজার ৫৮২ জন।

সেইসঙ্গে ৩৪টি বেসরকারি (রেজিস্টার) প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫৪১ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে পাস করে ৯৬ দশমিক ৫২ শতাংশ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৬ জন।

পাশাপাশি এক হাজার ৮৯৫টি উচ্চ বিদ্যালয়ের সঙ্গে সংযুক্ত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক লাখ ৩৯ হাজার ৮৬৭ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করে ৯৮ শতাংশ। এখানে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা ৬৬ হাজার ২৮৭ জন।

আর তিন হাজার ৩৩২টি বেসরকারি (নন রেজিস্টার) প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২৮ হাজার ৫৪৯ জন শিক্ষার্থী পিইসিতে অংশ নিয়ে পাস করে ৯৪ দশমকি ৪৮ শতাংশ। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে এক হাজার ৪৪৩ জন।

এ বছর চার হাজার ৯৯২টি আনন্দ স্কুলের ৮৫ হাজার ৭২০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৮৩ দশমিক ৬১ শতাংশ পাস করে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৯৪ জন।

পাসের হারে সবচেয়ে এগিয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। এবার ৪০টি স্কুলের ছয় হাজার ৩৩০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৯৯ দশমিক ৬৩ শতাংশ পাস করে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪১ হাজার ১৬৬ জন।

সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান পিইসি পরীক্ষার ফলাফল তুলে ধরেন। এ সময় প্রাথমিক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন ও মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পরে এ ফলাফলের সারসংক্ষেপ পর্যালোচনা করে দেখা যায়- পাসের হারের দিক থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তুলনায় কিন্ডারগার্টেন এগিয়ে রয়েছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দর্শনা আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ (প্রস্তাবিত)

দর্শনা-চুয়াডাঙ্গা।

২০১৯ শিক্ষাবর্ষে ৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণিতে ছাত্রছাত্রী ভর্তি চলছে। আবেদন ফরমের সাথে ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি ও নুন্যতম জি.পি.এ ৩.০০ ছাত্রছাত্রীরা আবেদন করতে পারবে। আবেদন ফরমের মূল্য ১০০ টাকা। উল্লেখ্য ছাত্রছাত্রীদের মাসিক বেতন ৬০০ টাকা (স্কুল কোচিং/অতিরিক্ত ক্লাস ফি সহ)। আর কেন খরচের ঝামেলা নেই। প্রত্যেকটি বিষয়ে শিক্ষক অর্নাসসহ মাষ্টার্স পাস। বাড়িতে গৃহশিক্ষক রাখার কোন প্রয়োজন নেই।
ভর্তির শেষ তারিখ: ১৫ জানুয়ারী ২০১৯ইং।
যোগাযোগের অফিস : প্রধান শিক্ষক
দর্শনা আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ
(লিটিল এনজেলস স্কুল সংলগ্ন অস্থায়ী ক্যাম্পাস)
মোবাইলঃ ০১৭২৯৮৩০৭৭৩।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ॥ দামুড়হুদায় সেরা লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুল। ৪৬ জনের মধ্যে ২৮ জন এ প্লাস

দামুড়হুদা প্রতিনিধি ॥ জেলার দামুড়হুদা উপজেলায় পিএসসি ফলাফলে লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুলের অভাবনীয় সাফল্য দেখিয়েছে। উপজেলায় মোট ৪৬৩৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৫৫ জন এ + পেয়েছে। এর মধ্যে দামুড়হুদা দর্শনার লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুল ২৮টি এ+ পেয়ে উপজেলায় প্রথম হয়েছে ও দামুড়হুদা মডেল ২০ টি, পূর্ব রামনগর ১২টি, কেরু ১২ টি এ+ পেয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার রফিকুল ইসলাম ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার সাকি সালামের হাত থেকে ফলাফল গ্রহন করেন অধ্যক্ষ বিকাশ কুমার দত্ত।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের পিএসসি পরীক্ষায় চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলা থেকে ১১৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ১৬ টি কিন্ডারগার্টেনের ছাত্রছাত্রী অংশগ্রহণ করে তাদের মধ্যে দর্শনার লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুল ৪৬ টি ছাত্রছাত্রীর মধ্যে ২৮টি এ+,৭ জন ৪.৮৩ পয়েন্টসহ ১৬ জন এ পেয়ে প্রথম স্থান দখল করেছে।
দর্শনার লিটিল এনজেলস ইন্টাঃ স্কুল অধ্যক্ষ বিকাশ কুমার জানান, সার্বিক ফলাফলে এবার আমার বিদ্যালয় থেকে ভালো করেছে। ২০১৯ সালে আমরা ৪০টি এ+ পাবার আশা করছি। বিদ্যালয়ের ফলাফলে অধ্যক্ষ বিকাশ কুমার দত্ত।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

উত্তরার হোটেল থেকে ভিকারুননিসার সেই শিক্ষিকা গ্রেপ্তার

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

নোয়াখালীতে কলেজছাত্রীকে হত্যা করল ‘মা’

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail