Author Archives: chief editor

অধ্যাপক হচ্ছেন শিক্ষা ক্যাডারের আরও সহস্রাধিক শিক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক,২জুন:

বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারভুক্ত সরকারি কলেজ ও মাদ্রাসা শিক্ষকদের বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটির সভা আয়োজনের লক্ষ্যে কাজ চলছে পুরোদমে। শুধু সহযোগী থেকে অধ্যাপক পদে পদোন্নতির সভা হবে এবারে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা রোববার (২ জুলাই)  জানান, পদোন্নতিযোগ্য কর্মকর্তাদের খসড়া তালিকা প্রস্তুত । খসড়া তালিকা কাল সোমবার অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে দেয়া হতে পারে। আগামী মঙ্গল অথবা বুধবার এসিআর যাচাই-বাছাই হবে। শিক্ষাসচিব দেশে ফিরেছেন গতকাল শনিবার। অতিরিক্ত সচিব (কলেজ) ড. মোল্লা জালাল উদ্দিন বিদেশে যাবেন ৯ জুলাই। ৭ জুলাইয়ের আগে ডিপিসির সভা অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা নেই বলে  নিশ্চিত করেছেন মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিবের সভাপতিত্বে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটির সভা অনুষ্ঠানের পরপরই  পদায়ন আদেশ জারি হতে পারে।

জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোহরাব হোসাইন বলেন, শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের পদোন্নতি দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ চলছে। ডিপিসি সভায় চূড়ান্ত হবে।

কারা পাবেন পদোন্নতি :  অধ্যাপক পদে বিভিন্ন বিষয়ে এবার প্রায় সর্বনিম্ন ২৫০ ও সর্বোচ্চ এক হাজার তিনশ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়া হতে পারে। চলতি বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত অবসরে যাওয়া, রিজার্ভ পদ ইত্যাদি মিলে কমপক্ষে ২৫০ জন পদোন্নতির যোগ্য। এদের মধ্যে ৯ম, দশম ও এগারো ব্যাচের একজন করে। আত্তীকৃত রয়েছেন ১০ জন। বাদবাকীরা ১৪তম বি সিএসের। ১৪তম ব্যাচে প্রায় ১৮০০ কর্মকর্তা থাকলেও ১২৮৫ জন পদোন্নতিযোগ্য। তবে শিক্ষা ক্যাডারে বিষয়ভিত্তিক শূন্য পদের বিপরীতে পদোন্নতি দেওয়া হয়।

১৪তম ব্যাচের সব কর্মকর্তা অধ্যাপকের স্কেলে বেতন পাচ্ছেন।

অধিদপ্তরের একজন পরিচালক বলেন, সেই হিসেবে ডিপিসি সভাপতিকে বোঝানো হবে যে, এঁদেরকে পদোন্নতি দিলে সরকারের কোনো আর্থিক ক্ষতি নেই। সচিব স্যার রাজী হলে প্রায় একহাজার তিনশজন পদোন্নতি পাবেন।

বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারভুক্ত সরকারি কলেজের শিক্ষকরা জানান, তাদের একই পদে ১২ থেকে ১৪ বছর পর্যন্ত চাকরি করতে হয়। পদোন্নতির জন্য আর কোনো ক্যাডারে এভাবে অপেক্ষা করতে হয় না।

জানা গেছে, শিক্ষা ক্যাডারে দীর্ঘদিন ধরে পদোন্নতি বঞ্চনা চলছে। অন্য ক্যাডারে ব্যাচভিত্তিক পদোন্নতি দেওয়া হলেও এই ক্যাডারে বিষয়ভিত্তিক পদোন্নতি দেওয়া হয়। এ কারণে বিভিন্ন কলেজে জুনিয়ররা চাকরিতে সিনিয়রদের ওপরে উঠে গেছেন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

এক নজরে বিশ্ব ক্রীড়া সংস্থা:

> সংস্থা/সংগঠন : ফিফা

প্রতিষ্ঠাকাল : ২১ মে ১৯০৪

সদর দপ্তর : জুরিখ, সুইজারল্যান্ড

সদস্য সংখ্যা : ২০৯

ফিফা বিশ্বকাপ (ইংরেজি: FIFA World Cup) একটি আন্তর্জাতিক ফুটবল প্রতিযোগিতা যেখানে ফিফা সহযোগী দেশগুলোর পুরুষ জাতীয় ফুটবল দল অংশ নেয়। ফিফা বিশ্ব ফুটবল নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা। ১৯৩০ সালে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয় এবং এখন পর্যন্ত চার বছর পর পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মাঝে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে ১৯৪২ ও ১৯৪৬ সালে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়নি।

প্রতিযোগিতাটি দুটি ভাগে বিভক্ত, বাছাই পর্ব ও চুড়ান্ত পর্ব (মূল বিশ্বকাপ)। চুড়ান্ত পর্যায়ে কোন দল খেলবে তা নির্বাচনের জন্য অংশগ্রহনকারী দলগুলোকে বাছাই পর্বে অংশ নিতে হয়। বর্তমানে মূল বিশ্বকাপের আগের তিন বছর ধরে প্রতিযোগিতার বাছাই পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতার বর্তমান ধরন অনুযায়ী ৩২টি জাতীয় দল চুড়ান্ত পর্বে অংশ নেয়। আয়োজক দেশে প্রায় একমাস ধরে এই চূড়ান্ত পর্বের প্রতিযোগিতা চলে। দর্শক সংখ্যার দিক দিয়ে বিশ্বকাপ মূল পর্ব বিশ্বের বৃহত্তম অনুষ্ঠান। ফিফার হিসেব অনুযায়ী ২০০৬ সালের বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলা দেখেছেন প্রায় ৭১৫.১ মিলিয়ন দর্শক।
সংস্থাপিত     ১৯৩০
দলের সংখ্যা     ৩২ (চূড়ান্ত পর্ব)
২০৪ (২০১০ সালের বাছাইপর্বে)
বর্তমান চ্যাম্পিয়ন      জার্মানি (৪র্থ শিরোপা)
সর্বাধিক সফল দল(সমূহ)      ব্রাজিল (৫ম শিরোপা)
শীর্ষ গোলদাতা
গোল     গোলদাতা
১৬     জার্মানি মিরোস্লাভ ক্লোসা
১৫     ব্রাজিল রোনালদো
১৪     জার্মানি গার্ড মুলার
১৩     ফ্রান্স জাঁ ফতেইন

এ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত ১৮টি আসরে কেবল ৭টি জাতীয় দল বিশ্বকাপ শিরোপা জিতেছে। ৫ বার বিশ্বকাপ জিতে ব্রাজিল হচ্ছে বিশ্বকাপের সফলতম দল। বর্তমান শিরোপাধারী ইতালি এবং জার্মানি  ৪টি শিরোপা নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। অন্যান্যদের মধ্যে উরুগুয়ে (প্রথম বিশ্বকাপ জয়ী) ও আর্জেন্টিনা দু’বার করে এবং ইংল্যান্ড ও ফ্রান্স একবার করে শিরোপা জিতেছে।

সর্বশেষ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে ব্রাজিলে, ২০১৪ সালে। এই বিশ্বকাপে জার্মানি আর্জেন্টিনাকে ফাইনালে পরাজিত করে শিরোপা জিতে নিয়েছে। পরবর্তী বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে ২০১৮ সালে এবং এটির আয়োজন করছে রাশিয়া। ২০২২ সালের বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে  কাতারে।

১৯৯১ সাল থেকে ফিফা ফিফা মহিলা বিশ্বকাপ আয়োজন শুরু করেছে। এটিও সাধারণ বিশ্বকাপের মত চার বছর পর পর অনুষ্ঠিত হয়।

> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল

প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৫ জুন ১৯০৯

সদর দপ্তর : দুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত

সদস্য সংখ্যা : ১০৪

> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি

প্রতিষ্ঠাকাল :  ২৩ জুন ১৮৯৪

সদর দপ্তর : লুজান, সুইজারল্যান্ড

সদস্য সংখ্যা : ২০৫

> সংস্থা /সংগঠন : এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন

প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৯৫৪

সদর দপ্তর : কুয়ালালামপুর, মালয়েশিয়া

সদস্য সংখ্যা : ৪৬

> সংস্থা /সংগঠন : এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল

প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৯৮৩

সদর দপ্তর : কুয়ালালাপুর, মালয়েশিয়া

সদস্য সংখ্যা : ২২

> সংস্থা /সংগঠন : আন্তার্জাতিক অ্যাসোসিয়েশন অব অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন

প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৯১২

সদর দপ্তর : মোনাকো

সদস্য সংখ্যা : ২১২

> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন

প্রতিষ্ঠাকাল :  ৭ জানুয়ারি ১৯২৪

সদর দপ্তর : লুজান, সুইজারল্যান্ড

সদস্য সংখ্যা : ১২৭

> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল ফেডারেশন

প্রতিষ্ঠাকাল :  ১১ জুলাই ১৯৪৬

সদর দপ্তর :

সদস্য সংখ্যা : ১৫৯

> দর্শক ধারণ ক্ষমতায় বিশ্বের বৃহত্তম স্টেডিয়াম

–ইন্ডিয়ানাপোলিস স্পিডওয়ে স্টেডিয়াম অবস্তান স্পিডওয়ে, যুক্তরাষ্ট্র, প্রতিষ্ঠা ১৯০৯ ধরন রেস ধারণ ক্ষমতা ২,৫০,০০০ জন।

> দর্শক ধারণ ক্ষমতায় বিশ্বের বৃহত্তম ফুটবল স্টেডিয়াম

–বংগ্রাডো মে ডে স্টেডিয়াম অবস্তান পিয়ংইয়ং, উত্তর কোরিয়া ধারণ ক্ষমতা ১,৫০,০০০ জন।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ তুলে প্রধান শিক্ষককে লাঞ্ছিত

যশোর প্রতিনিধি :যশোরের মণিরামপুরে অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ তুলে প্রধান শিক্ষকে লাঞ্ছিত ও বিদ্যালয় কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার মণিরামপুর উপজেলার জয়পুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয় লোকজন ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, জয়পুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পরিতোষ সরকারের সঙ্গে একই বিদ্যালয়ের এক শিক্ষিকার অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রয়েছে। এই অভিযোগের জের ধরে শনিবার স্থানীয় কিছু লোকজন স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

পরে প্রধান শিক্ষক ওই তালা ভেঙে কক্ষে প্রবেশ করলে বিক্ষুব্ধরা তাকে অবরুদ্ধ করে মারমুখী অবস্থান নেন এবং প্রধান শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেন। খবর পেয়ে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা ও স্থানীয় আরও কিছু লোকজন এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

মণিরামপুরের জয়পুর গ্রামের তোরাব আলী, শাহিন, মকলেছুর রহমানসহ একাধিক অভিভাবক অভিযোগ করেন, প্রধান শিক্ষক ও এক শিক্ষিকার অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি নিয়ে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। তাই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে তারা প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষিকাকে বিদ্যালয়ে ঢুকতে বাধা দেন।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আব্দুল গফুর সরদার বলেন, প্রধান শিক্ষক পরিতোষ সরকারের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে একই স্কুলের এক শিক্ষিকার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রয়েছে। গত ৩০ মে ওই শিক্ষিকার বাড়িতে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ায় তাকে মারপিটেরও শিকার হতে হয় বলে তিনি দাবি করেন।

ম্যানেজিং কমিটির অপর সদস্য আব্দুল হামিদ বলেন, পরিতোষ সরকার বার বার এমন অপরাধ করলেও স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীকে ম্যানেজ করে পার পেয়ে যাচ্ছেন।

তবে প্রধান শিক্ষক পরিতোষ সরকার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, গত ২৯ মে ওই শিক্ষিকার ছেলে বিদেশ থেকে বাড়িতে আসায় স্থানীয় কতিপয় যুবক চাঁদা দাবি করে। বিষয়টি দেখার জন্য বাড়িতে ডাকেন ওই শিক্ষিকা। এ সময় ওই শিক্ষিকার বাড়িতে কতিপয় যুবকের সঙ্গে তার ধস্তাধস্তি হয়। পরে এ ঘটনাকে পুঁজি করে এলাকার কিছু স্বার্থান্বেষী মহল কুৎসা রটাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান দুর্গাপদ সিংহ বলেন, প্রধান শিক্ষক পরিতোষ সরকারের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে, সেটি সঠিক নয়। আর বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মুন্তাজ মহলদার বলেন, ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মণিরামপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আকরাম হোসেন খান বলেন, বিষয়টি তিনি অবগত হয়েছেন। রোববার সরেজমনি গিয়ে তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

অগ্রণী ব্যাংকের লিখিত পরীক্ষা ১৪ জুলাই

ডেস্ক | জুলাই ১:

অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডে সিনিয়র অফিসার নিয়োগের এমসিকিউ পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের লিখিত পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশিত হয়েছে।

আগামী ১৪ জুলাই শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯ টা থেকে সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত দুইশ’ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকার তিন কেন্দ্রে – সিদ্ধেশ্বরী ডিগ্রি কলেজ, মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে এ পরীক্ষা নেয়া হবে।

লিখিত পরীক্ষার জন্য কোনো নতুন প্রবেশপত্র ইস্যু করা হবে না। এমসিকিউ পরীক্ষার প্রবেশপত্রসহই প্রার্থীরা লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন। পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে আধা ঘন্টা পূর্বে প্রার্থীদের পরীক্ষার কেন্দ্রে উপস্থিত হতে হবে বলে জানিয়েছেন বিএসসির সদস্য সচিব মোঃ মোশাররফ হোসেন খান।

বিজ্ঞপ্তি দেখতে এখানে কিক্ল করুন

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

আইনস্টাইন-হকিংকে ছাড়িয়ে গেল যে শিশুটি!

ডেস্ক,৩০জুন: তার বয়স মাত্র ১১ বছর। অথচ এই বয়সেই আলবার্ট আইনস্টাইন ও স্টিফেন হকিংয়ের মতো বিখ্যাত বিজ্ঞানীর চেয়েও বুদ্ধিমান সে। নাম তার অর্ণব শর্মা। সম্প্রতি বুদ্ধিমত্তার পরীক্ষায় আইনস্টাইন ও হকিংয়ের চেয়ে দুই নম্বর বেশি পেয়েছে সে!

বুদ্ধিমত্তা মাপার পরীক্ষাগুলোর মধ্যে মেনসা টেস্ট অন্যতম। খুব কঠিন পরীক্ষা বলে এর ‘কুখ্যাতি’ আছে। আর সেই পরীক্ষাতে কোনো পূর্বপ্রস্তুতি ছাড়াই অংশ নিয়েছিল অর্ণব। যুক্তরাজ্যের দক্ষিণাঞ্চলের রিডিং শহরে মা-বাবার সঙ্গে থাকে সে।

মেনসা টেস্টে ১৬২ নম্বর পেয়েছে অর্ণব। অথচ পরীক্ষায় বসার আগে এর প্রশ্ন সম্পর্কে কোনো ধারণাই ছিল না তার। স্রেফ মনের জোরেই কয়েক সপ্তাহ আগে পরীক্ষায় বসে সে। আর তার পরই ইতিহাস।

মেনসার পক্ষ থেকে একজন মুখপাত্র বলেছেন, অর্ণব যে নম্বর পেয়েছে, তা খুব কম মানুষই অর্জন করতে পেরেছে।

১৯৪৬ সালে অক্সফোর্ডে বিজ্ঞানী ল্যান্সেলট লিওনেল ওয়্যার ও আইনজীবী রোল্যান্ড বেরিল মেনসা সোসাইটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। পরে সারা বিশ্বে এটি ছড়িয়ে পড়ে। সাধারণত কোনো নির্দিষ্ট জনসংখ্যার শীর্ষ ২ শতাংশ বুদ্ধিমান মানুষকে এই সোসাইটির সদস্যপদ দেওয়া হয়। তবে এর জন্য মেনসা অনুমোদিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়।

ব্রিটিশ অনলাইন পত্রিকা দ্য ইনডিপেনডেন্ট জানিয়েছে, পরীক্ষার প্রাথমিক ফল নির্ধারণের জন্য মৌখিক যুক্তির সক্ষমতাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়। এতে বুদ্ধিমত্তার মাত্রায় যুক্তরাজ্যের শীর্ষস্থানীয় ১ শতাংশ মেধাবীদের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে সে।

অর্ণব বলেছে, ‘মেনসা টেস্ট বেশ কঠিন। আমি এতে উত্তীর্ণ হওয়ার আশা করিনি। আমার পরীক্ষাটি শেষ করতে আড়াই ঘণ্টার মতো লেগেছিল।’ সে জানিয়েছে, মাত্র সাত-আটজন পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। এর মধ্যে বেশির ভাগই ছিল প্রাপ্তবয়স্ক।

অবশ্য এতে ঘাবড়ে যায়নি অর্ণব। সে বলেছে, ‘আমার কোনো প্রস্তুতি ছিল না। কিন্তু আমি কোনো স্নায়বিক চাপে ভুগিনি। পরীক্ষার ফল শুনে মা-বাবা কিছুটা বিস্মিত হয়েছেন ঠিকই। তবে তাঁরা বেশ খুশিও হয়েছেন।’

অর্ণবের মা মিশা ধামিজা শর্মা বলেন, ‘পরীক্ষার পুরোটা সময় আমি প্রার্থনা করেছি। ভাবছিলাম, কী জানি কী হয়! কারণ, এর আগে মেনসা টেস্টের কোনো প্রশ্নপত্রও দেখেনি সে।’

পড়াশোনায় হাতেখড়ির পর থেকেই গণিতে ভালো দক্ষতা ছিল অর্ণবের। তার মা জানান, মাত্র আড়াই বছর বয়সেই ছেলের প্রতিভা সম্পর্কে বুঝতে পেরেছিলেন। মিশা ধামিজা শর্মা বলেন, ‘তখনই এক শর বেশি গুনতে পারত সে।’

রিডিং শহরের ক্রসফিল্ডস স্কুলে পড়াশোনা করে অর্ণব। এরই মধ্যে ইটন কলেজ ও ওয়েস্টমিনস্টারে নির্বাচিত হয়েছে সে। এ দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই বেশ প্রতিযোগিতাপূর্ণ।

তবে অর্ণব শুধু গণিতেই ভালো, তা কিন্তু নয়। গান ও নাচের প্রতিও আগ্রহ আছে তার। আট বছর বয়সেই একটি নাচের প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে উঠেছিল সে।

প্রথম আলো হতে সংগৃহিত

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জন্ম হওয়া শিশুর মাথাপিছুঋণ ৪৬ হাজার ১৭৭ টাকা

ডেস্ক,৩০ জুন: ঠিক এই মুহূর্তে সদ্যজাত যে শিশুটির জন্ম হলো, আগামীকাল ১ জুলাই থেকে শুরু হতে যাওয়া নতুন অর্থবছরে তারও মাথাপিছু ঋণ ৪৬ হাজার ১৭৭ টাকা। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে যা ছিল প্রায় ৪০ হাজার টাকা। অর্থাৎ দেশের প্রতিটি মানুষ ৪৬ হাজার টাকার ঋণের বোঝা নিয়ে শুরু করছে ২০১৭-১৮ অর্থবছর।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, অর্থমন্ত্রী বড় বাজেট দিলেও বেশি আয় করতে পারছেন না। এতে বাড়ছে বাজেট ঘাটতি। আর তা মেটাতে তার ভরসা এখন ঋণ। এই ঋণ প্রতিবছরই বাড়ছে। এর ফলে জনগণের উপর ঋণের বোঝা বাড়ছেই।

তাদের মতে, এতে বাজেট শৃঙ্খলাও নষ্ট হচ্ছে। বিশাল অংকের টাকাও খরচ হয়ে যাচ্ছে সুদ পরিশোধে। সুদ পরিশোধে এত বেশি অর্থ বরাদ্দ রাখতে না হলে সরকার শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বেশি রাখতে পারত।

এ দিকে গত ১ জুন বাজেট পেশের দিন প্রকাশিত মধ্যমেয়াদি সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি বাজেটের আকার বাড়ছে, কিন্তু অভ্যন্তরীণ সম্পদ বাড়ছে না। ফলে বাজেট ঘাটতি বেড়ে চলেছে এবং সরকার বাধ্য হয়ে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক উৎস থেকে ঋণ নিচ্ছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাওয়া তথ্য মতে, চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছর শেষে দেশি-বিদেশি মিলিয়ে রাষ্ট্রের মোট ঋণ দাঁড়াবে ৭ লাখ ৬১ হাজার ৯৩০ কোটি টাকা; যা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৩৪ দশমিক ৫ শতাংশ।

এর মধ্যে দেশের ভেতর থেকে নেয়া ঋণের পরিমাণ ৪ লাখ ৭১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা এবং বৈদেশিক ঋণ ২ লাখ ৯০ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা।

সদ্য সমাপ্ত ২০১৬-১৭ অর্থবছরে পুরো দেশের মানুষের ওপর ৬ লাখ ৫৯ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা ঋণ ছিল। সুদসহ আগের বছরগুলোর মূল টাকাও সরকার প্রতিবছর পরিশোধ করে আসছে। পরিশোধ না হওয়া টাকা জমতে জমতেই ঋণের বোঝা এত বড় হয়েছে।

এ দিকে গত ৩০ মে দেশের জনসংখ্যার একটি হিসাব দিয়েছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)। বিবিএস আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছে, গত ১ জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ১৭ লাখ ৫০ হাজার। সে হিসেবে আগামী অর্থবছর শেষে দেশের জনসংখ্যা দাঁড়াবে ১৬ কোটি ৫০ লাখ এবং মাথাপিছু ঋণ দাঁড়াবে ৪৬ হাজার ১৭৭ টাকা। সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে মাথাপিছু ঋণ ছিল ৩৯ হাজার ৯৬৩ টাকা।

এ বিষয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম বলেন, বাজেট ঘাটতি মেটাতে সরকারকে ব্যয়বহুল ঋণ বেশি নিতে হচ্ছে। এর অর্থই হচ্ছে স্বাস্থ্য ও শিক্ষার মতো অগ্রাধিকার খাতগুলোতে সরকার প্রয়োজন অনুযায়ী বরাদ্দ রাখতে পারছে না।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর মনে করেন, সরকার ঠিক মতো ঋণ ব্যবস্থাপনা করতে পারছে না বলেই এর দায় নিতে হচ্ছে জনগণকে।

তিনি বলেন, একসময় দেশি-বিদেশি ঋণের হার ছিল অর্ধেক-অর্ধেক। বিদেশ থেকে ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে যেহেতু স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার প্রশ্নটি থাকে, সরকার তাই সে পথে যায় না। সরকার সহজ পথ হিসেবে বেছে নেয় বেশি সুদের অভ্যন্তরীণ উৎসকে।

সুষ্ঠু ঋণ ব্যবস্থাপনার জন্য আহসান এইচ মনসুর আলাদা একটি বিভাগ গঠনের পরামর্শ দেন।

এ দিকে নতুন ভ্যাট আইন থেকে পিছিয়ে আসায় এলোমেলো হয়ে গেছে নতুন বাজেট। নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন করে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আয়ের পরিকল্পনা ছিল অর্থমন্ত্রীর। আর বেশি আয়ের ওপর নির্ভর করেই বিশাল একটি বাজেট তৈরি করা হয়েছিল। সেই পরিকল্পনায় বড় ধরনের ধাক্কা খেলেন অর্থমন্ত্রী ও সরকার। ফলে বাস্তবায়ন নিয়ে প্রশ্ন উঠে গেল বাজেট পাসের সঙ্গে সঙ্গেই। এমনকি সরকারের ঋণ গ্রহণের পরিমাণ বাড়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

চলতি অর্থবছরের জন্য পাস হওয়া ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকার বাজেটের মধ্যে অনুন্নয়ন বাজেট ২ লাখ ৪৫ হাজার ১৪ কোটি টাকার। এর মধ্যে সুদ পরিশোধে রাখা হয়েছে ৪১ হাজার ৪৫৭ কোটি টাকা, যার মধ্যে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদই ৩৯ হাজার ৫১১ কোটি টাকা।

মোট বাজেটের প্রায় ১৭ শতাংশ অর্থই ব্যয় হচ্ছে ঋণের সুদ পরিশোধে। সুদ পরিশোধের পুরো বরাদ্দ কোন কোন খাতে ব্যয় করা হবে, বাজেটে তার চিত্রও তুলে ধরা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি টাকা ব্যয় হবে সঞ্চয়পত্রের সুদে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যয় হবে মেয়াদি ঋণের সুদে।

বাজেট সংক্ষিপ্তসারের অনুন্নয়ন ও উন্নয়ন ব্যয়ের অর্থনৈতিক বিশ্লেষণ অনুযায়ী, আগামী অর্থবছরে সঞ্চয়পত্রের সুদ দিতে বরাদ্দ রাখা আছে ১৯ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছরে ১৬ হাজার ৭৩৬ কোটি টাকা রাখা হলেও সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে করা হয় ১৫ হাজার ৫৯৯ কোটি টাকা। আর আগামী অর্থবছরে ১৪ হাজার ৫৩৬ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা আছে মেয়াদি ঋণের সুদ বাবদ।

যদিও ১০ মাসেই (জুলাই-এপ্রিল) ৪৩ হাজার কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। সংশোধিত বাজেটে বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা ৪৫ হাজার কোটি টাকা ধরা হয়। অথচ চলতি অর্থবছরে ১৯ হাজার ৬১০ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা ছিল। আগামী অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা ৩০ হাজার ১৫০ কোটি টাকা।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পদ দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত -শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক,৩০ জুন: দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ২০ হাজার ৫১৬টি প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে। এ ছাড়া মাধ্যমিকের বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকের পদ শূন্য আছে প্রায় ২ হাজার।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের সদস্য এ কে এম মাঈদুল ইসলাম ও এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এই তথ্য জানান।

এ কে এম মাঈদুল ইসলামের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পদ দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত হয়েছে। তাই এই পদের নিয়োগ বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন থেকে সম্পন্ন হবে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ৩৪ তম বিসিএস থেকে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগে সুপারিশ করে ৮৯৮ জনের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। প্রার্থীদের নিয়োগে স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন ও পুলিশ প্রত্যয়নের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

সরকারি দলের এম আবদুল লতিফের এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী সংসদকে জানান, বর্তমানে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সামাজিক বিজ্ঞান, ইসলাম ধর্ম, ভূগোল, ভৌত বিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা, শারীরিক শিক্ষা, চারু ও কারুকলা, কৃষিশিক্ষা বিষয়ে শূন্য পদের বিপরীতে শিক্ষক নিয়োগের কার্যক্রম চলছে। পিএসসি গত বছরের ১৪ আগস্ট সহকারী শিক্ষকের (বিষয়ভিত্তিক) শূন্য পদে নিয়োগের জন্য ৪৫০ জন প্রার্থীর নাম সুপারিশ করেছে। সুপারিশ করা ব্যক্তিদের পুলিশি প্রত্যয়ন চলছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রধান শিক্ষকদের ক্লাস নেয়াসহ ১৫ নির্দেশনা প্রাথমিকে-সংশোধনের দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক,৩০জুন:

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের ১ম ও শেষ পিরিয়ডে ক্লাস নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সম্প্রতি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে একটি পরিপত্র জারি করেছে। যুগ্মসচিব মো. আব্দুল মান্নানের স্বাক্ষরিত পরিপত্রে শিক্ষকদের জন্য ১৫টি নির্দেশনা রয়েছে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়মিত স্কুলমুখী করতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বেশ কয়েকটি নির্দেশনা গ্রহণ করেছে। নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে- প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি কার্যক্রম জানুয়ারির মধ্যে সম্পন্নকরণ, ক্লাস রুটিনে প্রথম পিরিয়ড ও শেষ পিরিয়ডে প্রধান শিক্ষককে ক্লাস নিতে হবে, শিক্ষকদের ক্লসে প্রবেশের পূর্বে ‘লেসন প্লান’ অনুযায়ী ডিজিটাল কন্টেন্ট তৈরি করা, কন্টেন্ট বা লেসন প্লান নিয়ে প্রতি সপ্তাহে প্রধান শিক্ষকসহ অন্য শিক্ষকদের সমন্বয়ে তা মূল্যায়ন করতে হবে, প্রতিটি শ্রেণিতে দুর্বল শিক্ষার্থীদের আলাদাভাবে যত্ন নিয়ে সক্ষমতা, শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার ব্যবস্থা, স্টুডেন্ট কাউন্সিল গঠন, শিক্ষকদের আচার আচরণ ড্রেস কোড নিশ্চিতকরণ, শিক্ষার্থীদের ড্রেস প্রদান ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার পরামর্শ, স্বাস্থ্যগত পরামর্শ ও ফাস্ট এইড ব্যবহারসহ ১৫টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সব স্কুলগুলোকে এসব নির্দেশনা বাধ্যতামূলক অনুসরণ করার নির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিষয়গুলো জেলা-উপজেলা শিক্ষা অফিসারদের মনিটরিং করার নির্দেশানও দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি নিয়মিত প্রতিবেদন প্রদানের নির্দেশ করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, প্রাথমিক স্কুলে ঝড়ে পড়ার হার রোধ ও মানসম্মত শিক্ষা প্রদানে এমন পরিপত্র জারি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, যারা এসব নির্দেশনা অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যপারে প্রধান শিক্ষক সমিতি কেন্দ্রিয় কমিটির সিনিয়ার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক স্বরুপ দান বলেন প্রধান শিক্ষকরা বিদ্যালয়ের প্রান। একজন প্রধান শিক্ষক যেমন চান বিদ্যালয়টি তেমনই হতে পারে। সাধারনত বেশির ভাগ প্রধান শিক্ষক ক্লাস রুটিন অনুযায়ী গণিত এবং ইংরেজি বিষয়ে ক্লাস নিয়ে থাকেন। কিন্তু প্রথম এবং শেষ ক্লাসে সাধারনত বাংলা এবং ধর্ম বিষয়ে ক্লাস নেয়া হয়।  সেক্ষেত্রে তাদের ক্ষেত্রে এ নির্দেশনা বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান উন্নয়নে ব্যহত হতে পারে বলে মনে করেন ঐ শিক্ষক নেতা।

এক্ষেত্রে পরিপত্র সংশোধন করে স্ব-স্ব বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দক্ষতা অনুযায়ী ক্লাস নেবার দাবী জানান তিনি।

 

 

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি: ১০ শতাংশ কোটাধারীরাও থাকছেন

দৈনিক শিক্ষা ডেস্ক,৩০জুন:

বি সি এস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে সহযোগী অধ্যাপকদের পদোন্নতির লক্ষ্যে তৈরি করা খসড়ায় শুরুতে বাদ দেয়া হয়েছিলো ১০ শতাংশ কোটায় নিয়োগপ্রাপ্তদের।

তবে, আগামী রোববার নাগাদ খসড়া তালিকা প্রকাশের আগে শতাংশ কোটাধারীদেরও তালিকাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গত কয়েকদিনে জনাবিশেক ১০ শতাংশ কোটাধারী পদোন্নতির জন্য আবেদন করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষা অধিদপ্তরের একাধিক কর্মকর্তা  জানান, ১০ শতাংশধারীদের বাদ দিয়েই খসড়া তৈরি হয়। পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হয়।পিএসসির বিধান মেনে তাদেরকে পদোন্নতি দেয়া হবে। ত্রিপক্ষীয় বৈঠক হবে।

শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের অবহেলায় এসিআর খোয়া যাওয়ায় ঈদের আগে পদোন্নতি কমিটির সভা বসতে পারেনি বলে জানান কর্মকর্তারা।

সরাসরি বি সি এস পরীক্ষা দিয়ে সরকারি কলেজে প্রভাষক হিসেবে নিয়োগ পান বেশিরভাগ সরকারি কলেজ শিক্ষক। এছাড়া জাতীয়কৃত কলেজ থেকে শিক্ষকরা আত্তীকৃত হয়ে ক্যাডারভুক্ত হন।  এছাড়া রাষ্ট্রপতির কোটায় ১০ শতাংশ শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়। কোটায় নিয়োগ পেতে আলাদা আবেদন করতে হয়।

উচচতর ডিগ্রিধারী বেসরকারি কলেজ শিক্ষকদের সরকারি কলেজে চাকরির সুযোগ দেয়ার লক্ষ্যে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু ২০ শতাংশ কোটা পদ্ধতি চালু করেন। এরশাদের আমলে সেটা কমিয়ে ১০ শতাংশ করা হয়। সরকারি কলেজ শিক্ষকরাও এখন এই সুযোগ নিয়ে থাকেন। ভালো শিক্ষাগত যোগ্যতা, মানে এমফিল, পিএইচডি অথবা সব ফার্স্টক্লাশ অথবা প্রকাশনা না থাকলে ১০ শতাংশ কোটায় আবেদন করা যায় না।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

রাজনীতির দাপটে ব্লকবাস্টার থেকে নেমে গেল হলিউডের ছবি!

বিনোদন ডেস্ক: শাকিব খান-অপু বিশ্বাস অভিনীত রাজনীতি ছবিটি ঢাকার মধ্যে শুধুমাত্র ব্লকবাস্টার সিনেমাসে চলছে। মুক্তির পর থেকেই ছবিটি দর্শকদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে এসেছে। দর্শকদের বাড়তি আগ্রহের কারণে ব্লকবাস্টার সিনেমাস কর্তৃপক্ষ শুক্রবার থেকে রাজনীতি ছবির চারটি প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করেছে।

আর এই রাজনীতি ছবির দাফটের কারণে হলিউডের `পাওয়ার রেঞ্জার্স` ছবিটির প্রদর্শনী বন্ধ করা হয়েছে। যেটি ডিন ইসরাএলিট পরিচালিত ২০১৭ সালের বহুল আলোচিত আমেরিকান সুপার হিরো অ্যাকশন, অ্যাডভেঞ্চার, সাইন্স ফিকশন ছবি।

এমনটাই জানিয়েছেন রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের ব্লকবাস্টার সিনেমাসের ম্যানেজার মাসুদ পারভেজ।

শুক্রবার বিকেলে তিনি বলেন, মুক্তির প্রথম সপ্তাহে রাজনীতি ছবি প্রতিদিন তিনটি করে প্রদর্শনী ছিল। এই সপ্তাহে চারটি করে প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়েছে দর্শকদের চাপে।

সেজন্য বাধ্য হয়ে হলিউডের পাওয়ার রেঞ্জারর্স এর প্রদর্শনী বন্ধ করে দিয়েছি। যার ফলে সেখানে এখন রাজনীতি চলবে। মোট চারটি প্রদর্শনীর সময় হচ্ছে ১২:৩০ মিনিট, ৩:৩০ মিনিট, ৬:৪০ মিনিট এবং ৭:৩০ মিনিট।

তিনি আরও বলেন, এখনও পর্যন্ত যারা হলে রাজনীতি ছবি দেখছেন, কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। সবাই ছবিটির প্রশংসা করছেন। আমরাও ছবিটি চালাতে পেরে খুশি।

রাজধানীর ব্লকবাস্টারসহ দেশব্যাপী ৪০টি সিনেমাহলে রাজনীতি মুক্তি পেয়েছে। এই ছবিটি পরিচালনা করেছেন বুলবুল বিশ্বাস।

জানা গেছে, রাজনীতি ছবিটি ব্লকবাস্টারে বসে উপভোগ করার জন্য আজ সন্ধ্যা ৬:৪০ মিনিটের শোতে উপস্থিত থাকবেন শাকিব খান নিজেই। শাকিব-অপু ছাড়াও ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন আনিসুর রহমান মিলন, ডিজে সোহেল, অমিত হাসান, শিবা শানু, আলী রাজ প্রমুখ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

নৌবাহিনীতে অফিসার পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

ডেস্ক:বাংলাদেশ নৌবাহিনী সম্প্রতি ২০১৮ সালের অফিসার ক্যাডেট ব্যাচ-পুরুষ (দ্বিতীয় গ্রুপে) নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে আবেদন করতে পারবেন শুধু পুরুষ প্রার্থীরা। আবেদনপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ১৩ আগস্ট ২০১৭।

বয়স : আগামী ১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে প্রার্থীদের বয়স সাড়ে ১৬ বছর থেকে ২১ বছর, তবে সশস্ত্র বাহিনীতে কর্মরত প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বয়স ১৮ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে হতে হবে।

শারীরিক যোগ্যতা : পুরুষ প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা পাঁচ ফুট চার ইঞ্চি, ওজন ৫০ কেজি, বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ৩০ ইঞ্চি এবং প্রসারিত অবস্থায় ৩২ ইঞ্চি হতে হবে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা : আবেদনকারীকে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক (বিজ্ঞান বিভাগে) অথবা সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে ৪.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে এবং উভয় পরীক্ষায় পদার্থবিজ্ঞান ও গণিতে জিপিএ ৪ পেতে হবে। অথবা ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের জন্য ‘ও’ লেভেলে ছয়টি বিষয়ের মধ্যে কমপক্ষে তিনটি বিষয়ে ‘এ’ গ্রেড এবং দু’টি বিষয়ে ‘বি’ গ্রেড পেতে হবে এবং ‘এ’ লেভেলে কমপক্ষে দু’টি বিষয়ে (উভয় পরীক্ষায় পদার্থবিজ্ঞান ও গণিতসহ) ‘বি’ গ্রেড থাকতে হবে।

অথবা সশস্ত্র বাহিনীতে কর্মরত প্রার্থীদের নৌবাহিনীর উচ্চমান পরীক্ষা (এইচইটি) বা সমমানের বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বাংলাদেশ বিমানবাহিনী পরীক্ষায় কৃতকার্য হতে হবে। শুধু সরবরাহ শাখায় আবেদনের জন্য প্রার্থীকে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় (ব্যবসায় শিক্ষা শাখা) জিপিএ ৪.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় হিসাববিজ্ঞান ও ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে জিপিএ ৪ পেতে হবে। ২০১৮-তে অফিসার ক্যাডেট ব্যাচে শুধু পুরুষ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

বৈবাহিক অবস্থা : অবিবাহিত পুরুষ ও বাংলাদেশের পুরুষ নাগরিক হতে হবে।

আবেদন প্রক্রিয়া : নৌবাহিনীতে অফিসার ক্যাডেট হিসেবে আবেদনের দু’টি পদ্ধতি রয়েছে। অনলাইনের মাধ্যমে ও সরাসরি ফরম পূরণ করে।

অনলাইন পদ্ধতি (টিবিএমএম অ্যাকাউন্টধারীদের জন্য) : অনলাইনে আবেদনের জন্য আবেদনকারীকে ট্রাস্ট ব্যাংক মোবাইল মানির (টিবিএমএম) গ্রাহক হয়ে মুঠোফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে নিচের এসএমএসটি টাইপ করে Trustmm BNRF < space> OTBMMPIN Candidate’s মোবাইল নম্বর start with 88 (৮৮) লিখে ০৩৫৯০০১৬২০১ নম্বরে পাঠিয়ে দিতে হবে। এ জন্য আবেদনকারীর টিবিএমএম অ্যাকাউন্টে কমপক্ষে ৭২০ টাকা থাকতে হবে। টাকা জমা দেয়ার পর একটি ট্রানজেকশন আইডি আবেদনকারীর মোবাইলে চলে আসবে, যা ব্যবহার করে www.navy.mil.bd থেকে Join Navy লিংকে ক্লিক করে অথবা সরাসরি www.joinnavy.navy.mil.bd এই ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইনে ভর্তি ফরম পূরণ করে জমা দিতে হবে। ফরম পূরণের সময় ওই ট্রানজেকশন আইডি নম্বরটি ফরমের পেমেন্ট পেজের যথাস্থানে লিখতে হবে। সঠিকভাবে ফরম পূরণ শেষে প্রার্থীকে অনলাইনেই কল-আপ লেটার পাঠানো হবে, এ ক্ষেত্রে অনলাইনে ফরম পূরণ শেষে এর একটি প্রিন্ট নিতে হবে, যা পরবর্তী সময়ে প্রাথমিক সাক্ষাৎকারের সময় সাথে নিয়ে আসতে হবে।

সরাসরি ফরম পূরণ (টিবিএমএম অ্যাকাউন্টধারী নন) : সরাসরি ফরম পূরণের জন্য যারা টিবিএমএমের গ্রাহক নন, তারা ট্রাস্ট ব্যাংকের যেকোনো শাখা অথবা ট্রাস্ট ব্যাংকের মনোনীত পে-পয়েন্টে গিয়ে ‘বিএন রিক্রুটমেন্ট ফান্ড’ ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, প্রিন্সিপাল ব্রাঞ্চ, ঢাকার অনুকূলে ৭০০ টাকার ভর্তি ফি জমা দেয়ার পর প্রার্থী প্রাপ্ত নোটিফিকেশন এসএমএস ও মানিরিসিট পাবেন, যাতে একটি ট্রানজেকশন আইডি থাকবে, এ আইডি নম্বরটি অনলাইনে ফরম পূরণের ক্ষেত্রে পেমেন্ট পেজের যথাস্থানে লিখতে হবে এবং ম্যানুয়ালি ফরম পূরণের ক্ষেত্রে ব্যাংক ড্রাফটের ঘরে লিখতে হবে। পে পয়েন্ট ও ট্রাস্ট ব্যাংকের শাখার বিস্তারিত তালিকা http : // trustbank.com.bd/ download/ Trust_ Bank_Branch_Paypoint_List.pdf থেকে পাওয়া যাবে।

প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও প্রাথমিক সাক্ষাৎকার : ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনা কেন্দ্রে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও প্রাথমিক সাক্ষাৎকার আগামী ২১-২৪ আগস্ট ২০১৭ (পরিবর্তনযোগ্য) তারিখে অনুষ্ঠিত হবে।

লিখিত পরীক্ষা : প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ও প্রাথমিক সাক্ষাৎকারে উপযুক্ত বিবেচিত প্রার্থীদের বুদ্ধিমত্তা, ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে লিখিত পরীক্ষা আগামী ২৫ আগস্ট ২০১৭ (পরিবর্তনযোগ্য) তারিখে উল্লিখিত কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে।

আইএসএসবি কর্তৃক পরীক্ষা ও সাক্ষাৎকার : লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের আন্তঃবাহিনী নির্বাচন পর্ষদ (আইএসএসবি) কর্তৃক পরীক্ষা এবং সাক্ষাৎকার আন্তঃবাহিনী নির্বাচন পর্ষদ (আইএসএসবি), ঢাকা সেনানিবাস, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে।

চূড়ান্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষা : আইএসএসবি কর্তৃক নির্বাচিত প্রার্থীদের চূড়ান্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা সেনানিবাসস্থ বিএনএস হাজী মুহসীনে উপস্থিত হতে হবে।

চূড়ান্ত মনোনয়ন পর্ষদ : চূড়ান্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষায় উপযুক্ত প্রার্থীদের নৌসদর কর্তৃক চূড়ান্ত মনোনয়ন পর্ষদ কার্যক্রম ডিসেম্বর ২০১৭-এর মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে।

নেভাল একাডেমিতে যোগদান : চূড়ান্তভাবে মনোনীত প্রার্থীরা জানুয়ারি ২০১৮-এর প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশ নেভাল একাডেমি, পতেঙ্গা, চট্টগ্রামে অফিসার ক্যাডেট হিসেবে যোগদান করবেন।

প্রশিক্ষণ/কমিশন : চূড়ান্তভাবে বাছাইকৃত প্রার্থীরা প্রথমে বাংলাদেশ মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে ১০ সপ্তাহের প্রশিক্ষণসহ বাংলাদেশ নেভাল অ্যাকাডেমিতে অফিসার ক্যাডেট হিসেবে ২৪ মাস ও মিডশিপম্যান হিসেবে ১২ মাস প্রশিক্ষণসহ মোট তিন বছর মেয়াদি প্রশিক্ষণ শেষে বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে তাদের সাব-লেফটেন্যান্ট পদে নিয়মিত কমিশন প্রদান করা হবে। একাডেমিতে পেশাগত প্রশিক্ষণের পাশাপাশি এক্সিকিউটিভ শাখার ক্যাডেটদের মেরিটাইম সায়েন্স বিষয়ে বিএসসি (অনার্স) এবং সাপ্লাই শাখার ক্যাডেটদের বিবিএ ডিগ্রি বিইউপি থেকে প্রদান করা হবে। ইঞ্জিনিয়ারিং ও ইলেকট্রিক্যাল শাখার ক্যাডেটদের বুয়েট/ এমআইএসটি থেকে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি প্রদান করা হবে।

বেতনভাতা : চূড়ান্তভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত অফিসার ক্যাডেটরা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত অন্যান্য সুবিধাসহ সশস্ত্র বাহিনীর বেতনক্রম অনুযায়ী বেতন ও ভাতা পাবেন। পরে মিডশিপম্যান হিসেবে পদোন্নতির পর উচ্চতর স্কেলে বেতন প্রাপ্ত হবেন।

সুযোগ-সুবিধা : সি, এয়ার ও ল্যান্ড এ তিনটি মাধ্যমেই চাকরির সুযোগ, প্রশিক্ষণের বিভিন্ন পর্যায়ে ও কমিশনপ্রাপ্তির পর মেধাবী ক্যাডেট ও অফিসারদের প্রশিক্ষণের জন্য বিদেশ গমনের সুযোগ। দেশে-বিদেশে সরকারি খরচে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে উচ্চতর প্রশিক্ষণের (এমএসসি, এমবিএ, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, এমএস) সুযোগ, বাসস্থান প্রাপ্তি, চিকিৎসা সুবিধা, জাতিসঙ্ঘ শান্তিরক্ষা মিশনে যোগদানের সুযোগ পাবেন।
আবেদনপত্রের সাথে সংযুক্তি হিসেবে যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হবে : ফরমটি পূরণপূর্বক নিচে বর্ণিত কাগজপত্র/ ছবিসহ জমা দিতে হবে। আবেদনপত্রের সাথে সংযুক্তি হিসেবে প্রার্থীর সদ্য তোলা তিন কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি, ৮ টাকার অব্যবহৃত ডাকটিকিট লাগানো ও নিজ ঠিকানা সংবলিত ১০ ইঞ্চি × ৪ ইঞ্চি আকারের একটি খাম, ম্যানুয়ালি ফরম পূরণের ক্ষেত্রে ফরমটি পাঠানোর আগে ট্রাস্ট ব্যাংক/বুথ থেকে প্রেরিত মানিরিসিট অথবা অন্য কোনো ব্যাংক থেকে প্রাপ্ত পে-অর্ডার ফরমের সাথে সংযুক্ত করতে হবে।

অনলাইনে আবেদনকৃতদের ক্ষেত্রে : ম্যানুয়াল প্রার্থীরা যথাযথভাবে পূরণকৃত ফরমটির মূলকপি নৌসদরে পাঠাতে হবে ও ফটোকপিসহ বর্ণিত সনদপত্র সংযোজন করে প্রাথমিক সাক্ষাৎকারের সময় সাথে আনতে হবে। অন্যদিকে অনলাইনে আবেদনকৃতদের ক্ষেত্রে অনলাইন ফরম পূরণ করে প্রিন্ট কপির সাথে নিচের কাগজপত্র সংযোজন করে প্রাথমিক সাক্ষাৎকারের সময় জমা দিতে হবে। কাগজপত্রগুলো হলো- এক কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি, সব শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র ও মার্কশিটের কপি, নিজ নিজ ইউপি চেয়ারম্যান/পৌরসভার মেয়র বা ওয়ার্ড কাউন্সিলরের দেয়া নাগরিকত্বের সনদ ও প্রথম শ্রেণীর গেজেটেড কর্মকর্তা কর্তৃক চারিত্রিক সনদপত্রের কপিসহ পরিচালক, পার্সোনেল সার্ভিসেস পরিদফতর, নৌবাহিনী সদর দফতর, বনানী, ঢাকা-১২১৩ এই ঠিকানায় জমা দিতে হবে।

যোগাযোগ : ফোন : ৯৮৩৬১৪১-৯,
বর্ধিত : ২২১৫, হেল্পলাইন : ০১৭৬৯৭০২২১৫

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রতি জেলায় বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পরিকল্পনা আছে: সংসদে শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক,২৯ জুন:   শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জানিয়েছেন, বর্তমানে দেশে সরকারি-বেসরকারি মিলে ১৩৪টি বিশ্ববিদ্যালয় আছে। সকলের জন্য উচ্চ শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করতে দেশের প্রতি জেলায় একটি করে সাধারণ-বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পরিকল্পনা আছে সরকারের।

বৃহস্পতিবার [২৯ জুন] সকালে জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি বেগম পিনু খানের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে  সকাল ১০টা ৫ মিনিটে অধিবেশন শুরু হয়।

নুরুল ইসলাম নাহিদ সংসদকে জানান, বর্তমানে দেশে ১৩৪টি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। তন্মধ্যে ৩৯টি সরকারি এবং ৯৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এ সব বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক (সম্মান) পর্যায়ে ভর্তির জন্য মোট ৬ লাখ ২৬ হাজার ৩৫৮টি আসন রয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এ ছাড়া বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় নামে আরও দুটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের লক্ষে মন্ত্রিপরিষদ কর্তৃক আইন অনুমোদিত হয়েছে। বর্তমানে বিলটি রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলরের অনুমোদনের জন্য অর্থ বিভাগে প্রেরণ করা হয়েছে।

তিনি জানান, সকলের জন্য উচ্চ শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে দেশের প্রতি জেলায় একটি করে সাধারণ-বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। এর অংশ হিসেবে বর্তমান সরকারের বিগত মেয়াদে ২০০৯ সাল হতে এ পর্যন্ত দেশে ৮টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। পাশাপাশি ৪২টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন ও একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

কুমিল্লায় দুই স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ

কুমিল্লা: কুমিল্লায় ২ স্কুলছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। নগরের শাকতলা এলাকায় একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে দুই কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। কিশোরীদের মধ্যে একজনের বয়স ১৩ বছর, আরেকজনের বয়স ১১ বছর। তারা সম্পর্কে খালা-ভাগনি। এ ঘটনায় ওই দুই ছাত্রীর এক আত্মীয় বাদী হয়ে আজ রাতে ৩ ধর্ষককে এজাহার নামীয় এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৪-৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার অভিযোগ ও শিক্ষার্থীরা জানান, একজন নগরীর একটি স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী (১৩) ও তার বোনের মেয়ে (১১) তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। বুধবার সকাল ১০টার দিকে তারা শাকতলা এলাকার এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে ঠাকুরপাড়ার বাসায় যাচ্ছিল। পথে তিন বখাটে তাদের পথ আগলে দাঁড়ায়। একপর্যায়ে ওই বখাটেরা একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাদের গণধর্ষণ করে। তখন সেখানে আরও দুজন ব্যক্তি দাঁড়িয়ে পাহারা দিয়েছেন। এসময় ওই ছাত্রীদের ছবি তোলা হয় এবং তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। এরপর ওই কিশোরীদের পরিবারের সদস্যদের ডেকে এনে টাকা চায় বখাটেরা। পরিবারের সদস্যরা ৮ হাজার টাকা দেবেন বলে আশ্বাস দিয়ে কিশোরীদের ছাড়িয়ে নেন।

এরপর দুই ছাত্রী বাসায় ফিরে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের বিষয়টি জানান। পরিবারের লোকজন স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তিকে ঘটনাটি জানায় এবং তাদের পরামর্শে ও এক আত্মীয়ের সহায়তায় বুধবার রাত ৯টার দিকে দুই ছাত্রীকে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় নেয়া হয়। এ ঘটনায় ভিকটিমদ্বয়ের আত্মীয় জেসমিন আক্তার বাদী হয়ে ৩ ধর্ষককে এজাহার নামীয় এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে রাতে সদর দক্ষিণ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, রাতে ভিকটিমরা থানায় আসার পর তাদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানায় মামলা নথিভূক্ত করা হয়েছে। ধর্ষকদের মধ্যে সজিব নামের একজনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ভিকটিমদের ডাক্তারী পরীক্ষা করানো হবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হচ্ছে না : ব্যাংকের আবগারি শুল্ক তিন স্তরে

স্টাফ রিপোর্টার: অবশেষে মূল্য সংযোজন কর বা ভাট আইনের বাস্তবায়ন দুই বছরের জন্য পিছিয়ে দেয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এই ঘোষণা দেন। ঈদের ছুটির পর গতকাল সংসদের মূলতবি বাজেট অধিবেশন শুরু হয়। এতে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে নতুন ভ্যাট আইনের কার্যকারিতা দুই বছর পেছানোর আহ্বান জানান। আগে থেকেই অবশ্য বলা হয়েছিলো যে, প্রস্তাবিত ভ্যাট আইনের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী সংসদে খোলাসা বক্তব্য দেবেন।

গত পহেলা জুন ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উত্থাপনকালে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর করার ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী। এই আইনে ঢালাও   ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয় যা মূল্যস্ফীতি বাড়াবে বলে শুরুতেই সমালোচনায় পড়ে। সংসদ এবং সংসদের বাইরে ভ্যাট আইনটি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়। শেষ পর্যন্ত গতকাল এর সমাধান দেন প্রধানমন্ত্রী। যদিও আগে থেকেই বোঝা যাচ্ছিলো যে, আইনটির কার্যকারিতা দুই বছরের জন্য স্থগিত করা হতে পারে।

অর্থমন্ত্রী গতকাল জাতীয় সংসদে তার বক্তব্যে কর আরোপ প্রক্রিয়ায় মূল্য সংযোজন কর ব্যবস্থাকে একটি উত্তম পন্থা হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, ১৯৯১ সালে প্রণীত মূল্য সংযোজন কর আইনটি বহু সংশোধনীর পর অফলপ্রসূ হয়ে পড়ায় ২০০৮ সালেই একটি নতুন মূসক আইন প্রণীত হয়। এইটি নিয়ে প্রায় চার বছর নানা আলোচনা বিতর্ক চলে। অবশেষে ২০১২ সালে নতুন আইন প্রণয়ন করা হয়, যা এই মহান সংসদে পাস হয়।

তিনি বলেন, এই আইনটির কার্যকারিতা কিন্তু ধাপে ধাপে বাড়ানো হয়েছে। এ বছর জাতীয় রাজস্ব বোর্ড পূর্ব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিধায় এবারের বাজেটে আইনটি কার্যকর করার প্রস্তাব করা হয়েছিলো। এ বিষয়ে সংসদ সদস্যরা তাদের প্রাজ্ঞ মতামত দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীও এই বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। সেই প্রেক্ষিতে মূসক আইনের পূর্ণ কার্যকারিতা পিছিয়ে দেয়ার প্রস্তাব করছি। আগের ধারাবাহিকতায় কিছু সংশোধন করে ২০১২ সালের আইনই যেভাবে গত ৪ বছর ধরে পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়িত হচ্ছে ঠিক তেমনিভাবে বর্তমান সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

অর্থমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর ঢালাও ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপের বিষয়টি আর থাকছে না। এখন থেকে আগের গত চার বছর ধরে চলে আসা নিয়মই বহাল থাকবে। তবে ক্ষেত্রেভেদে কিছু পরিবর্তন হতে পারে। অর্থমন্ত্রীও কিছু ক্ষেত্রে সংশোধনী প্রস্তাব দিয়েছেন। এসব প্রস্তাবসহ অর্থ বিল ২০১৭ জাতীয় সংসদে কণ্ঠভোটে পাস হয়।

আবগারি শুল্ক কমেছে: এদিকে, বহুল আলোচিত আবগারি শুল্ক হারেও পরিবর্তন আনা হয়েছে। ব্যাংকে টাকা লেনদেনের ওপর আরোপিত আবগারি শুল্ক নিয়েও ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়। আগে ২০ হাজার টাকা থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত বছরে দেড়শ’ টাকা আবগারি শুল্ক কেটে রাখা হতো। নতুন বাজেটে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত মওকুফ করে দিয়ে ১ লাখের বেশি হলে ৮শ টাকা শুল্ক আরোপ করা হয় যা আগে ছিলো ৫শ  টাকা। আলোচনা সমালোচনার পর এই হারেও পরিবর্তন আনা হয়। তিনটি স্তরে এই পরিবর্তনের ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী।

সংশোধিত প্রস্তাবে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেনে আবগারি শুল্ক হার মওকুফ করা হয়। ১ লাখ টাকা থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত দেড়শ টাকা, ৫ লাখ থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ৫শ টাকা, ১০ লাখ টাকা থেকে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত আড়াই হাজার টাকা শুল্কারোপের প্রস্তাব করা হয়। ১ কোটি থেকে ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত ১২ হাজার টাকা এবং ৫ কোটি টাকার বেশি হলে ২৫ হাজার টাকা আবগারি শুল্ক কর্তনের নতুন প্রস্তাব দেয়া হয়।

আরো যেসব সংশোধনী: অর্থমন্ত্রী তার বক্তৃতায় আরও কিছু সংশোধনীর কথা তুলে ধরেন। তিনি সংসদে জানান, রাজস্ব প্রস্তাব সম্বন্ধে বিভিন্ন মহল থেকে শুল্ক-করাদি বাড়ানো অথবা কমানো অথবা বাদ দেয়ার জন্য অনেক প্রস্তাব গত কয়েক মাসে পাওয়া গেছে। জাতীয় সংসদের আলোচনায় এই সব প্রস্তাবের অনেকগুলো তুলে ধরা হয়েছে। এই সব প্রস্তাবের বেশিরভাগই বাজেট চূড়ান্তকরণের সময়ে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ ও নির্দেশনা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

সংশোধিত প্রস্তাব অনুযায়ী, কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনকে একটি সমাজকল্যাণমূলক কার্যক্রম হিসেবে বিবেচনা করে এবং ধ্যান অথবা যোগ (মেডিটেশন)-এর ওপরে আগামী ২ বছর ভ্যাট থাকছে না। কম্পিউটার, সেলুলার ফোন এবং তার যন্ত্রাংশ এখন দেশে তৈরি হচ্ছে জানিয়ে এগুলোকে মূল্য সংযোজন কর অব্যাহতি প্রজ্ঞাপনে অন্তর্ভুক্ত করে ভ্যাট অব্যাহতি দেয়ার কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। বহাল থাকছে শিপব্রেকিংয়ের বিষয়ে বর্তমানে বলবত প্রজ্ঞাপন। মোটরসাইকেল শিল্পের উপর স্থানীয় উত্পাদন পর্যায়ে আরোপনীয় সমুদয় মূল্য সংযোজন কর অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। মাইক্রোসফট বাংলাদেশ লিমিটেড অনেক সফটওয়্যার আমদানি করে এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে ২৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রদান করে এবং কতিপয় পণ্য বিনা আমদানি শুল্কে আমদানি করে। যেসব পণ্যে আমদানি শুল্ক  নেই  সেগুলোর উপরে প্রস্তাবিত ভ্যাট অব্যাহতির ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী। রেফ্রিজারেটর সংযোজনকারীদের উপর প্রযোজ্য ৩০ শতাংশের স্থলে ২০ শতাংশ হারে সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে।

এলপিজির ব্যাপক ব্যবহারের লক্ষ্যে কম্পোজিট অর্থাত প্লাস্টিক ও গ্লাস ফাইবার নির্মিত এলপিজি কন্টেইনারের ওপর আমদানি পর্যায়ে ভ্যাট অব্যাহতির ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, এলপিজি সিলিন্ডার এখনো আমদানি নির্ভর হওয়ায় স্থানীয় শিল্পের সুরক্ষার স্বার্থে আমদানি পর্যায়ে লৌহনির্মিত এলপিজি কন্টেইনারের ওপর ভ্যাট বহাল রাখার প্রস্তাব করছি। এক কথায় গত বছর যে ব্যবস্থাটি ছিলো সেটাই অব্যাহত থাকছে।

অর্থমন্ত্রীর সংশোধিত প্রস্তাব অনুযায়ী, মোটরসাইকেলের সব যন্ত্রপাতি উত্পাদনকে সাহায্য করার জন্য গত বছরের অর্থ বিলে প্রগ্রেসিভ উত্পাদনকে কিছু কর/শুল্কের সুবিধা দেয়া হয়েছিলো। এবারও এই খাতের ওপর বর্ধিত শুল্ক করাদি মওকুফ করার প্রস্তাব রাখেন অর্থমন্ত্রী। একইভাবে প্রস্তাবিত সোলার প্যানেলের আমদানি শুল্ক বাদ দেয়া হয় চূড়ান্ত প্রস্তাবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

রাবি’র মেধাবী ছাত্র আমান উল্লাহ নিহত

গাংনী প্রতিনিধি: আমান উল্লাহ। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কাঁপানো একজন মেধাবী ছাত্র। শুধু লেখাপড়ায় নয়, সামাজিক কাজের সাথেও জড়িত ছিলেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ইচ্ছে’ নামের একটি সামাজিক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের গন্ডি পেরিয়েছেন মেধার পরিচয় দিয়ে। স্বপ্ন ছিলো বড় অর্থনীতিবিদ হবেন। গত ২৯ মে তিনি ফেসবুকে স্টাটাস দিয়েছিলেন ‘অতঃপর গৃহাভিমুকে রওনা হইলাম….’। বাড়িও এসেছিলেন। পরিবারের সাথে ঈদ উদযাপন করতে। কিন্তু ঈদের দিন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় তিনি চলে গেলেন না ফেরার দেশে। শ্যালোইঞ্জিন চালিত অবৈধযান আলগামনের সাথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। সড়ক দুর্ঘটনা কেড়ে নিয়েছে একটি পরিবারের ঈদ আনন্দ, ভবিষ্যত স্বপ্ন ও একজন মেধাবীকে। আমান উল্লাহর ফেসবুক বন্ধু রাসিদুল ইসলাম ওই স্টাটাসে লিখেছেন ‘ভাই, তুমি কোন বাড়ির উদ্দেশ্যে যে রওনা দিলে’। ভোমরদহ গ্রামের ক্ষণজন্ম এই আমান উল্লাহর মৃত্যুতে পরিবারে এখনো শোকের মাতম বইছে। আত্মীয়স্বজন, সহপাঠী, প্রতিবেশীসহ পরিচিতজনরাও শোকে কাতর। তার এভাবে চলে যাওয়া ভুলতে পারছেন না স্বজনরা। আমান উল্লাহ (২১) মেহেরপুর গাংনী উপজেলার ভোমরদহ গ্রামের মহির উদ্দীনের ছেলে ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি তৃতীয় বর্ষের ছাত্র।
জানা গেছে, ঈদের দিন দুুপুরের দিকে আমান উল্লাহ ঈদের দিন তার ভগ্নিপতি মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য’র পিএস সাইফুজ্জামান সিপুর পালসার মোটরসাইকেল নিয়ে গাংনী থেকে গ্রামের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন। মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সড়ক দিয়ে গাংনী উত্তরপাড়া অতিক্রম করার সময় একটি আলগামনের সাথে ধাক্কা লেগে গুরুতর আহত হন। আলগামন তার গায়ের ওপর দিয়ে চলে যায় বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। কুষ্টিয়া মেডিকেলে ভর্তির কয়েক মিনিটের মধ্যে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন আমান উল্লাহ। হাসপাতার থেকে মরদেহ নিজ বাড়িতে ফিরিয়ে নেয়া হয়। রাতে গ্রাম্য কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়। গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন জানান, তবে এ ঘটনায় পরিবার থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়নি। নসিমনটি শনাক্ত করে আটকের চেষ্টা চলছে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail
hit counter